নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

নানা দেশ কত কথা

কিছু দেশ দেখার সুযোগ হয়েছে এই জীবনে।ভ্রমণ আমার ভাল লাগে্‌ তাই সবার মাঝে তা জানাতে চাই।সবার উপরে ভালোবাসি বাংলাদেশ । ধন্যবাদ

শোভন শামস

আমার দেখা নানা দেশের কথা সবার জন্য - পাঠকের ভাল লাগাতেই আনন্দ

শোভন শামস › বিস্তারিত পোস্টঃ

ট্রাভেলগ চীন-৫ কুনমিং থেকে ট্রেনে বেইজিং এর পথে

১৬ ই নভেম্বর, ২০১৪ সকাল ১০:৩৪



সফট স্লিপার কোচ
ওয়েটিং এরিয়া থেকে গেইট দিয়ে ঢুকে প্লাটফর্মের বে দিয়ে কিছুদুর এগিয়ে গিয়ে আবার সিঁড়ি দিয়ে নীচে নামতে হল। সিঁড়ির পাশেই আমাদের কামরা। ঝকঝকে ট্রেন, পরিচ্ছন্ন কামরা আমরা আমাদের রুমে সেট হলাম। এই ট্রেনে প্রতিটা বগির জন্য এটেন্ডেন্ট আছে। আমাদের পাসপোর্ট ও টিকেট আবার চেক করল, নিরাপত্তার জন্য ছবি তুলল। আমদের এই ট্রেনে কিছু শিক্ষানবিশ আছে, তাদের আজ প্রথম চাকুরী তাই খুব সুন্দর ভাবে যাত্রীদের দেখভাল করা হলো। এটেন্ডেন্ট আমদের রুমে এক ফ্লাস্ক গরম পানি দিয়ে গেল।

