নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সবাই যখন নীরব, আমি একা চীৎকার করি \n--আমি অন্ধের দেশে চশমা বিক্রি করি।\n

গিয়াস উদ্দিন লিটন

গিয়াস উদ্দিন লিটন › বিস্তারিত পোস্টঃ

আমার পোলা, বিজ্ঞানের ঝোলা!! =p~ =p~

২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:০০




- আব্বু , মামা বানান করতে পারি।
- কর ?
- ক আকার মা , চ আকার মা = মামা ।
শুনে আমি মূর্ছিত ।
অভিনব বানান রীতির প্রচলন কারী এই জ্ঞান তাপস আমার পুত্র , বয়স ৫ এর আসে পাশে । সবে প্লেতে ভর্তি হয়েছে । সারাদিন জ্ঞানের চর্চার মধ্যে আছে ।
প্রতিদিন ২/১ টা অক্ষর শিখছে ,পৃথিবীর জ্ঞানের দরজা তার জন্যে একটু একটু করে ফাঁক হচ্ছে । এই আনন্দটা সে ধরার চেষ্টা করছে । এই আনন্দ আমার মাঝেও সংক্রামিত হচ্ছে ।

জ্ঞান চর্চার পাশাপাশি তার দিনের একটা বৃহৎ অংশ কাটে , ব্যবহারিক বিজ্ঞানের নতুন নতুন আবিস্কারের নেশায় ।
সেদিন বাসায় গিয়ে দেখি মন খারাপ করে খাটে বসে আছে । ব্যাপার কি জিজ্ঞেস করায় বলল , আম্মু বকেছে ।
আরো বিশদে গিয়ে জানা গেল---
খাটের উপর থেকে ফুটবল নিক্ষেপ করে কিভাবে টিভির সুইচ অন অফ করা যায় এই আবিস্কারে প্রায় সফল হয়ে গিয়েছিল, মাঝখান থেকে গ্লাসটা ভেঙ্গে সবকিছু বরবাদ হয়ে গেল । তার আম্মু শব্দ শুনে কিচেন থেকে এসে দেখে এই কাণ্ড । তার পর-------
সান্ত্বনা দিয়ে বললাম , বাবারে , সব আবিস্কারকদের আবিষ্কারই সমসাময়িক জনগণ ভাল ভাবে নেয় নি । তাদেরকে প্রায়ই বকা ঝকা আর মাইর ধরের মধ্যে দিয়ে যেতে হয়েছে , আমিও জনগনের বাইরে নই , তাই রিমোট থাকার পরও ফুটবল নিক্ষেপ করে টিভি সুইচ অন অফ করতে হবে কেন, তা আমারও মাথায় ঢুকছেনা ।
পুত্রের চেহারা দেখে বুঝলাম আমার মূর্খতার প্রমান পেয়ে সে বড়ই নিরানন্দ বোধ করছে । (অনেক আগের একটি পোস্টের অংশ বিশেষ)


আমার পুত্র এখন অনেক বড়। এক’এ পাশ করে এবার ফাইভে উঠেছে।জ্ঞান তৃষা আর অজানাকে জানার আগ্রহ তার আরো বেড়েছে। একসময় পিতার মুর্খতা তার নিরানন্দের কারণ হলেও এখন পিতার কর্মে সে বড়ই প্রসন্ন বোধ করছে।
কারণ পিতা তার হাতে তুলে দিয়েছে ‘বিজ্ঞান বাক্স’।এ এক যাদুর বাক্স। অবসর পেলেই বসে পড়ছে এটা নিয়ে।নিজে নিজে ম্যানুয়েল পড়ছে আর নিজেই কি সব পরীক্ষা নিরীক্ষা চালিয়ে হেঁসে কুটি কুটি হচ্ছে।

