নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

একজন সুখী মানুষ, স্রষ্টার অপার ক্ষমা ও করুণাধন্য, তাই স্রষ্টার প্রতি শ্রদ্ধাবনত।

খায়রুল আহসান

অবসরে আছি। কিছু কিছু লেখালেখির মাধ্যমে অবসর জীবনটাকে উপভোগ করার চেষ্টা করছি। কিছু সমাজকল্যানমূলক কর্মকান্ডেও জড়িত আছি। মাঝে মাঝে এদিক সেদিকে ভ্রমণেও বের হই। জীবনে কারো বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ করিনি, এখন তো করার প্রশ্নই আসে না। জীবন যা দিয়েছে, তার জন্য স্রষ্টার কাছে ভক্তিভরে কৃতজ্ঞতা জানাই। যা কিছু চেয়েও পাইনি, এখন বুঝি, তা পাবার কথা ছিলনা। তাই না পাওয়ার কোন বেদনা নেই।

খায়রুল আহসান › বিস্তারিত পোস্টঃ

ভাল থেকো পাখি তুমি

১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:৫১

ভাল থেকো পাখি তুমি, ভাল থেকো।
আজীবন সুখে থেকো, আদরে আদরে।
ভালবাসায়, মমতায়,
স্নেহের বাঁধনে থেকো।
চোখের তারায় তারায় দুষ্টুমি নিয়ে থেকো,
টোল পড়া দুটি গালে হাসি নিয়ে থেকো।
যে তোমার দুষ্টুমিকে হাসিমুখে দেবে প্রশ্রয়,
এমন উদার লোকের কাছেই যেন চিরদিন থাকো!

ইমিগ্রেশন চত্বরে যাবার আগে, তোমার কান্নার আওয়াজে
আমার বুক ভেঙেছিল। এখনো তা আমার কানে বাজে।
তুমিহীন এ ঘরে ফিরে এসে আমি আর ঘুমোতে পারিনি,
সরাসরি চলে গেছি ঈদের জামাতে। তোমার শব্দহীন
শূন্য এ ঘরে আজ ইউ টিউবের গানগুলো আবেদনহীন।
গান শুনতে শুনতে, শোনাতে শোনাতে আর কখনোই
আমরা একসাথে ঘুমোবোনা। প্রতিরাতে এখনো আমি
তোমার ছোট্ট বালিশটাকে বুকে জড়িয়ে ধরে ঘুমোই।

রেখে যাওয়া তোমার খেলনাগুলো আজ নিদারুণ নিঃসঙ্গ।
ব্যালকনিতে দাঁড়িয়ে আজও আমি টিয়া পাখি দেখি।
গাছের ডালে ডালে আজও বানরেরা ঝাঁপাঝাঁপি করে,
পায়রার দল ঝাঁকে ঝাঁকে উড়ে যায়, ঘুরপাক খায়,
শুধু সেগুলো দেখে উল্লসিত হবার মত আজ কেউ নেই!
ফাঁপর লাগা শূন্যতা নিয়ে আমি অপলকে তাকিয়ে থাকি,
টেবিলের নীচে রেখে যাওয়া তোমার ছোট্ট দুটো স্যান্ডেল,
আর শয্যায় বিছিয়ে রাখা তোমার ছোট্ট বালিশটার দিকে।

পাদটীকাঃ গত ঈদুল আযহার চাঁদরাতে আমার ছেলে, বৌমা আর আদরের নাতনি অভিবাসনে প্রবাসে চলে যায়। তাদের প্রস্থানে ঈদের দিনটা শূন্যতার অনুভূতি নিয়ে অতিবাহিত করি।

ঢাকা
১১ সেপ্টেম্বর ২০১৭
সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত।

এ কবিতাটি পোস্ট করার দুই বছর তিন দিন পর আজ আবার এসে নিজের এ কবিতাটি পড়ে গেলাম। লক্ষ্য করলাম, ইত্যবসরে আমার অলক্ষ্যেই কবিতাটি একটি গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলক অর্জন করেছে- হাজার পাঠসংখ্যার মাইলফলক।

পাখিটিকে গত ০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখে স্কুলে ভর্তি করে দেয়া হয়েছে। সে দেশের নিয়ম অনুযায়ী পাঁচ বছরের আগে কোন শিশুকে স্কুলে ভর্তি করানো যায় না। পাঁচ বছর পূর্ণ হবার ১৫ দিন পর থেকেই আমার পাখিটির স্কুল জীবন শুরু হয়ে গেল!

