নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

তোমার আর আমার দূরত্ব রাস্তার এপার ওপার।তুমি দাড়িয়ে আছো আমার আশায়আমি অপেক্ষায় আছি যাবো কখন!waiting for a loyal heart!

মেঘ প্রিয় বালক

একটা কৃষ্ণচূড়া গাছ। শুষ্ক অঞ্চলে গ্রীষ্মকালে কৃষ্ণচূড়ার পাতা ঝরে গেলেও, নাতিষীতোষ্ণ অঞ্চলে এটি চিরসবুজ।

মেঘ প্রিয় বালক › বিস্তারিত পোস্টঃ

দূর পরবাসে রোযা মুখে নিয়ে তোমায় লিখছি মমতাময়ী মা

০৯ ই মে, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৩১


তারিখ: ০৩ রমযান ১৪৪০ হিজরি
প্রিয় মমতাময়ী মা
গ্রীষ্মের কাঠফাটা গরমে আমার কর্মব্যস্ততায় শরীর নিংড়ানে মুক্তঝরা ঘাম জড়ানো শুভেচ্ছা।
কেমন আছো রণাঙ্গনের জননী সাহসিনী। রমযানের তৃতীয় রোজা মুখে নিয়ে মাগরিবের ঠিক আগ মূহুর্তে সামান্য কিছু ইফতারী সামনে নিয়ে হাজার হাজার মাইল দূর প্রবাস সৌদি আরব থেকে তোমায় লিখছি।
দূর পরবাসে বসে জীবনে প্রথমবারের মতো তোমাকে চিঠি লিখছি। কেমন আছো জীবন যুদ্ধের জয়ী সংগ্রামী মা। আমি অালহামদুলিল্লাহ তোমার দোয়ার বদৌলতে অনেক ভালো আছি। আমার হৃদয়ের অলিগলিতে অসংখ্য অব্যক্ত অক্ষরগুলো প্রতীক্ষার প্রহর গুনছে তোমার কাছে পৌঁছাবে বলে। কতগুলো বছর পার হয়ে গেল তোমাকে স্পর্শ করি না,তোমার ঐ মায়াভরা চাঁদ মুখ দেখিনা। রোযা রাখার অভ্যাসটা যদি তুমি না গড়ে দিতে, তাহলে হয়তো রোযার ফযিলত হতে বঞ্চিত হতাম। কোন ডাক্তারী পড়ালেখা ছাড়াই তুমি হলে পৃথিবীর একমাএ জগত শীর্ষ ডাক্তার যার তুলনা হয়না। কিছুক্ষণ পরেই মাগরিবের আযান শুরু হবে,সামনে বাহারি রকমের ইফতার নিয়ে বসে আছি এমন মিথ্যা বাক্য বললেও চিঠির কথামালায় তুমি নিশ্চই সত্য উদঘাটন করবে তোমার পবিত্র চিত্তপটে বা অন্থঃকরণে,গুটি কয়েকটি খেজুর আর পানি দিয়ে আজ আমার রোযা খোলা হচ্ছে। কিন্তু এই ইফতারে আমি ঐ স্বাদ পাই না,যে স্বাদ তোমার নিজ হাতের বানানো আলুরচপে,বেগুনি,ছোলা ভুট, নিমকি,ডালের বড়াতে আমি পেয়েছিলাম। হয়তো দুনিয়া থেকে পরলোক গমণের আগ সময় পর্যন্ত সে স্বাদ আমার মুখে লেগে থাকবে।
জানো আম্মা,আমার এই পরবাস দুনিয়াটা ভীষণ সুন্দর। তবুও কেন জানি এ সুন্দরের ভীড়ে তোমার অমন সুন্দর মুখ আমি খুজে পাই না। আমার এ পৃথিবীটা ধূসর লাগে তুমি নেই বলে। জীবনটা দুর্বিসহ মনে হয় তুমি দূরে বলে।তোমার কাছে আমার অনেক অনেক অভিযোগ,কেন এত আদর, স্নেহে বড় করলে আমায়। রোজ ইফতারের সময়ে আমি তোমাকে মনে করি,আর দু চোখের পানি আমার মুখের গাল বেয়ে পড়ে তোমার তরে। তুমিও নিশ্চই আমায় স্বরন কর ইফতারের আগ মূর্হতে, আর চোখের পানি ফেল জায়নামাযের প্রার্থনায়। ভাগ্য বিধাতা যখন আমাকে তোমার থেকে যোজন যোজন দূরে রাখার সিদ্বান্ত নিয়েছিলেন,তখন কেন তোমাকে নির্দয় পাষণ্ড করে সৃষ্টি করেননি। তাহলে অন্তত এ দূর পরবাসে ইফতারের আগ সময়ে আমার দূর পৃথিবীর কাচের দেয়ালের ওপাশে বসে আমার নিথর নিষ্প্রান আত্মাটা তোমার জন্য ডুকরে কেদে মরত না!
