নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আলো –অন্ধকারে যাই- মাথার ভিতরে স্বপ্ন নয়,- কোন এক বোধ কাজ করে! স্বপ্ন নয়- শান্তি নয়-ভালোবাসা নয়, হৃদয়ের মাঝে এক বোধ জন্ম লয়! আমি তারে পারি না এড়াতে, সে আমার হাত রাখে হাতে; সব কাজ তুচ্ছ হয়,-পণ্ড মনে হয়। -জীবনানন্দ দাশ

কুশন

আমার জন্ম ফরিদপুরের সালতা গ্রামে। বর্তমানে আমেরিকা প্রবাসী। আমার বাবা একজন কৃষক। বাবার সাথে বহুদিন অন্যের জমিতে কাজ করেছি।

কুশন › বিস্তারিত পোস্টঃ

প্রবাসীর কষ্ট

২১ শে নভেম্বর, ২০২১ দুপুর ২:৫৬



বিদেশে আসার পর বুঝতে পেরেছি, দেশ কি। নিজের দেশ! প্রবাসী হয়ে থাকা খুব কষ্টের। বারবার দেশের কথা মনে পড়ে। বুকের মধ্যে উথালপাথাল করে। দেশে থাকতে কখনও দেশ নিয়ে চিন্তা ভাবনা আসে নি মনে। বিদেশের মাটিতে পা রেখে বুঝলাম নিজের দেশ কি জিনিস। কি শান্তি। বাংলায় কথা বলতে না পেরে আমি ছটফট করি। আমার দম যেন বন্ধ হয়ে আসে। শুধু মাত্র বাংলায় কথা বলার জন্য ছুটে যাই, জ্যাকসন হাইটস। নিজ দেশের খাবার খাই। ফুটপাতে দাঁড়িয়ে চা খাই, গল্প করি। নিজের দেশের গল্প করি। বড় ভালো লাগে। পরবাসে নিজের দেশের গল্প করা অনেক আনন্দের। সদ্য কেউ দেশ থেকে আমেরিকা এলে তার কাছে ছুটে যাই। যেন সে আমার আপন আত্মীয়। তার কাছ থেকে জেনে নিই দেশের কথা। আমেরিকাতে বাংলাদেশের কারো সাথে দেখা হলে আমি তাকে জড়িয়ে ধরি।
বাংলাদেশ নিয়ে একবার আমরা একটা অনুষ্ঠান করে আমেরিকানদের মাথা নষ্ট করে দিয়েছিলাম।

দেশে থাকলে দেশ নিয়ে এত চিন্তা হয় না। এত চিন্তা আসেও না। বিদেশে আসার পর দেশ নিয়ে চিন্তাভাবনা আসে। খারাপ সংবাদ শুনলে অস্থির হয়ে যাই। ভালো সংবাদ শুনলে বন্ধুবান্ধব মিলে পার্টি দেই। বিয়ার খাই। দেশে বাঙ্গালীরা মিলেমিশে না থাকলেও বিদেশের মাটিতে মিলেমিশে থাকে। সপ্তাহ শেষে কারো না কারো বাসায় অনুষ্ঠান থাকেই। সবাই মিলে আনন্দ করি। খাই। মজা করি। কখনও কখনও দূরে পিকনিক করি। বড় ভালো লাগে। বিদেশে বসে ভাবি কেন আমাদের দেশটা বিদেশের মতো হলো না। কেন আমাদের দেশের মানুষ গুলো খারাপ। লোভী। মিথ্যাবাদী, প্রতারক আর ভন্ড। ৭১ সালেও দেশের সব মানুষ এক হতে পারেনি। কেউ কেউ আড়ালে চেয়েছিলো পাকিস্তানই থাকুক। তাদের জয় হোক। আজকাল দেশের অবস্থা এতটাই খারাপ হয়েছে যে নিজের দেশে খেলা হলেও নিজের দেশকে সাপোর্ট করে না। সাপোর্ট করে পাকিস্তানকে। পাকিস্তানের পতাকা নিয়ে উল্লাস করে।

