নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

নিজের পোস্টের উত্তর দিতে দেরী হয় সেজন্যও সরি।

কাজী ফাতেমা ছবি

সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। লেখকের অনুমতি ব্যতীত যে কোন কবিতা, গল্প, ছড়া, রম্য ইত্যাদি সাহিত্যকর্ম যে কোন গনমাধ্যমে যেমনঃ-ম্যাগাজিন, ফেসবুক, ব্যক্তিগত ব্লগ, সামাজিক মাধ্যম, পত্রিকা ও ওয়েবসাইটে প্রকাশ নিষিদ্ধ। বাংলাদেশ কপিরাইট আইন, ২০০০ লংঘন একটি শাস্তিযোগ্য ও দণ্ডনীয় অপরাধ। কপি পেস্ট-ভ্রমরের ডানা”

কাজী ফাতেমা ছবি › বিস্তারিত পোস্টঃ

» প্রকৃতির ছবি, দেশের ছবি (ক্যানন ক্যামেরায় তোলা)(কবিতায় ভরা কিন্তু-সাবধান!)

০৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:৩৩



=পিটুনিয়ার প্রেমে=
পিটুনিয়া ফুলের রঙে, মন মেতেছে আজ যে
ফুলগুলো সব ধরে আছে, ম্যাজেন্ডা রঙ সাজ যে,
কলমি ফুলের মতই ওরা, পাপড়ির গড়ন গাড়ন
জলের ছোঁয়া পেয়ে, গাঢ়-রঙ করেছে ধারন!
ফুল বাগানে পিটুনিয়া, দুলছে হাওয়ার তালে
ম্যাজেন্ডা রঙ শাড়ি পড়ে, ঝুলে আছে ডালে।
কি-যে ভালো দেখতে ওদের, মন ছুঁয়ে যায় সুখে
হাত বাড়িয়ে ছুঁলে ওদের, সুখের কাঁপন বুকে।
===================================================================
ক্যানন ক্যামেরা তোলা বিভিন্ন সময়ের ছবি। প্লিজ লেখা পছন্দ না হলে কেবল ছবি দেখুন। সুন্দর ছবিগুলো মিস করলে কী ভালো লাগবে বলুন। এদেশের মাটি ঘ্রাণ এসব মিশে আছে প্রতিটি ছবিতে। আশাকরি ভালো লাগবে আপনাদের। আমি ফটোগ্রাফার না। কিন্তু ছবি তুলতে ভালোবাসি। ছবির দোষগুণের চেয়ে বড় হলো এই দেশের এই প্রকৃতির ছোঁয়া সেটাই দেখুন না হয়।
==================================================================


২। সেই_প্রজাপতি_প্রহর_আমার
ক)
এই যে আমি দৌঁড়াচ্ছি গো, মেয়েবেলা ছুঁয়ে ছুঁয়ে
কে রেখেছে এখান'টাতে, আমার অতীত রুয়ে
ভালো লাগায় যায় ভরে যায়, মন হয়ে যায় নদী
সুখের ঊর্মি পড়ে উপছে, আহা নিরবধি।
সেই কিশোরী আমি ছিলাম, আমার মেয়েবেলা
মেঘের সাথে করতাম নিত্য, উড়া ভাসার খেলা।
২।
এই যে কিশোরী'রা তোমাদের দেখলেই আমি
ফিরে যাই আমার মেয়েবেলা
তোমাদের এমন উচ্ছ্বলতা আমাকে শান্তি দেয় মনে অথৈ,
বয়স ঝাঁপিয়ে পড়ুক আমার উপর তাতে কি,
শোনো মেয়েরা, আমি চির তরুণ
আমি উচ্ছ্বল এখনো,
তোমাদের পায়ের উপর ভর করে আমি হই উচ্ছ্বল কিশোরী
হাওয়ার সাথে বাঁধা তোমাদের পা
উড়ছো শূন্যে, খুশির ঝলক মুখশ্রীতে,
কার না ভালো লাগে এমন প্রহর।
==================================================================


