নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

যা শুনি- যা দেখি - যা ভাবি - তা লিখতে ইচ্ছে করে ।

কিবরিয়া জাহিদ মামুন

শহুরে ফোকলোর

কিবরিয়া জাহিদ মামুন › বিস্তারিত পোস্টঃ

শহুরে ফোকলোর

২২ শে মার্চ, ২০২০ দুপুর ১২:৩১


নায়াগ্রা ফলসের সামনে দিয়ে চক্কর মেরে আসা আপাতত বন্দি জীবন থেকে কিছুটা স্বস্তি । ফলসের একটু দুরের স্টানলি এভিনিউয়ের ট্রাফিক সিগনালের সব দিকের মোড়ে একটা দুটো গাড়ী । অথচ এই মোড়ে আগে ভয়ে থাকতাম । বিশাল গাড়ীর জ্যাম হবে । আর যদি ঠিক সামনের গাড়ীটা নিউইয়র্কের, নিউজার্সির বা ওয়াশিংটনের হয় তাহলে চালানোতে টার্ন নিতে ঝামেলা করবে রাস্তা না চেনাতে । এটা ছিল আর একটা ভয় । গাড়ীর পেছনের রেজিস্ট্রেশন প্লেটটা দেখলেই বোঝা যেত এটা কোথাকার গাড়ী । সেই রাস্তাতে গাড়ী নেই ।

ফলসের পাশের হোটেল গুলো জনশুন্য । তাকালে চোখে পড়ছে রুমের আলো জ্বালিয়ে ভালবাসার হার্ট সাইন । এমনকি ওপাশের আমেরিকার নায়াগ্রার হোটেল গুলোর হার্ট সাইন ও চোখে পড়ছে । কেন এ হাট সাইন তারা ঝুলিয়েছে কে জানে । হয়তোবা আগাম আমন্ত্রন । সময় ভাল হলে আবার দেখা হবে । প্রান ফিরে আসবে ।

ফলসের সামনের রাস্তা জনমানবহীন । দুটো একটা গাড়ী আমাদের মত ফ্রেশএয়ার নিতে বের হয়েছে । অনুভতি একই কতখন বাসায় থাকা যায় । বাহারী রংয়ের আলো পানিতে ফেলে ফলসের পানিকে আগের মতই আলোকিত করেছে । কিন্তু দেখবার মানুষ নেই । যেন আলোর মাঝে আলোহীন এক শহর । কত হৈ হুল্লুর কত গল্প সব যেন নিমিষেই বিলীন । ডেনজেল ওয়াশিংটনের এমন একটা মুভি ছিল বুক অফ এলাই । পৃথিবী শেষ হয়ে গিয়েছে । কিছু মানুষ বেচে আছে । তাদের কাছে আছে শেষ হয়ে যাওয়া শ্যাম্পু । দু একটা সাবান । তারা খুজছে আরও কিছু যদি ব্যবহার উপযোগী পায় । শহরের আলো আধার তেমন দৃষ্টি বিভ্রম কল্পনার খোড়াক যোগাচ্ছে । এই মানুষ কে মারার জন্য কত কি আবিস্কার । কত আয়োজন আর সামান্য এক ভাইরাস সব কিছু ছাপিয়ে সবাই কে যেন থামিয়ে দিয়েছে ।

কেউ বলছে এটা চায়না ভাইরাস । কেননা চায়না থেকে সৃস্টি । কেউ গালি দিচ্ছে । সালারা সাপ ব্যাং খায় । কিন্তু চায়নিজরা এই সাপ ব্যাং তো আর আজকে থেকে খায়না । মাওসেতুং এর সময় এক বিতর্কিত খাদ্য শস্যর মজুদ ডিসিশনে খাদ্যের অভাবে যখন কোটি কোটি মানুষ মারা যায় তখন তারা জীবন বাচাতে এসব খাওয়া শুরু করে । পরবর্তীতে চায়নিজ সরকার এমন প্রানীর খামার ব্যবসা কে উতসাহ দেয় । বিলিয়ন ডলারের বিজনেস হিসেব সামনে আসে । যেমনটা আমরা খেজুরের রস খেতাম । হঠাত একদিন কিছু মানুষ মারা যাবার পর খেজুরের রস খাওয়া মোটামুটি সবাই বন্ধ করল । মারা যাবার কারন নিপাহ ভাইরাস ।

আবার কেউ বলছে চায়নার আউটব্রেক ল্যাংলী কি করে না জানে । চায়না হাইড করতে পারে কিন্তু চায়নাতে আমেরিকান যে পরিমান স্টাবলিসমেন্ট আছে তাতে তো গোপন হবার কথা না । নাকি ঠিক মানুষটি গুরুত্ব দেয়নি । যেমনটা গুরুত্ব দেয়নি ইটালী ।
যেমনটা এখন গুরুত্ব দেয়নি কিছু ক্যানাডিয়ানরা । জাস্টিন ট্রডো তার ভাষনে বললেন ইটস টাইম ফর হোম । তারপরেও মরক্কোতে ছুটি কাটাতে যাওয়া ক্যানাডিয়ান ক্রুজ শিপে ক্যানাডিয়ান । আমেরিকাতে ক্যানাডিয়ান । লক ডাউনের ভাষা বুঝতে চাচ্ছেনা । সামনে ওপসন মিলিটারী । ওদিকে প্রভিনশিয়াল বর্ডার বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে । এখানকার আলোচকরা বলছেন তাইওয়ানের সফলতা নিয়ে । তাইওয়ানের ইমিগ্রেশন ডিপামেন্ট শুরুতেই ট্রাভেল করা মানুষদের খুজে বের করে আলাদা করে । এখানে যেটা সমস্যা ইনফরমেশন হ্যান্ডওভার করা ভিষন কঠিন । এক মিনিস্ট্রি আর এক মিনিস্ট্রিকে ইনফরমেশন দেবেনা বা প্রটোকলে নেই ।

