নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ব্লগিং শুরু করি প্রথম আলো ব্লগে \"আমার কবিতা নামে\" আমি ব্লগিং করি মূলত নিজের ভেতরে জেগে উঠা ব্যর্থতা গুলোকে ঢেকে রাখার জন্য । ধর্ম ব্যবসায়িদের ঘেন্না করি .।

সাখাওয়াত হোসেন বাবন

আমার পরিচয় একজন ব্লগার, আমি সাহসী, আমি নির্ভীক, আমি আপোষহীন । যা বিশ্বাস করি তাই লিখি তাই বলি ।

সাখাওয়াত হোসেন বাবন › বিস্তারিত পোস্টঃ

আমলা শ্রেণীকে গাড়ি, বাড়ি, মোটা বেতনের সুযোগ সুবিধা দিয়ে জনগণকে আরো কঠিন অবস্থার মধ্যে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে

১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ দুপুর ১:১৯

সঞ্চয় পত্রের সুদের হার কমানোর অর্থ হচ্ছে, মানুষকে সঞ্চয়ে নিরুৎসাহিত করে সঞ্চয়পত্র কেনা টাকাগুলোকে বাজারে নিয়ে আসা । ইতিমধ্যে নানা অকার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করে সাধারণ মানুষকে সঞ্চয়পত্র কেনা থেকে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে । অনেক টাকা ইতিমধ্যে বের হয়ে গেছে । সেই অর্থগুলো যে বিদেশে পাচার করা হয়নি তা কে বলবে ? সরকারের ভেতরে থেকেই দেশেকে তলাশূন্য ঝুড়িতে পরিণত করছে দুর্নীতিবাজ ব্যবসায়ী ও আমলাদের একটা অংশ।

সঞ্চয়পত্রে যে শুধু সাধারণ মানুষের উপকৃত হয় তা নয় । সরকার নানা বিপদের সময় সঞ্চয়পত্র বিক্রির টাকা কাজে লাগায়। তাই, মানুষ সঞ্চয়পত্র না কিনলে সরকারকে বাধ্য হয়ে অন্য দেশ থেকে চড়া সুদে ঋণ নিতে হবে । অন্যদিকে, জনগণ সঞ্চয়পত্র না কেনায় সেই অর্থ নানা হাত ঘুরে চলে যাবে অর্থ পাচারকারীদেরই হাতে । তখন আমরা সঞ্চয়হীন,ঋণে জর্জরিত আহাম্মক এক জাতীতে পরিণত হবো । ধারণা করছি, খুব শ্রীগ্রই দেশে মুদ্রাস্ফীতি বাড়বে । টাকার মান কমে যাবে ।

বলতে বাধ্য হচ্ছি, প্রতিটি ক্ষেত্রে সরকারের ব্যর্থতা ফুটে উঠছে । আমলা শ্রেণীকে গাড়ি, বাড়ি, মোটা বেতনের সুযোগ সুবিধা দিয়ে জনগণকে আরো কঠিন অবস্থার মধ্যে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে । বিশেষ করে এক শ্রেণীর ব্যবসায়ীর কাছে অজানা কোন কারণে সরকার জিম্মি হয়ে পরছে । অথবা তাদের উপর সরকারের কোন নিযন্ত্রন নেই । ইউরোপ আমেরিকা থেকেও উৎপাদন,আমদানি খরচ কম হওয়ার পরে ও যদি বাজারে দ্রব্য মূল্যের দাম ইউরোপ আমেরিকা থেকে বেশি হয় তখন তাকে কি বলা হবে ? মোট কথা হচ্ছে কারো উপর ই সরকারের নিয়ন্ত্রণ নেই । যে যার ইচ্ছে মতো চলছে। যদি থাকতো তাহলে এখনো বাজারে পেয়াজ ১৫০ টাকায় বিক্রি হতো না ।

মন্তব্য ২১ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (২১) মন্তব্য লিখুন

১| ১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ দুপুর ১:২৮

একাল-সেকাল বলেছেন:
৩ ব্যক্তির মালিকানায় ব্যাংক সহ ২১ টি আর্থিক প্রতিষ্ঠান দেউলিয়া ঘোষণা হলে প্রতি গ্রাহক সঞ্চয় যতোই হোক পাবেন ১ লক্ষ টাকা করে। বর্তমানে আমাদের বিশ্ব সেরা অর্থ মন্ত্রি কি দেউলিয়াত্ত চাইবেন না?