৩। দুপুর রোদগুলো এভাবেই আঁচড়ে পড়ে রক্ত রঙ ফুল পাপড়িতে
পায়ে চলার পথ, ওদের দেখে থমকে দাঁড়াতেই হয়
মৌ মৌ ঘ্রাণ হাওয়ায় হাওয়ায় ভাসে, নাক টেকে নি:শ্বাস নিতেই
ক্লান্তিগুলো দূরে হয় উধাও, বলো না এমন শান্তি পাবে কোথাও?
বুনো লতা পাতা আর ঘাসের ফাঁকে ঝরে পড়া লাগলিঙ্গম
কি মুগ্ধ হাসিতে মাখামাখি ওদের ঠোঁট গতর
হেম মুকুট মাথায়, নত হয়ে যেনো কূর্ণিশ করছে সবুজের পায়ে।
===============================================================


৪। কত শত মুগ্ধতা এখানে পায়ের কাছে হুমড়ি খায়
কেউ পা মাড়িয়ে পথ চলে,
কেউ সন্তর্পণে হেঁটে দু'চোখে মুগ্ধতা কুঁড়ায়
ভেজা মাটির সোঁধা গন্ধ নাকে টেনে আমিও মুগ্ধতা সব
চোখ শাটারে ক্লিক করে জমাই আর
টানিয়ে রাখি মনের দেয়ালে!
ইট পাথরের শহর ছেড়ে গেলেই এক ঝাঁক শান্তির পায়রা
আমায় উড়িয়ে নিয়ে যায় স্বস্তির বুকে.....
ভালো লাগার সময়গুলো বড্ড অল্প
তবুও কম নয় যেনো-
ক্লান্তির প্রহরে চোখের কিনারে ভেসে উঠে ক্ষণে ক্ষণে
সেই সেই মুগ্ধতার প্রতিচ্ছবি।
=============================================================



৫। = পোকা হবো এবার=
নীড় বাঁধি গিয়ে ফুলের পাপড়িতে,
দুনিয়ার হাঙ্গামা- চাহিদার হাপিত্যেশ ভাল্লাগে না আর
কল্পপুরীর গল্প হয়ে যাক জীবন,
একটি প্রহর হোক তোমার আমার
এসো ভেবে নেই আমাদের পোকা জীবন
তুমি আমি পিলপিল হেঁটে বেড়াই এ-ফুল হতে ও -ফুলে!
পেটের ক্ষিদেগুলো মরে যাক,
আমরা ভ্রমর হবো মধু খেয়ে তৃষ্ণা মেটাবো।
লোকালয়ের আড়ালে কিছুটা ক্ষণ তুমি আমি
ঘ্রাণ নেই জীবনের, কোনো এক নির্জনে,
জীবন উপভোগের মাত্রা দেই এ'যাত্রা বাড়িয়ে, যদি থাকো রাজী!
==================================================================


৬। =মোহজাল=
মোহজাল বিছানো পৃথিবী আমার
হাঁটতে গেলেই হোঁচট খাই
চোখ ধাঁধানো রঙের বুকে সেঁটে থাকতে ইচ্ছে দিবানিশি
চোখ তুলে তাকালেই দৃষ্টি বিভ্রম, পড়ে যাই ধাঁধাঁয়
রঙ রঙ আর রঙ, চারিদিকে বিছিয়ে আছে কত শত মোহ রঙ
ব্যস রঙের মোহে গলে গেলেই, রঙে চোখ আটকে গেলেই
খপ করে ধরে ফেলে মোহজাল আর
ভালোবেসে ফেলি রঙের ভুবন,
অতপর: মোহ মন মগজ চিবিয়ে খেয়ে,
শেষে ছুঁড়ে ফেলে বার্ধ্যক্যের নদীতে;
বাকী জীবন কেটে যায় অনুশোচনায়।
====================================================================



৭। ©কাজী ফাতেমা ছবি
=এইতো আমার দেশের ছবি=
এইতো আমার দেশের ছবি,এই তো আমার ছায়া ঘেরা গ্রাম
সোঁধা মাটির ঘ্রাণ মাখানো বেলা,
মাছের সাথে পাল্লা দিয়ে স্রোতের সাথে বয়ে চলা ফুল পাখিদের মেলা
এই যে আমার দেশের ছবি,
যেথায় যায় বয়ে যায় মিষ্টি হাওয়া ছড়িয়ে আরাম।

