নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ট্রুথ নেভার ডাই্‌জ

নিজের সম্পর্কে লেখার কিছু নেই । সাদামাটা ।

আহমেদ জী এস

পুরোপুরি একজন অতি সাধারন মানুষ । আমি যা আমি তাই ই । শয়তানও নই কিম্বা ফেরেশতা । একজন মানুষ আপনারই মতো দু'টো হাত, চোখ আর নিটোল একটা হৃদয় নিয়ে আপনারই মতো একজন মানুষ । প্রচন্ড রকমের রোমান্টিক আবার একই সাথে জঘন্য রকমের বাস্তববাদী...

আহমেদ জী এস › বিস্তারিত পোস্টঃ

ঘাসফুল [ সচিত্র লেখা ব্লগ ]

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ১০:৩৫



“ শেষবার তার সাথে যখন হয়েছে দেখা মাঠের উপরে -
বলিলাম - ‘ একদিন এমন সময়
আবার আসিও তুমি - আসিবার ইচ্ছা যদি হয় - পঁচিশ বছর পরে ।’

এটুকু প্রকৃতির কবি জীবনানন্দের কবিতা থেকে ।

এটুকু আমার -----

শিথিল ঘাসের বুকে দেখিলাম তারে
নির্বাক - নির্মল , মূর্ছনায় কাঁপা কিছু ফুল
বৈরাগী মাঠের পরে ।
গগণে দিবাকর তীব্র রোষে করে ছারখার
সবুজ ঘাসের পেলব শরীর খানি
যেন একমুঠো খড় ।

কবিতা লিখতে বসিনি । অলস প্রহরে, আঁকাবাঁকা লেকের কাছে যেতে যে উদাস মাঠের আঁচলটুকু পেরুতে হয় সে আঁচলে চোরকাঁটার মতো লেগে থাকা কিছু নাম না জানা ফুলের গল্প লিখছি । কলমের কালিতে নয় , মুঠোফোনের আয়নায় । এ ফুলের জৌলুস নেই , নেই মাতাল করা গন্ধ । অবহেলার অভিমানে লজ্জায় যেন অবনত । বংশ গৌরব নেই বলে খরতাপে পোড়া মাঠের এখানে ওখানে চুপিচুপি , যেন ভয়ে ভয়ে মাথা তুলে তাকিয়ে দেখছে এক অবাক পৃথিবী । যে পৃথিবীর কেউ তাকে টেনে নেয়না বুকে , কেবল পদদলিত করেই যায় । এ পৃথিবী যেন তার কেউ নয় !
আমার কোনও কাজ নেই, ক’দিনের জন্যে আসা এখানে । কাহাতক ঘরে বসে থাকা ! সিগ্রেট ফুঁকতে হলে বাইরে গিয়ে কাজটি সেরে আসতে হয় । এই সেরে আসার কাজটি লেকের পারে বসে ফুঁ দিয়ে উড়িয়ে দেই, সাথে উড়ে যায় উথাল-পাতাল ভাবনারা ।
লেকের পারে যেতে, ঘর থেকে কোনাকুনি পাড়ি দিতে হয় যে ফাঁকা রোদে পোড়া জমিনটুকু, তাতে আটকে যায় চোখ । আমার মতোই জৌলুসহীন , নির্জনে একাকী প্রতীক্ষারত কিছু ঘাসফুল চেয়ে থাকে আমার পায়ে। আমি দেখি , মুগ্ধ হই । এই বিশাল পৃথিবীর এক কোনে, নগন্য কিছু ঘাসের বুকে কী রঙিন আবেদন নিয়ে অবহেলায় ফুঁটে আছে । বিলাসী বাগানে ওদের ঠাঁই হয়না । এই নিঃসঙ্গ মাঠের বুকে একাকী আমি ওদের সাথী হই । মোবাইলের জানালা খুলে উঁকি দিলে দেখি ওরা খুব কাছে উঠে এসেছে । লেক ছুঁয়ে আসা মৃদুমন্দ বাতাসের সাথে তাল মিলিয়ে ফিসফিস করে ওরা যেন কানে কানে বলে যায় সবচেয়ে পুরাতন কথা , সবচেয়ে - “ আবার আসিও তুমি - আসিবার ইচ্ছা যদি হয় !”















----যৌবন পাখা মেলে হায়
একাকী দিবস কাটিয়া যায়
তবু মধুখেকো অলি
আসেনা হেথায় .........











-----চঞ্চল চোখ তুলে উর্দ্ধমুখে চাই
কোথাও কেহ নাই , কেহ নাই ।
দুপুরের রাঙা রোদ ঠেলে
দু’দন্ড জিরোবার ছলে
আসেনা কেহ , বলেনা
পরশ বুলায়ে ধীরে -
আবার আসিব ফিরে ........










এ ছিল ঘাসফুলেদের কথা । মানুষের মনের ভেতরেও নিভৃত কোনও কোনে এরকমই নিরবে কিছু ঘাসফুল হয়তো ফোঁটে , খবর রাখেনা কেউ ..........................


[ ছবি - মোবাইলে তোলা । স্যাকরামেন্টো , ক্যালিফোর্নিয়ার এক উদোম মাঠ থেকে । }

মন্তব্য ১১৪ টি রেটিং +২৪/-০

মন্তব্য (১১৪) মন্তব্য লিখুন

১| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ১০:৪৭

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: আগে প্রথম হই পরে কথা কমু......

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ১০:৫২

আহমেদ জী এস বলেছেন: মোস্তফা সোহেল ,





প্রথম হওয়ার মজাই আলাদা । কথা পরে বললেও চলবে ! দম নিয়ে নিন.......................

২| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ১০:৪৯

প্রামানিক বলেছেন: দ্বিতীয় হইছি চা দেন।

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ১১:০৭

আহমেদ জী এস বলেছেন: প্রামানিক ,




চায়ের লিকার সবে বসিয়েছি , একটু অপেক্ষা করুন..................... :P

৩| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ১১:০১

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: আহমেদ জী এস ভাইয়া, ঘাসফুল নিয়েও যে এত সুন্দর করে লেখা যায় তা আমার কল্পনার বাইরে!
অল্পপরিসরে কত গভীরভাবে বলে গেলেন মনের কত কথা!!
শেষের লাইনটা হৃদয়ে দাগ টেনে দিয়ে গেল.........
এ ছিল ঘাসফুলেদের কথা । মানুষের মনের ভেতরেও নিভৃত কোনও কোনে এরকমই নিরবে কিছু ঘাসফুল হয়তো ফোঁটে , খবর রাখেনা কেউ ..........................
মনের খবরই যেখানে কেউ রাখে না সেখানে মনে ভেতরে ফোঁটা ছোট্ট ঘাস ফুলের খবর কেইবা রাখবে বলুন?
তবু কেউ কেউ ভালবাসার দৃষ্টি দিয়ে যে ঘাস ফুলের দিকে তাকায় সেটাই হয়তো সেই ঘাস ফুলের জন্য পরম পাওয়া।

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ১১:৩৮

আহমেদ জী এস বলেছেন: মোস্তফা সোহেল ,




রাখে রাখে .... মনের ভেতরেও যে ঘাসফুল ফুঁটে থাকে তাকেও কেউ কেউ আগলে রাখে গভীর সংগোপনে । দেখেন নি কি , বরষার ফাঁকে জোছনার চোখ জলে ভরে থাকে ?

