নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

শের শায়রী

শের শায়রী

হৃদয়ের কাছে বুদ্ধির বাস ভাল কথা। কিন্তু মাঝে মঝে হৃদয়ের ওপর থেকে বুদ্ধির শাসন তুলে দিতে হয়, হৃদয়কে স্বাধীন করে দিতে হয়, মুক্ত করে দিতে হয়। স্বাধীন মুক্ত হৃদয়ের ধর্মকে সব সময় বুদ্ধি দিয়ে বিচার করতে নেই।।

শের শায়রী › বিস্তারিত পোস্টঃ

শ্রাউড অভ তুরিন অথবা যীশুর কাফন (প্রথম পর্ব)

২১ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:৫৩



সন্ধ্যা তখন ঘনিয়ে এসেছে, সেদিন ছিল প্রস্ততির দিন অর্থ্যাৎ সাব্বাথের দিনের আগের দিন। সে জন্য আরিম্যাথিয়া নিবাসী জোসেফ সেখানে এলেন। ইনি ছিলেন ধর্ম সভার একজন সন্মানিত সদস্য। তিনি ঐশী রাজ্য প্রতিষ্ঠার প্রত্যাশায় ছিলেন। তিনি সাহস করে পীলাতের কাছ থেকে যীশুর মৃতদেহ চেয়ে নিলেন।

এরই মাঝে যীশুর মৃত্যু হয়েছে যেনে পীলাত অবাক হয়ে গেলেন, তিনি সেনাপতিকে ডেকে জিজ্ঞাস করলেন, সত্যিই যীশু এরই মাঝে মারা গেছেন কিনা।

সেনাপতির কাছে এ কথা সত্য জেনে তিনি যীশুর মৃত্যুদেহ যোষেফ কে দিয়ে দিলেন। যোষেফ দামী কাপড় কিনে এনে দেহটিকে নামিয়ে এনে কাপড় দিয়ে জড়ালেন। তারপরে পাহাড়ের গায়ে খোদাই করা একটা সমাধির মাঝে রেখে দিলেন এবং সমাধিরগুহার মুখে একটি পাথর গড়িয়ে এনে চাপা দিয়ে রেখে গেলেন।

(মার্ক ১৫: ৪২-৪৬)

The Burial of Jesus
42 It was Preparation Day (that is, the day before the Sabbath). So as evening approached, 43 Joseph of Arimathea, a prominent member of the Council, who was himself waiting for the kingdom of God, went boldly to Pilate and asked for Jesus’ body. 44 Pilate was surprised to hear that he was already dead. Summoning the centurion, he asked him if Jesus had already died. 45 When he learned from the centurion that it was so, he gave the body to Joseph. 46 So Joseph bought some linen cloth, took down the body, wrapped it in the linen, and placed it in a tomb cut out of rock. Then he rolled a stone against the entrance of the tomb.

Mark 15:42-46 New International Version (NIV)

এখানে যে কাপড়ের কথা বলা হয়েছে মানে যে কাপড় দিয়ে যীশুর মৃত্যুর (!) পর জড়িয়ে রাখা হয়েছে সেই কাপড় তুরিনের আলখাল্লা নামে ইতিহাসে প্রসিদ্ধ হয়ে আছে। বিখ্যাত তুরিনের আলখাল্লা ৪.৩৬ মিটার লম্বা এবং ১.১০ মিটার চওড়া এবং অবিশ্বাস্যভাবে সেখানে একজন ক্রুশ বিদ্ধ হওয়া লোকের দেহের ছাপ দেখা যায়। অর্ধেক আলখাল্লায় রয়েছে পেছনের ছাপ, বাকী অংশে মাথার চারপাশে জড়ানো থাকায় বাকী অংশে সামনের ছাপ ছুটে উঠেছে। এই তুরিনের আলখাল্লায় বা শ্রাউড অভ তুরিনে একজন মানুষের মাথা, মুখমন্ডল, বক্ষপিঞ্জর,বাহু, হাত, পা, পায়ের পাতার ছাপ স্পষ্টভাবে ফুটে উঠেছে। ক্রশ বিদ্ধ হবার কারনে রক্তের দাগ সহজেই চোখে পরে যা কালের ছোবলে ম্লান বাদামী বর্ন ধারন করছে।