যেথায় ফুলের গায়ে লেগে থাকে প্রজাপতির ডানা
দিগন্ত জোড়া সবুজ ধানক্ষেতের দূর্বাঘাস মোড়ানো আল
যেথায় লতা পাতায় শিশির মুক্তো,
টোল পড়া সেই কিশোরির লাজুক রক্তিম গাল
এই যে আমার দেশের ছবি,
যেথায় লম্বা পায়ে দাঁড়িয়ে থাকে কানা বগির ছানা।
=======================================================


৮। ©কাজী ফাতেমা ছবি
=মেঠোপথে আসবি হেঁটে?=
মেঠোপথের দূর্বাঘাসে, পা রাখবি কী তুই
এখানটাতে রুয়া আছে শিউলী বেলী জুঁই,
আঁকাবাঁকা পথে পথে, হাঁটবি কী তুই পাশে
এখানটাতে শাপলা কুঁড়ি, জলের উপর হাসে।
ধানের ক্ষেতের আলে আলে, নগ্ন পাঁয়ে যাবি
এখানটাতে ভেজা মাটি, মনে শান্তি পাবি।
ছোট্ট বাড়ি কুঁড়েঘর যে, বসবি ধূলার উপর
মাথায় দিবি সবুজবরণ, গাছের পাতার টুপর।
======================================================



৯। =মনে কি পড়ে?=
এই তোদের মনে কি পড়ে, মেয়েবেলার দিনগুলো সেই
যে দিনগুলো হাতের মুঠোয় আরতো বেঁচে নেই,
খোয়াই নদী বর্ষার জলে ডুবে যখন যেতো
উথাল পাথাল নদী তখন যৌবনের মাত্রা পেতো,
একূল ওকূল দুইকূলে জল,
নদী উপছানো জল ছলচ্ছল.....
হঠাৎ জল ঝড়ের বেগে ভেঙ্গে দিতো পার
বন্যা বইতো সারা গায়ে, ডুবতো জমি ফসলি-ডুবতো বাঁশের ঝাঁড়।
মাঠে ঘাটে জলে ভরা, ক্ষেত খামারীও সব ডুবে
গায়ের লোক ফেলতো জাল মাছ ধরার লোভে!
মনে কি পড়ে দিনগুলো সেই
খুশি জোয়ার বইতো মনে, হারাতাম সুখে খেই?
কলাগাছের ভেলায় করে ভাসতাম জলের উপর
কেটে যেতো হই হুল্লোড়ে সকাল থেকে দুপুর।
======================================================



১০। ঘ্রাণমাখা এক বিকেল হাওয়ায় চলো বসি গিয়ে
কোন এক ফুল বাগানের ঘাস ছুঁয়ে,
ফুরফুরে হয়ে উঠবে মন দেখে নিয়ো
আর ক্লান্তি'রা উড়ে যাবে দূর বহুদূর।

এবেলা বড্ড পেরেশানীতে কেটে যাচ্ছে ফুলেল ক্ষণগুলো
তুমি জানো, আমিও জানি ফিরে আসে না আর কিছু
এই ফুলের ঘ্রাণ, ফুলেল সময়, প্রজাপতি প্রহর
আর মনের উচ্ছ্বলতা,
ফেলে গিয়ে পেছনে সব, কেবল ভেবে নেই যাক চলে যাক এবেলা
ওবেলা না হয় হাতে তুলে নেবো খানিকটা সময় নিজের করে।

অথচ আজ যায়, কাল যায়, পরশুও যায়
ব্যস্ততার গায়ে সেঁটে থাকি তুমি আমি
আমাদের সময়গুলো অগোছালো পড়ে আছে
গোছানোর যে সময়, সে সময় হাত ফসকে ধূলোয় খাচ্ছে গড়াগড়ি
উঠানোর জন্য নুয়ে পড়লেই ক্লান্তি এসে ঝেঁপে ধরে
নেতিয়ে পড়া দেহ কেবল বিছানা খুঁজে।
===========================================================


১১। =ভালোবাসি মাতৃভূমি=
এখানে দিবাকর মুখ লুকায় গাছের আড়ালে
আর গাছ'রা দিবাকরের ভ্রুকুটি এড়িয়ে ছায়া দিয়ে যায় নিবিড়
কি-যে এক শান্তির ধারা বয়ে যায় আলতো হাওয়ার ঝাপটায়।

