নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ট্রুথ নেভার ডাই্‌জ

নিজের সম্পর্কে লেখার কিছু নেই । সাদামাটা ।

আহমেদ জী এস

পুরোপুরি একজন অতি সাধারন মানুষ । আমি যা আমি তাই ই । শয়তানও নই কিম্বা ফেরেশতা । একজন মানুষ আপনারই মতো দু'টো হাত, চোখ আর নিটোল একটা হৃদয় নিয়ে আপনারই মতো একজন মানুষ । প্রচন্ড রকমের রোমান্টিক আবার একই সাথে জঘন্য রকমের বাস্তববাদী...

আহমেদ জী এস › বিস্তারিত পোস্টঃ

“লভ এ্যান্ড রোমান্স” । সখি ভালোবাসা কারে কয়......

১৫ ই মে, ২০১৭ সকাল ১০:০৭



পৃথিবীতে সবচেয়ে বেশী উচ্চারিত শব্দটিই হলো “ ভালোবাসি” । এটা বলা যতো সহজ , বোঝানো লক্ষকোটি গুন কঠিন । আপনি হয়তো একশত ভাগ আন্তরিক যখন আপনি বলেন, “ আই লাভ য়্যু ” । কিন্তু একথা বলে আসলে কি বোঝাতে চাচ্ছেন আপনি ?
তাই এই পোস্টটি পড়ার আগে কাগজ, কলম নিন । নীচের শূন্যস্থান যুক্ত বাক্যটি লিখুন ১০ বার । তারপর শূন্যস্থানগুলো পূর্ণ করুন -
“যখন ‘আমি তোমাকে ভালোবাসি’ বলি তখন আমি তোমাকে বোঝাতে চাই যে --------- ”

কি , কিছু বোঝাতে পেরেছেন ? খুব কষ্ট হবে বোঝাতে । কারন ঐ বাক্যটির অর্থ একেক জনের কাছে একেক রকম অর্থে ধরা দেবে ।
আপনি হয়তো আপনার স্ত্রী বা স্বামী কিম্বা সন্তান কিম্বা ছেলে বা মেয়ে বন্ধুদের , এমনকি আপনার কলিগদেরও এমন কথা হাযারবার বলেছেন ।
খুব খেয়াল করে দেখুন , যতোবারই আপনি বলেন, “ আই লভ য়্যু ” তখন একেকবার একেক অর্থে বলেন । ভিন্ন ভিন্ন ভাব বোঝাতে বলেন ।
যে মানুষটি পরিবারের কারো কাছ থেকে জীবনেও কোন ভালোবাসাই পায়নি তার কাছে এই বাক্যটি একটি স্বপ্নের মতো মনে হবে ।
আপনি আপনার সন্তানকে কড়া শাসনে রাখেন আবার বলেন, খুব ভালোবাসেন বলেই তাকে এমন শাসনে রাখতে হয় । আপনার সন্তানের কাছে এই ভালোবাসার রূপটি আপনার স্ত্রী বা স্বামীকে ভালোবাসার রূপটি নয় । আবার যৌবনদীপ্ত ছেলে বা মেয়েটি পরিবারের এতো এতো স্নেহ- ভালোবাসা পাওয়ার পরেও অন্যকারো কাছ থেকে “ আই লাভ য়্যু” শোনার জন্যে নির্ঘুম রাত কাটায় । বর্তমানে যা হালচাল, সেখানে ছেলেমেয়েদের বলা “ আই লভ য়্যু” বাক্যটিতে শারীরিক সম্পর্কের ইঙ্গিতটাই থাকে বড় বেশি ।
এমন উদাহরন দেয়া যাবে হাযারো ।
আসলে “আমি তোমাকে ভালোবাসি” বাক্যটি অনেক কনফিয়্যুশানের, অনেক বেদনার আবার অনেক আনন্দেরও ।
আপনি কাগজে ১০ টি শূন্যস্থানে যে ১০টি উত্তর লিখেছেন তা আপনাকে বিভ্রান্তিতেই ফেলে দেবে । এবং সম্ভবত ঐগুলোর কোনটিতেই আপনি একশতভাগ স্বচ্ছ নন । বলুন তো, কোন উত্তরটি আপনি সততার সাথে দিয়েছেন ?
আসলে “আমি তোমাকে ভালোবাসি” এর অর্থ এই বাক্যের তিনটি শব্দে নেই । আছে এটা বলার পেছনের আকুতিতে, বলার অনুভবে ।



এবার তাহলে দেখা যাক “ সখি ভালোবাসা কারে কয়......” এর “ভালোবাসা” কি জিনিষ ।
কোনও জিনিষের প্রতি অনুভবের সুতীব্রতা , আবেগের তীক্ষ্ণতা, অতল আকর্ষণেচ্ছা বা নিজের সবটুকু দিয়ে সমর্পণের নামই হলো - ভালোবাসা । ভালোবাসা একটা অনুভূতি, একটা বিশ্বাস । একে বর্ণনায় বর্ণীল করা যায়না, যায়না ছোঁয়া । ভালোবাসা হলো সম্ভাব্য মাত্রার সব্বোর্চ্য অর্থ নিয়ে ভরপুর, তরঙ্গায়িত এক ভাষা । এর দেশ, কাল , পাত্র নেই । নেই বর্ণ, নেই জাত ।
ভালোবাসা হতে পারে বিভিন্ন ধরনে, এটা প্রসারিত হতে পারে, আবরিত হতে পারে , লতিয়ে উঠতে পারে জাগতিক যে কোনও কিছুর শরীর-মন ঘিরে । এই যেমন আপনি ভালোবাসেন -
- তীর ভাঙা ঢেউ ,
-ঝুম বর্ষা কিম্বা
-ঘাসের ডগায় একটি শিশির বিন্দু ।
আবার ভালোবাসতে পারেন -
-দুলকি চালে চলা ঘোড়া,
-গরর...গররর করে কোলের উষ্ণতা খোঁজা বেড়াল কিম্বা
-দৌঁড়ে এসে পায়ের কাছে লুটিয়ে পড়া কুকুরটিকে ।
কেবলমাত্র সুন্দরের প্রতিই আমাদের সকল ভালোবাসা লুটিয়ে পড়বে এমন কোনও কথাও নেই । প্রকৃতির অসুন্দরতাকে , অপূর্ণতাকে মেনে নিয়ে যিনি ভালোবাসা সমর্পণ করেন , ভালোবাসার পাত্র-পাত্রীটিকে বা বস্তুটিকে গড়ে তোলেন মনের মাধুরী মিশিয়ে তার ভালোবাসা নিখাদ - সত্যিকারের ।
মনে হয় , এই ভালোবাসা আপনার একটা জন্মগত অধিকারও বটে । আপনি ভালোবাসা পাবার যেমন অধিকার রাখেন তেমনি রাখেন ভালোবাসতেও । আপনি যে বেঁচে আছেন, এমন একটা অনুভূতিই তো আপনার নিজেকে ভালোবাসতে শেখায় । একটা “ নার্সিসাস” বোধ প্রতিটি মানুষেরই জন্মগত, প্রকৃতিদত্ত । এও তো ভালোবাসা, নিজেকে !

তেমন কারো জন্যে, কিছুর জন্যে ভালোবাসায় আপনার খাঁদ নেই মোটেও , এমনটাই মনে হয় । ভালোবাসার এই প্রকাশটি খুব সাধারন থেকে হতে পারে উচ্চাঙ্গের । আবার পাত্র ভেদে এর ভেতরে থাকতে পারে ভরসার জায়গাটি, থাকতে পারে নিরাপত্তাবোধের নিশ্চয়তা । এর সাথে সঙ্গ, আস্থা, আনুগত্য, আকর্ষণ, নিবেদনের মতো মানবিক কিছু কিছু চাওয়া তো থাকতেই পারে । তবে সবকিছু ছাপিয়ে ভালোবাসার যে ধ্রুপদী রূপ তা “বিশ্বাস” নামের ইটে গাঁথা । ভালোবাসার এমন একটি রূপ আপনি পাবেন অচ্ছেদ্য বন্ধুত্বে । এরকম ভালোবাসার স্বরূপটি মনে হয় যেন নীচের শের’টিতেই দ্যোতনায় ভাস্বর --

দোস্তি দিল হ্যাঁয়, দিমাগ নহী...
দোস্তি সোঁচ হ্যায়, আওয়াজ নহী ।
দোস্তি কী জজবো কো,
কোই আঁখো সে দেখ সেকতা নহী
কিঁউকি দোস্তি এহসাস হ্যাঁয়, আন্দাজ নহী ।

কিন্তু মজার ব্যাপার হলো, “ভালোবাসা” বললেই এসবের কিছুই আপনার মনে পড়েনা ।
আপনার কেবলই মনে হয় - অন্যকিছু , গা শিউরে ওঠা কিছু , মনকে উথাল পাথাল করে দেয়া কারো মুখখানি, কোনও কিছুর অবয়ব । যা ভালোবাসার নামে শুধুই “ মোহ” । মানব-মানবীর বেলায় এ যেন , একজোড়া চোখের বিদ্যুত তরঙ্গ আর এক জোড়া চোখের ভেতর দিয়ে হৃদয় নামের জায়গাটিকে তরঙ্গায়িত করে যাওয়া মাত্র ।

গ্রীকো-ক্রিশ্চিয়ান মতে এমন “লভ” বা “ ভালোবাসা”র চারটি ধারা রয়েছে । ভালোবাসা বলতে প্রচলিত ধারনায় আমরা যা বুঝি তার নাম -“ ইরোস” (Eros) । ইরোটিক শব্দটি এখান থেকেই জন্ম নেয়া । দর্শন এবং মনোবিজ্ঞানের ভাষায় এই ইরোটিক শব্দটির যতো ব্যাখ্যাই থাকনা কেন, আমাদের ধারনায় তা শারীরিক উত্তেজনা । তাই আমাদের ধারনা মতের ভালোবাসায়, শারীরিক একটা আকর্ষণের ব্যাপার - স্যাপার থেকেই যায় জ্ঞাতে বা অজ্ঞাতে।
“ষ্টোর্জ” (Storge) হলো পারিবারিক ভালোবাসা । নিজের ধারে কাছের লোকজনদের প্রতি ভালোবাসা । যেমন সন্তান, ভাইবোনদের প্রতি ভালোবাসা । এমন ভালোবাসা এক ধরনের অনুরাগ , স্নেহ জাতীয় আবেগ ।
“ ফিলিয়া” ( philia) হলো বন্ধুত্বপূর্ণ ভালোবাসা । রক্তের সম্পর্কের বাইরে কাউকে আস্থার জায়গায়, বিশ্বাসের জায়গায়, অন্তরঙ্গতার জায়গায় বসানো ।
“ এ্যাগেপ” (agape) হলো স্বার্থহীন ভালোবাসা । এর কোন ব্যাখ্যা নেই, কেন এমনটা হয় । অনেকটা ইউটোপিয়ার মতোন ।
আবার ঈশ্বরেও ভালোবাসা সমর্পিত হয় । এখানে আমাদের সবার ভালোবাসাতে কোনও আলাদা রঙ মনে হয় নেই । এ এক নিখাদ আত্মসমর্পণ । আ ডিভাইন লভ উইথ নো ক্যাটেগরী !

ভালোবাসাকে মানুষ যে কতোভাবেই না শ্রেনীকরণ করেছে । এই সব শ্রেনীভেদের ব্যাখ্যায় আবার আছে হাযারো মতভেদ । দার্শনিকরা বলেন এক , তো মনোবিজ্ঞানীরা বলেন আরেক ।
ফ্রয়েড সাহেব তো আবার সকল ভালোবাসার মাঝে কামগন্ধ খুঁজে পান ।
সাইকোলোজিষ্ট রবার্ট ষ্টার্ণবার্গ ভালোবাসার একটা ত্রিভুজ থিওরীও দাঁড় করিয়েছেন । প্যাশন (physical arousal), অন্তরঙ্গতা (psychological feelings of closeness) আর কমিটমেন্ট (the sustaining of a relationship). এই তিনটি বাহু দিয়ে নাকি ভালোবাসার ঘরটি বাঁধা হয় ! আবার এ বাহু তিনটির পারম্যুটেশান করে আবার সাত রকমের ভালোবাসাও নাকি হয় । এর ভেতরে সবচেয়ে জনপ্রিয় ভালোবাসা হলো “রোমান্টিক” আর “কনজ্যুমেট লভ” । অন্যগুলো হলো লাইকিং, কমপ্যাশনেট লভ, ইম্পটি(শুন্য) লভ, ফ্যাটিউঅ্যাস লভ আর ইনফ্যাচুয়েশান বা মোহাচ্ছন্ন হওয়া। ষ্টার্ণবার্গ বলেছেন, বিবাহিত দম্পতিদের মাঝে অন্তরঙ্গতাই হলো বিবাহিত জীবনের সন্তুষ্টি ।



যে যা্-ই বলুক আসলে সত্যিকারের ভালোবাসা এক ও একক, নির্দোষ, অবিচল , স্বয়ংসিদ্ধ, অক্ষয় এক মানসিক অনুভূতি । সকল ভালোর সমন্বয়, একটি সুর । বিশ্বাস এর মূল উপাদান । হুট করে এমনটা হয়না । অনুরাগের কুঁড়ি থেকে ফুল, ফুল থেকে পরাগায়ন হয়ে ফল হয়ে ওঠার দীর্ঘ পরিক্রমায় যেতে হয় তাকে । তারপর জড়িয়ে ওঠা, আত্মার এক অবিচ্ছেদ্য বন্ধনে, যেখানে শরীরের কোনও জায়গা নেই । নিজের আমিকে (ইগো) অন্যের মাঝে বিলীন করে দেয়াই ভালোবাসার প্রথম শর্ত ।
আবার অবিচ্ছেদ্য হলেই গাঢ় বা সত্যিকার ভালোবাসা হয়না । বিচ্ছেদের পরেও দু’জনে দু’জনার প্রতি বিশ্বাসে অবিচ্ছেদ্য হলেই তবে তা হয় ।

আর রোমান্স হলো ভালোবাসার উপস্থাপনার ঢং । একটি শিল্প । এতে ভালোবাসা বোঝাতে একটি নিবেদন স্পষ্ট করা হয় । এটা বাহ্যিক । যেমন, ভালোবাসার পাত্র-পাত্রীটিকে আপনি একটি ফুটন্ত গোলাপ দিয়ে স্বাগত জানাতে পারেন । আর যদি সবে কুঁড়ি হয়ে ওঠা একটি শিশির স্নাত গোলাপ দু’হাতে তুলে ধরে, হাটু মুড়ে যদি আপনার ভালোবাসার পাত্র-পাত্রীটিকে সমর্পণ করেন তবে তা আরো গাঢ় একটি নিবেদনকেই ঈঙ্গিত করে । একটি সময় ছিলো, যে সময়ে একটি মেয়ে তার ভালোবাসার পাত্রটিকে রুমালে নিজ হাতে ফুল তুলে এমন একটি বাক্য- “ যাও পাখি বলো তারে , সে যেন ভোলেনা মোরে” বা “তুমি মোর বন্ধু বটে , রেখো মোর স্মৃতি” লিখে উপহার দিতো । এগুলো হলো রোমান্টিক রোমান্টিসিজম । ভালোবাসার ক্যানভাসে রঙের কি জেল্লা ধরাবেন সেটা নির্ভর করে আপনার সৃজনশীলতার উপর , আপনার আবেগের গভীরতার উপর , ভালোবাসার জনের প্রতি আপনার অনুরাগের মাত্রার উপর, তাকে চমৎকৃত করার উপায়ের উপর । এটা আপনার ভালোবাসাকে প্রলম্বিত করতে , দৃঢ় করতে সাহায্য করে । করে আবেগাপ্লুত, সুমিষ্ট। দু’জনাকে কাছে টানার রসায়নে এও ভালোবাসার গুরুপাকে একটি পাঁচফোঁড়ন ।
ভালোবাসা যদি হয় নিভৃত এক ফল্গুধারা , তবে রোমান্স তার বয়ে যাওয়ার কুলুকুলু ধ্বনি ।

ইতিহাসবিদরা বলেন , ইংরেজি “রোমান্স” শব্দটি এসেছে ফরাসী আঞ্চলিক ভাষা থেকে যা কেবলমাত্র সমাজের উচ্চশ্রেনীদের মাঝেই সীমাবদ্ধ একটি ধারনা । এটা সে সময়কালের ফ্রেঞ্চ এলিটদের কথা বলা , লেখা আর শৈল্পিক চিন্তার নান্দনিক প্রকাশ । আবার এটাও বলা হয় “রোমান্স” শব্দটি এসেছে ল্যাটিন ““রোমান্টিকাস” শব্দটি থেকে যার অর্থ “ রোমান ষ্টাইল” । আমাদের ধারনায় “ রোমান ষ্টাইল” বললেই যেমন আভিজাত্যময় কিছু বুঝি, আসলেও এটা যেন ভালোবাসায় আভিজাত্যের পরাগ মাখানো কিছু।
এই রোমান্সের খেলায় আমি আপনি যেভাবে খেলি তাকেও আবার ছকে ফেলেছেন সমাজবিজ্ঞানীরা ।
তারা বলেন , এটা হতে পারে ফ্লার্ট ( Flirt) করা । যেমন , “আহ কি মুক্তো ঝরানো হাসি আপনার।” কাউকে এমনটা বলা ।
হতে পারে অন্তরঙ্গতা (Intimacy)- যেমন, চোখে চোখে চাওয়া (Eye contact) । সেই গানটির মতোন - চোখ যে মনের কথা বলে ।
আবার আলতো চুমু খাওয়া (Kissing), আদর করা (Hugging), হাতে হাত রাখা (Holding hands) এগুলোও আরেক ধরনের রোমান্স ।
আবার পারষ্পারিক যোগাযোগের গুটি চেলেও এই রোমান্সের খেলাটি খেলতে পারেন আপনি । একসময়ে প্রেমপত্রের চল ছিলো খুব । নীলখামে চিঠি দেয়া । ডাকপিয়নের অপেক্ষায় বসে থাকা । চিঠি চালাচালি এখন আর নেই বললেও চলে । মোবাইলে মেসেজ চালাচালি সে জায়গাটাকে দখল করে ফেলেছে বেমালুম । অবশ্য এখনকার অস্থিরতার যুগে রোমান্সকে হতে হয় গরম গরম । ডেটিং করা , ফেসবুক চ্যাটিং, ফোন রোমান্স ইত্যাদি হলো চলতি সময়ের পালে লাগা গরম হাওয়া।

ভালোবাসা আর রোমান্স নিয়ে যারা ঘাঁটাঘাঁটি করেন তারা বলেন , রোমান্টিক ভালোবাসা হলো একটি জটিল আবেগ । এ ধরনের ভালোবাসা আবর্তিত হয় দু’টো ধরনে । আসক্তিমূলক (প্যাশনেট) আর অংশীদারীত্বমূলক (কমপ্যাশনেট) । আসক্তিমূলক ভালোবাসা (প্যাশনেট লভ) জন্ম নেয় সক্রিয় আর সুতীব্র একটি আবেগ থেকে যেখানে আপনি মনে করেন , পৃথিবীর সব সুখ এখানেই । কখনও কখনও এটা আপনাকে কষ্টও দেয় । বিজ্ঞানীরা এধরনের ভালোবাসাকে তুলনা করেন , “কোকেন” এর নেশার সাথে । কারন, কোকেন গ্রহনে আপনার মস্তিষ্ক থেকে যেমন “ ডোপামিন” নামের একটি হরমোন নিঃসৃত হয় এবং একটি সুখানুভূতিময় আবেগ সৃষ্টি করে তেমনি প্যাশনেট লভ এর সময় আপনার মস্তিষ্ক থেকে এই “ ডোপামিন” টিই নিঃসৃত হয়ে থাকে । এ ধরনের ভালোবাসা সাধারনত স্বল্পমেয়াদী । যার পরিনতিতে অনেক সময় আপনাকে গাইতে হয় - “ তুমি অনেক যত্ন করে আমায় দুঃখ দিতে চেয়েছো..............”
আর অংশীদারীত্বমূলক ভালোবাসায় (কমপ্যাশনেট লভ)পরষ্পরের মাঝে একটি ধীরস্থির আস্থার জন্ম হয় , জন্ম হয় প্রশান্তির । তখন আপনার গেয়ে উঠতে ইচ্ছে করে ---“ভালোবাসি - ভালোবাসি, জলে স্থলে বাজায় বাঁশি......”
রোমান্স, ভালোবাসার প্রতি একপ্রকার বিনয়ের প্রকাশ ও বটে । আবার ভালোবাসায় যে রোমান্স থাকতেই হবে এমন কোন কথাও নেই ।

