নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ট্রুথ নেভার ডাই্‌জ

নিজের সম্পর্কে লেখার কিছু নেই । সাদামাটা ।

আহমেদ জী এস

পুরোপুরি একজন অতি সাধারন মানুষ । আমি যা আমি তাই ই । শয়তানও নই কিম্বা ফেরেশতা । একজন মানুষ আপনারই মতো দু'টো হাত, চোখ আর নিটোল একটা হৃদয় নিয়ে আপনারই মতো একজন মানুষ । প্রচন্ড রকমের রোমান্টিক আবার একই সাথে জঘন্য রকমের বাস্তববাদী...

আহমেদ জী এস › বিস্তারিত পোস্টঃ

মহাবেকুব জাতক কথন - আট

১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১:৩৩



ক'দিন ধরে দেখছি, ব্লগে একজন ব্লগারকে নিয়ে তুমুল আলোচনা হচ্ছে। আলোচনার ভাষা যাই-ই হোক ব্যাপারটি নিয়ে বারংবার কচলানোতে তা বিষম তেঁতো লাগছে অনেকের কাছেই, আমার কাছেও! বেকুব বলে হয়তো!
আজকের ১৪ই জানুয়ারী'২০২২ এর রাত ১১:৩৪ মিনিটে দেখছি, ব্লগে "আলোচিত ব্লগ" এর ৫ টির ৪ টিই এ সংক্রান্ত। এই মহা বেকুবের কাছে মনে হয়েছে, সেই আলোচিত এক ব্লগার এবং ব্লগের সুষ্ঠতা নিয়ে এসবই অহেতুক আলোচনা মাত্র ।
"অহেতুক" বলছি এ কারনে যে-
যারা বাঁকা চোখে এই ব্লগকে দেখেন তারা জেনে রাখুন , যে লেখক আবেগময়তার সাথে মানুষের পূর্ণতাকে বুঝতে অক্ষম, নিজের সৃজনশীলতার শোভনীয়তা , অশোভনীয়তা বুঝতে অপারগ, ব্লগে তার আত্মনিবেদন নেই নয়তো প্রবেশাধিকার । তাই একজন সত্যিকারের সামুব্লগারকে সতর্ক, সংযত, রূচিশীল হতেই হয় , আজকের জন্যে এবং আগামীকালেরও ।
এই মহা বেকুবের মতো আপনিও নিশ্চয়ই জানেন, ব্লগটিকে আজকের এ অবস্থায় ( ভালো কিম্বা মন্দ ) উদ্ভাসিত বা অনুদ্ভাসিত হয়ে উঠতে পথের বেছানো কাঁটা মাড়িয়ে , সকল খানাখন্দ পেড়িয়ে আসতে হয়েছে । সে পথের দিশারী ছিলেন কিন্তু আপনি নিজেই । সবলে আপনিই তাকে হাতে ধরে এতোটা পথ পাড়ি দিয়ে নিয়ে এসেছেন । তাকে এখানে নিয়ে এসেছেন বটে কিন্তু তাকে এগিয়ে দিতে হবে সামনের আরও অনেক বন্ধুর পথ, আপনারই প্রয়োজনে, ভালোবেসে । এই অস্থির সময়ে দ্রুত বদলে যাওয়া চারিপাশ, সুস্থ্য মানসিকতার অনুপস্থিতি , অশোভনতার - অসহিষ্ণুতার চাষাবাদ, শিষ্টাচারের প্রকট অভাব এসবের কারনে তার পথ চলা থেমে থাকবেনা নিশ্চয়ই ! এবং আপনিও নিশ্চয়ই তা চাইছেন না? অথচ এইসব না জেনে, না বুঝে অহেতুক আলোচনা (যার কোনও শেষ নেই) আপনার অজান্তেই ব্লগকে থামিয়ে দেয়ার পথে নিয়ে যাচ্ছে বারেবারে।

গত কয়েক দিনের ব্লগ দেখে মনে হলো, ব্লগে লেখার মতো আর কি কোনও বিষয়বস্তু নেই ? কেমন যেন এইটুকু একটি ডোবার নোংরা কাদাপানিতে ঘুরে ফিরে সাঁতার কেটে যাওয়া বারবার! এসব লেখায় সুষ্ঠ আলোচনার কোনও আলামত আমি দেখিনি, দেখেছি পারষ্পারিক বিষ্যোৎগার, একে তাকে দোষ চাপানো । এবং সেই সাথে আরও মনে হলো - লেখা তো যে কেউই লিখতে পারেন , দিতেও পারেন । লিখতে পারাটা ব্লগের জন্যে কঠিন কিছু নয়, কঠিন হলো আপনি কি বোঝাতে চাচ্ছেন তা, আর আপনাকে তুলে ধরছেন কি ভাবে । আপনার রূচি -আপনার শিক্ষা , আপনার স্বকীয়তা , আপনার নিজস্ব ধ্যানধারনার সুন্দর এবং সত্যিকারের একটি ছবি সেখানে দেখা যায় কি ? 
যে ব্লগারকে নিয়ে এতো আলোচনা তাকেনিয়ে কি এতো আলোচনার আদৌ কোনও প্রয়োজন ছিলো বা আছে? এটাতো ব্লগের কমবেশী অনেকেই জানেন ব্লগের জন্যে উল্লেখিত ব্লগার তেমন আশীর্বাদ জনক নন। ব্লগে তার ছবি তো পরিষ্কার! সে ছবি কারো পছন্দের হতে পারে আবার কারো কাছে - না। এসব জেনেও পক্ষে বিপক্ষে গিয়ে কেন ব্লগপাতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করার মতো লেখা দিচ্ছি আমরা? ব্লগে কি তিনি ছাড়া আর কেউ নেই? তাদের ভালোটুকু নিয়ে আমরা লিখছিনে কেন ? এসব কি আমাদের মানসিকতার বৈকল্য নাকি আমাদের সকল সৃজনশীলতা রূদ্ধ হয়ে গেছে কোথাও?

ভেবে দেখুন -
“সামু” আপনাকে একটি রাস্তা খুলে দিয়েছে । যে রাস্তায় হাটতে হাটতেই কেউ কেউ শিখে নিয়েছেন , লেখার যাবতীয় কৌশল । কাঁচা থেকে পরিপক্ক হয়ে উঠেছেন স্বকীয়তায় । নিজেকে নিয়ে গেছেন শীর্ষে । কিন্তু মাঝেমাঝে মন্দ কারো ভাবনার অসুস্থ্যতার কারনেই সামু দুর্গন্ধ ছড়িয়েছে বলে মনে হয় । সে তো বহমান নদীতে দু’চারটে দুর্গন্ধে ভরা কচুরীপানা ভেসে যাওয়ার মতো । এতে কি নদীকে নষ্ট হয়ে গেছে বলে ধরে নেবেন ? সে তো হবে আপনারই দৃষ্টিশক্তি, বুদ্ধির সীমাবদ্ধতা । ব্লগ চলুক নদীর মতো । সেই নদীতে ভেসে যাকনা সেই ব্লগারের সব দুর্গন্ধ! আমি আমার দৃষ্টিশক্তি, বুদ্ধির সীমাবদ্ধতা দেখাতে যাচ্ছি কেন ? কেন আমরা সেই দুর্গন্ধে ভরা কচুরীপানা এড়িয়ে যাওয়ার মানসিকতা-সাহস-ইচ্ছে কোনটাই পোষন করতে পারছিনে? কেনই বা বারবার তাতেই ঠোক্কর খেয়ে যাচ্ছি ? দুর্গন্ধ পছন্দ করি বলে?

