নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

দেবতার ভাবনায় কখনো পাপ না থাকলেও, পাপীর ভাবনায় সবসময় দেবতা থাকে কেন?

শূন্য সারমর্ম

অক্সিজেনের মূল্য বুঝতে অক্সিজেনের সাহায্য নিতে হয়,সাথে কৃতজ্ঞতা জানাতে হয়।

শূন্য সারমর্ম › বিস্তারিত পোস্টঃ

ঢাকা থেকে কতদুরে টেকটোনিক প্লেট আছে?

২২ শে জুন, ২০২২ রাত ১০:৩৫



আফগানিস্তানে ভূমিকম্পে হাজারখানেক নিহত হয়েছে,যদিও আফগানরা এই কম্পনে খুব অভ্যস্ত।নব্বই দশকের দিকে এমন ভুমিকম্প দেখেছে অনেক,একটায় চারহাজার মানুষ নিহত হয়েছিলো,তখনকার কারও কাছ থেকে মুখঃনিসৃহ কিছু ভয়াবহতা ভালোমত বুঝা যেত।

আমরা বাঙালীদের মগজে সেট আছে এমন ভুমিকম্পের সম্মুখীন হলে দোযগের মাঝখানে পড়বো,দেশ অচল হয়ে যাবে,বিদেশী মিডিয়াও ৫/৭মিনিটের রির্পোট করতে বাধ্য হবে।ঢাকা জীবিত থাকবে না হয়তো।

আমাদের আশেপাশের প্লেটে খবর কি?ইন্ডিয়ান, ইউরেশিয়ান এবং বার্মা প্লেটসমূহ নড়াচড়া করে নাকি? কুসংস্কার কেমন চালু আছে ভূমিকম্প নিয়ে বিশ্বব্যাপাী; বিশ্ব তত্ব পেয়েছে ১৯১২ সালে, এটা পৌছাতে সবার কাছে কত সময় লেগেছে? এখনও কি রুপকথার মত ব্যাখ্যা শোনা যায়?

প্রতিদিনই প্রায় সমুদ্রের নিচে রিকটার স্কেলে ৩ 'মধ্যে ভুমিকম্প অনুভব হয়,যা স্থলভাগের মন্যুষজাতি টের পায় না;এই জাতি টের পেতে ৫ এর উপরে হতে হয়।পুরান ঢাকায় ম্যাচ মেরে গার্বেজে আগুন লাগিয়ে দিলেও ফায়ার সার্ভিস আসতে আসতে আগুন নিভে ঐখানে অক্কুরোদগম হবার সম্ভাবনা আছে।সরকার ও বিদেশীদের সাহায্য নিয়ে জরিপ চালানে হয়েছিলো, ফায়ার সার্ভিস ওসিভিল ডিফেন্সের দস্তাবেজও জরিপের নথিপত্র পাওয়া যাবে।নেপালের ভুমিকম্পে আতকে উঠে প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে ওয়েবসাইট বানানো হয়েছিল,আলোর দিকে যায়নি সেটি।রাজউকে আজকাল ফেনসিডিল পাওয়া যায়।ঢাকায় বিপর্যয় নামাতে কত রিখটার স্কেলের কম্পন দরকার, জানা আছে?

মন্তব্য ২২ টি রেটিং +১/-০

মন্তব্য (২২) মন্তব্য লিখুন

১| ২২ শে জুন, ২০২২ রাত ১১:০৭

সোনাগাজী বলেছেন:



৭/৮ রিখটার স্কেলের ভুমিকম্প হলে ঢাকায়, ২০০০ সালের পর যত উঁচু বাড়ী হয়েছে, তার শতকরা ৫০ ভাগ পড়ে যাবে।

২২ শে জুন, ২০২২ রাত ১১:২৬

শূন্য সারমর্ম বলেছেন:


