নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

একজন সুখী মানুষ, স্রষ্টার অপার ক্ষমা ও করুণাধন্য, তাই স্রষ্টার প্রতি শ্রদ্ধাবনত।

খায়রুল আহসান

অবসরে আছি। কিছু কিছু লেখালেখির মাধ্যমে অবসর জীবনটাকে উপভোগ করার চেষ্টা করছি। কিছু সমাজকল্যানমূলক কর্মকান্ডেও জড়িত আছি। মাঝে মাঝে এদিক সেদিকে ভ্রমণেও বের হই। জীবনে কারো বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ করিনি, এখন তো করার প্রশ্নই আসে না। জীবন যা দিয়েছে, তার জন্য স্রষ্টার কাছে ভক্তিভরে কৃতজ্ঞতা জানাই। যা কিছু চেয়েও পাইনি, এখন বুঝি, তা পাবার কথা ছিলনা। তাই না পাওয়ার কোন বেদনা নেই।

খায়রুল আহসান › বিস্তারিত পোস্টঃ

পৌষের প্রত্যুষে, শৈত্যের উষ্ণতায়

২২ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১০:৪৯

পৌষের প্রত্যুষে দেখি চারিদিক ঢেকে আছে
ঘন কুয়াশার আবছা ছায়ায়, ঝাপসা চাদরে।
বিধবার ন্যায় বিষণ্ণ আকাশটায় নিজেকেই
আমি খুঁজি ফিরি, মলিন মেঘপুঞ্জের মাঝে।

আকাশ আমায় ডেকে বলে, বের হয়ে আয়,
ক্ষণিক এসে শোন, দখিনের ঐ অলিন্দটায়,
বৃক্ষশাখায় আর অট্টালিকার ছাদে বসে থাকা
কুয়াশায় ডানা ভেজা পাখিদের মৌন প্রার্থনা।

আকাশের ডাক শুনে আমি বের হয়ে আসি।
পৌষের হিমেল হাওয়ার আদরে স্পর্শিত হয়
আমার চোখ মুখ। বছরের এই হ্রস্বতম দিনে
আমি বিস্ময়ে বসে থাকি শৈত্যের উষ্ণতায়।

ঢাকা
০৮ পৌষ ১৪২৫
২২ ডিসেম্বর ২০১৮

মন্তব্য ৫০ টি রেটিং +১৩/-০

মন্তব্য (৫০) মন্তব্য লিখুন

১| ২২ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১০:৫৭

সাত সাগরের মাঝি ২ বলেছেন: সুন্দর কবিতা.. ভালো লেগেছে

২৩ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:৪৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: কবিতাটা পড়ে প্রথম মন্তব্য রেখে গেলেন, অনেক ধন্যবাদ। ভাল লেগেছে জেনে অনুপ্রাণিত হ'লাম।

২| ২২ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১১:০৩

সাহিদা সুলতানা শাহী বলেছেন: কবিতাটি সুন্দর হয়েছে।

২৩ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১২:০৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: কবিতা পড়ার জন্য ধন্যবাদ। কবিতার প্রশংসায় অনুপ্রাণিত হলাম।

৩| ২২ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১১:৪১

সাইন বোর্ড বলেছেন: পৌষের অনুভব মন ছুঁয়ে গেল ।

২৩ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১২:৩১

খায়রুল আহসান বলেছেন: পৌষের অনুভব মন ছুঁয়ে গেল[/sb অনেক ধন্যবাদ, কথাটি এখানে জানিয়ে যাবার জন্য।
মন্তব্যে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম।

৪| ২২ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১১:৪৫

রাজীব নুর বলেছেন: দারুন আবেগময় কবিতা।
একটা বানানও ভুল খুজে পেলাম না।

২৩ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১২:৫৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: একটা বানানও ভুল খুজে পেলাম না - আশাকরি, আপনি কখনোই আমার কোন লেখায় বানান ভুল খুঁজে পাবেন না, কারণ এ ব্যাপ্যারে আমি ভীষণ সচেতন। কোন সন্দেহ হলে বানান সম্পর্কে নিশ্চিত না হয়ে আমি পোস্ট করি না। তবে, আমিও মানুষ, এবং কোন মানুষই ভুল ভ্রান্তির ঊর্ধ্বে নয়। কী বোর্ডের বিভ্রান্তির কারণে অনেক সময় বিদঘুটে বানান হয়ে যায়। নজরে এলেই আমি তা সম্পাদনা করে দেই। কিন্তু অন্যের পোস্টে করা মন্তব্যে সে সুযোগটি থাকেনা।