মন্তব্যে প্লাস ।

৪| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ১১:০২

বিলিয়ার রহমান বলেছেন: ঘাসফুল সবাই বুকে জড়িয়ে নেয় না একথা ঠিক!! তবে কেউ কেউ বুকে নয় বরং বুকের অভ্যন্তরে হৃদয়ের গোপন কোঠরে যত্ন করে রাখেন! সময়ে অসময়ে, অলস দুপুরে কিংবা নরম বিকেলে আড় চোখে সে ঘাসফুল দেখে মুগ্ধ হন!! তারা হয়তো কবি কিংবা গদ্যের কবি!!:)


ঘাসফুলের আবেদন আছে বলেই জী এসের মতো কেউ কেউ তাকে নিয়ে সচিত্র ব্লগ লেখে আর বিলির মতো কেউ কেউ সে পোস্ট প্রিয়তে রেখে দেয়!!:)

ঘাসফুল হয়তো তার বাজার দর নেই
তবু অমন রোদে পোড়া রুপে,
কতকাল ধরে বিমোহিত কত কবি যে,
যাচ্ছে তার নাম জপে জপে!!:)

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১২:১৯

আহমেদ জী এস বলেছেন: বিলিয়ার রহমান ,





মনের কঠিন পাথরেও যে ফুল ফোঁটে , দেখেছেন কি তা ? দেখেছেন বলেই এই আধেক দুপুরে অবহেলায় পড়ে থাকা কিছু ফুলকে প্রিয়া বলে বুকে তুলে নিলেন । গন্ধ বিলিয়ে যাক তা হৃদয়ের গোপন উঠোনে ।

আপনার সুন্দর কবিতার উত্তরে বলি ---- জানেন কি , ফল্গুর রেখা কখনও যায়না যে চোখে দেখা ! তার রূপের ঝলকের তপস্যায় শুধু বিমোহিত হয়ে থাকা ।

মন্তব্যে অনেক অনেক ভালো লাগা ।

৫| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ১১:১১

কানিজ ফাতেমা বলেছেন: বঙ্গেদেশের ঘাসফুলে কি এতটা বৈচিত্র আছে । সত্যি বলতে কি অতটা মনোযোগ দিয়ে কখনো দেশীয় ঘাসফুলের বৈচিত্র দেখাই হয়নি ।

লেখাটি বেশী মনকাড়া ।

শুভ কামনা রইল ।

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১২:২৮

আহমেদ জী এস বলেছেন: কানিজ ফাতেমা ,




তেমন ঘাসই বা কই এদেশে ? মাঠ-ঘাট, নদী-খাল , বন-জঙ্গল সবই তো চলে গেছে কংক্রীটের থাবার নীচে । তাই ঘাসফুলেদের দেখা তেমন একটা পাবেন না । তারপরেও যেটুকু আছে চোখ মেলে দেখুন , কী অপূর্ব !

শুভেচ্ছা রইলো আপনার জন্যেও ।

৬| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ১১:১৪

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন: প্রকৃতিতে কত রকম ঘাসফুল আছে।

এদের বিভিন্ন নাম থাকলে ভাল হত।

ঘাসফুল চিরকালই অবহেলিত। আপনি স্বযত্নে তুলে ধরেছেন । ভাল লাগলো।

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১:০৮

আহমেদ জী এস বলেছেন: মোঃ মাইদুল সরকার ,




ভালো লাগলো আপনাকে দেখে । মন্তব্যে ধন্যবাদ ।

ঘাসফুলেদের নাম হয়তো আছে , আমি জানিনে ।

৭| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ১১:১৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: চা পাতা কি সিলেট থেকে আসছে? প্রামানিক ভাই সহ বসে আছি।

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:০৩

আহমেদ জী এস বলেছেন: গিয়াস উদ্দিন লিটন ,




এট্টু সবুর করেন । হেই যে কহন চা পাতা আনতে পাডাইছি ! সিলেটের রাস্তায় মনে হয় জ্যাম । চা পাতা আনতে একটু দেরী হইতে পারে ..............

৮| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ১১:২৫

সম্রাট ইজ বেস্ট বলেছেন: সবশেষে পুডিং। আমি কিন্তু সবার শেষে, পুডিং ছাড়া হবে না।

ঘাসফুল নিয়ে এত সুন্দর গদ্য-কবিতা, প্লাস না দিয়ে পারলাম না!

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৩০

আহমেদ জী এস বলেছেন: সম্রাট ইজ বেস্ট ,



চা -ই এখনো খাওয়া হলোনা আর আপনি এসেছেন পুডিং এর আবদার নিয়ে !
দু'জন বসে আছে আপনিও লাইনে বসে পড়ুন ........ ;)

অসংখ্য ধন্যবাদ আবদারজনিত মন্তব্যে এবং প্লাস দেয়াতে ।
শুভেচ্ছান্তে ।

৯| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ১১:২৯

উম্মে সায়মা বলেছেন: কেন যে মানুষ ঘাসফুলকে অবহেলায় উপেক্ষা করে। এটার মত মিষ্টি দেখতে ফুল কমই আছে। নাইবা থাকল ঘ্রাণ! আমার তো খুব ভালো লাগে দেখতে। আপনার ছবিগুলো দেখেই বোঝা যায় আপনি তাদের কতটা ভালোবেসেছেন! পোস্টে ভালো লাগা আহমেদ জী এস ভাই....

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৫০

আহমেদ জী এস বলেছেন: উম্মে সায়মা ,




দেখার চোখ নেই বলে অনেক ছোটখাটো কিন্তু অনবদ্য কিছু উপেক্ষিতই থেকে যায় । যেমন - ঘাসের ডগায় একটি শিশির বিন্দু ......
আমি প্রকৃতিকে ভালোবাসি বলেই হয়তো ঐ ঘাসফুলগুলিতে পৃথিবীর রূপ খুঁজতে গিয়েছি ।

আপনার ভালো লেগেছে জেনে প্রীত হলুম ।
অনেক অনেক শুভেচ্ছা ঘাসফুলের !

১০| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ১১:৩৩

প্রামানিক বলেছেন: আল্লায় একখান মাথা আপনারে দিছে। ঘাসফুল নিয়েও এত সুন্দর কথামালা সাজিয়েছেন-- পড়ে আশ্চার্যই হলাম। এমন লেখার জন্য ধন্যবাদ দিয়ে গেলাম।

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:০৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: প্রামানিক ,



আল্লায় তো একখান মাথাই দেয় জানতুম । সে মাথাতেও যে ঘাসফুল ফোঁটে তা আপনার মন্তব্যে বুঝলুম ।
আপনাকেও অসংখ্য ধন্যবাদ ।
শুভেচ্ছান্তে ।

১১| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১:৪৯

মনিরা সুলতানা বলেছেন: এত সুন্দর !!এত্ত সুন্দর !!!
এর কাছে তো দেখি মন বাধা পরে গেলো
ঘাস ফুল তার আপন মহিমাতেই উজ্জ্বল ; পায়ে পায়ে আদরের বেড়ী পরায় । যে চেনার সেই চিনে সে খুব জানে তার তার মনে কোণ খেদ নেই ।আপনি ভালোবেসে ওদের ব্লগে নিয়ে এলেন ,আমরা এখন আমাদের প্রিয় পোষ্ট এই ঘাস ফুলে সাজাই ।

চমৎকার লেখা ও ছবির জন্য ধন্যবাদ ভাইয়া !

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:৩০

আহমেদ জী এস বলেছেন: মনিরা সুলতানা ,



ঘাসফুলেদের মতো অচ্ছুৎ কাউকে যদি সুন্দর লেগেই যায় কোনও চোখে, তবে বলতেই হয় - সে চোখ দেখার চোখ ।
এমন জৌলুসহীন ঘাসফুলগুলিকে প্রিয় করে এই যে সাজিয়ে রাখলেন, তাতেই লেখাটি ধন্য ।
অফুরন্ত শুভেচ্ছা আপনাকে ।

১২| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ দুপুর ২:৩০

ধ্রুবক আলো বলেছেন: স্যাকরামেন্টো , ক্যালিফোর্নিয়ার এক উদোম মাঠ থেকে ।
ভাই আমি কিন্তু ভেবেছিলাম দেশের কোনো গ্রাম থেকে তুলেছেন !!

