নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ব্লগের স্বত্বাধিকারী সামিয়া

সামিয়া

সৎ, সাদাসিধা মানুষ। একটু স্বাধীন টাইপ। পড়তে ভাললাগে, লিখতে ভাললাগে, ছবি তুলতে ভাললাগে, মানুষের মুখে হাসি দেখতে ভাললাগে।

সামিয়া › বিস্তারিত পোস্টঃ

ছোট গল্পঃ বিয়ের উপহার

২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৩:২৯

ছবিঃ নেট

মেয়ের বিবাহ উপলক্ষে বসের কাছে কিছু টাকা ধার চেয়ে মাথা নিচু করে অপরাধীর মতন দাঁড়িয়ে ছিল কুতুব মিয়া, এই দাঁড়িয়ে থাকা যেন ঘন্টাব্যাপী; অস্বস্তিদায়ক; লজ্জার। মেয়ের বিয়ের আর এক সপ্তাহ বাকী, কত কিছু শখ ছিল বিয়ে নিয়ে; কিন্তু তার আয় প্রয়োজনের চাইতেও কম সবসময়, চেষ্টা ছিল সংসারের খরচ কমিয়ে কিছু টাকা জমানো, কখনোই হয়নি সেটা, কোন না কোন প্রয়োজন প্রত্যেক মাসেই তৈরি হয়ে যেত; এখনো যায়।

কুতুব মিয়ার বিশ বছরের চাকরী জীবনের অর্ধেক সময় এই আশায় কেটে গিয়েছে; অল্প হলেও এ বছর তার বেতন বাড়বে, তখন তাদের অভাব কমে যাবে অনেক, তারপর দেখা যায় আশেপাশের সবার বেতন বাড়ে, শুধু কুতুব মিয়াই আটকে থাকে একই বেতনে। সবই ভাগ্য মনে মনে ধরে নেন তিনি।

তারপরের বছরের জন্য আবার আশা করে বসে থাকেন, আশা মানুষকে ধোকার মধ্যে বাঁচিয়ে রাখে এই পর্যন্তই, কপাল সবার বেলায় খোলে না; এটা দুনিয়ার জানা বাস্তবতা।

কুতুবের বস তাকে দাঁড় করিয়ে রাখতে রাখতে সময় বেশি অতিক্রম হওয়ায় ফাইল থেকে চোখ না তুলে বললেন; কুতুব তুমি যাও আমি দেখছি ব্যাপারটা; কি করা যায় তোমার মেয়ের জন্য, এই বলে একটু থেমে আবার বললেন যে তার মেয়েরও বিয়ে; এইযুগের ছেলে মেয়ে বলে নিজেরাই পছন্দ করেছে এবং এতে দুই পক্ষের কারোই আপত্তি নেই, বিয়েতে তেমন বেশি আয়োজন করবেন না বলে ঠিক করেছেন এই করোনার মধ্যে।

কাছের মানুষ কয়জন ডাকবেন কিনা এখনো‌ ডিসিসন নিতে পারেননাই, তিনি আরো জানালেন যে তার মেয়েকে তার ক্রেডিট কার্ড দিয়ে দিয়েছেন বিয়ের জন্য যা যা লাগে কিনে নিতে, তারা মেয়ের সাথে যাবেননা এসময় মার্কেট; মেয়েকেও সাবধানে শপিং করতে বলেছেন। আসলে মার্কেটকে করোনা আক্রান্ত হবার কারখানা বলে মনেহয় তার।
কথা শেষ‌ করে চুপ মেরে ফাইলে মনোযোগ দিলেন তিনি।

কুতুব মিয়ার বস তার প্রয়োজনটা বুঝলেন কিনা; টাকা পয়সা কিছু দিবেন কিনা এইরকম অনেক চিন্তা নিয়ে রুম থেকে বেরিয়ে আসেন তিনি। বিশ বছরের চাকরী জীবনে এই যে তার বেতন বাড়ায় নাই কোনোদিন এই কথাটা তার বসের কাছে মুখ ফুটে বলে নাই, আজ বলেছেন একমাত্র মেয়ের বিয়ের কথা চিন্তা করে; খুব সাহস করেই বলেছেন, এখন তার বস যদি ধার দিয়ে কোন সাহায্য না করেন তিনি এই বিষয়ে তার বসকে কিচ্ছু বলবেননা এই প্রতিজ্ঞা তার।