ভাবুন তো, নোংরামী কোনখানে নেই ? রাজনীতি, মাঠঘাট, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, অফিস -আদালত সবখানেই তো ভালোর পাশাপাশি নোংরামীও সমপরিমানে নয় বরং বেশী পরিমানেই বিদ্যমান । তাই বলে কি আপনি ঐ সবের সংষ্পর্শ এড়িয়ে চলেন ? সবাইকে এক কাতারে দাঁড় করিয়ে তাদের বাতিল করে দেন জীবন থেকে ? গুটি কয়েক রাজনীতিক যখোন বস্তির বুলি নিয়ে নোংরামী ছড়ান তখোন আপনি কি সকল রাজনীতিকদের নির্বাসনে দিতে চান ? আঙুলে গোনা কিছু ছাত্রের উশৃঙ্খলতা, সন্ত্রাসের দায়ে সারা ছাত্রসমাজকে কি বয়কট করে চলেন ? পথভ্রষ্ট কিছু উগ্র ধর্মবাদীদের উগ্র কাজের দায়ে আপনি কি সকল বিশ্বাসীদের ফাঁসি চান ? 
আপনি সবাইকে এক কাতারে ফেলেন না । আসলে আপনার চারপাশে বিরাজিত সব নোংরামীর সাথে আপনি সবাইকে গুলিয়ে ফেলেন না। আর গুলিয়ে ফেলাটা বুদ্ধিমানের কাজও নয় । আপনি তো এই নোংরামী ভরা সমাজ-রাষ্ট্র থেকে নিজের অস্তিত্বকে এখনও বিসর্জন দেন নি ! নাকি দিয়ে বনবাসী হয়েছেন ?

আমি বেকুব বলে হয়তো এমন করে ভাবছি! ভাবছি এতে করে নতুন যারা সামুকে নিজেদের মনের কথা লেখার শ্লেটখানি ভাবতে শুরু করেছিলেন এর মধ্যেই তারা পেছিয়ে যাবেন কিনা। ব্লগের পাতা থেকেই তো জানি পুরোনোরাও পেছিয়ে গেছেন এমন হওয়াতে।
এমন একেক করে যদি সবাই পেছিয়ে যাই তবে এই মহা বেকুব মাঝে মাঝে যে দু'চারখানা মনের কথা লিখে ব্লগ পাতা ভরিয়ে ফেলতো পাঠকদের জন্যে, তার কি হবে ? পড়বে কে, মন্তব্যই বা করবে কে ? তখন কি এই মহাবেকুবের বেকুবীয় ভাবনাদের মরন হবে ??????????

পূনশ্চঃ
এই লেখাতে "কাল্পনিক_ভালোবাসা"র মন্তব্যের উত্তরে যা বলেছি, প্রাসঙ্গিকতার কারনে সেটুকুও তুলে দিলুম এখানে --

আসলে, ব্লগে অশ্লীল পোস্ট বা কাউকে ব্যক্তিগত আক্রমন করে লেখা পোস্টের সমালোচনায় দেখা যায় অনেক সমালোচনাকারীরা নিজেরাও অশ্লীল ভাষা - শব্দ বা ইঙ্গিত করে আলাদা পোস্ট দেন বা আলোচিত পোস্টে মন্তব্য করেন। ভাবেন যে, বেশ জোড়ালো প্রতিবাদ করা গেছে। অথচ তারা নিজেরাও যে একই দোষে দুষ্ট তা ভেবে উঠতে পারেন না। এরকম করে করে যখন কাদা ছোঁড়াছুঁড়ি চলতে থাকে তখন সব দোষ ব্লগকর্তৃপক্ষের ঘাড়ে উঠিয়ে দেয়া হয়। কারা দেন ? যারা নিজেরাই অশ্লীল ভাষা - শব্দ ব্যবহার করে "প্রতিবাদ" নামক হাস্যকর কিছু করেন , তারাই।
আমার প্রশ্ন - কেন ?
কাদা ছোঁড়াছুঁড়ি করবেন ব্লগারেরা আর তার জবাব দিতে হবে ব্লগকে! কেন? আমরা কি ব্লগের নিয়ম কানুন জানিনে ? নাকি অন্যকে খোঁচানোর অভ্যেস বদলাতে পারিনে আমরা ? আমরা নিজের নিজের জায়গা থেকে সচেতন থাকলেই তো আর এমন ঘটনাগুলো ঘটার কথা নয়! কেন আমরা নিজেদের "সচেতন", "শিক্ষিত" আখ্যা দিয়েও তার মর্যাদা রাখতে পারিনে ?

আমাকে এসব বেশ বিব্রত করে। বিব্রত করে , এসবের সাথে আমাকে ব্লগিং করতে হয় মনে হলেই লেখার হাত থেমে যায়, লেখার ইচ্ছেরা মরে যায় । আমার মতো অনেক ব্লগারদেরও তা হয়, এটা তাদের লেখা আর মন্তব্যেই বোঝা যায়। সেই বিব্রত ভাবটাকে বোঝাতে আর তা থেকে কি ভাবে সরে আসা যায় তা বলার জন্যেই এই পোস্ট।

পাশাপাশি যে দায়িত্ব ব্লগারদের নিজেদের, সে দায়িত্বের ভার ব্লগকে বইতে হবে কেন কর্তৃপক্ষ যেখানে পরিষ্কার করে সতর্ক করেছেন এই বলে - এখানে প্রকাশিত লেখা, মন্তব্য, ছবি, অডিও, ভিডিও এবং যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকের।?
তাহলে এসব ঘটনা কেন বারে বারে হচ্ছে এবং ব্লগ কর্তৃপক্ষ কেন বারে বারে জবাবদিহিতার কাঠগড়ায় দাঁড়াচ্ছেন ? ব্লগ কর্তৃপক্ষের দায় আছে কি কোনও? এতে আমরা নিরিহ ব্লগারেরা বিবেকের দংশনে আর অপ্রস্তুততায় পড়ে যাচ্ছি বারবারে।
যারা এসব করে বেড়ান তাদের লেখা/মন্তব্য মডারেশন করলেই বা সরিয়ে দিলেই তো হয়! যা কর্তৃপক্ষের এখতিয়ারেই আছে।


ছবি - ব্যবহৃত ইমোজী ইন্টারনেটের সৌজন্যে।

মন্তব্য ৫৪ টি রেটিং +২২/-০

মন্তব্য (৫৪) মন্তব্য লিখুন

১| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১:৪৭

শায়মা বলেছেন: যাক ভাইয়া এ বছর মনে হচ্ছে তুমি প্রথম মাস থেকেই সচল হলে। :)


আসলে কোনো অবদানই অবদান নহে যদি আমি নিজেকে ১০০% না হলেও ২০% না বুঝে অযথা হামবড়ামী করি।

এই পৃথিবী কারো জন্য থেমে থাকে না কাজেই আমি নেই তাই দুনিয়া আন্ধার ভেবে বোকার মত লম্ফ ঝম্প দিলে পড়ে গিয়ে পা ভাঙ্গলে শুধু নিজেরই ক্ষতি।

কিছু পরে দেখা যাবে সবাই যে যার কাজে চলে গেছে আমি একাই বিছানায় পড়ে আছি। :(

১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ২:১৮

আহমেদ জী এস বলেছেন: শায়মা,




সচল আমি সব সময়ই ছিলুম কিন্তু দিনের আকাশে না দেখা তারাদের মতো।
আমি যেখানে থাকি সেখানে এখন মধ্য দুপুর। এসময়ে দেশের ব্লগারেরা সম্ভবত বেশীর ভাগই ঘুমে থাকেন। তাই দেখতে পান না।
তবে এ সময় দেশ ঘুমিয়ে থাকলেও এ লেখাটি দিয়েছি ব্লগকে প্রশ্নবিদ্ধ হতে দেখে যা মেনে নেয়া যাচ্ছিলো না ভেতরে ভেতরে।
কেন যে আমরা চর্বিত চর্বন এতো ভালোবাসি, বেকুব বলে বুঝে উঠতে পারিনে! একই চর্বিত চর্বন, দিন নেই রাত নেই যখন তখন
করে করে কি লাভ অহেতুক? কিছু চাবানোর নেই বলেই কি এমনটা ঘটছে নাকি আমরা অসহিষ্ণুতার চরমে পৌঁছে গেছি ?