অনেক দিন ধরেই ইচ্ছা ছিল শ্রাউড অভ তুরিন নিয়ে লিখব। কিন্তু লেখা আর হয়ে ওঠে নি। আজকে লিখতে বসলাম। যীশু বা ঈসা (অঃ) খ্রীষ্টান দের কাছে যেমন ঈশ্বর পুত্র মুসলমান কাছে তেমনি একজন সন্মানিত নবী, যিনি আল্লাহর তরফ থেকে ওহী প্রাপ্ত। তাই শ্রাউড অভ তুরিন নিয়ে দয়া করে কেউ ধর্মীয় ব্যাখ্যায় না গিয়ে অথবা এমন কোন মন্তব্য করবেন না যা কারো কোন ধর্মীয় অনুভুতিকে আঘাত করে। আমি মুলতঃ এই শ্রাউড অভ তুরিনের ঐতিহাসিক পটভুমি এর বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা তুলে ধরার চেষ্টা করব যা বিভিন্ন বই পত্র এবং নেট ঘেটে আমি পেয়েছি। লেখাটা আমি দুই বা তিনটি পর্বে বিভক্ত করে পোষ্ট দেব। তাই দয়া করে সব গুলো পোষ্ট পড়ে আমরা নিজেরা এ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনার সুযোগ পাব।

আলখাল্লাটা প্রথমেই দেখলেই সবার আগে চোখে পরে দুটো গাঢ় দাগের প্রতি যা কাপড়ের দৈর্ঘ্য বরাবর বিস্তৃত, যা দুটো বড় হীরকাকৃতির দাগের সাথে এসে মিশেছে। এগুলো পোড়া দাগ যা হাল্কা রংয়ের সুতা দিয়ে রিপু করা হয়েছে। ১৫৩২ সালে ফ্রান্সের ক্যামবেরীতে অবস্থিত চ্যাপেলে একটা অগ্নিকান্ডের কারনে হয়েছে। একটা রূপার সিন্দুকে ৪৮ ভাগে রক্ষিত এই কাপড় প্রায় পুড়ে যাবার উপক্রম হয়েছিল এক অগ্নিকান্ডের কারনে। আগুনের উত্তাপে রূপার সিন্দুক পুড়ে গিয়ে গলিত রূপার ক্ষুদ্র কনা ভাজ করা কাপড়ে এই জ্যামিতিক আকারের পোড়া দাগ তৈরী করে।



কাপড়ের ওপর এই মানবাকৃতি অবয়ব যদি দু হাজার বছর টিকে থেকে সত্যিই হয়ে থাকে তা যেমন এক দিক দিয়ে ধর্ম এবং বিজ্ঞান কে এক বিন্দুতে নিয়ে আসবে তেমনি অনেক অবিশ্বাসীর প্রশ্ন সত্যিই কি যীশুর পুনুরুত্থান ঘটে ছিল কিনা সে বিষয়েরও মীমাংসা হয়ে যাবে।

প্রাথমিকভাবে অনেকে সংশয় প্রকাশ করেন দু হাজার বছর কি কোন কাপড় টিকে থাকতে পারে? বাস্তবতা হল কায়রোয় অবস্থিত মিশরের জাতীয় জাদুঘরে, তুরিনের মিশরীয় জাদুঘরে, লন্ডনের ঐতিহাসিক মিশর বিষয়ক শাখায়, প্যারিস, বার্লিন, হিল্ডেইসহেইমের সব জায়গায় ৩৫০০ থেকে ৫০০০ বছরের পুরানো নমুনা আমরা দেখতে পাব। কাপড় বা স্ক্রোলের জন্য প্রাচ্যের শুস্ক আবহাওয়া বিশেষভাবে উপযোগী। উভয় ক্ষেত্রেই উদ্ভিজ্জ অনু সেলুলোজ যা খুবই দীর্ঘ স্থায়ী।