এখানে সবুজের হাতছানি দিগন্ত জুড়ে
প্রতিটি ভোরের বুক যেনো স্নিগ্ধতায় মাখামাখি
আলতো ছুঁয়ে দিলেই এক প্রশান্তি বয়ে যায় শিরদাঁড়ায়।

এখানে সবুজ'রা সাদা মেঘ ছুঁয়ে গেয়ে যায় শুদ্ধতার গান
চারিদিকে কড়কড়ে রোদ্দুর, তবুও এখানে সুশীতল হাওয়া
নদীর জলের ঢেউয়ে ঢেউয়ে কচুরীপানার দল,
যেনো এক শান্তির ভেলা,
উজান হতে ভাটিতে বয়ে যায় ছলাৎ ছলাৎ ছল।
================================================



১২। #এই_যে_পাখি_আসছি
পাখি তুই ডেকে যাস নৈ:শব্দের এক অদ্ভুত সুরে
নি:সঙ্গতা তোকে রাখে ঘিরে-থেকে যাস একাকিত্বের ঘোরে!
বেছে নিয়েছিস যে জীবন, সেখানে মুগ্ধতা নেই-নেই উচ্ছ্বাস
কি জানি কি অদ্ভুতূড়ে জীবন তোর-যেনো বুকে করিস নিত্য ব্যথার চাষ!
ভারিতিরি মুখ-হাসি নেই ঠোঁটে-নিরিবিলি, এ কেমন হলো থাকা
দেখে নিয়েছিস তো-কেউ নেই পাশে-চারিদিক তোর ফাঁকা।
ডাকলে আর কাছে কে দেবে সারা?
তুই হবি একদিন সকল হারা!
======================================================



১৩। =ভালোবাসার কাব্য=
তুমি আমি ফড়িং হবো, পদ্ম পাতায় উড়ে বসবো
ডানা নেড়ে হাওয়ার তোড়ে, দু:খ সুখের অঙ্ক কষবো!
তুমি আমি ব্যাঙও হবো, পদ্ম পাতায় বসবো চুপে
একটুখানি দেখলে বিপদ, ঠিক লুকাবো বুনোঝুঁপে।
প্রজাপতি হতে পারি, পদ্মপাতায় যাবো দুলে
বিলি কেটে দেবে মাথায়, খোপা আমার দেবো খুলে।
তুমি আমি পাখি হবো, পদ্ম পাতায় বসবো উড়ে
বাঁধবে আমায় সুখের তরে, তুমি তোমার বাহুডোরে।
===================================================



১৪। প্রজাপতি বন্ধু হবি?
-------------------
রঙ হলুদের দেশে গো, ফুল ফুটেছে গাঁদা
হলুদ ফুলে বসে আছে,প্রজাপতি সাদা,
সাদা রঙের প্রজাপতি,হলুদ মাখা গায়ে
বসে আছে অভিমানী, সবুজ পাতার ছায়ে।
কে মেরেছে কে ধরেছে, প্রজাপতির ডানা
মারবো তারে আজকে ধরে, মানবো না আর মানা।
প্রজাপতির ডানায় মাখি, হলুদ রঙের তুলি
কাঁদছে বসে প্রজাপতি, মুখেতে নাই বুলি।
প্রজাপতির দুটো ডানা, হরেক রঙে ভরা
রঙ নেবে কেউ চুরি করে, দেয় না সে তাই ধরা।
আমার মুগ্ধতার দুপুর তোমায় দিলাম
=========================================



