নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

rm -rf /

আর্কিওপটেরিক্স

Cyber Security

আর্কিওপটেরিক্স › বিস্তারিত পোস্টঃ

VirusTotal: বিনা ডাউনলোডে এক বস্তা প্রিমিয়াম এন্টিভাইরাস !

২২ শে মে, ২০১৯ সকাল ১১:০৭


ভাইরাস ! ভাইরাস ! ভাইরাস ! X(( বোনরাস নেই কেন? সামি ভাবে। তবে ভাই হোক আর বোন হোক এটা যে বর্তমানের একটা গুরুত্বপূর্ণ জিনিস তা বলতেই হবে। আমার আজকের পোস্ট হলো কিভাবে কিছু ডাউনলোড না করেই সবগুলো এন্টিভাইরাস ফ্রি তে ব্যবহার করবেন। তাহলে সামি, এখন একটু এন্টিভাইরাস, এন্টিবোনরাস করো ! B-))

শুরু হোক ভাইরাস ডিটেক্টশনঃ

1.যেকোনো ব্রাউজারে যেয়ে এড্রেস বারে লিখুনঃ https://virustotal.com


2.তারপর কিছুক্ষণ লোডিং হয়ে নিচের মতো আসবেঃ


3.এরপর কম্পিউটার বা স্মার্টফোন থেকে কোনো সাসপিশাস ফাইল চয়েজ করুন এবং Choose file তে ক্লিক করে তা আপলোড করুন। এরপর নিচের মতো আসবেঃ


4.কিছুক্ষণ পরে এমনটা দেখতে পাবেনঃ


5.স্ক্যান শেষ হলে এমনটা আসবেঃ

এর অর্থ স্ক্যানিং শেষ এবং এতগুলো এন্টিভাইরাস সাসপিশাস ফাইলটিকে ডিটেক্ট করেছে এবং এতগুলো করেনি।

6.ফাইলটি সম্পর্কে আরো জানতে Details ট্যাবে যানঃ

বাকি ট্যাবগুলো নিয়ে একটু গবেষণা করলেই আরো অনেক কিছু জানতে পারবেন :)

7.একটি ফাইল আগেও আপলোড করা হলে তার SHA বা হ্যাশ দিয়েই VirusTotal রেজাল্ট দেখায়। যদি আপনার মনে হয় পুনরায় স্ক্যান করা প্রয়োজন তাহলে নিচের মতো করুনঃ

উপরের নীল বাঁকানো তীরে ক্লিক করলেই রি-এনালাইজ হবে।

8.VirusTotal এর ডেস্কটপ এবং স্মার্টফোন অ্যাপ আছে। আছে ব্রাউজার এক্সটেনশন।তবে নেই কোনো অফিসিয়াল iOS অ্যাপ :(

Desktop: (Windows, Linux, Mac OS)
Desktop apps

এ্যান্ড্রয়েডঃ
Google Play

Browser Extension:
Browser Extensions

এবং সবশেষে......

Q&A :

Q: এটা দিয়ে পিসির সুরক্ষা করা যাবে কি?
A: না, এটা জাস্ট ফাইল এবং ইউআরএল স্ক্যানার। তবে সন্দেহজনক ফাইল সবগুলো প্রিমিয়াম এন্টিভাইরাস দিয়ে চেক করতে পারবেন। আর অ্যাপগুলো ব্যবহার করে সহজেই ফাইল চেক করতে পারবেন :)


Q: এন্টিভাইরাসগুলো কি প্রিমিয়াম?
A: হ্যাঁ। এগুলো এন্টিভাইরাস ফার্মের থেকে প্রদান করা হয়। বিনিময়ে এন্টিভাইরাস ফার্মগুলো ভাইরাসের স্যাম্পল পায়।

Q: এটা কোন কোম্পানির?
A: বর্তমানে গুগলের।

Q: এটার তো লিমিটেশন আছে, তাই না?
A: ফাইল আপলোড সাইজের লিমিটেশন আছে। একসময়ে একটা ফাইলই স্ক্যান করা যায়।


Q: আচ্ছা আমার পিসির জন্য কোন এন্টিভাইরাস ব্যবহার করবো?
A: Genuine Windows হলে Windows Defender ই পারফেক্ট। আর ব্যবহার করতে চাইলে, Kaspersky বা Eset বা Malwarebytes. তবে এন্টিভাইরাস কিন্তু ক্র্যাক হলে চলবে না। আসল সফটওয়্যার কিনতে হবে। ক্র্যাক করা সফটওয়্যার মানে জীবন ক্র্যাক করা :((