প্রবাসীরা জ্ঞানীগুণীরা দেশ নিয়ে অনেক আলাপ করে। তাদের আলাপ আলোচনা আমি মন দিয়ে শুনি। বুঝতে চেষ্টা করি। বেশির ভাগ প্রবাসীরা মনে করে- দেশের সর্বনাশের পেছনে দায়ী পুলিশ, সরকারী আমলা এবং রাজনীতিবিদরা। পুলিশ ঘুষ ছাড়া কিচ্ছু বুঝে না। তাদের আচরন দেখলে মনে হয়- ঘুষ খাওয়ার জন্যই তাঁরা পুলিশে জয়েন করেছে। অবশ্য পুলিশে চাকরির জন্য, পদন্নোতির জন্য, ভালো জাগায় পোষ্টিং এঁর জন্য পুলিশকেও ঘুষ দিতে হয়। সামান্য ফুটপাত থেকে পুলিশ নিয়মিত টাকা তোলে। আসামী ধরা পড়লেও টাকার বিনিময়ে তাকে ছেড়ে দেয়। সমস্ত অন্যায় কাজই পুলিশ করে। আমাদের গ্রামে দেখেছি, একলোক সীমাহীন টাকার মালিক। কালো টাকা। প্রতিদিন পাঁচ জন পুলিশ সারারাত তার বাড়িতে গার্ড দেয়। অথচ সে কোনো মন্ত্রী, এমপি বা বড় সরকারী কর্মকর্তা না। পুলিশ জনগনের বন্ধু না। পুলিশ দুষ্টলোকদের বন্ধু। দেশের এই অবস্থার জন্য পুলিশ অনেকখানি দায়ী। পুলিশ সৎ হলে দেশ বদলে যেতো।

পুলিশের মতো সরকারী আমলারাও ঘুষ ছাড়া কিছু বুঝে না। বাংলাদেশে এমন কোনো সরকারী দফতর আছে যেখানে ঘুষ লাগে না? এই ঘুষ লেনদেন বন্ধ হলে দেশের অনেক সমস্যার সমাধান এমতেই হয়ে যেত। সিটি করপোরেশনের অফিস গুলোও ঘুষের আড্ডাখানা। সামান্য একটা ট্রেড লাইসেন্স করাতেও ঘুষ দিতে হয়। সরকারী অফিসের বিজ্ঞাপন পত্রিকায় ছাপানোর জন্য ঘুষ দিতে হয়। রাজনীতিবিদদের লন্ডন, আমেরিকা, কানাডা আর মালোশিয়াতে বাড়ি আছে। এই বাড়ির নাম দিয়েছে তাঁরা সেকেন্ড হোম। দেশের টাকা দিয়ে বিদেশে বাড়ি করে। অন্যায় ভাবে। অসৎ ভাবে। দুদক এসব দেখে না। দুদকও ঘুষ খায়। তাদের বাড়িতে চলে যায় ঘুষের টাকা। কোরবানীর ঈদের সময় চলে যায় আস্তো গরু। জামা কাপড়। পাঁচ তাঁরা হোটেলের খাবার। দুদক চাইলে অসৎ লোকদের ধরা কোনো ব্যাপারই না। বরং দুদক অসৎ লোকদের ভরসা দেয়। সাপোর্ট দেয়।

আমাদের গ্রামের হাই স্কুলের পিয়নের চাকরী পেতে আট লাখ টাকা লেগেছে। দাড়োয়ানের চাকরির জন্য লেগেছে ছয় লাখ টাকা। হাজার হোক সরকারী স্কুল। আমাদের গ্রামের এক ছেলে প্রাইভেট কোম্পানীতে চাকরী করে। সে এখন সরকারী চাকরির জন্য পনের লাখ টাকা নিয়ে দ্বারে দ্বারে ঘুরছে। জমি বিক্রি করেছে। ধারধেনা করেছে। প্রাইভেট চাকরির নিশ্চিয়তা নেই। যে করেই হোক সরকারী চাকরী পেতেই হবে। উকিলরা টাকা খেয়ে ভালো মানুষকে কারাগারে পাঠিয়ে দেয়। দোষী লোককে ফুলের মালা দিয়ে বরন করে। জজরাও ঘুষ খায়। সব কিছু মিলিয়ে বলা যেতে পারে বাংলাদেশে কোনো সৎ মানুষ নেই। বাংলাদেশ হলো খারাপ মানুষের দেশ। বাংলাদেশে যারা কারাগারে আছে তাদের যদি প্রচুর টাকা থাকতো তাহলে তাদের কারাগারে থাকতে হতো না। কারাগার হলো দরিদ্র লোকদের জন্য। ধনীরা অপরাধ করে কিন্তু তাদের কারাগারে যেতে হয় না।

মন্তব্য ১২ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (১২) মন্তব্য লিখুন

১| ২১ শে নভেম্বর, ২০২১ বিকাল ৪:৪০

চাঁদগাজী বলেছেন:



যেসব বাংগালী লেবানন, মিশর, ইরাক, আফগানিস্তান ও সিরিয়ায় আছে, দেশ তাদের কাছে কেমন লাগে?