১৫। =জোনাক পোকা=
দিনে তোকে চিনি নেকো, রাতের বেলায় চিনি
জ্বলো নিভু আলোতে সুখ,বাজে রিনিঝিনি।
দিনের আলোয় পোকা রূপে, গাছের পাতায় থাকিস
রাতের বেলা আঁধারেতে, আলোর ছবি আঁকিস।
দিনে তুইতো পাতা খেয়ে, করিস জীবনধারণ
রাতের বেলা পাতা খেতে, আছে বুঝি বারণ?
দিনের বেলা হোস অচেনা, চিনি রাতের বেলা
আঁধার রাতে ঝোঁপে ঝাঁড়ে, বসাস আলোর মেলা।
দিনের বেলা নেইকো আলো, রাতে ঝরে আলো
হাত বাড়িয়ে ছুঁতে তোকে, লাগে বড় ভালো।
===================================================
আল্লাহ হাফেজ। দেখা হবে না হয়তো এক সপ্তাহেরও বেশী, গ্রামের বাড়ী যাচ্ছি ঈদ করতে। ফিরে এসে মন্তব্যের উত্তর দেবো ইনশাআল্লাহ সহিসালামতে যেনো গিয়ে ফিরে আসতে পারি দোয়া করবেন সবাই। সবাইকে অগ্রিম ঈদ মোবারক। ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন নিরাপদে থাকুন আল্লাহর কাছে তাই প্রার্থনা করি। ফি আমানিল্লাহ।

মন্তব্য ৪২ টি রেটিং +১০/-০

মন্তব্য (৪২) মন্তব্য লিখুন

১| ০৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:৫০

ইসিয়াক বলেছেন: ছবিতে চোখ জুড়িয়ে গেল

১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১১:৫৭

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ ভাইয়া ভালো থাকুন

২| ০৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৫:১২

তারেক ফাহিম বলেছেন: শিশু কিশোরদের দুরন্তপনা দেখে হিংষে হয় বুঝি :P

আমার কিন্তু হিংষে হয়, আবার যদি ফিরে পেতাম সে ছেলে বেলা।

চমৎকার ছবি ব্লগে প্রথম লাইক +

১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১২:২৬

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: আমারও হিংসে হয় ভাইয়া। তবে গ্রামে গেলে আমি আর আমাতে থাকি না। সেই কিশোর বেলা ফিরে পাই প্রতিবেলা

অনেক ধন্যবাদ আপনাকে ভালো থাকুন

৩| ০৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৫:৩৫

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: ছবিগুলো চমৎকার!++

প্রথম দুটো কবিতা পড়লাম বেশ ভালো হয়েছে।

সময় পেলে বাকি কবিতাগুলো পড়তে আসবো।

১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৩:৪৫

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ ভাইয়া। ঈদ পরবর্তী শুভেচ্ছা

৪| ০৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৫:৩৭

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: হ্যাঁ আপু যেটা উল্লেখ করতে ভুলে গেছি, দ্বিতীয় কবিতায় আমার মেয়েবেলা দুরন্ত লাগলো।

১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৩:৪৬

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: মনোযোগ দিয়ে পড়ার জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ ভাইয়া ভালো থাকুন

৫| ০৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৫:৪৫

দৃষ্টিসীমানা বলেছেন: ছবিতে মুদ্ধতা আর কবিতায় ভাল লাগা রইল ।

১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৩:৪৬

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: অসংখ্য ধন্যবাদ ভাইয়া। ঈদ পরবর্তী শুভেচ্ছা

৬| ০৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৫:৫১

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: অসাধারণ একটি কাব্যময় ছবি পোস্ট।

১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৩:৪৭

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: জাজাকাল্লাহ খাইরান ভাইয়া
অনেক ভালো থাকুন
ঈদ পরবর্তী শুভেচ্ছা

৭| ০৮ ই আগস্ট, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:১৫

জুন বলেছেন: যেমন ছবির হাতে তোলা ছবি
তেমনি অসাধারন এক কবি
আমি শুধু অবাক হয়ে ভাবি
+
ঈদ মুবারক কাজী ফাতেমা ।

১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৩:৫৩

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: ঈদ মোবারক আপি, ঈদ পরবর্তী শুভেচ্ছা রইলো
জাজাকিল্লাহ খাইরান

৮| ০৮ ই আগস্ট, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:২২

শায়মা বলেছেন: যাও যাও গ্রামের বাড়ি যাও! ঈদের রান্না বান্না ফুল ফলের ছবি চাই চাই চাই! ঈদ মুবারাক আপুনি!!!!!!