অ.টঃ অনেক সহব্লগারই আমার প্রায় প্রতিদিন করা পোস্ট নিয়ে আমার ব্লগে কিছু মন্তব্য করেছেন। পোস্টগুলো কেন এত ছোট? এমনটা প্রশ্ন করেছেন। তো সবার উদ্দেশ্যেই বলি, লেখা বড় নাকি ছোট তা দিয়ে লেখার মান যাচাই হয় না। তবে বড় লেখা চিন্তার খোরাক যোগাতে পারে। আমি লেখার ক্ষেত্রে মানটা বজায় রাখার চেষ্টা করি। বিচিত্র বিষয়ে লেখার একটা প্রবণতা আমার ভিতরে আছে। ইতোপূর্বে আমি কিছু সিরিজ শুরু করেছিলাম, যা শেষ করিনি। সময়মতো তা পোস্ট করবো। যারা মনে করছেন আমার লেখায় অনীহা তারা ঠিক। আমি প্রচুর পড়তে ভালোবাসি। তবে ব্লগে বর্তমানে ৭০ টা ড্রাফট পোস্ট আছে। আর প্রতিদিন পোস্ট করার কারন হলো ব্লগে পোস্ট সংকট। ব্লকের কারনে নিতান্তই নূন্যতম লেখা আসছে :(

মন্তব্য ৪১ টি রেটিং +৮/-০

মন্তব্য (৪১) মন্তব্য লিখুন

১| ২২ শে মে, ২০১৯ সকাল ১১:১৭

নয়া পাঠক বলেছেন: জানার শেষ নেই, আর নয়া নয়া টেকনোলজীরও কোন লিমিট নেই।

ধন্যবাদ প্রোগ্রামার, দারুণ একটি বিষয় আমাদের সঙ্গে শেয়ার করার জন্য।

২২ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৩:০৮

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: আপনাকেও পড়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ :)

২| ২২ শে মে, ২০১৯ সকাল ১১:২০

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আমি অবশ্য জেনুইন উইন্ডোজ ১০ ব্যবহার করি। আমার তো ডিফেন্ডার-ই যথেষ্ট, কি বলেন?

রসমালাই আমার খুবই প্রিয় মিষ্টি। অল্প খেলে মনে হয় মন/পেট/চোখ কোনটাকেই পরিতৃপ্ত করতে পারি নাই। একটি সুপাঠ্য কিন্তু কুট্টি লেখা পড়লে আমার একই ফিলিংস হয়। এখন কেউ যদি বলে আমি অত্যন্ত মান-সম্পন্ন একটা ফেসবুকিয় পোস্ট দিবো.....তাহলে আপনি কি বলবেন? আশাকরি, বোঝাতে পেরেছি!! :P

২২ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৩:১৮

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: Windows Defender যথেষ্ট যদি আপনি Windows অটো আপডেট অন রাখেন। কেননা প্রতিনিয়তই নিত্যনতুন ভাইরাস তৈরী করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে Windows Defender এর সেটিংস এবং আপনি কি কাজে কম্পিউটার ব্যবহার করেন সেটার উপর ঝুঁকির মাত্রা নির্ভর করে। সাধারণ কাজ এবং অচেনা ইমেইল না খোলা কিংবা ক্র্যাক সফটওয়্যার না ব্যবহার করলে এটাই যথেষ্ট !

আমার পছন্দ রাজভোগ। বড় বড় মিষ্টিগুলো খেতে সেই ;)

কথাটা ঠিকই বলেছেন, লেখায় আরো কিছু বলা যেতো বাট লেখক বলেন নি, সেক্ষেত্রে পাঠকের জন্য তা কষ্টকর। কিন্তু বেশি মিষ্টি খাওয়াও ভালো না :P

৩| ২২ শে মে, ২০১৯ সকাল ১১:২৩

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
বিশাল ভাইরাস কারখানা। ভাল লেখছেন।

Windows Defender কি জেনুইন উইন্ডোজে ডিফল্ট হিসেবে আছে? নাকি কিনতে হবে?

২২ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৩:২১

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: পড়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ :)

Windows Defender জেনুইন উইন্ডোজ এ ডিফল্ট থাকে। জাস্ট Windows অটো আপডেট অন রাখলেই হবে। তাই কেনাকাটার প্রয়োজন নেই :)

আর এন্টিভাইরাস কিনতে চাইলে Kaspersky কেনা ভালো। কম রিসোর্স খায় কিন্তু পারফেক্ট কাজ করে।

৪| ২২ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১২:৩০

আপেক্ষিক মানুষ বলেছেন: আসল সফটওয়্যার ক্রাক সফটওয়্যার চেনার উপায় কি? বা নিশ্চিত হয়ে কিনব কিভাবে?