০৮ ই ডিসেম্বর, ২০২১ রাত ১২:৪৮

কুশন বলেছেন: তাঁরা দেশ নিয়ে চিন্তিত না।
তাঁরা গেছে কামলা খাটতে।

২| ২১ শে নভেম্বর, ২০২১ বিকাল ৫:২৯

মোহাম্মাদ আব্দুলহাক বলেছেন: লন্ডনে একটা সমস্যা আছে, এখানে সিলটি ননসিলটি, ‌ঢাকাইয়া নিয়ে এখনো মারামারি।
হায় আল্লাহ!

চিন্তা করবেন না সব ঠিক হয়ে যাবে।

০৮ ই ডিসেম্বর, ২০২১ রাত ১২:৪৮

কুশন বলেছেন: ওকে। ধন্যবাদ।

৩| ২১ শে নভেম্বর, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:০৬

গফুর মিয়া১৯১ বলেছেন: বাংলায় জন্ম নিয়া বাঙ্গালী হতে পেরেছে কিন্তু লোকজন মানুষ হতে পারে নাই।

০৮ ই ডিসেম্বর, ২০২১ রাত ১২:৪৮

কুশন বলেছেন: রাইট।

৪| ২১ শে নভেম্বর, ২০২১ রাত ৮:৫৬

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: আপনি প্রবাসে থেকেও দেশের কথা এত চিন্তা করেন জেনে খুব ভালো লাগলো। আমার ক্ষেত্রে উল্টো ঘটনা ঘটে। আমি দেশে থাকি। কিন্তু সব সময় আমি বিদেশের সমস্যার কথা চিন্তা করি। আমার মনে হয় কি হবে এই বাইরের দেশগুলির। আমাদের দেশে কোন যুদ্ধ নাই, রায়ট নাই, গণহত্যা নাই, রেসিজম নাই, বড় কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ নাই, জাতিগত দাঙ্গা নাই অথচ কত দেশে এগুলি অনেক বড় সমস্যা। ওদের জন্য আমার মায়া লাগে। আপনার যেমন বিদেশে বসে দেশের জন্য মায়া লাগে।

০৮ ই ডিসেম্বর, ২০২১ রাত ১২:৪৯

কুশন বলেছেন: বাংলাদেশ হলো সমস্যার দেশ। আর আপনি বলেছেন দেশে ''সমস্যা নাই''!!!!

৫| ২২ শে নভেম্বর, ২০২১ রাত ২:১৮

নুরুলইসলা০৬০৪ বলেছেন: @ সাড়ে চুয়াত্তর,মুর্তি ভাঙ্গা ও হিন্দুদের পিটানো এটা কি আপনারা আপসে করেন।এখানে কোন সাম্প্রদায়িক ব্যপারসেপার নাই।ইসলামিক দেশ গুলিতেই আপনার উল্লেখিত বিষয় গুলো বেশি।অবশ্য সেটাও বিদেশই।

০৮ ই ডিসেম্বর, ২০২১ রাত ১২:৫০

কুশন বলেছেন: না না এসব বলতে যাবেন না।

৬| ২২ শে নভেম্বর, ২০২১ রাত ২:৩৪

নুরুলইসলা০৬০৪ বলেছেন: এখানে আইন কানুন সব উল্টাপাল্টা।একবার যদি আপনি ক্রিমিনাল কেসে আটকা পড়েন আপনার যত টাকাই থাক জামিন না পাওয়া পর্যন্ত আপনার টাকা আপনি খরচ করতে পারবেন না।আপনার আত্মিয় সজন থাকলে তারা টাকা খরচ করে আপনাকে ছাড়ানোর ব্যবস্থা করবে।আমার পরিচিত একজন এমন সমস্যায় পড়েছে।সে নাকি মহিলাকে কম টাকা দিয়েছে বাস ফেসে গেছে।এখন শ্রীঘরে।অথচ তার প্রচুর টাকা।

০৮ ই ডিসেম্বর, ২০২১ রাত ১২:৫১

কুশন বলেছেন: টাকা থাকলে বাংলাদেশে যে কোনো অন্যায় করে পার পাওয়া যায়।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.