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:৫৫

আহমেদ জী এস বলেছেন: ধ্রুবক আলো ,




তাই !!
আমাদের দেশের উদোম মাঠেও হয়তো এরকমই ঘাসফুল ফোঁটে ।

১৩| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ দুপুর ২:৩১

ধ্রুবক আলো বলেছেন: লেখা এবং চিত্র খুবই মন মুগ্ধকর। খুব ভালো লাগলো।

ভাই দেশে আসবাব কবে!?

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:২৫

আহমেদ জী এস বলেছেন: ধ্রুবক আলো ,




আপনার কি ধারনা, আমি এখনও দেশের বাইরে ? আমি তো কবেই আপনাদের কাছে এসে বসে আছি !
ভালো লাগালো বলার জন্যে ধন্যবাদ ।
শুভেচ্ছান্তে ।

১৪| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ দুপুর ২:৩২

ধ্রুবক আলো বলেছেন: লেখা এবং চিত্র খুবই মন মুগ্ধকর। খুব ভালো লাগলো।

ভাই দেশে আসবেন কবে!?

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:৪৯

আহমেদ জী এস বলেছেন: ধ্রুবক আলো ,




আমি তো কবে থেকেই দেশে এসে বসে আছি !

১৫| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৩:১৯

নতুন নকিব বলেছেন:



অনিমেশ মুগ্ধতা! লেখা এবং ছবি দু'টোই অনন্য!

শুভকামনা অন্তহীন।

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:৩১

আহমেদ জী এস বলেছেন: নতুন নকিব ,




ভালো লাগলো মন্তব্য নিয়ে আপনার উপস্থিতি । ধন্যবাদ ।

শুভকামনা আপনার জন্যেও অফুরান ।

১৬| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৪:১৭

খালিদ আহসান বলেছেন: চমৎকার ভাবে আপনি ঘাস ফুলেদের গল্প লিখেছেন। আসলেও আমরা চলার পথে ঘাস ফুলেদের দিকে তাকাইনা। এখন মানুষগুলো কেবল ছুটতেই জানে। ইচ্ছা বা অনিচ্ছায় আশে পাশে দেখার মত সময় কারো হয়না।

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:৫৫

আহমেদ জী এস বলেছেন: খালিদ আহসান ,




সম্ভবত আপনি আমার ব্লগে প্রথম এলেন । স্বাগতম ।

হুমমম..... এই যুগযন্ত্রনার যান্ত্রিক জীবনে বেশির ভাগ মানুষেরই উদভ্রান্তের মতো ছুঁটে চলা ছাড়া উপায় নেই । মুখের গ্রাস সংগ্রহে যেখানে মানুষ যন্ত্রের মতো নিরস হয়ে যায় , সেখানে নান্দনিকতার প্রশ্ন অনেকটাই অবান্তর । তাই হয়তো মানুষ পথ চলতে চলতে থমকে দাঁড়ায় না ।

সুন্দর একটি মন্তব্যের জন্যে ধন্যবাদ ।
শুভেচ্ছান্তে ।

১৭| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৫:২২

ওমেরা বলেছেন: ঘাস ফুল তে এত সুন্দর !!! রাখেন আগে টবে কিছু ঘাস লাগিয়ে নেই।
সব কিছু মিলিয়ে সুন্দর একটা পোষ্ট তার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ ভাইয়া ।

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১১:১৮

আহমেদ জী এস বলেছেন: ওমেরা ,




সুন্দরকে পেতে হলে তেমন একটা চোখ থাকা চাই । খুবই নগণ্য একটি পিঁপড়ে - চোখ মেলে দেখুন কি অপূর্ব তার দেহবিন্যাস ! তেমন একটা চোখ আপনার আছে বোঝা গেলো । টবে ঘাস লাগানোর পরে সেখানে ফোঁটা ঘাসফুলদের ছবি ব্লগে দেবেন তো ?

মন্তব্যের জন্যে ধন্যবাদ ।

১৮| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৫:৩৩

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: ছবিগুলো আরেকটু সুন্দর হতে পারতো.......। তবু্ও ভাল লাগল ঘাসফুল কথন

০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১২:১৩

আহমেদ জী এস বলেছেন: কাজী ফাতেমা ছবি ,



হ্যা ... ছবিগুলো আরও সুন্দর হতে পারতো যদি আমার হাতে একটা ডিএসএলআর বা অন্য দামী ক্যামেরা থাকতো । আর যদি থাকতো গ্রাফিক্সের কারিকুরির জ্ঞান ।
হাতে ছিলো শুধু সামান্য একটি মোবাইল । তার ক্যামেরাখানি কতো পিক্সেলের আমি জানিনা । আবার শখের ফটোগ্রাফারও আমাকে বলা যাবেনা । আমি তো আর "কাজী ফাতেমা ছবি" নই !
আর বড় কথা হলো , মোবাইল থেকে ডাউনলোড করে ছবি বড় করাতে ছবির আসল আবেদন হয়তো খানিকটা ক্ষুন্ন হয়ে থাকবে ।

তবুও তা আপনার ভালো লেগেছে জেনে ভালো লাগলো ।
মন্তব্যের জন্যে ধন্যবাদ । শুভেচ্ছান্তে ।

১৯| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৫:৩৫

কঙ্কাবতী রাজকন্যা বলেছেন: পায়ের তলে পড়ে থাকা ঘাস ফুল। তবু কত সুন্দর।

০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১২:৫০

আহমেদ জী এস বলেছেন: কঙ্কাবতী রাজকন্যা ,




অবহেলায় যে পড়ে রয় , একদিন মনে হয় সে-ই ছিল চিরসুন্দর ।
নজরুলের গানের মতোই অনেকটা ---
"জীবনে যারে তুমি দাওনি মালা মরনে কেন তারে দিতে গেলে ফুল ..."


২০| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:২৫

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: ঘাসফুল অবহেলায় যত্ন ছাড়াই নিজে নিজে বেড়ে উঠে। কিন্তু সুন্দর মনের মানুষের চোখ ফাঁকি দিতে পারেনা এই ফুলের সৌন্দর্য।
ঘাসফুল নিয়ে আপনার মুগ্ধতার জন্য আমরা সুন্দর কিছু ছবি আর সেই সাথে সুন্দর কিছু কথা পেলাম।

০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১:০৯

আহমেদ জী এস বলেছেন: ফেরদৌসা রুহী ,




আপনার চোখও তো ফাঁকি দিতে পারেনা সুন্দর অনেক কিছুকেই !

আপনার এই সুন্দর মন্তব্যেও রইলো মুগ্ধতা ।

২১| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৩৯

মলাসইলমুইনা বলেছেন: আহমেদ জী এস ভাই: আপনার চোখই না শুধু, লিখবার মনটাও অসাধারণ এই লেখার পর বলতেই হবে সবাইকে | খুবই সাধারণ কিছুকেও অসাধারণ ভাবে লিখলেন | আপনার তোলা হলুদ ঘাস ফুলের ছবির মতোই কিছু ফটো আমার ফোনের ক্যামেরাতেও বেশ কিছু তোলা আছে | ভালো লেগেছিলো বলে তোলা | ফটো তোলাই শেষ | লেখার কথা ভাবিনি | আপনি ভাবলেন আর তাতেই লেখক হিসেবে চলে গেলেন অন্য মাত্রায় | ঘাস ফুলের ফটোগুলো কিন্তু সত্যিই খুব সুন্দর লাগছে দেখতে | স্যাকরিমেন্টতে কি এখনই শীত পড়েছে নাকি ? মাঠের ঘাস এতো শুকনো কেন ? আমাদের এদিকে শীতের শুরুতে ঘাসগুলো শুকিয়ে যায় | ওয়েস্টকোস্টে এখনই ঘাস এতো শুকিয়ে গ্যাছে দেখে অবাক লাগলো | অনেক ধন্যবাদ সুন্দর একটা লেখার জন্য |

০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৪৯

আহমেদ জী এস বলেছেন: মলাসইলমুইনা ,




লেখা কোনও জিনিষ অসাধারণ হয়ে ওঠে পাঠকের চোখের গুণে । সেটা যে আপনার আছে , বলে দিতে হয়না !