আমার সব আছে,শুধু তোমার স্নেহটুকু নেই। উন্নত প্রযুক্তির দেশে এখন আর কেউ আমাকে খাইয়ে দেয় না। হাজার দিন হয়ে গেলো তোমার হাতের রান্না করা খাবার খাওয়া হয়না। তোমাকে ঘিরে সব ভালবাসারা হারিয়েছে স্মৃতির মণিকোঠায়। আমার নির্ঘুম রাত্রিগুলো কাটে অসহনীয় মন ব্যাথার ক্ষতবিক্ষত আঘাতে। কষ্টে ভেজা বালিশটা নীরবে দীর্ঘশ্বাস ফেলে প্রতিটি প্রহরে। মমতাময়ী মা কী? মাতৃত্ব কী আমি বুঝেছিলাম সেদিন,যেদিন আমি তোমার ভালবাসার ছায়া হতে দূর হচ্ছিলাম । তোমার কি মনে আছে আম্মা বিমানবন্দরে আমি তোমাকে জড়িয়ে ধরে অঝোর ধারায় কেদেছিলাম বিদায়কালে, ঐ দিন সবাই আমাদেরকে দেখে ভিতরে ভিতরে তারাও কান্না করতেছিলো হয়তো। সেদিন আমি তোমাকে ছেড়ে যতই সামনে অগ্রসর হচ্ছিলাম,আমার বুকপট ততই ভারী হচ্ছিলো হৃদকম্পনে। মনে হচ্ছিলো কেউ আমার বক্ষ বিদীর্ণ করে তার ভিতর তোমার সব মায়া ঢালাও করেছে,সেদিন আমার বুকটা অনেক ভারী মনে হচ্ছিলো,যে ভার সহ্য করা অনেক কষ্টকর ছিলো। আমার এই দু বছরের যাত্রাপথে আমি একটু একটু করে তোমাকে আবিস্কার করেছি দ্বিতীয়বারের মত। অবলোকন করেছি তোমার ভালবাসা,দূর পরবাসে এসে বুঝতে পেরেছি মা তুমি কি মানবী? তোমাকে ঐ উপরওয়ালা যে মাটি দিয়ে তোমাকে সৃষ্টি করেছে সে মাটি হয়তো আলাদা। তোমার ধৈর্য্য ক্ষমতা সীমাহীন। কত কষ্ট আর ত্যাগের মধ্য দিয়ে তুমি আমাকে বড় করেছিলে। তোমার কি মনে আছে আম্মা, আমার সেই নয় মাসের যাত্রাপথে আমি তোমাকে কতই না ব্যাথা দিয়েছি,আমার জন্মের পর থেকেই তুমি আনারস খাওয়া ছেড়ে দিয়েছিলে ভয়ে,ভয়ের কারন জানতে গিয়ে শুনতে পারলাম আমি যখন ছয় মাসের গর্ভে ছিলাম,তখন তুমি অানারস খাওয়ার কারনে অনেক ব্যাথা অনুভব করেছিলে পেটে। সেই ভয়ে তুমি নাকি আজও আনারস খাও না। আমাদেরকে অবশ্য তুমি আনারস কেটে দিতে, নিজে খেতে না সেই ভয়ে। কতইনা যত্নে আগলে রেখেছিলে আমায় তা আজ অনুভব করি আমি। মা তুমিহীনা আমি আমার বির্বর্ণ পৃথিবীতে ভীষণ ক্লান্ত। কতবছর তোমার কোলে মাথা রেখে ঘুমাই না। কতদিন প্রাণখুলে হাসি না,কতদিন চিৎকার করে কাঁদি না।তোমার মতো করে কেউ যে আমায় বোঝে না মা। আমার অভিমাগুলোকে সবাই অভিমান ভাবলেও তুমি কিন্তু আমার অভিমানের আড়ালে ভালবাসাটাই বোঝতে। আমার চোখের ভাষা কেবল তুমিই পড়তে পারতে এ ধরায়।আমি প্রতিদিনের প্রার্থনায় বিধাতার কাছে কেবল একটা আকুতি রাখি,আমার সবটুকু আয়ু দিয়ে তিনি যেন তোমায় দীর্ঘায়ু করেন ভালো রাখেন। আমার দীর্ঘ প্রতীক্ষার স্বপ্নরা একদিন বাড়ি ফিরবে। তোমার নীড়ে ফেরার আশায় পথ চেয়ে বসে আছি। আমি ফিরে আসতে চাই আমার সেই মমতার বন্ধনের স্নেহের নীড়ে। মমতাময়ী তোমার কোলে মাথা রেখে একটু শান্তিতে ঘুমাতে চাই।সেই দিনটির জন্য সুস্হ দেহে অপেক্ষা করিও মা। এক জীবনের যাবতীয় অপরাধের জন্য ক্ষমা চাই মা। বিধাতার দেওয়া শ্রেষ্ট উপহার তুমি। অনেক ভালো থেকো। আমার জন্য শুধু এটুকু দোয়া করো,জীবনযুদ্ধে যেন আমি জয়ী হতে পারি। সব বাধা বিপদ উত্তাল ঢেউ অতিক্রম করে যেন তোমার আঁচলে মুখের ঘাম মুছতে পারি।
ইতি,
তোমার স্নেহের ছোট ছেলে।