পাঁচটা বাজার কিছু সময় আগে একটা ভারী মোটা বড়সর প্লাস্টিক টাইপ শপিং ব্যাগ দিয়ে গেলেন কতুব মিয়ার বসের ড্রাইভার। স্কচ টেপ দিয়ে লাগানো ব্যাগ একটু ফাঁকা করে যা দেখলেন তাতে মনে হলো ভেতরে শাড়ি, চুড়ি, মেকআপ বক্স, তেল, সাবান জাতীয় জিনিস পত্র।

টাকার বদলে তার বস বিয়ের বাজার ধরিয়ে দিয়েছেন বুঝতে পেরে মনে মনে একটু অসহায় বোধ করেন তিনি। একটা গরু কেনার সাধ ছিল বিয়ের জন্য, নাই নাই করে আত্মীয় স্বজন কম তো না তার, গরীব হলেও কাউকে দাওয়াত থেকে বাদ দেয়ার ইচ্ছে নাই তার।

যাইহোক ধার না দিয়ে যে উপহারগুলো দিয়েছে খুশি মনে গ্রহন করা উচিৎ, অন্যের টাকায় এত অধিকার কিশের যদি কিছুই না ও দিতো তবে তো খালি হাতে যেতে হতো মেয়ের সামনে।
মাগরিবের নামাজ আদায় করে কুতুব মিয়া হাজারো চিন্তা মাথায় নিয়ে বের হয় অফিস থেকে।
একা একা হাঁটতে হাঁটতে রেল স্টেশনের পেছনে রাজা মিয়ার চায়ের দোকানে বসে চা খেয়ে চিন্তা যুক্ত হয়ে বাসার উদ্দেশ্যে পা চালান তিনি, পথে একজন পরিচিতের সাথে দেখা, কথাবার্তা আলোচনা প্রায় সব মেয়ের বিয়েকে কেন্দ্র করে, শিক্ষিত ভদ্র ছেলে, ভালো চাকরি করে, কোন ডিমান্ড তো নাই আরো বলে বাবা আপনি বিয়ের খরচ নিয়ে চিন্তা করবেন না, টাকা লাগলে আমার কাছ থেকে নিবেন, এরকম ছেলে এই যুগে হয় বলেন! তার মেয়ের যে এত ভালো বিয়ে হবে স্বপ্নেও ভাবেননি পরিচিতের কাছে আনন্দিত গলায় জানান সে কথা।

বাসার ফিরতে ফিরতে রাত নয়টা। হাতমুখ ধুয়ে খেয়েদেয়ে বালিসে হেলান‌ দিয়ে শুয়ে পড়ে বিছানায় তার তিন সেকেন্ডের মধ্যে কুতুব মিয়ার বসের দেয়া ব্যাগের কথা মনে পড়ে। ঐটা নিয়ে যে সে বাসা পর্যন্ত পৌছায়নাই এটা পরিস্কার। ব্রেনে আরেকটু প্রেশার দিতেই মোটামুটি শিওর হয়ে যায় ব্যাগ কোথায় রেখে এসেছে সে। একবার ভাবেন থাক কাল অফিস থেকে ফেরার পথে নিয়ে আসবে, রাজা মিয়া নিশ্চয়ই রেখে দিবে ব্যাগটা, যদিও তার সাথে তেমন পরিচয় নেই, মুখ চেনা তো চেনেন তাকে।

তারপরই মনেহয় কত লোক যায় আসে তার দোকানে যদি কেউ নিয়ে যায় রাজা মিয়ার চোখে যদি না পড়ে ব্যাগটা।
যে জিনিষ গুলো তার বস দিয়েছে দামী অনেক, ব্যাগের ভেতরে রাখা শাড়ির ক্ষনিক দৃশ্য ভেসে উঠে চোখের সামনে, কি সুন্দর শাড়ি! ওরকম শাড়ি কখনোই কুতুব মিয়া কিনে পড়াতে পারবে না মেয়েকে, বোঝে সে; বুঝে শংকিত হয় ব্যাগটি পাবে তো! কেউ এতক্ষনে তো নিয়েও থাকতে পারে।

