নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

অমরত্বের লোভ কখনো আমাকে পায়না। মানব জীবনের নশ্বরতা নিয়েই আমার সুখ। লিখি নিজের জানার আনন্দে, তাতে কেউ যদি পড়ে সেটা অনেক বড় পাওয়া। কৃতজ্ঞতা জানানো ছাড়া আর কিছুই নেই।

শের শায়রী

হৃদয়ের কাছে বুদ্ধির বাস ভাল কথা। কিন্তু মাঝে মঝে হৃদয়ের ওপর থেকে বুদ্ধির শাসন তুলে দিতে হয়, হৃদয়কে স্বাধীন করে দিতে হয়, মুক্ত করে দিতে হয়। স্বাধীন মুক্ত হৃদয়ের ধর্মকে সব সময় বুদ্ধি দিয়ে বিচার করতে নেই।।

শের শায়রী › বিস্তারিত পোস্টঃ

বাংলা সাহিত্যে অসামান্য অবদানে একজন রইস আদমীর উত্থান

২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৪:০৭


বাংলা সাহিত্যের বিখ্যাত সাহিত্যিক এস এম রইজ উদ্দীন আহমদ

কাজী নজরুল ইসলাম, কবি জসীম উদ্দীন, আবুল মনসুর আহমেদ, ফররুখ আহম্মদ হালের সৈয়দ শামশুল হক, আনিসুজ্জামান, নির্মলেন্দু গুন এদের সাথে এক কাতারে এই ২০২০ সালে উচ্চারিত হবে আর একটি বিখ্যাত নাম এস এম রইজ উদ্দীন আহমদ। নিশ্চয়ই এতক্ষনে সবাই বুজে গেছেন, সবাই চিনে গেছেন বাংলা সাহিত্যের এই অমর সাহিত্যিক যার অসামান্য অবদানের দান স্বরূপ বাংলা একাডেমী এবার উনাকে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় পুরস্কার “স্বাধীনতা পুরস্কারে” ভুষিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

আমি অতি নগন্য মানুষ আমার জানা না জানায় কিছুই আসে না, তাই অতি লজ্জার সাথে স্বীকার করেই নিচ্ছি বাংলা সাহিত্যের এই উজ্জ্বল নক্ষত্রের নাম বা উনার লিখিত কোন বই বা কবিতা আজ পর্যন্ত আমার চোখে পড়ে নাই অথবা কারো মুখে নামও শুনিনি (অবশ্য আমার সাথে যাদের আলাপ আলোচনা হয় তাদের অধিকাংশই আমার মত মুর্খ কিসিমের মানুষ।)



স্বাধীনতা পুরস্কার” আগে যাদের নাম দিয়েছে অন্তত তাদের নাম দু একবার হলেও আগে পিছে শুনছি কিন্তু এইবার এমন এক প্রচার বিমুখ লজ্জাবতীর লতা টাইপের মানুষকে এই পুরস্কারের জন্য সন্মানিত বাংলা একাডেমী মনোনীত করল যে, তার নাম তো আমার মত গন্ডমুর্খ দূরে থাক দেখলাম অনেক গুনী জন ও শুনে নাই এদের মাঝে তো আজকে “প্রথম আলোর” আনিসুল হক সাহেব (দেখুন রাষ্ট্রীয় পুরস্কার: জিব কাটো লজ্জায় ) বা সাবেক বাংলা একাডেমীর মহাপরিচালক জনাব অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান তো বিস্ময় প্রকাশ করে বলেই ফেলছেন “এবার সাহিত্যে স্বাধীনতা পুরস্কার পেলেন রইজউদ্দীন, ইনি কে? চিনি না তো। কালীপদ দাসই (কালীপদ দাস যিনিও সাংস্কৃতি অঙ্গনে অসামান্য অবদানের জন্য এইবার স্বাধীনতা পুরস্কারে ভুষিত হয়েছেন) বা কে! হায়! স্বাধীনতা পুরস্কার!’ (দেখুন হায় স্বাধীনতা পুরস্কার! ) যাই হোক সে উনারা বিস্ময়াভুত হতেই পারেন! বড় মানুষ বড় মানুষদের নিয়েই বিস্ময়াভুত হয়, আর আমাদের মত অকাট মুর্খদের লজ্জা ছাড়া কিছুই নাই তাও নিজেদের অজ্ঞতায়।