শুরুতেই বলেছি , পৃথিবীতে সবচেয়ে বেশী উচ্চারিত শব্দটিই হলো “ ভালোবাসি” । এটা বলা যতো সহজ , বোঝানো লক্ষকোটি গুন কঠিন ।
সব মিলিয়ে ভালোবাসায় পতিত হওয়া যেন গভীর এক কুয়োর মাঝে পড়ে যাওয়া । যারা সে কুয়ো থেকে জমজমের পানি তুলতে পারেন তারা উৎরে গেলেন । আর যারা পারেন না তাদের হৃদয় ভাঙা জল সে কুয়োর জলকেই বাড়ায় শুধু । তখন মনের ভেতরে এই গান গুনগুনিয়ে ওঠে -“ ভালোবাসা মোরে ভিখারী করেছে ......”
এই শ্রেনীর জন্যে একথাটিই বলতে হয় - একটি হাসি দিয়ে ভালোবাসার শুরু । চুম্বনে তা বাড়ে । কিন্তু শেষ হয় চোখের জলে ।

এখনকার যুগে ভালোবাসার এইসব ধারনা পাল্টেছে । লাইলি-মজনু , শিরী-ফরহাদ কিম্বা রোমিও-জুলিয়েটদের দিন পার করে, কেয়ামত সে কেয়ামত তক হয়ে আসা প্রেম-ভালোবাসা, আজ আর ডুব-সাতার দিয়েও খুঁজে পাওয়া যাবেনা । প্রেম-ভালোবাসায় সেদিনের সেই লালিত্য আজ যান্ত্রিকতার যাতাকলে পড়ে কর্পোরেট মানসিকতার খোলসে শুধু “গিভ এ্যান্ড টেক” হিসেবে বাজারজাত হয়ে গেছে । যাকে আমরা এই দিনকালে “প্রেম-ভালোবাসা” বলছি তা আসলে “মোহ”, যেখানটা প্রান কিম্বা হৃদয় ছাড়া আর অনেক কিছু দিয়েই সাজানো । অনেকটা যেন হাইব্রীড হয়ে গেছে এর নান্দনিকতাও । গায়ে গতরে বেশ ভারী দেখালেও স্বাদ নেই, সুগন্ধ নেই ।
তাই আজকাল “ভালোবাসা” বললেই অনেকের মনের মধ্যে উঁকি দিয়ে যায় শারীরিক সম্পর্কের মধুরতা ।
ভালোবাসা বলতে যারা বোঝেন - গোলাপী নেশা, শরীরের ঢেউ, উদ্দাম নাচ, সমুদ্র সৈকতে একটি রাত তাদের কাছে ভালোবাসা ধরা দেয় মুহূর্তেই, আবার হারিয়ে যায়ও নিমিশেই । এরা ভালোবাসায় স্নিগ্ধ রোমান্সের বদলে স্পাইসি ডিওডোরান্টের সুবাস মাখেন । এটা ভালোবাসা নয় - মোহ বা কাম ।

সবশেষে বলি , অনেকের কাছেই হয়তো ভালোবাসা একটা ফালতু জিনিষ ।
তবু ঐ ফালতু জিনিষটা আমাদের কিছুতেই ছাড়েনা । প্রতিদিনই আমরা বলি , ভালোবাসি - ভালোবাসি, আবার প্রতিদিনই তা বাদামের খোসার মতো ভেঙেও ফেলি । আবার নতুন করে ভালোবাসায় মাতি । এভাবে কতোবার শ্বাস টেনে নিয়েছি তা দিয়েই জীবনটা শুধু মেপে যাই আমরা । কিন্তু ভালোবাসার যে মূহুর্তগুলো আমাদের শ্বাস রূদ্ধ করে দিয়ে গেছে তা পড়ে রয় অবহেলায় । মেপে দেখিনে ।

ছবির কৃতজ্ঞতা ইন্টারনেট এর কাছে

মন্তব্য ১৯৬ টি রেটিং +৪০/-০

মন্তব্য (১৯৬) মন্তব্য লিখুন

১| ১৫ ই মে, ২০১৭ সকাল ১০:২০

বিজন রয় বলেছেন: শুভসকাল।

১৫ ই মে, ২০১৭ সকাল ১১:২৯

আহমেদ জী এস বলেছেন: বিজন রয় ,




ভালোবাসার টানে্ এসেই শুভসকাল বলে যাওয়াতে ভালো লাগলো ।
মধ্যসকালের শুভেচ্ছা আপনাকেও ।

২| ১৫ ই মে, ২০১৭ সকাল ১০:৩১

নাঈম জাহাঙ্গীর নয়ন বলেছেন: “যখন ‘আমি তোমাকে ভালোবাসি’ বলি তখন আমি তোমাকে বোঝাতে চাই যে'- তোমাকে দেখামাত্র সব দুঃখকষ্ট ভুলে যাই, তোমার মুখপানে চেয়ে আমার মধ্যে সুখানুভব হয়, তোমার মলিন মুখে বিষণ্ণতায় ভরে উঠে আমার চারিপাশ, নিজেকে দুখী মনে করি খুব, তোমার নামটা ভেবেই সুখে ভরে উঠে বুক, বারবার মনে হয় তোমার কাছেই ছোটে যাই। তোমার মুখের হাসিতেই আমার যতো সুখ।

পুরোটা এখনো পড়িনি, প্রশ্ন পেয়ে উত্তর লিখতে বসে গেছি' জানিনা টেনেটুনে পাশ করতে পারি কিনা।

১৫ ই মে, ২০১৭ সকাল ১১:৫৩

আহমেদ জী এস বলেছেন: নাঈম জাহাঙ্গীর নয়ন ,




যারা সত্যিকারের ভালোবাসতে জানেন , তারা এই প্রশ্নে পাশ করবেনই । যারা জানেন না , তাদের অনেক মুশকিল হতে পারে ।

প্রশ্ন পেয়ে উত্তর লিখতে বসার আগে আপনার প্রস্তুতিপর্বে যা লিখেছেন তার ধরন এই "গাইড বই" তে মানে লেখায়ও দেয়া আছে ।

৩| ১৫ ই মে, ২০১৭ সকাল ১০:৩৬

করুণাধারা বলেছেন: ভালবাসার ইতিবৃত্ত পড়তে পড়তে মনে হচ্ছিল কি যেন এখনো বলা হয়নি! একেবারে শেষের দিকে এসে দেখলাম সে কথাও বলেছেন। কেয়ামত সে কেয়ামত তক হয়ে আসা প্রেম-ভালোবাসা, আজ আর ডুব-সাতার দিয়েও খুঁজে পাওয়া যাবেনা । প্রেম-ভালোবাসায় সেদিনের সেই লালিত্য আজ যান্ত্রিকতার যাতাকলে পড়ে কর্পোরেট মানসিকতার খোলসে শুধু “গিভ এ্যান্ড টেক” হিসেবে বাজারজাত হয়ে গেছে । যাকে আমরা এই দিনকালে “প্রেম-ভালোবাসা” বলছি তা আসলে “মোহ”, যেখানটা প্রান কিম্বা হৃদয় ছাড়া আর অনেক কিছু দিয়েই সাজানো । অনেকটা যেন হাইব্রীড হয়ে গেছে এর নান্দনিকতাও । গায়ে গতরে বেশ ভারী দেখালেও স্বাদ নেই, সুগন্ধ নেই ।

আজকের যুগের ভালবাসার রূপ অল্প কথায় খুব সুন্দরভাবে বলেছেন।

ধন্যবাদ চমৎকার পোস্টটি দেবার জন্যে।

১৫ ই মে, ২০১৭ দুপুর ১২:১৬

আহমেদ জী এস বলেছেন: করুণাধারা ,




চেষ্টা করেছি নিজের স্বল্প জ্ঞান দিয়ে ভালোবাসা শব্দটির কাঁটাচেরা করতে । কতোটুকু তাতে ভালোবাসা রোগটির ভালো করা গেল বা কতোটুকু তাতে রক্তক্ষরণ হলো তা পাঠকই নির্ধারন করবেন ।

ধন্যবাদ এই সুন্দর মন্তব্যটির জন্যে । ভালোবেসে সাথেই থাকুন ।

৪| ১৫ ই মে, ২০১৭ সকাল ১০:৫২

নাঈম জাহাঙ্গীর নয়ন বলেছেন: অনেক ভালো লাগার একটা পোষ্ট, ভালোবাসার পূর্ণ বিশ্লেষণ। কৃতজ্ঞতা রেখে গেলাম ভাই।


কোনও জিনিষের প্রতি অনুভবের সুতীব্রতা , আবেগের তীক্ষ্ণতা, অতল আকর্ষণেচ্ছা বা নিজের সবটুকু দিয়ে সমর্পণের নামই হলো - ভালোবাসা । ভালোবাসা একটা অনুভূতি, একটা বিশ্বাস । একে বর্ণনায় বর্ণীল করা যায়না, যায়না ছোঁয়া । ভালোবাসা হলো সম্ভাব্য মাত্রার সব্বোর্চ্য অর্থ নিয়ে ভরপুর, তরঙ্গায়িত এক ভাষা । এর দেশ, কাল , পাত্র নেই । নেই বর্ণ, নেই জাত। - ভালোবাসার সুন্দর একটা সংজ্ঞা পেলাম। আমি মুগ্ধ।


সব মিলিয়ে ভালোবাসায় পতিত হওয়া যেন গভীর এক কুয়োর মাঝে পড়ে যাওয়া । যারা সে কুয়ো থেকে জমজমের পানি তুলতে পারেন তারা উৎরে গেলেন । আর যারা পারেন না তাদের হৃদয় ভাঙা জল সে কুয়োর জলকেই বাড়ায় শুধু । তখন মনের ভেতরে এই গান গুনগুনিয়ে ওঠে -“ ভালোবাসা মোরে ভিখারী করেছে ......” - কথা গুলো সত্যতা আমি স্বীকার করতে পারি।

শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা আপনার জন্য (এখানে, ভালোবাসা বলতে কেবল শ্রদ্ধা মুগ্ধতা আর শুভকামনা)।

শ্রদ্ধায় ভরে উঠুক পৃথিবীর যতো ভালোবাসা

১৫ ই মে, ২০১৭ দুপুর ১২:৪১

আহমেদ জী এস বলেছেন: নাঈম জাহাঙ্গীর নয়ন ,




সেটাই , এই পৃথিবীর পথ-ঘাট-মাঠ , আকাশ-বাতাস-পাতাল, জল-নদী-সমুদ্র , মানব-মানবী-প্রানীকুল সবখানেই মিশে থাক ভালোবাসা । শ্রদ্ধার সাথে, প্রগাঢ়তার সাথে, অনুভবের সাথে , কমনীয়তার সাথে , মুগ্ধতার সাথে বিরাজিত হোক ....................

পরীক্ষায় তো দেখি আপনি পাশ , একেবারে গোল্ডেন এ+ B-)

ভালো থাকুন । ভালোবেসে সাথেই থাকুন ।

৫| ১৫ ই মে, ২০১৭ সকাল ১১:০৯

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: প্রিয়তে রাখলাম আবার একেবারে নিরিবিলি একটি পরিবেশে এই ভালবাসার লেখাটি পড়ার জন্য।
ভালবাসা সত্যি এক অদ্ভুদ জিনিস। তবে সত্যিকারে কাওকে ভালবাসার মাঝে এক অসাধারন সুখ আছে। সেটা সেই উপলবদ্ধি করতে পারে যে মন থেকে কাউকে সত্যিকারের ভালবাসে।
আহমেদ জী এস ভাইয়া, ভালবাসার এই লেখাটি উপলক্ষে একটা কথা আজ বলেই ফেলি,আমি কিন্তু আপনাকে ভালবাসি। না দেখে একটা মানুষের লেখা পড়ে কল্পনায় সেই মানুষটার একটা অয়োঅব দাড় করিয়ে বেশ খানিকটা ভালবাসা যায় তাকি আপনি জানেন?
ও হ্যা ভাইয়া আপনার কাছে একটা অনুরোধ, বন্ধুত্ব নিয়ে একটি লেখা লিখবেন।
আপনি আমার বড় কিনা জানিনা। তবে ছোট হলেও আদর করে কিন্তু ভাইকে ভাইয়া বলা দোষের কিছু নয় । হা হা হা।

১৫ ই মে, ২০১৭ দুপুর ১:১৯

আহমেদ জী এস বলেছেন: মোস্তফা সোহেল ,




আমি জানি আপনি অজান্তেই আমাকে ভালোবেসে ফেলেছেন । সম্ভবত এটা এ্যাগেপ” (agape) বা স্বার্থহীন ভালোবাসার দলে পড়বে । আমার লেখা হয়তো আপনাকে কতকটা মোহাচ্ছন্ন করে রাখে বলেই ভালোবাসেন আমায় । আমি এই ভালোবাসাটুকু মাথায় তুলে রাখলুম ।
বন্ধুত্ব নিয়ে লেখা আছে আমার এই ব্লগেই । বন্ধুত্বকে আমি সবার আগে স্থান দেই , মনেপ্রানে আগলে রাখি, রাখতে চাই ।

আপনার চেয়ে অনেক বড় আমি । ভালোবাসা-বন্ধুত্ব ছোট-বড়র পাহাড় অনায়াসে ডিঙিয়ে যেতে পারে বলে বিশ্বাস করি ।


সাথেই থাকুন । ভালোবেসেই থাকুন .................

৬| ১৫ ই মে, ২০১৭ সকাল ১১:১২

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: ও হ্যা আরেকটি কথা, প্রফাইলে যে ছবি আছে এইটা আমার ছবি।দেখে আন্দাজ করতে পারেন আমি আপনার বড় নাকি ছোট।

১৫ ই মে, ২০১৭ দুপুর ২:০০

আহমেদ জী এস বলেছেন: মোস্তফা সোহেল ,




এই মন্তব্যের জবাবটি আগেই উপরে দিয়ে এসেছি ।

৭| ১৫ ই মে, ২০১৭ সকাল ১১:১৪

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: ইয়া আল্লাহ! ভালোবাসা মানে এত কিছু? আমি যখন ভালবাসাবাসি করেছিলাম, তখন তো জানতাম ভালোবাসা মানে প্রেম, আর প্রেম মানে একজন নারী আর একজন পুরুষের মধ্যে ফষ্টি নষ্টি সম্পর্ক, আর ফষ্টি নষ্টি সম্পর্ক মানে বিয়ে করা, আর বিয়ে করা মানে বাচ্চা কাচ্চা হওয়া, আর বাচ্চা কাচ্চা হওয়া মানে ভালোবাসার দি এন্ড। হাঃ হাঃ হাঃ।

আপনার এই লেখাটি পড়ে খুব ভালো লাগলো। ভালোবাসার বহুমুখী বিস্তার আছে। প্রেমিক প্রেমিকা বা স্বামী স্ত্রী ছাড়াও মা বাবা, ভাই বোন, বন্ধু বান্ধব, আত্মীয়স্বজন, পাড়া প্রতিবেশিসহ পৃথিবীর সকল প্রাণী ও গাছ পালার প্রতি ভালোবাসা জন্মাতে পারে। এমনকি জড় বস্তুর প্রতিও মানুষের ভালোবাসা জন্মায়। একজন গহনাপ্রিয় নারী তার স্বর্ণালঙ্কারের প্রতি ভালোবাসার টানে জড়িয়ে পড়েন।

ধন্যবাদ ভাই আহমেদ জী এস।

১৫ ই মে, ২০১৭ দুপুর ২:২৩

আহমেদ জী এস বলেছেন: আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম ,





একটা পুরো জীবনের বাস্তবতা চার লাইনেই লিখে ফেললেন । লেখার ষ্টাইলটা আবু হেনীয় ।

ভালোবাসা আছে পাতায় পাতায় , ডালে ডালে
পৃথিবীটা ঘুরছে সেই তালে ..........

সুন্দর মন্তব্যে ধন্যবাদ । ভালো থাকুন । থাকুন ভালোবাসায় !

৮| ১৫ ই মে, ২০১৭ সকাল ১১:২২

শূন্যনীড় বলেছেন: ভালোবাসা সম্পর্কে বিস্তারিত পেয়ে ভালো লাগলো। এগুলো প্রিয়তে রাখতে হয়।

১৫ ই মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:০৯

আহমেদ জী এস বলেছেন: শূন্যনীড় ,




প্রিয়তে নিয়েছেন জেনে কৃতজ্ঞ ।
তেমন ভালোবাসা পেলে শূন্যনীড় ও একদিন ভরাট হয়ে উঠবে ।

শুভেচ্ছান্তে ।

৯| ১৫ ই মে, ২০১৭ দুপুর ১২:১৭

আলোরিকা বলেছেন: ভালবাসার এত রকমসকম আর সংজ্ঞা দেখেই তাহলে কবি আকুল হয়ে লিখেছেন ----

তোমরা যে বলো দিবস-রজনী
‘ভালোবাসা’ ‘ভালোবাসা’—
সখী, ভালোবাসা কারে কয় !
সে কি কেবলই যাতনাময় ।
সে কি কেবলই চোখের জল ?
সে কি কেবলই দুখের শ্বাস ?
লোকে তবে করে কী সুখেরই
তরে এমন দুখের আশ । :(( :(( :((

১৫ ই মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৩৭

আহমেদ জী এস বলেছেন: আলোরিকা ,




হুমমমমমমমমমমমমম....... কবি আকুল হয়েছেন কেন, জানেন ? মনে হয় আমি যখন লেখাটি ড্রাফট করে শুতে গেছি তখন মনে হয় রবীন্দ্রনাথ আমার কম্প্যু হ্যাক করেছে । আর ড্রাফটি দেখেই তার মাথায় ঐ" সখী, ভালোবাসা কারে কয় !" বিশ্লেষণের ভুত চেপেছে । বুঝলেন কিনা , ঐ কবিতাটির আসল রূপকার এই অধম ........... :P B-) 8-| :((

শুভেচ্ছান্তে ।

১০| ১৫ ই মে, ২০১৭ দুপুর ১২:৩৭

সুমন কর বলেছেন: সবকিছু ছাপিয়ে ভালোবাসার যে ধ্রুপদী রূপ তা “বিশ্বাস” নামের ইটে গাঁথা। -- আর আজকাল এ বিশ্বাসটাই ভালোবাসার মধ্যে নেই। তাই এতো সব ......

ভালোবাসা নিয়ে চমৎকার একটি বিশ্লেষণমূলক পোস্ট। অনেক কিছু জানতে পারলাম। ধন্যবাদ।
+।

১৫ ই মে, ২০১৭ রাত ৮:০৭

আহমেদ জী এস বলেছেন: সুমন কর ,




ঠিক বলেছেন , সেই বিশ্বাসটিই আর নেই । তাই আমাকেও লিখতে হয়েছে এটুকু - "প্রেম-ভালোবাসায় সেদিনের সেই লালিত্য আজ যান্ত্রিকতার যাতাকলে পড়ে কর্পোরেট মানসিকতার খোলসে শুধু “গিভ এ্যান্ড টেক” হিসেবে বাজারজাত হয়ে গেছে । যাকে আমরা এই দিনকালে “প্রেম-ভালোবাসা” বলছি তা আসলে “মোহ”, যেখানটা প্রান কিম্বা হৃদয় ছাড়া আর অনেক কিছু দিয়েই সাজানো । "

মন্তব্যের জন্যে ধন্যবাদ আর সব সময় সাথে থাকার জন্যে তো বটেই ।
ভালো থাকুন । শুভেচ্ছান্তে ।

১১| ১৫ ই মে, ২০১৭ দুপুর ১২:৪৫

কথাকথিকেথিকথন বলেছেন: ভালোবাসার চতুর্মাত্রিক আলোচনা এবং একাল সেকাল নিয়ে যে ব্যাখ্যা দিয়েছেন তাতে যেন ভালবাসা আরো কঠিন হয়ে গেল !! হা হা । তবে আমি এত কঠিনে যেতে চাই নে । আমি যার যার সাথে এবং যেখানে কমফোর্ট ফিল করি সেইসবকে ভালোবাসি, এটাই হয়তো মানুষের স্বভাবজাত। আই ল্যুভ ইউ মানে 'আই হ্যাভ সামথিং দ্যাট ইউ হ্যাভ' । ভালবাসার অরজিনাল অর্থ হৃদয়ের সাথে সম্পর্কিত বলেই আমার মনে হয় । যার হৃদয় যত সুন্দর তার ভালবাসা তত গভীর এবং স্বচ্ছ।

১৫ ই মে, ২০১৭ রাত ৮:২৮

আহমেদ জী এস বলেছেন: কথাকথিকেথিকথন ,




খুব সুন্দর করে বলেছেন আসল কথাটিই - যার হৃদয় যত সুন্দর তার ভালবাসা তত গভীর এবং স্বচ্ছ।
হোক সে ভালোবাসা পার্থিব যে কোনকিছুতেই ।
ভালবাসা আরো কঠিন হয়ে যাবে কেন ? আমি তো সহজ - সরল- তরল করে দিয়ে গেলুম । শুধু গভীর এবং স্বচ্ছ একখানা মন নিয়ে গিলে ফেলা বাকী .......... :||

১২| ১৫ ই মে, ২০১৭ দুপুর ১:০০

ধ্রুবক আলো বলেছেন: আজকালের দিনে ভালোবাসা ভার্চুয়াল হয়ে গেছে।

পোষ্ট অসাধারণ, ভালোবাসার অনেক তথ্যবহুল পোস্ট ++++++++
ভীষণ ভালো লেগেছে...




