নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আলহামদুলিল্লাহ। যা চাইনি তার চেয়ে বেশি দিয়েছেন প্রিয়তম রব। যা পাইনি তার জন্য আফসোস নেই। সিজদাবনত শুকরিয়া। প্রত্যাশার একটি ঘর এখনও ফাঁকা কি না জানা নেই, তাঁর কাছে নি:শর্ত ক্ষমা আশা করেছিলাম। তিনি দয়া করে যদি দিতেন, শুন্য সেই ঘরটিও পূর্নতা পেত!

নতুন নকিব

যবে উৎপীড়িতের ক্রন্দল-রোল আকাশে বাতাসে ধ্বনিবে না, অত্যাচারীর খড়্গ কৃপাণ ভীম রণ-ভূমে রণিবে না- বিদ্রোহী রন-ক্লান্ত। আমি সেই দিন হব শান্ত।

নতুন নকিব › বিস্তারিত পোস্টঃ

ঘাড়, পিঠ আর কোমরের ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে....

১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১২:১৩

ছবিঃ অন্তর্জাল।

ঘাড়, পিঠ আর কোমরের ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে....

অফিস কিংবা কর্মক্ষেত্রে অনেকেরই দীর্ঘক্ষণ বসে কাজ করতে হয়। এভাবে দৈনন্দিন বাড়তে থাকা কাজের চাপের কারণে অনেকের দেখা দিতে পারে ঘাড়, কোমড় ও পিঠের ব্যথার মত সমস্যা। ঘাড়, কোমড় ও পিঠের এই জাতীয় ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে জীবনযাত্রা এবং হাঁটা-চলা ও বসার অভ্যাসে কিছু পরিবর্তন আনা জরুরি। আসুন, জেনে নিই এমন ঘাড়, কোমড় আর পিঠের ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে সহজ কিছু উপায়-

এক. যদি অফিসে বা কর্মক্ষেত্রে দীর্ঘক্ষণ বসে কাজ করতে হয়, সেক্ষেত্রে মাঝে মধ্যে ২-৩ মিনিটের জন্য ‘ব্রেক’ নিয়ে একটু হাঁটুন। চিকিৎসকরা জানাচ্ছেন, ২ ঘণ্টা একটানা বসে থাকলে শরীরের ভাল কোলেস্টেরলের মাত্রা এক ধাক্কায় প্রায় ২০ শতাংশ পর্যন্ত কমে যায়। সেই সঙ্গে শরীরের ফ্যাট ঝরানোর উৎসেচকের ক্ষরণ প্রায় ৯০ শতাংশ কমে যায়। ৪ ঘণ্টা একটানা বসে থাকলে রক্তে ইনসুলিনের মাত্রা কমে যায়। তাই ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থাকলে শুধু ঘাড়ে, কোমরে বা পিঠে ব্যথাই বাড়বে না, বাড়বে ডায়াবেটিস বা হার্টের সমস্যাও।

দুই. ভুল ভঙ্গিমায় বসা বা দাঁড়ানো অথবার শোবার ফলে ঘাড়ে বা পিঠে ব্যথা হয়। তাই বসা, দাঁড়ানোর বা শোওয়ার সময় তার ভঙ্গি সতর্কভাবে খেয়াল রাখতে হবে।

তিন. বেড়াতে যাওয়ার সময় বা কাজে বের হওয়ার আগে অনেকেই পিঠে ভারী ব্যাকপ্যাক নেয়। বেশি ওজনের ব্যাগ দীর্ঘক্ষণ ধরে বইতে হলে দু’ কাঁধে সমান ভার না পড়লে কাঁধে বা পিঠে ব্যথা হয়। তাই ব্যাগ এমনভাবেই নিতে হবে যাতে দু’কাঁধে সমান চাপ পড়ে।