স্বাধীনতা পুরস্কার

যাই হোক উনাকে নিয়ে গুগল ইঞ্জিনে সার্চ দেয়া শুরু করলাম, ইঞ্জিন গরম হয়ে বিকট আওয়াজ দেবার পর উনাকে নিয়ে যে যৎসামান্য তথ্য পেলাম তাতে জানলাম উনি একজন মুক্তিযোদ্ধা ৮ নাম্বার সেক্টরের অধীনে এবং জন্ম ১৯৬০ সালে!!!! মানে ১১ বছর বয়সে উনি মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়ে দেশ স্বাধীন করে এইবার সাহিত্যে স্বাধীনতা পুরস্কার পেলেন। (অপ্রাসাঙ্গিক ভাবে উল্লেখ্য আমার নিজের ছোট সন্তানের বয়স ১০ বছর তার দিকে তাকিয়ে অনুভব করছিলাম কিভাবে ৩০৩ রাইফেল (যুদ্ধের সময় প্রচলিত ছিল মুলতঃ) তুলে গুলি করে এই ছেলে রিকয়েলসের ধাক্কা সহ্য করবে, অবশ্য আমার মত অযোগ্য পিতার অযোগ্য সন্তান দিয়ে উনাদের মত অসামান্য মানুষদের হিসাব করাও বোকামী) একজন সাবেক সরকারী কর্মকর্তা এই প্রতিথযশা সাহিত্যিক জনাব এস এম রইস উদ্দিন। (দেখুন উইকিতে এস এম রইজ উদ্দিন আহম্মদ)

এইবার খোজে নামলাম উনার সাহিত্য কর্ম কি কি আছে, দেখলাম উইকিপিডিয়ায় তার উল্লেখ্যাযোগ্য সাহিত্য কর্ম হিসাবে উল্লেখ্য করেছে; কেমন করে স্বাধীন হলাম (কবিতা),পুষ্পিতারণ্যে বিথী (উপন্যাস),পরলোকে মর্তের চিঠি (পত্রোপন্যাস),রবীন্দ্রজীবনে ভবতারিনীর প্রভাব ও অন্যান্য প্রসঙ্গ (প্রবন্ধ), দেখে এলাম নেদারল্যান্ড: ভূমি প্রসঙ্গ (ভ্রমণ কাহিনী), আগস্ট ট্রাজেডি ও তারপর! (ইতিহাস) (আচ্ছা বইগুলোর কোন কোনটায় নামের বানান ভুল আছে এগুলো কি উইকির ভুল না অরিজিন্যাল বইয়েই এভাবে নাম দেয়া আছে!)। অত্যান্ত উল্লেখ্য যোগ্য সব বই তবে মুর্খ আমি নামও জানি না, তবে আমি নিশ্চিত আপনারা যারা সামু ব্লগে লিখছেন তারা নিশ্চয়ই এই সব উল্লেখ্যযোগ্য বইর সাথে পরিচিত। বড়ই রইস আদমী জনাব সাহিত্যিক রইজ উদ্দীন যে হাতে (১১ বছর বয়সে) অস্ত্র তুলে নিয়েছিলেন সেই হাতেই আবার সাহিত্যের প্রায় সব শাখাতেই পদচারনা করে বাংলা সাহিত্যকে অনন্য ভুমিকায় নিয়ে গেছেন।

এইবার আসুন দেখি উনি কি কি অন্যান্য অসামান্য পুরস্কার পেয়েছেন, দু একটির উল্লেখ্য করি বেশী উল্লেখ্য করলে আপনাদের ধৈর্য্য চ্যুতি ঘটবে তাই দু একটি উল্লেখ্য করব গাঙচিল সাহিত্য সংস্কৃতি পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি রইজ উদ্দিন ২০০৮ সালে সাউথ এশিয়ান কালচারাল সোসাইটির দেওয়া ‘আন্তর্জাতিক মাদার তেরেসা স্বর্ণপদক’, ২০১৫ সালে পশ্চিমবঙ্গের একটি মাসিক সাহিত্য পত্রিকা থেকে সম্মাননা (উৎসাহীরা দেখুন এখানে তার পুরস্কার প্রাপ্তির লিষ্ট এত বড় পুরস্কার পাব বুঝতেই পারিনি: স্বাধীনতা পদকজয়ী রইজ উদ্দিন )