তার বাড়ি থেকে রাজা মিয়ার চায়ের দোকান ৫০ মিনিটের পথ,

সেখানে যখন পৌছালো তখন রাত দশটা, দোকানের যেখানে সে বসেছিল আর ব্যাগটা ঠিক পাশেই রেখেছিল সেই জায়গাটা এই মুহূর্তে খালি। দোকান এখনো খোলা; রাজা মিয়া ও আছে।

বুকের ভেতর ধক করে ওঠা অবস্থায় রাজা মিয়ার কাছে গিয়ে বললো ব্যাগের কথা, রাজা মিয়া সাথে সাথেই অবিশ্বাস্য কথাটা জানালো কুতুবকে,
সে পেয়েছে একটা ব্যাগ কুতুব মিয়ার কাছে জানতে চাইলো
-ভেতরে কি কি আছে,
ব্যাগটা যে তারই শিওর হবার জন্য রাজা মিয়ার এই বুদ্ধি, ধতমত খেয়ে কোনরকম শাড়ির কথাটা বলতে পারলো কুতুব।
-আর কি আছে?
আর কি আছে কীভাবে বলবে কুতুব তবু একটু একটু করে বলল
-সাবান, শাম্পু, চুড়ি,
-আর?
-মেকআপ বক্স
-আর?
ফ্যাল ফ্যাল করে চেয়ে রইলো কুতুব।
রাজা মিয়া ঈষৎ হেসে ভেতর থেকে এনে দিলো ব্যাগটা।

বাসায় ঢুকতে ঢুকতে বস ফোন করলেন। খুব হাল্কা গলায় জানতে চাইলেন তার মেয়ে শাড়ি থ্রিপিস মেকাপ বক্স শ্যাম্পু পছন্দ করেছে কিনা! ওগুলো তার মেয়ে নিজে কিনে দিয়েছে, বললেন
-আমি যখন তোমার মেয়ের কথা জানলাম শপিংমলেই ছিল আমার মেয়ে, তাই ওকে বলে দিয়েছিলাম তোমার মেয়ের বিয়ের জন্য কিছু কিনতে,
আর তোমাকে দুই লাখ টাকা দিয়েছি একটা গরু কিনে নিও, সবাইকে দাওয়াত দিও, আমিও সবাইকে দাওয়াত দিবো ভেবেছি; একটাই মেয়ে আমার।
শোনো বাকী টাকা দিয়ে বিয়ের অন্যান্য বাজারগুলো করে ফেলো,
অবাক কুতুব কাঁপা কাঁপা গলায় বললো -স্যার আপনি টাকা দিয়েছেন! দুই লক্ষ টাকা! আমি তো কিছুই জানিনা!

-জানবে কীভাবে আমিতো তোমাকে বলিনি আগে, ওটা তোমার জন্য ছিল সারপ্রাইজ! হাহাহাহ!! এটা কিন্তু ধার দেইনি তোমার মেয়ের বিয়ের উপহার আমার তরফ থেকে; দরাজ গলায় হাসেন তার বস, বসের এমন হাসি আগে কখনো শোনেনি কুতুব।

-স্যার আমি ব্যাগটা খুলে দেখি,
-এখনো ব্যাগই খোলনি? আচ্ছা দেখো দেখো খুলে দেখো।

হতবিহব্বল কুতুব মিয়া একটানে ব্যাগ খুলে দেখে; সেখানে একহাজার টাকার দুটা বান্ডিল!! রুমে কখন এসে তার স্ত্রী আর একমাত্র কন্যা দাঁড়িয়েছে টের পায়নি, তারা সব শুনেছে হয়তো, পেছন ফিরতেই বাবা বলে জড়িয়ে ধরে কাঁদতে শুরু করে মেয়ে, মেয়ের সাথে মেয়ের মা ও কাঁদে, আনন্দের কান্না। বিয়ের খরচের চিন্তায় ভেতরে ভেতরে ভেংগে পড়া কুতুবের সময় গুলোর সাক্ষী ওরা মা মেয়ে।
মোবাইল হাতে নিয়ে বসকে দ্রুত ডায়াল করে
সে! চোখ দিয়ে টপ টপ পানি পড়ছে, রাজা মিয়ার নাম্বারটা জানা থাকলে ভালো হতো চোখের জল মুছতে মুছতে মনে আসে সে কথা।