গ্রীক শব্দ “সিনডন” যাকে ইংরেজীতে কখনো কখনো মসলিন বলা হয় সংক্ষিপ্ত গসপেলে এই কাপড়ের দৈর্ঘ্য হিসাবে উল্লেখিত আছে। আলখাল্লাটি লিনেনের তৈরী যার সুতাগুলো ৩:১ অনুপাতে বোনার কারনে পানিতে ঢেউ তোলা মাছের আকৃতি নিয়েছে। যীশুর সমসাময়িক এই ধরনের কাপড় খুব কম দেখা যেত, যার কারনে এটা খুবই দামী ছিল। রোমের অন্তর্ভুক্ত তদান্তিন সিরিয়া প্রথম শতকে বোনা এ ধরনের কাপড়ের এক মাত্র নিদর্শন দেখা যায়।

১৯৭৩ সালে ইলেক্ট্রন অনুবীক্ষন যন্ত্র ব্যবহার করে বেলজিয়ামের ঘেনট বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক রেইস তন্তুর মাঝে কিছু তুলার আশঁ দেখতে পান, কিন্তু সমস্যা হল যীশুর আমলে নিকট প্রাচ্যে তুলার চাষ হত না। কিন্তু পারস্য, সিরিয়া, ভারত থেকে কাপড় বোনার জন্য সে সময় তুলা আমদানীর প্রমান পাওয়া যায়।



সুইজারল্যান্ডের উদ্ভিদ এবং চিকিৎসাবিজ্ঞানী ফ্রাই, পলেন বিশ্লেষনের জটিল পদ্ধতি ব্যাবহার করে কিছু আলোড়ন সৃষ্টিকারী সিদ্ধান্তে উপনীত হন। ১৯৭৬ সালে মার্চে প্রকাশিত তার গবেষনামুলক প্রবন্ধ্যে ফ্রেই লেখেন যে তিনি প্রাপ্ত পলেন থেকে মোট ৪৯ ধরনের ভিন্ন ভিন্ন উদ্ভিদ পেয়েছেন। আলখাল্লার স্ংরক্ষনের ইতিহাসের গতিপথ ব্যাক ট্রেইল করলে সেই এলাকায় এই ৪৯ প্রজাতির গাছের অনেক নমুনা এখনো দেখতে পাওয়া যায়। যার একটা হল লেবাননের সিডর। কিন্তু আলোড়ন সৃষ্টিকারী খবর হল ওই আলখাল্লায় ১১ প্রকার ভিন্ন ভিন্ন উদ্ভিদের পলেন পাওয়া গেছে যা ইউরোপে জন্মায় না কেবল মাত্র নিকটপ্রাচ্যে দেখা যায় যেমন হ্যালোফাইটস। হ্যালোফাইটস উদ্ভিদ কেবল সেখানেই জন্মায় যেখানে মাটিতে মাত্রাতিরিক্ত লবন আছে। যেমন মৃত সাগর (ডেড সী) পার্শ্ববর্তী এলাকা সমুহ। এগারোটার মাঝে কিছু আবার শুধু মরুভুমিতেই পাওয়া যায় যেমন তামারিস্ক, সিবলাইট, আর্টেমেসিয়া।



Chrysanthemum coronarium, now called Glebionis coronaria

In 1997 Avinoam Danin, a botanist at the Hebrew University of Jerusalem, reported that he had identified Chrysanthemum coronarium (now called Glebionis coronaria), Cistus creticus and Zygophyllum whose pressed image on the shroud was first noticed by Alan Whanger in 1985 on the photographs of the shroud taken in 1931