মহান সাহিত্যিকের একটি বিখ্যাত কবিতা

এ এমন উচ্চতা যে উচ্চাতায় বর্তমান বাংলা সাহিত্যের কবি মহাদেব সাহা, বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক আবু সায়ীদ স্যার, হুমায়ুন আহম্মেদরা পৌছানোর যোগ্যতা রাখেন নি। শুনছিলাম উনি নাকি ফেসবুকে কবিতা লেখেন, ফেসবুকে আমার কোন আইডি নাই তাই স্ত্রীর আইডি দিয়ে উনার নাম সার্চ করেও উনার আইডি পেলাম না (অভাগা যেদিকে চায় সাগর শুকিয়ে যায়)। যাই হোক অনেক কষ্টে গুগল ইঞ্জিন কে ষ্টার্ষ্ট দিয়ে ওপরের কবিতাটি পেলাম। কি অসাধারন শব্দশৈলী, অসাধারন বাচনভঙ্গি, অভুতপূর্ব বানান (অবশ্য রবীন্দ্রনাথ, নজরুল ইনারাও অনেক নতুন শব্দ বাংলায় সংযোজন করেছিলেন)। উনার এক খানা সাক্ষাৎকার পেলাম (দেখুন স্বাধীনতা পুরস্কার পেয়ে রইজ উদ্দিন: 'কৌলিন্যের দাবিদারদের কাছে আমি খুব একটা পরিচিত না' )। অবাক ব্যাপার হল বড় কোন পত্রিকা উনার “অনুভুতি কেমন” টাইপের প্রশ্নের উত্তর জানার জন্য মনে হয় এখনো যায় নি, কেন যায়নি তার কোন যৌক্তিক অযৌক্তিক কারন খুজে পেলাম না।

কথা আর বাড়াব না, বাংলা সাহিত্যের এই রকম মহান রইস সাহিত্যিক কে আগে না চেনার জন্য সবার কাছে মার্জনা প্রার্থনা পূর্বক বাংলা সাহিত্যের ধারক ও বাহক বাংলা একাডেমীকে অসংখ্য ধন্যবাদ এই সাহিত্যিক কে পুরস্কারের জন্য মনোনীত করায়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ২০২০ সালে “স্বাধীনতা পুরস্কার" প্রাপ্তদের হাতে পুরস্কার তুলে দেবেন ২৫শে মার্চ এক রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানের মাধ্যমে।

ব্যাখ্যাঃ কেউ যদি এই লেখা পড়ে মনে করেন তার সময় নষ্ট হয়েছে তবে তার উদ্দেশ্যে স্বান্ত্বনা বানী এটুকুই আপনার পড়ার চেয়ে আমার লিখতে বেশি সময় গেছে। তবে জেনে রাখবেন এটা এই দেশের সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার। আর কারো ভালো লাগলে আমার কিছুটা হলেও স্বান্ত্বনা লাভ হবে।

পরিশিষ্টঃ আজকে ১৩ ই মার্চ নিউজ পেপারে খবর আসছে জনাব রইজ উদ্দীনের নাম স্বাধীনতা পুরুস্কার থেকে বাদ দেয়া হয়েছে, সেক্ষেত্রে প্রশ্ন থেকে যায় যারা উনাকে সিলেক্ট করে আজকে বাদ দেবার মত রাষ্ট্রীয় অপমানজনক পরিস্থিতি তৈরী করছে তারা কতটুকু দায়ী? (দেখুন স্বাধীনতা পদক থেকে বাদ পড়লেন সেই রইজ উদ্দিন )

মন্তব্য ৪৯ টি রেটিং +১০/-০

মন্তব্য (৪৯) মন্তব্য লিখুন

১| ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৪:২১

রাজসোহান বলেছেন: :D

২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১০:১১

শের শায়রী বলেছেন: :D

২| ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৪:২৬

মা.হাসান বলেছেন: রতনে রতন চেনে । মে মহান সার্চ কমিটি ওনার মতো প্রচার বিমুখ মানুষ কে খুঁজে বের করলো তাঁরা ও পদকের দাবিদার ।

জন্মের আট বছর আগেই মুক্তি যুদ্ধে অংশ নেয়ার উদাহরণ আছে । আপনার ছেলের গ্রোথ ভালো না । পীর বাবার তাবিজ দরকার । প্রয়োজনে অভিজ্ঞদের সাহায্য নিন ।

২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১০:১৯

শের শায়রী বলেছেন: আপনার সাথে আমিও ওই সার্চ কমিটিকে যে কোন জাতীয় পুরস্কারে ভুষিত করার তীব্র পক্ষপাতি।

