নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সম্পদহীনদের জন্য শিক্ষাই সম্পদ

চাঁদগাজী

শিক্ষা, টেকনোলোজী, সামাজিক অর্থনীতি ও রাজনীতি জাতিকে এগিয়ে নেবে।

চাঁদগাজী › বিস্তারিত পোস্টঃ

রোজা ও ঈদকে "সোলার কেলেন্ডার"এর শীতের শেষভাগে স্হায়ীভাবে আনলে কেমন হয়?

০৬ ই জুন, ২০১৯ রাত ১২:৪৭



আমাদের ব্লগার নুরু সাহেব আজ, জুন মাসের ৫ তারিখে, আমাকে ঈদের শুভেচ্ছা জানায়েছেন, আমার চোখ যেন ভালো হয়ে যায়, সেই কামনা করেছেন, উনাকে ধন্যবাদ। উনি গত বছরও এই ভালো কাজটি করেছিলেন, কিন্তু সেটি ছিলো জুন মাসের ১৬ তারিখে; এই বছর, গত বছর থেকে ১১ দিন আগে! আগামী বছর উনি আমাকে শুভেচ্ছা জানাবেন, ২৪শে মে, তখন আরো ১১ দিন আগে! প্রতি বছর ঈদ ও রোজা ১১ দিন করে এগুতে থাকবে; ইহার শেষ কোথায়, এ'রকম হচ্ছে কেন? কারণ, মুসলমানেরা এখনো ধর্ম পালন করছেন "লুনার কেলেনডার" অনুসারে।

আসলে, নুরু সাহেব চাঁদকে ভালোবাসেন; উনি মাঝেমাঝে কবিতাও লেখেন; মনে হয়, সব কবিরা চাঁদকে ভালোবাসেন। আমাদের আদি পিতারাও নুরু সাহেবের মত কবি ছিলেন, চাঁদকে ভালোবাসতেন, বছর গুণতেন "লুনার কেলেন্ডার"এ, লুনার বছরে গড়ে ৩৫৪ দিনে বছর, গড়ে "সোলার কেলেনডার"এর থেকে ১১ দিন কম। আমি আবার নুরু সাহেবের মাথা ঘুরানোর ব্যবস্হা করছি কিনা কেন জানে! যাকগে, আজ থেকে ৩২ বছর পর, নুরু সাহেব আমাকে আবারো হয়তো, ৫ই জুন ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানাবেন ( আনুমানিক একই দিনে)।

গতকাল চাঁদ দেখা নিয়ে দেশে নাকি তুঘলকি কান্ড হয়েছে? এটা এবার যে হয়েছে তা নয়, আরো শতবার হয়েছে, এবং হবে; এটা নিয়ে মারামারি হয়েছে গ্রামে, সামনে ছোটখাট সিভিল-ওয়ারও হতে পারে! এই সবের মুলে হচ্ছে ছোট "লুনার ইয়ার"; আমরা চাই বড় সোলার ইয়ার অনুসরণ করতে, ধর্মীয়দিন গুলোকে আনুমানিক বছরের একই সময়ে নিয়ে আসতে। মনে করেন, নবীজি (স: ) কোন এক ঋতুতে জন্মে ছিলেন; উনার কিছু জন্মদিন পালন হয় কিছু বছর শীতে, কিছু জন্মদিন কিছু বছরের গ্রীস্মে, কিছু জন্মদিন বসন্তে; এটা কি এমন হওয়ার কথা?

ইমানের দিক থেকে, ইসলামী মনোভাব থেকে হিসেব করলে, বাংলাদেশের মানুষেরা আদর্শ মুসলিম; ফলে, বাংলাদেশের আবহাওয়া, অর্থনীতি ও ঋতুকে প্রধান্য দিয়ে রোজাকে শীতের শেষর দিকে নিয়ে আসলে ভালো হয়; তখন প্রকৃতি সুন্দর, দিন খুব লম্বা নয়, বেশিরভাগ মানুষ নিরোগ থাকে, কৃষকের গোলায় ধান থাকে। ফসল কাটা হয়ে গেলে গ্রামের মানুষের মাঝে খুশীর আমেজ আসে, মানুষ কিছুদিনের জন্য ভাবনামুক্ত হয়, তখন রোজা ও ঈদ আসলে মানুষ বেশী সুখী হবে। বেশীরভাগ মুসলিম দেশ উত্তর গোলার্ধে, বাংলাদেশে শীতের সময় প্রায় মুসলিম দেশে শীত থাকে; ভেবে দেখার দরকার!

