নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

বাংলা ভাষা অনেক সুন্দর একটি ভাষা। বাংলা আমার ভাষা। বাংলা আমার দেশ।

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন

আমি কেউ না। কবে যে কেউ হতে পারবো।

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন › বিস্তারিত পোস্টঃ

হাদিসের অসাধারণ একটি শিক্ষা

২৮ শে মে, ২০২০ দুপুর ১২:১৪

এক মহিলা সাহাবি রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নিকট এসে বলল, আমি জিনা (ব্যভিচার) করেছি। জিনার কারণে গর্ভবর্তী হয়েছি।

রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাকে বললেন, তুমি চলে যাও। সন্তান হলে এবং তার দুধ পান করানোর সময় অতিবাহিত হলে এসো।

যখন তার সন্তানের দুধ পানের মেয়াদ শেষ হলো, তখন সে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের দরবারে এসে উপস্থিত হলো।

তিনি বললেন, তোমার এ সন্তানকে কারো দায়িত্বে দিয়ে দাও।

যখন সে সন্তানকে অন্য এক জনের দায়িত্বে রেখে এলো। তখন তাকে পাথর নিক্ষেপে হত্যার নির্দেশ দেয়া হলো। তার জন্য বুক সমান গভীর এক গর্ত খুঁড়া হলো এবং তাকে সেখানে দাঁড় করিয়ে পাথর নিক্ষেপে হত্যা করা হলো।

তারপর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তার জানাজার নামাজ পড়ালেন।

হজরত ওমর ( রা) আরজ করলেন, হে আল্লাহর রাসুল! আপনি তার জানাজা নামাজ পড়ালেন? এতো ব্যভিচারিনী।

তিনি বললেন, এ মহিলা এমন তাওবা করেছে তা যদি পৃথিবীবাসীর মধ্যে ভাগ করে দেয়া হয় তবে তা সবার জন্য যথেষ্ট হবে। এর চেয়ে বড় আর কি হতে পারে যে, সে (আল্লাহর ভয়ে) নিজের জীবন দিয়ে দিল।

(মুয়াত্তা) নাসাঈ’র হাদিসে এসেছে, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাকে পাথর নিক্ষেপ করতে আসলেন এবং তাকে লক্ষ্য করে সজোরে একটি পাথর নিক্ষেপ করলেন। তখন তিনি গাধার ওপর সওয়ার ছিলেন।

মন্তব্য ৩৬ টি রেটিং +১/-০

মন্তব্য (৩৬) মন্তব্য লিখুন

১| ২৮ শে মে, ২০২০ দুপুর ১২:২০

চাঁদগাজী বলেছেন:


এটাও হাদিস?

২৮ শে মে, ২০২০ দুপুর ১২:২২

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: ব্লগার রাজীব নূর খান সাহেবের দেখাদেখি অনুপ্রাণিত হয় আমিও একটা পোস্ট করলাম। পুরোটাই কপি-পেস্ট। বুখারী শরীফে খুব বেশি সাজিয়ে গুছিয়ে লেখার মত গল্প পেলাম না।

২| ২৮ শে মে, ২০২০ দুপুর ১২:৩৭

কাজী আবু ইউসুফ (রিফাত) বলেছেন: বোখারী শরীফ এ গল্প থাকে!!!

২৮ শে মে, ২০২০ বিকাল ৫:০৬

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: সহীহ বুখারী শরীফ পাঠ করুন।

৩| ২৮ শে মে, ২০২০ দুপুর ১২:৩৮

উদাসী স্বপ্ন বলেছেন: শুধুমাত্র বিবাহ বহির্ভূত সেক্স করার জন্য তাকে এই পরিনতি। অথচ মারিয়া কিবতিরে পোয়াতী করলো সেটা দুধ ভাত?

