নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমি \'স্মৃতিকাতরতা \' নামক ভীষণ এক রোগগ্রস্ত, সেই সাথে বিষাদগ্রস্থ মানুষ। আমার চিকিৎসার প্রয়োজন।

স্বপ্নবাজ সৌরভ

এক ফালি মেঘ, এক ফোঁটা জল- রংধনুকের একটি কণায়, একটি নিমেষ ধরতে চেয়ে আমার এমন কাঙালপনা ।

স্বপ্নবাজ সৌরভ › বিস্তারিত পোস্টঃ

যে কথা লিখবো বলে ঠিক করেছিলাম, তা আজও হলোনা লেখা ...

২৪ শে আগস্ট, ২০২২ বিকাল ৫:৪৭




তোমরা যারা ১৯৯৯ সালে ভেড়ামারা এস.এস.সি পরীক্ষাকেন্দ্র থেকে এস.এস.সি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছিলে তারা সকলে মিলে আগামী ঈদ-উল ফিতরের পরের দিন অথবা একদিন পর পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠান করবে বলে জানিয়েছো , তা জানতে পেরে খুশি হলাম। আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করি তোমাদের আশা সফল হোক।

তোমাদের সহপাঠী বন্ধু সৌরভ প্রায়ই আমাকে বলছে তোমাদের উদ্দেশ্যে কিছু একটা লেখার জন্য। আজ প্রায় ২০ বছর পার হয়ে গেল। অর্থাৎ ১৯৯৯ সালে নভেম্বর মাসে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের পদ থেকে অবসর নিয়েছি।

আমাকে কিছু লেখার জন্য বারবার অনুরোধ করছো কিন্তু কি লিখবো ? তোমরা যখন ১৯৯৯ সালে এস.এস.সি পরীক্ষা দিলে তখন আমি ভেড়ামারা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এবং পরীক্ষা কেন্দ্র সচিব ছিলাম।

এ প্রসঙ্গে তোমাদের স্মরণ করে দিতে চাই যে, ১৯৭০ সালে ভেড়ামারাতে প্রথম এস.এস.সি পরীক্ষাকেন্দ্র স্থাপিত হয়। ইতিপূর্বে থানা পর্যায়ে কোন পরীক্ষাকেন্দ্র ছিলো না (এস.এস.সি )। এই প্রথম ভেড়ামারা , মিরপুর এবং দৌলতপুর এই তিন থানা মিলে এস.এস.সি পরীক্ষাকেন্দ্র স্থাপিত হয় এবং এই সময় থেকে ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত দীর্ঘ ৩০ বৎসর আমি কেন্দ্র সচিবের দায়িত্ব পালন করেছি।

আমার কেন্দ্রসচিব থাকা অবস্থায় তোমাদের বন্ধু সৌরভের দুই বোন ১৯৮৬ সালে এস.এস.সি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছিল। বর্তমানে রেলওয়ে মন্ত্রণালয়ের উপসচিব আমার ভাতিজা সাইদুর রশিদ তপন ১৯৯১ সালে এবং আমার আরো দুই ভাতিজা ১৯৯৫ এবং ১৯৯৬ সালে এস.এস.সি পরীক্ষা দিয়েছিল। ১৯৯৯ সালে তোমাদের সহপাঠী ও বন্ধু সৌরভও আমার কেন্দ্রসচিব থাকা অবস্থায় এস.এস.সি পরীক্ষা দিয়েছে।

১৯৫২ সালে আমরা যখন দশম শ্রেণীর ছাত্র তখন একসময় স্কুলে কোন প্রধান শিক্ষক ছিলেন না। ঐ সময় আমাদের মিঞা ভাই মোহাঃ আবুল কাশেম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (এস.এম হলে) ইসলামের ইতিহাসের এম.এ শেষ বর্ষের ছাত্র ছিলেন। কমিটি তাকে অনুরোধ করে আমাদের স্কুলের প্রধান শিক্ষক হিসেবে নিয়ে আসেন। তিনি মাত্র ২/৩ মাসের জন্য প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করেছিলেন এবং পুনরায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে চলে যান। বর্তমান প্রধান শিক্ষকের অফিস কক্ষে প্রাক্তন প্রধান শিক্ষকদের নামের যে তালিকা আছে তাতে উনার নাম ৯ নাম্বারে (মোহাঃ আবুল কাসেম) লিখা আছে।