চার. ফ্রোজেন শোল্ডার বা স্টিফ জয়েন্টের সমস্যায় সার্ভিক্যাল কলার বা ব্যাক ব্রেস পরলে সাময়িক আরাম পাওয়া যায় ঠিকই, তবে এই অভ্যাস দীর্ঘমেয়াদী হলেই বিপদ! কারণ, চিকিৎসকদের মতে, তেমন কোনও চোট, আঘাত না থাকলে সার্ভিক্যাল কলার বা ব্যাক ব্রেস-এর ওপর নির্ভর না করাই ভাল। এর থেকে ফিজিওথেরাপিস্টদের পরামর্শ অনুযায়ী নিয়ম মেনে কসরত করাই ভাল।

পাঁচ. শোওয়ার সময় বালিশের উচ্চতা সঠিক না হলে বা বালিশ খুব শক্ত বা খুব নরম হলে ঘাড়ে, পিঠে ব্যথা হতে পারে। বালিশের উচ্চতা এমন হওয়া উচিত, যাতে কাঁধ আর ঘাড় না বেঁকিয়ে পিঠ মোটামুটি সোজা বা সমান্তরাল রেখে শোওয়া যায়।

নিয়ম মেনে চলুন। সুস্বাস্থ্যে সুখী থাকুন সকলে।

মন্তব্য ২১ টি রেটিং +৩/-০

মন্তব্য (২১) মন্তব্য লিখুন

১| ১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:০১

শেরজা তপন বলেছেন: লেখার উদ্দেশ্য ভাল- কিন্তু তেমন নতুন কিছু পেলাম না।

১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:০১

নতুন নকিব বলেছেন:



আপনার আগমন সত্যি আনন্দিত করলো। আসলে গত ক'দিন অসুস্থতার কারণে বলতে গেলে ব্লগ থেকে কিছুটা দূরেই ছিলাম। এই পোস্টটির মাধ্যমে হাজিরা দেয়া আর কি। আপনার ধারণাই হয়তো সঠিক, এই পোস্টে তেমন কিছু আসলেই নেই।

শুভকামনা সবসময়।

২| ১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:০৫

রাজীব নুর বলেছেন: আমার ঘাড় পিঠ ব্যাথা নাই।
আমার একটাই সমস্যা পা চাবায়। এত চাবায় যে ঘুমাতে পারি না। তখন কেউ পা পাড়িয়ে দিলে আরাম হয়। পা চাবানো কিভাবে কমানো যায়। ডাক্তার দেখিয়েছে। তারা ক্যালশিয়াম এর ওষুধ খেতে বলে।

১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:০৩

নতুন নকিব বলেছেন:



আমার ধারণা, ডাক্তার ঠিকই বলেছেন। আপনি সম্ভব হলে আরও ভালো কোনো ডাক্তারের পরামর্শ নিতে পারেন।

৩| ১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:০৯

শায়মা বলেছেন: এখন তো মনে হয় সবার এই ব্যাথা বেড়ে যাবে। ২৪ আওয়ারস অনলাইনে কাজ করে করে। তবে আমার একবার ২০১৫ এ বলতে গেলে আমার হাত একেবারেই অচল হয়ে পড়েছিলো। সারাদিন মোটা মোটা কাগজ কেটেছিলাম। তারপর ভাবলাম এই জীবনে আর এসব করা হবে না। কিন্তউ সি আর পি ফিজিও থেরাপী করে একদম ১০০% ঠিক। আর অবশ্যই বসা চলা হাঁটা এসব লাইফস্টাইল বদলাতে হবে।

১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:১৮

নতুন নকিব বলেছেন:



এখন তো মনে হয় সবার এই ব্যাথা বেড়ে যাবে। ২৪ আওয়ারস অনলাইনে কাজ করে করে।

-ঠিকই বলেছেন। অনলাইনে কাজ করার বিষয়টা এই ক্ষেত্রে মনে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ।

তবে আমার একবার ২০১৫ এ বলতে গেলে আমার হাত একেবারেই অচল হয়ে পড়েছিলো। সারাদিন মোটা মোটা কাগজ কেটেছিলাম। তারপর ভাবলাম এই জীবনে আর এসব করা হবে না। কিন্তউ সি আর পি ফিজিও থেরাপী করে একদম ১০০% ঠিক।