মন্তব্য ২১ টি রেটিং +১/-০

মন্তব্য (২১) মন্তব্য লিখুন

১| ০৯ ই মে, ২০১৯ রাত ৮:৩৩

আপেক্ষিক মানুষ বলেছেন: প্রবাস জীবন সত্যিই কষ্টের, প্রিয় মানুষ গুলোকে ছেড়ে সেই কত দুরে!

তারপরেও প্রবাসীদের জন্যই দেশ কত সুন্দর...

০৯ ই মে, ২০১৯ রাত ৮:৪৬

মেঘ প্রিয় বালক বলেছেন: ধন্যবাদ আপেক্ষিক মানুষ,ভালবাসা জানিবেন।

২| ০৯ ই মে, ২০১৯ রাত ৮:৩৫

বলেছেন: জীবনযুদ্ধে জয়ী হয় হে যুবক!!
মা তো মা,,, শুধু একজন ভালোবাসার, ভালোলাগার, জান্নাত মায়ের চরণ তলে....

চিরকুট চলুক....

ভালো লাগলো।

০৯ ই মে, ২০১৯ রাত ৮:৫১

মেঘ প্রিয় বালক বলেছেন: ভালবাসা নিবেন ল ভাই। চিরকুটটা লিখার পড় যখন বানান রিভিউ দিতেছিলাম,তখন নিজের ভিতরে ভিতরে কেমন যেন হৃদয়বিদারক অনুভূতি অনুভূব করছিলাম। জান্নাত মায়ের চরণ তলে,আর সেই তরণ তলেই যেন আমার সমাধি হয়। আমিন।

৩| ০৯ ই মে, ২০১৯ রাত ৮:৩৬

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: প্রবাস জীবন অবর্ণনীয় কষ্টে ভরা....... :(

০৯ ই মে, ২০১৯ রাত ৮:৫২

মেঘ প্রিয় বালক বলেছেন: থাকি আমরা দূর প্রবাস,দুঃখ কষ্ট ১২ মাস। সত্যিই ভাই প্রবাস জীবন অবর্ণনীয় কষ্টের। ধন্যবাদ চিরকুট পড়ার জন্য।

৪| ০৯ ই মে, ২০১৯ রাত ৮:৪৭

জুন বলেছেন: বিদেশে থাকলে বোঝা যায় দেশ আর দেশের মানুষজন, প্রকৃতি সব কিছুই আমাদের কত প্রিয়।

০২ রা জুন, ২০১৯ ভোর ৫:০১

মেঘ প্রিয় বালক বলেছেন: ধন্যবাদ প্রিয় জুন,বেদনাভরা একটি বাক্য বলেছেন। শুভেচ্ছা ও প্রীতি জানিবেন।

৫| ০৯ ই মে, ২০১৯ রাত ৮:৫৪

মেঘ প্রিয় বালক বলেছেন: দেশের মায়া ছেড়ে কে প্রবাসে পাড়ি জমাতে চায়? সামান্য সুখ আর ফ্যামিলিকে খুশি রাখার জন্যই আমাদের মত প্রবাসীদের দিন রাত এক করা পরিশ্রমের টাকা তাদের জন্য পাঠাই।

৬| ০৯ ই মে, ২০১৯ রাত ৯:০১

রাজীব নুর বলেছেন: প্রবাসী জীবন যেমন কষ্টের দেশেও জীবন অনেক কষ্টের।

০৯ ই মে, ২০১৯ রাত ৯:৩০

মেঘ প্রিয় বালক বলেছেন: দুই জায়গাতেই কষ্ট তবে নিজ দেশে নিজ পরিবারের সাথে থাকাটা সৌভাগ্যের।