মন্তব্য ৫৫ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (৫৫) মন্তব্য লিখুন

১| ০৬ ই জুন, ২০১৯ রাত ১২:৫২

:):):)(:(:(:হাসু মামা বলেছেন: ভালো ধারণা পেলাম। ;)

০৬ ই জুন, ২০১৯ রাত ১:০২

চাঁদগাজী বলেছেন:


একই ধর্মীয়দিন বিবিধ বছরে বিবিধ ঋতুতে পালন, কেমন যেন বেখাপ্পা; ইহাকে বছরের একই সময়ে নিয়ে আসার দরকার!

২| ০৬ ই জুন, ২০১৯ রাত ১:২৫

স্বপ্নের শঙ্খচিল বলেছেন: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ আব্দুল্লাহ বলেন, “শরীয়ত মোতাবেক দুজন ঈমানদার ব্যক্তি চাঁদ দেখার ঘোষণা দিলে শরীয়ত বলে সে ঘোষণা মেনে নেওয়া দরকার।
“অতএব আমরা আমাদের কোনো ব্যক্তিগত স্বার্থে নয়, শরীয়ত মোতাবেক কোরআন এবং হাদিস অনুযায়ী যেটা কমিটির করা উচিত সেটাই আমরা আগে ঘোষণা দিয়েছিলাম।
“আর বর্তমানে নতুন করে যে ঘোষণাটি দিচ্ছি সেটাও শরীয়ত মোতাবেক।”

.....................................................................................................................................................
আপনার "রোজা ও ঈদকে শীতের" কম্বলে আবৃত করার প্রয়োজন নাই ।
আমার মনে হয় সেখানে , বিজ্ঞান মনস্ক ব্যক্তি এবং প্রযুক্তির সমন্বয়
ছিল না , অতএব আমরা আমাদের কর্মপদ্ধতির সংস্কার চাই, তাহলে আগামীতে এধরনে র সমস্যা থাকবে না ।

০৬ ই জুন, ২০১৯ রাত ১:৩৪

চাঁদগাজী বলেছেন:


আমাদের নবীজি ৫৭০ সালে, রবিউল আউয়াল মাসে জন্ম গ্রহন করেছিলেন; ধরেন, সেটা ছিল বসন্তকাল; এখন গড়ে প্রতি ৬/৭ বছর পর, উনার জনম্মদিন পালন করা হয় অন্য ঋতুতে: কখনো গরমে, কখনো শীতে, কখনো হেমন্তকালে; আপনি কি এগুলো বুঝেন? এগুলো কেমন দেখায়?

৩| ০৬ ই জুন, ২০১৯ রাত ১:৫৫

স্বপ্নের শঙ্খচিল বলেছেন:
সূর্য + চাঁদ + পৃথিবী নিজ নিজ অক্ষে ঘুরে, সৌরজগতের অন্যান্য চাঁদ বা গ্রহ বা উপগ্রহ নিজ নিজ অক্ষে ঘুরবে
এখানে ই অপার রহস্য লুকায়ে আছে, যা আমরা আজও জানতে পারি নাই,
কখন সূর্যের আলো চাঁদে পড়বে এবং তা পৃথিবীতে আসবে, সৌরজগতের ঘূর্ণমান নিয়মেই আসবে । সেই চাঁদ দেখা গেলে
আমরা রোজা রাখব এবং ঈদ করব।
..........................................................................................................................................................
অতএব এখানে কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান তা সংস্কার করার এখতিয়ার রাখে না, সারা বিশ্ব যে নিয়ম মানছে তার বাহিরে ও
আমরা যেতে পারি না । কারও ব্যক্তি সুবিধার জন্য শীত বা হেমন্ত গ্রহনযোগ্য নয় ।

০৬ ই জুন, ২০১৯ রাত ২:১৬

চাঁদগাজী বলেছেন:


সুর্য্য ঘুরে, চাঁদ ঘুরে, পৃথিবী ঘুরে, সবই ভালো; কোনটা কতদিনে ঘুরে, ও ঘুরলে কি হয়, সেটা আপনি বুঝেন না, মনে হয়; পৃথিবী অক্ষের চারিদিকে ঘুরে২৪ ঘন্টায়, উহাকে কাজে লাগায় মানুষ, গাছ-লাতা-পাতা, সবাই; চাঁদ ঘুরলে, শুরু নুরু সাহেবের মাথা ঘুরে, অন্য কোন বড় কিছু ঘটে না; পৃথিবী সুর্য্যের চারিদিকে ঘুরে বলে ঋতু বদলায়; চাঁদ ঋতু বদলায় না, জোয়ার ভাটা করে।

চাঁদ জানালায় উঁকি দেয়া মেয়ের মতো, দেখা যায়, দেখা যায় না; এটা বড় সমস্যা; তার থেকে আরো বড় সমস্যা, উহাকে নিয়ে বছর গুণলে বছরটা হয় ৩৫৪ দিনে। দেখেন, আপনার মাথা ঘুরছে কিনা!

