নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

বোকা মানুষের কথায় কিই বা আসে যায়

বোকা মানুষ বলতে চায়

আমি একজন বোকা মানব, সবাই বলে আমার মাথায় কোন ঘিলু নাই। আমি কিছু বলতে নিলেই সবাই থামিয়ে দিয়ে বলে, এই গাধা চুপ কর! তাই আমি ব্লগের সাহায্যে কিছু বলতে চাই। সামু পরিবারে আমার রোল নাম্বারঃ ১৩৩৩৮১

বোকা মানুষ বলতে চায় › বিস্তারিত পোস্টঃ

মাত্র দুই দিন আর ৩,৫৫০ টাকায় ঘুরে আসুন হালের ক্রেজ মেঘালয়ের “সোনাংপেডেং” এবং “ক্রাংসুরি ফলস” - (কম খরচে ভারত ঘোরাঘুরি)

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ রাত ১০:৫২



আজকের কম খরচে ভারত ভ্রমণের গল্পে থাকছে হালের ক্রেজ “সোনাংপেডেং” এবং “ক্রাংসুরি ফলস” ভ্রমণ পরিকল্পনা এবং বাজেট। তো এই ট্যুরের জন্য আপনার অতি অবশ্যই ভারতীয় ভিসা নেয়া থাকবে এবং তাতে ডাউকি বর্ডার এন্ট্রি এবং এক্সিট বর্ডার হিসেবে থাকতে হবে। আসুন এবার পরিকল্পনা’র আলোচনায় যাওয়া যাক। অতি অবশ্যই আমাদের এই পরিকল্পনায় দল হতে হবে নূন্যতম চারজনের। সেই হিসেবেই পুরো পরিকল্পনা সাজানো। এবার আসুন শুরু করা যাক।

ঢাকা টু তামাবিল বর্ডারঃ
প্রথমেই আগের রাতে রওনা হতে হবে ঢাকা থেকে সিলেটের উদ্দেশ্যে। ইউনিক, শ্যামলী, হানিফ ইত্যাদি বাস যায় সিলেট। ভাড়া ৫০০-৫৫০ টাকার মধ্যে। এছাড়া সায়েদাবাদ থেকে আহমেদ পরিবহণের বাসে সরাসরি তামাবিল বর্ডার এর কাছে নামিয়ে দেবে; ভাড়া ৪০০ টাকা। সিলেট এর বাসে গেলে সিলেটে সকাল বেলা নেমে পাঁচভাই/পানসী/পাকশী’তে সকালের নাস্তা সেরে নিয়ে বাস/সিএনজি করে চলে যান তামাবিল বর্ডার। ভাড়া ৫০-১০০ টাকার মধ্যে। আমরা আমাদের এই প্ল্যানে আহমেদ পরিবহণই বেঁছে নিব।

বর্ডার পারাপারঃ
তামাবিল নেমে সেখানেও ট্রাভেল ট্যাক্স দিতে পারেন; কিন্তু যাওয়ার আগে ঢাকা থেকে ট্রাভেল ট্যাক্স দিয়ে গেলে ভাল। যেহেতু নিজেরা নিজেরা ভ্রমণ করছি, তাই এটাই বেটার। এরপর বাংলাদেশ সাইডের ইমিগ্রেশন এবং কাস্টমস পার হয়ে প্রবেশ করুন ভারত ভূখন্ডে এবং সেখানকার ইমিগ্রেশন এবং কাস্টমস পার হওয়ার সাথে সাথে আপনার বর্ডার পারাপার শেষ। খুব একটা ভীড় না থাকলে ঘন্টাখানেকের কম সময়ে আপনি ভারতে প্রবেশ সম্পন্ন করতে পারবেন। এই বর্ডারে তেমন উৎকোচ এর প্রাকটিস নাই বলেই জানি, তারপরও একশত টাকা বাজেট ধরে রাখলাম।