সময়কালটা বর্তমানের নয় তবে কোন এক শীত শুরুর কালে । তাই দু'একটা ছবিতে আপনি শিশিরবিন্দুও দেখতে পাবেন ।
আপনার তোলা ছবিগুলো দিয়ে না হয় আরেক প্রস্থ "ঘাসফুল" হয়ে যাক !

ধন্যবাদ আপনাকেও এমন অমায়িক মন্তব্যের জন্যে ।
শুভেচ্ছা রইলো ঘাসফুলের .................

২২| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৫১

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: একেই বলে গুনিজনা...

আমরা অবহেলে এড়িয়ে যাই যা, গুনির হাতে পড়ে তাই এখন ঈর্ষনীয় উপস্থাপনায় :)
ঘাসফুল মহাউপাখ্যানে মুগ্ধতা :)

রবীঠাকুরের সেই কথা মনে পড়ে যায়-
দেখিতে গিয়াছি পর্বতমালা দেখিতে গিয়াছি সিন্ধু
দেখা হয় নাই চক্ষু মেলিয়া, ঘর হতে শুধু দুই-পা ফেলিয়া
একটি ঘাসের শিষের উপর একটি শিশির বিন্দু - - -

দারুন ঘাসফুল পোষ্টে ভাললাগা

+++++++++++



০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:১২

আহমেদ জী এস বলেছেন: বিদ্রোহী ভৃগু ,




রবি ঠাকুরকে ডিঙিয়ে তো আমাদের যাওয়ার উপায় নেই তবুও তাঁকে পাশ কাটিয়ে আপনার কবিতার উত্তরে জীবনানন্দের থেকে ঘাসফুলের কথা বলি --
সেখানে জন্মেছে ব্যথা - বুঝেছো তা, - সেইখানে তবু এক জন্মেছে বিস্ময় !
সেই এক দূর দিকে - অন্ধকারে - পৃথিবীর মানুষের অনাহত পথে
..............................................................................
বিস্ময় লয়েছে জন্ম সেইখানে ...............


শিশির সিক্ত ঘাসফুলের শুভেচ্ছা ।

২৩| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:২২

ডঃ এম এ আলী বলেছেন:



খুবই সুন্দর হয়েছে ঘাসফুলদের ছবি
সাথে থাকা কাব্যিক কথামালা ।
সাথে পেলাম আরো অনেক
কিছু , কামনা করি সময়টা
সেখানে ভালই কাটুক ।

০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:২৯

আহমেদ জী এস বলেছেন: ডঃ এম এ আলী ,




সময়টা এখানেই , আপনাদের সাথেই ভালো কাটছে ! ওখানটা সাময়িক ।

ঘাসফুল আপনার কাছে সুন্দর লেগেছে জেনে ভালো লাগলো ।
ভালো থাকুন । শুভেচ্ছান্তে ।

২৪| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:৪৪

করুণাধারা বলেছেন: বিবর্ণ ঘাসের মাঝে উজ্জ্বল হলুদ লাল ফুল ফূটে আছে- অপরূপ ছবি। এ যে সুদূর ক্যালিফোর্নিয়ার ঘাসফুলের ছবি আমি প্রথমে দেখে বুঝিনি। আমি ভেবেছিলাম এ বুঝি আমাদের দেশি ঘাসফুল। এই ছবি দেখে মনে পড়ল কতকাল ঘাসফুল দেখিনা- আগে দেখতাম ঘাসের মাঝে মাঝে সাদা, বেগুনী আর গোলাপি ছোট ছোট ফুল। ফুল কিভাবে দেখব, কতকাল তো ঘাসই দেখিনি। চমৎকার ছবি আর কথায় সাজানো এই পোস্ট পড়ে এসব মনে হল। আরেকটি কথা, মানুষের মনের ভেতরেও নিভৃত কোনও কোনে এরকমই নিরবে কিছু ঘাসফুল হয়তো ফোঁটে , খবর রাখেনা কেউ . , একেবারে ঠিক বলেছেন। সেই সুন্দর ঘাসফুলকে পায়ে দলে চলে যায়, খবরই রাখে না কেউ!

০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:৪২

আহমেদ জী এস বলেছেন: করুণাধারা ,




যে দিন গেছে , সেদিন গেছে ! এখন তেমন ঘাসই বা কই আমাদের দেশে ? মাঠ-ঘাট, নদী-খাল , বন-জঙ্গল সবই তো চলে গেছে কংক্রীটের থাবার নীচে । তাই ঘাসফুলেদের দেখা তেমন একটা পাবেন না ।
তারপরেও হয়তো কোথাও অনিন্দ্য সুন্দর কিছু আছে, এই শহুরে জীবনে যার দেখা হলোনা আর ! কোনদিন দেখা হবে কিনা জানিনে তা-ও !

ঘাসফুলের সচিত্র লেখার সবচেয়ে নজরকাড়া অংশটুকু তুলে মন্তব্যে কৃতার্থ করে রাখলেন । বিনিময়ে এই লেখা থেকে এটুকু তুলে দিলুম --
-----চঞ্চল চোখ তুলে উর্দ্ধমুখে চাই
কোথাও কেহ নাই , কেহ নাই ।
দুপুরের রাঙা রোদ ঠেলে
দু’দন্ড জিরোবার ছলে
আসেনা কেহ , বলেনা
পরশ বুলায়ে ধীরে -
আবার আসিব ফিরে ........


ভালো থাকুন । ঘাসফুলের শুভেচ্ছা রইলো ।


২৫| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:৪১

জাহিদ অনিক বলেছেন:


ধ্রুবক আলো বলেছেন: স্যাকরামেন্টো , ক্যালিফোর্নিয়ার এক উদোম মাঠ থেকে ।
ভাই আমি কিন্তু ভেবেছিলাম দেশের কোনো গ্রাম থেকে তুলেছেন !!



আমিও তো তাই ভেবেছিলাম। ভিনদেশী ঘাসফুল দেখতে পেলাম; এও বা কম সৌভাগ্য কিসে!

ভালো লাগলো ঘাসফুলের সচিত্র ব্লগ।

০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:৫৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: জাহিদ অনিক ,




ভাবতে তো কোনও দোষ নেই ! স্বর্গের ঘাসফুল ভাবলেই বা ক্ষতি কি ? :(

ভালোলাগা জানিয়ে গেলেন জেনে ভালো লাগলো ।
শুভেচ্ছান্তে ।

২৬| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১১:২২

ওমেরা বলেছেন: অবশ্যই দেব ভাইয়া।

০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১১:১২

আহমেদ জী এস বলেছেন: ওমেরা ,



হুমমমমমমমমমমমমমমমমম ... ভুল যেন হয়না দিতে । মনে করিয়ে দিতে পারবোনা কিন্তু ।

২৭| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১১:৩৭

আমি তুমি আমরা বলেছেন: প্রথমে ভেবেছিলাম দেশে তোলা ছবি।শেষে এসে দেখি ক্যালিফোর্নিয়ায় তোলা। ভাল লেগেছে। :)

০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১১:৩৬

আহমেদ জী এস বলেছেন: আমি তুমি আমরা ,




দেশে ঘাস কই যে ঘাসফুলের ছবি দেবো ? মাঠ-ঘাট, বন-জঙ্গল, ঘাস-তরুলতা, নদী-খাল সবইতো কারও না কারও দখলে ।
আর শহুরে জীবনে ঘাসফুলের দেখা মেলা ভার !
মন্তব্যে ধন্যবাদ ।

২৮| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১১:৫৬

চাঁদগাজী বলেছেন:


আমেরিকায় বিশাল বিশাল এলাকা খালি পড়ে আছে, অনেক ঘাসফুল, বনফুল ফোটে, নিজের রূপ দিয়ে প্রকৃতিকে সাজায়

০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১১:৫২

আহমেদ জী এস বলেছেন: চাঁদগাজী ,




হয়তো তাই ।
আর আমাদের এখানে খালি কিছু পড়ে থাকলেই দখলে .................মাঠ-ঘাট, বন-জঙ্গল, ঘাস-তরুলতা, নদী-খাল সব !

