নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সবাই যখন নীরব, আমি একা চীৎকার করি \n--আমি অন্ধের দেশে চশমা বিক্রি করি।\n

গিয়াস উদ্দিন লিটন

গিয়াস উদ্দিন লিটন › বিস্তারিত পোস্টঃ

নাফিস বিন জাফর - প্রথম অস্কারজয়ী বাংলাদেশি ও-- (এক পোস্টে ৫ জন)

৩০ শে আগস্ট, ২০১৫ সন্ধ্যা ৭:৫৮

প্রবাসে বাংলাদেশের রক্তের উত্তরাধিকারী গুণীগন-১৮,১৯,২০,২১,২২।

যুক্তরাষ্ট্রের ‘প্রেসিডেন্ট অ্যাওয়ার্ড ফর এডুকেশনাল এক্সেলেন্স’ বিজয়ী আনিকা জাহান



আনিকা জাহান আহমেদ, অল্প বয়সেই যুক্তরাষ্ট্রের ৫০টি প্রদেশের দ্বাদশ শ্রেণীর সমাপনী পরীক্ষায় মেধাবী সব শিক্ষার্থীর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে সর্বোচ্চ রেজাল্টধারী ১০ শিক্ষার্থীর একজন হওয়ার গৌরব অর্জন করেছেন ।

জিতে নিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের ‘প্রেসিডেন্ট অ্যাওয়ার্ড ফর এডুকেশনাল এক্সেলেন্স’ । এই কৃতিত্বের জন্য প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাও অভিনন্দনপত্র পাঠিয়েছেন তাকে। তার এই সাফল্যে আনন্দিত যুক্তরাষ্ট্রের গোটা বাঙালি কমিউনিটি।

যুক্তরাষ্ট্র সরকার প্রতিবছর উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় কৃতিত্বপূর্ণ সাফল্যের জন্য ১০ মেধাবী শিক্ষার্থীকে প্রেসিডেন্ট অ্যাওয়ার্ড ফর এডুকেশনাল এক্সেলেন্স পদক প্রদান করে থাকে ।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা স্বাক্ষরিত অভিজ্ঞানপত্র ও পদক তুলে দেওয়া হয় আনিকার হাতে। শুধু উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার সাফল্যই নয়, তিনি প্রতিটি শ্রেণীর সমাপনী পরীক্ষায় অর্জন করেছেন একের পর এক বিজয়মুকুট ।

১৯৯৯ সালে নিউইয়র্ক প্রদেশের বাঙালি-অধ্যুষিত এলমাস্ট এলাকার পিএস.৮৯.কিউ কিন্ডারগার্টেনে আনিকার শিক্ষায় হাতেখড়ি। ওয়ালটার এইচ ক্লোরে স্কুল অ্যান্ড লিডারশিপ, ফ্লাশিং স্কুল প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভালো ফলের জন্য স্বর্ণপদকসহ বহু সম্মানজনক পুরস্কার জিতে নেন আনিকা। সর্বশেষ তার ঝুলিতে জমা হলো প্রেসিডেন্ট অ্যাওয়ার্ড ফর এডুকেশনাল এক্সেলেন্স।

আনিকা এখন যুক্তরাষ্ট্র সরকারের শিক্ষাবৃত্তি পেয়ে বিশ্বের অন্যতম সেরা স্ট্রোনি বুক বিশ্ববিদ্যালয়ে নিউরো সায়েন্সে পড়াশোনা করছেন ।
আনিকার গ্রামের বাড়ি সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলার চান্দারপাড়া গ্রামে। তার বাবা আমিন আহমেদ ১৯৮৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমান। ১৯৯৩ সালে আনিকার দেড় বছর বয়সে স্থায়ীভাবে তারা যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান ।

ভবিষ্যতে আনিকা বাংলাদেশের ভাবমূর্তি বিশ্বের বুকে উজ্জ্বল করতে কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। পাশাপাশি নামকরা একজন চিকিত্সক হয়ে যুক্তরাষ্ট্রের পাশাপাশি বাংলাদেশের দারিদ্র্যপীড়িত মানুষের সেবা করতে চান। আনিকা জাহান আহমেদ ।