আলখাল্লাটার ইতিহাস তখনো কেবল চৌদ্দ শতকের ধরে নেয়া হয়েছিল ( মানে ফ্রড হিসাবে)। কিছু বিশেষজ্ঞ ধারনা করছিলো ওই সময় আলখাল্লাটা ফ্রান্সের কোথাও বোনা হয়েছিল কারন এটা সংরক্ষিত ছিল ইতালী ফ্রান্সের সীমানা বরাবর। পলেন বিশ্লেষন এটা সুস্পষ্ট এই কাপড় কোন এক সময় ফিলিস্তিন ছিল বা বোনা হয়েছিল, আরো উল্লেখ্যযোগ্য সনাক্তকৃত পলেন বলে যে গ্যালিলি সাগরের যে এলাকায় সর্বাধিক লবনাক্ত সেখানেই এই সব উদ্ভিদ জন্মাত যা আমাদের যীশুর আমলে নিয়ে আসে।

ডাঃ ফ্রাই তখনো জানতেন না তিনি কতখানি গুরুত্বপূর্ন আবিস্কার করছেন।

এরপরের পর্বে আমরা ব্যাক ট্রেইল করে এই তুরিনের আলখাল্লার উৎসে যাবার চেষ্টা করব সাথে থাকুন। এর পর থাকবে আলখাল্লার আধুনিক বৈজ্ঞানিক বিশ্লেষন। শ্রাউড অভ তুরিন সব সময়ই আমার কাছে এক মিষ্টিরিয়াস ব্যাপার হয়ে আছে আমি শুধু আপনাদের জানাব আমি কি কি জানতে পেরেছি হয়ত আপনি আরো বিশ্লেষন করে কোণ কংক্রিট ডিসিশানে আসতে পারবেন।

চলবে

সুত্রঃ উইকিপিডিয়া

শ্রাউড অভ তুরিন

শ্রাউড অভ তুরিন ওয়েব সাইট

ইউটিউব

Test the Shroud: At the Atomic and Molecular Levels

The Truth About the Shroud of Turin: Solving the Mystery

Jesus lived in India

জেসাস লীভড ইন ইন্ডিয়া বইর pdf

মন্তব্য ৪০ টি রেটিং +১২/-০

মন্তব্য (৪০) মন্তব্য লিখুন

১| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১২:৩৭

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: নতুন অনেক ব্লগাররা জিজ্ঞেস করেন, ব্লগে কি হয়, কি ধরনের লেখা হয়, আমি সত্যি মাঝে মাঝে কোন জবাব খুঁজে পাই না।
প্রিয় ব্লগার, আপনি ব্লগে এসেছেন, এবার হয়ত আমি কিছু জবাব দিতে পারব! কিছু দেখিয়ে বলতে পারব - দেখো ব্লগে কি ধরনের লেখা হয়! কিভাবে লিখতে হয়।

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১২:৪৯

শের শায়রী বলেছেন: ভাই কি বলব! আমি বাক্যহারা। আমাকে যে সন্মান তুমি দিলে আমি কি সে সন্মানের যোগ্য? ব্লগার অনেক বড় একটা ব্যাপার। সেখানে আমার দুই চার জায়গা থেকে জোড়া তালি দিয়ে লেখাগুলো কি আদৌ ব্লগের মাঝে পড়ে কিনা নিজের ই সন্দেহ।

তারপরো প্রিয় কাভা তোমার দেয়া এই মনিহার দুহাতে মাথায় তুলে রাখলাম। অনেক অনেক বড় পাওয়া আমার জন্য।

অফটপিকসঃ অনেক দিন কাবাব খাই না :)

২| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১২:৪৫

নতুন বলেছেন: খুবই চমকপ্রত একটা বিষয় এই শ্রাউড অফ তুরিন।

যদিও আমার ধারনা এটা হয়তো বানানো।

যেই ঘটনা বাস্তবতার সাথে যায় সেটা হলো উনি ভারতে চলে গিয়েছেন। তাতে কোন অলৌকিক ঘটনা থাকে না।