ট্রেন চলতে শুরু করল। জানালা দিয়ে চীন দেশের জনপদ দেখতে দেখতে চলেছি।ইউনান প্রদেশের পাহাড়গুলো বেশ উঁচু, নিচে পাহাড়ের উপত্যকাতে চাষের জমি, মাঝে মাঝে কিছু ঘরবাড়ী চোখে পড়ে। দুই ঘণ্টা চলার পর একটা বড় ট্রেন স্টেশান দেখলাম। ট্রেন এখানে থামেনি, তবে বেশ পরিছন্ন ও গুছানো এই স্টেশান। ইউনান প্রদেশ পাহাড়ি এলাকা, বেশ উঁচু পাহাড় সারির পাশ দিয়ে ট্রেন চলছে। মাঝে মাঝে পাহাড়ের টানেল দিয়ে ট্রেন চলাচল করছে, এসব টানেলের ভেতর বেশ অন্ধকার, অনেক টানেল পার হলাম এই ট্রেন ভ্রমনে। কোন কোন টানেল পার হতে পাঁচ সাত মিনিট পর্যন্ত সময় লাগে। দুপাশের দৃশ্য দেখতে দেখতে দুপুর হয়ে গেল। মানুষ কম, মাঝে মাঝে চষা জমি ঝোপঝাড় ও দেখলাম। পাওয়ার টিলার দিয়ে অনেক জায়গাতে চাষ হচ্ছে।
অনেক নতুন নতুন স্টেশান বানানো হচ্ছে, পুরানো টানেল বাদ দিয়ে নতুন টানেলের কাজ চলছে। স্টোন ফরেস্টের মত পাথুরে পাহাড়ি এলাকা ও পার হয়ে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। একশ ষাট কিলোমিটার বেগে ট্রেন চলছে, আমরা পাহাড়ের উপরে পাতা লাইনের উপর দিয়ে চলছি। নীচে নতুন শহর হচ্ছে। বড় বড় কন্ডোমিয়াম তৈরি হচ্ছে। এগুলো বানানো হলে আশেপাশের মানুষ এখানে চলে বসবাস করবে। ছোট বাড়িঘর গুলো ভেঙ্গে চাষের জমি বানানো হবে। সারা চীন জুড়ে যেন এই উন্নয়নের জোয়ার চলছে।
অনেক নাম না জানা স্টেসান পার হয়ে আমরা বেইজিঙের পথে চলেছি। এই ট্রেন সাঁইত্রিস ঘণ্টা চলার পথে উনিশটা স্টেশানে থামে। পথে অনেক দূর অবদি সর্ষের ক্ষেত আর ধান ক্ষেত দেখলাম। অনেক এক্সপ্রেস ওয়ে বানানো হচ্ছে দেখতে পেলাম। পথে নদী পার হলাম নদীর উপর বড় ব্রিজ, নীচে ছোট নৌকা আর মাঝে মাঝে লঞ্চ দেখা যায়। নদীর পারে বেশ কিছু কারখানাও আছে।
দুপুরে ডাইনিং কারে গেলাম। সুন্দর ছিমছাম পরিবেশ। পরিস্কার রান্না ঘর। আমি খাবার অর্ডার দিতে চাই, আমার কথা বা ইশারা তারা বুঝতে না পেরে হেসে কুটি কুটি। একজন স্টাফ আমার কাছে বাংলাদেশের টাকা চাইল, তাকে একটা নোট দিলাম বেশ খুশি। এই ট্রেনে দুপুরে ও সন্ধ্যা ছয়টার সময় খাবারের ট্রলি নিয়ে ডাইনিং স্টাফরা বগিগুলোতে যায়, যাত্রিরা সেগুলো কিনে নেয়। আমাদের এটেন্ডেন্ট থাইল্যান্ড থেকে হসপিটালিটি মানেজমেন্টের উপর কোর্স করে এসেছে। সে ইংরেজি বলতে পারে। আমরা তার সাহায্য নিয়ে চিকেন আর ডিমের কারির অর্ডার দিলাম সাথে ভাত। বেশ মজা করে ডিনার করলাম।
রাতে ভাল ঘুম হল। সকালে একটু মেঘলা আকাশ, বৃষ্টি হয়েছে রাতে, মাঝে মাঝে বৃষ্টির মধ্যে দিয়ে চলছে ট্রেন। অনেক গুলো শহর আর জনপদ পার হয়ে আমরা চলছি। কোন কোন জায়গা বেশ উন্নত, কোথাও উন্নয়নের কাজ চলছে। সব মিলিয়ে ট্রেন ভ্রমন বেশ মজাই লাগছে। দুপুরে আবার ডাইনিং কারে এসে খেলাম। এখন আর বাহিরে বেশী খেয়াল করছি না, ট্রেন চলছে একই গতিতে। মাঝের স্টেশানে ট্রেন থামার পর কিছু যাত্রী নেমে গেছে, অনেকে আবার ট্রেনে উঠেছে বেইজিং যাবে বলে। বেইজিং এর কাছাকাছি হচ্ছি আমরা , রাত হয়ে গেছে, রাত এগারটা বিশের দিকে আমরা বেইজিং ট্রেন স্টেশানে পৌঁছালাম।স্টেশান থেকে প্লাটফর্ম ধরে অনেক দূর হেঁটে ট্যাক্সি নিলাম। সুন্দর সাইন পোস্টিং করা ইংরেজিতে, কোন অসুবিধা হয়নি। ট্যাক্সিকে ঠিকানা বলে দিলাম, আমাদের এপার্টমেন্টে আসতে আসতে রাত বারটা দশ বেজে গেল।বেইজিং শহর সারা রাত জেগে থাকে। আমরা রুমে এসে একটু সেট হয়ে খেতে বের হলাম। সামনেই একটা ম্যাকডোনাল্ডের দোকান পেলাম, সেখানেই রাতের খাবার সেরে নিলাম। এই সময় ও অনেক মানুষ এখানে খেতে এসেছে।
বেইজিং এ প্রথমত আমরা গ্রেট ওয়াল দেখতে যাব, আজ বেশী রাতে আসাতে সেটা সম্ভব হবে না। আগামিকাল তাই তিয়েনআনমেন স্কোয়ার ও ফরবিডেন সিটি দেখতে যাব। জিয়াংগোমেন মেট্রো স্টেশনের কাছে আমাদের এপার্টমেন্ট, বেশ সুন্দর এলাকা।সকাল বেলা মেট্রো স্টেশনে গেলাম, এখানে ইংরেজিতে লিখা মেট্রো স্টেশনের লোকেশান ম্যাপ রাখা আছে। জিয়াংগোমেন মেট্রো স্টেশন থেকে এক নাম্বার লাইনে তিন স্টেশন পরে তিয়েনআনমেন ইষ্ট স্টেশন এখানে নেমে তিয়েনআনমেন স্কোয়ার ও ফরবিডেন সিটিতে যাওয়া যায়। কয়েন বা টাকা দিয়ে টিকেট কেনা যায়। মেট্রোর টিকেট কিনে চড়ে বসলাম। অনেক মানুষ, ট্রেন ও অনেক কাজেই সবাই চলছে।

ফরবিডেন সিটি

তিয়েনআনমেন ইষ্ট স্টেশনে এসে আমরা উপরে উঠে এলাম। বেশ ভিড়, সামনে একটু এগিয়ে গেলে তিয়েনআনমেন স্কোয়ার আর এর উল্টা দিকেই একটু দূরে ফরবিডেন সিটি। প্রথমে ফরবিডেন সিটিতে যাওয়ার প্ল্যান করলাম। টিকেট কেনার জন্য বিশাল লাইন। একজন গাইড আমাদের কাছে এসে জানালো সে কিছু টাকা পেলে এই ভিড় বাদ দিয়ে অন্য যায় দিয়ে আমাদেরকে টিকেট কাউন্টারে নিয়ে যাবে। আমরা তার সাথে চললাম। অনেক ঘুরে একটা পার্কের মাঝ দিয়ে অবশেষে টিকেট কাউন্টারে এলাম। এই পার্কে ঢুকতে আবার টিকেট করতে হয়।