সকালে বেশ কুয়াশা,বাহিরে অনেকটা অন্ধকার।নাস্তা সেরে গিন্নি সহ কম্বল মুড়ি দিয়ে পড়ে আছি। পাশের রুম থেকে উচ্চস্বরে হাসির শব্দে দুজনেই ছুটে গেলাম।দেখি পুত্র তখনো হাঁসছে আর সামনে কি একটা ভোঁ ভোঁ করে ঘুরছে।আমাদের দেখে বলল, আব্বু মোটর বানাইছি—
সুইচ অফ করে আমাদের দেখালো। আমি তাজ্জব! সামান্য কিছু তামার তার, একটা চুম্বক এর সাথে ব্যাটারী কানেকশন দেয়া।এটা কিভাবে ঘুরছে আমার নিজেরই মাথায় ধরছে না।

পুত্র বলল- আব্বু আরো অনেক মজার জিনিস আছে। দেখ আমি কি ভাবে ব্যাটারি ছাড়া এই মোটর দিয়ে লাইট জ্বালাই।
সে আরেক বিস্ময় ! মোটরের দুই তারে বাল্বের কানেকশান দিয়ে মোটরটা হাত দিয়ে ঘুরালেই লাইট জ্বলছে !!!

পাশে বসলাম। বিজ্ঞান বক্সটি আমার দেখার সুযোগ হয়নি। এখন দেখলাম, শিক্ষার সাথে আনন্দ জুড়ে দিয়ে শিশুদের জন্য এ এক অসাধারণ শিক্ষা উপকরন। যা শিশুদের চিন্তার জগতকে প্রসারিত করবে।
আমাকে পাশে পেয়ে পুত্র খলবল করে বিভিন্ন যন্ত্রপাতির বর্ননা দেয়া শুরু করলো। কোনটা দিয়ে কি করা যায়। দেখলাম সেখানে ২০ টা এক্সপেরিমেন্টের যন্ত্রপাতি দেয়া আছে।অনেক গুলির পরিক্ষা পুত্র চালিয়ে ফেলেছে। অনেক গুলি সম্পর্কে আমারও ধারনা ছিল, বইএ পড়েছি। কিন্তু নিজে করে দেখার সুযোগ হয়নি।

এই ভেবে ভাল লাগলো – মোবাইল গেম,ট্যাব,কার্টুন ফেলে আমার পুত্র এখন বিজ্ঞানের নানা এক্সপেরিমেন্ট হাতে কলমে করে দেখার আনন্দটা পাচ্ছে।আর আমি পাচ্ছি আমার পুত্রের চোখে মুখে আনন্দের ঝিলিক দেখার আনন্দ।
ধন্যবাদ ‘বিজ্ঞান বাক্স’।


মন্তব্য ৯৫ টি রেটিং +২৫/-০

মন্তব্য (৯৫) মন্তব্য লিখুন

১| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:০৮

কথাকথিকেথিকথন বলেছেন:





বল দিয়ে সুচ অন অফ ! হা হা

বিজ্ঞানবাক্স তো মনে হচ্ছে বেশ চমৎকার সৃজনশীল ব্যাপার । আজেবাজে খেলা থেকে দূরে রাখে ।

২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:১৫

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আমার কাছে এটাকে শিশুদের কৌতূহল উদ্দীপক ও চিন্তা শক্তি বাড়ানোর মত একটা উপকরণ বলে মনে হয়েছে।

২| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:১১

চাঁদগাজী বলেছেন:


ভালো, বাংগালী ছেলেমেয়েরা সায়েন্সকে ভয় পেয়ে সবাই "বিবিএ" পড়ার শুরু করেছে; এখন যদি আবার সায়েন্সের দিকে ফিরে, তবে রক্ষা।

২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:২১

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: ভালো, বাংগালী ছেলেমেয়েরা সায়েন্সকে ভয় পেয়ে সবাই "বিবিএ" পড়ার শুরু করেছে; এখন যদি আবার সায়েন্সের দিকে ফিরে, তবে রক্ষা। চমৎকার একটি কথা বলেছেন চাঁদগাজী । আসলে বিজ্ঞান এক মজার জিনিষ । আমাদের স্কুল গুলিতে বিজ্ঞান হাতে কলমে শিক্ষা দেয়া হয়না।ছাত্রদের কাছে বিজ্ঞানকে মুখস্ত করার বিষয় বলে ভীতিকর ভাবে উপস্থাপন করা হয়। ফলে ছাত্র জীবন থেকেই ছাত্রদের মাঝে বিজ্ঞান ভীতি কাজ করে।