২২ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৩:২৮

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: ট্রাস্টেড শপ থেকে কিনুন। পারলে ওদের শোরুম থেকে নিন। বাংলাদেশে অনলাইনে কেনাকাটা করাটা এখনো সেভাবে সেফ না। আর ক্র্যাক সফটওয়্যার VirusTotal দিয়ে স্ক্যান করলে ধরা পড়তে পারে। অনেক সময় আলাদা প্যাচ ফাইল থাকে। সেক্ষেত্রে মেইন প্যাকেজটা জেনুইনই থাকে। তবে আন-এক্টিভেটেড। সেটা VirusTotal ধরতে পারবে না !

আর ক্র্যাক নামালে সেটা তো আপনি জানবেনই। কারন ক্র্যাকগুলো করার আগে এন্টিভাইরাস বন্ধ করতে বলা হয় !

পারলে মেইন ওয়েবসাইট থেকে কিনুন। কেননা Amazon বা EBay তে Retail, OEM সহ নানা ধরনের কি বিক্রি করা হয়।

৫| ২২ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১২:৩৬

আকতার আর হোসাইন বলেছেন: পড়লাম।যদিও আমার কোন প্রয়োজন। গুরুত্বপূর্ণ পোস্ট।

২২ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৩:২৯

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: পড়ার জন্য এবং মন্তব্য করার জন্য ধন্যবাদ :)

৬| ২২ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১২:৩৭

জাহিদ অনিক বলেছেন:
ভাইরাস জিনিসটা আসলে তেমন কিছুই করতে পারে না যদি আপনি জেনে বুঝে ক্লিক করেন। এন্টিভাইরাসগুলো আমার কাছে এক একটা ভাইরাসের মতই লাগে। কখন কোন ফাইল হাপিস করে দেয়!

লিনাক্সে আছি, ভাইরাস নিয়ে তেমনভাবে সচেতন থাকা লাগে না।

গুড পোষ্ট!

২২ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৩:৩৬

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: তাতো বটেই। এক ক্লিকেই সর্বনাশ !

হাহা যা বলেছেন। এন্টিভাইরাসগুলোকেও ইচ্ছে করলে ভাইরাসে কনভার্ট করা যায়। Ransomware B-))

কোন ডিস্ট্রিবিউশন?

লিনাক্স আমার জান B-)) বর্তমানে ল্যাপটপে উইন্ডোজ, লিনাক্স, ম্যাক, এন্ড্রয়েড ওস আছে। তবে লিনাক্স চালানোর মজাই আলাদা !

লিনাক্সের ভাইরাসও আছে ! প্যাকেজ ডাউনলোড সার্ভার ভাইরাস কতৃক আক্রান্ত হলে লিনাক্সও কবলিত হবে। আর নিত্যনতুন ভেরিয়ান্ট এর ভাইরাস তো ক্রস প্ল্যাটফরম B-))

৭| ২২ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১:১৫

রাজীব নুর বলেছেন: আমি এই সব বুঝি না।

২২ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৩:৩৭

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: তারপরেও পিসির নিরাপত্তার জন্য বুঝলে ভালো :)

৮| ২২ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৪:১২

গড়ল বলেছেন: ভাইরাস টোটাল শুধু Signature based malware ডিটেক্ট করতে পারে, যে সব ভাইরাস এর সিগনেচার তৈরী হয়েছে বিভিন্ন এন্টি-ভাইরাস কোম্পানীর দ্বারা এবং তা সাবমিট করা হয়েছে। Non-signature malware বা Zero Day Tolerance এর জন্য Behavioral Pattern Analysis খুব জরুরী যার জন্য শুধু এন্টি-ভাইরাস যথেষ্ঠ না, দরকার Host based IPS (Intrusion Protection System) যার জন্য আলাদা মূল্য বা লাইসেন্স দরকার হয় এবং সব এন্টি-ভাইরাসের সাথে IPS পাওয়া যায় না।

২২ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৪:৩৭

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: Zero Day ডিটেক্ট করা বহুত মুশকিল বিষয় ! কেবল এজন্যই গুগলের Project Zero, Zerodayinitiative, প্রাইভেট ফার্ম Zerodium তৈরী হয়েছে। এসব কোম্পানি Zero Day নিয়ে কাজ করে।