ক্যান্টনমেন্ট, গণভবন,বঙ্গভবন ও জাতীয় সংসদে গিয়ে নিশ্বাস নেয়া লাগবে মানুষের।

২| ২২ শে জুন, ২০২২ রাত ১১:০৭

সোনাগাজী বলেছেন:



ঢাকার প্লেটের খবর জানে মুন্না সিরামিক।

২২ শে জুন, ২০২২ রাত ১১:২৭

শূন্য সারমর্ম বলেছেন:

মু্ন্নু এখন আর মানিকগঞ্জ থেকে নির্বাচন করে না, যদিও রপ্তানি পদক আছে মুন্নু সিরামিকের।

৩| ২২ শে জুন, ২০২২ রাত ১১:৩৭

মোহাম্মদ গোফরান বলেছেন: মুন্নো ভালো সিরামিক কোম্পানি।

২২ শে জুন, ২০২২ রাত ১১:৪৭

শূন্য সারমর্ম বলেছেন:

১৯৮৬ সাল থেকে ব্যবসা করছে,ভালো না হলে চলবে।

৪| ২৩ শে জুন, ২০২২ রাত ১:৫১

রাজীব নুর বলেছেন: আমরা ঢাকায় থাকি, তাই আমাদের ভয় বেশি। ঢাকা ক্ষতিগ্রস্ত হবে সবচেয়ে বেশি।

২৩ শে জুন, ২০২২ রাত ২:১৪

শূন্য সারমর্ম বলেছেন:


আমারও ঢাকায় থাকার সম্ভাবনা বেশি।

৫| ২৩ শে জুন, ২০২২ সকাল ৯:৫৪

সৈয়দ মশিউর রহমান বলেছেন: ঢাকায় ভুমিকম্প হলে উদ্ধার করার কেউ থাকবেনা কারণ সবাই মরবে। ঢাকার বাড়ীওয়ালারা পিচাশ, রাজউক পিচাশের প্রতিপালক।

২৩ শে জুন, ২০২২ দুপুর ১:৫৬

শূন্য সারমর্ম বলেছেন:


পিশাচের ভীড়ে ভালোরা অসহায়।

৬| ২৩ শে জুন, ২০২২ সকাল ১০:৩৬

নতুন বলেছেন: ঢাকা থেকে প্লেটের দুরুত্ব একটু বেশি তাই এখনো বড় কোন দূঘটনা হয় নাইী।

তবে সিলেট বা চট্রগাম প্লেটের বেশ কাছে ঐখানে বেশি ক্ষতি হবে।

বড় ভুমিকম্প হলে যে ক্ষতি হবে সেটা সামাল দেবার অবস্থা আমাদের দেশের নাইী।

লোভে পাপ পাপে মরন, বেশি লাভের আসায় আমরা যেই আকাজ গুলি করছি একসময় সেটার মাসুল দিতে হবে মানুষকে।

২৩ শে জুন, ২০২২ দুপুর ১:৫৮

শূন্য সারমর্ম বলেছেন:


এখন ব্যবস্থা নিলেও কি ক্ষতি কমানো যাবে না?

৭| ২৩ শে জুন, ২০২২ সকাল ১১:৩৮

আহমেদ জী এস বলেছেন: শূন্য সারমর্ম,



শিরোনাম থেকে শুরু করে বক্তব্যে অনেক প্রশ্ন করেছেন কিন্তু কোনটার জবাবই খোলাসা করেন নি। খোলাসা করলে ভালো হতো। শিরোনামের সারমর্ম শূন্যই থেকে গেছে!