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১:৪৬

শের শায়রী বলেছেন: জেসাস লীভড ইন ইন্ডিয়া বইতে লেখক হলগার কারষ্টেইন তেমনি প্রমান করার চেষ্টা করছেন। যদিও অনেক কন্ট্রাভার্সি আছে।

৩| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ২:২০

আরোগ্য বলেছেন: পরের পর্বের অপেক্ষায় রইলাম। অনেক শুভ কামনা। শুভ রাত্রি।

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:১০

শের শায়রী বলেছেন: ভ্রাতা লেখা শুরু করছি, কিন্তু এত তথ্য সব এক জায়গায় গুছিয়ে আনাই বড় সমস্যা। ভালো থাকুন নিরন্তর।

৪| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ২:২৫

সোহানী বলেছেন: অসাধারন। বিষয়টি নিয়ে আমার তেমন জানা নেই। তাই খুব আগ্রহ ভরে পড়লাম ও বাকিগুলো পড়ার জন্য অপেক্ষায়।

কাভা ভাইয়ের মতো বরতেই হয় অনেক দিন পর এমন চমৎকার একটি লিখা পড়লাম।

ফলো করতে বাধ্য হলাম B:-/

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:১২

শের শায়রী বলেছেন: বাকীগুলো লেখার জন্য সব ডকুমেন্ট নিয়ে বসে নিজেই হিমশিম খাচ্ছি বোন। এত তথ্য কিভাবে সাজাব বুজে উঠতে পারছি না ইতিহাসের এই মিষ্টিরিয়াস ব্যাপারটা নিয়ে।

৫| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ২:৩৩

অন্তরন্তর বলেছেন: প্রথম পোস্ট ৫ বছর পর। এমন লিখা আসলেই অনেক দিন মিস করছিলাম। পরের পর্বের অপেক্ষায় রইলাম। একটা কথা বলি কাভা কিছু অতিরঞ্জিত বলেনি। শুভ কামনা।

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:১৩

শের শায়রী বলেছেন: এ আমার অনেক পাওয়া আপনাদের মত কিছু মানুষ মাঝে মাঝে আমাকে স্মরন করতেন। ভালো থাকুন নিরন্তর।

৬| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ ভোর ৬:০৪

স্বামী বিশুদ্ধানন্দ বলেছেন: পরিশ্রমী এবং তথ্যমূলক এই লেখায় বেশ গতি রয়েছে | বিজ্ঞান ও ধর্মের সমন্বয়ে একটি সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়ার প্রয়াস সত্যিই প্রশংসনীয় | একটি চমৎকার পোস্টের জন্য অনেক ধন্যবাদ ।

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৩:৪২

শের শায়রী বলেছেন: আমার কৃতজ্ঞতা জানুন ।

৭| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ ভোর ৬:৫০

চাঁদগাজী বলেছেন:


উনার কাফনের কাপড় রয়ে গেলো উনি কোথায় গেলেন? উনি কি ন্যাংটা হয়ে চলে গেলেন? এই কাফনের কাপড়ের মিথ্যা ইতিহাস আপনার কাছে "মিষ্টিরিয়াস" মনে হয়েছে, কারণ আপনি লজিক কম বুঝেন।

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:৩০

শের শায়রী বলেছেন: জনাব চাঁদগাজী, আপনি ভালো আছেন তো? দেখলাম দু একজন আপনার স্বাস্থ্য নিয়ে উদ্বিগ্ন, জানিনা আপনার কি হয়েছে, তবে যাই হোক আল্লাহ আপনাকে দ্রুত আরোগ্য দিক এই কামনাই করি।

