নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমার নাম- রাজীব নূর খান। ভাবছি ব্যবসা করবো। ভালো লাগে পড়তে- লিখতে আর বুদ্ধিমান লোকদের সাথে আড্ডা দিতে। কোনো কুসংস্কারে আমার বিশ্বাস নেই। নিজের দেশটাকে অত্যাধিক ভালোবাসি। সৎ ও পরিশ্রমী মানুষদের শ্রদ্ধা করি।

রাজীব নুর

আমি একজন ভাল মানুষ বলেই নিজেকে দাবী করি। কারো দ্বিমত থাকলে সেটা তার সমস্যা।

রাজীব নুর › বিস্তারিত পোস্টঃ

আমার দাদাজান

৩০ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৩:১৩



মন মেজাজ আজ ভালো নেই।
বিরাট দিকদারির মধ্যে আছি। আর বাঁচতে ইচ্ছা করে না এই পোড়া দেশে। এই দেশে শান্তি নাই। এই দেশ হয়ে গেছে দুষ্টলোকদের দেশ। পুরো দেশ দুষ্টলোক দিয়ে ভরে গেছে। এত এত দুষ্টলোকের ভিড়ে আমার দম বন্ধ হয়ে আসে। মনে হয়, আর বেশি দিন বাঁচবো না। বাঁচতে চাইও না। কিছু আফসোস নিয়ে মরতে হবে। আমার একসময় ধারনা ছিলো সব মানুষ আমাকে ভালোবাসে। আমাকে পছন্দ করে। কিন্তু না বহু লোক আমাকে পছন্দ করে না। একেবারেই পছন্দ করে না। অগোচরে আকথা, কুকথা বলে। অথচ এমনটা হওয়ার কথা ছিলো না। কারন আমি কোনো সাতেপাচে যাই না। আপন মনে থাকি। অনেক কিছু দেখি, শুনি এবং বুঝি। তবু চুপ করে থাকি। বোবার শত্রু নেই, এই মনে করে। বই পড়ি, মুভি দেখি আর ব্লগিং করি।

যাই হোক, আসল কথায় আসি।
ভোর রাতে দাদাকে স্বপ্ন দেখেছি। মরা মানুষকে স্বপ্নে দেখা কি ভালো? বার বার? গত সাতদিনে তিন বার দাদাকে স্বপ্নে দেখলাম। আমার দাদা ছিলেন জমিদার মানুষ। যতদিন বেঁচে ছিলেন রাজার হালে বেঁচে ছিলেন। যদিও দাদা একদিন হঠাত অন্ধ হয়ে যান। একদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে, দাদা অনুভব করলেন তিনি চোখে দেখতে পারছেন না। তখন তার পয়ত্রিশ বছর। দেশ বিদেশে কত ডাক্তার দেখানো হলো। কোনো লাভ হলো না।

গ্রামের বাড়ি গেলে দাদার সাথে মজার অনেক গল্প হতো। আমার দাদা দেখতে দারুন সুন্দর ছিলেন। গায়ের রঙ, চোখ, মুখ দেখার মতোন ছিলো। এমন রুপবান মানুষ আমি খুব কম দেখেছি। আমার দাদীও সেই রকম সুন্দরী ছিলেন। দাদা দেশ বিদেশ ব্যবসার কারনে ঘুরে বেড়াতেন। সেই আমলে দাদার পাসপোর্টে লেখা ছিলো ল্যান্ড লর্ড। কোলকাতায় দাদার বিশাল ব্যবসা ছিলো। দাদা খুব পান খেতেন। কোলকাতা থেকে পানের জর্দা আনাতেন। বিক্রমপুরের মানুষজন দাদার চলাফেরা দেখে দাদার নাম দিয়েছিলো নওসা মিয়া। দাদার গল্প আরেকদিন করবো। আজ দাদাকে নিয়ে স্বপ্ন দেখার কথা বলি।

ভোর রাতে আজ স্বপ্নে দেখলাম,
গতকাল বেশ তাড়াতাড়িই বিছানায় গিয়েছি। ঘুমের জন্য ভেড়া গুনতে হয়নি। স্বনটা দেখলাম ভোরের দিকে। ফযরের আযানের আগে আগে। বিরাট বড় একটা জমিদার বাড়ির বিশাল বারান্দা কাচের মতো স্বচ্ছ রোদে ভেসে যাচ্ছে। রোদে তাপ নেই। একেই বলে মিষ্টি রোদ। এত বড় বারান্দায় আর কেউ নেই। চারিদিক কেমন ভয় করা নির্জন। সবচেয়ে বড় আশ্চর্য, বারান্দার শেষ নেই। আমি হাঁটছি তো হাঁটছি'ই। বারান্দা আর শেষ হয় না, ভীষন ভয় করছিল আমার। মনে মনে ভাবছি- এত বড় বারান্দা কে বানালো! আমার ঢাকার বাড়ির বেলকনি তো দুই হাত।
হঠাৎ পেছন থেকে কে যেন শান্ত গলায় বলল- যা না, আরও যা, একসময় শেষ হবে ঠিকই।
কে বলল কথাটা? মুখ ঘুরিয়ে দেখি আমার দাদাজান। তেমনই ফরসা টকটকে রঙ, তেমনি মাথা ভর্তি চুল, তেমনি মোস্ত গোঁফ, তেমনি সুন্দর। দাদাজানকে দেখে বেশ আনন্দ হলো। মুহুর্তের মধ্যে সব ভয় চলে গেল। আমি দৌড়ে দাদার কাছে গেলাম।
বললাম, লোকে যে বলে তুমি মরে গেছ?
দাদা বললেন, দূর বোকা! মরবো কেন? এই একটু বেড়াতে বের হয়েছি।
আমি বললাম, এই বাড়িটা কে বানিয়েছে? এত বিশাল বারান্দা কেন?
দাদা বললেন- তা ঠিক, বারান্দাটা একটু বড়। চল তোকে এগিয়ে নিয়ে যাই।
আমি আর দাদাজান হাঁটছি তো হাঁটছি। বারান্দা আর শেষ হয় না।