স্কুল শুরুর তিন দিন আগে ওর মা বাবা ওকে সাথে নিয়ে স্কুলে যায় এবং ওকে ক্লাস টীচার এবং ক্লাসরুমের সাথে পরিচয় করিয়ে দিয়ে আসে। সেদিনের তিনটি ছবি এখানে দিলাম। আপনারা সবাই আমার এ পাখিটির জন্য দোয়া করবেন।







ঢাকা
১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯


মন্তব্য ৮০ টি রেটিং +২০/-০

মন্তব্য (৮০) মন্তব্য লিখুন

১| ১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:০০

মৌমুমু বলেছেন: চমৎকার লিখেছেন ভাইয়া।+++++
প্রতিটি লাইনেই ভালোলাগা রইল।
ভালো থাকবেন।

১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:৩১

খায়রুল আহসান বলেছেন: প্রতিটি লাইনেই ভালোলাগা রইল -- অনেক অনেক ধন্যবাদ এবং শুভেচ্ছা, প্রথম মন্তব্য এবং প্রথম প্লাসের জন্য।
প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম।

২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:৩৩

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার পোস্টগুলো কোথায় হাওয়া হয়ে গেল?

২| ১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:০২

চাঁদগাজী বলেছেন:


অনেক কষ্টের পংক্তিমালা

১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:৩৩

খায়রুল আহসান বলেছেন: জ্বী, অনেক কষ্টের পংক্তিমালা
কবিতা পাঠ এবং মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ।
শুভেচ্ছা জানবেন।

৩| ১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:০৩

শায়মা বলেছেন: ছেলে, বৌমা, আদরের নাতনী সকলেই ভালো থাকুক ভাইয়া ! তুমিও ভালো থেকো!


আবার পরের ঈদে তারা অবশ্যই থাকবে তোমার সাথে!

১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:৩৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: কবিতা পড়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ।
শুভকামনায় প্রীত হ'লাম। প্লাসে অনুপ্রাণিত।
শুভেচ্ছা জানবেন।

৪| ১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:১২

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: বেশ লিখেছেন । অনুভূতি ছূয়ে গেলো।

১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:৩৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনুভূতি ছূয়ে গেলো -- কবিতা পাঠ এবং মন্তব্যের জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ।
মন্তব্যে অনুপ্রাণিত হ'লাম।
শুভকামনা...

৫| ১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:১৫

উম্মে সায়মা বলেছেন: এখনো আমি প্রতিরাতে
তোমার ছোট্ট বালিশটাকে বুকে জড়িয়ে ধরেই ঘুমোতে যাই।

:| কী কষ্ট জমা লাইনগুলোতে....
ভালো থাকুন খায়রুল আহসান ভাই।

১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১১:০৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: কবিতা থেকে উদ্ধৃতির জন্য ধন্যবাদ।
মন্তব্যে এবং প্লাসে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম।
শুভেচ্ছা জানবেন।

৬| ১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:১৬

ফয়েজ উল্লাহ রবি বলেছেন: :|
অসাধারণ! লিখেছেন শুভেচ্ছা রইল কবি।

১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১১:০৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ। উদার প্রশংসায় অনুপ্রাণিত হ'লাম।
শুভকামনা...

৭| ১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:২৪

শাহরিয়ার কবীর বলেছেন: প্রিয়জন দূরে গেলে একটু মন খারাপ হয় !!


দোয়া করি, প্রবাসে আপনার প্রিয়জনেরা সবাই ভালো থাকুক !!


আপনিও ভালো থাকুন সবসময়........

১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সকাল ৯:০৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: একটু নয়, অনেক বেশী খারাপ হয়। কোন কিছু ভাল লাগেনা, স্মৃতি রোমন্থন ছাড়া।
দোয়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। মন্তব্যে প্রীত হ'লাম, প্লাসে অনুপ্রাণিত।
আপনিও ভালো থাকুন সবসময়........ , ভাল ভাল কবিতা লিখে যান!

৮| ১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১১:০৪

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: অন্যকিছু ভেবেছিলাম স্যার, 'পাদটীকা' পড়ে সে আশঙ্কা দূর হয়েছে। কোনো বইয়ে স্থান দেয়া হলে 'পাদটীকা' না রাখলে কবিতাটা আরো বেশি বহুমাত্রিক হবে বলে আমার ধারণা।

চমৎকার কবিতা। প্রথম অংশ ফেইসবুকে পড়েছিলাম।

১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সকাল ১০:০০

খায়রুল আহসান বলেছেন: কোনো বইয়ে স্থান দেয়া হলে 'পাদটীকা' না রাখলে কবিতাটা আরো বেশি বহুমাত্রিক হবে বলে আমার ধারণা। -- আমারও তাই ধারণা। তবে পাদটীকা না দিলে পাঠকের অনেক প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়, সেজন্যেই এটা এখানে দেয়া হয়েছে।
কবিতার প্রশংসায় অনুপ্রাণিত হ'লাম। ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা...