আপনি লিখেছেন, “উনার কাফনের কাপড় রয়ে গেলো উনি কোথায় গেলেন? উনি কি ন্যাংটা হয়ে চলে গেলেন? এই কাফনের কাপড়ের মিথ্যা ইতিহাস আপনার কাছে "মিষ্টিরিয়াস" মনে হয়েছে, কারণ আপনি লজিক কম বুঝেন।" প্রথমতঃ ইতিহাস আমার দ্ধারা লিখিত হয় না, ইতিহাস নিজে থেকেই লিখিত হয় হতে পারে সেটা সত্য হতে পারে সেটা মিথ্যা। আপনি যেহেতু নিশ্চিত এটা মিথ্যা সেক্ষেত্রে এত এত স্কলারের এত শ্রম ঘন্টা সব বৃথা বা এখনো বৃথা পরিশ্রম করছে, আপনি কেন এ ব্যাপারে আপনার যুক্তি দিয়ে একটা পেপার সাবমিট করে একটা আন্তর্জাতিক কনফারেন্স ডাকেন না?! আপনি তো মশাই ছাই চাপা আগুন।

“উনার কাফনের কাপড় রয়ে গেলো উনি কোথায় গেলেন? উনি কি ন্যাংটা হয়ে চলে গেলেন?” আসি এই লাইনের জবাবে, খুব সম্ভবতঃ আপনি বিদেশে থাকেন হয়ত প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাও আছে ( আমি ধরে নিচ্ছি সেটা আপনার আছে) সেক্ষেত্রে খ্রীষ্টান ধর্মে “রেজোরেকশান বা পুনুরুত্থান” বলে যে শব্দ আছে সেটার মানে নিশ্চয়ই বুজেন। নাকি আমাকে আবার এই সাধারন বিষয়টা নিয়ে সময় নষ্ট করতে হবে? উনার কাফন কেউ চুরি করে নেয়নি। পুনুরুত্থনের পর উনার শিষ্যরা উনাকে দেখে ( এখানে অনেক ধরনের মতবাদ পাওয়া যায়)। সেক্ষেত্রে পুনুরুত্থানের সময় উনার কাফনের কাপড় উনার গায় থাকাই স্বাভাবিক পরে সেটা চেঞ্জ হয়। এই ব্যাসিক ব্যাপারগুলো কি আপনি জানেন না?!!! খ্রীষ্টান ইসলাম উভয় ধর্মেই উনি গুরুত্বপূর্ন নবী উনাকে নিয়ে শব্দ চয়নে সংযত হোন।

আসি শেষ বাক্যে “কারণ আপনি লজিক কম বুঝেন।” শুধু লজিক না অনেক ব্যাপারেই আমি কম বুজি সেটা স্বীকার করতেও আমার দ্বিধা নেই, কিন্তু আমার পারিবারিক এবং প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা আমাকে এটা শিক্ষা দিয়েছে অপরিচিত কাউকে হুট করে জ্ঞান দিতে নেই। এগুলো মুলতঃ পরিবার থেকেই আসে। আপনি বায়োজোষ্ঠ হবেন হয়ত, সেক্ষেত্রে আপনাকে উপদেশ আমি দেব না তবে আমি যে সময় ব্লগে লিখছি সে সময় অনেকেই দেখছি কিছুটা রাফ বিহেভ করে এক ধরনের সস্তা বাহবা কুড়াত তবে তাদের ও একটা একটা ক্লাশ ছিল, গায় পরে আসত না।

সস্তা ষ্ট্যান্ডবাজি, বয়সের দোহাই বা অন্য কিছু নিয়ে মানুষের নজরে পড়ার অনেক অভিজ্ঞতা পাশাপাশি নিজের বয়সের কারনেও অনেক কিছু শিখছি যা আপনি কল্পনাও করতে পারবেন না।

ভালো থাকুন। সুস্থ্য থাকুন এই কামনায় আপাততঃ।

৮| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ৮:৫৩

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: দারুন পোষ্টে দারুন কমে্টে মুগ্ধতার ঢেউয়ে ভাসতে ভাসতে প্রথম হোচট খেলাম সাত এ এসে!