(সবচেয়ে বেশী উচ্চারিত শব্দটিই হলো “ ভালোবাসা” । আরেকটা শব্দ আছে বউ, সেটা হলো 'সরি' যা এর চেয়ে উচ্চারিত হয়))

১৫ ই মে, ২০১৭ রাত ৯:২৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: ধ্রুবক আলো ,



আপনার ভালো লেগেছে জেনে লেখাটি সার্থক মনে হলো । প্লাস দেয়াতে ধন্যবাদ ।

আর টাইপো হয়ে যা হয়েছে তা হালের তরুন প্রজন্মের সবচেয়ে গরম গরম রোমান্সেরই ডায়লগ ( শব্দ) - " বউ" । অবশ্য " জান" "জানটুস" শব্দগুলিও কম যায়না ................. :P :D !:#P

শুভেচ্ছান্তে ।

১৩| ১৫ ই মে, ২০১৭ দুপুর ১:০১

ধ্রুবক আলো বলেছেন: ভাই বারো নং মন্তব্যটা মুছে দিন প্লিজ

১৫ ই মে, ২০১৭ রাত ১০:০০

আহমেদ জী এস বলেছেন: ধ্রুবক আলো ,




ভুল যদি হয় এমন মধুর
হোক না ভুল .........
( ১২ নং প্রতিমন্তব্য দ্রষ্টব্য )

১৪| ১৫ ই মে, ২০১৭ দুপুর ১:০১

ধ্রুবক আলো বলেছেন: আজকালের দিনে ভালোবাসা ভার্চুয়াল হয়ে গেছে।

পোষ্ট অসাধারণ, ভালোবাসার অনেক তথ্যবহুল পোস্ট ++++++++
ভীষণ ভালো লেগেছে...




(সবচেয়ে বেশী উচ্চারিত শব্দটিই হলো “ ভালোবাসা” । আরেকটা শব্দ আছে ভাই, সেটা হলো 'সরি' যা এর চেয়ে উচ্চারিত হয়))

১৫ ই মে, ২০১৭ রাত ১০:১৯

আহমেদ জী এস বলেছেন: ধ্রুবক আলো ,



আজকালের দিনে যে সব ভালোবাসাই ভার্চুয়াল হয়ে গেছে তাই তো লিখেছি এখানে - "...........এখনকার অস্থিরতার যুগে রোমান্সকে হতে হয় গরম গরম । ডেটিং করা , ফেসবুক চ্যাটিং, ফোন রোমান্স ইত্যাদি হলো চলতি সময়ের পালে লাগা গরম হাওয়া।"

মনে হয় না "সরি" শব্দটি বেশী উচ্চারিত । । "সরি" শব্দটি একশো-দুশো বছরের আগে মনে হয় ছিলোনা । আর " ভালোবাসি" শব্দটি সৃষ্টির প্রায় শুরু থেকেই শুরু ।

১৫| ১৫ ই মে, ২০১৭ দুপুর ২:২৪

নাঈম জাহাঙ্গীর নয়ন বলেছেন:
গোল্ডেন এ+ পেয়ে পাশ করায় ছবিটির মতই খুশি হয়েছি ভাই।

কৃতজ্ঞ ভালোবাসার কাছে, কৃতজ্ঞতা আপনার কাছে।
ভালোবাসায় ভরে উঠুক পৃথিবী।

শুভকামনা রইল ভাই।

১৫ ই মে, ২০১৭ রাত ১০:৩৬

আহমেদ জী এস বলেছেন: নাঈম জাহাঙ্গীর নয়ন ,




হুমমমম....... ভালোবাসাময় হয়ে উঠুক পৃথিবীর সব ধুলোবালি- মাঠঘাট- পথপ্রান্তর ।

ভালো থাকুন । থাকুন ভালোবাসায় ।

১৬| ১৫ ই মে, ২০১৭ দুপুর ২:৩২

কানিজ ফাতেমা বলেছেন: তবে সবকিছু ছাপিয়ে ভালোবাসার যে ধ্রুপদী রূপ তা “বিশ্বাস” নামের ইটে গাঁথা ......... এককথায় অসাধারন বিশ্লেষন ।
ব্যাপক তথ্যবহুল পোষ্টে +++++++++++

আরো তথ্যবহুল নতুন কোন পোষ্টের অপেক্ষায়.........

১৫ ই মে, ২০১৭ রাত ১১:৩০

আহমেদ জী এস বলেছেন: কানিজ ফাতেমা ,




ভালো লাগলো এতোগুলো প্লাস সহকারে করা মন্তব্যটি । আসলে "বিশ্বাস"ই হলো যেমন জীবন তেমনি মরন ও ।

আরও তথ্যবহুল নতুন কোন পোষ্ট ? দেখি .. কি করা যায় !

ভালো থাকুন । শুভেচ্ছান্তে ।

১৭| ১৫ ই মে, ২০১৭ দুপুর ২:৪৭

জেন রসি বলেছেন: ব্লগার অপ্সরা আপুর ভালোবাসা কারে কয়? ( জিনিভাইয়া আর গেমুভাইয়ার কাছে কিছু প্রশ্ন ও উন্মুক্ত আলোচনার আহ্বান) পোস্টে ফানি মুডে কিছু মন্তব্য করেছিলাম। একদিক দিয়ে প্রাসঙ্গিক মনে হওয়ায় এই পোস্টেও তা তুলে দিলাম।

"
ভালোবাসা কি বা কাকে বলে জানতে হলে ভালোবাসার ইতিহাস সম্পর্কেও জানতে হবে। সেই ইতিহাস হচ্ছে প্রজাতি হিসাবে মানুষের বিবর্তনের ইতিহাস। ধর্মীয় মিথগুলোতে দেখা যায় মানুষকে জোড়া করে পৃথিবীতে নামিয়ে দেওয়া হয়েছে। পুরুষ এবং নারী। তারপর থেকে বংশবিস্তার শুরু হয়ে গেছে। কেন হয়েছে কারন এই পুরুষ এবং নারীর একে অপরকে আকর্ষন করার একটা ক্ষমতা আছে। এই আকর্ষনের কারনেই তারা প্রজননের মাধ্যমে বংশবিস্তার করতে পারে। তখন মানুষ জানত কম। তাই সব দোষ এক জোড়া মানুষের উপড় চাপাইয়া দিছিল। তবে এখন আমরা অনেক কিছুই জানতে পেরেছি। মানুষের মানুষ হয়ে ওঠাটা একটা প্রক্রিয়া। এটা ঘটেছে বিবর্তনের মাধ্যমে। তাই ভালোবাসাকে যদি বোধ বলি তবে সেই বোধও সময়ের সাথে বিবর্তিত হয়েছে। তাই ভালোবাসা কি বুঝতে হলে এই বিবর্তনের প্রক্রিয়াটাকে মাথায় রেখেই বুঝতে হবে। তবে একটা ব্যাপার আমরা বুঝতে পারলাম । তা হচ্ছে ভালোবাসার আদিরূপ হচ্ছে বিপরীত লিঙ্গের প্রতি আকর্ষন যার ফলে প্রজননের মাধ্যমে বংশবৃদ্ধি করা যায়। এই ব্যাপারটাই ধীরে ধীরে মানুষের মধ্যে একটা উন্নত বোধ হিসেবে গড়ে উঠেছে।

এখন একটু আদিম সমাজ থেকে ঘুইরা আসি। আমরা দেখব আদিম সমাজে ভালোবাসা ব্যাপাটা আসলেই অনেকটা পিটুইটারির খেলাই ছিল। নারী পুরুষ উভয়ই ছিল বহুগামী। কারো উপর কারো কোন অধিকার ছিলনা। কমিটমেন্টও না। তাই সেসময় কোন পরিবার প্রথাও গড়ে উঠৈনি। গোষ্ঠী হিসাবেই মানুষকে বৈরী পরিবেশের সাথে যুদ্ধ করে বেঁচে থাকতে হত। তাই নিজেকে বাচানোর তাগিদেই গোষ্ঠীকে বাঁচানোর তাগিদ অনুভব করত। তাই নিম্ন স্তরের হলেও ভালোবাসার একটা কালেক্টিভ বোধ আদিম সমাজে ছিল। সেই বোধ কিভাবে ব্যাক্তি কেন্দ্রিক হলো তা বুঝলেই ভালোবাসার রূপটা অনেকটাই বুঝে ফেলা যাবে। মানে ভালোবাসা কারে কয় তার একটা সংজ্ঞা দাড়া করানো যাবে। আমি সেদিকেই যাওয়ার চেষ্টা চালাইতেছি।

এবার আদিম সমাজ থেকে চলে এসে পশুপালন সমাজ কৃষিপ্রধান সমাজের দিকে দৃষ্টিপাত করি। এই সমাজ ব্যাবস্থায় এসে ব্যক্তি মালিকানার ব্যাপার চলে আসে। সম্পত্তি টিকেয়ে রাখার আকাঙ্খা জন্ম নেয়। এসবের সাথে স্বাভাবিক ভাবেই নারী পুরুষের সম্পর্কেও একটা পরিবর্তন আসে। নিজের জিনিস পরের জিনিস এই ধরনের বোধ মানুষের মধ্যে তীব্র হতে থাকে। স্বভাবতই নিজের জন্য ভালোটাই চাই। বিবর্তনের নিয়ম মেনেই পুরুষরা এমন নারী চাইত যারা সন্তান উৎপাদনের জন্য উপযোগী। এখন কবিরা নারীদের সুন্দর দেহের যেমনটা বর্ননা দেয় অনেকটা তেমনই। নারীরা চাইত আর্থ সামাজিক দিক থেকে শক্তিশালী পুরুষ। যারা তাদের এবং তাদের সন্তানদের অর্থনৈতিক এবং সামাজিক ভাবে নিরাপত্তা দিতে পারবে। না পাইলে ইর্ষার ব্যাপারটাও চলে আসত। তাই সম্পর্কের ব্যাপারে একটা প্রতিযোগিতার মনোভাবও চলে আসে। নিজের জিনিস অন্যে কেন ধরবে এই বোধের বিকাশ হতে থাকে। অর্থাৎ নারী পুরুষ সম্পর্ক অনেকটা চুক্তির মত করেই ব্যাক্তিকেন্দ্রিক বলয়ে আবর্তিত হতে থাকে। যার থেকেই পরিবার প্রথার জন্ম হয়।

ভালোবাসার মধ্যে যখন ব্যক্তিকেন্দ্রিক ভাবনা চলে আসল তখন থেকেই এই অনুভুতি কিংবা বোধ কিংবা স্নায়ুতন্ত্রের খেলা যাই বলিনা কেন ব্যাপারটাও সময়ের সাথে বিবর্তিত হইতে থাক্ল! যদিও এখানে সময়ের কোন দোষ নাই। সব দোষ মানুষের। তারা একবার কয় জিউস ঠিক, আরেকবার কয় জিসাস ঠিক! ;) এই ঠিক, বেঠিক কিংবা প্রথা কুপ্রথার পাল্লায় পইড়া নরনারীর প্রেম ভালোবাসাও বিভিন্ন ভাবে আবর্তিত হয়েছে।

ভালোবাসা হইল সেই অনুভুতি যা জেনেটিক, সামাজিক এবং কালচারাল বিবর্তনের বাই প্রডোক্ট। তবে আনন্দের ব্যাপার হচ্ছে সদিচ্ছা থাকলে আর চেষ্টা থাকলে সকল প্রোডাক্টই উন্নত করা যায়! তাই ভালোবাসার বোধ এবং প্রকাশের উন্নত কোন ফর্মুলার জন্য রাস্তা সবসময়ই খোলা আছে!

হে, মানব জাতি, যদি তোমরা চিন্তা কর। ;)

হালকা চালে এবং ফানি মুডে উত্তর দিয়েছিলাম। আসলে ব্যাপারটা হয়তো আরো জটিল কিংবা সরল।

চমৎকার পোস্টের জন্য ধন্যবাদ। পোস্ট প্রিয়তে। :)








১৬ ই মে, ২০১৭ সকাল ১০:৪৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: জেন রসি ,




লম্বা চওড়া মন্তব্যখানি পড়লুম ।

ভালোবাসার ইতিহাস, বিবর্তনের কথা লিখেছেন । ঠিক আছে । তবে তা মানব-মানবীর মনোগত সম্পর্কের বেলাতেই শুধু প্রযোজ্য হয়তো। কিন্তু আমি তো বলেছি পার্থিব সব কিছুতেই ভালোবাসার কথা ।
জড়, অজড় সব কিছুতেই ভালোবাসা কি জেনেটিক, সামাজিক এবং কালচারাল বিবর্তনের বাই প্রোডাক্ট হবে ? মনে হয় না । এই যেমন আপনি পড়তে, লিখতে আবার কোনও লেখার গভীরে ডুব দিতে ভালোবাসেন । এও তো একপ্রকার ভালোবাসা । অবশ্য এটাকে আপনি ভালোলাগা ও বলতে পারেন । এখন যদি বলেন এটা "ভালোবাসা" তবে তো ল্যাঠা চুকেই গেলো । আর যদি বলেন "ভালোলাগা" তবে এটা তো মানবেন ভালোলাগাটাই ভালোবাসার প্রথম বা শুরুর ধাপ । আপনি হয়তো বই পড়তে পড়তেই কালচারালি ঋদ্ধ হয়ে লিখতে আসক্ত হলেন । এবং সেখান থেকে লেখার ভেতরে ডুব দেয়ার অভ্যেস গড়ে তুললেন জ্ঞানের প্রতি ভালোবাসা থেকে । আপনার এই বিবর্তন কি পারিবারিক-সামাজিক-বার্ণিক-ধার্মিক-ভাষিক- গৌত্রিক- গৌষ্ঠীক- জাতিক কিম্বা রাষ্ট্রিক বিবর্তনের বাই প্রোডাক্ট হবে ? হবে না । ওটাকে আপনার নিজের মানসিক- অনুভাবিক- বৌদ্ধিক বিবর্তনের বাই প্রোডাক্ট বলবো না , বলবো নির্যাস।

আসলে ভালোবাসা ব্যাপারটাই যথেষ্ঠ রকমের জটিল । এ ভালোবাসা জড়িয়ে থাকতে পারে আকাশ-বাতাস, জল-স্থল, মাঠ-ঘাট, অন্দর-বাহিরের সব কিছুতেই । মানব-মানবীর ভালোবাসাকে বুঝতে না পারলে তা সন্দেহ-অবিশ্বাস-প্রতারণার জালে আটকা পড়তে পারে । অন্যত্র এমনটা হওয়ার সম্ভাবনা নেই । কারন একমাত্র মানুষ ছাড়া আর কেউ আপনার ভালোবাসা নিয়ে প্রশ্ন তুলবেনা । :D ;)





১৮| ১৫ ই মে, ২০১৭ দুপুর ২:৫৪

নতুন নকিব বলেছেন:



সেই গবেষনা!

ইউ ক্যান। ইউ ক্যান।

শুভেচ্ছা নিরন্তর।

১৬ ই মে, ২০১৭ সকাল ১১:২৩

আহমেদ জী এস বলেছেন: নতুন নকিব ,




এটা কোনও গবেষণাপত্র নয় । প্রতিদিনকার কথা একটু সাজিয়ে লেখা , এই আর কি !!

ইয়েস, উই ক্যান । উই ক্যান ওভারকাম সাম ডে.......................

শুভেচ্ছা আপনাকেও । ভালো থাকুন , থাকুন ভালোবাসায় ।

১৯| ১৫ ই মে, ২০১৭ বিকাল ৩:০১

অগ্নি সারথি বলেছেন: জটিল বিশ্লেষন। ভালোলাগা (এটাও ভালোবাসা কিন্তু)।

১৬ ই মে, ২০১৭ সকাল ১১:৪৫

আহমেদ জী এস বলেছেন: অগ্নি সারথি ,




জটিল নয় মোটেও সহজ-সরল বিশ্লেষন ।

ভালোলাগা হলো ভালোবাসার প্রথম ধাপটি । এই ধাপে পা রাখার জন্যে ধন্যবাদ ।

২০| ১৫ ই মে, ২০১৭ বিকাল ৪:৪৯

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: তার মানে হলো ভালোবাসা শব্দটা সত্যিই বেশ জটিল। আমি সাদা মনের মানুষ, এতো জটিলতা আমার মাথায় ঢুকবেনা এটাই তো স্বাভাবিক :-B

১৬ ই মে, ২০১৭ দুপুর ১২:৫৭

আহমেদ জী এস বলেছেন: সাদা মনের মানুষ ,




ভালোবাসা জটিল , আর সাদা মন বলে আপনার মাথায় ভালোবাসা ঢুকবেনা এটা ঠিক বলেন নি ।
এই যে আপনি এখান থেকে সেখানে বনেবাঁদাড়ে ঘুরে বেড়াতে ভালোবাসেন , সে ভালোবাসা কি জটিল ? এ ভালোবাসা তো আপনার প্রতিটি লোমকূপে লেগে আছে ।
তেমনি ঘুরে বেড়ানো আর তার ইতিহাস বয়ান করার তীব্র ভালোলাগা আপনার মতো আর একজন ব্লগার "জুন" এর অস্থিমজ্জায় ও আছে । এই ভালোবাসা তো অতি সহজ আর সরল-ই ।

সাদা মনেই একথা বললুম ।

২১| ১৫ ই মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:২০

মাঈনউদ্দিন মইনুল বলেছেন:
-আমার বাবার সাথে সাক্ষাৎ হলে শুধু বলো যে, তুমি আমাকে ভালোবাসো।
-না আমি পারবো না, কারণ আমি তোমাকে ভালোবাসি!

-মানে কী!! তাহলে কেন সেটি বলতে পারবে না।
-কারণ, তাতে তোমার বাবা আরও বেশি আগ্রাসী হয়ে যথাশীঘ্র অন্যত্র বিয়ের ব্যবস্থা করবেন। আমি তোমাকে ছাড়তে পারবো না, কারণ আমি তোমাকে ভালোবাসি...



ভালোবাসাবিদ জী এস ভাইয়ের জন্য এক টুকরো ভালোবাসা....

১৬ ই মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৫৯

আহমেদ জী এস বলেছেন: মাঈনউদ্দিন মইনুল ,



অনেকদিন পরে একটি উইটি উদাহরণ সহ সুইট একটি মন্তব্য দিয়ে গেলেন । একদম ত্রুটিহীন ভাবে " আমি তোমাকে ভালোবাসি"র বেফাঁস অর্থ হাতে ধরিয়ে দিলেন মনে হয় ! যার মানে দাঁড়ায় , কাগজে কলমে না হলেও মনে মনে যে ১০টি শুন্যস্থান পূর্ণ করেছেন তার কোনটিতেই আপনি একশতভাগ স্বচ্ছ নন । অথবা তেমন কিছুই বোঝাতে পারেন নি । :|

একটুকরো ভালোবাসা দিলেন মাত্র ? প্রান উজার করে ভালোবাসা দিলে কি আপনার ভালোবাসার ষ্টকে ঘাটতি পড়তো ? নাকি বাকীটা কোথাও সঁপে দেয়ার তালে আছেন , মুখোশ যখন পরেই ফেলেছেন ???? :P

অনেক অনেক ভালো লাগা বুদ্ধিদীপ্ত এই মন্তব্যে । ভালো থাকুন । ভালোবাসায় থাকুন ।

২২| ১৫ ই মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:৩৩

চাঁদগাজী বলেছেন:



ভালোবাসাই প্রাণী জগতকে প্রকৃতিতে টিকায়ে রেখেছে!

১৬ ই মে, ২০১৭ রাত ৮:২৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: চাঁদগাজী ,




ছোট্ট একটি বাক্যে জীবনের ধ্রুব সত্যটিই বলে গেলেন ।

ভালো থাকুন , থাকুন ভালোবাসায় ।

২৩| ১৫ ই মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৩৮

ঢাকাবাসী বলেছেন: আমার জন্য মনে হচ্ছে অনেক উঁচুমানের লেখা, খুব সুন্দর! এর বেশী আর কিছু বলতে পারবনা!