৪| ০৬ ই জুন, ২০১৯ রাত ২:৩১

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: লুনার বা চান্দ্র ক্যালেন্ডার ব্যবহারের কারন হলো বিভিন্ন ঋতুতে ঈদ উদযাপন করা। এতে বছরের বিভিন্ন সময় ঈদ হয়। সাধারণত ঈদুল ফিতরের প্রায় দুই মাস পরে ঈদুল আজহা আসে।

সাধারণ ভাবে বাংলাকে ষড়ঋতুর দেশ বললেও আদতে এদেশে চারটি ঋতু বিদ্যমান। এগুলোতেই ঈদের দিনটি আবর্তনের ন্যায় আসতে থাকে।

লুনার ক্যালেন্ডারের এ বিষয়টি সোলার বা সৌর বৎসরের ক্ষেত্রে পাওয়া সম্ভব নয়।

কোনো ধর্মীয় অনুষ্ঠানের দিন তারিখ নিয়ে কথা বলা ভালো নয়। এটা সম্পূর্ণ ধর্মীয় বিশ্বাসের উপর নির্ভর করে।


আর দুনিয়ার সকল পোস্টে নুরু ভাই এলে উনার জনপ্রিয়তা ডোনাল্ড ট্রাম্পের মতো হবে বলে মনে হয় !

০৬ ই জুন, ২০১৯ রাত ৩:৩৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


মক্কাও মদীনার লোকেরা ঐ সময়ে সোলার কেলেন্ডার বুঝতো না; মিশরীয়রা জানতো, সিজার মিশর থেকে আইডিয়াটা পেয়েছিলো।

৫| ০৬ ই জুন, ২০১৯ রাত ২:৩২

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: আপনার কাছে পাল্টা প্রশ্নঃ কোয়ান্টাম মেকানিক্সকে ক্লাস ওয়ানে আনলে কেমন হয়?

০৬ ই জুন, ২০১৯ ভোর ৪:৩৪

চাঁদগাজী বলেছেন:



আপনার প্রশ্ন, কোয়ান্টাম মেকানিক্সকে ক্লাস ওয়ানে আনলে কেমন হয়?

আমার মনে হয়, ভালো হবে! বাচ্চারা জানবে যে, কোয়ান্টাম মেকানিক্সক্স/ফিজিক্স নামে ইন্টারেষ্টিং একটি বিষয় আছে; তারা হয়তো ম্যাক্স প্ল্যানক, বা হেজেনবার্গের মত বুঝবে না; তবে মনে রাখতে পারবে!

৬| ০৬ ই জুন, ২০১৯ ভোর ৫:০৮

স্বপ্নের শঙ্খচিল বলেছেন: চাঁদ জানালায় উঁকি দেয়া মেয়ের মতো, দেখা যায়, দেখা যায় না; এটা বড় সমস্যা;
তার থেকে আরো বড় সমস্যা, উহাকে নিয়ে বছর গুণলে বছরটা হয় ৩৫৪ দিনে।
দেখেন, আপনার মাথা ঘুরছে কিনা!

......................................................................................................................
মোটেই না, এর মধ্য থেকেই প্রাকৃতিক শক্তি, রহস্যর সন্ধান মেলে ।
আপনি রোবটের মত ধর্মীও বিষয়কে একস্হানে ফিক্স করতে চাছেন যা কাহারও কাম্য নয় ।
আপনি প্রকৃতির বাহিরে যেতে পারেন না, কোন সমর্থন ও পাবেন না ।

০৬ ই জুন, ২০১৯ সকাল ৭:০৫

চাঁদগাজী বলেছেন:


সৌরজগৎ ৩৬৫ দিন ৬ ঘন্টা ঘন্টার বছরকে সাপোর্ট করে, মানুষ মেপেটেপে বের করেছেন; আগে যারা মাপতে জানতেন না, তারা পেয়েছেন ৩৫৪ দিন: ৩৫৪ দিনের কারণে, সেজন্য ঋতু ঠিক থাকছে না; যিনি বসন্তে জন্মেছেন, উহা জন্মদিন পালন হচ্ছে, শীত, গ্রীস্ম ও হেমন্তে বসন্তে ...