৩| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:১৯

আহমেদ জী এস বলেছেন: গিয়াস উদ্দিন লিটন ,




বাপ হলো রম্যের নাসিরুদ্দিন হোজ্জা আর তার পুত্তুর হলো জুনিয়র আইনেষ্টাইন । :P
একেই বলে বিজ্ঞান বাক্সের যাদু । লেবু আর আলু থেকে যেমন বিদ্যুৎ উৎপাদন তেমনি ব্লগার লিটন থেকে বৈজ্ঞানিক উৎপাদন । B-)
বিজ্ঞান বাক্স আসলেই ছেলেমেয়েদের ভিডিও গেমসের আসক্তি থেকে দূরে সরিয়ে রাখতে সক্ষম হবে বলেই বিশ্বাস করি ।
আপনাদের দু'জনার জন্যেই রইলো অফুরান ভালোবাসা ।

২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:২৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: লেবু আর আলু থেকে যেমন বিদ্যুৎ উৎপাদন তেমনি ব্লগার লিটন থেকে বৈজ্ঞানিক উৎপাদন । B-) পোলার মা আপনার উপর ক্ষেপছে! =p~
বিজ্ঞান বাক্স আসলেই ছেলেমেয়েদের ভিডিও গেমসের আসক্তি থেকে দূরে সরিয়ে রাখতে সক্ষম হবে বলেই বিশ্বাস করি । আমারও এমতই বিশ্বাস।
সুন্দর মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ আহমেদ জী এস ভাই।

৪| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:২৭

অপ্‌সরা বলেছেন: বিজ্ঞান বাক্স এক মজাদার শিক্ষন উপকরণ! :)

২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:২৯

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: তোমার মত শিশু প্রেমীদের কাছে শিশুদের প্রদেয় মজার এক গিফট বক্সও বটে!

৫| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:২৭

শাহাদাৎ হোসাইন (সত্যের ছায়া) বলেছেন: বাবা ২জি আর পোলা ৪জি, ব্যাপার না।

একদিন দেখবেন আপনার পোলাকে মাইষে ব্লগারের বাচ্ছা কইয়া গালি দিবে :P

২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:৩৮

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: ধুর ভাইজান , কি সব অলুক্ষুনে কথা কন ! গালি দিব ক্যান?

৬| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:৩১

আবু তালেব শেখ বলেছেন: ভবিষ্যত উজ্বল

২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:৪২

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: ধন্যবাদ আবু তালেব শেখ

৭| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:৪০

মোহেবুল্লাহ অয়ন বলেছেন: বিজ্ঞান বাক্স এই দেশে ব্যাপক ভাবে জনপ্রিয় হওয়া উচিত। গ্রামের ছেলে-মেয়েদের কাছে আরোও বেশি করে পৌছানো উচিত।

২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:৪৫

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: বিজ্ঞান বাক্স এই দেশে ব্যাপক ভাবে জনপ্রিয় হওয়া উচিত। গ্রামের ছেলে-মেয়েদের কাছে আরোও বেশি করে পৌছানো উচিত। যথার্থ বলেছেন মোহেবুল্লাহ অয়ন ।

৮| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:৪৬

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: বিজ্ঞান বাক্স কোথায় পাওয়া যায়? আমারও একটা দরকার।

২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৯:১০

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: এখানে দেখুন সাদা ভাই

৯| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:৫৪

হাসান মাহবুব বলেছেন: @সাদা মনের মানুষ ভাই এই লিংকে গেলেই পাবেন।

২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৯:১২

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: ধন্যবাদ হাসান মাহবুব ভাই।

১০| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৯:৩৫

ভ্রমরের ডানা বলেছেন:

ঘরে ঘরে বিজ্ঞান বক্স চাই!