মাভাই, আপনাগো দোয়ায় আমার পোলারে আর পীর পর্যন্ত নিতে হয় নাই, এই রইচ আদমীর পাক তসবীর খানা ছেলের সামনে ধরতেই ছেলে দেখলাম হাল্কের মত গাইট্টা গুইট্টা হওয়া শুরু করছে, তয় হাল্কের পর্যায়ে যাওয়ার আগেই তসবির খানা সরাইয়া ফালাইছি তাতে গ্রোথ থাইমা গেছে তাও যা হইছে তাতে দুই হাতে এখন আমার মত হাল্কা দুবলা বাপেরে তুইলা ধরতে পারে। বড় আনন্দের কথা! বড় আনন্দের কথা চোখে পানি চলে আসল সুখের কথা বলতে বলতে। ইনাদের ছবিতেই এত মাঝেজা, তো লেখায় তো জাতীয় পুরস্কার হবেই B-))

৩| ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৫:১৮

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: বাংলা একাডেমী গাঁজা খাইছে, না ঘুষ খাইছে? জানতে পারলে আগামী বছর সেইটা নিয়া তাদের কাছে হাজির হইতাম।

২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১০:৩৭

শের শায়রী বলেছেন: আবুহেনা ভাই নাউজুবিল্লাহ উনারা গাঁজা ফাজা খায় না বা ঘুষ ও খায় না কারন একটি দায়িত্বশীল একাডেমী, উনারা আকন্ঠ বাংলায় ডুবে থেকে বাংলা ভাষার উন্নতিতে বুঁদ হয়ে দেশ ও জাতির মননশীলতায় এক অনবদ্য ভুমিকা রাখছে ;)

৪| ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৫:৪৭

নেওয়াজ আলি বলেছেন: শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা রইছে। :-P

২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১০:৩৯

শের শায়রী বলেছেন: নেওয়াজ ভাই আশা রাখি প্রতি বছর এই ভাবে ভালোবাসা এবং শুভেচ্ছা জানাইতে পারবেন এই রকম করিৎকর্মা একাডেমীর বদৌলতে :-P

৫| ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৫:৫৪

শাহিন-৯৯ বলেছেন:

আপনার দেওয়া কবিতাটিও পড়েছি ফেসবুকে। উনার বই পড়ার সেীভাগ্য হয়নি কারণ উনার নাম শুনেছি গত সপ্তাহে। যাক, আমি ভাই খুশি, আমি এখন থেকে আশাবাদী হয়ে উঠছি।

আমি আপনার জন্য দোয়া করি, আপনি আগামী দশ বছর পরে আমাকে নিয়েও যেন এরকম একটি লেখা লিখতে পারেন।

২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১০:৪৪

শের শায়রী বলেছেন: শাহিন ভাই, দশ বছর লাগবে না এভাবে যদি পুরস্কার দেয়া হয় তবে আশা রাখি আগামী যে কোন মাসেই আপনাকে নিয়ে একটা লেখা, লিখার সৌভাগ্য আমার হবে :(

৬| ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৫:৫৮

চাঁদগাজী বলেছেন:



ভারতীয় ট্রানিং ক্যাম্পে ১১ বছরের কাউকে ট্রেনিং দেয়ার কথা নয়। সরকারী চাকুরী যারা করেন, তাদের সততা বিতর্কিত।

২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১০:৪৭

শের শায়রী বলেছেন: মুরুব্বী আপনি দেশের সব থেকে দায়িত্বশীল ব্যাক্তিবর্গ মানে সরকারী চাকুরীজীবিদের সততা প্রশ্ন বিদ্ধ করছেন!!! আমার হাতে ক্ষমতা থাকলে আজকেই আপনাকে বিশেষ নির্বাহী আদেশে সরকারী চাকুরী দিয়ে তাতে জয়েন করিয়ে আপনার এই প্রশ্নের দাত ভাঙ্গা জবাব দিতাম। কিন্তু হায় আমি নিরূপায়! আপনি বাইচা গেলেন মুরুব্বী।

৭| ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:১০

রাজীব নুর বলেছেন: কথা একটাই- বাংলা একাডেমিতে যোগ্য লোক নাই।

২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১০:৪৯

শের শায়রী বলেছেন: সহমত। তবে অন্যান্য সব একাডেমীতে কিন্তু যোগ্য লোকে ভরপুর :`>

৮| ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:২৫

নীল আকাশ বলেছেন: আরে দুর ভাই, আপনি এই দেশের সূর্য সন্তানদের সাহিত্য প্রতিভা নিয়ে এই মুজিব বর্ষের সূচনায় প্রশ্ন তোলার সাহস পেলেন কোথায়? আপনার মতো যারা এইসব প্রশ্ন তোলে তাদের জন্য খুব শীঘ্রই সরকার এনআরসি করার ব্যবস্থা করবে।।