৯| ১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১১:০৮

করুণাধারা বলেছেন: স্নেহ নিম্নগামী - তাই আপনার স্নেহ সবচেয়ে বেশি এখন নাতনীর জন্য। কবিতায় নাতনীর জন্য আপনার ভালবাসা প্রকাশ পেয়েছে। প্রার্থনা করি সে যেন এই কবিতা আর তাকে নিয়ে লেখা আপনার অন্য লেখাগুলোও পড়তে শেখে আর আপনার এই ভালবাসা অনুভব করে।

ভাল থেকো পাখি তুমি, ভাল থেকো।
আজীবন সুখে থেকো, আদরে আদরে।
ভালবাসায়, মমতায়,
স্নেহের বাঁধনে থেকো।

১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সকাল ১০:৩১

খায়রুল আহসান বলেছেন: প্রার্থনা করি সে যেন এই কবিতা আর তাকে নিয়ে লেখা আপনার অন্য লেখাগুলোও পড়তে শেখে আর আপনার এই ভালবাসা অনুভব করে - আপনার এ প্রার্থনাটুকু আল্লাহ রাব্বুল 'আ-লামীন যেন কবুল করে নেন, সেটা হবে আমার জন্য খুবই একটা আনন্দের বিষয়। ধন্যবাদ, আপনার এ সুন্দর উপলব্ধি এবং প্রার্থনাটুকুর জন্য।
কবিতা থেকে উদ্ধৃতি এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত হ'লাম।
অনেক অনেক শুভেচ্ছা...

১০| ১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১১:২০

জাহিদ অনিক বলেছেন: আপনি ভাল থাকার চেষ্টা করুন, নিজেকে ভাল রাখুন। আমরা এত বড় একটা ব্লগ পরিবার, এখানে এলেও আপনার একাকিত্ব লাগে?
নিজে ভাল না থাকলে তাদের কি করে ভাল রাখবেন? আপনি এসব সব জানেন, সব বুঝেন তবুও বলা। মাঝে মাঝে আমরা জানি বুঝি সবকিছুই কিন্তু করতে ইচ্ছে হয় না।

নিজ পরিবার অবশ্যই একটা বড় ব্যাপার। তাদের থেকে দূরে থাকাটা সত্যিই পীড়াদায়ক ।

কষ্টের কবিতা খুব ভাল লেগেছে। আমি এটার কোন ভাবার্থ ধরিনি। সব কবিতার ভাবার্থ ধরা ঠিক না। আপনার পদটীকা থেকে যেহেতু জেনেছি এটা কবির ব্যক্তি স্বত্বার একান্ত ব্যক্তিগত কষ্ট, অতএব চেষ্টা করলাম কবির ব্যক্তি স্বত্বার কষ্টটাকে একটু ছুঁয়ে দেখার। কতদূর পেরেছি জানি না।

১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৩:২৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: আমরা এত বড় একটা ব্লগ পরিবার, এখানে এলেও আপনার একাকিত্ব লাগে? - না, মোটেও না। সে জন্যেই তো দিনের অনেকটা সময় এখানেই পড়ে থাকি। এখানে অনেক অদেখা বন্ধুর সান্নিধ্য, তাদের চিন্তা ভাবনা, আবেগ অনুভূতির সাথে বেশ তো একাত্ম বোধ করে থাকি।
নিজ পরিবার অবশ্যই একটা বড় ব্যাপার। তাদের থেকে দূরে থাকাটা সত্যিই পীড়াদায়ক - একেকটি পরিবার সমাজের একেকটি বিল্ডিং ব্লক। পরিবার শক্তিশালী হলে সমাজটাও শক্তিশালী হয়। পরিবারে স্নেহ ভালবাসা, মায়া মমতা থাকলে সমাজেও তা থাকে। আমি সর্বাংশে একজন পারিবারিক মানুষ। ছেলেপুলেরা বড় হয়ে গেলেও আমরা এতদিন ধরে একই ছাদের নীচে সুখে দুঃখে ছিলাম। এই প্রথম পরিবার থেকে একজন বাইরে চলে গেল প্রবাসে অভিবাসন নিয়ে, সাথে নিয়ে গেল আমার সবচেয়ে আদরের, সবচেয়ে ভালবাসার ছোট্ট নাতনিটাকে। এর পরে হয়তো ওরা সাংবাৎসরিক না হলেও কয়েক বছর পরপর দেশে আসবে আমাদের দেখতে, নয়তো কোন সামাজিক আনুষ্ঠানিকতায়, কিন্তু সে আসা হবে পরিযায়ী পাখির মত। এখন থেকে ওদের দেশ তো ওটাই হবে। ইচ্ছে করলেই ওদেরকে কাছে ডেকে গায়ে মাথায় হাত বুলাতে পারবো না।
আপনার পদটীকা থেকে যেহেতু জেনেছি এটা কবির ব্যক্তি স্বত্বার একান্ত ব্যক্তিগত কষ্ট, অতএব চেষ্টা করলাম কবির ব্যক্তি স্বত্বার কষ্টটাকে একটু ছুঁয়ে দেখার। কতদূর পেরেছি জানি না। -- আপনার এ মন্তব্যটাই বলে দিচ্ছে, কতটুকু অনুভূতিপ্রবণ মন আপনার। মন্তব্যটা স্পর্শ করে গেল!