মিঞা ভাই ওই সালে অর্থাৎ ১৯৫২ সালে ইসলামের ইতিহাসে এম.এ ডিগ্রী লাভ করেন এবং অধ্যাপক হিসেবে বাগেরহাট প্রফুল চন্দ্র কলেজ (পিসি কলেজ) যোগদান করেন। তিনি কেবল এই স্কুলের প্রধানশিক্ষক ছিলেন না , তিনি এই বিদ্যালয়ের প্ৰাক্তন ছাত্র ছিলেন। তিনি ইসলামের ইতিহাসের ছাত্রছাত্রীদের জন্য (কলেজ পর্যায়ে ) তিনখানা পাঠ্য পুস্তক রচনা করেন। প্রথম পুস্তকের নাম হল '' ISLAM AND THE MODERN WORLD'' । দ্বিতীয় বই খানার নাম '' MUSLIM RULE IN INDIA'' এবং তৃতীয় বইখানার নাম '' ESSENTIALS OF ISLAMIC HISTROY'' । তোমাদের বলে রাখি , আমি এ তিনখানা বই-ই বাগেরহাট কলেজে অধ্যয়নকালে ইন্টারমিডিয়েট এবং ডিগ্রী ক্লাসে পড়েছিলাম। তাঁর রচিত চতুর্থ বইখানার নাম '' MUSLIM RELRGIOUS INSTITUATION'' যা একসময় করাচি বিশ্ববিদ্যালয়ে পঠিত হয়। এছাড়াও নবম ও দশম শ্রেণীর জন্য ইতিহাসের একখানা বই রচনা করেন। তার নাম ছিল ''প্রশ্নোত্তরে স্বদেশ সমাচার। ''

পরবর্তীতে ১৯৬০ সালে তিনি করাচি বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপক হিসেবে নিয়োগ প্রাপ্ত হন। দুর্ভাগ্য , তিনি যোগদান করতে পারেননি। ওই বছরে মানে ১৯৬০ সালে তিনি মারা যান। আজ তোমারদের এক মনীষীর সাথে পরিচয় করিয়ে দিলাম। যিনি এই ভেড়ামারা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলেন। আশাকরি তোমরা তাকে স্মরণ রাখবে।

তোমরা আমাকে তোমাদের উদ্দেশ্যে কিছু লেখার জন্য বলেছো , কিন্তু কি লিখবো ভাবছি। তোমাদের একটা গল্প বলি শোন , আমার যখন বাগেরহাট পিসি কলেজের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র তখন আমাদের ইংরেজি পড়াতেন তাঁর নাম ছিল , প্রফেসর পরেশ চন্দ্র ব্যানার্জী। তাঁকে কলেজের শেষ ক্লাসে ছাত্র ছাত্রী প্রশ্ন করলো ,
''স্যার আজ ৪ বৎসর আপনার কাছে পড়লাম কিন্তু কোনদিন কোন উপদেশ দিলেন না। ''
স্যার হাসতে হাসতে উত্তর দিলেন ,
' আরে । আমি তোদের কি উপদেশ দিবো ? তোরাই তো আর কিছুদিন পর গ্রাজুয়েট হয়ে দেশের প্রথম শ্রেণীর নাগরিক হবি , তোরাই তো উপদেশ দিবি। আমি তোদের কি উপদেশ দিবো। এই বলে স্যার হাসতে হাসতে '' LAUGH AND BE MERRY'' কবিতা আবৃত্তি করলেন।
আর বললেন ,
'' জীবনে যত রকম আনন্দ করতে ইচ্ছা করে তা করিস কিন্তু যেন এই আনন্দে রাস্তার একটা সাধারণ ভিক্ষুকও দীর্ঘশ্বাস না ফেলে।''

আর একটা কথা আমাদের বললেন , '' দেখ ময়না পাখিকে যা শেখানো হয় তাই বলে কিন্তু হঠাৎ বিড়াল এসে ধরলে ময়না সব কথাই ভুলে যায় এবং চ্যাও চ্যাও করে চিৎকার করে। কিন্তু বলতে পারে না আমাকে বিড়াল ধরেছে। পরীক্ষা তোদের কাছে বিড়াল। এতদিন যা শিখেছিস বা মুখস্ত করেছিস তা তোদের ময়নার বুলি শেখার মত। পরীক্ষার হলে যেন কোন ভুল না হয়। আর এটা জীবনে কাজে লাগাবি।''