আপ্নি নিজের সন্তানের ভালো গ্রথের ব্যবস্থা নেন নি। এখন থেকে কিংবদন্তী ব্যক্তিত্ব মোদীর দেশ থেকে আমদানি করা কমপ্ল্যান নিয়মিত খাবার ব্যবস্থা করুন।

এই পুরষ্কার প্রাপ্ত ব্যক্তি কে অশেষ ধন্যবাদ যে উনি এই নামে কোন বই প্রকাশ করেন নি।

জয় বাংলা সাহিত্য।

২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১০:৫৩

শের শায়রী বলেছেন: এন আর সি হইলে কোথায় পুশ ব্যাক করবে এইডা একটা বড় ব্যাপার আমার জন্য। যদি পুশ ব্যাক করাইয়া আমার গ্রামে পাডায় তয় আবারো এই প্রশ্ন তুলমু :P আর পোলার গ্রোথ বাইড়া গেছে খালি এই রইস আদমীর তসবির দেখানোর সাথে সাথে B-)

৯| ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:০৪

পবন সরকার বলেছেন: আমার মাথা ঘুরতেছে, আমারে কি গাঞ্জায় পাইলো নাকি?

২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১০:৫৬

শের শায়রী বলেছেন: পবন ভাই, গাঞ্জায় না খাটি বাংলা হবার কারনে মাথা ঘুরাইতে পারে ;)

১০| ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:২৫

ইসিয়াক বলেছেন: সত্যিই সেলুকাস, কি বিচিত্র এই দেশ.......।

২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১১:০৪

শের শায়রী বলেছেন: প্রিয় কবি তাহার থেকেও বিচিত্র এই দেশের মানুষ

১১| ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ৮:২৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


@নীল আকাশ,
আপনি বলেছেন, " আরে দুর ভাই, আপনি এই দেশের সূর্য সন্তানদের সাহিত্য প্রতিভা নিয়ে এই মুজিব বর্ষের সূচনায় প্রশ্ন তোলার সাহস পেলেন কোথায়? "

-আপনি কোথায়ও "মুক্তিযোদ্ধা" শব্দ দেখলে মাথার পায়খানাটুকুও হারায়ে ফেলেন? এই লোককে মুক্তিযুদ্ধের জন্য পুরস্কৃত করছে না; যারা করছে, তারা তাকে সাহিত্যের জন্য করছে; আপনার চৌদ্ধগোষ্ঠী তো নিশ্চয় রাজাকার ছিলো

১২| ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ৮:৫৪

নীল আকাশ বলেছেন: চাদগাজী নির্বোধের মতো নিয়মিত কথা বলা আপ্নার অভ্যাস হয়ে গেছে। মাথার ভিরর ঘিলু বলে তো কিছু নেই। আমার মন্তব্য ভালো মতো পড়েছেন? কোনটা স্যায়াটার আর কোনটা ট্রল আর কোনটা এ্যাকিউজ সেটা বুঝার মতো জ্ঞান বুদ্ধি এই জীবনে কোনদিনও হবে না। সারাজীবন ব্যা ব্যা করেই পার করে দিবেন।
১১ বছরে যে মুক্তিযুদ্ধ তার জন্য খুব দরদ খুব উথলে পড়ছে। সাধে নির্বোধের মতো বুদ্ধি বলি আপনাকে। পোস্ট না পড়ে আন্দাজে মন্তব্য করার অভ্যাস ত্যাগ করুন। দিন দিন ব্লগে হাস্যকর প্রাণিতে পরিনত হচ্ছেন।
ধন্যবাদ।

১৩| ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ৯:২৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: শের শায়রী,




এর পেছনেও হয়তো গডফাদার বা গডমাদারদের হাত আছে। :|| এ রকম আরো কয়েকখানা ঘটনা না ঘটলে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দেবেন না। :(

মা.হাসান এর মতোই আমিও বলি- রতনে রতন চিনেছে । " তোমাকে খুঁজছে বাংলাদেশ" এর এই মহান ব্রত নিয়ে যে "পিতিভা" খোঁজা কমিটি ওনার মতো প্রচার বিমুখ মানুষ কে খুঁজে বের করতে পেরেছেন তাঁরাও সহযোগী পদকের হক দাবিদার ।