ভাইরাস টোটাল শুধু Signature based malware ডিটেক্ট করতে পারে, যে সব ভাইরাস এর সিগনেচার তৈরী হয়েছে বিভিন্ন এন্টি-ভাইরাস কোম্পানীর দ্বারা এবং তা সাবমিট করা হয়েছে - এটা ঠিকই বলেছেন। তবে নতুন কোনো ভাইরাস এন্টিভাইরাস ইন্জিন দ্বারা ডিটেক্ট হলে সেটা অন্যান্য Vendor দের কাছে চলে যায়। VirusTotal, Cuckoo sandbox ব্যবহার করে Dynamic analysis এর জন্য। এটা তো আর Hybrid Analysis সাইট না :) আর ভাইরাস টোটাল তো নিজে একটা এন্টিভাইরাস নয় এটা হলো অনেকগুলো এন্টিভাইরাসের সমষ্টি।

IPS Firewall বা রাউটার এবং ট্র্যাফিক এর মধ্যবর্তী স্থানে বসানো হয়। এটা হতে পারে ফিজিক্যাল কিংবা সফটওয়্যারবেসড। তবে এর দাম অনেক বেশি। এখানে ভাইরাস টোটাল তো ক্ল্যায়েন্ট কম্পিউটারকে সুরক্ষা দিচ্ছে না, জাস্ট ফাইল এনালাইসিস করছে !

ভাইরাস স্যাম্পল এন্টিভাইরাস কোম্পানির কাছে অনেক অনেক দামি। তাই তারা অনেক সময় zero day কেনে। তবে সবটাই ডার্কওয়েবে।

সুচিন্তিত মতামতের জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ :)

৯| ২২ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৪:৩৭

নীল আকাশ বলেছেন: আচ্ছা মোবাইলে ব্যাক্টেরিয়া স্ক্যান করার কিছু আছে নাকি? শুনেছি সব ভাইরাস নাকি আ্যান্টি ভাইরাস কম্পানীগুলি বানায়!

২২ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৪:৫০

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: এন্ড্রয়েড হলে, শুধু গুগল প্লে স্টোর থেকে অ্যাপ নামালে, Unknown Sources থেকে অ্যাপ ইন্সটল না করলে এন্টিভাইরাস এর দরকার নেই। এখন তো গুগল প্লে প্রটেক্ট নামে এনালাইসিস সিস্টেম আছে, তাই অনেক ক্ষতিকারক অ্যাপই ডিটেক্ট হয়।

আইফোন বা আইপ্যাড এর ক্ষেত্রে এন্টিভাইরাস দরকার নেই। কেননা এক্ষেত্রে কেবল Apple App Store থেকেই অ্যাপ নামানো যায়। মোবাইল Jailbreak করলে অন্য কথা !

উইন্ডোজ ফোনেও আইফোনের মতোই অবস্থা। এন্টিভাইরাস দরকার নাই।

এন্ড্রয়েড এর যাবতীয় এন্টিভাইরাসের ৯৮% তেমন একটা কাজে দেয় না। জাস্ট ফোনকে স্লো করে। তবে Dr. Web antivirus টা আসলেই কাজ করে। দামটা মনে হয় বড্ড বেশি! 75 ডলার বোধ হয়। সাথে Eset এবং Kaspersky এর মোবাইল অ্যাপগুলো ভাইরাস ডিটেক্ট করতে পারে।তবে এক্ষেত্রেও প্রিমিয়াম এন্টিভাইরাস চাই। দেশে Dr web পাবেন না। আমি দুই এক বছর আগে মোবাইলে ব্যবহার করেছি। দারুণ কাজ করে।

২২ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৫:০০

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: আর হ্যাঁ VirusTotal এর অ্যাপটা দিয়ে এন্ড্রয়েড এর অ্যাপগুলো স্ক্যান করতে পারবেন সহজেই :)

২২ শে মে, ২০১৯ রাত ১০:০০

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: শুনেছি সব ভাইরাস নাকি আ্যান্টি ভাইরাস কম্পানীগুলি বানায়! - এটা ভুল কথা। ভাইরাস বা ক্ষতিকারক সফটওয়্যার বানায় সাইবার ক্রিমিনালরা, গোয়েন্দারা, হ্যাকাররা। তবে বিজনেস স্টান্ট হিসেবে ভাইরাস ছড়ানোটা থাকতে পারে !

১০| ২২ শে মে, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:৫৮

চাঁদগাজী বলেছেন:


আমার ল্যাপটপের "হার্ডড্রাইভ" খেয়ে ফেলছে কি একটা ভাইরাস; ইহা কি সাহায্য করতে পারে?

