নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

চলে যাব- তবু যতক্ষণ দেহে আছে প্রাণ, প্রাণপণে পৃথিবীর সরাব জঞ্জাল।

হাবিব স্যার

বিশ্বজোড়া পাঠশালা মোর, সবার আমি ছাত্র।

হাবিব স্যার › বিস্তারিত পোস্টঃ

বাঁশকাব্য

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১০:০৭



উপকারী বাঁশঃ
..............................

বাঁশের বাঁশি রোজ বাজাতাম
নদীর ধারে বসে,
বাঁশির সুরে লাইলি হয়ে
হাসি বসলো পাশে।

বাঁশ বাগানে ঝোপের আড়ে
প্রেমটা জমে বেশ,
দিন গড়িয়ে রাত্রি বহে
বাঁশির থাকে রেশ।

অপকারী বাঁশঃ
.............................

সুজন মাঝি আমার চেয়ে
মধুর বাজায় বাঁশের বাঁশি,
তাইনা শুনে বাঁশটা দিয়ে
আমায় ছেড়ে গেলো হাসি।

উ.বাঁঃ
...............................

নির্বাচনে জেতার আগে
নিজ খরচে কাকু,
খালের উপর শক্ত করে
দিলো বাঁশের সাঁকো।

তাইনা দেখে গ্রামের মানুষ
কাকুকে দেয় ভোট,
ক'দিন বাদে টের পাইলাম
বাঁশের কি যে চোট।

অ.বাঁঃ
................................

কাকু আজো বাঁশের পিড়িত
ভুলতে পারে নাই,
নদীর উপর ব্রিজ বানাতে
বাঁশ দিয়েছে তাই।

কাকু এবার বাঁশ দিয়েছে
বহু তলা দালানে,
কোটি টাকা মাইরা দিছে
বাঁশ দিয়া চালানে।

ফ্লাইওভার আর বড় সেতু
আছে বাঁশের রেশ,
জনগন তাই বাঁশ খাইয়া
বলছে বেশ বেশ।

উ.বাঁঃ
...............................

নেতা সাহেব এসে গেছে
করবে সভা তাই,
শক্ত পোক্ত বাঁশ দিয়া
বড় গেট বানাই।

বাঁশের গেটে মুগ্ধ হয়ে
নেতা সাহেব কয়,
তোমরা থাকলে জিতে যাব
নাহি আমার ভয়।

অ.বাঁঃ
.............................

ক্ষানিক বাদে দুই গ্রুপে
তুমুল মারামারি,
একের চেয়ার অন্যে কেড়ে
মাথায় দিলো বারী।

গেট টা ভেঙে বাঁশ আনলাে
কি যে আজব কারখানা,
বাঁশের চোটে মাথা ফাটে
নেতাকে কেউ মানলো না।

উ.বাঁঃ
...............................

দাদু আমার বৃদ্ধ বলে
যায়না কোথাও একা চলে
তাইনা দেখে দাদুকে একটা
বাঁশের লাঠি দেই,
খুশি হয়ে দাদু বলে
সাব্বাস দাদু সেই!

অ.বাঁঃ
..................................

কি যেন এক ভুল করেছি
তাই দেখিয়া দাদু,
পিঠের উপর বাঁশের লাঠি
দেখি বাঁশের যাদু।

দাদুকে আমি বাঁশ দিছিলাম
শক্ত হবার তরে,
বাঁশটা দিয়ে আমার পিঠে
হাতটা শক্ত করে।

উ.বাঁঃ
............................

নতুন জামাই যাব বলে
বিরাট বাঁশের গেট,
বাঁশে লাকড়ির রান্না ছিলো
খেলাম ভরে পেট।

অ.বাঁঃ
...............................

পেট ভরিলাম ঠিকি আমি
পকেট হলো ফাঁকা,
মনে মনে ভাবছি বসে
বাঁশ ছিলো কি বাঁকা?

বিয়ের পড়েও বাঁশের ঝাড়ু
বউকে ছাড়ে না,
সারা জীবন বাঁশ কাব্যে
জ্বরে পুড়ে গা।

অ.বাঁঃ
...............................

বাঁশটা ছিল তেল মাখা তাই
বানর উঠে,
আর পরে যায়
কতো কঠিন অংক ছিল
ভেবে ভেবে সময় হলো পার,

কি করে যে অংক করি
ভেবে ভেবে অংক ছাড়ি
পরিক্ষাতে বাঁশ টা দিলো
গনিতের-
অভিজ্ঞ টিচার।

উ.বাঁঃ
............................

হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালা
হাতে নিয়ে বাঁশের বাঁশি।
ইঁদুর সবি দেই তাড়িয়ে
সবার মুখে ফুটে হাসি।

ইঁদুর গেল বাঁশির সুরে
শহর ছেড়ে অনেক দূরে তাই-
হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালা
শত মূদ্রার আবেদন জানাই।

অ.বাঁঃ
..............................

না পেয়ে তার পারিশ্রমিক
বাঁশ লইয়া নিজের ঘাড়ে,
উল্টা বাঁশির সুরে দেখো,
সকল শিশু শহর ছাড়ে।

কুদরতি বাঁশঃ
..........................

মুসা নবীর হাতে দেখ
বাঁশের লাঠির কুদরত,
বাঁশ ছাড়লে সাপ হয়ে যায়
সাফ করে দেয় শত বিপদ।


উ.বাঁঃ
..............................

জন্মেছিলাম যেদিন আমি
সেদিন ছিলো শীত,
বাঁশের আগুন জ্বেলে তখন
দাদু গাইলো গীত।

হাঁটতে প্রথম শিখেছিলাম
বাঁশটা ধরে ধরে,
বাঁশ ছিলো তাই অভয় ছিলো
যাইনি আমি পরে।

দরকারী বাঁশঃ
.............................