২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৯:৫৩

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: ঘরে ঘরে বিজ্ঞান বক্স চাই! আপনার সাথে সহমত।

১১| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১০:০৮

নূর-ই-হাফসা বলেছেন: বাচ্চাদের কে ভালো কাজে লাগানো যাচ্ছে তাহলে । এখন বাচ্চারা যে হারে কার্টুন দেখছে অযথা সময় নষ্ট করছে ।সব বাচ্চাদের কাছে বিজ্ঞান বাক্স পৌঁছনোর উচিত । খুব ভালো আইডিয়া ।

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:২৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: নূর-ই-হাফসা, এই বক্স হাতে পেলে আমি নিশ্চিত বাচ্চারা কার্টুনতো বটেই নাওয়া খাওয়াও ভুলে যাবে।

১২| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১০:৫৪

অাব্দুল্লাহ অাল কাফি বলেছেন: তখন আমি ক্লাস নাইনে। ফিজিক্স বইয়ে পড়লাম কুন্ডলী বা প্যাঁচানো তারের মধ্য দিয়ে বিদ্যুৎ প্রবাহিত করলে চুম্বক ক্ষেত্র তৈরী হয়।এই এক্সপেরিমেন্ট নিজে নিজে করতে গিয়ে শক খেয়ে বুঝেছিলাম বিদ্যুৎ কি জিনিস!
যাই হোক,
অন্যরকম বিজ্ঞান বক্স হাতের নাগালে।বাচ্ছারা হাতে নাতে বিজ্ঞান শিখে আনন্দ পাচ্ছে।বিজ্ঞানে আনন্দ না পেলে বাচ্চারা বিজ্ঞান শিখবে কিভাবে।
বিজ্ঞান ভীতি দূর করার জন্য "অন্য রকম বিজ্ঞান বাক্স" এক অনন্য জাদু বাক্স নিঃসন্দেহে বলা চলে।

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৩২

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনার অভিজ্ঞতার কথা জেনে আমারও একটা কথা মনে পড়ছে। একবার চার্জ দেয়ার জন্য আমি কারেন্টের নেগেটিভ পজেটিভ ব্যাটারির সাথে লাগিয়ে সুজ দিয়েছিলাম। সাথে সাথে আগুন লেগে গেছিল।
বিজ্ঞান ভীতি দূর করার জন্য "অন্য রকম বিজ্ঞান বাক্স" এক অনন্য জাদু বাক্স নিঃসন্দেহে বলা চলে। সহমত।।

১৩| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১০:৫৯

ধ্রুবক আলো বলেছেন: প্রত্যেক শিশুর হাতে এরকম বিজ্ঞান বাক্স পৌঁছে দেয়া খুব প্রয়োজন। চাঁদ গাজী ভাইয়ের মন্তব্যটা সুন্দর। আমাদের ছেলে মেয়েরা বিজ্ঞান ভয় পায়। এটা দূর করা এখন খুব প্রয়োজন।

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৪০

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: প্রত্যেক শিশুর হাতে এরকম বিজ্ঞান বাক্স পৌঁছে দেয়া খুব প্রয়োজন। আমারও এরকম ধারনা।

১৪| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১১:১৭

মোটা ফ্রেমের চশমা বলেছেন: লেখাটা পড়ে হঠাত স্কুলে ফিরে যেতে ইচ্ছে করছে!

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৪১

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আফসোস, আমাদের সময় এসব ছিল না।

১৫| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১১:৩৩

সুমন কর বলেছেন: লেখা পড়ে মজা পেলাম.....

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৪২

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: ধন্যবাদ কবি।

১৬| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১১:৪৪

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: আপনার সন্তান বোধ হয় বিজ্ঞানী হবে । :)

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৪২

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: দোয়া করবেন সেলিম ভাই।

১৭| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১২:০৪

নাদিম আহসান তুহিন বলেছেন: সুপার ট্যালেন্ত পোলা

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৪৩

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: ধন্যবাদ জনাব,নাদিম আহসান তুহিন

১৮| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১২:৪২

মাআইপা বলেছেন: কে বলতে পারে, বিজ্ঞান বাক্সর বদৌলতে বাংলাদেশ হয়তো একটা বিজ্ঞানী পাবে!