ইন্ডিয়ান, ইউরেশিয়ান এবং বার্মা তিনটি গতিশীল প্লেটের সংযোগস্থলে বাংলাদেশের অবস্থান। বাংলাদেশ ও ভারতের পূর্ব অংশের ভূ-গাঠনিক প্লেট উত্তর-পূর্ব দিকে সরে গিয়ে মিয়ানমারের পশ্চিম অঞ্চলের ভূ-গাঠনিক প্লেটে চাপ সৃষ্টি করছে, যাতে সৃষ্টি হচ্ছে অস্থিরতা।
দুটি গতিশীল ভূ-গাঠনিক প্লেটের এভাবে পরস্পরের ওপর চেপে বসাতে সেখানে শক্তিশালী ভূমিকম্পের শক্তি জমা হচ্ছে।। একটা হচ্ছে উত্তরপূর্ব কোনে সিলেট অঞ্চলে ৩০০ কিলোমিটার দীর্ঘ ডাউকি ফল্টে, আরেকটা হচ্ছে আমাদের পূর্বে চিটাগাং ত্রিপুরা বেল্টে পাহাড়ি অঞ্চলে।
বাংলাদেশে ভূমিকম্পপ্রবণ এলাকার মানচিত্র অনুযায়ী সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ জোন হিসেবে উত্তর-পূর্বাঞ্চল এবং দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের কিছু কিছু স্থান যেমন: সিলেট, রাঙামাটি, বান্দরবান, কক্সবাজার উল্লেখযোগ্য। ঢাকা ও চট্টগ্রাম মাঝারি ঝুঁকিপূর্ণ এবং পশ্চিম ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল সর্বাপেক্ষা কম ঝুঁকিপূর্ণ বলে চিহ্নিত।


ঢাকা শহর থেকে মাত্র দেড়শ কিলোমিটার দূরের এই ভূমিকম্পের জমা শক্তি রিখটার স্কেলে ৭.৫ থেকে ৮ মাত্রার ভূমিকম্প সৃষ্টি করতে পারে। সিলেট এবং চট্টগ্রামে কখনও শক্তিশালী ভূমিকম্প হলে মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হবে ঢাকাও।
চার লাখের বেশি ভবন রয়েছে ঢাকা সিটি কর্পোরেশন এলাকায়। কোনও খোলা জায়গা নেই অথচ ভূমিকম্পের মতো দুর্যোগের পর নিরাপদ আশ্রয় হিসেবে প্রয়োজনীয় খোলা জায়গা থাকতেই হবে। খালি জায়গা বা " ইভাকুয়েশন স্পেস" যদি না থাকে তবে কোনও ইভাকুয়েশন প্ল্যানই কাজে আসবেনা। বুয়েটের এবং সরকারের সমন্বিত দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্মসূচি সিডিএমপির এক সমীক্ষায় বলা হয়েছে, ৭,৫ মাত্রার ভূমিকম্পে ঢাকার ৭২ হাজার ভবন ধসে পড়বে। যেখানে তৈরি হবে সাত কোটি টন কনক্রিটের স্তুপ। এই এতো কনক্রিট সরানোর জায়গা কি আছে ঢাকায় বা আশেপাশে?

মোকাবিলার প্রস্তুতিতে অনেকটাই পিছিয়ে বাংলাদেশ।ভূমিকম্প পরবর্তী উদ্ধার কার্যক্রমের জন্য সংকট রয়েছে আধুনিক যন্ত্রপাতি ও প্রশিক্ষিত জনবলেরও । রানা প্লাজার মতো মাত্র একটি ভবন ধ্বসে সরকারের সব সংস্থাকে কাজে লাগিয়েও পুরো ভবনটি উদ্ধারে সময় লেগেছে প্রায় এক মাস। এরকম হাযার হাযার ভবন রয়েছে ঢাকাতে। সেটা সামলাতে ক'বছর লাগবে ? আমাদের ভূমিকম্প পরবর্তী উদ্ধার কার্যক্রম চালানোর মতো জন্য যন্ত্রপাতি কিংবা প্রস্তুতি- কোনোটাই তো নেই মনে হয়!
ঝুঁকি মোকাবেলায় সরকার জাপানের সাথে দফায় দফায় আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছেন, ভূমিকম্প ঝুঁকিপ্রবণ এলাকায় ভলান্টিয়ার গ্রুপ করা হচ্ছে। কিন্তু কখন যে ভূমিকম্প আঘাত হানবে তা কি নিশ্চিত করে বলা যাবে ?
সরকারকে ভূমিকম্পের ঝুঁকির বিষয়টি পুরোপুরি উপলব্ধি করতে হবে এবং প্রস্তুত থাকতে হবে এখন থেকেই।