-আপনি তো মাশাআল্লাহ দুরন্ত! আপনার সাহস, মানে, মনের জোর তো সেইরকম। আর সবচে' বড় কথা, সমস্যাটা সেরে গেছে সেটা শুকরিয়ার।

আর অবশ্যই বসা চলা হাঁটা এসব লাইফস্টাইল বদলাতে হবে।

-জ্বি, সেটাই। সচেতনতা প্রয়োজন।

শুভকামনা।

৪| ১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:৩০

পগলা জগাই বলেছেন: আমি নিয়মের অনিয়ম করি, তাই মাঝে মাঝেই ভুগী

১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:২০

নতুন নকিব বলেছেন:



আমিও আপনার দলের। তবে নিয়মের 'অনিয়ম' বাদ দিয়ে 'নিয়মে' ফিরে আসার চেষ্টাই থাকা প্রয়োজন।

শুভকামনা।

৫| ১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:৩৭

মুক্তা নীল বলেছেন:
নকীব ভাই ,
ঘাড় ব্যথায় দুই বছর আগে মারাত্মক কষ্ট করেছি এবং
এক টানা দেড় মাস ফিজিওথেরাপি নিয়ে আল্লাহর অশেষ
রহমতে এখন সুস্থ। আসলে কিছু নিয়ম মেনে চলতে হয়।
ভালো লিখেছেন, ধন্যবাদ ।

১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:২৯

নতুন নকিব বলেছেন:



বলেন কি! আপনারও এই সমস্যা ছিল! যাক, শুকরিয়া যে, আপনি এখন সুস্থ। আসলেই এটা অনেক কষ্টের। নিয়ম মেনে সুস্থ থাকবেন- এটাই কামনা।

৬| ১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:২২

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: ধন্যবাদ আপনাকে উপকারী পোস্টের জন্য

১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৩১

নতুন নকিব বলেছেন:



আনন্দিত, আপনার আন্তরিক মন্তব্যে।

পোস্ট উপকারী মনে হওয়ায় কৃতজ্ঞতা।

৭| ১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:২৪

শায়মা বলেছেন: আপনি তো মাশাআল্লাহ দুরন্ত! আপনার সাহস, মানে, মনের জোর তো সেইরকম। আর সবচে' বড় কথা, সমস্যাটা সেরে গেছে সেটা শুকরিয়ার।



শুকরিয়া থ্যাংক ইউ ভালোবাসা তোমাকেও।

কথা সত্যি। মনের জোরে সুস্থ্য হয়ে যাই। মাথা ব্যথা হলে মানুষ বাম লাগায় নাপা খায় আরও কত কি।

আমি ওষুধ খাইনা বললেই চলে। সোজা মাথায় তেল লাগায় ঘুমাই যায়। পরদিন ঝররঝর মুখরও বাদর দিনে......

১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৫৪

নতুন নকিব বলেছেন:



পুনরায় মন্তব্যে এসে আন্তরিকতার পরশ রেখে যাওয়ায় কৃতজ্ঞতা অশেষ। মনের জোর শারিরীক সুস্থতার অন্যতম উপাদান। সেটা যাদের অতিমাত্রায় থাকে তারা ছোট খাট সমস্যাগুলো থেকে দ্রুত আরোগ্যলাভ করেন। আর যাদের কম তারাও সুস্থ হয়ে ওঠেন, তবে সময়টা হয়তো একটু বেশি নেন।

শৈশব-কৈশোর আর জীবনের প্রথম দিককার পল্লীর স্মৃতিগুলো অমলিন হয়ে থেকে যাবে আজীবন। তখন খেজুর পাড়তে গিয়ে কত খেজুরের কাটা যে হাতে পায়ে ফুটেছে, বড়ই পাড়তে গিয়ে কত আঘাত যে পেয়েছি, বাড়ির পুকুর ডোবায় মাছ ধরতে গিয়ে কত শিং মাছের কাটা বিদ্ধ হয়েছি, কত জোঁকের কামরে রক্তাক্ত হয়েছি- কিসের ডাক্তার আর কিসের ওষুধ! পাত্তাই দিতাম না।

৮| ১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৫৬

শায়মা বলেছেন: একদম ঠিক ঠিক। নো পাত্তা টু এনি প্রতিবন্ধকতা।

১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:২৯

নতুন নকিব বলেছেন:



তবে, রক্ত বন্ধ করার জন্য ওষুধ একটা ছিল। বন্যে লতা বা বুনো লতার পাতার রস। কাটা স্থানে দেয়ার সাথে সাথে রক্ত পড়া বন্ধ হয়ে যেত। পাতাটা চিনেন কি না দেখেন তো!