১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ দুপুর ২:১৮

সাখাওয়াত হোসেন বাবন বলেছেন: সংবাদটি একটু আগে পড়লাম । ভাল ই হলো , ব্যাংকে কম টাকা রাখেন জমি জমা কিনেন, হুন্ডি করে ভারতে টাকা পাঠান ,নারীর পেছনে টাকা উড়ান, নো চিন্তা ডু ফুর্তি টাইপ লিড করতে বলছে সরকার । ভাল না ! ভাল ই তো :)

২| ১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ দুপুর ২:০৩

সৈয়দ মশিউর রহমান বলেছেন: উনি বিশ্বের সেরা ব্যর্থদের ১ নম্বরে আছেন।

১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ দুপুর ২:২০

সাখাওয়াত হোসেন বাবন বলেছেন: আহাম্মকরা সব সময় নিজেকে জ্ঞানি মনে করে । আমরা জনগনেরা আহাম্মদ তবে উনি কিন্তু সত্যি সত্যি জ্ঞানি মানুষ । তা না হলে কি আর এই পদ পায় ?

৩| ১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ দুপুর ২:০৫

রাজীব নুর বলেছেন: আসল কথা শিরোণামেই বলে দিয়েছেন।

১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ দুপুর ২:২২

সাখাওয়াত হোসেন বাবন বলেছেন: শূণ্য পারসেন্টেসে গাড়ী ঋণ , সেই গাড়ী মেন্টেইনেস এর জন্য প্রতিমাসে ৫০ হাজার করে টাকা প্রদান করা হচ্ছে । তবুও আমলারা সরকারী গাড়িতে চলাচল করে । দেখার কেউ নেই । একজন দুই তিনটি গাড়ি দখল করে রাখছে ।

৪| ১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ দুপুর ২:০৬

রাজীব নুর বলেছেন: তবে শেখ হাসিনা যে বললেন, সরকারের প্রতি জনগনের আস্থা আছে।

১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ দুপুর ২:২৩

সাখাওয়াত হোসেন বাবন বলেছেন: অবশ্যই আস্হা আছে সে ই জন্যই তো জনগন ভোট দিতে যায় না :)

৫| ১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ দুপুর ২:৪০

ইমরান আশফাক বলেছেন: দেশের অর্থনীতির অস্হা যে আশংখ্যাজনক সেটা সাধারন পাবলিকেরা ঠিকই বুঝেছে। শাক দিয়ে মাছ ঢাকার চেষ্টা করে কোন লাভ নেই সেটা সামনের দিনেই বুঝা যাবে। কারন দেশ এখন হরিলুটের আখড়ায় পরিনত হয়েছে। ব্যাংকসহ বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান, পূজিবাজার, বিভিন্ন সরকারী প্রতিষ্ঠান ও সংস্হা, স্হানীয় সরকার ইত্যাদি সকল জায়গায় প্রকাশ্যে লুটপাট হচ্ছে কোনরকম জবাবদিহীতা না থাকায়। উল্টো লুটেরাদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দিয়ে সরকার বরং তাদের সহযোগীতা করছে। মিথ্যা পরিসংখ্যন দিয়ে দেশের মানুষদের কতদিন বোকা বানিয়ে রাখবে সরকার? আর এর সমাধানই বা কি সেটাও ভাবতে হবে। গনতন্ত্রের প্রতি মানুষের আগ্রহ ক্রমান্বয়ে হ্রাস পাচ্ছে যেটা আরেকটি অশনী সংকেত।

