নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

লিখতে ভালো লাগে তাই লিখি।

সুদীপ কুমার

ধূসর পথের যাত্রী

সুদীপ কুমার › বিস্তারিত পোস্টঃ

অবুঝের আদর্শ বাংলাদেশের বামপন্থা

১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১২:০৫




“কেউ খাবে আর কেউ খাবেনা
তা হবেনা তা হবেনা”
শ্লোগানের মাধুর্যে শিহরিত হয় উদর(?)

চারু মজুমদার জীবনের শেষপ্রান্তে এসে বুঝতে পেরেছিলেন
কত ভুল ছিল তার দেখানো আদর্শপথে
ততদিনে ঝরে গিয়েছে কত তরতাজা প্রাণ।
আর আধুনিক সমাজতন্ত্রের কথাই যদি ধরি,-যারা এখনও জীবিত বাংলাদেশে
কোথায় তাদের বিপ্লব?কোথায় আদর্শ?
কেউ রুপান্তরিত হয়েছে পুঁজিবাদের পুতুলে
কেউবা চরম ডানপন্থী।

যারা সমাজই বুঝতে পারেনা
বা বুঝেনি
তারা কিভাবে আনবে সমাজতন্ত্র?বা ফিরিয়ে আনবে মানুষের অধিকার?

হায় সমাজতন্ত্র!হায় রাশিয়া!
সামন্ততন্ত্র হতে লাফ দিয়েছিল সমাজতন্ত্রে
মাঝখানে ছিল সুবিশাল ফাঁক (পুঁজিবাদ)।
সময় বুঝি সব ফিরিয়ে দেয়?

কোথায় যেন ছিলাম?-মিছিল?-আদর্শ?
বামপন্থা?
আমাদের দেশের আদর্শ বামপন্থীগণ
তারা কি আছেন তাদের আদর্শ পথে?
নাকি পুঁজিবাদের দালালিতে ব্যবহার করছেন তাদের আদর্শকে
বামপন্থাকে।


আমাদের শ্রেণীকক্ষে ষাট জন ছাত্র ছিল
প্রথম হতো কেবলমাত্র একজন

১০/১২/২০১৮

মন্তব্য ১০ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (১০) মন্তব্য লিখুন

১| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১২:১৮

আলমগীর কাইজার বলেছেন: ৬০ জনই তো আর প্রথম হতে পারে না।

১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১২:২৬

সুদীপ কুমার বলেছেন: সে কারণেই সমাজতন্ত্রও টিকে নাই।

২| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১২:১৯

স্বপ্নের শঙ্খচিল বলেছেন: আমাদের শ্রেণীকক্ষে ষাট জন ছাত্র ছিল
প্রথম হতো কেবলমাত্র একজন

.............................................................................
আজব কথা শুনলাম,
দুজন কখনো প্রথম হয় ???

১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১২:২৫

সুদীপ কুমার বলেছেন: সমাজের সাম্যবাদ বাস্তবে সম্ভব নয়।ওটিও আজব কথা।

৩| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ভোর ৫:১০

চাঁদগাজী বলেছেন:


ছাগলা টাইপের ভাবনা ও পদ্য

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১২:২২

সুদীপ কুমার বলেছেন: পাগলা টাইপের মন্তব্য।

৪| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ৭:০১

স্বামী বিশুদ্ধানন্দ বলেছেন: সমাজতান্ত্রিক দেশগুলোর সাথে প্রতিদ্বন্ধিতার কারণেই জনগণের নিকট পূজিবাদকে আকর্ষণীয় হিসাবে উপস্থাপন করার উদ্দেশ্যে বিংশ শতাব্দীতে অনেক পুজিবাদী দেশেই কল্যানমুলক রাষ্ট্রব্যবস্থার প্রচলন ঘটেছে - স্ক্যান্ডিনেভিয়ান, কিছু ইউরোপীয় এবং কানাডা ও ল্যাটিন আমেরিকার দেশগুলো তারই উদাহরণ | এছাড়া গণতন্ত্রের বিকাশও ঘটেছে এই প্রতিদ্বন্ধিতার কারণেই | পুজিবাদ কোনোরকম প্রতিদ্বন্ধিতাবিহীন অবস্থায় থাকলে এরকম জনকল্যাণমূলক ব্যবস্থাগুলোর প্রচলন হওয়াটা অনেক দুরূহ হতো |
বিশ্বে ফরাসি বিপ্লব এবং রুশ বিপ্লবের কারণে মানুষের মানবিক অধিকারের পথটা অনেক প্রশস্ত হতে পেরেছে | সুতরাং কট্টর কম্যুনিজম বা সমাজতান্ত্রিক দেশগুলো ধসে পড়লেও সেই সময়ের কম্যুনিজম বনাম ক্যাপিটালিজোমের প্রতিদ্বন্ধিতার কারণে বিশ্বে জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলনেরই লাভ হয়েছে বেশি |

বর্তমানে আমেরিকা ও তার অনুসারী পুজিবাদী রাষ্ট্রের কোনো প্রতিদ্বন্ধি না থাকায় এক ধরণের মনোপোলির অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে, যার কারণে এরা যা খুশি তাই করতে পারছে | পরিণতিতে অনেক দেশের জনগণকেই অনেক দুর্বিষহ জীবনের সম্মুখীন হতে হচ্ছে |

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১২:২০

সুদীপ কুমার বলেছেন: আপনার বক্তব্য গ্রহণযোগ্য।কিন্তু আমার লেখার বিষয় এটি নয়।ধন্যবাদ পড়ার জন্যে।

৫| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ৮:৩১

রাজীব নুর বলেছেন: কবিতা লিখে দেশ বদলানো যাবে না। বাজারের দ্রব্য মূল্যের দামও কমবে না।

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১২:২১

সুদীপ কুমার বলেছেন: আমিতো নিজের জন্যে লিখি।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.