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৪৪

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: মন্দ বলেন নি মাআইপা ।

১৯| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১২:৫৩

মাহমুদুর রহমান সুজন বলেছেন: বিজ্ঞান ব্ক্স যে একটি উপকারী প্রদেয় তা তার প্রচারনাই বুঝতে পারছিলাম। আজ আপনার ছেলের প্যাকটিক্যাল করে দেখানোর খবর শুনে আরো উৎসাহী হলাম।

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৪৪

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: ধন্যবাদ জনাব মাহমুদুর রহমান সুজন।

২০| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:১৯

সোহানী বলেছেন: যাক আমার পোলা একাই না আরো দু একটা দেখি আছে............. ;)

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৪৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: সবাইর পোলার জন্য শুভ কামনা।

২১| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:২২

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: বিজ্ঞানবাক্সের মাধ্যমে শিশুরা ভাল কিছু শিখবে।
আপনার ছেলের জন্য ভালবাসা রইল।

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৪৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ জানবেন মোস্তফা সোহেল

২২| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৩৩

জুন বলেছেন: দোয়া করি আপনার ছেলে যেন ভবিষ্যতে একজন বড় বিজ্ঞানী হতে পারে গিয়াস লিটন। বিভিন্ন জ্ঞ্যানীগুনীদের কথা বলে এসেছেন এতদিন আজ আপনার ঘরের একজন জ্ঞ্যানী ব্যক্তির পরিচয় জেনে খুব ভালোলাগলো । আরো নতুন নতুন আবিস্কার করুক সেই দোয়া করি।
আপনার ছেলের কথায় মনে পড়লো আমার ছেলের কথা । ছোটবেলায় যে কোন খেলনা পেলেই প্রথম কাজ ছিল তা ভেঙ্গে ভেতরে কি কল কব্জা আছে তা দেখা । যা এখনো রয়েছে ।
+

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৫০

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনার ছেলের কথায় মনে পড়লো আমার ছেলের কথা । ছোটবেলায় যে কোন খেলনা পেলেই প্রথম কাজ ছিল তা ভেঙ্গে ভেতরে কি কল কব্জা আছে তা দেখা । :D
অনেক অবিভাবক ভুল বুঝেন, আসলে বাচ্চারা জানার আগ্রহ থেকেই এমনটি করে।
সুন্দর মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ জুন আপু।

২৩| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৩৩

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: বিজ্ঞান বাক্সটি আমার পছন্দ হয়েছে। আমার ছেলে-মেয়েদের জন্য কিনতে চাই। কোথায় পাওয়া যাবে, দাম কেমন হবে জানালে ভয়াবহ খুশী হব।

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৫৩

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: ৮/৯ নং কমেন্টে প্রাপ্তির উতস দেয়া হয়েছে। ৭ হতে ১৫ বছর বয়সি যে কোন বাচ্চার জন্ম দিনে এটা হতে পারে চমৎকার উপহার।

২৪| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:০০

তারেক ফাহিম বলেছেন: বিজ্ঞান বাক্ম যতটুকু প্রেরণা দিচ্ছে তার চেয়ে বেশি প্রেরণা আপনি ছেলেকে দিচ্ছেন এ ব্যাপারে।

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:১৯

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: সুন্দর মন্তব্য ভাল লাগলো, ধন্যবাদ তারেক ফাহিম

২৫| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:০৬

আখেনাটেন বলেছেন: চমৎকার। সব বাবারা যদি এই কিশোর বাচ্চাদের হাতে স্মার্টফোনের বদলে বিজ্ঞানবাক্স তুলে দিত। তাহলে মনে দেশে কিশোর অপরাধের হার জ্যামিতিক হারে কমে যেত।

সব স্কুলে সরকারের নিজ উদ্যোগে প্রজেক্ট নেওয়া উচিত মূমুর্ষূ বিজ্ঞান শিক্ষাকে কীভাবে পূনরুজ্জীবিত করা যায়। এই বিজ্ঞানবাক্স হতে পারে সেই প্যানডোরার বাক্স।

ভালো লেগেছে আপনার বাপ-বেটার কাহানি। অাজীবন এই সুস্থ জ্ঞানচর্চা সমুন্নত থাকুক এই কামনায়।