৩৯৬১. ইবরাহীম ইবন ইউনুস ইবন মুহাম্মাদ হারামী (রহঃ) ... আনাস (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর কাছে একটি বাদি ছিল যার সাথে রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সহবাস করতেন। এতে আয়েশা (রাঃ) এবং হাফসা (রাঃ) রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর সাথে লেগে থাকলেন। পরিশেষে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সেই বদিটিকে নিজের জন্য হারাম করে নিলেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে আল্লাহ্ পাক নাযিল করেনঃ

(يَا أَيُّهَا النَّبِيُّ لِمَ تُحَرِّمُ مَا أَحَلَّ اللَّهُ لَكَ)

“হে নবী! আল্লাহ আপনার জন্য যা হালাল করেছেন তা আপনি নিজের জন্য কেন হারাম করে নিয়েছেন (সূরা তাহরীমঃ ১) ।

লিংক দিয়ে গেলাম


এরকম বিয়া ছাড়া ধর্ষন করার জন্য তার তিনটা যৌনদাসী ছিলো ৯ টা বৌ ছাড়াও।

এই হাদিসের ইসলাম প্রচলন চান সমাজে?

২৮ শে মে, ২০২০ বিকাল ৫:১৩

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: সুন্দর মন্তব্যের জন্য আপনাকে আন্তরিক ধন্যবাদ।

৪| ২৮ শে মে, ২০২০ দুপুর ১২:৫৯

সুপারডুপার বলেছেন: মালয়েশিয়ায় তো ইসলাম ধর্মত্যাগীদের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড, কিন্তু অন্য ধর্মত্যাগ ত্যাগ করে ইসলাম গ্রহণ করা অপরাধ না । আপনার এই অসাধারণ বর্বর হাদীস দেখে কেউ যদি ইসলাম ধর্ম ত্যাগ করে?

২৮ শে মে, ২০২০ বিকাল ৫:১৪

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: সুন্দর মন্তব্যের জন্য আপনাকে আন্তরিক ধন্যবাদ।

৫| ২৮ শে মে, ২০২০ দুপুর ১:২৫

লোনার বলেছেন: বিশ্বাসী মুসলমিদের জন্য এখানে অবশ্যই অসাধারণ শিক্ষা রয়েছে - আখেরাতকে দুনিয়ার উপর প্রাধান্য দেয়ার শিক্ষা। তবে সাদা-চামড়া প্রভুদের দেশে থেকে তাদের উচ্ছিষ্টভোগী "His Master' Voice" repeat করা কাফির/মুশরিক/মুরতাদ/নাস্তিক - এদের জন্য এখানে শিক্ষনীয় কিছু নেই!

২৮ শে মে, ২০২০ বিকাল ৫:১৪

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: সুন্দর মন্তব্যের জন্য আপনাকে আন্তরিক ধন্যবাদ।

৬| ২৮ শে মে, ২০২০ দুপুর ১:৩৫

রাজীব নুর বলেছেন: উফ খুব কঠিন হাদীস। এটা আমি মানতে চাই না।

অবশ্যই এটা জাল হাদীস। আমাদের নবিজি এত কঠোর নন। উনি নরম মনের অধিকারী।

২৮ শে মে, ২০২০ বিকাল ৫:০৭

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: সুন্দর মন্তব্যের জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ।

৭| ২৮ শে মে, ২০২০ দুপুর ১:৫৩

উদাসী স্বপ্ন বলেছেন: লুনার

আমারে এইটা বুঝাও তাহরীমের দাসী ধর্ষনের আয়াত ডাউনলোডের আগেই তো মুহাম্মদ লাগাইতো মারিয়ারে। তাইলে তখন ব্যাভিচারের আইন কই আছিলো?

আর দাসী হইলে লাগানী যায় যত ইচ্ছা মুক্ত মানুষ পারবে না।

বলি দাসী আর মুক্ত মানুষের তফাত কি?

আর তুমি যে সাদা প্রভুদের কথা বলো তারা কিন্তু সহ দাসব্যাবসায়ী। হলের ট্রাম্প যে হোয়াইট সুপ্রেমেসীর দলের লোক তারাও দাসত্ব লাইক করে।

তা সদুত্তর দাও দেখি মুহাম্মদের দাসী লাগানীর মর্তবা(রায়হানা, মারিয়া কিবতি ইত্যাদি। শিশু গেলমানদের নাম ভুলে গেছি খুঁজে দিবানী)

২৮ শে মে, ২০২০ বিকাল ৫:১৬

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: অসাধারণ ও সুন্দর মন্তব্যের জন্য আপনাকে আন্তরিক ধন্যবাদ।

৮| ২৮ শে মে, ২০২০ দুপুর ২:২২

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:

ইসলাম ধর্মের এবং প্রিয় রসুল হযরত মোহাম্মদ (সঃ) এর
বিরুদ্ধে এ ধরনের উস্কানীমূলক পোস্ট দাতাদের নিন্দা জানাই।
দূনিয়াতে হাজার ইস্যু থাকতেও তারা কেন এমন পোস্ট দিয়ে
বিতর্কের সৃষ্টি করে আমার বোধে আসছেনা। ব্লগ কর্তৃপক্ষের
দৃষ্টি আকর্ষণপূর্বক লেখাটি ডিলিট করার আবেদন জানাচ্ছি।

২৮ শে মে, ২০২০ বিকাল ৫:১৬

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: সুন্দর মন্তব্যের জন্য আপনাকে আন্তরিক ধন্যবাদ।

৯| ২৮ শে মে, ২০২০ দুপুর ২:৪১

সুপারডুপার বলেছেন:



রাজীব নুর বলেছেন: উফ খুব কঠিন হাদীস। এটা আমি মানতে চাই না। অবশ্যই এটা জাল হাদীস। আমাদের নবিজি এত কঠোর নন। উনি নরম মনের অধিকারী।
---------------------------------------------------
নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
ইসলাম ধর্মের এবং প্রিয় রসুল হযরত মোহাম্মদ (সঃ) এর
বিরুদ্ধে এ ধরনের উস্কানীমূলক পোস্ট দাতাদের নিন্দা জানাই।
দূনিয়াতে হাজার ইস্যু থাকতেও তারা কেন এমন পোস্ট দিয়ে
বিতর্কের সৃষ্টি করে আমার বোধে আসছেনা। ব্লগ কর্তৃপক্ষের
দৃষ্টি আকর্ষণপূর্বক লেখাটি ডিলিট করার আবেদন জানাচ্ছি।
----------------------------------------------------------

কোরআন বলছে ," ব্যভিচারিণী নারী ব্যভিচারী পুরুষ; তাদের প্রত্যেককে একশ’ করে বেত্রাঘাত কর। আল্লাহর বিধান কার্যকর কারণে তাদের প্রতি যেন তোমাদের মনে দয়ার উদ্রেক না হয়, যদি তোমরা আল্লাহর প্রতি ও পরকালের প্রতি বিশ্বাসী হয়ে থাক। মুসলমানদের একটি দল যেন তাদের শাস্তি প্রত্যক্ষ করে।" (সূরা নূর আয়াত ২)

আর সহি হাদীস অনুসারে নবীর দেশ, আরব আমিরাত, ইরাক , কাতার, সোমালিয়া , সুদান , মৌরিতানিয়া, ইয়ামেন, পাকিস্তানের কিছু উপজাতিতে, উত্তর নাইজেরিয়া , ব্রুনাই ও আফগানিস্তানে পাথর নিক্ষেপ করে শাস্তি দেওয়া অব্যাহত আছে।

ইহা সহি তোরাহ্ অনুসারে ইহুদিদের মধ্যে প্রচলন ছিল। আর নবী মুহাম্মদ (সঃ ) মনে হয় ঐখান থেকে কপি মেরেছিলেন। (বিস্তারিতঃ উইকি Stoning )

যাহা সত্য তাহা কেন উস্কানীমূলক পোস্ট হবে !

২৮ শে মে, ২০২০ বিকাল ৫:১৩

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: সুন্দর মন্তব্যের জন্য আপনাকে আন্তরিক ধন্যবাদ।

১০| ২৮ শে মে, ২০২০ দুপুর ২:৫৩

নেওয়াজ আলি বলেছেন: হাদিসের কাটপিস হয় এখন

২৮ শে মে, ২০২০ বিকাল ৫:০৭

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: সুন্দর মন্তব্যের জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ।

১১| ২৮ শে মে, ২০২০ রাত ১০:৫৩

রাজীব নুর বলেছেন: এমন একটা হাদীস আমিও জানি।
যা বললে, আপনি অবাক হয়ে যাবেন।

২৯ শে মে, ২০২০ বিকাল ৪:৩০

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: হাদিস আমি প্রচুর পড়ি। আপনার হাদিসটি আমার খুব শুনতে ইচ্ছে করছে। খুবই। ভীষণ।