বর্ডার টু সোনাংপেডেং ভায়া ক্রাংসুরি ফলসঃ
সব কাজ শেষ করে বর্ডার জীপ স্ট্যান্ড হতেই একটি চার আসনের প্রাইভেট গাড়ী ভাড়া করে নিন ১৫০০-২০০০ রুপী’তে যা আপনাকে ক্রাংসুরি ফলস দেখিয়ে বিকেলের মধ্যে সোনাংপেডেং ড্রপ করবে। ঘন্টাখানেকের একটু বেশী সময়ে আপনি পৌঁছে যাবেন ক্রাংসুরি ফলস। পার্কিং এরিয়ায় গাড়ী হতে নেমে আপনাকে প্রায় ৪০০ মিটারের মত নীচে নামতে হবে। পেয়ে যাবেন অপরূপ এক ঝর্ণা, নীলপানি’র ঝর্ণাকুন্ড যেখানে আয়েশ করে সাঁতরে আপনি অতি অবশ্যই বিমুগ্ধ হবেন। তবে আরও ভাল লাগবে ঝর্ণায় ভেজার আগে ঝর্ণামুখে, উপরিভাগে বোটিং করে নিলে। নীলাভ জলে লাল রঙের বোটে করে চারিপাশে সবুজের মাঝে নীল জলের লেকের ন্যায় জলাশয়ে ভেসে বেড়াতে দারুণ লাগবে নিশ্চয়ই। বোটিং এবং জলকেলি শেষে এখানে যে রেস্টুরেন্টটি আছে সেখানে ইন্ডিয়ান থালি অথবা চাউমিন/ফ্রাইড রাইস দিয়ে লাঞ্চ সেরে নিন, খরচ ১০০-২০০ রুপীর মধ্যে। আর এখানে বোটিং চার্জ নিবে ১০০ রুপী, লাইফ জ্যাকেট ভাড়া ৩০ রুপী। ও হ্যাঁ বলা হয় নাই, লাইফ জ্যাকেট ছাড়া পানিতে নামতে দিবে না আপনাকে নিরাপত্তারক্ষী।

ক্রাংসুরি টু সোনাংপেডেং যাত্রাঃ
এরপর ক্রাংসুরি হতে যাত্রা শুরু করুন উমাংগট নদী তীরের শান্ত ছোট্ট গ্রাম সোনাংপেডেং এর উদ্দেশ্যে। প্রায় ঘন্টা দেড়েকের এই যাত্রাপথও আপনার পছন্দ হতে বাধ্য। বিকেল নাগাদ সেখানে পৌঁছে নদী তীরের তাবুবাসের জন্য তাবুর খোঁজ করুন। এক তাবুতে দুজন, ভাড়া ৭০০ রুপী। এছাড়া কটেজ রুম আছে, ভাড়া ১২০০-২৫০০ টাকা রুমভেদে। এখানে চেকইন করে নেমে পরুন কাঁচ স্বচ্ছ জলে। বরফ শীতল জলে ভিজে নিন। চাইলে জলের মাঝে স্থির দাঁড়িয়ে থাকা বড় বড় পাথরে বসে আড্ডা দিতে পারেন। রাতেরবেলা চাইলে ক্যাম্প ফায়ার, বারবিকিউ করতে পারেন। এখানে ১৩০ থেকে ১৫০ রুপীতে রাতের খাবার পাওয়া যাবে হোম মেইড। মেন্যু হবেঃ ভাত, মিক্সড ভেজিটেবল, ডাবল ডিমের কারী, ডাল। তো ডিনার সেরে অনেক রাত অবধি আড্ডা দিয়ে ঘুমিয়ে পরুন।
সকালে উঠে সাসপেনশন ব্রীজ হতে স্বচ্ছ নদীর বুকে ভেসে বেড়ানো নৌকার ছবি, মাছ ধরার ছবি, চাইলে ভাল ক্যামেরা দিয়ে জলের নীচের জগত, ঘুরে বেড়ানো মাছের ছবিও নীতে পারুন। এরপর আটটা নাগাদ গ্রামের রেস্টুরেন্টে আলু পরাটা দিয়ে নাস্তা সেরে নিন সাথে এককাপ চা। নাস্তার আরও ভ্যারাইটি আছে, চেখে দেখতে পারেন। দশটা থেকে বোটিং শুরু হয়। ঘন্টা খানেক বোটিং করে ব্যাগপত্তর নিয়ে রওনা হয়ে যান ফিরতি যাত্রায়।

ব্যাক টু প্যাভিলিয়নঃ
সোনাংপেডেং থেকে ডাউকি বর্ডার গাড়ী ভাড়া নেবে ৩০০-৪০০ রুপী’র মধ্যে, চার সিটের গাড়ী। আগের রাতে বা সকাল সকাল গাড়ী ঠিক করে নিবেন। এরপর ডাউকি ফিরে উভয় পাশের ইমিগ্রেশন এবং কাস্টমস শেষ করে দুপুরের মধ্যে চলে আসুন তামাবিল। এবার এখান হতে বাসে করে চলে যান সিলেট শহরে। চাইলে সারাটা বিকেল এবং সন্ধ্যে সিলেটে কাটিয়ে রাতের খাবার খেয়ে রাতের বাস বা ট্রেনে ঢাকার উদ্দেশ্যে যাত্রা করতে পারেন। আমাদের প্ল্যানে আমরা দুপুরের মধ্যে সিলেট এসে লাঞ্চ করে ঢাকার বাস ধরবো যেন রাতের মধ্যে ঢাকায় থাকা যায়।