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:৩৯

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আমাদের স্কুল গুলিতে সৃজনশীলতাকে মুলত নিরুৎসাহিত করা হয়। পরিক্ষা নিরীক্ষা বাদ দিয়ে মুখস্ত বিদ্যা শিক্ষা দেয়া হয়। বইএর সাথে না মিললে উত্তর কেটে দেয়া হয়। এসব কারনে আমাদের দেশে বিজ্ঞান চর্চার ভবিষ্যৎ অন্ধকার , এ থেকে উত্তরন আবশ্যক। অন্যথায় একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় আমাদের তরুন রা পিছিয়ে পড়বে।
সুন্দর মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ আখেনাটেন।

২৬| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:৫৬

নাঈম জাহাঙ্গীর নয়ন বলেছেন: আপনার ছেলে নির্ঘাত বৈজ্ঞানিক হবে, তাকে তার মতোই চলতে দেয়া উচিৎ, এতে তার চিন্তাজগত আরো প্রশস্ত হবে। আমি সত্যি খুব আনন্দিত ছেলের পারফর্মেন্সে।
শুভকামনা আপনার বাপধনের জন্য।

খুব সুন্দরভাবে লিখেছেন ভাই, মজা করেই পড়ে গেলাম।

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৪:৫৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনার মন্তব্য খুব ভাল লাগলো । ধন্যবাদ জানবেন নাঈম জাহাঙ্গীর নয়ন ভাই।

২৭| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ২:০৪

মনিরা সুলতানা বলেছেন: মাশা আল্লাহ পোলা একদম মায়ে 'র মত হইছে ,সঠিক জিনিস বেঁছে নেয়ার চমৎকার সিদ্ধান্তে মুগ্ধ হলাম !!!
অনেক অনেক দোয়া আর শুভকামনা পোলার মা কে :)
আর গিয়াস উদ্দিন লিটন ভাই কে ধন্যবাদ আপডেট দেয়ার জন্য ।

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৫:০৪

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপ্নাগোরে আমি ভালা কইরা চিনি। ভালা করলে, আমার পোলা, খারাপ করলে 'তোমার পোলায় কি করছে দেখ।" B-)
ভাগ্য ভাল যে বলেন নাই, আপডেটটাও পোলার মা আমারে দিয়া দেওয়াইছে। :P

২৮| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ২:০৬

:):):)(:(:(:হাসু মামা বলেছেন: আপনার পোলার সংবাদটা শুনে ভালো লাগল।আহা!রে বাছাধন । B-)

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৫:০৫

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনি যদি মামা হন, আমার পোলাতো আপনার নাতি হওনের কথা :P

২৯| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৩:১৬

গব্বু বলেছেন: হাঃ হাঃ হাঃ চরম হাসির। ছেলেটা দেখি আমার মত। :D

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:১২

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনার ব্লগ জীবনের প্রথম মন্তব্যটি আমাকেই করলেন। অনেক ধন্যবাদ গব্বু।
আপনিও বেশ অনুসন্ধিৎসু মনে হয়।

৩০| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৪:২৯

জাহিদ অনিক বলেছেন:


আপনার পোলায় যে বল নিক্ষেপ করে টিভি ভাঙে নাই এটাই বহুত কিছু। আবিষ্কার করতে গেলে কিছু কিছু ভাংচুপ্র হবেই এতে তাকে তিরস্কার করা যাবে না, বরং পুরষ্কার দিতে হবে।

উপরে ছবিতে দেখলাম ফলমূল দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন। বেশ সুন্দর। একসময়ে বাংলাদেশের স্কুল কলেজে বিজ্ঞান মেলা হলে দেখতাম যা প্রজেক্ট আসে তার বেশিরভাগ থাকে বিদ্যুৎ উৎপাদন নিয়ে। বোঝাই যাচ্ছে আমাদের দেশে যে বিদ্যুতের ঘাটতি আছে সেটা বাচ্চারাও বোঝে।

আপনার ছেলের জন্য নিরন্তর শুভ কামনা গিয়াস ভাই।
বাবা গল্পকার আর ছেলে বিজ্ঞানী !
নোবেল প্রাইজের আর কি সাধ্য আপনাদের ঘর এড়িয়ে চলে ! ;)

হাসান মাহবুব ভাই, ভৃগু ভাই এবং আপনার বিজ্ঞান বক্স এর প্রচারণা অব্যাহত থাকুক।
সাদামন ভাইয়ের মন্তব্য থেকে আমিও লিংকে গেলাম। একটা নিব ।