২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১১:০৯

শের শায়রী বলেছেন: শ্রদ্ধেয় আহমেদ ভাই অত্যন্ত মুল্যবান একটা বিষয় তুলে এনেছেন এ রকম আরো কয়েকখানা ঘটনা না ঘটলে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দেবেন না। :( তো কি আর করা আপাতত আরো কয়েক খানা পিতিভা দেখার অপেক্ষায় না হয় থাকি।

তবে দোয়া রাখবেন আমি যেন আবার উনাদের " তোমাকে খুঁজছে বাংলাদেশ" সার্চ কমিটির চোখে না পড়ে যাই :((

১৪| ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ৯:৩০

করুণাধারা বলেছেন: ভাই, ওনার নাম শোনেন নাই বলে আপনার লজ্জা পাবার কোন কারণ নাই। আমিও ওনার নাম শুনি নাই, আমার কোন বন্ধু- বান্ধব, আত্মীয়-স্বজন, প্রতিবেশী কেউই এর আগে ওনার নাম শুনে নাই!!

এহেন প্রতিভার সন্ধান কে প্রথম দিল জানতে ইচ্ছা হয়। অবশ্য জানতে গেলে মনে হয় গুগলের সার্চ ইঞ্জিন গরম হতে হতে বিকল হয়ে যাবে, তাই এই চেষ্টা করব না।

আনন্দদায়ক পোস্ট। ++++

২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১১:১৮

শের শায়রী বলেছেন: বোন সব ঠিক আছে কিন্তু এই সব সার্চ কমিটির নজর এখন যত্রতত্র আপনি আমি কেউই নিরাপদ নই। ভাবুন দেখি একবার কোন এক ফাইন মর্নিং একটা ফোন আসল সরকারী দায়িত্বশীল সাংস্কৃতি মন্ত্রনালয় থেকে আপনার কাছে.....

"হ্যালো গুড মর্নিং আপনি ম্যাডাম করুনাধারা?" ভারী গুরু গম্ভীর স্বর ফোনের ওপাশ থেকে

"জ্বি বলছি" আপরিচিত কন্ঠে বাংলায় ফোন পেয়ে আপনি কিছুটা বিচলিত কিছুটা দ্বিধান্বিত

"ম্যাডাম আমি অমুক মন্ত্রনালয়ের অমুক আমি একজন এই পদ ধারী" নিজের পদবীর ওজন বাড়াতে ফোনের বিপরীত দিকের কন্ঠ আরো গাঢ় হয়ে যায়।

"জ্বি বলুন" আপনার উৎকন্ঠার পারদ আরো এক ডিগ্রী চড়ে যায় কিন্ত কন্ঠ যথা সম্ভব শান্ত

"আপনি এই বছর স্বাধীনতা পুরস্কার পেয়েছেন, অভিনন্দন" ফোনের অপর পাশ এইবার অনেকটা ইজি

আপনার হাত দিয়ে তৎক্ষনে ফোনের রিসিভার পরে গেছে। ভাবুন দেখি একবার। কি ভয়াবহ

১৫| ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ৯:৪৬

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: দেহেনদি ম্যা' ভাই, কল্লেন কি!
লগিন করাইয়াই ছাড়লেন ;)

উনার একমাত্র কোবতে যা ফেসবুকের কল্যানে দেখেছি-
আহা বানাম ভুলের কথা বুললে আবার আমাদের যোগ্যতা নিযে না আকাদেমি টানাটুনি শুরু করে!
তারপরো কত জন সেই পরম দু:সাহস দেখিয়েছে! এক কোবতের চরণে চরনে বানামের সেকি শ্রী!