পৃথিবী কারো জন্য যদি থেমেই না থাকে তবে দুনিয়া আন্ধার ভেবে আমরা কেন হাতরে বেড়াই বারবার ? হাত ব্যথা করেনা আমাদের ? :(
আর একা পড়ে থাকা বিছানায় আর দশজনকে টেনে না আনতে পারলে যে হ্যাডম দেখানোর আর কিছু থাকেনা আমাদের তাই একই বিষয়ে চল্লিশজনকে না টানলেই যে নয়।

শুভরাত্রি।

২| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১:৫৭

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: প্রিয় জি এস ভাই! একজন দায়িত্বশীল ব্লগার ও মানুষ হিসাবে আবারও নিজের অবস্থানটি দারুনভাবে ব্যক্ত করলেন। আমি মনে করি, জীবনের চলার ক্ষেত্রে, যে কোন ধরনের আত্ম অহমিকাই মানুষের সবচেয়ে বেশি ক্ষতি করে। এটা ব্লগেও প্রযোজ্য।

১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ৩:৫১

আহমেদ জী এস বলেছেন: কাল্পনিক_ভালোবাসা,



আপনাকে দেখে খুশি হলুম।
আসলে, ব্লগে অশ্লীল পোস্ট বা কাউকে ব্যক্তিগত আক্রমন করে লেখা পোস্টের সমালোচনায় দেখা যায় অনেক সমালোচনাকারীরা নিজেরাও অশ্লীল ভাষা - শব্দ বা ইঙ্গিত করে আলাদা পোস্ট দেন বা আলোচিত পোস্টে মন্তব্য করেন। ভাবেন যে, বেশ জোড়ালো প্রতিবাদ করা গেছে। অথচ তারা নিজেরাও যে একই দোষে দুষ্ট তা ভেবে উঠতে পারেন না। এরকম করে করে যখন কাদা ছোঁড়াছুঁড়ি চলতে থাকে তখন সব দোষ ব্লগকর্তৃপক্ষের ঘাড়ে উঠিয়ে দেয়া হয়। কারা দেন ? যারা নিজেরাই অশ্লীল ভাষা - শব্দ ব্যবহার করে "প্রতিবাদ" নামক হাস্যকর কিছু করেন , তারাই।
আমার প্রশ্ন - কেন ?
কাদা ছোঁড়াছুঁড়ি করবেন ব্লগারেরা আর তার জবাব দিতে হবে ব্লগকে! কেন? আমরা কি ব্লগের নিয়ম কানুন জানিনে ? নাকি অন্যকে খোঁচানোর অভ্যেস বদলাতে পারিনে আমরা ? আমরা নিজের নিজের জায়গা থেকে সচেতন থাকলেই তো আর এমন ঘটনাগুলো ঘটার কথা নয়! কেন আমরা নিজেদের "সচেতন", "শিক্ষিত" আখ্যা দিয়েও তার মর্যাদা রাখতে পারিনে ?

আমাকে এসব বেশ বিব্রত করে। বিব্রত করে , এসবের সাথে আমাকে ব্লগিং করতে হয় মনে হলেই লেখার হাত থেমে যায়, লেখার ইচ্ছেরা মরে যায় । আমার মতো অনেক ব্লগারদেরও তা হয়, এটা তাদের লেখা আর মন্তব্যেই বোঝা যায়। সেই বিব্রত ভাবটাকে বোঝাতে আর তা থেকে কি ভাবে সরে আসা যায় তা বলার জন্যেই এই পোস্ট।

পাশাপাশি যে দায়িত্ব ব্লগারদের নিজেদের, সে দায়িত্বের ভার ব্লগকে বইতে হবে কেন কর্তৃপক্ষ যেখানে পরিষ্কার করে সতর্ক করেছেন এই বলে - এখানে প্রকাশিত লেখা, মন্তব্য, ছবি, অডিও, ভিডিও এবং যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকের।?
তাহলে এসব ঘটনা কেন বারে বারে হচ্ছে এবং ব্লগ কর্তৃপক্ষ কেন বারে বারে জবাবদিহিতার কাঠগড়ায় দাঁড়াচ্ছেন ? ব্লগ কর্তৃপক্ষের দায় আছে কি কোনও? এতে আমরা নিরিহ ব্লগারেরা বিবেকের দংশনে আর অপ্রস্তুততায় পড়ে যাচ্ছি বারবারে।
যারা এসব করে বেড়ান তাদের লেখা/মন্তব্য মডারেশন করলেই বা সরিয়ে দিলেই তো হয়! যা কর্তৃপক্ষের এখতিয়ারেই আছে।

ঠিক বোঝাতে পারলুম কিনা বুঝতে পারছিনে! মনের ভেতরে গোমড়ানো কথা কলমের ডগায় সবসময় ঠিকমতো আসেনা।

৩| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ২:১২

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন:


আমি সামু থেকে অনেক পেয়েছি, অনেক কিছু শিখেছি। আমি সামুর ব্লগারদের কাছে এজন্যে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ সকাল ৭:২৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: সত্যপথিক শাইয়্যান,




ধন্যবাদ।
ব্লগ এবং ব্লগারদের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ, আপনার সৌজন্যতাকেই তুলে ধরেছে।

৪| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ২:৩০

সোবুজ বলেছেন: যাক আপনি নতুন একটা বিষয় নিয়ে আসছেন।এই জন্য ধন্যবাদ।বিষয়টা যেন কি?

১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ সকাল ৭:৩৮

আহমেদ জী এস বলেছেন: সোবুজ,




বিষয়টা যে কি, তা যদি এ্যাদ্দিনেও না বুঝে বা না জেনে থাকেন তবে আর জেনেবুঝে কাজ নেই! ;)

৫| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ ভোর ৬:১৪

ডঃ এম এ আলী বলেছেন:



মুল্যবান দিক নির্দেশনামুলক সময়োপযোগী একটি পোষ্ট ।
সামুতে বিরাজমান সাম্প্রতিককালের কিছু লেখালেখির চালচিত্র
সুন্দরভাবে উঠে এসেছে লেখাটিতে ।

আশা করি পোষ্টের মূল বক্তব্যটি সকলেরই সঠিকভাবে
অনুধাবনে আসবে ।

একটি বিষয় লক্ষ করেছি পোষ্টে থাকা লেখার বিষয়বস্তুর
বাইরে গিয়ে অনেকেই অপ্রাসঙ্গিক কথামালার অবতারনা
করে মম্তব্য করেন । আর বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সে সকল
অপ্রাসঙ্গিক কথামালার রেশ ধরে অপ্রয়োজনীয়
বাকবিতন্ডার সৃষ্টি হয় যা অনেক ক্ষেত্রে ব্যক্তিগত
পর্যায় ও অশালীন ভাষার ব্যবহার পর্যন্ত গড়ায়,
যা মোটেও কাম্য নয় ।

প্রসঙ্গক্রমে বলা যায়, দেশের বেশ কয়েকটি দৈনিক
(অনলাইন ভার্ষান ) সংবাদ পত্রে প্রকাশিত লেখার
নীচে পাঠকের মতামত ও মন্তব্য লেখার একটি
ব্যবস্থা আছে । সেখানে কোন মন্তব্য খুবই অপ্রাসঙ্গিক
ও অশালীন মনে হলে স্বয়ংক্রীয়ভাবেই তা প্রকাশের
অনুপযুক্ত বলে বিবেচিত হয় ও তা প্রকাশই হয়না ।
লেখক নীজেও তার মন্তব্য দেখতে পায়না, অন্য
পাঠকতো দুরের কথা ।

তেমনি ভাবে সামুতেও সেরকম একটি ব্যবস্থা রাখা
যেতে পারে যেখানে ব্লগের নীতিমালা ও লেখা প্রকাশের
শর্ত লংগন করে আপ্রাসঙ্গিক কোন মন্তব্য লেখা হলে
তা অটোস্ক্রিনিং এর মাধ্যমে এডিট হওয়ার পরে
প্রকাশযোগ্য হিসাবে বিবেচিত না হলে তা যেন
প্রকাশই না হয় ।