ধন্যবাদ।

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৫:০৮

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: দীর্ঘ ও চমৎকার মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ জাহিদ অনিক

৩১| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৫:০১

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: ভাল লাগল পোস্ট

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৫:১৬

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনার মন্তব্য পেয়ে ভাল লাগলো। আমার ধারনা ছিল আপনার ডিভাইসে মন্তব্য অপশন নাই।

৩২| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৫:১২

মামুন ইসলাম বলেছেন: চমতকার উপস্থাপন লিটন ভাই ।

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৫:২৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: ধন্যবাদ মামুন ইসলাম ভাই।

৩৩| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৫:২৫

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: ধুরু যা কি যে বলেন না। আসলে আমি যেসময় থাকি সেসময়ে অনেকের পোস্ট থাকে না
তাই আর মন্তব্য বা পড়া হয়ে উঠে না আফসোস :( সরি ফর দেট

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৫:২৯

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: মশকরা করলাম, সরি হওনের কিছু নাই। =p~

৩৪| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:২৬

ওমেরা বলেছেন: ব্রেনী ও ক্রিয়েটিভ বাচ্চারা দুষ্ট ও হয় চঞ্চল হয় আপনার ছেলেটাকে তেমনি মনে হল, ইনশা আল্লাহ সে ভাল কিছু করতে পারবে ।

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:২৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনার মুখে ফুল চন্দন ফুটুক।

৩৫| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৩৪

কি করি আজ ভেবে না পাই বলেছেন: মনিরা'পুর বর্ণবাদি মন্তব্যে আমি পুরা তব্দা!!!
ভাতিজ হৈলো ছোট কাকুর লাহান আর ক্রেডিট লয় মা-মাসীরা.................কি তাজ্জব B:-)

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:২৮

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: বর্ণবাদি মন্তব্যে কি , এ রীতিমত সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার উস্কানী :P

৩৬| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১০:৪০

প্রামানিক বলেছেন: এইবার বুঝলাম, আমার ছোট ছেলেটা বিজ্ঞান বাক্স কেনার জন্য কয়দিন হলো ঘ্যান ঘ্যান করতেছে কি জন্যে। আপনার কাহিনী পড়ে ও ছেলের বিজ্ঞান মনষ্ক ভাবনা দেখে খুশি হলাম।

২২ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৯:৪২

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: মজার বক্স ছেলের জন্য একটা সংগ্রহ করতে পারেন প্রামানিক ভাই।

৩৭| ২২ শে জানুয়ারি, ২০১৮ ভোর ৬:০৩

মলাসইলমুইনা বলেছেন: গিয়াস ভাই,আপনার লেখায় গতকাল একটা বড় মন্তব্য করতে গিয়ে হঠাৎ সেই মন্তব্য কেমন করে যেন ছোট বেলার অনেকটা একই রকম একটা বিজ্ঞান বাক্স আমাদের কজন ছোট ছেলেকে কেমন করে ইনফ্লুয়েন্স করেছিল, সাইন্সের ব্যাপারে আগ্রহী করে তুলেছিল সেটা নিয়ে একটি ছোট কিন্তু পুরো লেখাই হয়ে গেলো ! তাই আপনার মন্তব্যে দেরি |লেখাটা কিন্তু আগেই পড়ে ফেলেছিলাম | আপনার বৈজ্ঞানিক ছেলের জন্য আদর রইলো | আমাদের ভাবীকে বলবেন বিজ্ঞানের জন্য আরো কয়েকটা তুচ্ছ গ্লাস স্যাক্রিফাইস করতে হতেই পারে তবু বিজ্ঞানের ঝোলা খালি করা যাবে না | সর্বতো সাহায্য সহযোগিতা দিয়ে বিজ্ঞানের ঝোলা সবসময় পূর্ণ রাখতে চেষ্টা অব্যাহত রাখতেই হবে | ভালো থাকবেন |

২২ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৯:৪৬

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনার ভাবী আপনার কমেন্ট পড়েছেন,তাই বলার দরকার হয়নি =p~
সুন্দর দীর্ঘ মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ মলাসইলমুইনা ভাই ।