১২| ২৯ শে মে, ২০২০ রাত ২:৩৬

কোথাও কেউ নেই বলেছেন: উদাসী স্বপ্ন ভাই

মারিয়া কীবতি নবী (সাঃ) এর উপপত্নী ছিলেন না বরং স্ত্রী ছিলেন ।
ইবনে কাথির, আল-তাবারি, আল-হাকিম নিশপুরি এবং আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস এর বর্ননা মতে, মোহাম্মদ (সাঃ) মারিয়া আল-কিবতিয়াকে বিয়ে করেছিলেন।
সূরা তাহরীম (আয়াত ১)এর শাণে নুজুল সম্পর্কে অনেকে ভিন্নমত পোষণ করেনঃ
‘আয়িশাহ সিদ্দীকা (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এক সময় যাইনাব বিন্‌ত জাহাশ (রাঃ)-এর কাছে অবস্থান করছিলেন এবং তাঁর কাছে মধু পান করেছিলেন। ‘আয়িশাহ (রাঃ) বলেন, আমি এবং হাফসাহ (রাঃ) পরস্পরে পরামর্শ করলাম যে, নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদের দু’জনের মধ্যে যার কাছেই আগে আসবেন আমরা তাঁকে বলব, আপনার মুখ থেকে মাগাফীরের গন্ধ পাচ্ছি। আপনি কি মাগাফীর খেয়েছেন? এরপর তিনি কোন একজনের ঘরে প্রবেশ করলেন। তখন তিনি তাঁকে ঐ কথাটা বললেন। তখন নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম জবাব দিলেন, না, আমি তো যাইনাব বিন্ত জাহাশের কাছে মধু পান করেছি। এরপরে আর কক্ষনো এটা করব না।
তখনই এ আয়াত অবতীর্ণ হলঃ يَا أَيُّهَا النَّبِيُّ لِمَ تُحَرِّمُ مَا أَحَلَّ اللهُ لَكَ إِنْ تَتُوبَا إِلَى اللهِ ‘‘তোমরা উভয়ে যদি আল্লাহর কাছে তাওবাহ কর’’ এখানে সম্বোধন ‘আয়িশাহ ও হাফসাহ (রাঃ)-এর প্রতি। আর وَإِذْ أَسَرَّ النَّبِيُّ নাবী যখন তাঁর কোন স্ত্রীর কাছে কথাকে গোপন করেন- এ আয়াতটি রাসুলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর কথা بَلْ شَرِبْتُ عَسَلاً বরং আমি মধু পান করেছি-এর সম্পর্কে অবতীর্ণ হয়েছে। ইব্রাহীম ইবনু মূসা (রহ.) হিশাম থেকে বর্ণনা করেছেন যে, নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ আমি কসম করেছি কাজটি আমি আর কক্ষনো করব না।’’ তুমি এ বিষয়টি কারো কাছে প্রকাশ করো না।[1] [৪৯১২] (আধুনিক প্রকাশনী- ৬২২৪, ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৬২৩৪)
https://sunnah.com/bukhari/83/68
https://www.hadithbd.com/hadith/filter/?book=12&hadith=6691
আপনি যে হাদিসের কথা উল্লেখ করেছেন সেটি শুদ্ধ নয়ঃ
https://abuaminaelias.com/hafsa-maria-surat-at-tahreem/

২৯ শে মে, ২০২০ বিকাল ৪:৩৩

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: খুবই গুরুত্বপূর্ণ কথা।

১৩| ২৯ শে মে, ২০২০ ভোর ৪:০০

উদাসী স্বপ্ন বলেছেন: আপনাকে তাবারী কপি করে দিলাম

In this year Hātib b. Abi Balta'ah came back from al-Muqawqis bringing Māriyah and her sister Sīrīn, his female mule Duldul, his donkey Ya'fūr, and sets of garments. With the two women al-Muqawqis had sent a eunuch, and the latter stayed with them. Hātib had invited them to become Muslims before he arrived with them, and Māriyah and her sister did so. The Messenger of God, peace and blessings of Allah be upon Him, lodged them with Umm Sulaym bt. Milhān. Māriyah was beautiful. The prophet sent her sister Sīrīn to Hassān b. Thābit and she bore him 'Abd al-Rahmān b. Hassān.