প্রবাসে বাংলাদেশের রক্তের উত্তরাধিকারী গুণীগন-১৯

নাফিস বিন জাফর - প্রথম অস্কারজয়ী বাংলাদেশি




প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে নাফিস বিন জাফর অস্কার পুরস্কার পেয়ে ইতিহাসের পাতায় নিজেকে অমর করে রাখেন ।
তিনি যুক্তরাষ্ট্রের একাডেমি অব মোশন পিকচার আর্টস অ্যান্ড সায়েন্স বিভাগে অস্কার পেয়েছেন ।

হলিউড ব্লকবাস্টার মুভি 'পাইরেটস অব দ্য ক্যারিবিয়ান : অ্যাট ওয়ার্ল্ডস অ্যান্ড'-এ ফ্লুইড ডাইনামিক্সে অসাধারণ কাজ করায় ২০০৭ সালে তাকে এ পুরস্কারে সম্মানিত করা হয় ।

জাতীয় স্মৃতিসৌধের স্থপতি একুশে পদকপ্রাপ্ত সৈয়দ মইনুল হোসেনের ভাগ্নে এবং বরেণ্য চিত্রশিল্পী মুস্তফা মনোয়ারের নাতি , নাফিস বিন জাফরের বাবা জাফর বিন বাশার ও মা নাফিসা জাফর । বাবা মার একমাত্র সন্তান নাফিস ১৯৭৭ সালে ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন ।
তাদের গ্রামের বাড়ি রাজবাড়ী ।

জাফর কলেজ অব চার্লসটন থেকে সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। এ পর্যন্ত তিনি হলিউডের কয়েকটি ফিল্মে কাজ করেছেন। এর মধ্যে রয়েছে 'পার্সি জ্যাকসন অ্যান্ড অলিম্পিয়ানস : দ্য লাইটিং থিফ', 'দ্য সিকার : দ্য ডার্ক ইস রাইজিং', 'ফ্লাগস অব আওয়ার ফাদার', 'স্টিলথ'।

প্রবাসে বাংলাদেশের রক্তের উত্তরাধিকারী গুণীগন-২০



রাজশাহীর মেয়ে আনিকা পেলেন মার্কিন রাষ্ট্রপতি পুরস্কার

রাজশাহীর সন্তান অনিকা হাতেম আমেরিকার রাষ্ট্রপতি পুরস্কার অর্জন করেছেন।
আমেরিকার ফ্লোরিডার হারন্যানডো হাইস্কুলে ১২ ক্লাশ কৃতিত্বের সাথে গ্রাজুয়েজন সম্পন্ন হওয়া পর্যন্ত ,কখনো কোন ক্লাশে অনুপস্থিত না থাকার কৃতিত্ব অর্জন করা্‌ ২০১২ সালে তাকে আমেরিকার রাষ্টপ্রতি পুরস্কার প্রদান করা হয়।
সে ওই প্রতিষ্ঠান থেকে বোর্ড মেধাভিত্তিক দ্বিতীয় স্থান অর্জন করে।

এছাড়া অ্যামেরিকার মেধাভিত্তিক বহু পুরস্কার অর্জন করেছে সে। রাজশাহী তথা বাংলাদেশের গর্ব অনিকা হাতেম নগরীর মহিষবাথান নিবাসী আমেরিকা প্রবাসী মোহাম্মদ হাতেম ও গুলশান হাতেমের একমাত্র কন্যা।

আনিকা হাতেম ২০১৪ সালের ২০ ডিসেম্বর অ্যামেরিকার ইউনিভার্সিটি অব ফ্লোরিডার হতে একই সাথে ব্যাচেলর অব আর্টস সমাজ বিজ্ঞান বিষয়ে ও ব্যাচেলর অব সাইন্স মনোবিজ্ঞান বিষয়ে দক্ষতার সাথে উর্ত্তিণ হয়েছে।
বর্তমানে সে ইউনিভার্সিটি অব ফ্লোরিডায় গবেষণারত। আনিকা বর্তমানে অ্যামেরিকার ‘বাংলাদেশ স্টুডেন্ট অ্যাসোসিয়েশন’ এর সভাপতি।

প্রবাসে বাংলাদেশের রক্তের উত্তরাধিকারী গুণীগন-২১



আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের রূপকার কুমিল্লার কৃতিসন্তান রফিকুল ইসলাম