৭| ০৬ ই জুন, ২০১৯ ভোর ৬:০০

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: বুদ্ধি খারাপ না। তবে হুজুর সাহেব রা মানবেন না।

০৬ ই জুন, ২০১৯ সকাল ৭:০৬

চাঁদগাজী বলেছেন:


হুজুরেরা ধর্মকে ঠিক মতো শিখতে পারেননি, ধর্মকে প্রকৃতি থেকে আলাদা করে ফেলেছেন।

৮| ০৬ ই জুন, ২০১৯ ভোর ৬:১৪

বলেছেন: তোমরা ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি করো না ---

বিধান মেনে চলাই জীবন ....

০৬ ই জুন, ২০১৯ সকাল ৭:০৮

চাঁদগাজী বলেছেন:


আজ, বাড়াবাড়ি করার মতো কোন কিছুই নেই, সবকিছু পরিস্কার

৯| ০৬ ই জুন, ২০১৯ সকাল ৭:০৮

অগ্নিবেশ বলেছেন: ফারমারকা বাদ দেন এইসব, এরা কেউ মানবে না। এরা বিজ্ঞান মনস্ক হইলে দুনিয়ার একটা বড় অংশ অভুক্ত থাকত না।

০৬ ই জুন, ২০১৯ সকাল ৭:১৫

চাঁদগাজী বলেছেন:


আমি শুধু ব্লগারদের বুঝাতে চাচ্ছি যে, চাঁদ দেখা ইত্যাদি নিয়ে সমস্যা হচ্ছে, "লুনার কেলেন্ডারের' জন্য; বদলানোর দরকার নেই, বুঝলেই হলো।

০৬ ই জুন, ২০১৯ সকাল ৭:১৮

চাঁদগাজী বলেছেন:


আপনি লিখুন, লেখার অভাব অনুভব করছি।

১০| ০৬ ই জুন, ২০১৯ সকাল ১০:৩০

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: সোলার ক্যালেন্ডার যে ভেদ বাক্য তাতো নয়। সেখানেও ৪ বছর পর পর লিপইয়ার করে ফ্রেবোুয়ারীকে একদিন বাড়িয়ে দেয়া হয়!
আমরাও মেনে নেই। মেনে নেয়াতেই শান্তি ।

লেখক বলেছেন:
মক্কাও মদীনার লোকেরা ঐ সময়ে সোলার কেলেন্ডার বুঝতো না; মিশরীয়রা জানতো, সিজার মিশর থেকে আইডিয়াটা পেয়েছিলো।
আপনার কিছূ কিছূ ভুল ধারনায় হাসতে হাসতে শ্যাষ হতে হয়। তারা সোলার/লুনার দু ক্যালেন্ডারেই চলতো। মহানবীর হিজরতকে স্মরনীয় রাখতেই হিজরতের দিন থেকে আরবী হিজরী সালের শুরু হয়। আর কে না জানে বিজয়ীর বিধানেই সব চলে। আজ খ্রীষ্টিয়ারা ক্ষমতায় তাই খ্রীষ্টিয় সালে সব চলে। এক সময় পারস্যের হাতে ক্ষমতা ছিল তখন সব ফারসিতে চলতো। ইংরেজরাও ফার্সি শিখেই সে সব দেশে ব্যবসা বানিজ্য করতো। প্রকৃতির ঢেউয়ের মতো এ বদল।

লুনার ক্যালেন্ডার অনুসরনে কোরআনের নির্দেশ আছে। তাই মন মাফিক কিছু বললেইতো আর হবে না। কেবলই বিভ্রান্তি সৃষ্টি ছাড়া!

০৬ ই জুন, ২০১৯ সকাল ১০:৫৬

চাঁদগাজী বলেছেন:


সাল গণনা আজ থেকেও শুরু করা যাবে, অসুবিধা নেই; কিন্তু সেই জন্য সপ্তাহ'কে য ৮ দিন করলে, বা মাসকে ৪০ দিন করলে, সোলার বছর বদলাবে না; কারণ, মানুষ বের করতে পেরেছে যে, পৃথিবী নিজের কক্ষের একই বিন্দুতে ফিরে আসতে ৩৬৫ দিন ৬ ঘন্টা সময় নেয়। ৩৬৫ দিন ৬ ঘন্টার হিসেব ঠিক রাখলে ঋতু পরিবর্তনকে "সময়ের একই" অংশে ধরে রাখা যাবে।