বাক স্বাধিনতা সকলেরই আছে তবে তা
কোনমতেই ব্লগের স্বীকৃত নীতিমালা ও
শর্ত লংগন করে নয় ।

সকলের ঐকান্তিক সহযোগীতায় নীজেদের
সুকুমার মনের মাধুরী মিশিয়ে সর্বজনগ্রাহ্য
সৃজনশীল ও কল্যানমুখী লেখা প্রকাশের
অবারিত সুযোগ সুবিধা দানকারী সামু
ব্লগের বিকাশ ঘটুক এ কামনাই রইল ।

আপনার প্রতি রইল শুভকামনা ।





১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ সকাল ১০:২৫

আহমেদ জী এস বলেছেন: ডঃ এম এ আলী,




ঠিকই বলেছেন - লেখার বিষয়বস্তুর বাইরে গিয়ে অনেকেই অপ্রাসঙ্গিক কথামালার অবতারনা করে মম্তব্য করেন । আর বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সে সকল অপ্রাসঙ্গিক কথামালার রেশ ধরে অপ্রয়োজনীয় বাকবিতন্ডার সৃষ্টি হয় যা অনেক ক্ষেত্রে ব্যক্তিগত পর্যায় ও অশালীন ভাষার ব্যবহার পর্যন্ত গড়ায়, যা মোটেও কাম্য নয় ।
ব্লগে সব ক্যাচালের জন্ম কিন্তু এভাবেই হয়। ব্লগারদের ব্যবহৃত শব্দ বা বাক্য অনেক ক্ষেত্রেই শালীনতা কিম্বা নিদেনপক্ষে ভদ্রতাও বজায় রাখেনা। এমন অশালীন লেখার প্রতিবাদ করতে গিয়ে প্রতিবাদকারীরাও ঐ একই কাজটি করেন। ভাবেন, অনেক প্রতিবাদ করা গেছে। এসব দেখে যাদের বিরূদ্ধে এমন প্রতিবাদ, তারাও ছেড়ে বসেন না। দ্বিগুন উৎসাহে তারাও পাল্টে ঝাঁপিয়ে পড়েন। কেউই ধৈর্য্য বা ভদ্রতা ধরে রাখতে হয় আগ্রহী নন বা জানেন-ই না। এটা একটা চক্রের মতো ঘুরতেই থাকে যা থেকে ব্লগ দূষিত হয়ে পড়ে, নিরিহ ব্লগারেরা শ্বাসকষ্টে ভোগেন।

তাই, স্বয়ংক্রীয়ভাবে অশালীন বা অপ্রাসঙ্গিক মন্তব্য ডিলিট করার যে ব্যবস্থার কথাটি বলেছেন তা ব্লগ কর্তৃপক্ষ ভেবে দেখতে পারেন।
এ ব্যাপারে সামু কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

৬| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ ভোর ৬:৩৯

সাসুম বলেছেন: একি করলেন স্যার! ব্লগের পিটচাপড়াচাপড়ি গাধা সিন্ডিকেট এর এক্মাত্র অবলম্বন টাও ভেংগে দিলেন ভরা মজলিসে! উনারা এখন কি নিয়ে বাঁচবেন? কাকে নিয়ে গাইলাবেন? কার মুন্ডুপাত করবেন? কার ধুতি খুলবেন? কাকে গালাগালি করে নিজেদের বংশ পরিচয় তুলে ধরবেন? কে দিবে আশা , কে দিবে ভরসা? কে করবে এখন ব্লগ নোংরা? কারা এখন ডাস্টবিনের ময়লা তুলে সেটা খুটাবে? মজলিশে শুরায় এখন কি নিয়ে আলোচনা হবে?


যাই হোক, উনারা কেন করেন তাহার একটা উত্তর আপনি নিজ থেকে দিয়ে দিয়েছেন।


কেন আমরা সেই দুর্গন্ধে ভরা কচুরীপানা এড়িয়ে যাওয়ার মানসিকতা-সাহস-ইচ্ছে কোনটাই পোষন করতে পারছিনে? কেনই বা বারবার তাতেই ঠোক্কর খেয়ে যাচ্ছি ? দুর্গন্ধ পছন্দ করি বলে?


আমাদের গ্রামে একটা প্রবাদ প্রচলিত আছে- কুত্তারে যায় তেলাই দিতে, কুত্তায় যায় গু খাইতে। অর্থাৎ, যতই ভাল করে মোটীবেশান বা প্ররোচনা দেন না কেন, যার যা অভ্যাস সে সেটা করবে।

তো যাহারের ডাস্টবিনের ময়লা খাওয়ার অভ্যাস তারা তো সেই ডাস্টবিনের ময়লা নীচে নামিয়ে এনে জনসম্মুখে সেখান থেকে ময়লা বের করে খাবে, তাই নয় কি? কারন- রতনে রতন চেনে শুয়রে চেনে কচু। যতই ধৌত করা হোক, কয়লা ধুইলে ময়লা কখনোই যাবেনা।

১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ সকাল ১১:২০

আহমেদ জী এস বলেছেন: সাসুম,



মন্তব্যের জন্যে ধন্যবাদ।
আমি কিন্তু আপনার উল্লেখ করা সিন্ডিকেটটিকেই শুধু বলিনি, বলেছি আরও সব সিন্ডিকেটবাজদের বা যারা যারা আপনার বলা সিন্ডিকেটটিকে ধুইয়ে দিতে অশালীন শব্দ বা বাক্য রচনা করে যাচ্ছেন অহেতুক তাদের সবাইকে। ২নং প্রতিমন্তব্যটি দেখে নেবেন অনুগ্রহ করে।
আপনার গ্রামে প্রচলিত প্রবাদটিতেই তো যতো ভয়, উভয় পক্ষের সুমতি হবে কিনা কখনও!

৭| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ সকাল ৭:২১

নজসু বলেছেন:



পুরো পোষ্টটা গভীর আগ্রহ নিয়ে পাঠ করলাম। কবিগুরুর কথাটাই আমি বলতে চাই-

উত্তম নিশ্চিন্তে চলে অধমের সাথে
তিনিই মধ্যম যিনি চলেন তফাতে

নিজের বাবা মন্দ হলেও তিনি বাবা।
নিজের ভাই মন্দ হলেও সে ভাইই থাকে।
সবার প্রাপ্য অধিকার সবারই থাকা উচিত।

সবার সাথে তাল মিলিয়ে পথ চলতে চলতে বলি শুভ ব্লগিং।

১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১১:১২

আহমেদ জী এস বলেছেন: নজসু ,




উত্তম নিশ্চিন্তে চলে অধমের সাথে
তিনিই মধ্যম যিনি চলেন তফাতে

ব্যাপারটা সেটাই। অধমের সাথে এই তফাতে থাকতে পারাটাই ব্লগের পরিবেশকে সুন্দর ও শালীন রাখতে পারে।

৮| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ সকাল ১০:০৩

জুল ভার্ন বলেছেন: ভাইজান,
সালাম নিবেন।
যদিও আপনিও সেই বর্জ্য দূর্গন্ধটা নিয়েই লিখেছেন!
আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি- সামু মডারেটর সেই দূর্গন্ধ অপসারণ করে সঠিক কাজটিই করেছেন। বর্তমানে দূর্গন্ধটার কতিপয় কতিপয় সহযোগী তার জন্য মায়াকান্না কেঁদে প্রত্যেকদিন সামুর বিরুদ্ধে বিষোদগার করছে, সামুকে হেফাযতের আস্তানা, মৌলবাদের পৃষ্ঠপোষক বলে ম্যাতকার করছে-তাদেরকে ব্লগা ছেড়ে তাদের অভয়ারণে যেতে বলতে পারে। যদি স্বেচ্ছায় না যায়-তাহলে তাদেরকেও দূর্গন্ধটার সহযাত্রী করতে পারে।

ধন্যবাদ আপনার সুলিখিত পোস্টের জন্য।

১৬ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১২:১২

আহমেদ জী এস বলেছেন: জুল ভার্ন,




না, আমি সেই বর্জ্য দূর্গন্ধটা নিয়ে লিখলেও লেখার কোনও শব্দে বা বাক্যে দূর্গন্ধ ছড়াইনি। ব্লগের পরিবেশে অহেতুক যেন দূর্গন্ধ না ছড়ায় সে জন্যে সতর্কীকরণ বার্তা দিয়েছি।

৯| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ সকাল ১০:১৮

শেরজা তপন বলেছেন: এতদিন এমন একটা লেখার জন্য অপেক্ষা করছিলাম...