৫| ২২ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১১:৫৪

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: Respected sir ,

শৈত্যের হ্রস্বতম দিনে সুন্দর পৌষানুভূতি। তবে এখন উত্তরে নয়, দখিনের অলিন্দে পাখির কুজন, মলিন মেঘমুজ্ঞকে খুঁজে বেড়ান তবে তা বিধবার ন্যায় বিষন্নতায় নয় ; বরং হিমেল বাতাসো মিষ্টি রোদের পরশে উৎফুল্ল চিত্তে শীতবস্ত্রের সমাদৃত হয়ে।


বিনম্র শ্রদ্ধা ও শুভকামনা স্যার আপনাকে।


২৩ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৩:০৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: কবিতাটি পড়ে উপলব্ধ ভাবনা এখানে শেয়ার করার জন্য অনেক ধন্যবাদ। কবিতায় প্রথম প্লাসটা রেখে যাবার জন্যেও অশেষ ধন্যবাদ।
ভাল থাকুন, শুভকামনা....

৬| ২৩ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ৭:২৫

হাবিব স্যার বলেছেন:




পৌষের প্রত্যুষে মায়ের হাতে বানানো
খেজুর গুড়ের ভাপাপিঠা হলে আরো জমে উঠে।
কিন্তু যাদের ঘরে গরম কাপড় নেই
তাদের জন্য শীত মানেই আতংক,
শীতের কথা শুনেই তারা বারবার কেঁপে উঠে!!

কবিতায় ++

২৩ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৩:১২

খায়রুল আহসান বলেছেন: ঠিক বলেছেন। মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ। মন্তব্যে প্রীত হ'লাম।

৭| ২৩ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:১৯

অগ্নি সারথি বলেছেন: উষ্ণতার আহবান!
ভালো লেগেছে।

২৩ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৩:২৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: কবিতাটি আপনার ভালো লেগেছে জেনে প্রীত হ'লাম। ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা---

৮| ২৩ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১২:৪৭

শাহরিয়ার কবীর বলেছেন: কবিতা ভালো লেগেছে++++



২৩ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৩:৩৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ। মন্তব্যে এবং প্লাসে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম।
শুভেচ্ছা জানবেন।

৯| ২৩ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১:০১

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: সুন্দর !!!!

২৩ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৩:৪৩

খায়রুল আহসান বলেছেন: ধন্যবাদ, প্রীত হ'লাম। :)

১০| ২৩ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৪৩

সুমন কর বলেছেন: ভালো লিখেছেন।

২৩ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ৮:০৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: ধন্যবাদ সুমন কর। বরাবর আমার লেখা পড়ে অল্প কথায় বৃহৎ উৎসাহ এবং প্রেরণা যুগিয়ে গেছেন, আমি কৃতজ্ঞ।

১১| ২৩ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১০:১৬

প্রামানিক বলেছেন: খুব ভালো লাগল। ধন্যবাদ

২৪ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ৮:৩১

খায়রুল আহসান বলেছেন: কবিতাটা পড়ার জন্য আপনাকেও অনেক ধন্যবাদ।
কবিতা ভাল লেগেছে জেনে প্রীত হ'লাম।

১২| ২৪ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ৩:৫৪

মাহমুদুর রহমান বলেছেন: অত্যন্ত মনোমুগ্ধকর!

২৪ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ৮:৫৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: ধন্যবাদ মাহমুদুর রহমান। কবিতার প্রশংসায় অনুপ্রাণিত হ'লাম।

১৩| ২৪ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ৯:৫০

জুন বলেছেন: বিন্দু বিন্দু শিশির কণা সবুজ ঘাসের পরে,
ঝিকি মিকি মুক্তা হেসে মনটা পাগল করে।
দিকে দিকে ঠাণ্ডা বাতাস জাগায় শীহরণ,
সরিষা ফুলে মৌমাছি করে মধু আহরণ।

আপনার পৌষ নিয়ে লেখাটি পড়ে কবি আবু জাফরের পৌষের সকাল নামে এই কবিতাটির কথাই মনে পড়লো খায়রুল আহসান । তবে সত্যি বলতে কি শীত আমার অপছন্দের একটি ঋতু। সে যতই পিঠে পুলি আর মেলা হোকনা কেন । ঘরের ভেতর একরাশ লেপ-কম্বল, শাল -জ্যাকেট :((
তবে আপনার লেখাটি ভীষন ভালোলাগলো এটা ঠিক ।
+

২৪ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ৯:৫৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার অপছন্দের ঋতু নিয়ে লেখা কবিতাটাতেও আপনি ভাল লাগা জানিয়ে গেলেন, এটা আমার কবিতার গুণে যতটা নয়, তার চেয়ে বেশী আপনার উদারতার কারণে অবশ্যই। অনেক ধন্যবাদ, কবিতা পাঠ, মন্তব্য এবং প্লাসের জন্য।
মন্তব্যে আবু জাফরের পৌষের সকাল কবিতাংশ উদ্ধৃতির জন্যেও ধন্যবাদ।
ভাল থাকুন সপরিবারে, শুভকামনা---