১১| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১২:২৮

ওমেরা বলেছেন: পৃথিবীটা এখন অনেক ছোট ভাইয়া মন খারাপের কিছু নেই । দোওয়া করবেন আল্লাহ যেন ওদের ভাল রাখেন ।

আমরা চার ভাই বোন এক সাথে আম্মু আব্বুর সাথে কথা বলতাম স্কাইপিতে । আম্মু বলত সবই দেখা যায়, বলা যায় শুধু খাবারটা দেয়া যায় না। খাবারটা দিতে পারলেই আমার আর কোন কষ্ট থাকত না ।

১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৩:৪৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: পৃথিবীটা এখন অনেক ছোট ভাইয়া মন খারাপের কিছু নেই - সেটা জানি, কিন্তু মন মানে না। ঘুরে ফিরে একটা কথাই মনে আসে, এ জগত সংসারটা কত ক্ষণস্থায়ী, কোন কিছুকেই আঁকড়ে থাকা যায়না।
"যা-কিছু পায় হারায়ে যায়, না মানে সান্ত্বনা" - (কবিগুরুর গানের কথা)।
কবিতাটা পড়ার জন্য ধন্যবাদ। মন্তব্যে এবং প্লাসে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম।
আন্তরিক শুভেচ্ছা জানবেন।

১২| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১২:৩৪

নাঈম জাহাঙ্গীর নয়ন বলেছেন: অসাধারণ অনুভূতির প্রকাশ । মুগ্ধতা অনুভবে।

আমি পড়তে পড়তে ভেবেছিলাম ছোট্ট খুকিটিকে স্মরণ করে লিখেছেন, তবে নিচের পাদটীকা পড়ে আমার ভাবনাটি পূর্ণতা পেল।

আপনার আদরের নাতনি আর ছেলে-সংসারের জন্য শুভকামনা রইল। আল্লাহ্ তাদের মঙ্গল করুক।

অনেক গভীরতম ভাবনার প্রকাশ। এত চিন্তা করলে আপনার শরীর খারাপ না হয়ে যায়!
নিজের প্রতি খেয়াল রাখবেন প্রিয় কবি।
শুভকামনা জানবেন সবসময়।

১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৪:০৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার মন্তব্যে যে সহৃদয়তা এবং সহমর্মিতা প্রকাশ পেয়েছে, তাতে অভিভূত হ'লাম। বেশ কিছুদিন পরে আমার কোন লেখায় এলেন এবং সুন্দর মন্তব্য করে মুগ্ধ করে গেলেন।
আপনার দোয়া এবং শুভকামনার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। মন্তব্যে এবং প্লাসে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম।
অনেক শুভকামনা রইলো...

১৩| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ৩:৫৮

মোহাম্মাদ আব্দুলহাক বলেছেন: ভাইজান, আপনার কবিতা পড়ে আমি আমার স্ত্রীকে শুনিয়েছি। শেষ হওয়ার পর আমার স্ত্রী ইস গো বলেছিল।

আমার দুইটা নাতনি আছে। ওরা যমজ। ওদেরকে আমি ডিপ্রেশনের টেবলেট ডাকি। ওদের জন্মের পর আমার ডিপ্রেশন কমে গেছে। আমার দাড়ি এবং চুলে ধরে ওরা টানাটানি করে, আমি খিলখিল করে হাসি। আমার বোনরা চোখ কপালে তুলে বলে, ও মাই গো, তাকিয়ে দেখো ভাইসাবের দাড়িতে ধরে টানছে।

আইচ্ছা ভাইজান, সন্তানের ঘরের সন্তার এত আদুরে হয় কেন? ওরা দূরে গেলে বুকের ভিতর কেমন করে!
আমার নাতিনদেরকে আমি যখন কোলে লই তখন সত্যি সব নাতি নাতনিদের জন্য দোয়া করি, আল্লাহ যেন সবকটাকে আমার নাতনিদের মত আদুরে করেন।

১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৪:২৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: আমার এ লেখাটি পড়ে আপনার স্ত্রীকেও শুনিয়েছেন জেনে প্রীত হ'লাম। আপনার নাতনিদের জন্য শুভকামনা রইলো।
আইচ্ছা ভাইজান, সন্তানের ঘরের সন্তার এত আদুরে হয় কেন? -- এ প্রশ্নের উত্তর আমার জানা নেই। এটা আমার কাছেও বড় বিস্ময়ের ব্যাপার বলে মনে হয়।
লেখাটা পড়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ। মন্তব্যে এবং প্লাসে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম।
শুভেচ্ছা জানবেন।

০৬ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:৫০

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার মানুষ মানুষের জন্য পোস্টটা পড়ে একটা মন্তব্য রেখে এসেছি। একটু সময় করে দেখে নেবেন।

১৪| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সকাল ৭:১৭

Mysterious Mystery বলেছেন: ভালো আছি ভালো থাকুন, ভালো থাকুক সবাই

১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সকাল ৮:৫৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: আমার কোন কবিতায় আপনি এই বুঝি প্রথম এলেন। আমার লেখায় আপনাকে সুস্বাগতম!
মন্তব্যে প্রীত হ'লাম। ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা!