১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৩:৫৯

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: আর রান্নাবান্না বাপরে যে গরম দিছিলো গো আপি...। ঈদের দিন রাইতে বৃষ্টি আসার পর একটু ঘুমাইতে পারছি। সেখানে কারেন্ট নাই। :( ঈদ পরবর্তী শুভেচ্ছা আপি

৯| ০৮ ই আগস্ট, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:২৪

নজসু বলেছেন:



মেঠো পথের ছবিটা দেখে মনটা ভরে উঠলো।
সবগুলো ছবিই সুন্দর।
লেখাগুলোও ভালো লেগেছে।

১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:১৬

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: আন্তরিক ধন্যবাদ ভাইয়া
অনেক ভালো থাকুন

১০| ০৮ ই আগস্ট, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:৪৯

জুনায়েদ বি রাহমান বলেছেন: পিটুনিয়া ফুলটা চিনলাম। ছবিগুলো খুব সুন্দর। বিশেষ করে গ্রামের দৃশ্যগুলো।

১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:২২

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ জুনায়েদ ভাইয়া
ভালো থাকুন অনেক অনেক
্ঈদ পরবর্তী শুভেচ্ছা

১১| ০৮ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:০১

আনমোনা বলেছেন: ছবিগুলোয় লাইক দিলাম। কবিতা পড়বোনা।

১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:২২

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ আপনাকে। আচ্ছা :)

১২| ০৮ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:১০

বলেছেন: আমার ছেলেবেলা----------------

অসাধারণ

ঈদ মুবারক

১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:২২

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: ঈদ পরবর্তী শুভেচ্ছা ভাইয়া
জাজাকাল্লাহ খাইরান

১৩| ০৮ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৪১

ভুয়া মফিজ বলেছেন: প্লিজ লেখা পছন্দ না হলে কেবল ছবি দেখুন। সুন্দর ছবিগুলো মিস করলে কী ভালো লাগবে বলুন। এদেশের মাটি ঘ্রাণ এসব মিশে আছে প্রতিটি ছবিতে। আশাকরি ভালো লাগবে আপনাদের। আমি ফটোগ্রাফার না। কিন্তু ছবি তুলতে ভালোবাসি। ছবির দোষগুণের চেয়ে বড় হলো এই দেশের এই প্রকৃতির ছোঁয়া সেটাই দেখুন না হয়।

দেখলাম......ব্লগার মা. হাসানকে মিস করছি। আপনার পোষ্টে উনার মন্তব্যগুলি মজা লাগে। :P

ফটো দেখলাম, ছবি (???? =p~ ) খুজে পেলাম না। বরাবরের মতোই........দারুন! :)

১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৫:১৫

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: হাহাহাহা উনি কয়ে দিছিলেন আগেই যেনো কইয়া যাই কবিতা আছে, তাই শিরোনাম এমন । ভাই পালাইছে কবিতার ডরে

প্রতিটি ফটোর মাঝেই ছবি আছে, আছে অনুভব অনুভূতির খেলা :)

থ্যাংকস আপনাকে এখানে পেয়ে ভালো লাগলো। আমি ভাবছি কবিতার কথা শুনে পালাবেন হাহাহা

১৪| ০৮ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৪৫

ভুয়া মফিজ বলেছেন: ওহ, ঈদের শুভেচ্ছা জানাতে ভুলে গিয়েছি। সবাইকে নিয়ে আনন্দ করেন আর সুন্দর সুন্দর ছবি (???) তুলেন। রেডমিট যতো কম পারেন, খাবেন।

আপনি এবং আপনার পরিবার, সবাইকে ঈদ মুবারক। :)

১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৫:২৭

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: ঈদ পরবর্তী শুভেচ্ছা আপনাকে, আনন্দ ভেস্তে গেছে গরমের কারণে। প্রথম দুইদিন খুবই কষ্ট হইছে গরমে। ঈদের রাতে বৃষ্টির পর একটু আরাম হয়েছে (সেখানে কারেন্ট নাই) তবে বেশ আনন্দই হইছে। আমি যেখানে যাই সেখানেই আনন্দ করি। আর ছবিও তুলেছি। আস্তে আস্তে দিয়াম নে।

১৫| ০৮ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:০০

রাজীব নুর বলেছেন: খুব সুন্দর।

১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৫:২৭

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: ধন্যবাদ ভাইয়া :)