১৯৯৮ সালের ৯ জানুয়ারি রফিকুল ইসলাম জাতিসংঘের তৎকালীন মহাপরিচালক কফি আনানকে একটি চিঠি লেখেন। সেই চিঠিতে রফিকুল ১৯৫২ সালে ভাষাশহীদদের অবদানের কথা উল্লেখ করে প্রস্তাব করেন, একুশে ফেব্রুয়ারিকে ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ হিসেবে যেন স্বীকৃতি দেওয়া হয়।

সেসময় এ চিঠিটি মহাপরিচালকের প্রধান তথ্য কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত হাসান ফেরদৌসের নজরে আসে।

তিনি ১৯৯৮ সালের ২০ জানুয়ারি রফিকুল ইসলামকে অনুরোধ করেন, তিনি যেন জাতিসংঘের অন্য কোনো সদস্য রাষ্ট্রের কারো কাছ থেকে একই ধরনের প্রস্তাব আনার ব্যবস্থা করেন।

সেই পরামর্শ অনুযায়ী রফিকুল ইসলাম তার সহযোদ্ধা আবদুস সালামকে সঙ্গে নিয়ে ‘এ গ্রুপ অব মাদার ল্যাঙ্গুয়েজ অব দ্য ওয়ার্ল্ড’ নামে একটি সংগঠন দাঁড় করান। আর সেই সংগঠনের প্রচেষ্টার ফসল আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস।

একুশকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতি এনে দেওয়া রফিকুল ইসলাম কুমিল্লার ছেলে। ১৯৫৩ সালের ১১ এপ্রিল তিনি জন্ম নেন কুমিল্লা শহরের উজিরদীঘির পাড় এলাকায়। পিতা আবদুল গণি ও মাতা করিমুন্নেসা।

স্থানীয় হরেকৃষ্ণ স্কুলেই শুরু তার শিক্ষাজীবন। ১৯৫৮ সালে কুমিল্লা হাইস্কুল থেকে পাশ করেন মেট্টিক। এরপর এইচএসসি ও ডিগ্রি কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে।

রফিকুল ইসলাম একাত্তরে ২নং সেক্টরে মুক্তিযুদ্ধ করেন ।

সেসময় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় সম্মুখযুদ্ধে তার ছোট ভাই সাইফুল ইসলাম সাফু শহীদ হন।

১৯৯৫ সালে কানাডায় পাড়ি জমানো একুশের চেতনাদৃপ্ত এ প্রবাসী বাঙালি ২০১৩ সালের ২০ নভেম্বর কানাডার ভ্যাঙ্কুভার জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

প্রবাসে বাংলাদেশের রক্তের উত্তরাধিকারী গুণীগন-২২



কোরিয়ায় জনপ্রিয় চিত্রাভিনেতা সজল ।


২০১০ সালের নভেম্বরে উচ্চতর পড়াশোনার জন্য কোরিয়া যান সজল ।
অভিনয়ের চেয়ে ক্রিকেটের প্রতি প্রচন্ড আগ্রহ ছিল ১৯ বছর বয়সী সজলের । কোরিয়া আসার পর থেকেই সজল কোরিয়া ক্রিকেট লিগে নিয়মিত খেলে আসছিলেন।
তবে কোরিয়ায় ক্রিকেটের জনপ্রিয়তা না থাকায় অনেকটাই অভিনয়ের দিকে ঝুকে পড়েন সজল ।
২০১২ সালে জুংআং বিশ্ববিদ্যালয় নির্মিত একটি শর্ট ফিল্মে অভিনয় করার সুযোগ পান ।
যা বুসান ফিল্ম ফেস্টিভালে পুরস্কারও পেয়েছে ।

প্রথম ফিল্মে অভিনয় করেই চলচিত্র বোদ্ধাদের নজর কাড়তে সক্ষম হন সজল ।
তার অভিনীত আরেকটি বানিজ্যিক মুভি ‘সোরি’ (বাংলা অর্থ, শব্দ) মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে ।