১৫| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সকাল ৯:১৪

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: আপনি মনের সব আবেগ ঢেলে যে কবিতা লেখেন তা আপনার কবিতা পড়লেই বোঝা যায়।
কবিতা বিশ্লেষন করার ক্ষমতা বা যোগ্যতা আমার কোনটাই নেই। আপনার অনেক কবিতা পড়েছি।কত কবিতা মন ছুয়ে গেছে।
আপনার কবিতার বইটা নিয়ে একটা রিভিউ লিখতে চেয়েছিলাম।আজ পর্যন্ত পারিনি। আমি কোন দিন বুক রিভিউ লিখিনি।
আপনাকে কথা দিয়েছিলাম বই কিনে পড়ে একটা রিভিউ লিখে পোষ্ট দেব, তাও দিতে পারিনি। তবে বই কিনে পড়েছি। সময় করে রিভিউ লিখে ফেলব।
আসলে মনটা এলোমেলো থাকে বেশির ভাগ সময় তাই আর লিখে উঠতে পারিনা।
দোয়া করবেন ভাইয়া আমার জন্য। আপনার জন্যও দোয়া করি আপনি সব সময় ভিষন ভাল থাকুন।

১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সকাল ১১:৪৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার এ আন্তরিকতায় আমি মুগ্ধ, অভিভূত। শুধু ধন্যবাদ জানিয়ে মনের অনুভূতি প্রকাশ করা যাবেনা।
নিরন্তর দোয়া রইলো। যেখানেই থাকুন, নিরাপদে থাকুন, সুস্থ থাকুন, আল্লাহ রাব্বুল 'আ-লামীন এর নিরাপদ আশ্রয়ে থাকুন!

১৬| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সকাল ৯:১৬

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: জাহিদ অনিকের মন্তব্য ভাল লেগেছে।

১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১২:৪৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: আমারও ভাল লেগেছে। কথাটা এখানে জানিয়ে যাবার জন্য ধন্যবাদ। আশাকরি জাহিদ অনিক আপনার আমার ভাল লাগার কথাটা জানতে পারবেন।

১৭| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সকাল ১০:২৯

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: অভিভাবাসন বড় কষ্টকর বাস্তবতা....

যে কষ্টের তুলনা নেই। অসীম কষ্টমুছে যাক.....

১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৩:০১

খায়রুল আহসান বলেছেন: অভিবাসন বড় কষ্টকর বাস্তবতা - সত্যিই তাই।
কবিতা পড়ার জন্য ধন্যবাদ। মন্তব্যে প্রীত হ'লাম, প্লাসে অনুপ্রাণিত।

১৮| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৪:১০

সনেট কবি বলেছেন:




কবি খায়রুল আহসানের নাতনির প্রবাস যাত্রায়-

সম্পর্ক এমন হয় দাদা নাতনির
মাঝে যেন সময়ের অলিগলি ভরা
ঝরা ফুলে হেঁটে চলা পথিকের চুল
দক্ষিণা বাতাসে উড়ে, এমন আনন্দ।
সেজন্য আলাদা হলে বৈশাখি ঝড়ের
কবলে পড়ে কুড়ের ঘরের চালের
খড়গুলো উড়ে গেলে গরীবের মনে
যেমন বেদনা জাগে, সেরকম লাগে।

অতঃপর আপনার বেলায় নাতনি
নামক ছোট্ট পাখির টুকিটাকি সব
আর স্মৃতি গুলো হৃদে এখন সম্বল।
কলজে ছিড়ছে তার শূণ্য অবস্থিতি
এ বয়সে অবসর যাপনের ফেরে
কিন্তু সে পাখিকে রাখা যায়নি কিছুতে।

১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৩:১৩

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ, আমার কবিতাটি পড়ে সনেটের মাধ্যমে আপনার অনুভূতিটুকু জানিয়ে যাবার জন্য।
শুভেচ্ছা জানবেন।

১৯| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৪:১২

শামছুল ইসলাম বলেছেন: প্রবাসী নাতনির জন্য দাদার জন্য মনোবেদনা, তার পরিচয় পুরো কবিতা জুড়ে । হৃদয়ের স্পর্শে কবিতাটা মূর্ত হয়ে ওঠেছে ।