মরন কালে বাঁশের খাটে
বিনা রশি বাঁধা পাটে
চার কোনাতে চারজনাতে
রেখে আসবে কবরে,

উপরেতে বাঁশের চাটাই
চারিদিকে বাঁশের খুটি
বাঁশ লইয়াই চলে যাব
শেষ বিদায়ে পরপারে।

বৃদ্ধ বেলায় বাঁশের লাঠি
হাঁটতে হবে বাঁশের ভরে,
হিন্দু হলে বাঁশের আগুন
জ্বলবে চিতায় মরার পরে।

........................................

ছবি সূত্র: bdtimes365.com

মন্তব্য ১৬ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (১৬) মন্তব্য লিখুন

১| ২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১০:১৫

বিজন রয় বলেছেন: স্যারের হাতে বাঁশ!!!!

মাপ চাই স্যার। মাপ চাই।

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৫:১৩

হাবিব স্যার বলেছেন: দাদা মাফ কেন চাচ্ছেন বুঝলাম না তো। বাঁশ তো সবাই হাতে নেই। কারো ঘর সাজানোর জন্য আবার কেউবা ঘর ভাঙ্গার জন্য। স্যারের হাতে বাঁশ জাতি গড়ার জন্য। চিন্তা কইরেন না দাদা।

২| ২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১০:২৯

স্বপ্নের শঙ্খচিল বলেছেন: ফ্লাইওভার আর বড় সেতু
আছে বাঁশের রেশ,
জনগন তাই বাঁশ খাইয়া
বলছে বেশ বেশ।

.........................................................................
বাঁশ খেয়ে বাঁশের গুনগান ? হি হি হি

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৫:১৩

হাবিব স্যার বলেছেন: কি আর করার বলেন। যত তেল তত লাভ। তাইতো বাঁশ খেয়েও তেল মারছি। বাঁশটা যদি তেলতেলে হয় খেতে ভালো লাগবে হয়তো। হা হা হা

৩| ২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১০:৩৬

সাগর শরীফ বলেছেন: যাক স্যার, আপনাকে বাঁশ নিয়ে লিখতে বলছিলাম তা এত জলদি লিখে ফেলবেন ভাবি নাই। ধন্যবদ এবং ভাল লাগা থাকল।

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৫:১৪

হাবিব স্যার বলেছেন: ভাই! আপনি যেদিন বলেছিলেন ঐ দিনই লিখছিলাম। তবে সাজায়ে গুছায়ে আজকে পোস্ট করলাম। আপনার প্রতি কৃতজ্ঞতা। আপনি না বললে হয়তো লেখাই হতো না।

৪| ২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১০:৪৭

নজসু বলেছেন: আহা...।
বাঁশে বাঁশে বাঁশারণ্য।

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৫:১৪

হাবিব স্যার বলেছেন:
বাঁশারন্যে যদি বাঁশের কদর বাড়ে তাহলে ভাবছি বাঁশের ব্যবসা শুরু করবো। গত দিন তো রাজীব ভাই ঝালমুড়ি বেচলেন। কি আর করার । বসে থাকার চাইতে একটা কছু করা ভালো।

৫| ২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১১:০১

আরোহী আশা বলেছেন:





আহা...............!
আনন্দ বেদনার বাঁশ কাব্য।
কতো মধুর কতো বেদনার।

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৫:১৪

হাবিব স্যার বলেছেন:
অনেক ধন্যবাদ, মন্তব্যে অনুপ্রাণিত।

৬| ২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১১:২৩

আমি ৎৎৎ বলেছেন: ভাল হয়েছে,
হঠাৎ মনে পড়ল

.............আমার প্রেম আজ হয়ে গেল ঘাস..
খেয়ে গেল গরু আর দিয়ে গেল বাস...:)

ভাল থাকুন।

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৫:১৫

হাবিব স্যার বলেছেন: কি যে বলেন ভাই। বাঁশ যে কতো প্রকারের আছে যে খাই সেই বুঝে। কপালে থাকলে ফিরায় কে বলেন?

৭| ২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৫:০৬

রাজীব নুর বলেছেন: শুঁটকি আর খেয়ো না৷ শুঁটকিতে কীটনাশক মেশানো থাকে৷ খেলে ক্যানসার হয়ে যাবে৷
: কে বলেছে?
ফেসবুকে দেখেছি৷

আর ডিমও নিশ্চিত না হয়ে খাওয়া যাবে না৷ প্লাস্টিকের ডিম বেরিয়েছে৷
: কে বলেছে?
ফেসবুকে দেখেছি৷

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৫:১৭

হাবিব স্যার বলেছেন: রাজীব ভাই, মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ। তবে মন্তব্যের হেতু বুঝলাম না। যদি একটু খোলাসা করে বলতেন কৃতজ্ঞ থাকতাম।

৮| ২৬ শে অক্টোবর, ২০১৮ রাত ১০:৩৬

ফারিহা হোসেন প্রভা বলেছেন: স্যার কেমন আছেন? কবিতা সুন্দর হয়েছে প্রতিবারের মতই।

২৯ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১০:৫৫

হাবিব স্যার বলেছেন: আপনাকে প্রায় এড়িয়েই যাচ্ছিলাম। হঠাৎ করে আমার ব্লগে ঢুকে দেখি অদেখা মন্তব্য। পরে দেখি আপনি। ভালো লাগছে আগের একটা পোস্টে মন্তব্য দেখে। আমার নতুন লেখা পড়ার অনুরোধ রইলো।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.