বর্তমানে তিনি কোরিয়ার একটি জনপ্রিয় ড্রামা সিরিয়াল ‘Rude Miss Young-Ae’ (막돼먹은 영애씨) এ অভিনয় করেছেন । কোরিয়ান সময় প্রতি বৃহস্পতিবার রাত ১১টা ১০ মিনিটে টিভিএন (tvN) চ্যানেলে জনপ্রিয় এই ড্রামা সিরিয়ালটি প্রচারিত হচ্ছে ।

পূর্বের পর্ব সমুহ-
১/ রাশিয়ার শ্রেষ্ঠ জিমন্যাস্টিক রিতা
২/ ওবামার উপদেষ্টা , বিজ্ঞানী ড. এন নীনা আহমাদ
৩/ কানাডার ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটির প্রেসিডেন্ট ও ভাইস চ্যান্সেলর ড. প্রফেসর অমিত চাকমা ।
৪/ বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত জাপানি সুপার মডেল রোলা ।
৫/ বাংলাদেশি মেয়ে প্রিয়তি যখন 'মিজ আয়ারল্যান্ড' ।
৭/ ইউটিউব এর প্রতিষ্ঠাতা জাভেদ করিম।
৮/ বিশ্বের সেরা ৫০ উদ্যোক্তার একজন সুমাইয়া কাজী
৯/ পৃথিবীতে প্রেরণার আলোক ছড়ানো সাবিরুল
১০/জাতিসংঘের আন্ডারসেক্রেটারি জেনারেল আমিরা হক ।
১১/ সৌদি আরবের শ্রেষ্ঠ বৈজ্ঞানিক ড. মুহাম্মদ রেজাউল করিম
১২/ মার্কিন সেরা সংবাদ প্রযোজক তাসমিন মাহফুজ
১৩/ কাতার আমিরের উপদেষ্টা ডক্টর হাবিবুর রহমান ।
১৪/ ইউরোপে নিউক্লিয়ার গবেষণায় প্রথম বাংলাদেশি অনন্যা ।
১৫/ যুক্তরাষ্ট্রের বিদ্যুৎশক্তি গবেষণা ইনস্টিটিউটের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট -আরশাদ মনসুর
১৬/ কৃত্রিম মানব ফুসফুসের উদ্ভাবক; জিনবিজ্ঞানী আয়েশা আরেফিন টুম্পা
১৭/ বিশ্বের সেরা ৫০ বিজ্ঞানীর একজন , ড. আনিসুর রহমান ।

মন্তব্য ৩৬ টি রেটিং +৫/-০

মন্তব্য (৩৬) মন্তব্য লিখুন

১| ৩০ শে আগস্ট, ২০১৫ রাত ৮:০৮

জহিরুল ইসলাম কক্স বলেছেন: good job

৩০ শে আগস্ট, ২০১৫ রাত ৮:২৩

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: প্রথম মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ জহিরুল ইসলাম কক্স ।

২| ৩০ শে আগস্ট, ২০১৫ রাত ৮:১১

কাবিল বলেছেন: বাংলাদেশে কি গুণীজনদের রাখার জায়গা নেই?

৩০ শে আগস্ট, ২০১৫ রাত ৮:২৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: রাখার জায়গা হয়তো আছে কাবিল ভাই । নেই এঁদের সার্ভিস নেয়ার ক্ষেত্র ।
আমার পূর্বের একটা রিপ্লাই কপি করলাম -
আমার পূর্বে এক পোস্টে একজন গুণীকে নিয়ে আলোচনা করেছি । যার মাসিক স্যালারি ৩ লাখ ৫৫ হাজার ডলার ।
আশা করি ''হাতীর খোরাক'' :P দেয়ার সামর্থ্য একদিন বাংলাদেশেরও হবে !
অবশ্য খোরাকের চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ এঁদের কাজে লাগানোর ক্ষেত্র আর কাজের উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি করা ।
মাহাথির মোহাম্মদ তার দেশে এঁদের কাজের উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি করতে পেরেছিলেন বলেই তারা আজ এগিয়ে যাচ্ছে ।
মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ । একদিন আমরাও পারবো ।