মন্তব্য ৩২ টি রেটিং +১২/-০

মন্তব্য (৩২) মন্তব্য লিখুন

১| ২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৩:৪৫

নীল আকাশ বলেছেন: গল্প ভাল লেগেছে। মানুষ চেনা খুব কঠিন একটা কাজ।

২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৫:০৫

সামিয়া বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ, আসলেই মানুষ চেনা কঠিন কাজ, ভালো কে খারাপ আর খারাপকে ভালো ভাবার বিভ্রান্তি সকলেরই কম বেশি হয়।

২| ২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৪:১৩

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:



গল্প ভালো হয়েছে। আর একটু সময় নিয়ে লিখলে খুব ভালো হতো। গল্পে +++

২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৫:০৬

সামিয়া বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ, প্রায় পনেরো দিন ধরে একটু একটু করে লিখেছিলাম গল্পটা। প্লাসে অনুপ্রেরণা।

৩| ২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৪:২১

রানার ব্লগ বলেছেন: ভালো ছিলো গল্প খানা!! লাইক দিয়েছি!!

২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৫:০৭

সামিয়া বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ, লাইকে কৃতজ্ঞতা।

৪| ২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৪:২৪

শায়মা বলেছেন: রাজা মিয়াকে স্পেশাল দাওয়াৎ দিতে হবে আপুনি!!! :)

অনেক ভালো লেগেছে গল্পটা.....

তোমাকেও হ্যাপী এনিভার্সারী.......:)

২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৫:০৮

সামিয়া বলেছেন: থ্যাংকস আমার এনিভার্সারীর শুভেচ্ছার জন্য, হুম রাজা মিয়াকে স্পেশাল দাওয়াত দেয়া ফরজ । :)

৫| ২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৪:৩২

নেওয়াজ আলি বলেছেন: সুন্দর একটা গল্প লিখলেন।

২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৫:০৮

সামিয়া বলেছেন: ধন্যবাদ ভাই

৬| ২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৪:৪১

চাঁদগাজী বলেছেন:


বাংলাদেশকে আপনি স্বর্গের অংশে পরিণত করেছেন।

২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৫:১২

সামিয়া বলেছেন: আমি নিজেই একবার এক লাখ টাকার বান্ডিল ভর্তি ব্যাগ একটা ফ্রাষ্ট ফুডের দোকানে রেখে গিয়েছিলাম, পড়ে তারাই ফোন করে ডেকে ফেরত দিয়েছে, তারা আমার পরিচিত ছিল না। ধন্যবাদ।
বাংলাদেশ কখনো কখনো স্বর্গ।

৭| ২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৪:৫৬

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: খুব সুন্দর হয়েছে

২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৫:১২

সামিয়া বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ আপু ।

৮| ২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৫:৩৮

রামিসা রোজা বলেছেন:

চমৎকার গল্প আপু । আমাদের আশেপাশে অনেক উদার
মনের মানুষ আছেন নিশ্চয়ই ।

২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ সন্ধ্যা ৭:১৮

সামিয়া বলেছেন: অবশ্যই আছে আমি নিজে চলতে ফিরতে এরকম অনেকের উপকার পেয়েছি ধন্যবাদ রোজা

৯| ২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৫:৫৬

আখেনাটেন বলেছেন: রাজা মিঞা মহান রাজার মতোই কাজ করেছে.............গল্পে ভালোলাগা.....বেশ লিখেছেন। :D

