নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

লিখতে ভালো লাগে তাই লিখি।

সুদীপ কুমার

ধূসর পথের যাত্রী

সুদীপ কুমার › বিস্তারিত পোস্টঃ

২০১৮ ও নিরুদ্দেশী দালাল

২০ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১২:৫৪



জয় বাংলার লোক বড় বড় চোখ

স্মৃতিসৌধ শুধুই ইমারত চেতনা ছাড়া

আমাদের প্রতি ওদের বিদ্বেষ ছিল চরম।ধর্ম ছিল শুধু রাজনৈতিক সেতু
ঘটনাক্রমে ইতিহাসের দুর্ধর্ষ বাঁকে আমরা পেয়েছিলাম একজন শেখ মুজিবর রহমানকে।

শরণার্থির মিছিলে ভবিষ্যৎ ছিল আঁধারে ঢাকা।ছিল মৃত্যু।ছিল ভিটে-মাটি হতে উচ্ছেদের তীব্র যন্ত্রণা
ছিল ধর্ষিতার বুকফাটা কষ্ট।যুদ্ধশিশুর ভাসমান অজানা সময়।আর স্বাধীনতার পর সমাজের অন্ধকার সময়
এর বাহিরেও ছিল যুদ্ধের ময়দানে বাঙালির উজার করা দেশপ্রেম।আর একই বাঙালির চরম বিশ্বাসঘাতকতা।বিশ্বাসঘাতকা আপন মায়ের সাথে।আপন বোনের সাথে।আপন ভাই আর দেশের সাথে।
এই যে যারা ছিল বিশ্বাসঘাতক,ধর্মের আবরণে ঢাকা আজও তারা একই আছে।আগেও যেমন ছিল।

হায়েনার পাল ঘুরছে এই ডিসেম্বরের শেষ ভাগে নির্বাচনের ডামাডোলের বনে
গণতন্ত্র নামক মুখরোচক শব্দের গহীন জঙ্গলে
কামালের মত বুড়ো ভামের পিছনে।
তবে এবার হায়েনার পাল ঘাপটি মেরে আছে সুশীলতার উদ্যানে
প্রথম আলোর খবরের অন্ধকারে
সোনালী ফসলের ধূসর শীষে।

আমরা ভুলে গিয়েছি হায়েনার একাত্তরের হিংস্রতা
ছাত্রের রগকেটে দেওয়া গতকালের ধূসরতা
পুড়িয়ে মারার যৌক্তিকতা।

এখন সময় বদলে যাওয়ার




২০১৮ ডিসেম্বর

মন্তব্য ৪ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (৪) মন্তব্য লিখুন

১| ২০ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ২:৩৫

মাহমুদুর রহমান বলেছেন: স্মৃতিসৌধ শুধুই ইমারত চেতনা ছাড়া
সহমত।

২১ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ৯:২২

সুদীপ কুমার বলেছেন: ঠিক তাই।

২| ২০ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ৯:১৪

রাজীব নুর বলেছেন: বড্ড অগোছালো।

২১ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ৯:২৫

সুদীপ কুমার বলেছেন: জয় বাংলার লোক বড় বড় চোখ সেদ্ধ আতপ খেয়ে তোরা ক্যাম্পে গিয়ে ঢোক।শরণার্থীদের দেখে এভাবে ছড়া কাটতো ভারতীয় শিশুরা।আমার মনে হয় আগোছালো নয়।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.