লুনার বছর ও সপ্তাহের ৭ দিন ৩৫০০ বছর আগেও আরবে জানা ছিলো; সমস্যা ছিলো "ঋতু" বদলে যেতো আনুমানিক প্রতি ৬ বছরে।

০৬ ই জুন, ২০১৯ সকাল ১১:০৮

চাঁদগাজী বলেছেন:


হিজরী সন যদি 'সোলার কেলেন্ডার'এ গণনা করা হতো, রোজা বা নবীর জন্মদিন 'বিবিধ ঋতুতে' হতো না। হিজরী গণনা শুরুর সাথে 'লুনার বছর', বা 'সোলার বছরের' কোন সম্পর্কে নেই; লুনার বছর ও সোলার বছর হচ্ছে সময়ের একটা 'একক'।

১১| ০৬ ই জুন, ২০১৯ সকাল ১১:০৩

নাসির ইয়ামান বলেছেন: চাঁদগাজী পশ্চিমা মেয়েদের স্তন,নাভীর খাঁজ,পেটের ভাঁজ আরো আরো... দেখতে দেখতে প্রজনন বিক্রিয়ার মতো মানুষ থেকে প্রকৃতিরই একটা অংশ হয়ে গেছেন।
সে/তিনি নিজেকে আর মানুষ ভাবতে পারেন না,এলিয়েন ভাবেন।
তাই জলবায়ু পরিবর্তনকে প্রকৃতিবিরুদ্ধ বলতেও পারেন।

০৬ ই জুন, ২০১৯ সকাল ১১:০৯

চাঁদগাজী বলেছেন:



এসব হিসেব পত্র আপনি বুঝতে পারবেন না।

১২| ০৬ ই জুন, ২০১৯ সকাল ১১:০৬

রাজীব নুর বলেছেন: আপনি তো নুরু সাহেবকে কচ্ছপের মতোন ধরেছেন। সে তো কিছুতেই ছুটতে পারছে না। ছেড়ে দেন তাকে।

আসলে আমাদের ধর্মওয়ালারা ইচ্ছা করেই পুরানো ধ্যান ধারনা আকড়ে ধরেছে। তারা মোবাইল ব্যবহার করবে, ইন্টারনেট ব্যবহার করবে অথচ তারা মন মানসিকতায় আজও আধুনিক হতে পারে নি।

০৬ ই জুন, ২০১৯ সকাল ১১:১৩

চাঁদগাজী বলেছেন:


নুরু সাহেবকে আমি ব্লগের সবচেয়ে পরিচিত ব্লগারে পরিণত করছি; উনি বিখ্যাত মানুষদের নিয়ে কথা বলেন।

ইসলাম ধর্ম 'লুনার বছর'কে বছরের একক ধরাতে 'একই ঘটনা' প্রতি বছরে ১১ দিন আগে চলে আসে; ইহা একটু বিব্রতকর।

১৩| ০৬ ই জুন, ২০১৯ সকাল ১১:৩৮

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: ধরুন, আপনার জন্মদিন ২৯শে ফেব্রুয়ারি। তাহলে প্রতি বছরই একই সময়ে আপনার জন্মদিন পালন করা সম্ভব হবে কি?

আপনি ঠিকই বলেছেন। বাচ্চারা কোয়ান্টাম মেকানিক্স মনে রাখতে পারবে ! মনে রাখা আর বোঝা এক জিনিস নয়। ক্লাশ এইটের জিনিস বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালে কি হবে কিংবা বিশ্ববিদ্যালয়ের জিনিস ক্লাশ এইটে ?

সবকিছুরই একটা সুনির্দিষ্ট সময় আছে। তার আগে বা পরে হলে কি অবস্থা হয় বলতে পারেন ?

শীতকালে তো বড়দিন। এটা গরমকালে হলেও কি আপনি একই কথা বলতেন ? শীতকালে আনার জন্য কেলেন্ডার চেঞ্জ করতে?

নাকি কেবল ইসলামের বেলায় এমনটা বলবেন?