মন্তব্য ১৬ টি রেটিং +৩/-০

মন্তব্য (১৬) মন্তব্য লিখুন

১| ১৬ ই নভেম্বর, ২০১৪ সকাল ১০:৫৬

অপূর্ণ রায়হান বলেছেন: চমৎকার +

ভালো থাকবেন ভ্রাতা :)

২৯ শে নভেম্বর, ২০১৪ দুপুর ১:২০

শোভন শামস বলেছেন: সাথে থাকবেন

আপনাদের ভাল লাগাতেই আনন্দ

ধন্যবাদ +++++

২| ১৬ ই নভেম্বর, ২০১৪ সকাল ১১:১৬

মাটি আমার মা বলেছেন: রাস্তায় দোকানপাট বা প্রতিষ্ঠানের সাইন বোর্ডে কি ইংরেজী ব্যবহার করে ওরা। অন্তত কোথায় আছি তা বুঝা যায়? আরো ছবি দিলে ভাল লাগবে। ধন্যবাদ পোষ্টটার জন্য।

২৯ শে নভেম্বর, ২০১৪ দুপুর ১:২০

শোভন শামস বলেছেন: সাথে থাকবেন

আপনাদের ভাল লাগাতেই আনন্দ, আশা করি সামনে ভাল ছবি দিতে পারব।

ধন্যবাদ +++

৩| ১৬ ই নভেম্বর, ২০১৪ সকাল ১১:৪৬

দেওয়ান কামরুল হাসান রথি বলেছেন: পোস্টে প্লাস। ভাল থাকবেন ভাই।

২৯ শে নভেম্বর, ২০১৪ দুপুর ১:২১

শোভন শামস বলেছেন: সাথে থাকবেন

আপনাদের ভাল লাগাতেই আনন্দ

ধন্যবাদ +++++

৪| ১৬ ই নভেম্বর, ২০১৪ বিকাল ৩:০৯

মনিরা সুলতানা বলেছেন: বাহ , অনেক দিন পর আপনার ব্লগে এলাম , দেখি ধিরে ধিরে সব পড়ে ফেলব ।।

শুভ কামনা :)

২৯ শে নভেম্বর, ২০১৪ দুপুর ১:২২

শোভন শামস বলেছেন: অনেক দিন পর আপনার মন্তব্ব দেখলাম , আশা করি ভাল আছেন,

সাথে থাকবেন,

আপনাদের ভাল লাগাতেই আনন্দ

ধন্যবাদ +++++

৫| ১৭ ই নভেম্বর, ২০১৪ রাত ৩:৪৪

রেজওয়ানা আলী তনিমা বলেছেন: অনেক দিন পরে , ভালো আছেন তো? চালিয়ে যান।

২৯ শে নভেম্বর, ২০১৪ দুপুর ১:২৩

শোভন শামস বলেছেন: আপনি ও ভাল থাকবেন, সাথে থাকবেন

আপনাদের ভাল লাগাতেই আনন্দ

ধন্যবাদ +++++

৬| ১৭ ই নভেম্বর, ২০১৪ রাত ৮:২৮

কলমের কালি শেষ বলেছেন: সুন্দর ভ্রমন পোষ্ট ।

২৯ শে নভেম্বর, ২০১৪ দুপুর ১:২৪

শোভন শামস বলেছেন: সাথে থাকবেন,

আপনাদের ভাল লাগাতেই আনন্দ

ধন্যবাদ +++

৭| ১৭ ই নভেম্বর, ২০১৪ রাত ১১:৩৬

তুষার কাব্য বলেছেন: সুন্দর ভ্রমন পোষ্ট ।আসছি খুব তারাতারি....

২৯ শে নভেম্বর, ২০১৪ দুপুর ১:২৪

শোভন শামস বলেছেন: সাথে থাকবেন,

আপনাদের ভাল লাগাতেই আনন্দ

ধন্যবাদ +++

৮| ০৫ ই মার্চ, ২০১৬ রাত ১০:৪২

রহমান সাম্য বলেছেন: ভাই, সুন্দর ও তথ্যবহুল একটা ব্লগ লিখেছেন :) কুনমিং থেকে ট্রেনে বেইজিং মোট কয় ঘণ্টা লাগলো??

০৬ ই মার্চ, ২০১৬ সকাল ১১:১৩

শোভন শামস বলেছেন: ৩৬ ঘণ্টার ভ্রমণ, আমরা সবাই খুব এনজয় করেছি। ধন্যবাদ +++++

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.