১৬ ই মে, ২০১৭ রাত ৮:৩৬

আহমেদ জী এস বলেছেন: ঢাকাবাসী ,



কি যে বললেন না !
আসলে মনে হয়, ভালোবাসার কথা শুনে লজ্জা পেয়ে উঁচুমানের কথা বলে এড়িয়ে গেলেন ! B-)

ভালো লাগলো আপনার মন্তব্য পেয়ে ।
ভালো থাকুন । শুভেচ্ছান্তে ।

২৪| ১৫ ই মে, ২০১৭ রাত ৮:০৬

নাদিম আহসান তুহিন বলেছেন: আহ ভালোবাসা

১৬ ই মে, ২০১৭ রাত ৯:০৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: নাদিম আহসান তুহিন ,




হুমমমমমমমমমমমমম... ভালোবাসার আহাজারি !
মন্তব্যের জন্যে ধন্যবাদ ।

২৫| ১৫ ই মে, ২০১৭ রাত ৮:০৮

নীলপরি বলেছেন: বিশ্লেষণটা পড়তে খুব ভালো লাগলো স্যর।

শুভকামনা। :)

১৬ ই মে, ২০১৭ রাত ৯:৩০

আহমেদ জী এস বলেছেন: নীলপরি ,




মন্তব্যের জন্যে অনেক ধন্যবাদ । তবে পরীর মতো শুধু উড়েই গেলেন, একটিখানি জিরোলেন না । :)

শুভকামনা আপনার জন্যেও ।

২৬| ১৫ ই মে, ২০১৭ রাত ৮:৩৭

সোহানী বলেছেন: ও মাই গড!!! ভালোবাসা দেখি মারাত্বক কম্লিকেটেড। আগে জানলেতো গবেষনা করে এ পথে পা বাড়ানোর চিন্তা করতে করতেই জীবন পার হয়ে যেত। ভাগ্যিস এতো বেশী জানতাম না।

হাহাহাহা... এটা বেশী পছন্দ হয়েছে..." যাকে আমরা এই দিনকালে “প্রেম-ভালোবাসা” বলছি তা আসলে “মোহ”, যেখানটা প্রান কিম্বা হৃদয় ছাড়া আর অনেক কিছু দিয়েই সাজানো । অনেকটা যেন হাইব্রীড হয়ে গেছে এর নান্দনিকতাও । গায়ে গতরে বেশ ভারী দেখালেও স্বাদ নেই, সুগন্ধ নেই । "

..... খুবই খাটিঁ কথা হাইব্রীড ভালোবাসা। কারন ভালোবাসার সাথে এখন তেল নুন পটলের হিসাব জড়িত... ভালোবাসা থেকে ভালো বাসা অনেক বেশী প্রয়োজনীয় ও আকর্ষনীয় । ভালোবাসার কম্বিনেশান বা নান্দনিকতা এখন দামী গিফ্ট, ফেইসবুকে ছবি পোস্ট বা তারচেয়েও বেশী শারীরিক সম্পর্কে জড়িয়ে গেছে..... থাক থাক এতো চিন্তা করে কাজ নেই, আদার ব্যাপারীর জাহাজের খোঁজ নিয়ে কাজ নেই।

সুপার ডুপার লাইক হেনা ভাইয়ের মন্তব্যে................ আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: ইয়া আল্লাহ! ভালোবাসা মানে এত কিছু? আমি যখন ভালবাসাবাসি করেছিলাম, তখন তো জানতাম ভালোবাসা মানে প্রেম, আর প্রেম মানে একজন নারী আর একজন পুরুষের মধ্যে ফষ্টি নষ্টি সম্পর্ক, আর ফষ্টি নষ্টি সম্পর্ক মানে বিয়ে করা, আর বিয়ে করা মানে বাচ্চা কাচ্চা হওয়া, আর বাচ্চা কাচ্চা হওয়া মানে ভালোবাসার দি এন্ড। হাঃ হাঃ হাঃ।

১৬ ই মে, ২০১৭ রাত ৯:৪৮

আহমেদ জী এস বলেছেন: সোহানী ,




এতো বেশী জানতেন না বলেই অনেক বেশী প্রয়োজনীয় ও আকর্ষনীয় একটি ভালো বাসা পেয়েছেন । জানলে , ভালোবাসা মোরে ভিখারী করেছে ..... গাইতে গাইতে জানটা তেলেসমাৎ হয়ে যেতো । :((
এমন ভালোবাসা একটা কিনলে কি দুইটা ফ্রি পাওয়া যেতো ? B-)

বিশদ মন্তব্যে ধন্যবাদ ।
ভালো থাকুন , ভালোবাসায় থাকুন ।

২৭| ১৫ ই মে, ২০১৭ রাত ৯:১৫

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: অনেক ভালো লাগার একটা পোষ্ট

১৬ ই মে, ২০১৭ রাত ১০:২১

আহমেদ জী এস বলেছেন: ফরিদ আহমদ চৌধুরী ,




ভালোবাসা পোস্ট ভালো লাগায় ভালো লাগলো ।
শুভেচ্ছান্তে ।

২৮| ১৫ ই মে, ২০১৭ রাত ৯:৪০

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: চমৎকার বিশ্লেষণ !!!

১৬ ই মে, ২০১৭ রাত ১০:৪৫

আহমেদ জী এস বলেছেন: গিয়াস উদ্দিন লিটন ,



চমৎকার বলাতে ধন্যবাদ ।
তবে আপনার মতো রসে ভরা একজন আরো কিছু চমৎকার বলতে পারতেন ভালোবাসা নিয়ে ।
ভয় পেয়েছেন কি , হাটে হাড়ি ভাঙবে বলে ? :P

শুভেচ্ছান্তে । ভালোথাকুন । ভালোবাসায় থাকুন ।

২৯| ১৫ ই মে, ২০১৭ রাত ১০:২৪

মনিরা সুলতানা বলেছেন: ভালোবাসার লেখায় ভালোবাসা !!

১৬ ই মে, ২০১৭ রাত ১১:০৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: মনিরা সুলতানা ,




অনেকদিন পরে আপনাকে দেখলুম ।
ভালোবাসার লেখায় ভালোবাসা জানিয়ে গেলেন দেখে ভালো লাগলো ।
শুভেচ্ছান্তে ।

৩০| ১৫ ই মে, ২০১৭ রাত ১০:২৬

আমি একলা পথিক বলেছেন: নিজের আমিকে (ইগো) অন্যের মাঝে বিলীন করে দেয়াই ভালোবাসার প্রথম শর্ত ।
আবার অবিচ্ছেদ্য হলেই গাঢ় বা সত্যিকার ভালোবাসা হয়না । বিচ্ছেদের পরেও দু’জনে দু’জনার প্রতি বিশ্বাসে অবিচ্ছেদ্য হলেই তবে তা হয় ।

ভালোবাসার এত সুন্দর চমৎকার বিশ্লেষণ এর আগে কখনো পড়িনি...
অনেক অনেক ভাল লাগল..
আহ ভালোবাসা তোর কতই না রূপ ...

১৬ ই মে, ২০১৭ রাত ১১:১১

আহমেদ জী এস বলেছেন: আমি একলা পথিক ,




আমার ব্লগে ভালোবাসার সাথে স্বাগতম ।

উদ্ধৃত অংশটুকু আপনার ভালো লেগেছে জেনে খুশি হলুম ।
সুন্দর ও প্রেরণাদায়ক এই মন্তব্যে ধন্যবাদ ।
ভালো থাকুন , থাকুন ভালোবাসায় ।

৩১| ১৫ ই মে, ২০১৭ রাত ১১:০৭

অরফিয়াস বলেছেন: কাইন্ডস অব লভ
রোমান্টিক লভ, “কনজ্যুমেট লভ”, লাইকিং, কমপ্যাশনেট লভ, ইম্পটি(শুন্য) লভ, ফ্যাটিউঅ্যাস লভ , ইনফ্যাচুয়েশান বা মোহাচ্ছন্ন হওয়া

ওএমজি!!!!!!!!!!!!

জানাছিল না ব্রো!!!

অবশ্যই ফেবুলাস পোস্ট!!!

প্লাস এবং প্রিয়তে!:)

১৭ ই মে, ২০১৭ সকাল ১০:৪৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: অরফিয়াস ,





মানুষের মনের এইসব জটিলতা, চক্কর, ঘোরপ্যাচ ঐ গড এরই সৃষ্টি । তাই ওএমজি!!!!!!!!!!!! বলাটা ঠিক আছে । ;)

অরফিয়াসের মতোই বাঁশি বাজিয়ে গেলেন প্লাস এবং প্রিয়তে নিয়েছেন বলে ।
ভালোথাকুন । থাকুন ভালোবাসায় ।

৩২| ১৬ ই মে, ২০১৭ রাত ১২:২৫

সচেতনহ্যাপী বলেছেন: কারন ভালবাসার অর্থটাই ক্ষেত্রবিশেষে ভিন্ন অর্থে ধরা দেয়।। যেমন সন্তানের প্রতি, স্ত্রীর প্রতি, আবার ভাই-বোনদের প্রতি ভালবাসাটা অনুভবে একই কিন্তু প্রকৃতিতে ভিন্ন।। যেমন চুম্বনের ক্ষেত্রে।।
তবে আমি মনে করি, এর পকাশ প্রকাশ্যে নয়, অনুভবে।। আপনার ব্যাবহার-কর্মেই এটা প্রস্ফুটিত।। যে জন্য সত্যিকারের ভালবাসায় এর বলে জানানোর প্রশ্নই উঠে না।। অন্তর্নীহিত বিশ্বাসেই এর ভিত্তি।।

১৭ ই মে, ২০১৭ সকাল ১১:১৩

আহমেদ জী এস বলেছেন: সচেতনহ্যাপী ,




চমৎকার বলেছেন , অন্তর্নিহিত বিশ্বাসই ভালোবাসার ভিত্তি। এর প্রকাশ প্রকাশ্যে নয়, অনুভবে।
একখানা প্রেমময় মন থাকলেই এরকমটা অনুভব করা যায় ।

শুভেচ্ছান্তে ।

৩৩| ১৬ ই মে, ২০১৭ রাত ১২:৪৬

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: লভ এন্ড রোমান্স নিয়ে প্রবন্ধটি মনযোগ দিয়ে পড়লাম । ভালবাসা নিয়ে ব্যাস্টিক , সামস্টিক , ও বিভিন্ন ডিসিপ্লিন তথা , দর্শন , ইতিহাস , সমাজতত্ব, মন্সতাত্বিক , এমনকি চিকিৎসা শাস্রীয় বিষয়াদি চমৎকার ভাবে উঠে এসেছে , এর সাথে প্রাসঙ্গীক ক্ষেত্রে সাহিত্য ও কাব্যিক কথামালা ও বিখ্যাত পংক্তিমালা লেখাটিকে করেছে সরস যা পাঠকে মন্ত্রমুগ্ধের মত শুধু সন্মুখপানেই টেনে নিয়ে গেছে আরো জানার লক্ষ্যে :)

লেখাটির শুরুতেই প্রশ্ন ও উত্তরের মাধ্যমে লেখাটির সাথে পাঠকের মনোগতের একাত্বতা সৃজনের অপুর্ব পদ্ধতিটি ভালবাসা সম্পর্কিয় তাত্বিক আলোচনায় একটি গুরুত্বপুর্ণ মেথডলজি হিসাবে এ বিষয়ে গবেশনা কর্মে আগ্রহীদের নিকট একটি অনুকরনীয় পদ্ধতি হয়ে থাকবে বহুদিন ধরে এটা হলফ করে বলতে পারি ।

ভালবাসার বিষয়টির বহুমাত্রিক ব্যপকতার জন্য এটা এখন দর্শন , ইতিহাস , সমাজতত্ব, মস্সতাত্তিক , চিকিৎসা শাস্রীয় বিষয়াবলীতে একটি গরুত্বপুর্ণ একাডেমিক বিষয় হিসাবে পরিগনিত । এমনকি ভালবাসার অর্থনেতিক ও গানিতিক বিষয়াবলিও এখন বিভিন্ন শাস্রীয় আলোচনায় উঠে আসছে । তাই বিভিন্ন দৃষ্টিকোন থেকে লভ এন্ড রোমান্স লিখাটির বিশ্লেষনাত্বক বিস্তারিত আলোচনা মনযোগ আকর্ষন করেছে ।

প্রেম বা ভালোবাসার তাত্ত্বিক অর্থ এত বিস্তৃত এবং গভীর যে, ব্যাখ্যা না দিয়ে সংজ্ঞার সীমাবদ্ধতার মধ্যে এর বিভিন্নমুখী তাৎপর্যকে তুলে ধরা প্রায় অসম্ভব বলেই এতদিন জানতাম । সম্ভবত এর বহুমাত্রিক জটিলতার কারণেই ভালোবাসার সংজ্ঞা নিয়ে অধিকাংশই তেমন মাথা ঘামাননি। ভালোবাসা কি এ সম্পর্কে কোনো উল্লেখযোগ্য অকাট্য মতবাদও পাওয়া যায়নি। অনেকের কাছেই শুনতাম বস্তুর গুণ যেমন ভাবের বিষয়, তেমনি ভালোবাসা এবং সুখ ভাবের বিষয় হলেও ভালোবাসা হচ্ছে বৈষয়িক ও সুখ হচ্ছে আধ্যাত্মিক। ভালোবাসা এমন একটি ভাবার্থক শব্দ যার তুলনা শুধু আয়নার সঙ্গেই চলে। আয়নার সামনে যে যেভাবে দাঁড়ায় তার প্রতিবিম্ব এবং রূপ ঠিক সেভাবেই ফুটে ওঠে। আয়নার কাছে ব্যক্তির সৌন্দর্যের যেমন কোনো পক্ষপাতিত্ব নেই, ভালোবাসা শব্দের ক্ষেত্রেও তাই। ভালোবাসা শব্দ জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবার কাছে সমান। পার্থক্য এই যে, ভিন্ন ভিন্ন ব্যক্তির ক্ষেত্রে ভালোবাসার তাত্ত্বিক অর্থ ভিন্ন হয়ে থাকে। যেমন মা ছেলেকে ভালোবাসে, বাবা মেয়েকে ভালোবাসে, ভাই বোনকে ভালোবাসে, স্বামী স্ত্রীকে ভালোবাসে, প্রেমিক প্রেমিকাকে ভালোবাসে। ব্যক্তি, বস্তু, প্রাণী এবং স্রষ্টা সবার প্রতি সবার ভালোবাসার তাত্ত্বিক অর্থ এক নয়। ভালোবাসার দাবি বিভিন্ন প্রকৃতির। এত সব জটিলতার কারণেই সম্ভবত ভালোবাসার সঠিক সংজ্ঞা এতদিন কোথাও ভাল করে পাইনি যদিও ভালোবাসা সম্পর্কে বিভিন্ন মনিষীরা কম-বেশি চিন্তা করেছেন এবং তাঁদের নিজস্ব ধ্যান-ধারণার কথাও ব্যক্ত করেছেন। অবশ্য এ ক্ষেত্রে আমার পাঠ কিংবা জ্ঞানের সীমাবদ্ধতাই বেশী দায়ী ।

তবে এখানে ও পোষ্টের লেখাটিতে জ্ঞান বিজ্ঞানের বিভিন্ন ডিসিপ্লিন হতে প্রাসঙ্গীক কথা ও ধারনা সমুহ বিশ্লেষন করে সেসাথে বিভিন্ন মনিষীদের কথাগুলিকে সমন্বয় করে নিজস্ব চিন্তা চেতনায় ও বিশ্লেষনে লভ এন্ড রোমান্স সম্পর্কে লিখিত রচনাটি কালের ইতিহাসে ও বাংলা সাহিত্যে একটি মাইল ফলক হয়ে থাকবে বলে আমি মনে প্রাণে বিশ্বাস করি ।

কত সুন্দর করেই না এ পোষ্টের লেখায় বলা হয়েছে ভালোবাসা হলো সম্ভাব্য মাত্রার সব্বোর্চ্য অর্থ নিয়ে ভরপুর, তরঙ্গায়িত এক ভাষা । এর দেশ, কাল , পাত্র নেই । নেই বর্ণ, নেই জাত । ভালোবাসা হতে পারে বিভিন্ন ধরনের , এটা প্রসারিত হতে পারে, আবরিত হতে পারে , লতিয়ে উঠতে পারে জাগতিক যে কোনও কিছুর শরীর-মন ঘিরে হতে পারে , উদাহরণ টানা হয়েছে বিখ্যাত কবিদের কবিতার কথামালা হতে , এ যেমন চিত্তাকর্ষক তেমনি উচ্চমার্গের তথ্যে ভরপুর এক অসাধারণ রচনা । শুধু মানুষ নয় , জড় , অজর ও পাকৃতিক বিষয়াবলীও উঠে এসেছে ভালবাসার আলোচনার গন্ডির ভিতরে । কি নেই তাতে ,সুন্দরের প্রতি আমাদের সকল ভালোবাসাকে অতিক্রম করে তা লুটিয়ে পড়েছে প্রকৃতির অসুন্দরতা ও ক্ষেত্র বিশেষে অপূর্ণতার প্রতিও । ভালোবাসার প্রকাশটিও যে সাধারন থেকে হতে পারে উচ্চাঙ্গের তাও উঠে এসেছে লেখাটির ভিতরে । আবার পাত্র ভেদে এর ভেতরে থাকতে পারে ভরসার জায়গাটি, থাকতে পারে নিরাপত্তাবোধের নিশ্চয়তা সবই উঠে এসেছে একে একে । এখানে চয়নকৃত শেরটিও হয়েছে বেশ উপভোগ্য
দোস্তি সোঁচ হ্যায়, আওয়াজ নহী ।
দোস্তি কী জজবো কো,
কোই আঁখো সে দেখ সেকতা নহী
কিঁউকি দোস্তি এহসাস হ্যাঁয়, আন্দাজ নহী ।


ভালোবাসার ধারা গুলি যথা ইরোস (Eros) ষ্টোর্জ (Storge) ফিলিয়া ( philia) এ্যাগেপ(agape) প্রভৃতির আলোচনা লেখাটিকে দিয়েছে ভিন্ন মাতৃকতা । ভালোবাসার শ্রণীকরণ নিয়ে আলোচনায় ভালবাসাতে দার্শনিক ফ্রয়েড সাহেবের কামগন্ধ অবতারনা বেশ দৃষ্টি আকর্ষন করেছে ।

সাইকোলোজিষ্ট রবার্ট ষ্টার্ণবার্গ এর ভালবাসার ত্রিভুজ থিওরীর সচিত্র দৃশ্য সম্বলিত প্যাশন , অন্তরঙ্গতা, আর কমিটমেন্ট এর তিনটি বাহু দিয়ে ভালোবাসার ঘর বাধার কথামালা তরুন তরুনীদেরকে প্রেমে পড়ার আগে কিংবা পরের অনেক কিছু ভাবতে শিখাবে তাতে কোন সন্দেহ নাই ।

ভালবাসা নিয়ে যদিও এখনো কোন ভাল সংজ্ঞা নেই তথাপি এটা সুন্দর বলেছেন যে, যে যা্-ই বলুক আসলে সত্যিকারের ভালোবাসা এক ও একক, নির্দোষ, অবিচল , স্বয়ংসিদ্ধ, অক্ষয় এক মানসিক অনুভূতি । সকল ভালোর সমন্বয়, একটি সুর । বিশ্বাস এর মূল উপাদান । রোমান্স যে ভালোবাসার উপস্থাপনার ঢং তাও তুলে ধরা হয়েছে চমৎকারভাবে , ভালোবাসা যদি হয় নিভৃত এক ফল্গুধারা , তবে রোমান্স তার বয়ে যাওয়ার কুলুকুলু ধ্বনি মনে হল দারুন একটি প্রবচন পেয়েছে গতি লেখাটির বুকে ধারণ করে ।

একটি অতি সত্য কথা বলেছেন ভালোবাসা কথা বলাটা যতোটা সহজ , বোঝানো লক্ষকোটি গুন কঠিন , ঠিক তেমনি এ লেখাটির গুনাগুন প্রকাশ করাটাও আমার জন্য আরো বেশী কঠীন , পড়তে হবে আরো বহুবার, তাই একে বগল দাবা করে নিয়ে গেলাম প্রিয়ের ঘরে, মাঝে মাঝে বের করে দেখব সখি ভালবাসা কারে কয়.. :)

অনেক অনেক শুভেচ্ছা রইল

১৭ ই মে, ২০১৭ দুপুর ১:২৯

আহমেদ জী এস বলেছেন: ডঃ এম এ আলী ,




মন্তব্যের বিশাল পরিধির প্রথমাংশে উচ্চারিত বক্তব্যে আপনার পান্ডিত্য , মধ্যাংশে এই লেখাটির অযাচিত প্রশংসা, শেষাংশে পোস্টের বক্তব্যের আলোচনার সৌগন্ধে মুগ্ধ ।

ভালোবাসা কথা বলাটা আসলেই সহজ কোন কাজ নয় । কতো কঠিন তার মেজাজ, এটা বোঝাতেই শুরুতে পাঠককে বলেছি --- এই পোস্টটি পড়ার আগে কাগজ, কলম নিন । নীচের শূন্যস্থান যুক্ত বাক্যটি লিখুন ১০ বার । তারপর শূন্যস্থানগুলো পূর্ণ করুন -
“যখন ‘আমি তোমাকে ভালোবাসি’ বলি তখন আমি তোমাকে বোঝাতে চাই যে --------- ”

এই শূন্যস্থানগুলোতে দেয়া উত্তর থেকে দর্শন , ইতিহাস , সমাজতত্ব, মনস্তাত্বিক , চিকিৎসা শাস্ত্রীয় বিষয়াবলীর পাঠ বাদেই পাঠক নিজেই বিচার করে দেখলে বুঝতে পারবেন, “ আই লাভ য়্যু ” বা ‘আমি তোমাকে ভালোবাসি’ কথাটি কতো কঠিন ।!