এই পাতা বহুল পরিচিত একটি ভেষজ। এটি আমাদের দেশে গ্রামগঞ্জে রাস্তার আশেপাশে এবং ঝোপঝাড়ে প্রচুর পরিমানে পাওয়া যায়। এর বোটানিক্যাল নাম Mikania Micrantha Kunth.

এই বন্যে লতা বা বুনো লতার পাতা সাধারণতঃ যেসকল রোগে উপকারীঃ

১. কাটা ঘায়ে ও রক্ত পড়ায় পাতা বেটে অথবা ছেঁচে রস ব্যবহারে উপকার পাওয়া যায়।

২. ঘা কিংবা পূজযুক্ত ঘায়ের স্থানে এই পাতার রস লাগিয়ে প্রতিদিন কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে আবার লাগালে উপকার হয়।

৩. চুলকানিতেঃ শরীরে ঘামাচির মত ছোট দানা সদৃশ যা ঘামাচি নয় এরকম জায়গায় পাতার রস কুসুম গরম করে কিছুদিন লাগালে উপকার মিলে।

৪. বাতের ব্যথা ও ফোলা স্থানে এই পাতা বেটে হালকা গরম করে প্রলেপ দিলে উপকার পাওয়া যায়।

বলে রাখা বিধেয়, অনেকেই এই পাতাটি সেবন করেন, কিংবা এর রস সেবন করেন, আমাদের জ্ঞাতসারে এটি সমীচিন নয়। কেননা এই লতার পাতা বাহ্যিক ব্যাবহারের জন্য।

৯| ১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:৩৯

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: নামাজের রুকু ও সেজদা ঘাড় আর পিঠের ব্যথা থেকে রক্ষা করে যদি না আগে থাকতেই রোগটা থাকে। নিয়মিত রুকু সেজদা সহ সঠিকভাবে নামাজ পড়লে আশা করা যায় যে এই রোগ হওয়ার শম্ভবনা কম।

১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:৪৭

নতুন নকিব বলেছেন:



দারুন তথ্য দিলেন। যুক্তিযুক্ত।

শুকরিয়া।

১০| ১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ৮:৩৮

শায়মা বলেছেন: না চিনিনা ভাইয়া।

কাঁটা ঘায়ে নুনের ছিটা শুনেছি। কাঁটা ঘায়ে পাতার রসও দেখছি উল্টা কথা বলে.....একটা জ্বলায় আরেকটা থামায়..... হা হা

ওকে ওকে থ্যাংক ইউ সো মাচ এই পাতাটাও চেনানোর জন্য।

তবে এর জংলা নামটা কি কে জানে?

১৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ৮:৩০

নতুন নকিব বলেছেন:



আগে থেকে না চিনলেও সমস্যা নেই। আজকে তো দেখলেন। আর পারলে সহসাই গ্রামের কোনো আত্মীয় বাড়িতে শিগগির বেড়িয়ে আসুন কিছু সময়ের জন্য। আশা করি, সামান্য একটু খোঁজ খবর করলে এই অতি উপকারী লতানো গাছটির সাক্ষাত অবলিলায় পেয়ে যাবেন। অপারগতায় এই অধমকে দায়িত্ব দিলে প্রয়োজনে আপনার দোড়গোড়ায় হাজির করে দিবে বুনো লতার আস্ত এক বাগান।

১১| ১৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:২৮

শেরজা তপন বলেছেন: আপনার অসুস্থতার কথা জানতাম না। দুঃখিত- জানলে এমন শক্ত কথা লিখতাম না
সঠিক পথ্য নিয়ে আরোগ্য লাভ করুন- ভাল থাকুন, লিখুন মন খুলে

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.