১৪| ২৪ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৩:৪১

নীলপরি বলেছেন: পুরো কবিতাটাই ভালো লেগেছে । শেষ লাইনটা বিশেষ করে ভালো লাগলো ।

শুভকামনা

২৪ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:২২

খায়রুল আহসান বলেছেন: মন্তব্যে এবং প্লাসে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম।
শেষ লাইনটা বিশেষ করে ভালো লাগলো - শেষ লাইনটার জন্যই কবিতাটা লিখা।
ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা---

১৫| ২৪ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৩৭

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: সুন্দর। +

২৪ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:২৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ, সুন্দর কথাটার জন্য, এবং প্লাসটার জন্যও।

১৬| ২৪ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ৮:১৩

অপু দ্যা গ্রেট বলেছেন:




স্যার

পৌষ মানেই তো কুয়াশা, শিশির ভেজা ঘাস, খেজুরের রস,

আহা । +++

২৪ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ৮:২৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: পৌষ মানেই তো কুয়াশা, শিশির ভেজা ঘাস, খেজুরের রস - ঠিক তাই।
মন্তব্যে প্রীত হ'লাম, অশেষ ধন্যবাদ।

১৭| ২৪ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ৮:৫৩

রাকু হাসান বলেছেন:


বাহ,চমৎকার । কবিতা পড়ে পৌষের আমেজ পেলাম কল্পচোখে যেন আমাকেই পৌষ তার শীতল র্স্পশে শিহরিত করে দিচ্ছে । আপনার কবিতা প্রকৃতির আলতো ছোঁয়া সব সময় পাই । আজও পেলাম । এটা আমার খুব পছন্দের ।

২৪ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ৯:৪৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: কবিতা পড়ে পৌষের আমেজ পেলাম কল্পচোখে যেন আমাকেই পৌষ তার শীতল র্স্পশে শিহরিত করে দিচ্ছে - অনেক ধন্যবাদ, কবিতাটি এতটা মনযোগ সহকারে পাঠ করার জন্য। আপনার পছন্দের কথা জেনে প্রীত হ'লাম।
প্লাসে অনুপ্রাণিত।

১৮| ২৪ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১১:১৫

দৃষ্টিসীমানা বলেছেন: বরাবরের মত চমৎকার লেখা , অনেক ভাল লাগা রইল ।

২৫ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ৯:৩৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ, কবিতায় আসার জন্য, প্রশংসা করার জন্য এবং ভাল লাগার কথাটুকু এখানে জানিয়ে যাবার জন্য।
ভাল থাকুন, শুভকামনা....

১৯| ২৫ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:৪৫

আহমেদ জী এস বলেছেন: খায়রুল আহসান,



আকাশ যে মানুষকে কেন ডাকে! কেন যে দূর আকাশের ময়ূর নীলিমা মানুষকে উতলা করে! আকাশের সেই ডাক কি সবাই শুনতে পায়!!!!!!
যে পায় তারে অবাক বিস্ময়ে -----

কী করুন বাতাসে ভর করে
আকাশের কান্না ঝরে
মাঠের পরে , চারিদিক ঢাকি -
ধুম পৌষের হীম
কুয়াসার ডানা মেলে আসে --
কবেকার প্রাচীন এক পৃথিবীর পথে......


তারপর ?

অন্ধকারের জরায়ু ছিঁড়ে এক সূর্য্য প্রসব
দিগচক্রবালে লালিমা মেখে আসে,
কুয়াসায় ঢেকে মুখ এক সকাল উদ্ভাসে
মাঠের ওপারে শুয়ে থাকা আকাশে... আকাশে!



বছর শেষের দিনগুলির শুভেচ্ছা।

২৫ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১২:০১

খায়রুল আহসান বলেছেন: আহমেদ জী এস, কি চমৎকার করেই না রেখে গেলেন কবিতা পড়ার পরের অনুভবটুকু!
অনেক অনেক ধন্যবাদ এমন সুন্দর মন্তব্য এবং প্লাসের জন্য।
ভাল থাকুন, শুভকামনা---

২০| ২৫ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১:৫৬

কালীদাস বলেছেন: কেমন আছেন? :)


কুয়াশা কি পড়ে এখনও ভোরের ঢাকা শহরে? গ্লোবাল ওয়ার্মিং, আমার প্রিয় শহরটা অনেক বদলে গেছে গত বিশ বছরে। শীত আর পড়ে না। অথচ, স্কুলে পড়ার সময়ও নভেম্বরেই ভাল শীত পড়ে যেত। কুয়াশার ভেতর শ্বাস-প্রশ্বাসের ধোয়া ওঠা; অদ্ভুত এক নীরব, শুনশান পরিবেশ- আমি শীত এজন্যই ভালবাসি।