১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৩:৪৯

সাখাওয়াত হোসেন বাবন বলেছেন: এর জন্য কিন্তু জনগনই দায়ী । যেমন জনগন তেমন সরকার । যদি এই ইস্যুতে সবাই পথে নেমে আসতো তবে সরকারের ভেতরে লুকিয়ে থাকা কালসাপেরা হিসু করে দিতো ।

৬| ১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ দুপুর ২:৫৯

একাল-সেকাল বলেছেন:
* অবকাঠামো উন্নয়নের নিচে দাঁড়িয়ে সাধারন জনগন ক্ষুধার্ত পেটে ভিক্ষা করবে,
** ভিক্ষুক মুক্ত নগর গঠনের স্বার্থে তাদেরকে শহর ছাড়া করা হবে।
*** সেতু থেকে পদ্মায় ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করবে সাধারন জনগন, বেশী দূরে নয় !

জ্বর কোন রোগ নয়, অন্য রোগের উপসর্গ ।

১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৩:৫০

সাখাওয়াত হোসেন বাবন বলেছেন: যর্থাথ বলেছেন ..

৭| ১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৩:৫৩

নেওয়াজ আলি বলেছেন: সহমত

৮| ১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৫৬

চাঁদগাজী বলেছেন:



দরকারী বিষয়ে কথা বলেছেন; তবে, সঠিকভাবে বলতে পারেননি।

৯| ১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:২৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: সরকার জনগনের রক্ত চুষে খাচ্ছে।
মাসে ১০০০ টাকা হিসাবে একটা ডিপিএস করেছিলাম। অর্থের প্রয়োজনে ৭ বছর ৯ মাসের সময় ডিপোজিটটি ভাঙ্গাতে হয়। মোট জমা টাকার উপর লাভ পেয়েছি ১৩২ টাকা ।

১০| ১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১০:২১

আহমেদ জী এস বলেছেন: সাখাওয়াত হোসেন বাবন,




মনে হয় বিশেষ কোনও শ্রেনীকে বাঁচাতে দেশের নাভিশ্বাস ওঠা লক্ষ লক্ষ গরীব - নিম্ন ও মধ্যবিত্তদের কফিনে শেষ পেরেকটি ঠুকে দিতে চলেছেন সরকার।

১১| ১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১০:৫৫

মা.হাসান বলেছেন: আপনার কি কোন কারণে মন খারাপ? উন্নয়ন দেখতে পান না, সব উল্টাপাল্টা লিখতেছেন । ফ্রুটিকা খান , মন ভালো করেন। উন্নয়নের খবর লিখেন।

@লিটন ভাই ১৩২ টাকায় ১৩ দিন চপ- সিঙ্গাড়া- সমুচা -চা খাওয়া যাবে । বাকি ২ টাকা মাননীয় অর্থমন্ত্রীর হাতে দিয়েন, উনি অ্যাটম গাম কিইন্না খাউক।

১২| ১৭ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ৩:১৭

গড়ল বলেছেন: সঞ্চয়পত্রের সুদের হার বেশি হলে মানুষ আমার এক ফুপার মত ফ্যাক্টরি বিক্রী করে দিয়ে পাঁচ কোটি টাকা ব্যাংকে রেখে গত দশ বছর ধরে রাজার হালে চলছে। এটা কি অর্থনিতীর জন্য ভালো না খারাপ?

১৩| ১৭ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সকাল ৯:৩১

রাজীব নুর বলেছেন: এক কথায় বলতে গেলে এই দেশ নষ্ট হয়ে গেছে।

১৪| ১৭ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সকাল ১০:২৫

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: মগের মুল্লুক পুথিগত ভাবে জানা ছিল - এখন বাস্তবিক দেখতে পাচ্ছি। :((

১৫| ১৭ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ দুপুর ২:৪০

একাল-সেকাল বলেছেন:
@বিদ্রোহী ভৃগু, যতার্থ,
১৮ কোটি ছাত্রের উপস্থিতিতে মগের মুল্লুকের ব্যবহারিক ক্লাশ চলছে। =p~

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.