ডিগ্রী টেস্ট পরীক্ষায় ইংরেজিতে আমরা কেউই পাশ করলাম না ! যে সব থেকে বেশি নাম্বার পেলো তা হল ২০! আমার কয়েকজন ছাত্র স্যারের বাসায় গিয়ে প্রশ্ন করলাম। স্যার বলেলেন , '' দেখ , আমি ২০ দিলাম আর তোরা ফাইনাল পরীক্ষায় ৫০ পেলি। আর আমি ৫০ দিলাম আর তোরা ফেল করলি। কোনটা ভালো ?'' স্যারের এই কথা শুনে আমরা চলে আসলাম।

এখন আমি তোমাদের একটা প্রশ্ন করি , বলতো তোমাদের মা কয়জন ? শোনো , মা চারজন। (১) জন্মদাত্রী মা (২) জন্মভূমি মাতা (৩) বিদ্যালয় / স্কুল - স্কুল থেকে যে টুকু অর্জন করেছো , তাতে তুমি আজ এতদূর উঠতে পেরেছো (৪) তোমার কর্মস্থল অর্থাৎ তুমি যেখানে কাজ করে উপার্জন করছো , তা দিয়ে সংসার চালাচ্ছ , সন্তানদের লেখাপড়া শেখাচ্ছ। আজ বড় বড় পজিশনের মালিক হচ্ছ। আবার কেউ শিল্পপতি হচ্ছ। সুতরাং এ প্রতিষ্ঠান তোমার মা।
এই চার মায়ের কাছে তোমরা চিরঋণী। এদের প্রতি তোমাদের দায়িত্ব আছে।

তোমার যে বিদ্যালয় থেকেই ১৯৯৯ সালে ভেড়ামারা এস.এস.সি পরীক্ষা কেন্দ্রে পরীক্ষা দিয়েছিলে তারা প্রত্যেকেই যেন তাদের বিদ্যালয় কে 'মা ' মনে করে এবং বিদ্যালয়ের উন্নয়ন কাজে সাহায্য করে।

গত বছর একদিন স্কুলে গিয়েছিলাম। তখন বর্ষাকাল। দেখি , প্রধান শিক্ষকের অফিস কক্ষে এবং কেরানি সাহেবের অফিসের ভিতরে বৃষ্টির পানি ঢুকেছে। ঐ সময় একজন ছাত্র বর্তমানে ঐ স্কুলের শিক্ষক , আমার প্রাক্তন ছাত্র আমাকে বললো , '' স্যার, এই বিল্ডিংয়ের ভিত্তি যদি আর দুই ফুট উঁচু করতেন তাহলে আজ এই অবস্থা হতো না।'' আমি আজ ঐ শিক্ষকের উদ্দেশ্যে বলতে চাচ্ছি , ''তখন আমি ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক ছিলাম না। ''
এখানে তোমাদের কিছু তথ্য দিয়ে রাখতে চাই যে , ১৯৬০-১৯৬১ সালে তৎকালীন পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খান সাহেব আমাদের স্কুলকে Bilateral স্কুলের অন্তর্ভুক্ত করেন। ওই সময় থেকে '' ভেড়ামারা হাইস্কুল'' কে বলা হত ''Bilateral High School With Advanced Science and General Courses.'' এবং ঐ সময় গৃহ নির্মাণের জন্য তিনি যে অর্থ বরাদ্দ করেন তা দিয়ে আমাদের বিদ্যালয়ের বর্তমান দক্ষিণ দুয়ারী তিনতলা ভবনের পশ্চিম দিকে প্রধানশিক্ষকের অফিস , কেরানি সাহেবের অফিস এবং একটা ক্লাসরুম নির্মাণ করা হয়।

১৯৬০-৬১ অর্থ বছরে ভেড়ামারা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছিলেন জনাব আজিজুর রহমান আক্কাস এবং সহকারী প্রধান শিক্ষক ছিলেন হাফেজ আব্দুর রশিদ সাহেব। ঐ ভবনের ভিত নিচু হবার জন্য আমাকে অপরাধী করা ঠিক না আর বর্ষণের সময় হেডস্যারের অফিসসহ অন্যান্য রুমে বৃষ্টির পানি ঢুকে জিনিসপত্র নষ্ট হয়ে যায় , এর জন্য আমি দায়ী না। কারণ ঐ সময় তৎকালীন প্রধান শিক্ষক যদি ঐ ভবনের ভিত ১/২ ফুট করতেন তবে আজ এই অবস্থা হতো না।