শীতকালে উত্তরের ঠান্ডা দোজখে পাখিরা কি করে তার একটা ইন্টারেস্টিং ছবি তুলেছিলাম গত বছর। এখন খুঁজে পেলাম না, পেলে পরে শেয়ার করব।

২৫ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ দুপুর ২:১৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: এখন খুঁজে পেলাম না, পেলে পরে শেয়ার করব। - আচ্ছা, ধন্যবাদ।
আমি তো ভালই আছি, আলহামদুলিল্লাহ! একজন স্ট্রেইট ফরোয়ার্ড, আউটস্পোকেন ব্লগারকে বহুদিন ধরে ব্লগে না দেখে কয়েকবার আপনার পেইজে ঢুঁ মেরে এসেছিলাম। যাক, ব্লগে ফিরলেন তা'হলে।
কবিতা পড়ার জন্য ধন্যবাদ। মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত।

২১| ২৫ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:২৭

কাওসার চৌধুরী বলেছেন:



"সনে সনে পৌষ মাস আবার আসে ফিরে,
কণ্ কণে শীত আর কুয়াশায় থাকে ঘিরে।
ভন ভন করে মৌমাছিরা সরিষার ফুলে,
ডালা হাতে কিশোরীরা সরিষা ফুল তোলে।'

পৌষের ডাকে সাড়া না দিয়ে তো উপায় নেই!! পৌষ তার রূপ ও সৌন্দর্য্য দিয়ে ঠিকই প্রকৃতিকে সাজায়; জীবকে ভাবায়। প্রবল আকর্ষণে শৈত্য দৈত্য পাঠায়। +++++++

২৫ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৩৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ, পৌষ নিয়ে লেখা সুন্দর চারটি লাইন উদ্ধৃত করার জন্য।
মন্তব্যে অনুপ্রাণিত হ'লাম।

২২| ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ৮:৪২

স্বপ্নীল ফিরোজ বলেছেন: Excellent

২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ৯:৪৩

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা।
মন্তব্যে অনুপ্রাণিত।

২৩| ০৩ রা জানুয়ারি, ২০১৯ সকাল ১১:০১

জাহিদ অনিক বলেছেন: শেষ স্তবকটি আমার কাছে সবচেয়ে সুন্দর লেগেছে। যদিও পুরো কবিতাই ভালো লেগেছে।
শুভ কামনা

০৪ ঠা জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ১০:৪৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: শেষ স্তবকটি আমার কাছে সবচেয়ে সুন্দর লেগেছে - শেষ স্তবকটি, বিশেষ করে কবিতার শেষ চরণটি নিয়ে ভাবতে ভাবতেই কবিতাটির সৃষ্টি।
মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত হ'লাম। ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা!!!

২৪| ০৭ ই জানুয়ারি, ২০১৯ বিকাল ৫:৫৫

ধ্রুবক আলো বলেছেন: ঢাকায় তেমন শীত নেই, গ্রামে প্রচুর শীত।
কবিতা খুব সুন্দর হয়েছে।

০৮ ই জানুয়ারি, ২০১৯ সকাল ৯:২১

খায়রুল আহসান বলেছেন: শৈত্য প্রবাহ ছাড়া ঢাকার শীত তেমন অনুভব করা যায় না।
সময় করে কবিতা পড়ার জন্য ধন্যবাদ। মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত হ'লাম।

২৫| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ রাত ৯:১৩

করুণাধারা বলেছেন: শৈত‍্যের উষ্ণতা, নাহ্, শীতের মধ্যে আমি কোন উষ্ণতা খুঁজে পাই না, কেবলই কঠিন শীতলতা দেখি........ তবু ভাগ্যিস আজকাল শীত তেমন পড়ে না.........

কবিতার বিষয়বস্তুর সাথে দ্বিমত পোষণ করছি :( , কিন্তু কবিতা ভালো হয়েছে, এতে কোন দ্বিমত নেই।

কবিতায় ++++++, জানাতে দেরি হয়ে গেল যদিও।

১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ রাত ৯:৪৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: প্রত্যুষের একটি বিশেষ মুহূর্তের অনুভূতিই উঠে এসেছে কবিতায়। মনে হচ্ছিল, হ্রস্বতম দিনটির ঐ হিমেল বাতাস আমার চোখে মুখে আদরের হাল্কা পরশ বুলিয়ে দিচ্ছিল। আর আদর মানেই উষ্ণতা - সেই অর্থে শৈ্ত্যের উষ্ণতা
দ্বিমত আলোচনাকে দুর্বল নয়, সমৃদ্ধ করে। তাই সুবিবেচিত দ্বিমতকে স্বাগত জানাই।
কবিতায় ++++++, জানাতে দেরি হয়ে গেল যদিও - অনেক ধন্যবাদ, প্রীত হ'লাম। (তালিকায় নাম উঠেনি যদিও :) )

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.