১৬ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১:৫৬

আহমেদ জী এস বলেছেন: শেরজা তপন,




অপেক্ষা না করে আপনি নিজেও তো লিখতে পারতেন!
যাকগে...... অপেক্ষার হাত থেকে আপনার রেহাই তো মিললো! ;)

১০| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ সকাল ১০:৪০

রোকসানা লেইস বলেছেন: সহমত। সৃজনশীলতার চর্চা ব্যাক্তি আক্রমণ আর কাঁদা ছোড়াছুড়ির মাঝে থেমে গেছে।
লেখার পরিবেশ ফিরে আসুক।

১৭ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১১:১১

আহমেদ জী এস বলেছেন: রোকসানা লেইস,




ব্যাক্তি আক্রমণ আর কাঁদা ছোড়াছুড়ির মাঝে সৃজনশীলতার চর্চা থেমে যাওয়া বন্ধ করতেই এই লেখা।
লেখার পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে সবাইকে একজোট হয়ে সৃজনশীলতা আর শালীনতার চর্চা করতে হবে।

১১| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ দুপুর ১:২৩

আখেনাটেন বলেছেন: মরা গাঙে বোয়াল চিতলেরা কবেই অক্কা পেয়েছে.....এখন মলা, ঢেলারা যদি ঢুসাঢুসা করি....তাহলে তো কাদার প্যাঁকে দম যাওয়ার জন্য অপেক্ষা করা ছাড়া আর কোনো গতি নেই.....? দম যাওয়ার আগে আর একটা পোস্ট করলুম...এখন ঢুঁস দিয়ে উদ্ধার করুন... :-B

১৭ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১১:৪২

আহমেদ জী এস বলেছেন: আখেনাটেন,




ব্লগের বিশাল দীঘিটাতে ক্রমে ক্রমে নষ্ট ও পচনজাত শৈবাল জমে জমে এতোটুকু পুকুরে পরিনত করেছে। সেই এতোটুকু পুকুরেও শৈবাল ঘেটেঘেটে কাদার প্যাঁক তুলে একটা দম যাওয়ার অবস্থা তৈরী করা হচ্ছে বারে বারে। এতে রূপালী মাছেরা খাবি খাচ্ছে নিয়ত।
এই খাবি খাওয়ার হাত থেকে পুকুরটাকে বাঁচতে লেখাটি খানিকটা আয়োজন। পচে যাওয়া শৈবাল সরাতে জাল টেনে যাওয়া আর কি!!!!!!!!!

ঢুঁস দিয়ে আপনাকে উদ্ধার কর হয়েছে। :P

১২| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ দুপুর ১:৫৪

নতুন নকিব বলেছেন:



একই কথা বারবার বলা, শোনা কিংবা আলোচনা করা - কোনটাই ভালো লাগে না। কিছু বিষয় পছন্দ নয় বিধায় তাতে পারতপক্ষে মন্তব্যও করি না। আর ব্যক্তি আক্রমনাত্মক যে কোন কিছুই এড়িয়ে চলার চেষ্টা করি। ব্লগ কর্তৃপক্ষ এই ব্লগ কমিউনিটির বৃহত্তর স্বার্থে যখন যে পদক্ষেপ গ্রহণ করে থাকেন, আমার অভিমত বা বিশ্বাস কিংবা স্বার্থের বিরুদ্ধে গেলেও ব্লগের বৃহত্তর স্বার্থে সেই পদক্ষেপ মেনে নেয়াকে সঠিক মনে করি। সাম্প্রতিককালের আলোচিত ঘটনার ক্ষেত্রেও আমার অনুভূতি এটাই।

পোস্টে সহমত পোষন করছি।

শুভকামনা জানবেন। +

১৮ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১২:০২

আহমেদ জী এস বলেছেন: নতুন নকিব,




সহমতের জন্যে ধন্যবাদ।

মিষ্টি হলেও রোজ রোজ খেতে ভালো না লাগারই কথা, আর এসব তো তেতো আর দূর্গন্ধযুক্ত!!!!!!!!!!

১৩| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ দুপুর ২:১১

জুন বলেছেন: আপনার লেখার প্রতিটি লাইনের সাথে সহমত পোষণ করছি আহমেদ জী এস। আমরা মিষ্টিকে কচলাতে কচলাতে চিরতার চেয়েও তিতা করে ফেলি। চিরতারও যে একটা স্বাদ আছে অতিরিক্ত কচলিয়ে তাকেও বিস্বাদ করে ফেলি।
লেখায় প্লাস।

১৮ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১২:২৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: জুন,




লেখার প্রতিটি লাইনের সাথে সহমত পোষণ করায় অজস্র ধন্যবাদ।
আমরা মিষ্টিকে কচলাতে কচলাতে চিরতার চেয়েও তিতা করে ফেলি। সেটাই তো বলেছি। আর একারনেই অনেক সময় ব্লগে আসতে দ্বিধা হয়, লেখার হাত গুটিয়ে আসে!

১৪| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ দুপুর ২:১২

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: আশা করি আপনার এই লেখার পর ব্লগাররা নিজেদের মধ্যে কাদা ছোড়াছুঁড়ি বাদ দিয়ে সৃষ্টিশীল লেখার দিকে মনোনিবেশ করবে। তবে এই কয়দিনে দেখা গেছে যে অনেক কম সক্রিয় ব্লগার তাদের ব্লগে উপস্থিতি জানান দিয়েছেন এই কাদা ছোড়াছুঁড়ির ঘটনাগুলিকে কেন্দ্র করে। তাদের প্রতি আহবান রইল তারা যেন সব সময়ই সক্রিয় থেকে ব্লগকে জমজমাট রাখেন।

১৮ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১২:২৭

আহমেদ জী এস বলেছেন: সাড়ে চুয়াত্তর,




একজন বিদগ্ধ ব্লগারের মতোই মন্তব্য।
ঠিকই বলেছেন --- এই কাদা ছোড়াছুঁড়ির ঘটনাগুলিকে কেন্দ্র করে অনেক সময় ব্লগে আসতে দ্বিধা হয়, লেখার হাত গুটিয়ে আসে!
আপনার ইচ্ছে পূর্ণ হোক।

১৫| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ বিকাল ৪:২৭

জ্যাকেল বলেছেন: আমি নিজে এই বিষয়ে আর কোন পোস্টে কিছুই বলব না বলে ভেবে নিয়েছিলাম কিন্তু আপনার এই পোস্টে মনে হয় শেষ মন্তব্যটি করেই ফেলি। (শেষ মন্তব্য আপনার আলোচিত ব্যাপারখানা নিয়েই)