৩৮| ২২ শে জানুয়ারি, ২০১৮ ভোর ৬:৫৭

অজানিতা বলেছেন: শুধু বাচ্চাদের ভালোলাগা নিয়ে বললে কম হবে। এই অতীব চমৎকার জিনিস বাড়ি গেলে আমারো ছোট ভাইবোনদের হাত থেকে দখল নিতে ইচ্ছা করে।

মোবাইল গেমসের বদলে ছোটদের হাতে বিজ্ঞান বাক্স ঊঠুক আর সাথে রঙিন গল্পের বই এই শুভকামনা।

২২ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৯:৫০

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: মোবাইল গেমসের বদলে ছোটদের হাতে বিজ্ঞান বাক্স ঊঠুক আপনার সাথে সহমত অজানিতা

৩৯| ২২ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১১:৫৭

কাতিআশা বলেছেন: শুভকামনা আপনার ক্ষুদে সায়েনটিস্ট ছেলের জন্য...আল্লাহ ওর মনোবাসনা পূরন করুন, আমীন!

২৩ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:২৯

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আমিন।

৪০| ২২ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১১:৫৯

কুঁড়ের_বাদশা বলেছেন: পোষ্ট খানা পড়িয়া একখানা লাইক প্রদান করা হইল। :)

২৩ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:৩০

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: ধন্যবাদ বাদশাহ

৪১| ২৩ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:৪৩

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: আরিব্বাস! দারুন কাহিনি ভায়া!

আপনার লিখনিতে যাদু আছে ;)

বিজ্ঞান বাক্সের অগ্রযাত্রা গতিময় হোক- বিজ্ঞানমূখি প্রজন্ম গড়তে

২৩ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:১৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: বিজ্ঞান বাক্স্যটাই একটা যাদুর বাক্স! যাদুর বাক্সের লিখায় যাদুতো থাকবেই B-) B-)

৪২| ২৪ শে জানুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৩:১৬

আটলান্টিক বলেছেন: ছেলেকে Stephen hawking এর হিষ্ট্রি অব টাইম পড়াইছেন?কসমস দেখায়ছেন?

২৫ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:০২

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: পড়াইনাই। কস্মস কি বইএর কথা বলছেন?

৪৩| ২৪ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৯:০৭

শাহিন বিন রফিক বলেছেন: খুবই ভাল লাগল।

২৫ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:০৯

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: ধন্যবাদ শাহিন বিন রফিক

৪৪| ২৫ শে জানুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৫:৪৬

শাহরিয়ার কবীর বলেছেন: কাহিনীটা ফাটাফাটি লিখে একদম জমিয়ে ফেলেছেন। :)

পড়ে ভাল লাগা রেখে গেলাম ভাই।

২৭ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৩৬

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: একাধিক ধন্যবাদ নিন শাহরিয়ার কবীর

৪৫| ২৫ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৩৬

শামচুল হক বলেছেন: ক্রিয়েটিভ কাজে প্রত্যেকটি শিশুই আগ্রহী কিন্তু আমরা সেই পরিবেশ তাদেরকে দিতে পারি না। আপনার ছেলের বিজ্ঞান মনস্ক মনোভাব দেখে খুশি হলাম। শুভেচ্ছা রইল।

২৭ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৩৯

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনার জন্যও শুভেচ্ছা।

৪৬| ২৭ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:০৩

বিজন রয় বলেছেন: সাংঘাতিক!!

২৮ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:২৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: B-) :D :)

৪৭| ২৫ শে আগস্ট, ২০১৮ রাত ১০:২১

খায়রুল আহসান বলেছেন: দোয়া করি, আপনার এই ছেলে একদিন উচ্চমানের বিজ্ঞানী হয়ে দেশ ও দশের মুখ উজ্জ্বল করুক!
চারিদিকে নানা খারাপ খবরের মাঝে বিজ্ঞান বাক্সের এই খবরটা জেনে ভাল লাগলো।

৪৮| ২৬ শে আগস্ট, ২০১৮ রাত ৯:২৪

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ জনাব খায়রুল আহসান ভাই

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.