সূত্র - বিবিসি নিউজ, দৈনিক ইত্তেফাক, জাগো নিউজ

২৩ শে জুন, ২০২২ দুপুর ২:১১

শূন্য সারমর্ম বলেছেন:
মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ।

তবে এতো তথ্য, জরিপ,পরিসংখ্যান, আলোচনা ও ভলান্টিয়ার টিম সবমিলে ফলাফল "জিরো।

৮| ২৩ শে জুন, ২০২২ দুপুর ১:১৩

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
বাংলাদেশে সর্বচ্চ ৭.৬ মাত্রার ভূমিকম্প রেকর্ড আছে।
মাত্র কয় বছর আগেই ২০১৫ তেও প্রায় ৭ মাত্রার (রিখটার স্কেলে ৬.৯) ভূ-কম্পন নথিভুক্ত করা হয়। তখন ঢাকায় বহু ভবন ফাটল ধরে ও ৩-৪ ভবন হেলে পড়ে
এবং ২০০৭ খ্রিষ্টাব্দের নভেম্বর মাসে হয় ৬.০ মাত্রার ভূমিকম্প। মানমন্দিরে হিসেব অনুযায়ী ২০০৬ থেকে মে ২০০৯ পর্যন্ত ৪ বছরে, রিখটার স্কেলে ৪-৫ মাত্রার ৮৬টি ভূ-কম্পন নথিভুক্ত করা হয়।

অতচ আফগানিস্তানে গতকাল মাত্র ৫ মাত্রার ভূমিকম্পে কয়েক হাজার ঘরবাড়ী ধ্বংশ হয়ে হাজার হাজার নিহত হলো।

২৩ শে জুন, ২০২২ দুপুর ২:০৮

শূন্য সারমর্ম বলেছেন:


এমন কেন হলো? উৎপত্তিস্থলের কারণে?

৯| ২৩ শে জুন, ২০২২ বিকাল ৩:৫০

মরুভূমির জলদস্যু বলেছেন: বড় ভূমিকম্প হলে ঢাকার অবস্থা বর্ননাতীত খারাপ হবে।

সৈয়দ মশিউর রহমান আমিও একজন পিচাশ

২৩ শে জুন, ২০২২ সন্ধ্যা ৬:২২

শূন্য সারমর্ম বলেছেন:

লক্ষ মানুষের মৃতের সম্ভাবনা অনেক।

১০| ২৩ শে জুন, ২০২২ বিকাল ৪:৩৭

নতুন বলেছেন: এখন ব্যবস্থা নিলেও কি ক্ষতি কমানো যাবে না?


এখন ব্যবস্থা নিলে ভবিষ্যতের বাড়ী গুলি আরো নিরাপদ হবে।

দূঘটনা মোকাবেলায় প্রস্তুতি থাকবে, দূঘটনার পরে দ্রুত উদ্ধার কাজ করা যাবে, ক্ষতি কমবে।

২৩ শে জুন, ২০২২ সন্ধ্যা ৬:২৩

শূন্য সারমর্ম বলেছেন:

সঠিক।

১১| ২৩ শে জুন, ২০২২ সন্ধ্যা ৬:০০

জুল ভার্ন বলেছেন: গতকাল আফগানিস্তানে যে মাত্রার ভূমিকম্প হয়েছে ঢাকায় সেই মাত্রার ভূমিকম্পের ফলে লক্ষ মানুষের প্রাণহানি হবে।

২৩ শে জুন, ২০২২ সন্ধ্যা ৬:২২

শূন্য সারমর্ম বলেছেন:

কোটির শহরে লক্ষ ছাড়াবেই।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.