তোমাদের আরও কিছু তথ্য দিয়ে রাখি। তা হচ্ছে , ১৯৮০ সালে রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান প্রতিটি থানায় দুই টি করে মাধ্যমিক স্কুলকে 'পাইলট' স্কুলে রূপান্তরিত করেন (বালক ১ টি এবং বালিকা ১ টি ) । ঐ সময় থেকে ভেড়ামারা স্কুলকে - ভেড়ামারা পাইলট হাইস্কুলে নামান্তরিত করা হয়। আরো জানিয়ে রাখি , ১৯৮৪ সালে স্কুলকে কমিউনিটি প্রজেক্ট এ অন্তর্ভুক্ত করা হয় এবং ১৯৯৬ সালে এস.এস.সি ভোকেশনাল কোর্স চালু করা হয় কিন্তু বিশেষ কিছু কারণে ১৯৯৭ সালে ছাত্র ভর্তি শুরু করা হয়। এখানে তিনটি বিষয়ে পাঠদান করা হয়। (১) গৃহ নির্মাণ (২) মেকানিক্যাল (৩) ইলেক্ট্রিক্যাল।

পরিশেষে তোমাদের বলতে চাই , বাংলাদেশের বর্তমান জনসংখ্যা ১৬ কোটির অধিক কিন্তু মানুষের সংখ্যা অত্যন্ত কম। রক্তের বিনিময়ে ১৯৭১ সালে যারা এদেশ কে স্বাধীন করেছিল তোমরা তাদের কথা চিন্তা করে সকল দুর্নীতির ঊর্ধ্বে থেকে দেশকে সত্যিকারের স্বাধীন দেশ হিসেবে গড়ে তুলবে। এটাই আমার প্রত্যাশা। তোমরা দেশটাকে পৃথিবীর শ্রেষ্ট দেশের অন্তর্ভুক্ত করবে।

তোমরা হয়তো অনেকেই জানো না । ১৯৭১ সালের ২৩ মার্চ , পাকিস্তানের প্রজাতন্ত্র দিবস। ঐদিনে শোষকের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে কুষ্টিয়া জেলায় সর্ব প্রথম বাংলাদেশের মানচিত্র খচিত স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তোলন করেছিলাম। শুধু এই দেশের জন্য , তোমাদের জন্য। এটা আমার অহংকার বলতে পারো। জানতাম এটা আমার জীবনের হুমকি ছিল। কিন্তু ভয় পাইনি। ভয় পেলে দায়িত্ব পালন করা যায় না। তখন ওটাকে দায়িত্বই মনে হয়েছিল। দেশের প্রতি দায়বদ্ধতা। তাই আমি সবাইকেই এই উপদেশ দিই - তোমার এই দেশটাকে খুব ভালোবাসবে।

অনেক কিছু লেখার ইচ্ছা ছিল কিন্তু অসুস্থতার কারণে তা পারলাম না। যদি বেঁচে থাকি , আল্লাহ চাইলে তোমাদের অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবো আমি। আরো অনেক কথা বলবো। যে কথা লিখবো বলে ঠিক করেছিলাম, যা আজও হলোনা লেখা।

বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের বিখ্যাত সোনার তরী কবিতার দুটি লাইন দিয়েই আজকের মত তোমাদের কাছ থেকে বিদায় নিচ্ছি।
'' ঠাঁই নাই, ঠাঁই নাই-- ছোটো সে তরী
আমারি সোনার ধানে গিয়েছে ভরি।''


মোঃ রুহুল ইসলাম
এম.এ.বি.এড
প্রাক্তন ছাত্র ও অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক
ভেড়ামারা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়।