৩| ৩০ শে আগস্ট, ২০১৫ রাত ৮:১৩

সুমি৭১৫৭ বলেছেন: অভিনন্দন সকল কে যারা বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের সুনাম করছে । এবং বাংলাদেশ কে এক অনন্য শিখরে নেওয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছে । শুধু তারা ই নন , আমাদের সকলের ই উচিত বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করার ।
আর ব্লগারকে ধন্যবাদ । কারন , এই পোস্টের মাধ্যমে না জানা কয়েকটি তথ্য পেলাম ।

৩০ শে আগস্ট, ২০১৫ রাত ৮:৩২

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: দেশপ্রেমী সুমি৭১৫৭ র মন্তব্যটি ভাল লাগলো ।
আপনার অবগতির জন্য জানাচ্ছি , পোস্টের নিচে , এডিট করে সিরিয়ালের পূর্বের পর্ব সমুহের লিঙ্ক দিয়েছি ।
আপনাকে ধন্যবাদ সুমি ।

৪| ৩০ শে আগস্ট, ২০১৫ রাত ৮:৫৯

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: বরাবরের মতোই অসাধারন!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!

দারুনসসসসসসসসসসসসসসসসসসসসসসসসসস!

হ্যাটস অফ টু অল অফ দেম
টু ইউ অলসো!

++++++++++++++++++++++++++++

৩০ শে আগস্ট, ২০১৫ রাত ১০:১৩

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: মন্তব্যের জন্য প্রথমেই ধন্যবাদ বিদ্রোহী ভৃগু ।
আমার কাছে মনে হচ্ছে পোস্ট টা বোর হয়ে যাচ্ছে ।
তাই জন প্রতি পোস্ট না দিয়ে , প্রতি পর্বে ৫ জনকে নিয়ে সংক্ষিপ্ত পরিসরে পোস্ট করবো ।
এতে ''ষ্টক''টা তাড়াতাড়ি শেষ করা যাবে ।

৫| ৩০ শে আগস্ট, ২০১৫ রাত ৯:১২

এস কাজী বলেছেন: আহা !!!!! দারুন দারুন। গর্ব গর্ব। ভাল লাগে এগুলা আইসা পড়তে। এত এত হতাশার মাঝে আপনার সিরিজটা একটু শান্তি দেয় গিয়াস ভাই :)

৩০ শে আগস্ট, ২০১৫ রাত ১০:২৩

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: সুন্দর ,প্রেরণাদায়ী মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ ভাই এস কাজী।

৬| ৩০ শে আগস্ট, ২০১৫ রাত ৯:৪২

আজাদ মোল্লা বলেছেন: জনাব , খুব ভালো কাজ ।
ভালো লাগে আপনার এই কাজ গুলি ।

৩০ শে আগস্ট, ২০১৫ রাত ১০:২৬

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনার মন্তব্যে উৎসাহ পেলাম , ধন্যবাদ মি আজাদ মোল্লা ।

৭| ৩১ শে আগস্ট, ২০১৫ রাত ১:৩১

সচেতনহ্যাপী বলেছেন: একসাথে এতো পালক রাখার মুকুটটাও যদি দিতেন।।

৩১ শে আগস্ট, ২০১৫ সকাল ৯:২৮

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: হাহাহাহ ধন্যবাদ সচেতনহ্যাপী ।

৮| ৩১ শে আগস্ট, ২০১৫ সকাল ৮:১১

বৃতি বলেছেন: জেনে ভাল লাগলো। শেয়ারের জন্য থ্যাংকস।

৩১ শে আগস্ট, ২০১৫ সকাল ৯:৩৩

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনাকেও অসংখ্য ধন্যবাদ বৃতি ।

৯| ৩১ শে আগস্ট, ২০১৫ সকাল ১০:২৫

যান্ত্রিক বলেছেন: দারুণ লাগছে আপনার সিরিজটা।

ড আহসান চৌধুরীকে নিয়েও লিখতে পারেন।
উনি বর্তমানে ইউনিভার্সিটি অফ টেক্সসা-এর মেকানিক্যাল বিভাগের দায়িত্বে আছেন, এছাড়াও নাসা-র নেক্সট জেনারেশন রকেট ইঞ্জিন তৈরির দায়িত্বে আছেন। উনি ১৯৯৩ সালে খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং-এ গ্রাজুয়েশন করেছেন।

http://faculty.utep.edu/Default.aspx?alias=faculty.utep.edu/Ahsan
http://www.newswise.com/articles/nasa-awards-5-million-to-utep-to-develop-next-generation-rocket-engines