০৬ ই জুন, ২০১৯ বিকাল ৪:০৭

চাঁদগাজী বলেছেন:


২৯শে ফেব্রুয়ারী হলো মানুষের বুদ্ধিমত্তার স্বাক্ষর, সেদিন জন্ম নিলে, প্রতি ৪ বছরে জন্মদিন পাল হবে; তবে, "সেটা ঘটবে শীতে", কোন অবস্হায় একবার শীতে, আরেকবার গ্রীস্মে ঘটবে না; আপনি মুলবিষয়, "ঋতু"র কথা অনুধাবন করতে পারছেন না।

০৬ ই জুন, ২০১৯ বিকাল ৪:১১

চাঁদগাজী বলেছেন:


আপনি লিখেছেন, " ক্লাশ এইটের জিনিস বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালে কি হবে কিংবা বিশ্ববিদ্যালয়ের জিনিস ক্লাশ এইটে ? "

-অপ্রয়োজনীয় কথা বলে, নিজের দুর্বলতা প্রকাশ করেছেন; ক্লাশ এইটের বিষয়গুলোই বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ানো হয়, তবে, অনেক উঁচু লেভেলে। ইউনিভার্সিটিতে যা পড়ানো হয়, ৮ম শ্রেণীর বাচ্চা নিজ লেভেল থেকে বুজতে পারবে।

০৬ ই জুন, ২০১৯ বিকাল ৪:১৫

চাঁদগাজী বলেছেন:


শীতে উত্তরের ও দক্ষিনের দেশগুলোর নদীর পানি বরফে পরিণত হয়, গরমকালে গলে, এগুলো প্রকৃতির নিয়ম, সেই রকমভাবে মানুষের জন্য বছরের কোন সময়, ভালো সময়, কষ্টকর সময় আছে; গ্রীস্মে রোজা ভালো সময় নয়।

১৪| ০৬ ই জুন, ২০১৯ দুপুর ১২:৪১

পাঠকের প্রতিক্রিয়া ! বলেছেন: বুদ্ধির ঢেঁকি, সবজান্তা, চন্দ্রগাজী কাকু:P

০৬ ই জুন, ২০১৯ বিকাল ৪:১৭

চাঁদগাজী বলেছেন:


এখানে বুদ্ধির কিছু নেই; আপনার জন্মদিন একবার গ্রীস্মে পালন করুন, তারপরের বছর ১১ দিন আগে করুন, ১২ বছর পর শীতে পালন করেন; নিজেই হবুচন্দর হয়ে যাবেন।

১৫| ০৬ ই জুন, ২০১৯ দুপুর ১২:৫৪

মেঘ প্রিয় বালক বলেছেন: আপনি ডিগ্রি শেষ করে আবার ক্লাস ওয়ানে ভর্তি হোন,আপনার আবার প্রথম থেকে নতুন করে সব শুরু করা দরকার।

০৬ ই জুন, ২০১৯ বিকাল ৪:১৮

চাঁদগাজী বলেছেন:


মাদ্রাসায় পড়লে, মানুষ আজীবন "বাচ্চালোক" থাকে

১৬| ০৬ ই জুন, ২০১৯ দুপুর ১:২৩

জাহিদ অনিক বলেছেন: ক্যালেন্ডার বাড়ানো কমানো, আগিয়ে আনা, পিছিয়ে দেয়া-- এসব জানি না।
তবে মনে হয় যে, এই চাঁদ দেখা বা না দেখার ব্যপারটা চাঁদ দেখা কমিটির থেকে স্পারশোর হাতে দিলে ভালো হয়।
আর হ্যা, এটা ঠিক ঈদ শীতে হলে বেশী শান্ত শান্ত একটা ভাব থাকে। ভালো লাগে। ক'বছর ধরেই ঈদের দিন ভালো বৃষ্টি হচ্ছে- মানুষজন ঈদ পালন করতে পারছে না নির্বিঘ্নে।

ঈদের শুভেচ্ছা রইলো আপনার প্রতি।

০৬ ই জুন, ২০১৯ বিকাল ৪:২১

চাঁদগাজী বলেছেন:


ধর্ম পালনের জন্যও ঋতুকে স্হির রাখার দরকার; না হয়, ইহার গুরুত্ব নিয়ে সন্দেহ দেখা দেয়।