১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৩:৩৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: হৃদয়ের স্পর্শে কবিতাটা মূর্ত হয়ে ওঠেছে -- অনেক ধন্যবাদ, মন্তব্যটা স্পর্শ করে গেল।
আশাকরি ভাল আছেন। ভাল থাকুন, সব সময়।

২০| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৪:৩২

সনেট কবি বলেছেন: আপনার কবিতা আর আপনার নাতনিকে নিয়ে লেখা আমার কবিতা পরিবারের সবাইকে পড়ে শুনানোর সময় আপনার কষ্টের কথা মনে করে আমার চোখের পানি আটকে রাখতে পারিনি, যাতে আমার স্বাভাবিক আবৃতিতে বিগ্ন ঘটে।

১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:৫৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: অত্যন্ত অনুভূতিপ্রবণ আপনার মন। আপনার এ মন্তব্য পড়ে আমি অভিভূত হ'লাম।
দোয়া করবেন, দোয়ায় রাখবেন।
অনেক অনেক ধন্যবাদ এবং শুভেচ্ছা...

২১| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৫:৩৯

MirroredDoll বলেছেন: so true!!!
its always hard to live without loving one

wish one day your "chotto pakhi" will be back to you again

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সকাল ৭:৪৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: কবিতা পড়ার জন্য ধন্যবাদ।
আমার কোন কবিতায় আপনি এই বুঝি প্রথম এলেন। আমার লেখায় আপনাকে সুস্বাগতম!
মন্তব্যে প্রীত হ'লাম। শুভকামনা...

২২| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:৩৫

কথাকথিকেথিকথন বলেছেন:



বাস্তবতার ঘ্রাণে লেখা । সুন্দর কারুকার্য । প্রিয়জনের প্রস্থানে এমনি শূন্যতা সৃষ্টি হয়, মনে জমা হয় তীব্র আকুলতা আবার দেখা হওয়ার আকাংখায় ।

ভাল লেগেছে কবিতা ।

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সকাল ১০:৩৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: প্রিয়জনের প্রস্থানে এমনি শূন্যতা সৃষ্টি হয়, মনে জমা হয় তীব্র আকুলতা আবার দেখা হওয়ার আকাংখায় - সঠিক উপলব্ধি।
কবিতা ভাল লেগেছে জেনে প্রীত হ'লাম। মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত।

২৩| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৫৩

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: ভাল লাগা জানিয়ে গেলাম ।
দোয়া করি পাখি যেন ভাল থাকে

শুভেচ্ছা রইল ।

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১২:৪০

খায়রুল আহসান বলেছেন: ভাল লাগার কথাটা জানিয়ে যাবার জন্য অনেক ধন্যবাদ। দোয়ায় অভিভূত, প্লাসে অনুপ্রাণিত।
অনেক অনেক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা...

২৪| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:৫৮

আহমেদ জী এস বলেছেন: খায়রুল আহসান ,




প্রতিটি মন্তব্যই আপনার ভারাক্রান্ত হৃদয়ের উথাল পাতাল ঢেউয়ের সাথে দুলে গেছে ।

দুলছি আমিও !

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১২:৪৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: প্রতিটি মন্তব্যই আপনার ভারাক্রান্ত হৃদয়ের উথাল পাতাল ঢেউয়ের সাথে দুলে গেছে। দুলছি আমিও। - এমন সুন্দর এবং কাব্যিক মন্তব্যের জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ। মন্তব্যে অনুপ্রাণিত হ'লাম।
অনেক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা!

২৫| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:১২

মনিরা সুলতানা বলেছেন: ছোট্ট আদরের পাখির অশ্রুটুকু জমা থাক আপনার কাছে ই ,আনন্দে আনন্দে ভুবন ভরে উঠুক তার !
আশা করছি আবার ঈদ এর আগেই আপনি উড়ে গিয়ে তাকে দেখে আসবেন ।
শুভ কামনা ভাইয়া !

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৩৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: আনন্দে আনন্দে ভুবন ভরে উঠুক তার! -- তাই যেন হয়!
আশা করছি আবার ঈদ এর আগেই আপনি উড়ে গিয়ে তাকে দেখে আসবেন -- আমারও ইচ্ছে আছে আছে সেরকম, বাকীটা আল্লাহ ভরসা।
কবিতা পড়ার জন্য ধন্যবাদ। মন্তব্যে এবং প্লাসে প্রীত ও অনুপ্রাণিত।

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৫৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: অফ টপিকঃ আপনার সন্তানেরা কি তাদের পিতামাতার মত ভাল তার্কিক (ডিবেটর) হিসেবে গড়ে উঠছে?

২৩ শে অক্টোবর, ২০১৭ বিকাল ৩:২৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার পুরনো পোস্ট দিল্লী দর্শন পড়ে একটা মন্তব্য রেখে এসেছি। সময় করে পড়ে দেখবেন।

২৬| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:৪১

বিলিয়ার রহমান বলেছেন: সেমি ইলেজি বলব নাকি বলব নস্টালজিক কবির স্মৃতি রোমন্থন!!