স্যাটায়ার নয়, সারকাজম নয়, তীব্র প্রতিবাদ চাই।
সাহিত্যর মান এবং বাংলাদেশের ইজ্জত সুরক্ষায় হেসে উড়িয়ে না দিয়ে
সাহিত্যিক, সাংস্কৃতিক কর্মীদের উচিত অফিসিয়াল আপত্তি জানানো। যদি ভবিষ্যতের রইচ হবার খায়েশ না থাকে আর কি ;)

খবুই দু:খজনক এমন কান্ড ঘটানোয় বাংলা একাডেমির প্রতি বিস্ময়সূচক নিন্দা জ্ঞাপন করছি।

ম্যা'ভাই, আপনি আসলেই জিনিয়াস!
আকাদেমী না চিনুক! আমরা ঠীকই চিনেছি :)

বানাম বুলের দিকে নজর দিবেন না। ভবিষ্যতে আকাদেমী পুরষ্কারের লুভ কার না হয় ;)
চিল ম্যান B-)

++++

২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১১:৩৪

শের শায়রী বলেছেন: ম্যাভাই সার্চ কমিটি যেভাবে এদিক সেদিক টর্চ মাইরা লেখক খুজতাছে ভয় হয় কবে না আপনি আবার তাদের সামনে পইড়া যান, সেক্ষেত্রে.... :-< , না ম্যাভাই আমি ভাবতে পারছি না, নিজেকে নিয়েও খুব একটা শান্তিতে নাই, সারাক্ষন ভয়ে ভয়ে থাকি কুন সুময় কেডা ফুন দিয়া কয় আমি.... না থাক ওই সব অলুক্ষইন্না ভাবনা না ভাবি |-)

১৬| ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ৯:৪৮

চাঁদগাজী বলেছেন:



@নীল আকাশ,
আপনি মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধা বিরোধী লোক; এগুলো নিয়ে আপনি ভালো বললেও খারাপ শোনায়।

১৭| ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১০:৫০

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: পোস্টটি পড়লাম । আপনার দেওয়া লিংক ধরে দেখে এলাম মান্যবরের সৃজনশীলতার নমুনা। প্রচার বিমুখ সাহিত্যিক আশাকরি এবার সাহিত্য সমাজে ফোকাস হবেন।
ধন্যবাদ আপনাকে।

শুভেচ্ছাবার্তা প্রিয় শায়রী ভাইকে।

২৯ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ৩:০৫

শের শায়রী বলেছেন: ফোকাস হবেন আর কি! অল রেডি হয়ে গেছেন, দেখেন না ভাই সারা জীবন উনি যত টুকু আলো পেয়েছেন এই কয়দিনে তার কয়েক গুন বেশী পেয়ে গেছে সাহিত্যের রম্য শাখায়।

ভাগ্যিস ভারতে জন্ম নিয়েছিলেন না হলে কে যানে কোন এক দিন হয়ত আপনিও........ :P

১৮| ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১১:৪৩

এস এম মামুন অর রশীদ বলেছেন: @Nilakas, Chadgazi's reaction to your comment is objectionable, but it's also not clear why you included Keka's book into your satire. Bangabandhu's favorite foods can certainly be a topic even for the researchers whereas it makes even more sense for Keka because she is a well-known cook. What need to be verified though is that Keka has not provided any wrong information or mere adulation in the book.

১৯| ২৯ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১২:৫৪

নীল আকাশ বলেছেন: @ মামুন ভাই, বাদ দিন। নির্বোধ এই ব্লগার কারও পোস্ট ঠিক মতো পড়েই না। আন্দাজে বাইন মাছের মতো লাফ দিয়ে উঠে। এর কান্ডকারখানা ব্লগে টিকটিকি ইদুর পর্যন্ত জানে।

কেকার বই একটা সিমবল হিসেবে দিলাম। এই বইমেলায় আমার বই বের হবার সুবাদে বইমেলায় থাকতে হয়েছে। কী কী সব বই বের হয়েছে তা দেখাতে পারলে আপনি বাংলা সাহিত্যের নাম মুখে নিবেন না। নিন আপনার জন্য এটা দিলাম, আরও অনেক আছে-

২০| ২৯ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১:১০

কাতিআশা বলেছেন: কি অবস্থা!...এরা কারা???

২৯ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ৩:১২

শের শায়রী বলেছেন: বোন এরা যে কারা সেটাই জানার জন্য এই প্রচেষ্টা...... বিদেশে আছেন বেচে গেছেন, আমাদের থাকতে হয় এই চিড়িয়াখানায়।

২১| ২৯ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সকাল ৯:৩৭

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন: সহমত। তবে অন্যান্য সব একাডেমীতে কিন্তু যোগ্য লোকে ভরপুর
না, বেশির ভাগ একাডেমিতেই যোগ্য লোক নেই। সব তেলবাজ।

২৯ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৩:৩৩

শের শায়রী বলেছেন: তাইলে এই জন্যই এই অবস্থা চলতাছে মনে হয় :D

২২| ২৯ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সকাল ১১:০৫

হাসান রাজু বলেছেন: এই তেলেসমাতি ও হইতাছে !