মন আপন মনে হেসে উঠলো -ভেভে
ইল্লত যায়না ধূলে
খাসলত যায়না ম'লে ;)
হা হা হা

রহস্য হোক, বা বিজ্ঞান, সত্য বা উপাখ্যান দারুন করে উপস্থাপন করেছেন।
কত অজানা জানা হলো!, হবে, হতেই থাকবে - -
আগামী সিরিজের অপেক্ষায়!

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ৮:৪৬

শের শায়রী বলেছেন: জ্বি ভাইজান। ব্লগের মান যাই হোক না কেন এ্যাটেনশান সীকার এখনো আছে।

যাই হোক, দ্বিতীয় পর্ব লিখতে বসছি কিন্তু সব কিছু এক করে ব্লগ উপযোগী করে প্রকাশ করতে নিজেই হিমশিম খাচ্ছি। দেখি রাতে প্রকাশ করতে পারি কিনা।

৯| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ১০:২২

অপু তানভীর বলেছেন: মনমুগ্ধকর লেখা !
শ্রাউড অব তুরিন নিয়ে লেখা চলুক ।
সেই সাথে শের সাহেবের লেখাও চলুক । হঠাৎ করে যেন আর থেমে না যায় !

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ৮:৪৮

শের শায়রী বলেছেন: লিখে যাচ্ছি, কিন্তু ভাই লিখতে গিয়ে বুজলাম বয়স হয়ে গেছে, আগের মত একটানে সব লিখতে পারছি না হয়ত চর্চার অভাব ও হতে পারে।

১০| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১২:০৩

কিরমানী লিটন বলেছেন: অনেক অজানাকে জানার প্রত্যাশা রইলো। ভিন্ন বিষয়ে ভিন্ন ভাবনায় লিখাটি পড়ে মুগ্ধ হলাম। পরের পর্বগুলোর আশায় রইলাম। আপনাকে অভিনন্দন রইলো।

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৩৯

শের শায়রী বলেছেন: আমার কৃতজ্ঞতা জানুন। পরের পর্বের লেখা চলছে ভাই।

১১| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১২:১৯

আহমেদ জী এস বলেছেন: শের শায়রী,




রহস্যময় চাদর - একটি আনসলভ্ড রহস্য।

ভালো লিখেছেন। তুরিনের চাদর নিয়ে এরকম একটি লেখা ২০১২ সালে আমি এখানে লিখেছিলুম। আপনার সাথে সঙ্গতিময়।
দেখতে পারেন -- রহস্যময় এক চাদর “দ্য তুরিন শ্রাউড” (X-file )

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:৩১

শের শায়রী বলেছেন: আপনার লেখাটা দেখে আসলাম কমেন্ট ও দিয়ে আসছি। দারুন লিখছেন। অনেক তথ্য দিয়েছেন। আসলে এগুলো লেখা যে কি ঝক্কির তা আপনার থেকে আর কে ভালো জানে।

ভালো থাকুন।

১২| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১২:৩৬

রাজীব নুর বলেছেন: যিশু তার সমগ্র জীবনে দূর্দান্ত সব কথা বলে গেছেন।
সেই সব কথা বুকে ধারন করতে পারলে জীবন সুন্দর হবে।

তবে একটা কথা, যিশু অন্ধদের সুস্থ করে তুলতে পারতেন, মৃতকে জীবিত করতে পারতেন। কিন্তু যিশুকে যখন নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করা হলো- তখন কিন্তু উনি কোনো অলৌকিক ক্ষমতা দেখাতে পারেন নি।