৭| ০৯ ই মে, ২০১৯ রাত ১১:০৬

মাহমুদুর রহমান বলেছেন: সন্তানের কাছে মায়ের আবেগ ভরা চিঠিতে অজস্র ভালো লাগা। আমাদের এই জীবনটা অনেক কষ্টের আর কষ্ট ও পীড়াদায়ক জীবনে প্রিয় মানুষটার কাছাকাছি থাকতে না পাওয়ার অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ করার মত নয়।

আল্লাহ্‌ আপনার মঙ্গল করুন।

১০ ই মে, ২০১৯ রাত ১:৫২

মেঘ প্রিয় বালক বলেছেন: আমিন,মাহমুদ ভাই অনেক খুশি হলাম আপনি চিরকুট টা পড়েছেন বুঝে। দোয়ার দরখাস্ত রইলো। আল্লাহ আপনার ও আপনার পরিবারের সকলকে দীর্ঘায়ু করুুক আমিন।

৮| ০৯ ই মে, ২০১৯ রাত ১১:১৯

লাল মাহমুদ বলেছেন: আপনার চিঠিতে ভালো লাগা, ভালবাসা রেখে গেলাম।

১০ ই মে, ২০১৯ রাত ১:৫৩

মেঘ প্রিয় বালক বলেছেন: আপনার জন্যও রইলো ভালবাসা, দেখা হবে আপনার ব্লগে।

৯| ১০ ই মে, ২০১৯ রাত ১:২৯

মাহমুদুর রহমান সুজন বলেছেন: আগে বলুন সৌদি আরব কোথায়? পারাতো বনে যাই। মায়ের প্রতি ভালো বাসার প্রকাশ চমৎকার কিন্তু মায়ের কাছে থাকলে কয় জনে বুঝে। এই নির্মম প্রবাস আমার জীবনের ২০ বছর কেড়ে নিয়েছে। এখনো প্রতি বছর মায়ের কাছ থেকে বিদায় নেওয়ার সময় কান্না থামাতে পারি না। ভীষণ দূর্ভাবনায় সময় কাটে এবারে পর মাকে গিয়ে দেখতে পাব কিনা। প্রতিবারি ভাবি এবার গিয়ে আর প্রবাসে ফিরবো না। মায়ের কাছেই থেকে যাব। কিন্তু সময় বড়ই নির্মম। ভাল থাকবেন।

১০ ই মে, ২০১৯ রাত ২:২৫

মেঘ প্রিয় বালক বলেছেন: মাহমুদ রহমান সুজন জেনে খুশি হলাম যে আপনিও একজন প্রবাসি এবং সৌদি আরব থাকেন,আমি সৌদি আরবের তাবুক শহরে আছি,সম্বভত ৩ মাস পর আমার সাইট চেন্জ হবে,তখন কোথায় থাকি বলতে পারছিনা,জেনে খুব হতাশ হলাম ২০ বছর ধরে আপনি প্রবাসে। দোয়া করি আপনার মাকে আল্লাহ তায়ালা দীর্ঘায়ু করুুক,আল্লাহ যেন আপনার মাকে দেখার সুযোগ করে দেন। আমিন, আমার ইমু নাম্বার:-+৯৬৬৫০০৬৭৪৮৪১, +৯৬৬৫৮২৩৯৮৫৪৯

১০| ১০ ই মে, ২০১৯ রাত ২:৪০

রিম সাবরিনা জাহান সরকার বলেছেন: হুমম্, বড় অদ্ভূত সমীকরন এই প্রবাস জীবনের। এর ক্যালকুলাস যেন মিলতেই চায় না। তবুও ভাল থাকার চেষ্টা করুন।

১০ ই মে, ২০১৯ রাত ৩:০৮

মেঘ প্রিয় বালক বলেছেন: ব্যর্থ চেষ্টা চলছে অবিরত,দোয়া করবেন এই ভাইয়ের জন্য। অচিরেই মায়ের কোলে যেন ফিরতে পারি। ভালবাসা জানিবেন বোন আমার।

১১| ১০ ই মে, ২০১৯ রাত ৮:৪১

আহমেদ জী এস বলেছেন: মেঘ প্রিয় বালক,





আবেগী পোস্ট এবং প্রবাসী জীবনে মনের ভেতরে লুকিয়ে থাকা সব হাসি-কান্না, প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তি, হাহাকারের ছবি।

প্রবাস জীবন আনন্দে কাটুক আপনার।
শুভেচ্ছা রইলো।

১০ ই মে, ২০১৯ রাত ৮:৫০

মেঘ প্রিয় বালক বলেছেন: ধন্যবাদ ভাই

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.