— Tabari, History of the Prophets and Kings.[4]

ইবনে কাথীর সহ প্রায় অনেকগুলো তাফসীরের একটু ইংলিশে তর্জমা করা লাইনটা দেখেন


O Prophet!) i.e. Muhammad (pbuh). (Why bannest thou that which Allah hath made lawful for thee) i.e. marrying Maria the Copt, the Mother of Ibrahim; that is because he had forbidden himself from marrying her, (seeking to please thy wives) seeking the pleasure of your wives 'A'ishah and Hafsah by forbidding yourself from marrying Maria the Copt?

দেখেন তো নবী উমরকে কি বলছে! নিজের ছেলেকে জারজ বলতে মানা করতেছে না কি! কেন মানা করতেছে? মারিয়া কিবতিরে বিয়া কেন করা যাবে না?

আপনে যেটার বাংলা করলেন সেটা কিন্তু খন্ডাংশ যেটা হাদিসে সমার্থক হিসেবে ছিলো। কিন্তু বিয়ের কথা দিয়ে যতগুলো রেফারেন্স দিলেন সরাসরি টুকে দিলাম।

তাইলে বলেন জ্বালাইলান, ক্বাথীর মওদুদী আব্বাসী এরা সব ৪২০ তাই না? অথচ যে কটা লিংক দিলেন সেখানে বিয়া পাইলাম না। যদিও পরে বিয়া করে কিন্তু আপনি এমন কোনো প্রমান দেখাইতে পারবেন না যে ইব্রাহিম পেটে আসার আগে যে কবার লাগাইছে তখন বিয়া করছে কিনা।

মিথ্যা বললেই তো হবে না, আমার কাছে বই গুলো আছে বলেই পুরো কপি করে দিছি। আপনারা মিথযাচার করেন এটা আমি সত্য বলেই জানি বলে চোখ বুজে কপি করলাম

আরেকটা কথা জানাই রায়হানাকেও বিয়ে করে নাই। সারা জীবন লাগাইছে। তাই মরার পর রায়হানা গা ঢাকা দিছে। এমন ধর্ষকের তৈরী ধর্মটা সে গ্রহন করে নি।

এর চে বড় লিগ্যাসি কি হতে পারে!!

তাই এই মারিয়া কিবতী একবার মোহাম্মদরে লাথী মেরে (খুব সম্ভবত) বলেছিলো আপনি নবী হইলে আমার পোলারে বাচাইতে পারলেন না কেন? কি বলছিলো তখন শুনতে চান?

সে এক মহাকাব্য! ধর্ষকের মহাকাব্য এমনই মজার



২৯ শে মে, ২০২০ বিকাল ৪:৩৫

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: খুবই তথ্যবহুল আলোচনা।

১৪| ২৯ শে মে, ২০২০ ভোর ৪:১৪

উদাসী স্বপ্ন বলেছেন: মারিয়া কিবতিরে বিয়া করার সাক্ষী একমাত্র তার কাজিন ইবনে আব্বাস বলছে এছাড়া বাকি সব জায়গায় সে যৌনদাসীই ছিলো নিদেনপক্ষে এই লাগানীর সময় নইলে তারে নিয়া মোহাম্মদ এত জারজ বা ফরবিডেন ফ্রুট বইলা চালাইতো না সুরা আহযাবের ৫০ নম্বর আয়াতের তাফসীরটা নেন

ইবনে সাদ ছিলেন কোরান লেখক সাথে হাদিস ও সীরাতও লেখছেন

The Prophet (peace and blessings of Allaah be upon him) did not marry Mariyah al-Qibtiyyah, rather she was a Concubine who was given to him by al-Muqawqis, the ruler of Egypt. That took place after the treaty of al-Hudaybiyah. Mariyah al-Qibtiyyah was a Christian, then she became Muslim (may Allaah be pleased with her). —Ibn Saad, The Life of Prophet

তাবাকাত কুবরাও নেন

The Messenger of Allaah (peace and blessings of Allaah be upon him) lodged her – meaning Mariyah al-Qibtiyyah and her sister – with Umm Sulaym bint Milhaan, and the Messenger of Allaah (SallAllahu 'alayHi waSallam) entered upon them and told them about Islam. He took Mariyah as a concubine and moved her to some property of his in al-‘Awaali… and she became a good Muslim. —Al-Tabaqaat al-Kubra, 1/134-135