কবিতা ভালো হয়েছে!!


কবির স্বজন চলে যাওয়ার বেদনা লাঘব হোক!

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:১১

খায়রুল আহসান বলেছেন: সহানুভূতিপূর্ণ মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ।
কবিতা ভালো হয়েছে -- কবিতার প্রশংসায় প্রীত হ'লাম, প্লাসে অনুপ্রাণিত।
শুভেচ্ছা জানবেন।

২৭| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:৫৩

সুমন কর বলেছেন: চমৎকার হয়েছে। ভালো লাগা রইলো।

১৩ নং মন্তব্যেও লাইক।

আমার মেয়েটাও আজ চারদিন ধরে আমার কাছ থেকে দূরে। আপনার কবিতা পড়ে, ওকে আরো বেশি মনে পড়ে গেল।

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:১১

খায়রুল আহসান বলেছেন: মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত হ'লাম।
১৩ নং মন্তব্যেও লাইক - আমিও দিয়েছি।
আশাকরি, এতদিনে আপনার মেয়ের অনুপস্থিতির অবসান হয়েছে।
কবিতা পাঠ এবং মন্তব্যের জন্য অশেষ ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা।

২৮| ১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সকাল ১০:৪৫

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন: বাস্তবতা বড়ই কঠিন। সত্যকে সুন্দর ভাবে কবিতায় উঠিয়ে এনেছেন। কষ্ট ও ভাললাগা যেন এককার হয়ে গেছে। ভাল থাকুন প্রিয় জন স্মরনে।

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:৫২

খায়রুল আহসান বলেছেন: মনযোগ দিয়ে কবিতাটি পড়েছেন, সেজন্যে আন্তরিক ধন্যবাদ।
মন্তব্যে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম।
শুভকামনা...

২৯| ১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৩:৩৮

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: বাস্তব জীবন খুব কঠিন

এজন্যই আমি কল্পবিলাসী হই

সুন্দর কবিতা
শুভেচ্ছা কবিকে

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:৪৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: কল্পবিলাসী হলেই কি আর বাস্তব জীবনের কাঠিন্য থেকে দূরে থাকা যায়?
কবিতার প্রশংসায় এবং প্লাসে অনেক অনুপ্রাণিত। ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা...

৩০| ১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:১৩

ধ্রুবক আলো বলেছেন: খুব গভীর মায়া, মমতা, স্নেহ মাখানো কবিতা...

১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সকাল ৯:০২

খায়রুল আহসান বলেছেন: খুব গভীর মায়া, মমতা, স্নেহ মাখানো কবিতা - ঠিক তাই! আমি ওকে গভীরভাবে মিস করি, খুব গভীর মায়া!
মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ, প্লাসে অনুপ্রাণিত।

৩১| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:১১

মনিরা সুলতানা বলেছেন: লেখক বলেছেন: অফ টপিকঃ আপনার সন্তানেরা কি তাদের পিতামাতার মত ভাল তার্কিক (ডিবেটর) হিসেবে গড়ে উঠছে?

ধন্যবাদ ভাইয়া ,কী ভীষণ মমতায় আপনি সবাই কে মনে আঁকেন রাখেন, মন ছুঁয়ে যায় ___
মেয়ে এবারে দশম শ্রেণীতে স্কুল এবং স্থানীয় পর্যায়ে কিছুটা অর্জন হয়েছে ,বাকীটা আসলে সময় বলে দেবে তার আগ্রহ কোন দিকে।
ছেলে তো সপ্তম শ্রেণীতে , নিজের আগ্রহে ডিবেট ক্লাব এ নাম লিখিয়েছে স্কুলের; এখন ও প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে ।

দোয়া করবেন ওদের জন্য ।

১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সকাল ৯:৪৩

খায়রুল আহসান বলেছেন: জেনে খুশী হ'লাম। দোয়া রইলো...

৩২| ১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১:১২

সুমন কর বলেছেন: না, সে প্রায় ৩০/৩২ দিনের জন্য গিয়েছে....

১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সকাল ১০:২৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: সে প্রায় ৩০/৩২ দিনের জন্য গিয়েছে - ততদিন পর্যন্ত ধৈর্য না ধরে উপায় নেই।
দোয়া করি, ভাল থাকুক আপনার মেয়ে, ভাল থাকুন আপনি।

৩৩| ১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:০৮

প্রদীপ চন্দ্র দাস বলেছেন: আপনার মতো আমার ও একটি ভাবনা আছে... ভাবনার মাঝে যে কথা গুলো ঠিক আপনার মতো।।
ভালো থাকো
ভালো থাকো ফুল
মিষ্টি বকুল ভালো থাকো
ভালো থাকো ধান
বাটিয়ালী গান ভালো থাকো
ভালো থাকো........................................

