নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

অনিরুদ্ধ ভাষণ

সাব্বির আহমেদ ভাষন

একটু বেশি ভাবি।স্বপ্ন দেখতে ভালবাসি আর ভালবাসি গান শুনতে।পড়াশোনা যা হয়েছে হয়তো বা অনেক, বাকিটা চেষ্টা চলছে।ভালবাসি নিজেকে,ভালবাসি বই পড়তে।এই আমি এই আমার পৃথিবী.........

সাব্বির আহমেদ ভাষন › বিস্তারিত পোস্টঃ

আপু বাই গ্যাং এবং আমাদের দায়!

০৪ ঠা আগস্ট, ২০২০ দুপুর ১২:৫২

"সমাজে অপু বাই/হিরো আলম/রিপন ভিডিও....দের আজকের অবস্থানের দায় আমরা সাধারন জনগন কোনো অবস্থাতে ই এড়াতে পারি না!"

এক পেশে এদের দোষ দিয়ে লাভ নাই। অপু বাইদের কে সেলেব্রেটি বানিয়েছে? উত্তর যদি হয় আমরা তাইলে এদের কি দোষ! এদের থার্ড গ্রেডের ভিডিও কনটেন্ট গুলা আমরাই memes আকারে ফেসবুকে শেয়ার দিয়ে মজা নিয়েছি, পক্ষান্তরে এদের কে ভাইরাল করেছি৷ এর ফলে এরা উৎসাহ পেয়ে নতুন নতুন চ্যাবলামীর ভিডিও বানিয়েছে।

অপু দল বল নিয়ে যদি রাস্তা আটকিয়ে কোনো সাধারন নাগরিক কে হেনস্তা করে সেটা অবশ্যই অপরাধ এবং তার শাস্তি হওয়া উচিত।

যেহেতু ইউটিউব, লাইকি, টিকটক একটা প্লাটফর্ম, যে কেউ চাইলে ই ভিডিও বানিয়ে টাকা ইনকাম করতে পারে। সেক্ষেত্রে আপনাকে চুজ করতে হবে কার ভিডিও দেখবেন, কার ভিডিও দেখবেন না। কারো ভিডিও দেখে তাকে সেলেব্রেটি বানিয়ে, টাকা উপার্জনের রাস্তা দেখিয়ে, আবার তাকেই উপহাস করাটা হিপোক্রেসির পর্যায়ে গেল না?

নোবেল এখানে উদাহরন হতে পারে। তামাশা গানের জন্য সবার গালি খেল এবং সেই ভিডিও সবাই কে দেখালো, উদ্দেশ্য ও হাসিল করলো। ফলাফল, লক্ষ লক্ষ ভিউস, কাড়ি কাড়ি টাকা ইনকাম!

সেলেব্রেটি হওয়ার জন্য যেহেতু বিভিন্ন প্লাটফর্ম আছে, তাইলে প্রশ্ন এসে দাড়ায়, " গরীব/অর্ধ-শিক্ষিত/ গেয়ো রা কি সেলেব্রেটি হতে পারবে কি না?"

অপু বাই কে পুলিশ ধরার সংবাদে যে হারে উল্লাস দেখলাম নিউজফিড জুড়ে, তাতে মনে হলো এদেশে আসলে সেলেব্রেটি হওয়াটা বড় লোকদের জন্য নির্ধারিত!! গরীব/গেয়ো/অর্ধ-শিক্ষিত রা হতে পারবে না! (অখাদ্য, কুখাদ্য বানিয়ে যেভাবেই সেলেব্রেটি হোক....) অলিখিত সত্য, এদেশে সেলেব্রেটি হবে এই অপু বাইদের বড়লোক ভার্সন সালমান মুক্তাদির বাইরা!!

আজকের অপু বাই, অপু বাই হত না যদি আমরা এদের কে প্রমোট না করতাম। এই অপু বাই, মামুন বাই, হিরো আলম প্রমুখ দের হাজার হাজার ফলোয়ার, হাজার ভিউ, এরা কারা? এরা যদি এদের ভিডিও না দেখত তাহলে এরা কোনো দিন বলতে পারবো, "আমাদের পাশে আছে ১৬ কোটি মানুষ! আমরা দেশ কে রিপ্রেজেন্ট করি।"

সুতরাং, কাউকে ভাইরাল করার আগে দশ বার ভাবা উচিত। ভবিষ্যতে সে সমাজের উপ্রে কি ইমপ্যাক্ট ফেলতে পারে সেটা জেনে বুজে মানুষ কে প্রমোট করা উচিত......

মন্তব্য ২ টি রেটিং +১/-০

মন্তব্য (২) মন্তব্য লিখুন

১| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০২০ দুপুর ১:২৩

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: শিল্প, সাহিত্য, নাটক, সিনেমা ইত্যাদির ক্ষেত্রে যার টেস্ট ( রুচি) ভালো সে ভালটাই দেখবে খারাপটা এড়িয়ে যাবে। তাকে আপনি জোর করেও খারাপ জিনিসে অভ্যস্ত করাতে পারবেন না। অনুরূপভাবে যার টেস্ট খারাপ সে উল্টাটা করবে। মমতাজের গানের ( তার গানকে খারাপ বলছি না। এটা এক শ্রেণীর গানের আওতায় পরে) যেমন অনেক ভক্ত আছে অনুরূপভাবে উচ্চাঙ্গ সঙ্গীতেরও অনেক ভক্ত আছে। এটা টেস্টের বিচিত্রতার কারণে হয়ে থাকে। মানুষের শিল্পের প্রতি টেস্ট ( রুচি) এই ১৭ কোটি লোকের দেশে বহু রকম হতে পারে। তবে কোনও শিল্পকর্ম যদি অপসংস্কৃতির সংজ্ঞায় পড়ে সে ক্ষেত্রে সেটাকে অনুৎসাহিত করা উচিত। সমস্যা হোল আমাদের অনেক তথাকথিত বিখ্যাত তারকাদের অনেক শিল্পকর্মে জৌলুশ যতটা থাকে সেই তুলনাও মৌলিকতা ও শৈল্পিক মান কম থাকে। জৌলুশ দিয়ে এরা উৎরে যায়। আমরা কোনটা জৌলুশ আর কোনটা শিল্প এটা অনেকেই বুঝতে পারি না। যাদের কথা বলছেন এরা নিম্নবিত্ত শ্রেণী থেকে উঠে আসার কারণে অনেকে এদের একটু নিচু চোখে দেখে। কারণ এদের জৌলুশটাও মধ্যবিত্তের সাথে যায় না। এদেরকে যে কারণে কাঠগড়ায় নেয়া হচ্ছে অনুরুপ কারণে অনেক মূলধারার শিল্পীও কাঠগড়ায় দাঁড়ানোর কথা। এটা আমার কাছে double standard (দ্বৈত মান) মনে হয়।

২| ০৫ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ১২:১৯

রাজীব নুর বলেছেন: এগুলো হলো সমাজের ভাইরাস। এরা যেন ছরিয়ে পড়তে না পারে সেদিকে এখনই নজর দিতে হবে।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.