মন্তব্যে ধন্যবাদ । ভালো থাকুন আর সাথেই থাকুন ।

৩৪| ১৬ ই মে, ২০১৭ রাত ১:৩২

উম্মে সায়মা বলেছেন: চমৎকার ভালোবাসাময় পোস্ট আহমেদ জী এস ভাই। ভালোবাসা নিয়ে একেবারে গবেষণা! বিভিন্ন মতে ভালোবাসার এমন শ্রেণিভেদ এমন সুবিন্যস্তভাবে জানা ছিলনা। জেনে ভালো লাগল। প্রিয়তে নিলাম।
গায়ে গতরে বেশ ভারী দেখালেও স্বাদ নেই, সুগন্ধ নেই
আসলেই এখন সব কেমন যেন মেকি। আগের যুগের লাভ স্টোরিগুলো শুনলেও কেমন একটা ভালো লাগে। আর এখন......
ধন্যবাদ ভাই সুন্দর একটি পোস্ট উপহার দেয়ার জন্য। শুভেচ্ছা রইল।

১৭ ই মে, ২০১৭ রাত ৮:১১

আহমেদ জী এস বলেছেন: উম্মে সায়মা ,




গবেষণা করার মতো জ্ঞান-প্রজ্ঞা-বুদ্ধি নেই আমার মোটেও । এটা তাই গবেষনা পত্র নয় । স্রেফ লেখার নেশায় লিখে যাওয়া । ঠেকে গেলে কোনও তথ্য বা ত্ত্ত্ব ভান্ডারে চুপিচুপি ঢুকে পরা । নিজের ভাবনার সাথে মিলিয়ে দেখা ।

"আগের যুগের লাভ স্টোরিগুলো শুনলেও কেমন একটা ভালো লাগে। আর এখন......" হুমমমম ওল্ড ইজ গোল্ড ।

প্রিয়তে নেয়ার জন্যে অশেষ ধন্যবাদ । আর সব সময় সাথে থেকে উৎসাহ দিয়ে যান বলে কৃতজ্ঞ ।
শুভেচ্ছান্তে । ভালো থাকুন ।

৩৫| ১৬ ই মে, ২০১৭ রাত ১:৩৪

কানিজ রিনা বলেছেন: ভালবাসা শ্রদ্ধা মায়া মমতা স্নেহ আন্তরিকতা
হৃদ্বতা আরও অনেক মিলেই ভালবাসা।
আত্ব্যিয় সজন পারিপার্শীক প্রতিবেশী বন্ধু
বান্ধব মা বাবা ভাই বোন সন্তান সবাইকে
ভালবাসাই মানুষের মানব রুপের বহিরপ্রকাশ।

এখন প্রেমিক প্রেমিকা যদি ভালবাসার
আহব্বান করে অন্তর আত্ব্যায় একজন আরেক
জনকে চায় সেটা হল প্রেম। সকল প্রকার
ভালবাসা বিশ্বাস দিয়ে একজনকে ভালবাসার
নাম প্রেম। শুধু দৈহিক আবেগ মোহ দিয়ে
ভালবাসা ক্ষনস্থায়ী।
অনেককে ভালবাসা যায় কিন্তু অনেক প্রেম
হয়না। চন্দ্র একটি সুর্য একটি আকাশ একটি
সমগ্র পৃথিবী একটি অন্তর বা আত্ব্যা যার যার
একটি, তাই প্রেম একটি আল্লাহ্ একজনই।
প্রেমের প্রতি রুপ পরম। আমি এটুকুই বুঝি।
কেউ কেউ অসংখ্য একের পর এক ভালবাসা
বদলায় বা দৈহিক মোহয় গা ভাসিয়ে আনন্দ
করে ভাবে এটাই পুরুষত্ব যতক্ষন যৌবন
আছে। এটা কোনও মনুষত্ব্য না কুকুরত্ব্য।
আসলে আপনার বিশতমো অধ্যায় টা আসল
সত্য। অসংখ্য ধন্যবাদ বিশ্লেশন দিয়ে বুঝানোর
জন্য। শুভ কামনা,

১৭ ই মে, ২০১৭ রাত ৮:৪৮

আহমেদ জী এস বলেছেন: কানিজ রিনা ,




খুব সুন্দর এই মন্তব্যের জন্যে অশেষ ধন্যবাদ । প্রেম -ভালোবাসা নিয়ে আপনার ভাবনা যথার্থ ।
শুভেচ্ছান্তে । ভালো থাকুন ।

৩৬| ১৬ ই মে, ২০১৭ রাত ২:৪৭

কল্লোল পথিক বলেছেন:

কেমন আছেন ভাই সাহেব?
জটিল বিশ্লেষণ, এ যেন ভালোবাসার ব্যবচ্ছেদ!

১৭ ই মে, ২০১৭ রাত ৯:২৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: কল্লোল পথিক ,




আসলেই ভালোবাসার ব্যবচ্ছেদ ! বোঝাতে চেয়েছি আমরা যাকে ভালোবাসা বলে আমোদিত হই তার অনেকটাতেই ফাঁকা, আত্মার সংযোগহীন । রকমফের এর বালাই তো আছেই !

ভালো না থাকলে কি আর ভালোবাসা নিয়ে লেখা যায় ?
আপনিও নিশ্চয়ই ভালো আছেন ?
শুভেচ্ছান্তে ।

৩৭| ১৬ ই মে, ২০১৭ রাত ৩:০৪

ওমেরা বলেছেন: ভালবাসার বিশ্লেষন পোষ্টে ভালবাসাপূর্ণ ধন্যবাদ ভাইয়া ।

১৭ ই মে, ২০১৭ রাত ১০:০৯

আহমেদ জী এস বলেছেন: ওমেরা ,





ভালোবাসাপূর্ণ ধন্যবাদ দেয়াতে ভালো লাগলো ।

সাথেই থাকুন আর ভালো থাকুন ।
শুভেচ্ছান্তে ।

৩৮| ১৬ ই মে, ২০১৭ সকাল ৯:৪৭

আরিফ শাহরিয়ার জয় বলেছেন: সুন্দর পোষ্ট। প্রিয় তে জায়গা

১৭ ই মে, ২০১৭ রাত ১০:২৬

আহমেদ জী এস বলেছেন: আরিফ শাহরিয়ার জয় ,




সম্ভবত আমার ব্লগে এই আপনার প্রথম আসা । স্বাগতম ।
মন্তব্যে ধন্যবাদ ।
প্রিয়তে জায়গা দিয়েছেন বলে কৃতজ্ঞ ।
সাথেই থাকুন । থাকুন ভালো ।

৩৯| ১৬ ই মে, ২০১৭ সকাল ১০:৫৪

মানবী বলেছেন: প্রেম ভালোবাসা নিয়ে বিশদ আলোচনা ভালো লেগেছে পড়ে।

ধন্যবাদ আহমেদ জী এস।

২১ শে মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৫৭

আহমেদ জী এস বলেছেন: মানবী ,




প্রথমেই অনিবার্য কারণ বশতঃ দেরীর জন্যে ক্ষমা যাচনা করছি ।

হরওয়াক্ত মুখে ফেনা তুলে ফেলা একটি ফালতু বিষয়ের উপর এই দীর্ঘ লেখাটি পড়ে আপনার ভালোলাগা জানিয়ে গেলেন দেখে ভালো লাগলো ।
ভালো থাকুন ।
শুভেচ্ছান্তে ।



৪০| ১৬ ই মে, ২০১৭ দুপুর ১২:২০

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: ভালবাসার উইকি :)

অসাধারন বিশ্লেষনে মুগ্ধতা!

+++++++++

২১ শে মে, ২০১৭ রাত ৮:২০

আহমেদ জী এস বলেছেন: বিদ্রোহী ভৃগু ,




ভালবাসার উইকি ?
তাহলে আর চাই কি ??
এই নিয়ে পড়ুন ঝাঁপিয়ে
ভালোবাসুন দুনিয়াটা কাঁপিয়ে......... B:-)

দেয়াতে প্লাস
করেছি ব্লাস..

ভালোবাসার কথামালা আপনার ভালো লেগেছে জেনে ভালো লাগলো । শুভেচ্ছান্তে ।
অনিবার্য কারণে দেরীর জন্যে দুঃখিত ।

৪১| ১৬ ই মে, ২০১৭ বিকাল ৫:৪৬

ভ্রমরের ডানা বলেছেন:

প্রেমের বিশুদ্ধতর রস এই পংকিল মনে কবে জল এনে দেবে সে অপেক্ষায় এই গানটি মনে বেজে উঠল-



এ মণিহার আমায় নাহি সাজে-
এরে পরতে গেলে লাগে, এরে ছিঁড়তে গেলে বাজে ।।
কন্ঠ-যে রোধ করে, সুর তো নাহি সরে-
ওই দিকে যে মন প'ড়ে রয়, মন লাগে না কাজে ।।
তাই তো বসে আছি,
এ হার তোমায় পরাই যদি তবেই আমি বাঁচি ।
ফুলমালার ডোরে বরিয়া লও মোরে-
তোমার কাছে দেখাই নে মুখ মণিমালার লাজে ।।

২১ শে মে, ২০১৭ রাত ৯:০৩

আহমেদ জী এস বলেছেন: ভ্রমরের ডানা ,




মরমীয়া কবি ঠিকই বলেছেন ----ওই দিকে যে মন প'ড়ে রয়, মন লাগে না কাজে ।

প্রেম-ভালোবাসা এমনিই , চাইলেই ধরা দেয়না আবার না চাইলেও দুয়ারে এসে হাজির ! শুধু জানতে হয়, কখন এসে কারো দুয়ার মরুপ্রান্তে তা ভিরু পায়ে দাঁড়িয়ে আছে চুপিচুপি। সে কথা যদি বাতাস না বলে দেয় তবে অপেক্ষায় অপেক্ষায় কাটিয়ে দিতে হবে সারাটি জীবন !

৪২| ১৬ ই মে, ২০১৭ রাত ৮:১৫

কথাকথিকেথিকথন বলেছেন:
আমি ভালোবাসি নক্ষত্র হতে, দূর থেকে পৃথিবী দেখবো
সবাই একসাথে হয়তো আমার মত- নক্ষত্র রূপে !

২১ শে মে, ২০১৭ রাত ৯:৪৬

আহমেদ জী এস বলেছেন: কথাকথিকেথিকথন ,




হুমমমমমম.......... বুঝেছি , শরৎবাবু খারাপ বলেন নি - বড় ভালোবাসা শুধু কাছেই টানেনা দুরেও ঠেলে দেয় ।
আপনিও তাই নক্ষত্র হয়ে দুর থেকেই পৃথিবীটাকে ভালোবাসার চোখে দেখতে চাইলেন !

৪৩| ১৬ ই মে, ২০১৭ রাত ১০:৩১

শাহরিয়ার কবীর বলেছেন:
ভাইজান, ভালোবাসা নিয়ে অসাধারন বিশ্লেষন করেছেন । শুধু পড়ে গেলাম ও জেনে রাখলাম কিন্তু সত্যিকারের ভালোবাসা আসলে কি তা আজও অনুভব করতে পারলাম না। :|
আর, এই ভালোবাসা কারণে কেউ হয়ে গৃহত্যগী আবার কেউ বা দেশত্যাগী, আবার কেউ, কেউ দিয়েছে নিজের আত্নহুতী, আর আমি হয়েছি শখের বশে কবি । সত্যিইকারের অর্থে যদি কোন নায়িকা থাকতো। তাহলে খানিক কষ্ট পেতাম আর ভালোবাসার মর্মকথা উ্ত্তম রুপে বুঝতাম, তখন আরো ভালো কবিতা লিখতে পারতাম B-)


কারন, কোকেন গ্রহনে আপনার মস্তিষ্ক থেকে যেমন “ ডোপামিন” নামের একটি হরমোন নিঃসৃত হয় এবং একটি সুখানুভূতিময় আবেগ সৃষ্টি করে তেমনি প্যাশনেট লভ এর সময় আপনার মস্তিষ্ক থেকে এই “ ডোপামিন” টিই নিঃসৃত হয়ে থাকে । এ ধরনের ভালোবাসা সাধারনত স্বল্পমেয়াদী । যার পরিনতিতে অনেক সময় আপনাকে গাইতে হয় - “ তুমি অনেক যত্ন করে আমায় দুঃখ দিতে চেয়েছো..............”

ভালাবাসা হল মানব দেহের হরমনের খেলা মাত্র, বুঝলাম । আচ্ছা ভাই, এখানে আমার প্রশ্ন “ডোপামিন হরমোন” কি অতিরিক্ত নিঃসৃরণের ফলে এমন হয়ে না, কম ? বা মাত্রারিক্ত বা স্বল্প নিঃসৃরণের রোধে প্রাকৃতিক ভাবে কোন এন্টি ব্যবস্থা আছে কিনা ?


ধন্যবাদ,
ভালো থাকুন।

২২ শে মে, ২০১৭ রাত ৯:৫২

আহমেদ জী এস বলেছেন: শাহরিয়ার কবীর ,





সত্যিকারের ভালোবাসা আসলে কি তা অনুভব করতে কি করে পারবেন ?? ;) পারার কারন নেই ।
মনযোগ দিয়ে পোস্ট পড়েননি বোঝা গেল । :( পড়লে দেখতে পেতেন লেখা আছে --- "এখনকার যুগে ভালোবাসার এইসব ধারনা পাল্টেছে । লাইলি-মজনু , শিরী-ফরহাদ কিম্বা রোমিও-জুলিয়েটদের দিন পার করে, কেয়ামত সে কেয়ামত তক হয়ে আসা প্রেম-ভালোবাসা, আজ আর ডুব-সাতার দিয়েও খুঁজে পাওয়া যাবেনা । প্রেম-ভালোবাসায় সেদিনের সেই লালিত্য আজ যান্ত্রিকতার যাতাকলে পড়ে কর্পোরেট মানসিকতার খোলসে শুধু “গিভ এ্যান্ড টেক” হিসেবে বাজারজাত হয়ে গেছে । যাকে আমরা এই দিনকালে “প্রেম-ভালোবাসা” বলছি তা আসলে “মোহ”, যেখানটা প্রান কিম্বা হৃদয় ছাড়া আর অনেক কিছু দিয়েই সাজানো । অনেকটা যেন হাইব্রীড হয়ে গেছে এর নান্দনিকতাও । গায়ে গতরে বেশ ভারী দেখালেও স্বাদ নেই, সুগন্ধ নেই । "

আর শেষের তিন লাইনের প্রশ্নটির জবাব আসছে । যাতে কবিতা কি করে, মস্তিষ্কের কোথায় লেখা হয় তার হদিশ পাবেন । আর না পেলেও ক্ষতি নেই - আইজ কাইলকার ডিজিটাল প্রজন্মের ডোপামিন সব সময় তুঙেই থাকে । ডোপামিন এর ষ্টক সব সময় ফুল, এন্টিতেও কাজ হয়না । B:-/ :-P

শুভেচ্ছান্তে ।

৪৪| ১৬ ই মে, ২০১৭ রাত ১০:৫২

অশ্রুত প্রহর বলেছেন: ভালবাসার বাস্তবতা!!! ভাল লিখেছেন ভাই। :)

২২ শে মে, ২০১৭ রাত ১০:৪২

আহমেদ জী এস বলেছেন: অশ্রুত প্রহর ,




অনেক ধন্যবাদ মন্তব্যের জন্যে ।
ভালো থাকুন , ভালবাসার বাস্তবতায় থাকুন ।

৪৫| ১৭ ই মে, ২০১৭ বিকাল ৪:১৭

শামছুল ইসলাম বলেছেন: ভালো একটা বাসা খুঁজতে খুঁজতে ব্লগে এসে দেখি আহমেদ জী এস ভাই বিশাল এক পোস্টই দিয়ে ফেলেছেন "ভালোবাসা" নিয়ে । অপার মুগ্ধতা ।

২২ শে মে, ২০১৭ রাত ১১:১৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: শামছুল ইসলাম ,




ভালো একটা বাসার সাথে ভালোবাসাও মিলে গেলে মুগ্ধ তো হতেই হয় !
ভালো লাগলো আপনার মন্তব্যখানি ।

ভালোবাসাতেই থাকুন । শুভেচ্ছান্তে ।

৪৬| ১৮ ই মে, ২০১৭ রাত ১১:০১

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: ভালবাসা নিয়ে বিশ্লেষণ ধর্মী পোস্টে ভাললাগা । বলাবাহুল্য পুরোটা পড়িনি । পড়ব ।

২৩ শে মে, ২০১৭ রাত ৮:১১

আহমেদ জী এস বলেছেন: সেলিম আনোয়ার ,




অনিবার্য কারণে দেরীতে জবাব দিচ্ছি বলে দুঃখিত । ভালো লেগেছে বলার জন্যে ধন্যবাদ ।
পড়েছেন কি ?

৪৭| ২০ শে মে, ২০১৭ বিকাল ৫:৩০

আমি ইহতিব বলেছেন: ভালোবাসার আদ্যোপান্ত। মুগ্ধ হয়ে পড়লাম না পড়ে মুগ্ধ হলাম বুঝতে পারছিনা। সরাসরি প্রিয়তে যাওয়ার মত একটি পোস্ট।

২৩ শে মে, ২০১৭ রাত ৯:৫৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: আমি ইহতিব ,




এমন মন্তব্যে মুগ্ধ করে রাখলেন ।

লিখেছেন -" মুগ্ধ হয়ে পড়লাম না পড়ে মুগ্ধ হলাম বুঝতে পারছিনা।"
হয়তো দু'টোই । এটা লেখকের বড় প্রাপ্তি । ধন্যবাদ ।

ভালো থাকুন । শুভেচ্ছান্তে ।

৪৮| ২১ শে মে, ২০১৭ সকাল ১০:১৮

নায়না নাসরিন বলেছেন: প্রিয় ব্লগার,
ভালোবাসার ইতিহাসে মুগ্ধ এক পাঠিকার ভালোবাসা জানবেন :)
+++++

২৩ শে মে, ২০১৭ রাত ১০:৪৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: নায়না নাসরিন ,




আসলে লেখাটি ভালোবাসার ইতিহাস নয় , সব রকমের ভালোবাসা সম্পর্কে আমাদের ধ্যানধারনার বয়ান মাত্র ।

মুগ্ধ এক পাঠিকার ভালোবাসা বিনম্র চিত্তে গ্রহন করা হোল ।
ভালো থাকুন , ভালোবাসায় থাকুন ।

৪৯| ২১ শে মে, ২০১৭ বিকাল ৫:৩২

রাতু০১ বলেছেন: রূপ সাগরে ডুব দিয়েছি/ অরূপ রতন আশা করে।
অসাধারন।

৩০ শে মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:২১

আহমেদ জী এস বলেছেন: রাতু০১ ,



অরূপ রতন আশা করে রূপ সাগরে ডুব দিয়েছেন । তা সে অরূপ রতনের দেখা পেয়েছেন নিশ্চয়ই এই লেখাতে !
ধন্যবাদ " অসাধারন" বলে করা এই মন্তব্যে ।

শারীরিক অসুস্থতার কারনে মন্তব্যের জবাব দিতে দেরী হলো বলে আন্তরিক ভাবে দুঃখিত ।

৫০| ২৪ শে মে, ২০১৭ সকাল ১১:০৪

সামিয়া বলেছেন: শুরুর দিকটায় পড়ে লাইক দিয়েছি, লেখা বড় তাই সময় নিয়ে পড়তে হবে, পড়ব পড়ব ।।

৩০ শে মে, ২০১৭ রাত ৮:১৬

আহমেদ জী এস বলেছেন: ইতি সামিয়া ,



আন্তরিক ভাবে দুঃখ প্রকাশ করছি শারীরিক অসুস্থতার কারনে জবাব দিতে দেরী হলো বলে।
মন্তব্যের জন্যে ধন্যবাদ আর মনে হয় এই অবসরে আপনি লেখাটি পড়ে ফেলেছেন ।

ভালো থাকুন । শুভেচ্ছান্তে ।

৫১| ২৫ শে মে, ২০১৭ রাত ৮:০২

হাসান মাহবুব বলেছেন: ভালোবাসার বিস্তৃতি বোঝাতে গিয়ে বরং কাঠামোবদ্ধ এবং টেক্সটবুক টাইপের নীরস লেখা হয়ে গেলো। মাইনাস দিলাম।

আহা মাইনাস! 8-|

৩০ শে মে, ২০১৭ রাত ৮:৪৩

আহমেদ জী এস বলেছেন: হাসান মাহবুব ,



দুটো "মাইনাস" শব্দ লিখেছেন । মাইনাসে মাইনাসে প্লাস হয় , জানেন তো ? ;)
যাক, তবুও একটি বুক (বই ) লিখে ফেলেছি । বই মেলায় তো আর আমার একখানাও বই প্রকাশিত হয়নি ! ব্লগেই না হয় প্রকাশিত হলো । বই মেলায় একখানা বই বেরুলে তো আপনি নিজেও তা কিনে পড়তেন না ! এখানে তবু পড়েছেন । B:-/
সেটাই হলো প্লাস পয়েন্ট ।
এবার, মাইনাসে মাইনাসে কেন প্লাস হলো , বুঝলেন তো ............ :P

৫২| ৩০ শে মে, ২০১৭ রাত ৮:৩২

শায়মা বলেছেন: আমার চোখে ভালোবাসা, ঠিক এমনই এক আশা

৩০ শে মে, ২০১৭ রাত ৯:৪১

আহমেদ জী এস বলেছেন: শায়মা,




কারো চোখে ভালোবাসা ছিলোনা বলেই হয়তো লিংকটির চোখে চোখ রাখা হলোনা ............ :|
An error occurred during validation.
This video does not exist.