১৭| ০৬ ই জুন, ২০১৯ বিকাল ৩:০৫

গড়ল বলেছেন: লুনার ক্যালেন্ডার গ্রীকরা ৫০০০ বছর আগেই বাতিল করে দিয়েছিল, অ্যাসিরিয়ান ক্যালেন্ডার যা কিনা খ্রীষ্টের জন্মেরও ৪৭৫০ বছর আগে তৈরী হয়েছিল। এর ধারাবাহিকতার মিশরিয়, ব্যাবলনিয় ক্যালেন্ডার এবং সর্বশেষ জুলিয়ান ক্যালেন্ডার যা জুলিয়াস সিজার খ্রীষ্টের জন্মের ৪৫ বছর আগে প্রবর্তন করেছিল যা পরবর্তিতে উন্নত হয়ে গ্রেগরিয়ন ও বর্তমানের খ্রীষ্টিয় ক্যালেন্ডার আকারে প্রবর্তিত হয়। অতএব বোঝাই যাচ্ছে যে ব্যাবিলনের খুব কাছে থেকেও আরবরা কত পিছিয়ে ছিল যে তারা তখনও লুনার ক্যালেন্ডার ব্যাবহার করত। লুনার ক্যালেন্ডার আসলে কোনকালেই গ্রহণযোগ্য ছিল না বিশেষ করে উন্নত সভ্যতার লোকদের কাছে।

০৬ ই জুন, ২০১৯ বিকাল ৪:৪৫

চাঁদগাজী বলেছেন:



চন্দ্রকে "মাস" মাপার জন্য ব্যবহার করাতে, পৃথিবীর প্রদক্ষিণকাল থেকে ১১ দিন আগামী বছরে চলে যাচ্ছে, সেটা টের পেতে মানুষের সময় লেগেছে; মানুষ সেটা বুঝতে পেরে শোধরায়েছেন, সেটাই সোলার বছর; আরব এলাকায় সোলার বছর গণনা চালু করার মতো ক্ষমতাশালী মানুষজন ছিলেন না অনেক অনেক শতাব্দী ধরে।

১৮| ০৬ ই জুন, ২০১৯ রাত ৮:৫৩

নাসির ইয়ামান বলেছেন: চাঁদগাজী আমায় বলেছেন: "এসব হিসেব পত্র আপনি বুঝতে পারবেননা"

আপনি কারো সম্পর্কে মন্তব্য করার আগে "তাকে জানুন"

আপনার পার্কিং নিয়ে ক্যাচালের পোস্ট দেখেই বুঝেছি "আপনার ইনদুর প্রকৃতি মানসিকতা"

০৬ ই জুন, ২০১৯ রাত ৯:১৬

চাঁদগাজী বলেছেন:


পার্কিং নিয়ে যা ঘটেছিলো, সেটা একটা ছোটখাট ঘটনার ছোটখাট সমাধান, উহা আপনার লিলিপুটিয়ান মাথা প্রসেস করতে পারবে না। আপনি কি মাদ্রাসায় পড়েছিলেন, নাকি প্রশ্নফাঁসদের অংশ?

১৯| ০৬ ই জুন, ২০১৯ রাত ১০:১৫

ব্লগ মাস্টার বলেছেন: এটা কোনো ভাবেই হয় না নো নেভার ।

০৬ ই জুন, ২০১৯ রাত ১০:৫১

চাঁদগাজী বলেছেন:


নবী ঈশা (স: ) এর জন্ম ডিসেম্বর ২৫, শীতকাল; যদি কোনদিন ইহাকে গ্রীস্মে পালন করা হয়, কেমন লাগবে?

২০| ০৬ ই জুন, ২০১৯ রাত ১০:৪০

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: লেখক বলেছেন:


আপনি লিখেছেন, " ক্লাশ এইটের জিনিস বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালে কি হবে কিংবা বিশ্ববিদ্যালয়ের জিনিস ক্লাশ এইটে ? "

-অপ্রয়োজনীয় কথা বলে, নিজের দুর্বলতা প্রকাশ করেছেন; ক্লাশ এইটের বিষয়গুলোই বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ানো হয়, তবে, অনেক উঁচু লেভেলে। ইউনিভার্সিটিতে যা পড়ানো হয়, ৮ম শ্রেণীর বাচ্চা নিজ লেভেল থেকে বুজতে পারবে।


অপ্রয়োজনীয় বিষয়ের অবতারণা আপনিই করেছেন। ক্লাশ এইটের বাচ্চা তার নিজ লেভেল থেকে বুঝতে পারলেও আপনি বুঝতে পারেননি।

আর বিশ্ববিদ্যালয়ে কি পড়ানো হয় তা আমি ভালোই জানি। সময় করে আপনি ঈদ এবং রমজান সম্পর্কে জেনে নিন !

০৬ ই জুন, ২০১৯ রাত ১০:৫৮

চাঁদগাজী বলেছেন:


লুনার বছরের কারণে, রোজা আসে জানুয়ারীতে, ডিসেম্বরে, নভেম্বরে, অক্টোবরে, সেপ্টেম্বরে ...; এটা আপনার কাছে কেমন লাগে?