২৯ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৩:৩৫

শের শায়রী বলেছেন: হাসান ভাই, তেলেসমতির আর কিছু বাকী থাকল না মনে হয়। ভবিষ্যতে এগুলা ইতিহাসের স্বর্নপাতায় হীরার অক্ষরে বাধানো থাকবে রেফারেন্স হিসাবে :P

২৩| ২৯ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ দুপুর ২:৫২

কালো যাদুকর বলেছেন: আমি আসলেই এই "রইস আহমেদ কে" চিনি না। কেউ ওনার কবিতা বা লেখার লিংক দিলে , পড়ে দেখতাম।

২৯ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৩:৪০

শের শায়রী বলেছেন: কালো যাদুকর ভাই আমি সারা দিন খুইজ্জা মাইজ্জা ওই একটা কোবতে পাইছি যেটা পোষ্টে দিয়া দিছি আর কিছু পাই নাই, আপনে তো কালো জাদুকর আপনার জাদুর অনেক ক্ষমতা এইবার দেখেন সেই ক্ষমতা দিয়া আপনি কিছু পান কিনা? পাইলে আমাদের জন্যো এট্টু দিয়েন। আমি কিছু পাই নাই, আর টেকা খরচ কইরা উনার বই কিনতে হবে ভাবলেই....... ওদিকে আর না যাই :P

২৪| ২৯ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৪:৫০

রাজীব নুর বলেছেন: হে ঈশ্বর, আমাকে ২৯শে ফ্রেব্রুয়ারী মৃত্যু দিওনা প্লিজ।

২৯ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ৮:২৭

শের শায়রী বলেছেন: রাজীব ভাই, আপনার পোষ্ট পাচ্ছি না ইদানিং। লিখছেন না কেন? লিখুন প্লীজ।

২৫| ০১ লা মার্চ, ২০২০ বিকাল ৪:৫৩

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
আমি যেই দিকেতে চাই
দেখে অবাক বনে যাই
আমি অর্থ কোন খুঁজে নাহি পাই রে
ও ভাই অর্থ কোন খুঁজে নাহি পাই রে
ভাইরে ভাইরে
আমি কতই রঙ্গ দেখি ...

০১ লা মার্চ, ২০২০ বিকাল ৫:০২

শের শায়রী বলেছেন: এই সবের অর্থ খুজতে গেলেও অনর্থ ঘটতে পারে, তাই না খোজাই উত্তম প্রিয় ভাই :)

২৬| ০৩ রা মার্চ, ২০২০ রাত ৩:৫৭

সোহানী বলেছেন: বিস্বয়ে আমি হতবাক B:-/ ...। কেউ কি আছো আমারে বাচাঁও, কবিতাখানা পড়িয়া আমার অজ্ঞান হবার অবস্থা............

আপনাকে অশেষ ধন্যবাদ এমন একজন মহান সাহিত্যবিদকে পরিচয় করিয়ে দেবার জন্য। আহ্ এমন প্রতিভা দেশের আনাচে কানাচে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। কেন রে ভাই সামুর পাতায় লিখা দেন B:-/ । কোন সাহিত্য সংঘ গড়িয়া তুলিলে এতোদিনে কিছু একটা জুটলে ও জুটে যেত ...। আহারে আফসোস সকল কবিগণের লাইগা।

০৩ রা মার্চ, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:০১

শের শায়রী বলেছেন: এই যে সাহিত্য সংঘ গড়ে তুলব এর জন্যও তো পিতিভা লাগে, সেটাও যে আমার নাই :(( আফসুস আর আফসুস।

২৭| ০৪ ঠা মার্চ, ২০২০ রাত ১:০৭

নিভৃতা বলেছেন: নির্বাক হয়ে পড়ে গেলাম ভাই। হাসবো না কাঁদবো বুঝতে পারছি না। কোথায় আছি আমরা এবং কোথায় এগিয়ে(? ) চলেছি!

০৪ ঠা মার্চ, ২০২০ রাত ১:৪৪

শের শায়রী বলেছেন: হ বোন আগাইতে আগাইতে আঘাত পাইয়া জবান প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে। আমি ভাষাহীন। সাহিত্যকে যে পর্যায়ে বাংলা একাডেমী নিয়া গেছে তা অকল্পনীয় শ্বাসরূদ্ধকর। আমরা শুধু হতবাক হয়ে দেখতেই পারব আর কিছু না B:-)

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.