Sorry about that.

৫৩| ৩১ শে মে, ২০১৭ রাত ২:২৮

শায়মা বলেছেন: ওকে আবার দিচ্ছি গানটা কিন্তু অন্য লিঙ্কে

আর কারো চোখে ভালোবাসা ছিলোনা কি বললে!!!!!!!!

আমি কি বিশ্বাস করবো!!!!!!!

বললেই হলো!!!!!!!!!! B:-)

এই যে আমরা তোমাকে কত্ত ভালোবাসি!!!!!!!!!

সেই কারো কি না বেসে পারবে!!!!!!!!!!!


:P

৩১ শে মে, ২০১৭ রাত ১১:০২

আহমেদ জী এস বলেছেন: শায়মা ,




হুমমমমম ..........রুদ্ধ দ্বারের বাহিরে এবারে আর দাঁড়িয়ে থাকতে হয়নি । মোর হৃদয়ের গোপন বিজন ঘরে এবার চোখ মেলে তাকাতে পেরেছি ।

আমার প্রিয় একটি গান শুনিয়ে গেলেন । শ্রীকান্তের গলায় এই প্রথম শুনলুম । তবে শ্রীকান্তের চেয়ে চিন্ময় আর হেমন্তের গলায় দরদ ও সুর অনেক বেশী । মনে হয় যেন হৃদয়ের কোনও গোপন - গহীন ঘর থেকে উঠে আসা ।

সেই কারো কি না বেসে পারবে, কি পারবেনা; তা তেমন কেউ বুঝতে পারবে কি পারবেনা, কি করে বলি ? :||

৫৪| ০১ লা জুন, ২০১৭ বিকাল ৫:২২

শায়মা বলেছেন: পারবেনা কেনো????
পারতেই হবে!!!!!!!!

ইহা শুনিলে সে কি আর ঘুমিয়ে থাকতে পারবে !!!!!!!!!! :)

০১ লা জুন, ২০১৭ রাত ১০:০৫

আহমেদ জী এস বলেছেন: শায়মা ,



হা...হা...হা.... ঠিক আছে, তাকে বলে দেবো সে যেন পারে । ঘুমিয়ে যেন আর না থাকে ।
তাকে পারতেই হবে । একবার না পারিলে দেখো শতবার । :P :-*

৫৫| ০১ লা জুন, ২০১৭ রাত ৯:২৪

প্রামানিক বলেছেন: ভালবাসার বিশ্লেষণমূলক চমৎকার পোষ্ট। ধন্যবাদ আহমেদ জী এস ভাই।

০১ লা জুন, ২০১৭ রাত ১০:২৬

আহমেদ জী এস বলেছেন: প্রামানিক ,



অনেকদিন পরে আপনার মন্তব্য পেয়ে ভালো লাগলো ।
শুভেচ্ছান্তে ।

৫৬| ০১ লা জুন, ২০১৭ রাত ১০:১৮

নিশাত১২৩ বলেছেন: আহমেদ জী এস ,
আপনার লেখা যতই পড়ছি ততই মুগ্ধ হচ্ছি , ঠিক যেন সেই চিঠির মতই মনমাতানো আবেগের কলতান । প্লাসটি আগেই দিয়ে গিয়েছিলুম চোখে পরেছে নিশ্চয় :)
ভালো থাকবেন সাথে রাতটিও হোক শুভ ।

০১ লা জুন, ২০১৭ রাত ১০:৫৩

আহমেদ জী এস বলেছেন: নিশাত১২৩ ,



হ্যাঁ .. আপনার দেয়া প্লাসটি অনেক আগেই চোখে পড়েছিলো এবং একই সাথে একটু থমকে গিয়েছিলুম মন্তব্য নেই দেখে । এখন এতোদিন পরে এই নিশীথে এসে মন্তব্য করে গেলেন বলে সত্যিই মুগ্ধ । এমন মন্তব্য পেলে লেখার হাতটি খুলবে তরতর করে ।

ভালো থাকুন আপনিও । এখনও রাতের অনেক বাকী তবুও রাতের শুভেচ্ছা ।

৫৭| ০২ রা জুন, ২০১৭ রাত ৮:২৫

জুন বলেছেন: সবশেষে বলি , অনেকের কাছেই হয়তো ভালোবাসা একটা ফালতু জিনিষ ।
তবু ঐ ফালতু জিনিষটা আমাদের কিছুতেই ছাড়েনা । প্রতিদিনই আমরা বলি , ভালোবাসি - ভালোবাসি, আবার প্রতিদিনই তা বাদামের খোসার মতো ভেঙেও ফেলি ।

আবার আসবো সময় নিয়ে। পদচিন্হ রেখে গেলাম শুধু আহমেদ জী এস ।
+

০২ রা জুন, ২০১৭ রাত ৯:২২

আহমেদ জী এস বলেছেন: জুন ,




অনেকদিনের পরে এসে পদচিহ্ণ রেখে গেলেন । বললেন , আসবেন সময় করে । তা , আবার কই গেলেন ? বাদাম আনতে ?
তারপরে খোসা ভাঙবেন ? :|| :P

৫৮| ০৪ ঠা জুন, ২০১৭ দুপুর ১২:২৩

শরতের ছবি বলেছেন: ভালবাসার এনাটমি - আপনাকেই মানায় । আফটার অল , আপনি একজন ডাক্তার । মন লাগিয়ে পড়েছি -রোগী যেমনি করে ডাক্তারের কথা শুনে । অনেককিছু জানা হল ভালবাসা সম্পর্কে । খাসা লেখা ।

০৫ ই জুন, ২০১৭ রাত ৯:১১

আহমেদ জী এস বলেছেন: শরতের ছবি ,




তাহলে বলতে চান, আপনার রোগটি ঠিকমতো ডায়াগনোসিস করা গেছে ? তাই প্রেসক্রিপশনটা মন লাগিয়ে পড়েছেন ?? B-)
এবারে ভালোবাসার বড়ি দিনে দুবার করে খেয়ে ফেলুন । সকালে উঠেই আর রাতে বিছানায় যাবার আগে ......... :-P

ভালো থাকুন , থাকুন ভালোবাসায় ।

৫৯| ০৪ ঠা জুন, ২০১৭ দুপুর ১২:৩২

শরতের ছবি বলেছেন: ভালোবাসা হতে পারে বিভিন্ন ধরনে, এটা প্রসারিত হতে পারে, আবরিত হতে পারে , লতিয়ে উঠতে পারে জাগতিক যে কোনও কিছুর শরীর-মন ঘিরে । এই যেমন আপনি ভালোবাসেন -
- তীর ভাঙা ঢেউ ,
-ঝুম বর্ষা কিম্বা
-ঘাসের ডগায় একটি শিশির বিন্দু ।
আবার ভালোবাসতে পারেন -
-দুলকি চালে চলা ঘোড়া,
-গরর...গররর করে কোলের উষ্ণতা খোঁজা বেড়াল কিম্বা
-দৌঁড়ে এসে পায়ের কাছে লুটিয়ে পড়া কুকুরটিকে ।

এই কথাটি আমার মনের সাথে খুব করে মানিয়ে গেছে । আমি একজন প্রকৃতি প্রেমি মানুষ । সকালে নাস্তা না দিয়ে যদি কেউ আমায় একটু খানি সৈকতের বালুকায় ,সমুদ্রের গর্জনে বিলীন হবার সুযোগ দেয় --তাহলেই হল । রাতের খাবার না খাইয়ে এক্টুখানি জ্যোৎস্নার পালক মাখিয়ে দিলেই হল ।

০৫ ই জুন, ২০১৭ রাত ৯:৫৯

আহমেদ জী এস বলেছেন: শরতের ছবি ,




যার হৃদয়ে শরতের আকাশের ছবি থাকে, তার কাছে ভালোবাসা ধরা দেয় ভিন্ন ভিন্ন সাজে ।
আপনার মতো আমি আর কয়েকজন প্রকৃতির দেহাতীত এইসব ভালোবাসাতেই মগ্ন । সেখানে জৈবিক চাহিদার প্রবেশ অনেক সময় নিষিদ্ধ হয়ে রয় ।
খুব ভালো লেগেছে মন্তব্যটি ।
শুভেচ্ছান্তে ।

৬০| ০৪ ঠা জুন, ২০১৭ বিকাল ৫:২৩

দীপান্বিতা বলেছেন: :)

+++

০৬ ই জুন, ২০১৭ রাত ৮:৩৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: দীপান্বিতা ,



ধন্যবাদ প্লাস দেয়াতে ।
শুভেচ্ছান্তে ।

৬১| ০৬ ই জুন, ২০১৭ রাত ১২:০৩

মানবী বলেছেন: এই পোস্টটই পড়েছিলাম তীব্র মন খারাপের সময়।
অনেক কিছু বলার ছিলো অথচ কিছুই লিখতে ইচ্ছে করছিলোনা!

প্রথম পাঠক হওয়া সত্ত্বেও অনেকটা সময় পেরিয়ে যাবার পরও মন্তব্য করা হয়নি দেখে কিছু বলে যাওয়া ছিলো মন্তব্যে।

এই প্রসঙ্গে পরবর্তীতে অন্য কোন পোস্ট এলে হয়তো তখনবিস্তারিত বলা যাবে :-)
ভালো থাকুন আহমেদ জী এস।

০৬ ই জুন, ২০১৭ রাত ৯:৩৮

আহমেদ জী এস বলেছেন: মানবী ,




আবারও ফিরে এলেন দেখে ভালো লাগলো । তীব্র মন খারাপের সময়টা সম্ভবত এর মধ্যেই পার হয়ে গেছে ।
অবশ্য মন্তব্য আপনি আগেই করেছেন লেখাটিতে ভালো লাগা জানিয়ে, ৩৯ নং মন্তব্যে ।
আপনার কি মনে হয় , এই প্রসঙ্গে আরও একটা থিসিস আমার লেখা উচিৎ ? বিদ্যে যেটুকু ছিলো তা সব ঢেলে দিয়েছি, ঘটে আর কিছু নেই । :(

ভালো থাকুন আর সরব থাকুন ।
রাতের শুভেচ্ছা ।

৬২| ০৭ ই জুন, ২০১৭ সকাল ১১:২০

জুন বলেছেন:
আহমেদ জী এস,
হা হা হা নাট (বাদাম)আনতে যাইনি বটে, তবে ন এর সাথে আকার বাদ দিয়ে একার লাগিয়ে গিয়েছিলাম নেট আনতে #:-S
দশ টাকার এক ঠোঙ্গা নাট (বাদাম) হয়তো অনেক আগেই আনা যেতো কিন্ত এযে একার লাগানো তাইতো এত দেরী হলো ফিরে আসতে :`>
তা সেই নেট মশাই বহুত সাধ্য সাধনার পর ঘরে এসেছেন কিন্ত ক্ষনে ক্ষনে চলে যাচ্ছেন অভিমান ভরে :( এবার দেখা যাক গত ১৫ দিন ধরে চেষ্টার পর আজ সফল হতে পারি কিনা মন্তব্যটি পোষ্ট করতে B:-/
আসল কথায় আসি । আপনার ভালোবাসা পুরাণ পড়ে মুগ্ধ হোলাম। স্বল্প পরিসরে আপনার স্বভাবজাত সরস ভংগীমায় তুলে ধরেছেন লভ এন্ড রোম্যান্সের আদি অন্ত। জানা ছিল আর আবার জানা হলো অনেক কিছুই।
আর আমিও আপনার মতই চেয়ে চেয়ে দেখলাম কি সুন্দর করে মান্নাদের গানগুলোকে দারুনভাবে কাজে লাগিয়েছেন আপনার লেখাটিত :P
তবে আমার কাছে ভালো না লাগা সতীনাথের করুন মেলোডি আমি চলে গেলে পাষানের বুকে লিখোনা আমার নাম গানটি যে কোনখানে উল্লেখ করেন নি তার জন্য আপনাকে একগুচ্ছ ধনে পাতা দিয়ে গেলাম ।
আপনি উল্লেখ করেছেন এক সময় চিঠিতে নীলখাম ব্যাবহারের কথা, কিন্ত আমার মনে হয় খামটা শুধু নীলেই শেষ হতোনা তার ভেতরেও থাকতো গোলাপের ছেড়া পাপড়ি আর সে সময়ের বিখ্যাত পারফিউমটার নাম মনে পরছে না তার একটু সুবাস ছড়ানো, কারো কারো মুখে শুনতাম গভীর আবেগের বহি প্রকাশ হিসেবে হাত কেটে রক্ত দিয়ে লেখা চিঠি :-&
এই লভ এন্ড রোমান্স এর একটি অনুসংগ প্রেমের চিঠি লেখার ব্যাপারে আমার হাতে খড়ি হয়েছিল আমাদের গৃহকর্মীনির চিঠি লিখে লিখে। তার সেই নিজস্ব বয়ান সাথে নানা কবিতা আর ছন্দে ঠাসা সেই বিরহের চিঠি পড়ে তার সাথে সাথে আমিও আবেগাপ্লুত হয়ে পরতাম :((
হায়রে আমার সোনা রঙের দিনগুলো :``>>
অসাধারন লেখায় ভালোলাগা আগেই জানিয়ে গিয়েছি আবারো জানালাম কিন্ত এর কোন রেটিং উঠবেনা :||
ভালো থাকুন আর হাসি খুশীতে থাকুন । জানিনা আমার এ মন্তব্য পৌছাবে কিনা । নেট কানেকশনটা বড্ড জ্বালাচ্ছে ।


০৭ ই জুন, ২০১৭ রাত ৯:৩১

আহমেদ জী এস বলেছেন: জুন ,



এসে গেছেন !!! হায়রে এই গরমে ছাতা ছাড়াই এসেছেন ?? :( তাও আবার নাট ( বাদাম) নয় নেট নিয়ে । নেট তো অভিমান করতেই পারে , না কি অভিমান আপনার একচেটিয়া ? B-)
আমিও আসল কথায় আসি ........... নীলখামে নীল কাগজ আর গোলাপের পাপড়ির কথা ভুলেই গিয়েছিলুম । ভুল তো হবেই ! ঐরকম নীল খামে গোলাপের সুবাস ভরা কিছু পেলে তো মনে থাকতো :(( !!!!!! সম্ভবত ঐ পারফিউমের নাম ইন্টিমেট ।
হুমমমমমমম........... পোলাপাইন বয়সেই প্রেমপত্র লেখার হাতে খড়ি :P ???? বড় হয়ে তা কি কাজে লেগেছে ?? B:-) ??

যাক হাসিখুশিতে অনেক মজা হলো । এবারে এই যে লিখে মজা পেলুম তা ও একপ্রকার ভালোলাগা ।

অনেক কষ্ট সয়ে সয়ে আবার আসার জন্যে আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ । তবে যা-ই বলুন আপনার মন্তব্যখানি কিন্তু রসে টৈ-টুম্বুর ।
মন্তব্যে+++++
রাতের শুভেচ্ছা ।

৬৩| ১৩ ই জুন, ২০১৭ রাত ৯:৩৪

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন:




আহমেদ জি এস ও দেবলীনা
স্যার, আমি দেবলীনা, আপনার লীনা
মনোযোগ দিয়ে পড়ি আপনার সব
কবিতার গুষ্ঠি-জ্ঞাতি। পড়েথাকি আমি
আপনার কবিতায়, কি কারণ হলে?
‘হাতি উড়ে আকাশেতে’ মজাদার কথা!
মধুখেকো মাছি আসে কবিতার ঘ্রাণে!
কবিতার রাজ্য জয়ী বীর এক দেখে
ক্ষণে ক্ষণে নিত্য আমি বিমোহীত হই।

অজানার কত কথা জেনে হই প্রীত
আপনার কবিতায় সজিবতা আছে!
জিজ্ঞাসিত হয়ে আমি ভাবছি কি বলি?
আহমেদ জি এস হে কবিতায় প্রাণ
থাকে যার অফুরান। যাদু করে পাঠে,
দেবলীনা এটুকুই জানে সদা স্যার।

# ছন্দঃ অমিত্রাক্ষর
# অন্তমিলঃ নেই
# মাত্রা বর্ণঃ চার চার চার দুই
# কবিতা প্রকৃতিঃ সনেট

১৪ ই জুন, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৫৭

আহমেদ জী এস বলেছেন: ফরিদ আহমদ চৌধুরী ,




কৃতার্থ আমাকে নিয়ে এমন সনেট লেখায় । আমার মতো নগন্য কেউ যে আপনার মনে ঠাঁই গেড়েছে তা জেনে ভালো লাগলো । ধন্যবাদ জানানোর জন্যে যুৎসই শব্দ এ মূহুর্তে আমার হাতে নেই ।
তবে "স্যার" শব্দটি আমার জন্যে প্রযোজ্য নয় কারন আমি আপনাদেরই একজন । "স্যার" সম্বোধন করে আপনাদের কাছ থেকে কি দূরে সরিয়ে রাখতে চান ?

অনেক অনেক শুভেচ্ছা ।

৬৪| ১৩ ই জুন, ২০১৭ রাত ৯:৩৮

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: অবশেষে আপনাকে নিয়ে একখানা কবিতা লিখেই ফেল্লাম। আপিনি দেখে দিয়ে, তারপর অনুমতি দিলে পোষ্ট করার আশা রাখি।

১৪ ই জুন, ২০১৭ রাত ৮:২২

আহমেদ জী এস বলেছেন: ফরিদ আহমদ চৌধুরী ,




ধন্যবাদ কষ্ট স্বীকার করতে চাচ্ছেন বলে । কিন্তু সে কষ্টটুকু না করলেই ভালো লাগবে । আমার চেয়ে ব্লগে আরো্ অনেক বিদগ্ধজন আছেন ।
ভালো থাকুন ।

৬৫| ১৫ ই জুন, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:২১

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: আপনাকে নিয়ে লেখা কবিতা পোষ্ট করেছি। আলোচিত পাতায় আছে। কিছুটা রদ বদল করেছি। জনাব চাঁদগাজী খুব সুন্দর মন্তব্য করেছেন। কিন্তু আপনার নজরে এল কিনা জানিনা।

১৫ ই জুন, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:২২

আহমেদ জী এস বলেছেন: ফরিদ আহমদ চৌধুরী,




সবে ব্লগে ঢুকলুম । লগ ইন হতেই দেখি আপনার এই মন্তব্যটি । তাই আগে এর জবাবটি দিয়ে রাখি ।
নজরে এসেছে, আলোচিত ব্লগ পাতায় দেখলুম আমাকে নিয়ে লেখাটি । কৃতজ্ঞতাই জানাতে পারি শুধু । তা-ই জানাচ্ছি আন্তরিক ভাবে ।

একগোছা শুভেচ্ছা ।



৬৬| ১৬ ই জুন, ২০১৭ বিকাল ৩:১৬

গেম চেঞ্জার বলেছেন: আসলে কিছুকেই ভালোবাসা বলেনা । আর যদি কাকে বলে বলতে হয়, তবে বলতে হবে ---

ভা -- ভাগাড়ের মতো হাহাকার...

লো -- লোভাতুর এক লাম্পট্য ....

বা -- বাসনার মৃত্যু ....।

সা --- সাদা সাদা একরাশ শূণ্যতা ....



আগে বলেন এই ব্যাপারে আপনার অভিমত কী? B-))

১৬ ই জুন, ২০১৭ রাত ৮:১৮

আহমেদ জী এস বলেছেন: গেম চেঞ্জার ,




অবশেষে মন চেঞ্জ করে গেম খেলতে ।এলেন !!!!!!!!!!!!!!!!!!!!! ;)

ঐ ব্যাপারে আমার অভিমত হলো , আহমেদ জী এস নামের কেউ একজন অনেক অনেক আগে এই
ভা-------
লো------------
বা------------------
সা ------------------------
নিয়ে কি সব যেন লিখেছিলো ।
খুব একটা খারাপ লেখেনি মনে হয় । এতোদিন পরে আপনার যে সে কথা মনে পড়ে গেলো , তার পেছনের কারন সম্পর্কে আপনার অভিমত এখন কি ? :P

৬৭| ১৮ ই জুন, ২০১৭ রাত ১:২৩

গেম চেঞ্জার বলেছেন: এতোদিন পরে আপনার যে সে কথা মনে পড়ে গেলো , তার পেছনের কারন সম্পর্কে আপনার অভিমত এখন কি ?