১৬| ০৮ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:২০

রাজীব নুর বলেছেন: ৭, ৯ আর ১২ নম্বর ছবি গুলো আমার কাছে ভালো লেগেছে।

১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৫:২৭

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: জাজাকাল্লাহ খাইরান ভাইয়া

১৭| ০৮ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:১১

অজ্ঞ বালক বলেছেন: ছবিগুলা দেইখা ভাল্লাগছে। আর লেখাগুলাও সুন্দর আছে। কিন্তু, মনডা খারাপ হইয়া গেল। আমার হাজারো দুঃখের একটা হইল আমার কোন গ্রামের বাড়ি নাই।

১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৫:২৮

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: আসলেই যাদের গ্রামের বাড়ী নাই, তারা বুঝতেই পারবে না গ্রামের আনন্দ । গ্রামে যে শান্তি তা শহরে নাই।
গ্রামে গ্রামে বেড়াবেন ভাইয়া ভালো লাগবে

অনেক ধন্যবাদ ভালো থাকুন

১৮| ০৮ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:৫৯

পাঠকের প্রতিক্রিয়া ! বলেছেন: আমি কবিতা পড়িনা, ছবি দেখি। আপনার ছবিগুলো আগের চেয়ে ভালো লাগছে। কোন ক্যামেরা আর কোন লেন্সে তোলা জানায়েন..

১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৫:৩০

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ পাঠক
ভালো থাকুন।

১৯| ০৯ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:২১

পাঠকের প্রতিক্রিয়া ! বলেছেন: ইয়া, গট ইট
ক্যানন ৬০০ডি
লেন্স ১৮-১৩৫ ও ৭৫-৩০০

১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৫:৩০

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: একদম ঠিক

২০| ১০ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:৩২

ডঃ এম এ আলী বলেছেন:



কবিতা ছবিতা সকলই দেখলাম , আমরাও অবশ্য ছুটিতে থাকব
তাই এত ফুল ও কবিতার কথামালার বিষয়ে এখন না কব কথা
তবে প্রথম কবিতা ও ফুলটিকে নিয়েই বলে যাব দু্ই চারটি কথা ।
কবিতা পাঠ কালে মনে হয় আমাদের পিটুনিয়া ফুলটিই যেন ফুটল
আর তা দেখে ভাললাগার বিষয় হয়ে দাঁড়ায় যখন অনুভবে আসে
স্থান কালের সকল দুরত্ব ঘুচে গিয়ে কবির অনুভুতিই যেন মিশে আছে
পিটুনিয়া ফুলের রঙগীন পাখনা নিয়ে পাঠকের হৃদয়ের একান্ত কাছে ।
আমি ভালবসি আহা! কিংবা কবিতায় থাকা হা হা হা হা মহুর্তগুলি
এটি আরো আবেগী হয় যখন দেখি কবিও অবাক হন ফুলটির প্রতি,
আমি পিটুনিয়ার বাগানের মধ্য দিয়ে হেটে কবিতার কথা ভাবতে চাই
আর হৃদয়ের সব গ্লানি মুছে এক নির্মল আধ্যাতিক জগতে পৌঁছতে চাই ।
ধন্যবাদ এত সুন্দর একটি কবিতা গুচ্ছের জন্য,
কবিতায় থাকা কথামালার অভিব্যক্তিই একজন কবির ব্যক্তিত্ব
ও একজন কবি মানসের সাহসিকতার স্বীকৃতি ।

জাকজমকপুর্ণ ও মধুর হোক পরিবার পরিজন নিয়ে ঈদের মহুর্তগুলি

পিটুনিয়া ফুলের সৌরভ গাথা ঈদ শুভেচ্ছা রইল

১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৫:৩১

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: আপনার মন্তব্য মানেই মুগ্ধতা

ঈদ মোবারক। ঈদ পরবর্তী শুভেচ্ছা। ভালো থাকুন সবাইকে নিয়ে
এত সুন্দর মন্তব্য পড়ে মনই ভালো হয়ে যায়

২১| ১১ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:৫৫

ইসিয়াক বলেছেন:

১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৫:৩২

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: ঈদ মোবারক
ঈদ পরবর্তী শুভেচ্ছা ভাইয়া
ভালো থাকুন

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.