চ্যানেল ওয়ানের একটা অনুষ্ঠানে তাঁর কয়েকটি কথা।

**** আব্বার লেখা এর আগেও পোস্ট করেছিলাম। এই লেখাটিও শুনে শুনে লিখেছিলাম আমরা।

মন্তব্য ২১ টি রেটিং +৫/-০

মন্তব্য (২১) মন্তব্য লিখুন

১| ২৪ শে আগস্ট, ২০২২ সন্ধ্যা ৬:২৭

জুল ভার্ন বলেছেন: স্যালুট। অজস্র স্যালুট অন্তরের অন্তস্তল থেকে। ❤️

২৫ শে আগস্ট, ২০২২ সকাল ৯:৩২

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
বাবাকে দুইবার পাক আর্মি ধরে নিয়ে গিয়েছিলো।

২৫ শে আগস্ট, ২০২২ সকাল ১১:০৫

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন: একটা ভিডিও সংযুক্ত করেছি।

২| ২৪ শে আগস্ট, ২০২২ সন্ধ্যা ৭:১৬

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: মিয়া ভাই মনে হয় অনেক কম বয়সে মারা গেছেন।

পরেশ চন্দ্র ব্যানারজি স্যার একটা ভালো কথা বলেছেন;
'' জীবনে যত রকম আনন্দ করতে ইচ্ছা করে তা করিস কিন্তু যেন এই আনন্দে রাস্তার একটা সাধারণ ভিক্ষুকও দীর্ঘশ্বাস না ফেলে।''

পাইলট স্কুল অনেক আছে। কিন্তু কেন পাইলট স্কুল বলা হয়?

নিজের জীবনের ঝুকি নিয়ে বাংলাদেশের পতাকা ওড়ানোর জন্য আপনার আব্বার প্রতি শ্রদ্ধা জানাচ্ছি।

আপনার আব্বা একজন আদর্শবান মানুষ ছিলেন। এই যুগে এই রকম মানুষ কম আছে। আমাদের কয়েকজন শিক্ষককে দেখেছিলাম যারা অনেক উন্নত আদর্শ ধারণ করতেন। একজন ম্যাডামকে পেয়েছিলাম অনেক আদর্শবান। ম্যাডামের কথা মাঝে মাঝে মনে পড়ে।

২৫ শে আগস্ট, ২০২২ সকাল ১১:০৮

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন: আপনার মন্তব্যের প্রতিউত্তর নিয়ে পরে আসছি।
একটা ভিডিও এর লিঙ্ক সংযুক্ত করেছি।

৩| ২৪ শে আগস্ট, ২০২২ সন্ধ্যা ৭:১৯

মনিরা সুলতানা বলেছেন: এই যে লিপিবদ্ধ করেছেন , এ সবই ইতিহাস আর সম্পদ !


২৫ শে আগস্ট, ২০২২ সকাল ১১:০৯

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন: অনেক আগে শুরু করলে কিছু একটা হতো।
দেরী হয়ে গেছে।
একটা লিঙ্ক সংযুক্ত করেছি।

৪| ২৪ শে আগস্ট, ২০২২ সন্ধ্যা ৭:৫৯

শূন্য সারমর্ম বলেছেন:


উপদেশ দেবার মত যোগ্যতা অর্জন করতে ট্রেনিং করতে হয়??

২৫ শে আগস্ট, ২০২২ সকাল ১১:১০

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন: সম্ভবত ! ট্রেনিংটা সম্ভবত নিজের সাথেই। প্রশ্নটা ভালো লাগলো।
একটা লিঙ্ক শেয়ার করছি মূল পোষ্টে।

৫| ২৫ শে আগস্ট, ২০২২ রাত ১২:১৩

রাজীব নুর বলেছেন: আপনার বাবা কি আশেপাশের গ্রাম থেকে গরিব ছেলেমেয়েদের স্কুলে এনে বিনামূল্যে পড়ার ব্যবস্থা করেছিলেন?

২৫ শে আগস্ট, ২০২২ সকাল ৯:২৯

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
আপনি যেভাবে বলছেন সেভাবে কিনা জানি না। তবে অনেক গরীব ছাত্রদের পড়ার ব্যবস্থা করেছেন। এসএসসি রেজিঃ ফিস হাফ বা বিনামূল্যে ব্যবস্থা করে দিতেন। তার যেসব ছাত্র ভালো পজিশনে চলে গেছিলো তার মাধ্যমে উপবৃত্তি চালু করেছিলেন। আছে হয়তো অনেকেই কিছু আমার ঠিক জানা নেই।