২২ শে মে, ২০১৯ রাত ৯:৫৩

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: না এটা সাহায্য করতে পারবে না। এক্ষেত্রে আপনি কোনো একটা এন্টিভাইরাস কিনুন। যেমনঃ Kaspersky. তারপর স্ক্যান করুন।

আর ফাইল হারিয়ে গেলে EaseUS Data Recovery Wizard Pro কিনে ব্যবহার করুন। সকল ডেটা ফিরে পাবেন। এটা বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী ডাটা রিকভারি সফটওয়্যার।

১১| ২২ শে মে, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:০৮

তাসনুভা রায়া বলেছেন: চমৎকার একটি সাইট, ফ্রি তে এমন অনলাইন সার্ভিস দুর্লভ

২২ শে মে, ২০১৯ রাত ৯:৫৪

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: ঠিক তাই :)

মতামতের জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ :)

১২| ২২ শে মে, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:২১

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: দেখতে বড় করতে ফটো দিয়েছেন বেশি বেশি ! চইলত ন!
;)

পোষ্টে ভালুলাগা!
টেষ্ট করতে গেলে আবার ঝামেলা নেইতো ;) ভূই লাগে!!!!
হা হা হা


২২ শে মে, ২০১৯ রাত ৯:৫৬

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: আরে বড় না হলে চলে ;)

টেস্ট করতে নো চিন্তা জাস্ট আপলোড এন্ড ওয়াচ :)

পোস্টটি পড়ার জন্য কৃতজ্ঞতা :)

১৩| ২২ শে মে, ২০১৯ রাত ১১:৩১

মাহমুদুর রহমান বলেছেন: ধন্যবাদ।

২৩ শে মে, ২০১৯ সকাল ৮:৫৬

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: আপনাকে ধন্যবাদ :)

১৪| ২২ শে মে, ২০১৯ রাত ১১:৪১

শেহজাদী১৯ বলেছেন: বোনরাস থাকলে খারাপ হত না।

২৩ শে মে, ২০১৯ সকাল ৮:৫৭

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: বোনরাস, এন্টি-বোনরাস হতো :D

১৫| ২৩ শে মে, ২০১৯ সকাল ১০:৩২

মনিরা সুলতানা বলেছেন: B:-) #:-S

২৩ শে মে, ২০১৯ সকাল ১১:২২

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: আমিও হতভম্ব B-))

১৬| ২৩ শে মে, ২০১৯ সকাল ১১:৪৭

হাবিব বলেছেন: কাজে লাগবে

২৩ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১:০১

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: বহুদিন পর হাবিব স্যার !

কাজের জন্যই এই পোস্ট :)

১৭| ২৩ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১:০৬

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: দরকারি পোস্ট। অশেষ কৃতজ্ঞতা।

২৩ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১:৩৫

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: পড়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ কবি !

১৮| ২৪ শে মে, ২০১৯ রাত ৩:৫৪

কিশোর মাইনু বলেছেন: অনেক প্রয়োজনীয় এবং দরকারী একটি পোস্ট, যার কমেন্ট সমুহ ও সমান দরকারী।
ধন্যবাদ আপনাকে।

২৪ শে মে, ২০১৯ সকাল ৯:১২

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: আপনাকেও অসংখ্য ধন্যবাদ পড়ার জন্য :)

১৯| ২৬ শে মে, ২০১৯ রাত ২:০৬

জাহিদ অনিক বলেছেন: কোন ডিস্ট্রিবিউশন? উবুন্টু ১৪।০৪ থেকে ব্যবহার করি, এখন ১৮।০৪ এ আছি-- মাঝে মাঝে অবশ্য উইন্ডোতে সুইচ করতে হয় (ডুয়েল বুট)

হ্যাকিনটশ কেমন লাগে?

২৬ শে মে, ২০১৯ সকাল ৮:৩০

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: আমি ট্রিপল বুট ব্যবহার করি। উইন্ডোজ, লিনাক্স আর ম্যাক।

হ্যাকিনটশ জোশ লাগে ব্যবহার করতে ! i7 8750H এর সাথে ম্যাকের জমে ভালোই। ম্যাকের একটা বড়ো অসুবিধা হলো এর প্রসেসর আপডেটসহ নতুন ম্যাক আসতে অনেকদিন সময় লাগে। ফলে জেনারেশন গ্যাপ থেকেই যায়। আমার মতে, কেন আমি সেভেন্থ জেনারেশনের প্রসেসর ব্যবহার করবো ? যখন এয়িট্থ জেনারেশন চলে এসেছে ?

পুরাতন ম্যাকটা পড়েই আছে। i5 বেচারার।

২৬ শে মে, ২০১৯ সকাল ৮:৩২

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: আর লিনাক্সটা হলো ডেবিয়ান বেসড কালি লিনাক্স ২০১৯.২ । মাঝেমধ্যে Parrot OS এ যাই। আগে Blacktrack ইউজ করতাম :D

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.