কারণ তো আছেই, তবে সেটা মামুলি ব্যাপার! আপনার দেয়া আগের ব্যাখ্যার সাথে এই পোস্টের সংগতি খুঁজতে চেয়েই...... ;)

এই বিচার থাকুক আপনার কাছেই। তবে আমি আমার অভিমত এখানে দেবঃ- (স্পেসিফিক ভালবাসা ব্যাপারটাই, মা-বাবা-ভাই-... ঐগুলো এখানে আনছি না।)

সহজ করে বলতে হলে এভাবেই বলব-

"ভালবাসা হচ্ছে দুটি প্রাণের সম্মিলন।"

সম্মেলনের পেছনে কোনও জাগতিক স্বার্থ জড়িত থাকবে না। কামনা, বাসনা, অর্থ, বিত্ত, ক্ষমতা, প্রাচুর্য বলতে যা কিছু থাকবে তার সবই হতে হবে গৌন। মুখ্য ও অকাট্য প্রাপ্তি থাকবে একে অন্যকে কাছে পাওয়া, কাছে থাকার সাফল্য। যত সুখ-দুঃখ-বিপদ-আপদ-ঝড়-ঝঞ্চা-ষড়যন্ত্র-সমস্যা-রোগ-শোক সবই একসাথে থেকে মোকাবেলা করবে। একে অন্যের মধ্যে বিলীন হয়ে যাবে। একের দুঃখ অন্যের একের সুখ অন্যের হয়ে যাবে। অন্যকথায় দুজনের আত্মা এক হয়ে একটি দৃঢ় ভূবন/ইউনিভার্স হয়ে যাবে।

এটাও আমি আগে বলেছিলাম কোথাও! :) ;)

১৮ ই জুন, ২০১৭ রাত ৮:২৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: গেম চেঞ্জার ,




এসেছেন দেখে ধন্যবাদ ।
আগের লেখার বক্তব্যও ঠিক । কারন এই পোস্টে আমি এটা লিখেছি ---- সব মিলিয়ে ভালোবাসায় পতিত হওয়া যেন গভীর এক কুয়োর মাঝে পড়ে যাওয়া । যারা সে কুয়ো থেকে জমজমের পানি তুলতে পারেন তারা উৎরে গেলেন । আর যারা পারেন না তাদের হৃদয় ভাঙা জল সে কুয়োর জলকেই বাড়ায় শুধু । তখন মনের ভেতরে এই গান গুনগুনিয়ে ওঠে -“ ভালোবাসা মোরে ভিখারী করেছে ......” সঙ্গতিটা এখানেই । এই ভিখারী হবার সূত্রেই আগের লেখাটাতে এরকমটা হয়েছে বলেই ভালোবাসা ভাগারের মতোই হাহাকারের গন্ধ ছড়িয়েছে । একজন লম্পট্যের হাতে পড়ে মৃত্যুকূপে ঝাঁপ দিয়ে বাসনাকে সাদা সাদা শূণ্যতায় মিলিয়ে দিতে হয়েছে ।
আর আপনার সহজ করে বলা - "ভালবাসা হচ্ছে দুটি প্রাণের সম্মিলন।" এর যে ব্যাখ্যা দিলেন তার কথাও এই পোস্টে আছে ----
...কোনও জিনিষের প্রতি অনুভবের সুতীব্রতা , আবেগের তীক্ষ্ণতা, অতল আকর্ষণেচ্ছা বা নিজের সবটুকু দিয়ে সমর্পণের নামই হলো - ভালোবাসা । ভালোবাসা একটা অনুভূতি, একটা বিশ্বাস । একে বর্ণনায় বর্ণীল করা যায়না, যায়না ছোঁয়া । ভালোবাসা হলো সম্ভাব্য মাত্রার সব্বোর্চ্য অর্থ নিয়ে ভরপুর, তরঙ্গায়িত এক ভাষা ।

আবার আন্যত্র - যে যা্-ই বলুক আসলে সত্যিকারের ভালোবাসা এক ও একক, নির্দোষ, অবিচল , স্বয়ংসিদ্ধ, অক্ষয় এক মানসিক অনুভূতি । সকল ভালোর সমন্বয়, একটি সুর । বিশ্বাস এর মূল উপাদান । হুট করে এমনটা হয়না । অনুরাগের কুঁড়ি থেকে ফুল, ফুল থেকে পরাগায়ন হয়ে ফল হয়ে ওঠার দীর্ঘ পরিক্রমায় যেতে হয় তাকে । তারপর জড়িয়ে ওঠা, আত্মার এক অবিচ্ছেদ্য বন্ধনে, যেখানে শরীরের কোনও জায়গা নেই । নিজের আমিকে (ইগো) অন্যের মাঝে বিলীন করে দেয়াই ভালোবাসার প্রথম শর্ত ।
আপনার কথার সুর সবটুকুই আছে এখানে । আপনার সাথে মিলে গেছে সম্ভবত , তাইনা ?

৬৮| ১৮ ই জুন, ২০১৭ সকাল ১১:৫১

প্রথমকথা বলেছেন: খুব সুন্দর বিশ্লেষণ ধর্মী লেখা, গবেষণা মূলকও, ভাল লাগল।

১৯ শে জুন, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৫১

আহমেদ জী এস বলেছেন: প্রথমকথা ,




লেখাটি পড়া এবং মন্তব্য করাতে আমারও ভালো লাগলো । ধন্যবাদ ।

৬৯| ১৮ ই জুন, ২০১৭ রাত ৯:০৭

এস,এম,মনিরুজ্জামান মিন্টু বলেছেন: শুরুতেই পোষ্টটি ভালোলেগেছে। ভালোবাসার এমন প্রবন্ধ এত কম সময় নিয়ে পড়লে হবেনা। আবার আসবো পড়ার জন্য।

২০ শে জুন, ২০১৭ রাত ১০:২৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: এস,এম,মনিরুজ্জামান মিন্টু ,




ধন্যবাদ লেখাটি ভালোবাসার সাথেই পড়বেন জেনে । শুরুতেই যখন প্রেমে মজেছেন , পড়া শেষ হলে সে প্রেম আরও গাঢ় হবে বলেই মনে হয় ।
অপেক্ষায় রইলুম আপনার ভালোবাসার জল কোথায় গড়িয়ে যায় দেখার জন্যে !

৭০| ১৯ শে জুন, ২০১৭ দুপুর ২:৩৭

ঈপ্সিতা চৌধুরী বলেছেন: সখি ভালোবাসা কারে কয়--- গানটা আপনার কন্ঠে শুনতে মুঞ্চাইছে--- !! ভালবাসাময় লেখা ভাল্লাগছে-- “ ভালোবাসা ছাড়া আর আছে কি...”

২০ শে জুন, ২০১৭ রাত ১১:২৬

আহমেদ জী এস বলেছেন: ঈপ্সিতা চৌধুরী ,




সখি ভালোবাসা কারে কয়--- গানটা আমার কন্ঠে শুনতে আপনার মুঞ্চাইতাছে ? হাউ কুড ???? ;)
আমার হেড়ে গলায় এই গানটি গাইলে তো মানুষ তো ভালো, আশেপাশের গরু-ছাগলও দড়ি ছিঁড়ে পগারপার .............. :(

ভালোবাসা ছাড়া আর কিছু নেই ..............

ভালো লাগলো পুরো মন্তব্যটাই ।

৭১| ১৯ শে জুন, ২০১৭ দুপুর ২:৪৮

এডওয়ার্ড মায়া বলেছেন: ভালবাসার কঠিন মারপ্যাচে পড়ে গেলাম।সহজ জিনিসটা আপ্নে জটিল বানায় দিছেন
আপ্নে খুব খ্রাপ =p~ :) :-&

২১ শে জুন, ২০১৭ রাত ৯:২৬

আহমেদ জী এস বলেছেন: এডওয়ার্ড মায়া ,




ভালোবাসা তো আসলে জটিলই শুধু নয় জটিলতম কিছু ।
আপনার কি ধারনা , ভালোবাসা ললিপপের মতো ? চুষে খাওয়ার মতো সোজা ? :D
ভালোবাসুন, দেখবেন নাকে মুখে " চুবানি" খেতে হবে । :((
কত যে বায়ানাক্কা ! :P
জিলিপির প্যাঁচে পড়ে যাবেন , হাত-পা ভাঙবে । :-P

মন্তব্যে +


৭২| ২২ শে জুন, ২০১৭ সকাল ১০:২৩

আমিই মিসির আলী বলেছেন: সবটুকুই মনোযোগ দিয়ে পড়লাম।
ভালোবাসা নিয়ে এত গবেষণা কেম্নে কি!

বর্তমানের ভালোবাসা ফ্রয়েডীয় দর্শনের সাথেই বেশ ভালোভাবে যায়। যদিও ফীল করি নাই এখনো, তবুও পারিপার্শ্বিকতা থেকে তা সহজেই অনুমেয়।

২২ শে জুন, ২০১৭ রাত ৮:৫০

আহমেদ জী এস বলেছেন: আমিই মিসির আলী ,




হ্যা.... বর্তমানের ভালোবাসা ফ্রয়েডীয় দর্শনের সাথেই বেশ ভালোভাবে যায়।
এমন ভালোবাসার সাথে যেন আপনার পরিচয় না হয় !

অনেকদিন পরে আপনাকে দেখে ভালো লাগলো ।
ঈদের অগ্রিম শুভেচ্ছা জানবেন ।

৭৩| ২২ শে জুন, ২০১৭ রাত ১০:২৩

বিজন রয় বলেছেন: নতুন পোস্ট দিন।

২৪ শে জুন, ২০১৭ রাত ৮:০২

আহমেদ জী এস বলেছেন: বিজন রয় ,




দেখি সময় করে উঠতে পারি কিনা ।
ঈদ শুভেচ্ছা ।

৭৪| ২৩ শে জুন, ২০১৭ রাত ১০:১২

বর্ষন হোমস বলেছেন: ভালোবাসার চেয়েও একটা শব্দ বেশি উচ্চারণ বেশি হয়। সেটা হচ্ছে "Hello" ;) ;) ।হাঃহাঃহাঃ।মজা করছি।

পোষ্ট ভাল লেগেছে।

২৪ শে জুন, ২০১৭ রাত ৮:২২

আহমেদ জী এস বলেছেন: বর্ষন হোমস ,




না ঠিক নয় । কারন "হ্যালো" শব্দটা হালের । ভালোবাসি শব্দটা সৃষ্টির আদি থেকে ...............

ধন্যবাদ মন্তব্যেরর জন্যে । ঈদের শুভেচ্ছা ।

৭৫| ২৫ শে জুন, ২০১৭ রাত ২:১৪

ডঃ এম এ আলী বলেছেন:
আসছে আনন্দময় পবিত্র দিনটির জন্য রইল

২৫ শে জুন, ২০১৭ রাত ৯:০১

আহমেদ জী এস বলেছেন: ডঃ এম এ আলী ,





ঈদের সকল খুশি ছড়িয়ে পড়ুক আপনার আঙিনাতে......

৭৬| ২৫ শে জুন, ২০১৭ সকাল ১১:১৬

শাহরিয়ার কবীর বলেছেন: ঈদ মোবারক! ভাইজান।
সুন্দর হোক আপনার ও আপনার পরিবারের আগামী।

২৫ শে জুন, ২০১৭ রাত ৯:১৩

আহমেদ জী এস বলেছেন: শাহরিয়ার কবীর ,




জীবনের যা কিছু অর্জন, তার নিষ্কলুষ আনন্দ ঘিরে থাকুক আপনাকে এবং আপনার প্রিয়জনদেরকে ও ............

৭৭| ২৫ শে জুন, ২০১৭ বিকাল ৩:১৮

দীপান্বিতা বলেছেন: ঈদ মোবারক :)

২৫ শে জুন, ২০১৭ রাত ৯:৩৯

আহমেদ জী এস বলেছেন: দীপান্বিতা ,



ধন্যবাদ ।
রথযাত্রার মতো আপনার জীবনের রথ ও চলুক নির্বিঘ্ন বর্ণাঢ্যতায় ....................
রথযাত্রার শুভেচ্ছা আপনাকেও ।

৭৮| ২৫ শে জুন, ২০১৭ বিকাল ৩:৩৪

নাঈম জাহাঙ্গীর নয়ন বলেছেন:

আগামী প্রতিটি দিন ঈদ আনন্দময় হয়ে থাকুক, শুভ প্রত্যাশায়
ঈদ মোবারক।

২৫ শে জুন, ২০১৭ রাত ৯:৫৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: নাঈম জাহাঙ্গীর নয়ন ,




ধন্যবাদ ।

জীবনের প্রতিটি দিনই ঈদ আনন্দ হয়ে উঠুক আপনারও ।

৭৯| ২৫ শে জুন, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:৫৫

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: দেখতে এসেছিলাম ঈদে আমাদের জন্য নতুন কোন উপহার আছে কিনা :)
আবারো ঈদ শুভেচ্ছা জানিয়ে পরিবারের সকলের জন্য ।

২৫ শে জুন, ২০১৭ রাত ১০:০৫

আহমেদ জী এস বলেছেন: ডঃ এম এ আলী ,





সব উপহার ঈদের আগে আগে পেয়ে গেলে তো সব মজাও শেষ হয়ে গেলো ! তারচে' এক আধটা উপহার ঈদের পরে পেলে মজাগুলো দ্বিগুন হয়না ?


আপনার প্রিয়জনদের জন্যেও রইলো ঈদ শুভেচ্ছা ।

৮০| ২৫ শে জুন, ২০১৭ রাত ৯:১৩

নতুন নকিব বলেছেন:



আপনার পোস্টে কথা বলতে সাবধানে বলতে হয়। কিছু বলতে গেলে চিন্তা করে বলতে হয়। আপনার দৃষ্টিভঙ্গি দারুন। সামান্য জিনিষ আপনার ছোঁয়ায় অসামান্য হয়ে ওঠে। সাধারন হয়ে ওঠে অসাধারন। পবিত্র ঈদের শুভেচ্ছা জানবেন। আপনাদের দোআয় আমাদের স্মরন করলে কৃতজ্ঞতা থাকবে।

ভাল থাকুন হে প্রিয় গুনী।

২৫ শে জুন, ২০১৭ রাত ১০:৪১

আহমেদ জী এস বলেছেন: নতুন নকিব ,




এমন করে বলে আপনি কি আপনাদের গোত্র থেকে আমাকে গোত্রান্তরিত করতে চাইছেন ? আমি আপনাদেরই লোক । আমার প্রোফাইলে দেখুন লেখা আছে-" পুরোপুরি একজন অতি সাধারন মানুষ । আমি যা আমি তাই ই....."

ঈদের সকল আনন্দ আর হাসি নতুন বার্তা ছড়াক আপনার জীবনে ।

মন্তব্যের জন্যে ধন্যবাদ ।
ভালো থাকুন, শুভেচ্ছান্তে ।

৮১| ২৫ শে জুন, ২০১৭ রাত ১০:১৬

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: ধন্যবাদ আশায় থাকলাম।
শুভেচ্ছা রইল

২৮ শে জুন, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:১৭

আহমেদ জী এস বলেছেন: ডঃ এম এ আলী,




ঈদ পরবর্তী শুভেচ্ছা ।

৮২| ২৬ শে জুন, ২০১৭ রাত ১২:০৭

জোকস বলেছেন: "ঈদ মোবারক"

২৮ শে জুন, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৪৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: জোকস ,




ঈদের আনন্দটুকু আপনার ঈদ পরবর্তী দিনগুলিতেও বজায় থাকুক ।
শুভেচ্ছান্তে ।

৮৩| ২৬ শে জুন, ২০১৭ সকাল ১০:২২

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ভালোবাসা ও রোমান্সের উপর দারুণ বিশ্লেষণ। আসলেই, ভালোবাসা বা প্রেমকে সংজ্ঞায়িত করা যায় না মনে হয়। ভালোবাসাও একটা নির্ভেজাল, অনবদ্য কবিতার মতো, যার অর্থ ও ব্যাখ্যা একেক জনের কাছে একেক রকম।

কোনো এক মনীষী বলেছিলেন (তাঁর নাম মনে নেই), 'ভালোবাসা হলো একটা ব্যাধি।' গভীরভাবে উপলব্ধি করলেই এটা সত্যে পরিণত হয়। ভালোবাসা পণ্ডিতকে মূর্খ করে ছাড়ে, কিন্তু মূর্খকে পণ্ডিত করতে পারে না, গর্দভ করে ফেলে :)

ভালোবাসা হলো এক প্ল্যাটনিক চার্ম। এই চার্ম আছে বলেই ভালোবাসা আছে, আর পৃথিবীটাও টিকে আছে। সুখ বা ব্যথা- ভালোবাসা যাই দিক না কেন- ভালোবাসা ছাড়া বাঁচা যায় না। ভালোবাসা বা প্রেম থেকে মায়া বা মহামায়ার উন্মেষ। যখন মায়ার গভীরে ঢুকে গেলাম, সেখানে এক অনির্বচনীয় জগৎ। সেটাই আসল ভালোবাসার জগৎ। স্বামীস্ত্রী যখন বৃদ্ধাবস্থায় চলে যান, তাঁদের মধ্যে হয়ত কোনো যৌনাকর্ষণ থাকে না, কিন্তু এক সুদৃঢ় রজ্জুতে তাঁরা একে অপরের সাথে আবদ্ধ হয়ে পড়েন, একজনকে ছাড়া আরেকজন টিকতে পারেন না- সেটা শুধু প্রেম না, প্রেমের চেয়েও অনেক গভীরের অন্য একটা কিছু। সেটাই মায়া।

ভালো লাগলো আপনার বিশ্লেষণ।

ভালো থাকবেন প্রিয় আহমেদ জী এস ভাই।

সবার জীবন সুন্দর ও সতেজ হোক; সুখ ও সাফল্যে ভরে উঠুক- এই কামনা।

ইদ মুবারাক।

২৮ শে জুন, ২০১৭ রাত ৯:৩৭

আহমেদ জী এস বলেছেন: সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই ,




ভালোবাসার সর্বোচ্চ্য ধাঁপ হলো - প্লেটোনিক লভ । অনেকটা ঠিক বলেছেন আপনি, "প্ল্যাটনিক চার্ম" ।
আপনিও সুন্দর বিশ্লেষণ করেছেন । আপনার অনুভবের প্রশংসা করতেই হয় ।

ঈদ পরবর্তী শুভেচ্ছা ।
যেখানেই থাকুন , যতো দূরেই থাকুন , ভালো থাকুন ।

৮৪| ২৬ শে জুন, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:০৭

ধ্রুবক আলো বলেছেন: ঈদের শুভেচ্ছা রইলো ভাই, ঈদ মোবারক।

২৯ শে জুন, ২০১৭ রাত ৮:০৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: ধ্রুবক আলো ,




ঈদ পরবর্তী বিলম্বিত শুভেচ্ছা আপনাকেও ।
ভালো থাকুন ।

৮৫| ২৮ শে জুন, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৩১

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: ধন্যবাদ
আপনার জন্যও রইল ঈদ পরবর্তী শুভেচ্ছা ।

৩০ শে জুন, ২০১৭ রাত ৯:৪০

আহমেদ জী এস বলেছেন: ডঃ এম এ আলী ,




একই বারতা আপনার জন্যেও ।

৮৬| ২৯ শে জুন, ২০১৭ সকাল ১০:৪৫

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: প্রিয় আহমেদ জী এস ভাই! ঈদের অনেক অনেক শুভেচ্ছা রইল।
লাভ এন্ড রোমান্স নিয়ে দারুন বিশ্লেষন করেছেন। আমার কাছে ভালোবাসা হচ্ছে আত্মসমর্পণ কিংবা এমন একটা অদ্ভুত অনুভুতি যা প্রকাশ করতে আমি ব্যর্থ।

যাইহোক, ভালোবাসা নিয়ে সকলের মন্তব্যগুলো পড়লাম। খুব বেশি কিছু বলার সাহস হচ্ছে না, এমনিতেই আমি কাল্পনিক ভালোবাসা ;)

৩০ শে জুন, ২০১৭ রাত ১০:১৭

আহমেদ জী এস বলেছেন: কাল্পনিক_ভালোবাসা ,




আপনার মন্তব্য দেখে বিস্মিত হয়েছি । আপনার ব্যস্ততার মধ্যিখান থেকে কোনও লেখা পড়ে মন্তব্য করাটা অনেকটা অকল্পনীয় । ভালো লাগলো আপনাকে দেখে ।

ভালোবাসা একেক জনের কাছে একেক রকম । সে কথাই বলতে চেষ্টা করেছি । আপনার অনুভুতির স্বপক্ষে আমি যা লিখেছি --
কোনও জিনিষের প্রতি অনুভবের সুতীব্রতা , আবেগের তীক্ষ্ণতা, অতল আকর্ষণেচ্ছা বা নিজের সবটুকু দিয়ে সমর্পণের নামই হলো - ভালোবাসা । ভালোবাসা একটা অনুভূতি, একটা বিশ্বাস । একে বর্ণনায় বর্ণীল করা যায়না, যায়না ছোঁয়া । ভালোবাসা হলো সম্ভাব্য মাত্রার সব্বোর্চ্য অর্থ নিয়ে ভরপুর, তরঙ্গায়িত এক ভাষা । এর দেশ, কাল , পাত্র নেই । নেই বর্ণ, নেই জাত ।

হা...হা...হা... কাল্পনিক ভালোবাসাও একধরনের ভালোবাসা । যেখানে কল্পনায় ভালোবাসাকে আঁকা হয় , সে আঁকায় কোনও খাদ থাকেনা , থাকেনা লাম্পট্য ।

ঈদ পরবর্তী শুভেচ্ছা ।

৮৭| ৩০ শে জুন, ২০১৭ বিকাল ৪:৪৬

গেম চেঞ্জার বলেছেন: আপনার কথার সুর সবটুকুই আছে এখানে । আপনার সাথে মিলে গেছে সম্ভবত , তাইনা ?