ভাইসাহেব যেন মনের কথাগুলোই বেশ খানিকটা তুলে ধরলেন। ব্লগে গত দেড় বৎসরের ও অধিক সময় ধরে গাধার ছবি দেখতে দেখতে অনেক ব্লগারই হাঁপিয়ে উঠেছিলেন। তার মধ্যে আলোচিত ঐ ব্লগারের শাগরেদ মাগরেদ'দের প্রথম পাতা ভরানো দেখে অন্যান্য ব্লগারেরাও ঝাঁপিয়ে পড়েন উনাকে নিয়ে। আমি এইসব দেখে (ব্যস্ততার মধ্যেও লগিন না করে যাই না) আর লগিনই করিনি। তো সর্বকালের সেরা গাধা নির্বাচিত হইবার পরে উনার দৌরাত্ম এতই বেড়েছিল যে ব্লগ কর্তৃপক্ষ তাঁদের শেষ সম্বল সোলেমানি ব্যান করতে বাধ্যই হয়ে গেলেন।
মনের কথা বলি- আমি মোটেও চাই না উনি ব্লগিং করা বাদ দেন। কিন্তু উনার ব্যবহার দিনে দিনে এতই আক্রমণ নির্ভর হয়ে গেল যে আমি নিজেও এ ব্যপারে মত দিয়ে বসলাম। ফলে দুই চারজনের গাধা সিন্ডিকেট মোটামুটি ভালই সক্রিয় হয়ে গেল। ধ্যাৎ! আমি আবার ঐ ঝামেলাতে ফেসে গেলাম।
যাক, এখানে ভাই আসি মনের আনন্দে ব্লগিং করতে। ফেসবুকে যেটা করা যায় না, সেটা ব্লগে খুব সুন্দরভাবে করা যায়। শিক্ষিত মানুষের জন্য ব্লগ হইতেছে এক দারুণ সুযোগ। তাই এই জায়গা যথাসম্ভব ক্যাচাল প্রবণ লোকদের দুরে রাখাই মঙ্গলজনক। তাই আমার মতামত হইতেছে-

কে কি লিখল এটা যার যার ব্যাপার। সীমা অতিক্রম করলে সেটা ব্লগ মডারেশন আছে। আপনি আমি ব্লগে কিছু বলার মনে হলে সেটা কমেন্ট করব, ভাল না লাগলে স্রেফ এড়িয়ে যাব শুধু শুধু অন্যকে শুনিয়ে শুনিয়ে আড়কথা বলব কেন? সাধারণ ব্লগার হিসাবে এই নিয়ম/নীতি মেনে চললেই তো সব ঠিকঠাক। কথায় আছে, নিজে ঠিক তো দুনিয়া ঠিক। এই জিনিসটা আমাদের সবার(ইস্যু কনসার্নড) জন্য একটু মনে রাখা দরকার।

১৮ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১২:৪২

আহমেদ জী এস বলেছেন: জ্যাকেল,




সুধী ব্লগারেরা আপনার মতো একই ধারনা পোষন করেন যে - এখানে ভাই আসি মনের আনন্দে ব্লগিং করতে। ফেসবুকে যেটা করা যায় না, সেটা ব্লগে খুব সুন্দরভাবে করা যায়। শিক্ষিত মানুষের জন্য ব্লগ হইতেছে এক দারুণ সুযোগ। তাই এই জায়গা যথাসম্ভব ক্যাচাল প্রবণ লোকদের দুরে রাখাই মঙ্গলজনক।

পোস্টের মূল কথাটিই বলেছেন সংক্ষেপে - কে কি লিখল এটা যার যার ব্যাপার। সীমা অতিক্রম করলে সেটা ব্লগ মডারেশন আছে। আপনি আমি ব্লগে কিছু বলার মনে হলে সেটা কমেন্ট করব, ভাল না লাগলে স্রেফ এড়িয়ে যাব শুধু শুধু অন্যকে শুনিয়ে শুনিয়ে আড়কথা বলব কেন? সাধারণ ব্লগার হিসাবে এই নিয়ম/নীতি মেনে চললেই তো সব ঠিকঠাক। কথায় আছে, নিজে ঠিক তো দুনিয়া ঠিক। এই জিনিসটা আমাদের সবার(ইস্যু কনসার্নড) জন্য একটু মনে রাখা দরকার।

ধন্যবাদ এমন মন্তব্যটির জন্যে।

১৬| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ বিকাল ৫:৪৮

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: খুব ভাল লিখেছেন ভাইয়া।ধন্যবাদ।

১৮ ই জানুয়ারি, ২০২২ সকাল ৯:২০

আহমেদ জী এস বলেছেন: মোস্তফা সোহেল,




ধন্যবাদ লেখাটিকে ভালো বলার জন্যে।

১৭| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ সন্ধ্যা ৬:২৭

কাওসার চৌধুরী বলেছেন:



গত ক'দিন থেকে লগইন না করেই ব্লগ পড়েছি। কমেন্ট করার মতো কোন পোস্ট চোখে পড়েনি বলে চুপচাপ থেকেছি। পারস্পরিক রেসপেক্ট এবং শুভবুদ্ধির অভাবটা খুব দৃষ্টিকটু মনে হয়েছে। দিনের পর দিন এসব পোস্ট এবং মানহীন লেখা ব্লগের মানকে ছোট করেছে। ব্লগ কর্তৃপক্ষ একটি নিক বন্ধ করে দিয়েছেন। যাকে ব্লক করা হয়েছে উনাকে এর কারণ নিশ্চয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন। ব্লগের নিয়ম মেনেই তা করা হয়েছে। এজন্য সংশ্লিষ্ট ব্লগার এবং ব্লগ মডারেশন টিম বিষয়টি দেখবে। বাকিরা এই বিষয়টি নিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে পোস্ট দেওয়া, পোস্টো নোংরা মন্তব্য করা, নির্দিষ্ট কোন নিকের পক্ষে-বিপক্ষে অবস্থা নেওয়া, নোংরা কমেন্ট করা ইত্যাদি মোটেও কাঙ্ক্ষিত নয়। কেউ কেউ তো একের পর এক কমেন্ট করে বিষয়টিকে আরো উসকে দিচ্ছেন।

শুভ নববর্ষ।

১৮ ই জানুয়ারি, ২০২২ সকাল ৯:২৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: কাওসার চৌধুরী,




অনেকদিন পরে দেখা মিললো!

ব্লগ কর্তৃপক্ষ একটি নিক বন্ধ করে দিয়েছেন। যাকে ব্লক করা হয়েছে উনাকে এর কারণ নিশ্চয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন। ব্লগের নিয়ম মেনেই তা করা হয়েছে। এজন্য সংশ্লিষ্ট ব্লগার এবং ব্লগ মডারেশন টিম বিষয়টি দেখবে। বাকিরা এই বিষয়টি নিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে পোস্ট দেওয়া, পোস্টো নোংরা মন্তব্য করা, নির্দিষ্ট কোন নিকের পক্ষে-বিপক্ষে অবস্থা নেওয়া, নোংরা কমেন্ট করা ইত্যাদি মোটেও কাঙ্ক্ষিত নয়। কেউ কেউ তো একের পর এক কমেন্ট করে বিষয়টিকে আরো উসকে দিচ্ছেন।

এ কথাগুলোই বলতে চেয়েছি।
ধন্যবাদ , লেখাটির বটমলাইন তুলে ধরার জন্যে।

১৮| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ৮:২৫

জিকোব্লগ বলেছেন:



আপনাকে আমি একজন খুবই চিন্তাশীল সম্মানিত ব্লগার মনে করি।
আপনার বেশিরভাগ পোস্ট আমার পড়া হয়। সময়ের অভাবে অথবা
কম জানার জন্য মন্তব্য করা হয় না। আপনার এই পোস্টের সাথে সহমত।

কিন্তু একটা প্রশ্ন, বছরের প্রথম দিনে জনৈক ব্লগারের নিন্মোক্ত মন্তব্য দেখে
কিভাবে মন্তব্যে উল্লেখিত সম্মানিত ব্লগাররা মাথা ঠান্ডা রাখতে পারেন?