স্বপ্ন নিয়ে আমার তেমন কুসংস্কার নেই। আবার এও মনে হয়- কী জানি, স্বপ্নের মধ্যে কোনও ইশারা ইঙ্গিত থাকতে পারে।

মন্তব্য ২০ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (২০) মন্তব্য লিখুন

১| ৩০ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৩:৫৩

পদ্ম পুকুর বলেছেন: ইদানিং কি খুব বেশি বেশি 'হুমায়ুন' পড়ছেন?

৩০ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:৫৪

রাজীব নুর বলেছেন: ইদানিং না। ছোটবেলা থেকেই পড়ছি। এখনোও পড়ি। আমৃত্যু পড়ে যাবো।

২| ৩০ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৩:৫৯

ইসিয়াক বলেছেন: পরে মন্তব্য করবো।

৩০ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:৫৫

রাজীব নুর বলেছেন: ওকে।

৩| ৩০ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৩:৫৯

আলমগীর সরকার লিটন বলেছেন: চমৎকার গল্প রাজীব দা

৩০ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:৫৬

রাজীব নুর বলেছেন: ধন্যবাদ।

৪| ৩০ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:৫৪

ইসিয়াক বলেছেন: প্রথম অনুচ্ছেদটি একেবারে হুবহু আমার মনের কথা । আমি ও কারো সাতে পাঁচে থাকি না । উপকার করতে না পারলে ও কারো ক্ষতি করি না । ইদানিং আমারো অসহ্য লাগে । এদেশে থাকতে ইচ্ছা করে না। কি আর করা হাত পা বাধা ।

৩০ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:৫৮

রাজীব নুর বলেছেন: কানাডা চলে যান।

৫| ৩০ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:১০

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: সুন্দর লেখা

৩০ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:১২

রাজীব নুর বলেছেন: ধন্যবাদ বোন।

৬| ৩০ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:১৪

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:
আপনার কোনো গুরুত্বপূর্ণ কাজে ব্যস্ত হয়ে যাওয়া দরকার । অলস সময়ে বিচিত্র চিন্তা ভাবনা করে সময় কাটান । এ কারণে আজে বাজে স্বপ্ন দেখেন । তবে আজকের স্বপ্নটি কোন বাজে স্বপ্ন নয় । এটা খুব ভালো স্বপ্ন।

আপনার জীবন আরো দীর্ঘায়িত হবে, আনন্দময় হবে‌

৩০ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:১৮

রাজীব নুর বলেছেন: ভালো পরামর্শ দিয়েছেন।

৭| ৩০ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:১১

চাঁদগাজী বলেছেন:


কবিতাগুলো পড়ে মন্তব্য করিয়েন ঠিক মতো, কবিতা হচ্ছে মানুষের সুন্দর, সঠিক ভাবনা ও সমাজের কন্ঠ; আপনি হাউকাউ অনেক পদ্য না পড়ে বেশী কমেন্ট করে ফেলছেন; কবিদের ব্যক্তিত্ব থাকতে হয়; আপনার দাদা পছন্দ করছেন না এসব।

৩০ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ৮:৫৭

রাজীব নুর বলেছেন: ওকে।
আরো আগে বললে আমার জন্য ভালো হতো।

৮| ৩০ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ৮:২৮

ভুয়া মফিজ বলেছেন: বিশাল অন্তহীন বারান্দা হলো, বাংলাদেশের উন্নয়নের মহাসড়ক। চলতে থাকবেন, চলতেই থাকবেন......কিন্তু শেষ দেখে যেতে পারবেন না। আপনি আমাকে একদিন বলেছিলেন, দেশ নিয়ে আশাবাদী হতে; আমিও আপনাকে তাই বলি।

এটা হতাশবাদী পোষ্ট। খুব শীঘ্রই আপনি কোন একটা পোষ্টে আবার আশাবাদী হতে বলবেন সবাইকে। ভুল বললাম? =p~

৩০ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ৮:৫৮

রাজীব নুর বলেছেন: আপনি আমাকে চিনে গেছেন, বুঝে গেছেন।

৯| ৩১ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ২:৪৪

শের শায়রী বলেছেন: ঠিক এক দিন আশার স্বপ্ন দেখাবেন। অপেক্ষায় রইলাম।।

৩১ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ সকাল ৯:০৩

রাজীব নুর বলেছেন: শুকরিয়া।

১০| ৩১ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:০৯

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: স্বপ্ন নিয়ে এত কিছু না ভাবলেই চলবে রাজীব ভাই।

৩১ শে ডিসেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:২২

রাজীব নুর বলেছেন: স্বপ্নকে তুচ্ছ করতে হয় না ভাই।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.