২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ সন্ধ্যা ৭:১৯

সামিয়া বলেছেন: আপনার পজিটিভ মন্তব্য অনুপ্রেরণা হয়ে থাকবে ভালো থাকুন ধন্যবাদ

১০| ২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ সন্ধ্যা ৭:৩০

মোঃমোস্তাফিজুর রহমান তমাল বলেছেন: ভালো মানুষদের গল্প।পড়ে ভালো লাগলো।

২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ রাত ৮:৪১

সামিয়া বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ , আপনি ও ভালো মানুষ।

১১| ২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ রাত ৮:৪৮

ইসিয়াক বলেছেন: আমি তো ভয় পেয়ে গিছিলাম। চারদিকে সবসময় খারাপ খবরই শুনি। শেষটায় স্বস্তি। গল্পটা খুব ভালো লাগলো। পড়তে পড়তে গল্পের চরিত্রগুলোর সাথে মিশে গেছি একেবারে।
শুভকামনা।

২০ শে জানুয়ারি, ২০২১ রাত ১০:০০

সামিয়া বলেছেন: একটু টেনশন না দিলে তো গল্প জমে না। গল্প ভালো লেগেছে জেনে অনেক ভালো লাগলো অসংখ্য ধন্যবাদ।

১২| ২১ শে জানুয়ারি, ২০২১ রাত ১২:০২

রাজীব নুর বলেছেন: যাক গল্প পড়ে ধাক্কা লাগে নি। কষ্ট লাগে নি।
কুতুব মিয়ার বস ভালো মানুষ।

২১ শে জানুয়ারি, ২০২১ সকাল ১০:৩৬

সামিয়া বলেছেন: আসলেই :)
ধন্যবাদ।

১৩| ২১ শে জানুয়ারি, ২০২১ রাত ২:০২

বোকা মানুষ বলতে চায় বলেছেন: এক চিলতে সাদামাটা অনাড়ম্বর গল্প, যার পরিসমাপ্তিও অনুমেয় ছিল; তারপরেও পড়া শেষে মনের গভীরে সুখ সুখ অনুভূতি জাগানিয়া এক গল্প...

ভাল থাকা হোক প্রতিদিন, প্রতিক্ষণ।

২১ শে জানুয়ারি, ২০২১ সকাল ১০:৩৮

সামিয়া বলেছেন: সুন্দর মন্তব্যের জন্য ভালোলাগা ও ধন্যবাদ। আপনিও সুস্থ থাকুন ভালো থাকুন।

১৪| ২১ শে জানুয়ারি, ২০২১ সকাল ৮:২৬

কাছের-মানুষ বলেছেন: রাজা মিয়া প্রতি আর্মি ষ্টাইলে স্যালুট রইল আমার।
গল্প ভাল হয়েছে।

২১ শে জানুয়ারি, ২০২১ সকাল ১০:৪২

সামিয়া বলেছেন: রাজা মিয়াকে দেয়া আপনার স্যালুট দেখে গর্ব লেগেছে। অসংখ্য ধন্যবাদ।

১৫| ২১ শে জানুয়ারি, ২০২১ সকাল ১১:৫০

রাজীব নুর বলেছেন: এ বছর একটা গল্পের বই কেন প্রকাশ করলেন না?

২১ শে জানুয়ারি, ২০২১ সকাল ১১:৫৪

সামিয়া বলেছেন: আগের বইগুলো প্রকাশ করে ঠকেছি :(

১৬| ২১ শে জানুয়ারি, ২০২১ রাত ৮:৩৪

করুণাধারা বলেছেন: সবসময় মানুষের শঠতা আর প্রতারণার গল্প পড়তে পড়তে মনে হচ্ছিল এই গল্পেও এমন কিছু পড়তে হবে। ধারণা ভুল হলো দেখে ভালো লাগছে, এমন গল্প মন ভালো করে দেয়।

প্লট ভালো, +++

২৪ শে জানুয়ারি, ২০২১ দুপুর ১২:১০

সামিয়া বলেছেন: বিশ্লেষণী মন্তব্যের জন্য অশেষ কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ রইল। ভালো থাকুন।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.