এখন মারিয়া সাথে যে কটা রেফারেন্স পাবেন বিয়ার সবই ঘুরে ফিরে ঐ আব্বাসের কাছেই যায়। আমি বলছি না যে ভুল। কারন সনদ সহী। আব্বাসের অনেক হাদিস সহী কিন্তু সেটা আমলে নিলেও এটা প্রমান হয় যে মারিয়া কিবতিরে পরে বিয়া করে মুহাম্মদ। তা নাইলে দাসী ধর্ষন ইসলামে জায়েজ হইতো না আর রায়হানাও উম্মুল মুমিনীনের লিস্টে রাখতো।

এখন আপনি যদি আরও তর্ক করতে যান তাইলে আমার ইসলামী আলেম উলামা চুলামা আছে তাদের বক্তব্যও নিয়ে আসতে হবেন তারা তো আর ধোড় না।

তারপরও তর্ক করেন। মুহাম্মদের দাসী ধর্ষন নিয়ে ব্লগে আলোচনা করার সুযোগ তেমন পাই নাই। পুরা ভান্ড খুলে বসবো মুহাম্মদের মাইয়াবাজী নিয়ে।

২৯ শে মে, ২০২০ বিকাল ৪:৩৭

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: প্রচুর পরিমাণে পড়াশোনা করতে হবে।

১৫| ২৯ শে মে, ২০২০ সকাল ১০:১৪

সোনালি কাবিন বলেছেন: হুম

২৯ শে মে, ২০২০ বিকাল ৪:৩৭

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: জানতে হবে।

১৬| ২৯ শে মে, ২০২০ সকাল ১০:৩২

রাজীব নুর বলেছেন: গোড়ায় গন্ডগোল।

২৯ শে মে, ২০২০ বিকাল ৪:৩৭

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: ঠিকই তো।

১৭| ২৯ শে মে, ২০২০ বিকাল ৫:৫০

উদাসী স্বপ্ন বলেছেন: বিডিআইডল ওরফে রাহাত খান ওরফে খাজাবাবা সেদিন অভিযোগ করলো আমরা নাকি রেফারেন্স ঠিক রেখে কাহিনী টুইস্ট করি।

তো ওপরে তো দেখলাম মুমিনভাইরা যে দাবী করছে তা তো ইসলামী দলিলের বিপরীত। আমি টুইস্ট করছি কিনা তা যাতে আপনারা দেখতে পারেন পুরোপুরি কপি পোস্ট করলাম তাও অনুবাদ নয়, সহী আরবী থেকে ইংলিশ করা যেসব অনুবাদ সর্বক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত তার পুরোটাই এবং লিংক ও দিলাম।

এখন দেখেন ঘটনা টুইস্ট এবং বিকৃত কারা করছে।

এজন্যই আমি বিশ্বাস করি যখনি কেউ এসব রেফারেন্স দেবে ১০০ ভাগ নিশ্চিত তারা মিথ্যা বলছেন। সেটা নতুন নকিব, নুরু, লোনার মেরিনার মাহিরাহি অর হোয়াটেভার হি ইজ, সিম্পলি লায়িং।

তারা এতই ডেসপারেট

২৯ শে মে, ২০২০ রাত ৯:৪৩

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: প্রচুর পড়াশোনা করতে হবে ।
পড়াশোনার কোন বিকল্প নাই ।
অযথা রাগ দেখালে কি আর হবে ?
পড়তে হবে , যুক্তি দিয়ে বুঝতে হবে।

১৮| ২৯ শে মে, ২০২০ রাত ১০:০৭

সোনালি কাবিন বলেছেন: উদাসী স্বপ্ন বলেছেন সেটা নতুন নকিব, নুরু, লোনার মেরিনার মাহিরাহি অর হোয়াটেভার হি ইজ, সিম্পলি লায়িংং

# একদম ঠিক

৩০ শে মে, ২০২০ দুপুর ১২:২১

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: আমি হাদিস পড়তে পছন্দ করি। এটা পড়লে সেই সময়ের নির্বোধ মানুষ গুলো সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারণা লাভ করা যায়।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.