৩১ শে আগস্ট, ২০১৫ বিকাল ৪:২০

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: এক্স কুয়েটিয়ান ড আহসান চৌধুরী সম্পর্কে আমি কিছু তথ্য সংগ্রহ করেছি ।
দুটি তথ্য পাচ্ছিনা -
১ / উনার বাড়ি কোন জেলায় ।
২/ উনি কত সালে নাশায় যোগ দেন ।
সম্ভব হলে সহযোগিতা করবেন ।
আপনাকে ধন্যবাদ যান্ত্রিক ।

১০| ৩১ শে আগস্ট, ২০১৫ সকাল ১১:২৬

জুন বলেছেন: অভিনন্দন এই সব কৃতি ব্যাক্তিদের আর গিয়াসলিটন আপনাকে ও ধন্যবাদ তাদের তুলে আনার জন্য আমাদের দৃষ্টির সামনে

৩১ শে আগস্ট, ২০১৫ বিকাল ৪:৪৪

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: পাঠে , মন্তব্যে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি ।

১১| ৩১ শে আগস্ট, ২০১৫ দুপুর ১২:৩৭

কামরুন নাহার বীথি বলেছেন: অভিনন্দন সকল কে, যারা বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করছেন, আমাদের দেশের জন্য সম্মান বয়ে আনছেন!!
গিয়াসলিটন ভাই, ধন্যবাদ আপনাকে, আপনি জানিয়ে যাচ্ছেন তাদের কৃতিত্ব!!!
অনেক শুভকামনা, ভাল থাকবেন আপনি!!

৩১ শে আগস্ট, ২০১৫ রাত ৮:০৫

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: সুন্দর মন্তব্যে উৎসাহ দেয়ায় আপনাকে ধন্যবাদ সিস কামরুন নাহার বীথি ।

১২| ৩১ শে আগস্ট, ২০১৫ দুপুর ১:০৫

হাসান মাহবুব বলেছেন: +++++

৩১ শে আগস্ট, ২০১৫ রাত ৮:২২

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: প্লাসের জন্য ধন্যবাদ হাসান মাহবুব ভাই ।

১৩| ৩১ শে আগস্ট, ২০১৫ বিকাল ৪:৩৮

সকাল রয় বলেছেন: চমৎকার

৩১ শে আগস্ট, ২০১৫ রাত ৮:৩৬

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: ধন্যবাদ সকাল রয় ।

১৪| ৩১ শে আগস্ট, ২০১৫ বিকাল ৪:৫৩

শতদ্রু একটি নদী... বলেছেন: ভালো হইছে এই পর্বও। ++

৩১ শে আগস্ট, ২০১৫ রাত ৯:৩৫

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: ধন্যবাদ শতদ্রু একটি নদী...

১৫| ০১ লা সেপ্টেম্বর, ২০১৫ রাত ১:৪৪

গেম চেঞ্জার বলেছেন: +++++

০১ লা সেপ্টেম্বর, ২০১৫ সকাল ১১:৪৫

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: প্লাসের জন্য ধন্যবাদ গেম চেঞ্জার ।

১৬| ০১ লা সেপ্টেম্বর, ২০১৫ সকাল ১০:২০

বাঘ মামা বলেছেন: আপনার এই ধারাবাহিকটা অনেক ভালো একটা কাজ, এই মানুষ গুলো আমাদের অহংকার।

শুভ কামনা সব সময় লিটন ভাই

০১ লা সেপ্টেম্বর, ২০১৫ দুপুর ১:০২

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: :P

১৭| ০১ লা সেপ্টেম্বর, ২০১৫ দুপুর ১২:১৪

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনার জন্যও শুভ কামনা বাঘ মামা ভাই :P

০৪ ঠা সেপ্টেম্বর, ২০১৫ সন্ধ্যা ৬:৪০

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: :P

১৮| ০১ লা সেপ্টেম্বর, ২০১৫ দুপুর ১২:২৩

রূপা কর বলেছেন: গর্বিত উনাদের কৃতিত্বে

০৪ ঠা সেপ্টেম্বর, ২০১৫ সন্ধ্যা ৬:৪২

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ রূপা কর

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.