২৯| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১১:৫৮

চাঁদগাজী বলেছেন:


মাঠের ঘাস ফুল ও কবিতা মিলে এক স্নিগ্ধ দিনের আলেখ্য

১০ ই নভেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:০৩

আহমেদ জী এস বলেছেন: চাঁদগাজী ,



স্নিগ্ধ এ মন্তব্যে ভালোলাগা রাখছি ................

৩০| ০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১:২২

রূপক বিধৌত সাধু বলেছেন: চমৎকার কথামালায় যে সব ছবি দিয়েছেন; এগুলো দেখে আবার কেন বারবার আসতে ইচ্ছা হয়!

১০ ই নভেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৩৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: রূপক বিধৌত সাধু ,




হুমমমমমম .......... ‘ একদিন এমন সময়
আবার আসিও তুমি - আসিবার ইচ্ছা যদি হয় - পঁচিশ বছর পরে ।’


৩১| ০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১:৩৬

সচেতনহ্যাপী বলেছেন: একধরনের বিষাদে ভরা ছবিগুলি দেখতে দেখতে নিজেও বোধহয় আক্রান্ত হলাম না কি!! কোথা থেকে কি, পান্তাভাতে ঘি।।
ঘাসফুলগুলি আসলেও আমাদের ভালবাসা না পেয়েও কিন্তু প্রকৃতির ভালবাসা থেকে বঞ্চিত হয় নি।। তার বর্নিল রূপই তার প্রমান।।
আপনার প্রকৃতি প্রেমকে আমর স্যালুট।।
ভাল থাকবেন,সর্বদা।।

১০ ই নভেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৫৩

আহমেদ জী এস বলেছেন: সচেতনহ্যাপী ,



আপনার মন্তব্য দেখে মনে হলো, মরুভুমির দেশে থেকেও আপনার মনখানা ধুধু বালিয়ারী হয়ে যায়নি , একখানা মরুদ্যানও আছে সেখানে ।
খুব ভালো লাগলো ।
শুভেচ্ছান্তে ।

লেখা দিচ্ছেন না কিন্তু অনেক দিন !

৩২| ০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ৯:৫৫

নীলপরি বলেছেন: ছবি ও কথার আন্তরিকতায় ভালোলাগা । ++++++++++

১০ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:১৭

আহমেদ জী এস বলেছেন: নীলপরি ,



মন্তব্যের জন্যে ধন্যবাদ । অনেকগুলো প্লাস দেয়াতেও খুশি । আরও খুশি - কথার আন্তরিকতায় ভালোলাগা জানিয়ে গেছেন বলে ।
শুভেচ্ছান্তে ।

৩৩| ০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ৯:৫৬

নীলপরি বলেছেন: শুভকামনা ।

১০ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:১৮

আহমেদ জী এস বলেছেন: নীলপরি ,



শুভকামনা আপনার জন্যেও রইলো ....................

৩৪| ০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ১১:০৩

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: ব্যতিক্রমী ছবির সমারোহ। সাধারণত এমন ছবি দেখা যায় না। তার ওপর মোবাইলে তোলা ছবি। একটি চমৎকার পোস্ট দিয়েছেন।

ধন্যবাদ ভাই আহমেদ জী এস।

১০ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:৫৫

আহমেদ জী এস বলেছেন: আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম ,



আমি কোনও ফটোগ্রাফার নই , এমনকি শখেরও নয় ।
তাই মোবাইলে তোলা ছবি আপনার ভালো লেগেছে দেখে ভালো লাগছে ।
ধন্যবাদ ।
শুভেচ্ছান্তে ।

৩৫| ০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ১১:২০

তারেক ফাহিম বলেছেন: ঘাষফুল নিয়ে প্রথম আকর্ষণীয় পোষ্ট আমার চোখে, দাদার জব্বর একখান মাথা আছে দেখি। :-/

১০ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:৪২

আহমেদ জী এস বলেছেন: তারেক ফাহিম ,



মাথা সবারই আছে । কারো চুল মাথা , কারো টাক মাথা । ;)
যাক ঘাসফুল নিয়ে লেখায় প্রথম হওয়ার তকমাটি জুটলো !

আমার ব্লগে স্বাগতম । মন্তব্য ধন্যবাদ ।
শুভেচ্ছান্তে ।

৩৬| ০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১২:৩৩

জুন বলেছেন:
সূর্য্য-পানে চেয়ে ভাবে
মল্লিকা মুকুল
"কখন ফুটিবে মোর
অত বড়ো ফুল"।
কবিগুরুর মল্লিকার মত অত বড়ো নয়, সুন্দরীও সে নয়, গন্ধে বর্নে নিতান্তই দীন হীন এই ঘাসফুল সারাক্ষন পদদলিত হওয়ার আশংকায় থর থর কেপে উঠে নাকি মৃদু মন্দ বাতাসের ঘায়ে জানা নেই। তারপর ও এই সামান্যদের ক্যামেরায় ধারন করে তাদের নিয়ে এমন এক অসামান্য কাব্য রচনা মনে হয় তাদের নিজেদের কাছেও অকল্পনীয় । মন ছুয়ে গেলো স্যাক্রাম্যান্টোর মাঠের ঘাসফুলদের নিয়ে আপনার অতুলনীয় পোষ্টটি ।
+
অটঃ আপনি কি স্যাক্রাম্যান্টোতেই থাকেন কি ?

১০ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:৩৩

আহমেদ জী এস বলেছেন: জুন ,




চমৎকার এবং একই সাথে অর্থবহ একটি কবিতা উপহার দিলেন । আমার ঘাসফুলগুলিও মনে হয় মুখ তুলে ভাবছে "কখন ফুটিবে মোর অত বড়ো ফুল" -----

তারাও তো লেক ছুঁয়ে আসা মৃদুমন্দ বাতাসের সাথে তাল মিলিয়ে ফিসফিস করে কানে কানে বলে গেলো - “ আবার আসিও তুমি - আসিবার ইচ্ছা যদি হয় !”
অপূর্ব ভাবাবেগ মিশিয়ে করা এই অনবদ্য মন্তব্যে প্লাস ।

আর জ্বিনা, স্যাক্রাম্যান্টোতে নয় আমি আপনাদের ধারে কাছেই থাকি ।

নিতান্তই দীন হীন এই ঘাসফুলের শুভেচ্ছা রইলো ।

৩৭| ০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৩:১৫

সামিয়া বলেছেন: ঘাসফুলের ছবি আর সচিত্র লেখা ব্লগে ভালোলাগা।।+++++

১০ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:৪৭

আহমেদ জী এস বলেছেন: ইতি সামিয়া ,




অসংখ্য ধন্যবাদ আপনাকে । ঘাসফুলের শুভেচ্ছা .................