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:৪১

শের শায়রী বলেছেন: ভাই, আমি আসলে ধর্ম নিয়ে খুব একটা জানি না, জ্ঞান ও খুব কম। হয়ত খুব ভালোভাবে ব্যাখ্যা দিতে পারব না, তবে যেটুকু বুজি তাতে উনাদের অলৌকিকত্ব বা মাজেযা উনাদের নিজেদের ক্ষেত্রে ব্যাবহার করতেন না। সাধারনতঃ মানুষের উপকারে অথবা তাদের সত্যর পথে আনার জন্য তা প্রকাশ করতেন। দেখুন আমাদের শেষ নবী হযরত মুহাম্মদ (সঃ) কে যখন পাথর মেরে মক্কায় রক্তাক্ত করা হত তখনো কিন্তু উনি কোন অলৌকিকত্ব বা মাযেজা দেখান নি। নিজেদের ওপর আল্লাহ প্রদত্ত নিয়তি মেনে নিতেন। হয়ত আমার ভুল হতে পারে, তবে ক্ষুদ্র বুদ্ধিতে এটুকুই বুজি।

১৩| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৪৬

মনিরা সুলতানা বলেছেন: ওয়েলকাম ব্যাক !

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:৪১

শের শায়রী বলেছেন: ধন্যবাদ আপা।

১৪| ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:১১

জুল ভার্ন বলেছেন: চমৎকার!!!

২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:৪২

শের শায়রী বলেছেন: ধন্যবাদ ভাই

১৫| ২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ ভোর ৬:১৭

নীল বরফ বলেছেন: খুবই চমৎকার লিখেছেন। পড়ে ভীষন ভালো লাগলো। বরাবরই ভালো লিখে আসছেন। আপনার লেখা চলুক।

২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৩:১৬

শের শায়রী বলেছেন: অনেক অনেক কৃতজ্ঞতা।

১৬| ২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ৭:০১

চাঁদগাজী বলেছেন:


রিজেরেকশন একটা রূপকথা

২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৩:১৬

শের শায়রী বলেছেন: আচ্ছা!

১৭| ২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ১০:২১

নীল আকাশ বলেছেন: শ্রাউড অফ তুরিন খুব কনট্রভারশিয়াল একটা টপিক। আমি অনেক পড়েছি এটা নিয়ে কিন্তু লেখার সাহস পাইনি।
লেখা চলুক। সাথেই আছি!
হুম এসেই লেগে গেছে! দেখি কোথাকার জল কত দূর গড়ায়!

২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:২১

শের শায়রী বলেছেন: দ্বিতীয় পর্ব দেখছেন ভাই?

১৮| ২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ১০:২৯

বঙ্গভূমির রঙ্গমেলায় বলেছেন: চমতকার লেখা।

ওয়েলকাম ব্যাক।।।।।

২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:২২

শের শায়রী বলেছেন: শুকরিয়া জনাব।

১৯| ২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:৪৯

নেক্সাস বলেছেন: রাজকীয় প্রত্যাবর্তণ। দারুন বিষয় নিয়ে লিখলেন। আশা করি সামনে আরো মসল্লাদার সুস্বাদু পরিবেশনা আছে। তবে ৭ নম্বর মন্তব্যে বীর মুক্তিযোদ্ধা যে কমেন্ট করেছেন , তাতে কতদিন টিকতে পারবেন তাও ভাবনার বিষয়। চলুক বোধের বিকাশ

২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:২৪

শের শায়রী বলেছেন: কেন নেক্সাস ভাই, ব্লগে কে থাকবে না থাকবে তা কি এখন ৭ নং কমেন্টকারী নির্ধারন করেন? উনি কি সেইরাম ক্ষমতাবান :-P ?

২০| ২৪ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ২:২৩

সোনালী ডানার চিল বলেছেন:

চমৎকার পোষ্ট, আপনি সবসময় আমার প্রিয় ব্লগার ছিলেন-
খুব ভালো লাগছে যে আপনার এরকম সব লেখা এখন নিয়মিত পাবো!

শুভকামনা ভাই!

২৪ শে নভেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১:০৮

শের শায়রী বলেছেন: এ আমার অনেক পাওয়া অনেক অনেক কৃতজ্ঞতা ভাই।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.