১৮ ই জানুয়ারি, ২০২২ সকাল ৯:৫৭

আহমেদ জী এস বলেছেন: জিকোব্লগ,




শুরুতেই ধন্যবাদ দিয়ে রাখি। জানার পরিধি যতোটুকুই হোক, মন্তব্য করতে তো সময় ছাড়া আর কোন বাঁধা রাখা উচিৎ নয়।

আমাদের চারপাশের নোংরামী আর দূর্গন্ধ স্বত্ত্বেও যারা মাথাটি ঠিক রাখতে পারেন তারাই ভদ্র ও পরিশিলিত মানুষ। ওসব দেখে বা শুনে মাথাটিকে নষ্ট করে ফেললে তো কাদা ছোঁড়াছুঁড়ি হবে, নোংরামী আর দূর্গন্ধ আরও বাড়বে।

জানি, সমাজের স্বার্থেই আবর্জনা সরানো প্রয়োজন তবে তা করতে হবে এমন ভাবে যাতে তা থেকে দূর্গন্ধ বেরুতে না পারে মোটেও। আশেপাশের মানুষদের যাতে নাকে কাপড় গুজতে না হয়। পরিবেশ যাতে দূষিত না হয়।
ব্যাপারটি এরকম --- খোলা ট্রাকে পাড়ার ময়লা আবর্জনা বা গার্বেজ না তুলে চারদিক ঢাকা ট্রাকে তুললেই দূর্গন্ধ ছড়ানোর চান্স কমে যাবে ৯৫-৯৯%।

১৯| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ৮:৫২

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: খুবই দরকার ছিল এমন একটি পোস্টের। লক্ষ স্যালুট আপনাকে।

১৮ ই জানুয়ারি, ২০২২ সকাল ১০:৫৮

আহমেদ জী এস বলেছেন: পদাতিক চৌধুরি,




আসলেই দরকার ছিল এমন একটি পোস্টের কারন একজন ব্লগারকে ব্যান করার পর থেকে যে হারে পক্ষে-বিপক্ষে পোস্ট দেওয়া, পোস্টে নোংরা মন্তব্য করা, নির্দিষ্ট কোন নিকের পক্ষে-বিপক্ষে অবস্থা নেওয়া, নোংরা কমেন্ট করা ইত্যাদি শুরু হয়েছিলো ( যার কোনও দরকারই ছিলোনা কারন ব্লগ কর্তৃপক্ষ তো সিদ্ধান্ত দিয়েই দিয়েছিলেন) তাতে বিষিয়ে উঠেছিলো ব্লগখানা। বিরক্ত আর বিব্রত হচ্ছিলেন ব্লগারেরা।
কেউ এ নিয়ে মুখ খুলতে এগিয়ে আসেন নি বলে আমাকেই এই কাজটি করতে হয়েছে।

আপনার স্যালুট সাদরে মাথায় তুলে রাখছি।

২০| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১০:০৯

ঢাবিয়ান বলেছেন: পোস্টের সাথে পুরোপুরি একমত। ব্লগের নিয়ম কানুন মেনে যদি কাউকে ব্যান করা হয় তবে সেটার বিরুদ্ধে কথা বলা মানে ব্লগের বিরুদ্ধাচারন। কতিপয় ব্লগার ক্রমাগত এই বিরুদ্ধাচারন করে পোস্ট দিয়েছে বলেই এর কাউন্টারেও পোস্ট বা কমেন্ট এসেছে। এই বিষয়ে ব্লগ কতৃপক্ষের আরেকটু শক্ত অবস্থান নেয়া উচিত ছিল বলে মনে করি তাহলে আর কাদাঁ ছোড়াছোড়ির ঘটনা ঘটত না। আপনার পোস্টের ৬ নং কমেন্টই লক্ষ্য করুন। ভাষায় না আছে শিষ্টাচার না আছে কোন ভদ্রতা , সভ্যতা। ব্লগের নীতিমালা পড়লে দেখা যাবে এই জাতীয় শব্দচয়ন কোন অবস্থাতেই গ্রনযোগ্য নয়। ব্লগের নীতিমালা কিছুদিন প্রথম পাতায় লটকিয়ে রাখলে ব্লগের পরিবেশ এর উন্নয়ন হবে বলে মনে করি।

১৮ ই জানুয়ারি, ২০২২ সকাল ১১:২২

আহমেদ জী এস বলেছেন: ঢাবিয়ান,



ব্লগের নিয়ম কানুন মেনে যদি কাউকে ব্যান করা হয় তবে সেটার বিরুদ্ধে কথা বলা মানে ব্লগের বিরুদ্ধাচারন। কতিপয় ব্লগার ক্রমাগত এই বিরুদ্ধাচারন করে পোস্ট দিয়েছে বলেই এর কাউন্টারেও পোস্ট বা কমেন্ট এসেছে।
ঠিক এই কারনেই লেখাটি লিখতে হয়েছে বাধ্য হয়ে।

ব্লগের নীতিমালা কিছুদিন প্রথম পাতায় লটকিয়ে রাখলে ব্লগের পরিবেশ এর উন্নয়ন করা মনে হয় সম্ভব নয় কারনটা আমাদের "স্বভাব"।
তবে স্বয়ংক্রীয়ভাবে অশালীন বা অপ্রাসঙ্গিক মন্তব্য ডিলিট করার ব্যবস্থা থাকলে ব্লগ আর কলুষিত হবেনা।

মন্তব্য লাইকড।

২১| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১০:৪৩

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:



আহমেদ জী এস ভাই, যেহেতু উক্ত ব্লগার নেই। আর কোনো সমস্যাও থাকার কথা না। আপনি বিস্তারিত লিখেছেন, আমার পক্ষ থেকে আর কিছু বলার নেই। ধন্যবাদ।

১৮ ই জানুয়ারি, ২০২২ সকাল ১১:৩৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: ঠাকুরমাহমুদ,



যে ব্লগারের কথা বলেছেন তিনি মন্তব্যে অপ্রাসঙ্গিক ও আক্রমনাত্মক ছিলেন সত্য, অনেক ব্লগারদের মনে কষ্টও দিয়েছেন তাও সত্য কিন্তু তার মন্তব্যে অশালীন শব্দ ছিলোনা । কিন্তু তিনি চলে গেলেও অশালীন শব্দ ও ভাষা ব্যবহারকারী ব্লগারেরা কিন্তু চুপ নেই। তারা বহাল তবিয়তেই আছেন।
আমি উভয় দলের "সুমতি হোক" এমন কথাই বলতে চেয়েছি। সে কথায় ঘাটতি থেকে গেলে আপনার পক্ষ থেকে অবশ্যই কিছু বলতে পিছপা হবেননা, আশা করি।

২২| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১১:২৯

মনিরা সুলতানা বলেছেন: মাঝে মাঝে এসব সব কিছু অতিক্রম করে, বাংলাদেশের যোগ্য নাগরিকের মত তখন ডুব দেই :(

১৮ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১১:৩৭

আহমেদ জী এস বলেছেন: মনিরা সুলতানা,




কি আর করবেন!
অতিরিক্ত যখন কোনও কিছুই ভালো নয় তখন ব্লগে কাদা ছোঁড়াছুড়ির এই অতিরিক্ততাও ভালো লাগার কথা নয় কারো।

২৩| ১৬ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১২:২৬

জটিল ভাই বলেছেন:
বরাবরের মতো আপনার যৌক্তিক পোস্ট নিয়ে কোনো দ্বিমত নেই প্রিয় ভাই। আচ্ছা, কিভাবে সাবলীল মন্তব্য করতে হয় সেই বিষয়ে কোনো পোস্ট পেতে পারি কি?

১৮ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১১:৫৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: জটিল ভাই,




ধন্যবাদ দ্বিমত নেই বলে কিন্তু একটি জটিল প্রশ্ন করেছেন।
সাবলীল মন্তব্য তখনই করা যাবে যখন নিজের সৃজনশীলতা, ভব্যতার উপর আস্থা থাকবে পুরোপুরি। থাকতে হবে লেখা খুঁটিয়ে পড়ার মানসিকতা, থাকতে হবে বিষয়বস্তু বোঝার ক্ষমতা।
আরো বললে জটিল হয়ে যাবে.................. :)

২৪| ১৬ ই জানুয়ারি, ২০২২ দুপুর ২:৫৬

কালো যাদুকর বলেছেন: এই পোষ্টটি এইমাত্র দেখলাম ৷ ধন্যবাদ পোষ্টটির জন্য।
উপরোক্ত বিষয়ে নতুন করে কিছু বলার নেই। সামু কর্তৃপক্ষ একটি সিন্ধান্ত নিয়েছেন। সবাইকে সেটা মেনে নিলেই হয়। কিন্তু আমাদের বাংগালীদের চির স্বভাব অনুসারে আমরা এই সমস্ত বিষয নিযে অযথাই তর্কে জড়িয়ে পড়ি এবং গন্ধ ছড়াই ৷ এর খানিকটা টেনশন উপরের মন্তব্যগুলোতে পরিলক্ষিত হল ৷
এই কারনে ব্যাক্তিগত ভাবে আমি ব্লগ থেকে বিশ্রাম নিচ্ছি ৷ এসব দলাদলি ভাল লাগে না বলে।