৩৮| ০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৩:৩৫

বাবুরাম সাপুড়ে১ বলেছেন: আপনার লেখাটা পড়ে অনেক আগে ঘাস ফুল নিয়ে শিশুপাঠ্য একটা কবিতার কথা মনে পড়লো :

আমরা ঘাসের ছোট ছোট ফুল হাওয়াতে দোলাই মাথা,
তুলো না মোদের দোলো না পায়ে ছিঁড়ো না নরম পাতা।

শুধু দেখো আর খুশি হও মনে সূর্যের সাথে হাসির কিরণে
কেমন আমরা হেসে উঠি আর দুলে দুলে নাড়ি মাথা।

ধরার বুকের স্নেহ-কণাগুলি ঘাস হয়ে ফুটে ওঠে।
মোরা তারই লাল নীল সাদা হাসি রূপকথা নীল আকাশের বাঁশি-
শুনি আর দুলি শান্ত বাতাসে যখন তারারা ফোটে ।
জ্যোতিরিন্দ্র মৈত্রর লেখা।

১১ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:২৬

আহমেদ জী এস বলেছেন: বাবুরাম সাপুড়ে১ ,




একটা দুর্লভ কবিতা উপহার দিয়ে গেলেন । এটা থাকবে এখানে এই ব্লগের মাঠে তারারা যেমন ফুঁটে থাকে ।
অসংখ্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা আপনাকে ।

৩৯| ০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:২৭

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: স্টিকি পোস্টের (সামহোয়্যার ইন ব্লগঃ মুদ্রার অন্য পিঠ) ৯৭ নম্বর মন্তব্যের প্রতি আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

১১ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:৩৭

আহমেদ জী এস বলেছেন: আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম ,



দৃষ্টি আকর্ষিত হয়েছে । সুন্দর প্রস্তাব ।
ধন্যবাদ জানানোর জন্যে ।

৪০| ০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:৩৪

নিশাত১২৩ বলেছেন: আহমেদ জী এস,
আপনার হাত ধরে সামান্য ঘাসফুলের জীবনও আজ স্বার্থক হয়ে উঠবো দেখছি। বরাবরের মতই অনন্য লেখনীতে প্লাস চিন্হ একে দিলুম :)
++++++++

১১ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:৫২

আহমেদ জী এস বলেছেন: নিশাত১২৩ ,




আপনার আন্তরিক প্রশংসায় কৃতজ্ঞ ।
সময় করে এসে ঘাসফুলগুলি দেখে যাওয়া আর লেখায় প্লাস দেয়াতে ধন্যবাদ ।

ভালো থাকুন । অবহেলায় পড়ে থাকা ঘাসফুলের শুভেচ্ছা ...................

৪১| ১০ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১২:৩৩

চঞ্চল হরিণী বলেছেন: প্রথমে আমিও ভেবেছিলাম আমাদের দেশের কোথাও থেকে তোলা। শহরে তো নয়ই এখন গ্রামেও ফুল ফোঁটার ঘাস সত্যি দুর্লভ হয়ে পড়েছে। তবে এখনো অনেক আছে। আমিও এমন অনেক নাম না জানা ঘাসফুল অনেক জায়গায় মনোযোগ দিয়ে দেখেছি। সবচেয়ে বেশি দেখা যায় এদেশের পার্বত্য অঞ্চলে। যে ছবিগুলো দেখলাম তার প্রায় সবই অথবা প্রায় একই রকম দেখতে ঘাসফুল/ জংলী ফুল দেখা যাবে খাগড়াছড়ি, রাঙ্গামাটি, বান্দরবান যাওয়ার পাহাড়ি পথের দু'ধারে। এর মধ্যে হালকা বেগুনি ধরণের ফুলটিকে আমরা ছোটবেলায় মাইক ফুল বলতাম। যাইহোক, ফুলগুলোর ছবি সত্যিই খুব সুন্দর হয়েছে। লেখা এবং ছবি মন কেড়ে নিয়েছে।

১১ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:১৭

আহমেদ জী এস বলেছেন: চঞ্চল হরিণী ,



মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ ।
বলেছেন, এখন গ্রামেও ফুল ফোঁটার ঘাস দুর্লভ হয়ে পড়েছে । মাঠ-ঘাট, নদী-নালা, পাহাড়-টিলা যখন দখলীকৃত হয়ে ইমারতে ভরে ওঠে সেখানে ঘাস তো দুর্লভ হবেই । প্রকৃতি যখন সীমিত হয়ে যায় তখন সুন্দরের পাখি উড়বে কোন আকাশে !!!!!!!
শুভেচ্ছান্তে ।

৪২| ১০ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ২:০১

কথাকথিকেথিকথন বলেছেন:



চিন্তায় ফেলে দিলেন । এবার হৃদয়ের কোণে কোণে ঘাসফুল খোঁজা শুরু করে দিয়েছি ! নিম্নমানের দুঃখগুলোই মনে হয় ঘাসফুল !

ঘাসফুলেদের আক্ষেপ জড়িত লেখা। লিখতে চাইলে, কি না নিয়ে লেখা যায় ! লেখায় যেন ঘাসফুল তার গায়ে শীতল পরশ পেল।

১১ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:৪৬

আহমেদ জী এস বলেছেন: কথাকথিকেতিকথন ,




ঠিক বলেননি । জীবনের বড় বড় দুঃখগুলিই, রুমালের মতো ছোট্ট মনের উঠোনে ছোট ছোট ঘাসফুল হয়ে ফোঁটে ।

ঘাসফুলের শুভেচ্ছা এমন কোমল মন্তব্যে ।

৪৩| ১০ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ১০:৩৯

এ.টি.এম.মোস্তফা কামাল বলেছেন: আজ ১০ ই নভেম্বর, শুক্রবার
সাহিত্য আড্ডার আড্ডা বার!
চলে আসুন 'বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র'র ক্যাফেটেরিয়ায়।
লিফটের সর্বোচ্চ ৮ চেপে জাস্ট উপরে খোলা আকাশের নিচে সবুজ সমারোহে চা পর্বে দেখা হয়ে যাক আড্ডাবাজদের।
বিকেল সাড়ে তিনটা থেকে চারটায় দেখা হচ্ছে তবে!
যোগাযোগঃ
মোহাম্মদ সাইফুল ইসলামঃ ০১৮১৯-৫১৮৯৩৪
এটিএম মোস্তফা কামালঃ ০১৫৫৮৩০৮৮৪৮
আশরাফুল ইসলাম দুর্জয়ঃ ০১৭২৪-৬১৪২৫৬

১১ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:৩১

আহমেদ জী এস বলেছেন: এ. টি . এম. মোস্তফা কামাল,




ধন্যবাদ আমন্ত্রন জানানোর জন্যে । তবে আমন্ত্রনটিতে সাড়া না দিতে পারার অক্ষমতা আমারই ..................

৪৪| ১০ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ১১:০১

সোহানী বলেছেন: ওকে চায়ের লিকার কি ঠিক হয়েছে আশা করি.... আগে চা খেয়ে নেই তারপর না হয় ঘাসফুলদের নিয়ে আলোচনায় বসি।

আসছি, আবার বিরতির পর..................

১২ ই নভেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৫০

আহমেদ জী এস বলেছেন: সোহানী,




চায়ের লিকার জুড়িয়ে তো ঠান্ডা বরফ হয়ে গেলো । আপনিও বরফে জমে গেলেন কি ?