ট্রডোরমত প্রো রিফিউজি মানুষ আমেরিকা থেকে ক্যানাডা ঢুকবার রকসহ্যাম রোড বন্ধ করবে এটা ছিল কল্পনাতিত । সারা পৃথিবীর রিফিউজিরা এই পথে ক্যানাডা ঢুকে নিজেকে বাস্তুচুত রাস্ট্রহীন মানুষ বলে দাবী করে । তারপর একদিন স্বপ্নের ক্যানাডিয়ান বনে গিয়ে বোকা বানানোর গল্পের শেষ হয় । সেই পথ বন্ধ ।

এদিকে বাংলাদেশের দেশীয় বিশেষষ্গরা ফেসবুকে করোনার আপডেট পেজ তৈরি করছেন আর শুধু ইনভাইটেশন দিচ্ছেন । আর এক পার্টি ইনবকসে পাঠাচ্ছেন কি করে কোরআন শরীফে করোনা সম্পর্কে ৬০৯ খ্রিস্টাব্দে আগাম তথ্য জানানো হয়েছে । ও কোন দোয়া পড়লে করোনা হবেনা । এটাও লেখা হয়েছে ।
এমন বার্তা পাঠানো একজন কে বল্লাম ভাই তাহলে কোরআন কে মুসলিম দেশে মেডিকেলের বই হিসেব গ্রহন করা দরকার ছিলনা । বা বিশ্বের মেডিকেল সায়েন্স বই হিসেবে ধরা উচিত ছিলনা ।

ভদ্রলোক জানালেন সেটা তো ছিলই সেটাই হত কিন্তু এই ইহুদী নাসারা এরা হতে দেয়নি ।
তাহলে ভাই অনেকেই বলে সংবিধান ....একই সাথে সংবিধান মেডিকেল বই দুটোই .....
ভদ্রলোক উওরে যে যেভাবে নেবে ।
আবার বল্লাম দোয়া পড়ে করোনা ভাল হলে চায়নিজরা পাচ না সাতদিনে দশ হাজার লোকের হসপিটাল করল । এটাতো দরকার ছিলনা দোয়া পড়লেই হত .....আর সৌদিরা দোয়া না পড়ে তো মক্কা বন্ধ করে দিল ওখানে দোয়া পড়লেই তো করোনা থাকত না । আর প্লেগ রোগে বেশ কিছু সাহাবী মারা গিয়েছিলেন তারা কি এমন দোয়া পড়েন নি ।

ভদ্রলোক - আপনার সাথে কথা বললে আমার ঈমান থাকবেনা ।
উওরে বল্লাম আপনি তো ইহুদী নাসারার দেশের নাগরীক তাতে কি ঈমানীতে কম জোড় হয়না ....
আর মেসেজ যায়না আমি ব্লক ।

এমন করে হয়তোবা একদিন করোনাও ব্লক হবে । মানুষের চিন্তা করোনাকে ব্লক করবে । আবার কোন ঘাতক ব্যাধি জন্মাবে ।




মন্তব্য ৭ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (৭) মন্তব্য লিখুন

১| ২২ শে মার্চ, ২০২০ দুপুর ২:২০

রাজীব নুর বলেছেন: পড়লাম।
সহজ সরল ভাষায় ভালো লিখেছেন।

২২ শে মার্চ, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:০৩

কিবরিয়া জাহিদ মামুন বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ রাজীব ভাই আপনি অনেকদিন ধরেই আমার লেখা পড়েন ।

২| ২২ শে মার্চ, ২০২০ বিকাল ৪:৫৯

পদ্ম পুকুর বলেছেন: আপনার লেখাগুলো সুন্দর, ক্রিয়েটিভ, অর্থবোধক এবং সাহিত্যমানসম্পন্ন নিঃসন্দেহে। কিন্তু আপনি মন্তব্যের উত্তর দেন না।
এটা একদিকে যেমন আপনার সম্পর্কে নেতিবাচক ধারণা দেয়, অন্যদিয়ে মিথস্ক্রিয়া না থাকায় অনেকে আপনার লেখাকে উপেক্ষা করে (এই প্রবণতা ব্লগে আছে), ফলে ভালো লেখা পড়া থেকে বঞ্চিত হয়।
দুটোই দুপক্ষের জন্যই ক্ষতিকর।

ভালো থাকবেন, শুভ ব্লগিং।

২২ শে মার্চ, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:০২

কিবরিয়া জাহিদ মামুন বলেছেন: ধন্যবাদ লেখা পড়বার জন্য। একান্ত দু:খিত উওর না দেবার জন্য । সময়ের কারনে উওর দেবার ইচ্ছাটা কমে যায় । এটা আমার কমতি । অনেক ধন্যবাদ । ভাল থাকবেন ।

৩| ২২ শে মার্চ, ২০২০ বিকাল ৫:০৬

নেওয়াজ আলি বলেছেন: অসাধারণ  লেখা।

২২ শে মার্চ, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:০৪

কিবরিয়া জাহিদ মামুন বলেছেন: ধন্যবাদ ভাল থাকবেন সুস্থ থাকবেন ।

৪| ২৩ শে মার্চ, ২০২০ সকাল ৯:৫২

দেশ প্রেমিক বাঙালী বলেছেন: লেখাটি সুন্দর সাবলীল হয়েছে।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.