এটা অনেকেই হয়ত বুঝতে পারছেন কেনই বা একজন ব্লগারকে নিয়ে এত হইচই ৷ অতীতেও ব্লগারদের ডিসিপ্লিন করা হয়েছে। তখনো কি এরকম ঝামেলা সৃষ্টি হয়েছে ৷ আমি বলব কিছু কিছু ক্ষেত্রে হয়ত হয়েছে ৷ তবে এবার মনে হয় মাত্রা একটু বেশী ৷

যাই হোক ভাল থাকবেন ৷ধন্যবাদ৷

১৯ শে জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১২:২৫

আহমেদ জী এস বলেছেন: কালো যাদুকর,




যথার্থ বলেছেন - " সামু কর্তৃপক্ষ একটি সিন্ধান্ত নিয়েছেন। সবাই সেটা মেনে নিলেই হয়। কিন্তু আমাদের বাংগালীদের চির স্বভাব অনুসারে আমরা এই সমস্ত বিষয় নিয়ে অযথাই তর্কে জড়িয়ে পড়ি এবং গন্ধ ছড়াই ৷"

সে গন্ধ সইতে না পেরে ব্লগ থেকে বিশ্রামের কথা ভাবছেন! সেটা ঠিক হবে কি ? একজন যাদুকর কি তার যাদু দিয়ে ব্লগটাকে ফুলের বাগান বানিয়ে দিতে পারেন না ? পারেন না, ব্লগারদের দলাদলির মানসিকতাটাকে পাল্টে ফেলতে ??

আপনিও ভালো থাকুন আর থাকুন ব্লগেই।

২৫| ১৭ ই জানুয়ারি, ২০২২ দুপুর ২:১১

খায়রুল আহসান বলেছেন: সময়োপযোগী, দিক নির্দেশনামূলক পোস্ট। + +
মানুষের ভাষা তার অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ- সব কিছুরই দর্পন। ভাষার রূঢ়তা বা অশ্লীলতা তার অন্যান্য সব অর্জনকে ম্লান করে দিতে পারে, এটা অনেকে বোঝে না।
সকল পঙ্কিলতার অবসান হোক। সামনে ফাগুন মাস। ভালবাসার সুবাতাস সব দুর্গন্ধকে হটিয়ে দিয়ে আমাদেরকে আবার প্রাণ ভরে শ্বাস নিতে দিক! মন খুলে লিখতে দিক!

১৯ শে জানুয়ারি, ২০২২ সকাল ১০:২৮

আহমেদ জী এস বলেছেন: খায়রুল আহসান,




ভাষার রূঢ়তা বা অশ্লীলতা তার অন্যান্য সব অর্জনকে ম্লান করে দিতে পারে। রূঢ় সত্য।

আপনার মতো আমরাও চাই, সকল পঙ্কিলতার অবসান হোক। ফাগুনের মাসে ভালবাসার সুবাতাস সব দুর্গন্ধকে হটিয়ে দিয়ে আমাদেরকে আবার প্রাণ ভরে শ্বাস নিতে দিক!

সুন্দর মন্তব্য। প্লাস।

২৬| ১৭ ই জানুয়ারি, ২০২২ বিকাল ৫:২৩

কুশন বলেছেন:



পোড়া আলুর ভাগটা ছাড়তে পারলেন না?

১৯ শে জানুয়ারি, ২০২২ সকাল ১১:০১

আহমেদ জী এস বলেছেন: কুশন,




পোড়া আলুর ভাগটা ছাড়তে আর পারলুম কই? ছাড়াটা কি ঠিক হতো?
ভাগটা ছাড়লে তো আবার কেউ কেউ ঝাঁপিয়ে পড়ে ভাগটা নিজের পকেটে নিতে কামড়া-কামড়ি লাগাতো তাতে অশান্তি যে আরো বাড়তো! ঠিক কিনা ? হয়তো দেখা যেতো, আপনিই প্রথম ভাগটা নিয়ে কামড়া-কামড়ি শুরু করে দিয়েছেন! :| এখন আমি ভাগটা নিয়ে নিয়েছি বলে আপনার দিকে আর কেউ বাঁকা চোখে চাইবেনা বা আপনাকে আপনার মতোই বলবেনা - পোড়া আলুর ভাগটা ছাড়তে পারলেন না? :P

আপনার ভালোটাও আপনার সইলোনা ? :((

২৭| ১৮ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১:২২

অপু তানভীর বলেছেন: আহমেদ জী এস ভাই,
একটা কথা হচ্ছে, একটা ময়লা যখন দীর্ঘদিন একটা স্থানে থাকবে (অথবা থাকতে দেওয়া হয়) তারপর যখন সেই ময়লাকে পরিস্কার করা হয় তখন অবধারিত ভাবেই গন্ধ ছড়াবেই । এই গন্ধ আসে পাশের সাধারণত মানুষকে কিছু সময়ের জন্য পীড়া দিবে । এই যে পরিস্কার করা হয় যখন তখন আশে পাশের কিছু মানুষ এই গন্ধের কারণে বলবে যে ময়লা পরিস্কার না করলেই ভাল হত । কিন্তু বেশির ভাগ মানুষই ময়লা পরিস্কারের পক্ষেই থাকে । তাই নয় কি?
এবং এমন ভাবে যত ময়লাকে পরিস্কার না করে জমিয়ে রাখা হবে এবং যতদিন ধরে জমিয়ে রাখা সেটা থেকে দুর্গন্ধ তত ছড়াবে । সেটা পরিস্কার করতে তত ঝামেলা বাড়বে। এই জন্য কর্তপক্ষকে ভবিষ্যতে আরও সতর্ক থাকা উচিৎ যে ময়লা যেন জমতে না পরে । ময়লা শক্ত ভাবে আসন গেড়ে বসার আগেই যেন সেটা পরিস্কার করে ফেলা হয় !

আপনার পোস্টের জন্য ধন্যবাদ রইলো । সেই সাথে প্লাস !

২৮| ১৮ ই জানুয়ারি, ২০২২ সকাল ১১:২৪

বোকা মানুষ বলতে চায় বলেছেন: পুরো ঘটনার দায়ভার কার? ফ্রাংকেনস্টাইন এ রূপান্তর করলো কারা? আবার সেই ফ্রাংকেনস্টাইনকে বধও করলো কারা? সামু ব্লগের সবচেয়ে দূর্বল দিক হচ্ছে মাল্টি নিক এবং এর সুযোগে পিঠ চাপড়াচাপড়ি, সিন্ডিকেট ব্লগিং এসব। তবে, আপনি যাকে নিয়ে লিখেছেন, এরকম ইস্যু আগেও তো হয়েছে এই ব্লগে। তাই কর্তৃপক্ষের উচিত একটা বহুদিনের প্রচলিত ব্লগ পরিচালনা নীতি থেকে সরে এসে সময়োপযোগী কিছু সিদ্ধান্ত নেয়ার। নানান দেশীয় আন্তর্জাতিক ভিন্ন মাত্রার প্ল্যাটফর্ম এর সাথে টিকে থাকার লড়াই করার সময়ে সামু ব্লগ এইসব নিকৃষ্ট শ্রেণীর ইস্যু হ্যান্ডেল করতে ব্যস্ত থাকে। দৈনিক গড়ে ৫০টা লেখা পোস্ট হয় না, তার মধ্যে মানসম্মত কথাটা না হয় বাদই দিলাম।

যাক বাবা, আমি বোকা মানুষ, আমার মত থাকি।
আমার মত যাই, আবার আমার মত ফেরত আসি।
মামুর ব্যাটা সামু তরে এত্ত ভালবাসি। :)

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.