৪৫| ১০ ই নভেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:০৯

সুমন কর বলেছেন: ঘাসফুলেদের কথায় মাদকতা ছিল, ভালো লাগল।

১২ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:১৬

আহমেদ জী এস বলেছেন: সুমন কর ,



নিয়মিত এমন করে উৎসাহ দিয়ে মন্তব্য করার জন্যে ধন্যবাদ ।
শুভেচ্ছান্তে ।

৪৬| ১০ ই নভেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:২১

মলাসইলমুইনা বলেছেন: আহমেদ জি এস ভাই: আমার ফটোগুলো দিয়ে লেখা হবে না | বললাম না, আপনি ভাবলেন আর তাতেই লেখক হিসেবে চলে গেলেন অন্য মাত্রায় | | ঘাসফুল নিয়ে একটা লেখার কথা চিন্তা করলেতো আমি এতক্ষনে গুণী লেখক ! এই লেখাগুলো আপনার জন্যই থাক | ধন্যবাদ |

১২ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:৪৩

আহমেদ জী এস বলেছেন: মলাসইলমুইনা ,



আপনার ফটোগুলো দিয়ে লেখা কেন হবে না ? আপনার লেখার হাত তো ভালো, তাহলে কেন !!
"বিনয়" ভালো তবে "সবিনয়" সব সময় ভালো নয় ............ :(

৪৭| ১০ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১১:০৩

আখেনাটেন বলেছেন: ঘাসের অালিঙ্গনে বড় হয়েছি। তাই ঘাসফুলেরাও আমার সহোদর।

চমৎকার পোস্টের জন্য রকি মাউন্টেনের সব পর্বতের একত্রসমান ভালোলাগা। ++++++

১২ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:২১

আহমেদ জী এস বলেছেন: আখেনাটেন,



প্রেইরীর যতো ঘাস, ততো ভালোলাগা এমন মন্তব্যে ।

ঘাসফুলের শুভেচ্ছা রইলো ।


৪৮| ১১ ই নভেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১২:০৪

অন্তরন্তর বলেছেন: ঘাসফুল নিয়ে অপূর্ব পোস্ট। পৃথিবীর শোভাবর্ধন করার জন্যই এদের সৃষ্টি। অবহেলায় পদদলিত হলেও আপনার মত কিছু প্রেমিকের ভালবাসায় এদের পূর্ণতা। শুভ কামনা।

১২ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:৩৫

আহমেদ জী এস বলেছেন: অন্তরন্তর ,



জীবনকে যারা সুন্দর করে সাজিয়ে দিয়ে যায় আমরা তাদেরকেই অবহেলা ভরে ঠেলে রাখি দূরে ।

চমৎকার এই মন্তব্যটি অন্তর ছুঁয়ে গেলো ।
ঘাসফুলের শুভেচ্ছা নিন ।

৪৯| ১৩ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ১১:৩১

সোহানী বলেছেন: ক্যালিফোর্নিয়া!!!!!!!!!!! এতো কাছে আসলেন আর আওয়াজ দিলেন না???

চায়ের লিকার শেষ তাতে কি কফি নিয়ে আসলাম পাশের কফি শপ থেকে...


সে কফি নিয়ে আসতেই ঘাসফুলগুলো মাড়িয়ে যেতেই ওরা চিৎকার দিয়ে, ওরে দাড়াঁও জি ভাই ছবি তুলছে সাবধানে যেও....


তারপর পাশের ফুলগুলো বললো, দেখলা, আমরা এতো সুন্দর আমরা কিন্তু জী ভাই একটু ফিরে ও তাকালো না....


সাথে আমার টবের ফুলগুলো ও ম্যাও ম্যাও করে উঠলো....


খুব বিরক্ত হয়ে একটা ধমক দিয়ে ক্লাসে ঢুকতে গেলাম.... কিন্তু


এমন উদাস করা ক্লাসরুমে কি আর মন বসে... অগত্যা আবার বের হয়ে গেলাম...... পাতাগুলো ঝড়ে যাচ্ছে, ঘাসগুলো মরে সোনালী হয়ে যাচ্ছে... ওদের ও খুব দু:খ জী ভাই তাদের কোন ছবিই তুলেনি.....


তখন কি আর করা ওদের দু:খে দু:খী হয়ে গোধুলী বেলায় একাই কফি খেতে লাগলাম.......

১৩ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:০৩

আহমেদ জী এস বলেছেন: সোহানী ,




চা নয় , কফি নয়, ঘাসফুল কিম্বা গোধুলী বেলার অস্তরাগও নয় ; এই যে মনের মাধুরী মিশিয়ে মন্তব্যখানা সাজিয়ে হাতে তুলে দিয়ে আপনার জী ভাইকে যে সম্মান দেখিয়ে গেলেন তা প্রকৃতির সকল রঙকে ছাপিয়ে গেলো ।

আমি দুচোখ ভরে সুন্দর - অসুন্দরে ভরা প্রকৃতিকে দেখি , উন্মনা হই । সে চোখে যা ধরা পড়ে ক্যামেরার চোখ তা দেখতে পায় না ।

এমন শ্রমসাধ্য আন্তরিক মন্তব্যে কি দিতে পারি আপনাকে !
আমার বারান্দায় ফুঁটতে থাকা হলদে জবা আর তার ফুঁটে ওঠার ছবিই দিলুম ....।




শুভেচ্ছান্তে ................

৫০| ১৩ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ১১:৩৩

সোহানী বলেছেন: হায় হায় ছবিগুলো দেখি সব উল্টাপাল্টা................

১৪ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:৪৩

আহমেদ জী এস বলেছেন: সোহানী ,




ঠিক করে সাজিয়ে দেখে নিয়েছি , হায়... হায় করার কিচ্ছুটি নেই !

৫১| ১৭ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:৪৮

নূর-ই-হাফসা বলেছেন: ছবি আর কবিতা এক কথায় অসাধারণ । ঘাসফুল আমার সর্বদা প্রিয় ।

১৭ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:০৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: নূর-ই-হাফসা ,




ভালো লাগলো জেনে যে , ঘাসফুল আপনার প্রিয় ।
সুন্দর মন্তব্যে ধন্যবাদ ।

৫২| ১৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১২:৪৩

রাতুল_শাহ বলেছেন: জীবনানন্দেরর কবিতার লাইনগুলো মনের ভিতর হাহাকার সৃষ্টি করেছিলো।

যাইহোক, পোস্টের অনেক ঘাসফুল আমার দেখা হয় নি। সুন্দর ছবি।

১৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:৩৩

আহমেদ জী এস বলেছেন: রাতুল_শাহ ,




হাহাকার সৃষ্টি করার মতোই জীবনানন্দের এই কবিতাংশটুকু ।
ভালো লাগলো আপনাকে পেয়ে ।
শুভেচ্ছান্তে ।

৫৩| ২৭ শে নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১২:১৫

জেন রসি বলেছেন: পড়তে পড়তে ওয়াল্ট হুইটম্যানের কথা মনে পরে যাচ্ছিল। সৃষ্টির ভেতর দিয়ে সৃষ্টিকে দেখা। অনুভব করা। আপনার শব্দচয়ন যথাযথ। বরাবরের মতই।

২৭ শে নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:০৭

আহমেদ জী এস বলেছেন: জেন রসি ,



খুব ভালো লাগলো কিছুটা বিরতির পরে আপনাকে দেখে । প্রীত হলুম এমন সুন্দর মন্তব্যে ।
ঘাসফুলের শুভেচ্ছা .................

৫৪| ০৩ রা ডিসেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১:১৪

শিখা রহমান বলেছেন: মন ছুঁয়ে গেলো।

"হেমন্তে ঘাসে নীল ফুল ফোঁটে —
হৃদয় কেন যে কাঁপে,
‘ভালোবাসতাম’ — স্মৃতি — অঙ্গার — পাপে
তর্কিত কেন রয়েছে বর্তমান।"

আপনার শব্দমালা সাজালো বলেই ঘাসফুলেরা এমন অপরুপ হয়ে ধরা দিলো।

ধন্যবাদ আর ঘাসফুলের শুভেচ্ছা। ফুলগুলো কিন্তু আমার কাছাকাছির শহরেই ফুটেছে।

০৪ ঠা ডিসেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৩৮

আহমেদ জী এস বলেছেন: শিখা রহমান ,



চমৎকার মন্তব্য ।
আপনার শব্দমালা সাজালো বলেই ঘাসফুলেরা এমন অপরুপ হয়ে ধরা দিলো।
তা কিন্তু নয় বরং ঘাসফুলেরা অমন অসহায়া অপরূপা ছিলো বলেই শব্দমালারা সেজে গেছে তেমন করেই ।

তাই বুঝি ! ফুলগুলো আপনার শহরের কাছাকাছি ! ভালো লাগলো জেনে । তবে কিন্তু আমি আপনার শহরের কাছাকাছি থাকিনে , থাকি আপনার ফেলে আসা দেশটিতে ।