১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:১০

খায়রুল আহসান বলেছেন: কবিতাটা পড়ার জন্য ধন্যবাদ। মন্তব্যে প্রীত হ'লাম।

৩৪| ২৩ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৩:৪৮

শাহেদ খান বলেছেন: তীব্র আবেগ এবং মায়াময়তায় টলমল!

ভাল থাকা হোক, যিনি লিখেছেন এবং যাদের নিয়ে লিখেছেন, সবার। প্রার্থনা!

২৩ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:২৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: তীব্র আবেগ এবং মায়াময়তায় টলমল - কবিতার ভাবার্থের যথার্থ অভিব্যক্তি, খুবই সুন্দর।
কবিতা পড়ার জন্য ধন্যবাদ। চমৎকার মন্তব্যে প্রীত ও অনুপ্রাণিত।

৩৫| ২১ শে অক্টোবর, ২০১৭ বিকাল ৪:৪০

মিথিলাবতী বলেছেন: মন খারাপের কাব্য। তারপরও একঝলক ভাললাগায় মুগ্ধ হলাম ছোট্ট মানুষটির জন্য। একবার ভাবুন তো, আপনার নাতনি যেদিন এটা পড়বে তখন না জানি কতটা আপ্লুত হবে আপনার ভালবাসায়!
খুব ভাল থাকুক আপনার প্রিয়জনেরা।
সেইসাথে আপনিও ভাল থাকুন।

২১ শে অক্টোবর, ২০১৭ বিকাল ৪:৫৩

খায়রুল আহসান বলেছেন: কবিতাটি পড়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ। মন্তব্যে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম।
আপনার নাতনি যেদিন এটা পড়বে তখন না জানি কতটা আপ্লুত হবে আপনার ভালবাসায়! - ও কি বাঙলা পড়তে পারবে? আমার ভয় হয়, প্রবাসে বড় হয়ে ও হয়তো একদিন বাঙলা পুরোপুরিই ভুলে যাবে।

৩৬| ২২ শে অক্টোবর, ২০১৭ রাত ১২:১৭

মিথিলাবতী বলেছেন: এভাবে ভাববেন না।
মন খারাপ লাগে।
অবশ্যই আপনার আদরের পাখি বাংলা ভাষা শিখবে।
দেশের টান, রক্তের টান আর ভালবাসার টানের সূতোটাতো এদেশেই বাঁধা আছে তার।
যত দূরেই থাক,দোয়া করি বাংলার গর্ব হিসাবে সম্মানের সাথে যেন থাকে।

২২ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ৯:৫৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা!

৩৭| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ রাত ৮:৫৫

রাজীব নুর বলেছেন: মনোমুগ্ধকর।

১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সকাল ১০:২১

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ।
শুভেচ্ছা---

৩৮| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৩৬

করুণাধারা বলেছেন: আপনার প্রাণপ্রিয় পাখির জন্য অনেক শুভেচ্ছা রইল।

যে একটা মাত্র কারণে আমি বিদেশ বাস সমর্থন করি, তা হচ্ছে শিশুদের লেখাপড়ার উন্নত পরিবেশ পাওয়া। আমাদের দেশের মূল ধারার স্কুলগুলোতে এখন শিক্ষার নামে বাণিজ্য চলছে, শিশুদের গিনিপিগ করে। এখানে আড়াই বছর বয়সে একটা শিশুকে স্কুলে ভর্তির জন্য ইন্টারভিউ দেওয়া লাগে! এটা আমার খুব খারাপ লাগে। তাই আপনার পাখিকে হাসিমুখে শিক্ষিকার সাথে ছবি তুলতে দেখে খুব ভালো লাগলো। সুন্দর হোক ওর শিক্ষা জীবন।

১৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:১৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: লিঙ্ক ধরে এসে পুরনো এ কবিতাটি আবার দেখে যাবার জন্য অশেষ ধন্যবাদ।
আপনি যে কারণে সন্তানদের বিদেশ বাস সমর্থন করেন, আমিও সে বিবেচনা থেকেই তাদের প্রবাস যাত্রাকে মেনে নিয়েছি এবং আমাদের কষ্ট হলেও, ওদেরকে উৎসাহিত করেছি প্রবাসে থেকে যাবার জন্য। আমি প্রাণপনে চাই, খাদ্যে বিষক্রিয়া থেকে ওরা বেঁচে থাকুক, মুক্ত বাতাসে ওরা নিঃশ্বাস নিক। বিচারহীনতার যাঁতাকলে ওদের ব্যক্তি স্বাধীনতা যেন শৃঙ্খলিত না হয়!
মাত্র দু'সপ্তাহ হলো পাখিটি স্কুলে যাওয়া শুরু করেছে। আপাততঃ সপ্তাহে তিন দিন করে যেতে হচ্ছে।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.