প্রথম অবস্থায় যখন শিক্ষক সঙ্কট ছিল তখন শিক্ষক খুঁজে এনেছিলেন। তার সেই প্রচেষ্টা সফল হয়েছিল। স্কুলের ভিত সেই কারণে নড়েনি।

৬| ২৫ শে আগস্ট, ২০২২ সকাল ১০:২৪

খাঁজা বাবা বলেছেন: উপদেশ সবাই দিতে পারে।
ভাল কাজ করার মানুষ কম।

২৫ শে আগস্ট, ২০২২ সকাল ১১:০২

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
ঠিক বলেছেন।

৭| ২৫ শে আগস্ট, ২০২২ বিকাল ৩:৪৭

রাজীব নুর বলেছেন: ধন্যবাদ আপনাকে আমার মন্তব্যের উত্তর দেওয়ার জন্য।

ভালো থাকুন।

৮| ২৫ শে আগস্ট, ২০২২ বিকাল ৪:২৭

মোহাম্মদ গোফরান বলেছেন: আপনি নস্টালজিয়া ৯৯ ব্যাচ!
এই ব্যাচে সব জিনিয়াস।

শ্রদ্ধেয় শিক্ষকের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা। ♥️

৯| ২৬ শে আগস্ট, ২০২২ রাত ১:০০

জটিল ভাই বলেছেন:
সশ্রদ্ধ সালাম জানাই।

০৯ ই সেপ্টেম্বর, ২০২২ দুপুর ১:৫৯

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন: শ্রদ্ধা পৌঁছে দিবো। ভালো থাকবেন আপনি।

১০| ০৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০২২ রাত ১১:১১

খায়রুল আহসান বলেছেন: ভেড়ামারা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক জনাব মোহাম্মদ রুহুল ইসলাম, এম.এ.বি.এড. এর প্রতি সশ্রদ্ধ সালাম জানাচ্ছি। ওনাদের মত নিষ্ঠাবান এবং আত্মত্যাগী শিক্ষকদের কারণে বাংলার মফস্বল শহর এবং গ্রামে গঞ্জে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে পড়েছিল।
আপনি একজন শিক্ষকের সন্তান, জেনে প্রীত হ'লাম।
পোস্টে প্লাস। + +

০৯ ই সেপ্টেম্বর, ২০২২ দুপুর ১:৫৭

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
একজন সর্বজন শ্রদ্ধেয় হেডস্যারের ছেলে হিসেবে নিজের মধ্যে ধারণ করা খুব কষ্টের ব্যাপার। লোড নিতে পারিনি। খুব কষ্টের গল্প এটা। একদিন বলবো। হেডস্যারের ছেলেরা সাধারণ ডাক্তার ইন্জিনিয়ার হয়, নয়তো বা শিক্ষক। আমি সামু ব্লগে স্মৃতিচারণ লিখি, কবিতা লিখি, শৈশব লিখি।
নিজেকে ভীষণ অপরাধী মনে হয়। নিজেকে গুটিয়ে রাখার বড় একটা কারণ এটা।

ভালো থাকবেন আপনি। আমি জানি আব্বার ক্ষমতা থাকলে ব্লগিং করতেন। আমি এই ব্লগে অনেকের মাঝে আব্বাকে খুঁজি।

ক্লাস এইটে থাকতে স্কাউটিং নিয়ে একটা কবিতা লিখেছিলাম। একটা প্রোগ্রামে পাঠ করতে বলা হলো। কবিতার শেষে সবার আগে আব্বার পাশের জন কে বললেন, 'কবিতাটা ওর লেখা।'

০৯ ই সেপ্টেম্বর, ২০২২ দুপুর ২:০২

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন: আব্বার স্মৃতিকথা পড়তে পারেন।

১১| ০৯ ই সেপ্টেম্বর, ২০২২ বিকাল ৫:৫৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: "আমি সামু ব্লগে স্মৃতিচারণ লিখি, কবিতা লিখি, শৈশব লিখি" - সেটাই বা কম কিসে? আপনার মত মন দিয়ে কয়জন লিখতে পারে? আপনি যা কিছুই লিখে থাকেন, তার সব কিছুই আপনার সৃষ্টি, আপনার মনোভূমিতে জন্ম নেয়া একেকটি ফুলের চারা।
লিঙ্কের লেখাটা পড়ে দেখবো বলে আশা ব্যক্ত করছি। শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.