ঘাসফুলের শুভেচ্ছা জানবেন ।

৫৫| ০৯ ই ডিসেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১২:৪৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: অসাধারণ একটি পোস্ট!
ছবিগুলো হৃদয় ছুঁয়ে গেল, লেখক ও কয়েকজন পাঠকের কিছু কথা মনে দোলা দিয়ে গেল। পোস্টে ভাল লাগা + + রেখে গেলাম।
আমার বাসা থেকে মাসজিদ তিন মিনিটের হাঁটা পথ। সৌভাগ্যক্রমে, এটুকু পথের পাশেই বিছানো রয়েছে এক চিলতে ঘাসের বিছানা। সেখানে প্রতিদিন ঘাসফুল আর কিছু কিছু নাম না জানা ফুল ফুটে থাকে। একটা শিউলি ফুলের গাছও রয়েছে, এবং একটা কাঠ বাদামের গাছ। এখন পাতা ঝরার দিন শুরু হয়ে গেছে। কাঠ বাদামের গাছ থেকে ঝরে পড়া বড় বড় শুকনো পাতা ও কাঠবাদাম পথে পড়ে থাকে। ফজরের নামাজ পড়ে ফিরে আসার সময় সাবধানে পা ফেলি, যেন পথে পড়ে থাকা কোন শিউলি ফুল পায়ে না মাড়িয়ে যাই। কখনো কখনো মুঠো ভরে কিছু ফুল বাড়ীতে নিয়ে আসি। খেয়ালে বেখেয়ালে কখনো কখনো ছবিও তুলে রাখি। মলাসইলমুইনা এর মত আমার মোবাইলেও অনেক ঘাসফুলের ছবি থাকে। অন্য ছবির ভিড়ে মাঝে মাঝে সেসব ছবি অপ্রকাশিত থেকেই সেলফোন থেকেও ঝরে যায়। বিদেশেও অনেক দৃষ্টিনন্দন ঘাসফুল আমার দৃষ্টি কেড়ে নিয়েছে। সেগুলোকেও সযতনে তুলে রেখেছি সেলগোনের ক্যামেরায়। কিন্তু সবাই তো আর আপনার মত এতটা মমতা মেখে তাদেরকে সেলফোন থেকে লেখায় প্রকাশ করতে পারেনা!

০৯ ই ডিসেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:০৬

আহমেদ জী এস বলেছেন: খায়রুল আহসান ,




ভালো লাগলো প্রায় শুকিয়ে যাওয়া ঘাসফুলের বাগানে আপনাকে দেখে ।
আরো ভালো লাগলো জেনে যে , পথে পড়ে থাকা কাঠ বাদামের গাছ থেকে ঝরে পড়া বড় বড় শুকনো পাতা ও কাঠবাদামের ছবি আপনার সেলফোনে ধরে রেখেছেন । এমন করে ছিন্নপাতার তরণী সাজিয়ে যিনি একা একা খেলা করতে পারেন তার মতো কাব্যিক এ সংসারে ক'জন !
সবাই পারেনা, কিন্তু আপনার পারতে দোষ কি ? পারবেন । সেলফোনের ক্যামেরার ঘেরাটোপে রাখা এক একটি ছবি দেখুন আর কথাদের মনে মনে সাজিয়ে রাখুন । ক্যামেরার বন্দিত্ব থেকে ঘাসফুল, পথে পড়ে থাকা শুভ্র শিউলি, কাঠ বাদামের ঝরে পড়া লালচে খয়েরী পাতাগুলোকে দিনের আলোতে নিয়ে আসুন । পারবেন ..................

অনেক অনেক শুভেচ্ছা ।
ভালো থাকুন ।

৫৬| ০৯ ই ডিসেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১২:৫৩

খায়রুল আহসান বলেছেন: ফুলের সৌন্দর্যের চেয়ে এ পোস্টে আমার বেশী ভাল লেগেছে তাদের প্রতি আপনার মমতাপূর্ণ দৃষ্টি এবং যেসব মায়াময় কথা দিয়ে আপনি তা আমাদের সামনে উপস্থাপনা করেছেন। কয়েকজন পাঠকের মন্তব্যেও এসব দীনহীন ফুলের প্রতি তাদের গভীর স্নেহ ভালবাসা (শব্দ দুটো কি শুধু মানুষের বেলায়ই প্রযোজ্য?) প্রকাশ পেয়েছে। স্যাকরামেন্টো , ক্যালিফোর্নিয়ার এক উদোম, বৈরাগী মাঠ থেকে তোলা ছবিগুলো, সাথে কবিদ্বয় জীবনানন্দ দাশ এবং আহমেদ জী এস এর গভীর অনুভবের কথামালা দিয়ে সাজানো এ ফুলের ডালি সৌরভ না ছড়াক, পাঠকের হৃদয় দুলিয়ে যাবে, নয়নজোড়া জুড়িয়ে যাবে, যতদিন এ ব্লগ ভার্চুয়াল জগতে বেঁচে থাকবে।
মোস্তফা সোহেল (২), বিলিয়ার রহমান (৪), উম্মে সায়মা (৯), মনিরা সুলতানা (১১), ফেরদৌসা রুহী (২০), মলাসইলমুইনা (২১), করুণাধারা (২৪), চাঁদগাজী (২৮ ও ২৯), সচেতনহ্যাপী (৩১), চঞ্চল হরিণী (৪১), সোহানী (৪৯), শিখা রহমান (৫৪) এবং সর্বোপরি জুন (৩৬) এর মন্তব্যগুলো ভাল লেগেছে। তাদের সকলকে সুন্দর মন্তব্য করার জন্য ধন্যবাদ। লেখককেও সাধুবাদ এবং প্রাণঢালা অভিনন্দন!

১০ ই ডিসেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:১৬

আহমেদ জী এস বলেছেন: খায়রুল আহসান ,




আবারও মন্তব্যের জন্যে ধন্যবাদ ।
বলেছেন ---- "কয়েকজন পাঠকের মন্তব্যেও এসব দীনহীন ফুলের প্রতি তাদের গভীর স্নেহ ভালবাসা (শব্দ দুটো কি শুধু মানুষের বেলায়ই প্রযোজ্য?) প্রকাশ পেয়েছে।"
স্নেহ ভালবাসা শব্দ দু'টি সকল প্রানীদের বেলাতেই প্রযোজ্য । যাদের প্রান আছে তাদেরই স্নেহ ভালবাসা আছে । আছে রকমফের ।
যে যে ঋদ্ধ ব্লগারদের নামোচ্চারণ করলেন, যাদের মন্তব্য ভালো লেগেছে বলে ; তাদেরকে আমার তরফ থেকে অভিবাদন ।

আর আপনাকে কি বলবো ! প্রশংসার সমার্থক শব্দগুলো আমার বেশি জানা নেই , যা ছিলো তার সবকটাই আপনার বেলাতে আমি এখানে ওখানে আগেই বলে ফেলেছি ।এখন শুধু বলতে পারি - দু'টি চোখ নয় , দেখার অনেক চোখ আছে আপনার , আয়নার মতো সব কিছু ধরা পড়ে তাতে ।

অনেক শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা রইলো আপনার জন্যে ।

৫৭| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ রাত ১১:৫৭

মুহাম্মাদ খাইরুল ইসলাম বলেছেন: বর্ণনাতীত সুন্দর। তাই আর বর্ণনা করলাম না। এমন সুন্দর পরিবেশনা সুন্দর মনেরই পরিচায়ক।

১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ রাত ৮:১৩

আহমেদ জী এস বলেছেন: মুহাম্মাদ খাইরুল ইসলাম ,



এসেছেন দেখে কৃতজ্ঞ । মন্তব্য, আপনার পোস্টকৃত ছবি ব্লগের ফুলের মতোই আপনার সুন্দর মনটাকেই তুলে ধরেছে।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.