২১| ০৬ ই জুন, ২০১৯ রাত ১১:১১

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: মরুর দেশের লোক যদি বিভিন্ন সময়ে রোজা করতে পারে, তবে আমার সমস্যা কি?

০৭ ই জুন, ২০১৯ রাত ১:৩১

চাঁদগাজী বলেছেন:


মরুর দেশের লোকের সমস্যা আপনার সমস্যা হয়ে গেছে, এটাই আনন্দ!

২২| ০৭ ই জুন, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:০৩

মেঘ প্রিয় বালক বলেছেন: চাঁদগাজী আপনি বলেছেন, মাদ্রাসায় পড়লে মানুষ আজীবন বাচ্চালোক থাকে,কুকুরের পেটে ঘি যেমন হজম হয় না,তেমনি আপনিও সঠিক আর উচিৎ কথা সহ্য করতে পারেন না। আপনাদের মত কিছু বিকৃত মস্তিকের ব্লগাররা সাবজেক্টর বাহিরে গিয়ে কথা বলে মানুষকে বিভ্রান্ত করেন। আসলে আপনারই ফেতনাকারী। পোস্টের কমেন্টে কয়টা যুক্তি আপনার সাথে সহমত প্রকাশ করেছে?? বেশিরভাগ মন্তব্যেই আপনার বিরুদ্ধে, তাহলে কি তারা সবাই বাচ্চালোক??? আমি দেখেছি প্রায় জায়গায় আপনি ধর্ম বিরোধী মন্তব্যে করেন,এতো চুলকানী কেন আপনার ইসলাম নিয়ে? ধর্ম নিয়ে বাজে মন্তব্যে করে আপনি কি পান?? বর্বর আর মুর্খদের মত সব জায়গাতে কথা বলবেন না।

০৭ ই জুন, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:১১

চাঁদগাজী বলেছেন:


এসব পোষ্ট আপনার মত ডোডোর জন্য নয়; এগুলো পড়ার ও বুঝার মতো লোকজন ব্লগে আছেন, সেজন্য লেখা হচ্ছে!

০৭ ই জুন, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:১২

চাঁদগাজী বলেছেন:


এসব পোষ্ট আপনার মত ডোডোর জন্য নয়; এগুলো পড়ার ও বুঝার মতো লোকজন ব্লগে আছেন, সেজন্য লেখা হচ্ছে! ডোডোরা আসে যায়, এটাই নিয়ম।

২৩| ০৭ ই জুন, ২০১৯ রাত ১০:৫৬

মেঘ প্রিয় বালক বলেছেন: সেটা কমেন্ট পড়ে বুঝাই যাচ্ছে লেখকের বিকৃত মস্তিস্ক কতটুকু বিকৃত হয়েছে।

০৭ ই জুন, ২০১৯ রাত ১১:২৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


আপনার লেভেলের লোকেরা এগুলো নিয়ে চিন্তিত হওয়ার কারণ নেই।

২৪| ০৮ ই জুন, ২০১৯ সকাল ১০:১১

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: আমাদের নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এই আমলে জন্মগ্রহণ করলে তিনি কোনটা করতেন সেটাই হল বিবেচনার বিষয়। মানুষ সাধারণত যুগের সাথেই চলে। এই আমলে স্মার্টফোন আছে বলেই আমরা এত স্মার্ট।

০৮ ই জুন, ২০১৯ বিকাল ৩:৩৮

চাঁদগাজী বলেছেন:


মুসলমানদের জন্য নতুন করে নবী আসতেছে না; তবে, ইহুদী ধর্মের ১ জন নবী আসার কথা; সেই নবী এলে, তিনি নিশ্চয় আইনষ্টাইনের ভক্ত হবেন।

২৫| ১০ ই জুন, ২০১৯ সকাল ৯:২৯

নূর আলম হিরণ বলেছেন: মুসলিমরা শুধু ধর্মকর্মর জন্য চন্দ্র ক্যালেন্ডার ফলো করে, নিজের কর্মক্ষেত্রে বিশেষ করে উৎপাদন কারখানায় এটা ফলো করতে বলবেন কারখানার বারোটা বেজে যাবে

১০ ই জুন, ২০১৯ বিকাল ৪:৪৭

চাঁদগাজী বলেছেন:


সিরিয়াস ফাইন্যানসিয়াল এর ব্যাপারে মুসলমানেরা সিরিয়াস?

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.