তা তো বটেই। এই কারণেই তো আমি কপিপেস্ট করে স্মরণ করিয়ে দিয়েছিলুম। ;)

০১ লা জুলাই, ২০১৭ রাত ৯:৩০

আহমেদ জী এস বলেছেন: গেম চেঞ্জার ,




বাপরেএএএএএএএ. আপনার স্মৃতিশক্তির চোখ দেখি হাবল টেলিস্কোপকেও হার মানিয়ে দিলো !!!!!!! :D সেই কবেকার ডাষ্টবিন ঘেটে নিয়ে এলেন । :(

ঈদ পরবর্তী রঙ্গ শুভেচ্ছা ।

৮৮| ৩০ শে জুন, ২০১৭ রাত ১০:৩৬

শায়মা বলেছেন: ভাইয়া!!!!!

আমি কয়েকদিন ধরে একটা গান গাচ্ছি---
আমার সোনার ময়না পাখি
কোনবা দেশে গেলে ছাড়ি রে
অগ্নির ময়নারে রাখি!!!!!

হা হা হা

আর তোমার কমেন্টে তার মগজ গলার খবর পেয়ে আমি হাসতে হাসতে মরলাম ভাইয়া!

যাই হোক তোমাকে আমার বাড়িতে ঈদের দাওয়াৎ দিতে এসেছিলাম ভাইয়া! :)

০২ রা জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:১৩

আহমেদ জী এস বলেছেন: শায়মা ,





এতোদিনে মনে হয় গানটি গাওয়া শেষ হয়েছে ! কিন্তু সোনার ময়না পাখি কি ফিরেছে তাতে ? হা...হা...হা... অগ্নিময়না ফিরলেও ফিরতে পারে । আষ্টেপৃষ্ঠে বাঁধা যে ব্লগের খাঁচায় ! :P

যাকগে, ঈদের নিমন্ত্রনের এই নিছক ব্লগীয় ভদ্রতায় আপনি যথার্থ কিন্তু সময় মতো সে নিমন্ত্রন রাখতে না পারাটা আমার অপারগতা ।
কারন দেখে দেখে পেট ভরেনা , ক্ষিধেটা বরং চাগিয়ে ওঠে । ঘ্রান পেলেও না হয় বুঝতুম অর্ধেক ভোজন হয়েছে ! তা-ও নেই । কি করি আজ ভেবে না পাই............ :(( আপনি হাসতে হাসতে মরে গেলে প্লেটটা এগিয়ে দেবে কে ? এটাও একটা প্রশ্ন বটে ! :||

৮৯| ০২ রা জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:৩০

শায়মা বলেছেন: না না পরীরা মরে নাকি!
তারা তো অমর ভাইয়া!
কাজেই অমর পরী অদৃশ্য হাতে প্লেট আগাবে। আসলে আগানোও লাগবেনা সবতো সাজানোই আছে। খানাদানা শুধু একটু অদৃশ্য হাতে দেওয়া হবে! পরীকে আবার তখন ভূত ভেবে ভয় পেওনা ভাইয়া!


আর অগ্নির ময়নার কথা কি আর বলবো.....

সোনা রুপা অগ্নি ভগ্নি কত কিছু সাধ তার
আসলে সে কয়লা
রং চং দিয়ে ঢেকে রাখে তার ময়লা!
পাগলের ছাগল সে সাধ হলো উড়িবার
ভাবিয়া না করিলে সময় হয় পড়িবার
ধুপ্পুস শব্দেও ফেরে না কো আক্কল!
লেংড়িয়ে ফের আসে এমনি সে বেক্কল!
থাক বাবা বাঁধা তুই ব্লগের এই খাঁচাতে
বেশি বাড় বাড়লেরে কে আসিবে বাঁচাতে!
তখন তো বড় খাঁচা চারিদিন আন্ধার
পাখি সাধ খসে যাবে লেজকাঁটা বান্দর! :P

০২ রা জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:৪২

আহমেদ জী এস বলেছেন: শায়মা ,





হো....হো....হো.... পরীরা না হয় মরেনা কিন্তু ঈদের সাজুগুজু খানাপিনার পোস্ট তো "শায়মা" র । অপসরার নয় । অপসরা ততো পরী কিন্তু শায়মা যে নারী ------ মরতেই হবে একদিন । :(( কি ঠিক কিনা ? সে মরা হাসতে হাসতে মরাই ভালো । =p~

আর এই পরীর আছর আর ভুতের ঢিল বলে কিছু নেই । সে কথা নিয়ে আসছি শীঘ্রই ।

৯০| ০২ রা জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:৫২

শায়মা বলেছেন: ওহ কানে কানে একটা কথা বলি ভাইয়া!
অপ্সরার বাস পরীরাজ্যে আর শায়মার বাস মর্ত্যে কিন্তু শায়মা যেহেতু অপ্সরার জড়ুয়া বেহেনা কাজেই মাঝে মাঝেই স্বর্গে উঠে গিয়ে পরী হয়ে যাই ! সেই অপ্সরার ফেলে যাওয়া ব্লগবাড়িতেও হানা দেই! :P আর দিতে দিতে সোনার কৌটায় লুকানো প্রাণ ভোমরার সন্ধান পেয়ে গেছি! :) আমাকে আর ঠেকায় কে!



পরীর আছর ভুত প্রেত যাই আনো বিরক্তিকর তেলাপোকা যখন পাখি/পরীদের আছর থেকে আমাদেরকে কে বাঁচাবে ভাইয়া ! :(

০৫ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১০:২১

আহমেদ জী এস বলেছেন: শায়মা ,




আবারও এসে কানে কানে যা বলে গেলেন তাতে আমাকেও তো মাইক বাজিয়ে কিছু বলতে হয় !
পরীদের আছর থেকে আপনাকে কেউ বাঁচাতে পারবেনা । আপনাকে বাঁচাতে হবে জ্বীনের হাত থেকে । :D

এই জ্বীনের হাত থেকে কি করে বাঁচতে হয় তা শিখুন হাতে কলমে । তেলাপোকাকে যখন পাখি বলে মনে হয় , তখন বুঝতে হবে কোথাও তার ছিঁড়ে গেছে .... ;) কোন জায়গার তার ছিঁড়েছে তা জানতে হলে...................

৯১| ০৯ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ৩:৫৪

গেম চেঞ্জার বলেছেন: লেখক বলেছেন: গেম চেঞ্জার ,


বাপরেএএএএএএএ. আপনার স্মৃতিশক্তির চোখ দেখি হাবল টেলিস্কোপকেও হার মানিয়ে দিলো !!!!!!! :D সেই কবেকার ডাষ্টবিন ঘেটে নিয়ে এলেন । :(

ডাস্টবিন!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!

B:-/ :-*

২০ শে জুলাই, ২০১৭ রাত ৮:২২

আহমেদ জী এস বলেছেন: গেম চেঞ্জার ,




অনেকদিন ব্লগে আসিনি বলে প্রতিমন্তব্য করতে দেরী হওয়াতে দুঃখিত ।

৮৭ নম্বরে আপনার করা মন্তব্যের জবাবে আমি লিখেছিলুম - সেই কবেকার ডাষ্টবিন ঘেটে নিয়ে এলেন । তাই এই মন্তব্যে ডাষ্টবিন শব্দটিকে বোল্ড করে দেয়াতে বুঝেছি , মনক্ষুন্ন হয়েছেন । কেন মনক্ষুন্ন হয়েছেন তা বলি -----
আসলে আপনার এই উদ্ধৃতি -
""ভা -- ভাগাড়ের মতো হাহাকার...
লো -- লোভাতুর এক লাম্পট্য ....
বা -- বাসনার মৃত্যু ....।
সা --- সাদা সাদা একরাশ শূণ্যতা ....""
আমার নিজেরই লেখা । ভেবেছিলুম আমার কোনও পোস্ট থেকে এটি তুলে এনেছেন । তাই আমি নিঃসঙ্কোচে লিখতে পেরেছি --
"সেই কবেকার ডাষ্টবিন ঘেটে নিয়ে এলেন ।"
পরে এক এক করে খুঁজে দেখতে গিয়েছি আমার কোন লেখাতে এই কথা আমি লিখেছি । তন্ন তন্ন করে খুঁজেও আমার কোনও পোস্টেই তা পাইনি । ব্যাপার কি তবে ? মনে হলো , আপনি তাহলে এই কথাগুলো কোথায় পেলেন ! তাহলে সম্ভাব্য একটি চিন্তাই মাথায় আসে যে , আপনার কোনও পোস্টের মন্তব্যে আমি ঐ কথা লিখেছি । কিন্তু আপনার কোন পোস্টে তা বেমালুম ভুলে গেছি, যা স্বাভাবিক । এরকম যখন খোঁজাখুঁজি চলছে তখনই আপনার এই মন্তব্যটি এলো । পড়তে গিয়ে বুঝলুম , "সেই কবেকার ডাষ্টবিন ঘেটে নিয়ে এলেন" বলে আপনাকে অজান্তেই আঘাত দিয়ে ফেলেছি । কারন ঐ কথা তো আপনার পোস্ট থেকে আপনি তুলে এনেছেন ।
এবার কি ক্ষমা করে দেয়া যায় , আমার এই অজানিত অপরাধটুকু ?

আর ভালো কথা, আপনি কোথা থেকে এটা তুলে এনেছেন তা বলবেন কি দয়া করে ?
শুভেচ্ছান্তে । ভালো থাকুন ।


৯২| ০৯ ই আগস্ট, ২০১৭ দুপুর ১:৪৫

একলা ফড়িং বলেছেন: এত বিশ্লেষণ শেষেও প্রশ্ন থেকেই যায়, সখী ভালোবাসা কারে কয়!

ভালোবাসা বড্ড জটিল জিনিস।

When you like a flower, you just pluck it.
But when you love a flower, you water it daily.

আরেকটা পছন্দের লেখা, কোথায় পড়েছি মনে নেই, 'ভালবাসা মানে হলো তার ভালোতে বাস করা!' লেখককে সামনে পেলে ব্যাখ্যাটা জেনে নিতাম।

তবে আমার মতে ভালো শুধু বাসলেই হয় না, ভালোবাসা অনেক যত্নে রাখতে হয়! না হলে ভালোটা ঠিক বাসা হয়ে ওঠে না।

০৯ ই আগস্ট, ২০১৭ রাত ৯:২৯

আহমেদ জী এস বলেছেন: একলা ফড়িং ,




আমার ব্লগে বোধহয় এটাই আপনার প্রথম পদচারণা । ভালো লাগলো ।

চমৎকার কিছু কথা বলেছেন - "ভালো শুধু বাসলেই হয় না, ভালোবাসা অনেক যত্নে রাখতে হয়!" তেমন যত্নে ক'জনাই বা তাকে রাখতে পারে ?
ভালোবাসাটা আসলেই বড্ড জটিল । চুম্বনে যার শুরু , শেষ হয় যার চোখের জলে । সে জলসিঞ্চনে ভালোবাসার মরে যাওয়া গাছটি আর প্রান ফিরে পায়না । তবুও তবু ঐ ভালোবাসা নামের ফালতু জিনিষটা আমাদের যে কিছুতেই ছাড়েনা................

শুভেচ্ছান্তে ।

৯৩| ২৪ শে মার্চ, ২০১৮ সকাল ৯:৫২

খায়রুল আহসান বলেছেন: ভালবাসা নিয়ে চমৎকার একটি বিশ্লেষণধর্মী পোস্ট। + +
পোস্টের শুরুটা পড়েই একজন অনুগত ছাত্রের ন্যায় বসে গিয়েছিলুম দশটি বাক্য লিখতে। শেষ করে দেখি, ওমা, এটাকে তো একটা দশ লাইনের কবিতার মতই মনে হচ্ছে!
'সখী ভালবাসা কারে কয়' - এর উত্তর একেক সখা সখীর কাছে একেক রকম হওয়াটাই স্বাভাবিক, তবে দিন শেষে মনে হয় All roads lead to Rome. সবগুলো road ই সমভাবে সুগম না হলেও পথ পাড়ি দিয়ে মনে হবে সবগুলো পথই সামগ্রিকভাবে খুবই সুন্দর!
"ভালবাসার চারটি ধারা" খুব সুন্দর করে বিশ্লেষণ করেছেন, রোমান্সের ছকগুলোকেও। সেই সাথে জুড়ে দিয়েছেন সুন্দর কিছু গ্রাফিক্স এবং রসাত্মক কিছু উপমা আর যথোপযুক্ত কিছু গানের চরণ। সব মিলিয়ে লেখাটি খুবই সুখপাঠ্য এবং উপভোগ্য হয়েছে।

জুন, কাল্পনিক_ভালোবাসা, শরতের ছবি এবং সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই এর মন্তব্য এবং তদুত্তরে আপনার প্রতিমন্তব্য খুব ভাল লেগেছে। আরো অনেক সুন্দর সুন্দর মন্তব্য ও প্রতিমন্তব্য ভাল লেগেছে, সেগুলোতে 'লাইক' রেখে গেলাম। সর্বোপরি আপনার এ চমৎকার পোস্টেও + +।

২৪ শে মার্চ, ২০১৮ সকাল ১০:৫৮

আহমেদ জী এস বলেছেন: খায়রুল আহসান ,




দেরীতে হলেও এই আসি আসি ভালোবাসা দিবসের আগেই যে লেখাটি দেখেছেন সেজন্যে ধন্যবাদ ।

হা...হা..হা... অনুগত ছাত্রের ন্যায় লেখা আপনার দশ লাইনের কবিতা পোস্টের সময়টি এইতো সামনেই আসছে । ভালোবাসা দিবসের উপহার হোক ওটা ।

চুপিচুপি বলি, এই লেখা পড়ে যে প্রশ্নোত্তরে দশ দশটি লাইনের একখানা কবিতা লিখে ফেলতে পারে ; তার একখানা তেমন ভালোবাসার মন না থেকেই পারেনা !

ভালোলাগলো অসময়ে ফোটা কদমফুলের মতোই মধুর আপনার এমন মন্তব্যটি ।
ভালোবাসা ও শুভেচ্ছান্তে ..................

৯৪| ২৪ শে মার্চ, ২০১৮ দুপুর ১২:০১

খায়রুল আহসান বলেছেন: ভালোবাসা দিবস[/sbো জানি গত ২রা ফাল্গুন, ১৪ই ফেব্রুয়ারী পার হয়ে গেছে। আরও কোন নতুন "ভালোবাসা দিবস" আছে নাকি সামনে?? :)

২৪ শে মার্চ, ২০১৮ দুপুর ১২:১২

আহমেদ জী এস বলেছেন: খায়রুল আহসান ,




হা.........হা...............হা......... ভালোবাসা নাই তো তাই ভালোবাসার দিনটির কথাও মনে থাকেনা !! :( :P
সবদিনই ভালোবাসার দিন । :)

যাকগে , নববর্ষ তো আসছেই ওটাকেই ভালোবাসা বর্ষনের নব দিন ধরে নিন । ;)

৯৫| ০৬ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৫:৫৮

কথার ফুলঝুরি! বলেছেন: বাহ বাহ ! ভালোবাসা নিয়ে ভালোই গবেষণা করেছেন দেখা যাচ্ছে :P ভালোবাসা বলতে আসলে শুধুমাত্র কাপলদের ভালোবাসা বোঝায়না । ভালোবাসা হতে পারে বাবা মা ভাই বোনের প্রতি, প্রতিবেশীর প্রতি, বন্ধুর প্রতি এবং আরও অনেক । এই সকল ভালোবাসা হচ্ছে মায়ার ভালোবাসা । আর ভালোবাসার মানুষের প্রতি ভালোবাসা হচ্ছে মায়াময় রোমান্টিক ভালোবাসা B-)

০৬ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ৮:১০

আহমেদ জী এস বলেছেন: কথার ফুলঝুরি!




মনে হয় লেখাটি খুব একটা পড়েননি। পড়লে দেখতেন আপনার "ভালোবাসা বলতে আসলে শুধুমাত্র কাপলদের ভালোবাসা বোঝায়না । ভালোবাসা হতে পারে বাবা মা ভাই বোনের প্রতি, প্রতিবেশীর প্রতি, বন্ধুর প্রতি এবং আরও অনেক ।" এমন কথার সবটুকুই বলা আছে সেখানে এসব ভালোবাসাকে বিভিন্ন শ্রেনীতে ফেলে।

বলেছেন - আর ভালোবাসার মানুষের প্রতি ভালোবাসা হচ্ছে মায়াময় রোমান্টিক ভালোবাসা
পুরোপুরি ঠিক নয় । কারন ভালোবাসায় রোমান্টিকতারও যে কতো রকমফের এই লেখাতে তাও বলা আছে।

আবার পড়ুন। খারাপ লাগবেনা। ভালোবাসা যে কতো সাত পাঁচ রকমের হয়, জানতে পারবেন।

ভালো লাগলো লেখাটি এসে দেখে গেছেন বলে।
শুভেচ্ছান্তে।

৯৬| ০৬ ই অক্টোবর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:৪৯

মোহামমদ কামরুজজামান বলেছেন:
অনেক পরিবর্তনের পরেও প্রেম স্বর্গ।
আধুনিক জীবনে তার দ্রুতগতির জন্য প্রেম পরিবর্তন হতে পারে তবে প্রেমের প্রভাব সর্বজনীন।।।।

ভালবাসা অবিরাম ।।।।

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ৮:৩৮

আহমেদ জী এস বলেছেন: মোহামমদ কামরুজজামান,



সম্ভবত আমার ব্লগে আপনি এই প্রথম এলেন, স্বাগতম।

হুমমমমমম প্রেমে পড়লে মানুষ প্রথম প্রথম স্বর্গসুখেই ভাসে।

মন্তব্যের জন্যে ধন্যবাদ।

৯৭| ০৬ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ৮:২২

নীল আকাশ বলেছেন: গুরু,
কি আশ্চর্য্য আপনিও এই বিষয়ে পোস্ট দিয়েছিলেন?
সময় পেলে আমার এই পোস্ট পড়ার আমন্ত্রন দিয়ে গেলাম।
বানী চিরন্তনীঃ ভালোবাসা নিয়ে কিছু কথা!!!
ধন্যবাদ।

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ৮:৫৯

আহমেদ জী এস বলেছেন: নীল আকাশ ,




আপনার ঐ পোস্ট পড়ার আমন্ত্রন সাদরে গ্রহন করে কিছু কথা বলে এসেছি এর মধ্যেই।
শুভেচ্ছান্তে।

৯৮| ০৭ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ১২:১৩

কথার ফুলঝুরি! বলেছেন: @ভালো লাগলো লেখাটি এসে দেখে গেছেন বলে।--- হা হা ! শুধু দেখিনি ভাইয়া, পড়েছিও কিন্তু । না পড়লে মন্তব্য করতাম না । ভালোবাসার ধরন নিয়ে আপনার কথাগুলোই মোটামোটি রিপিট করেছি আরকি :P


@আবার পড়ুন। খারাপ লাগবেনা। ভালোবাসা যে কতো সাত পাঁচ রকমের হয়, জানতে পারবেন।-- ঠিক আছে ভাইয়া, অবশ্যই সময় করে আবার আরেকদিন পড়বো 8-|

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ১০:১২

আহমেদ জী এস বলেছেন: কথার ফুলঝুরি!




আমার কথাগুলোই মোটামুটি রিপিট করেছেন যখন, তখন কষ্ট করে আবার আরেকদিন পড়তে হবেনা। তাতে রাত জাগতে হতে পারে, ঘুমও নষ্ট হতে পারে! :-P

ধন্যবাদ, আবারও এসে সাত পাঁচ কথা বলে যাওয়ার জন্যে। ;)

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.