জনপ্রতি খরচের বৃত্তান্তঃ
ঢাকা-তামাবিল (আহমেদ পরিবহণ) ৪০০ টাকা
বর্ডার স্পিডমানী (স্ট্রিকটলি এভয়ড) ১০০ টাকা
১ম দিন সকালের নাস্তা ৫০ টাকা
ট্রাভেল ট্যাক্স ৫০০ টাকা
ডাউকি টু ক্রাংসুরি টু সোনাংপেডেং ৪০০ রুপী
ক্রাংসুরি এন্ট্রি, লাইফ জ্যাকেট, বোটিং ১৫০ রুপী
১ম দিন দুপুরে খাবার ১২০ রুপী
১ম দিন রাতের খাবার ১৩০ রুপী
রাত্রি যাপন তাঁবুতে ৩৫০ রুপী
২য় দিন সকালের নাস্তা ৫০ রুপী
উমাংগট নদীতে বোটিং ১০০ রুপী
সোনাংপেডেং টু ডাউকি ১০০ রুপী
বর্ডার স্পিডমানী (স্ট্রিকটলি এভয়ড) ১০০ রুপী
ডাউকি টু সিলেট ৮০ টাকা
২য় দিন দুপুরের খাবার ১০০ টাকা
সিলেট টু ঢাকা ৫৫০ টাকা

মোট টাকা ১৭৮০
মোট রুপী ১৫০০
সর্বমোট খরচ টাকায় (১ রুপী = ১.১৮০ টাকা হিসেবে) ৩৫৫০ টাকা

ইউটিউব ভিডিওতে দেখে নিন স্পট দুটোঃ





=======================
এই সিরিজের আগের পোস্টগুলোঃ
=======================

কাশ্মীর ভ্রমণ পরিকল্পনা এবং বাজেট (একটি অপূর্ণাঙ্গ পোস্ট ;)
দিল্লী-হিল্লি (নিজে নিজে ঘুরে আসুন অল্প খরচে সমগ্র দিল্লী)
এবার চলুন সিমলা (ঘুরে আসি কম খরচে)
চল যাই মানালি... (কম খরচে ঘোরাঘুরি)
এবার ঘুরে আসা যাক গোল্ডেন ট্রায়াঙ্গেল (দিল্লী-আজমীর-জয়পুর-আগ্রা) (কম খরচে ঘোরাঘুরি - পর্ব ০৫)
পনেরো হাজার টাকায় গোয়া ভ্রমণ!!! স্বপ্ন নয়, বাস্তব... (কম খরচে ঘোরাঘুরি)
৩২,০০০ টাকায় দিল্লী-সিমলা-মানালি-লেহ-শ্রীনগর-পাহেলগাও-গুলমার্গ-সোনমার্গ ভ্রমণ এর বাজেট-প্ল্যান (কম খরচে ভারত ঘোরাঘুরি)

মন্তব্য ২২ টি রেটিং +৪/-০

মন্তব্য (২২) মন্তব্য লিখুন

১| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ রাত ১০:৫৯

মাহমুদুর রহমান বলেছেন: পড়লাম।

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ রাত ১১:২৫

বোকা মানুষ বলতে চায় বলেছেন: ধন্যবাদ পাঠ এবং মন্তব্যের জন্য ভাইজান। আছেন কেমন? আশা করি ভালই। :)

২| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ রাত ১১:০৩

স্বপ্নের শঙ্খচিল বলেছেন: আমার তো বেনাপোল এনট্রি,
তাহলে আমি যেতে পারব না ???
................................................................

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ রাত ১১:৪৯

বোকা মানুষ বলতে চায় বলেছেন: পারবেন। দুইটা উপায় আছে।

১) বর্ডার চেঞ্জ। ভারতীয় এম্বাসিতে গিয়ে আপনি বর্ডার চেঞ্জ করে নিয়ে ডাউকি বর্ডার এনট্রি পোর্ট হিসেবে নিয়ে নেন।
২) কলকাতা হয়ে এয়ার/ট্রেনে গৌহাটি হয়ে সেখান থেকে শিলং চলে আসুন। শিলং-চেরাপুঞ্জি'র সাথে সাথে গৌহাটি এবং এই সোনাংপেডেং এবং ক্রাংসুরিও ঘোরা হয়ে যাবে। তবে খরচ পড়বে অনেক অনেক বেশী এবং সময়ও বেশী লাগবে নিশ্চিত।

ভাল থাকুন, শুভকামনা থাকবে।

৩| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ রাত ১১:১৩

মেহেদী হাসান হাসিব বলেছেন: খরচতো কম, ভালই।

২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ রাত ১২:৪২

বোকা মানুষ বলতে চায় বলেছেন: অবশ্যই ভাল, তো হবে নাকি একটা ট্যুর?

৪| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ রাত ১১:৪৮

সনেট কবি বলেছেন: শেয়ার করার জন্য শুভেচ্ছা।

২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:০৭

বোকা মানুষ বলতে চায় বলেছেন: ধন্যবাদ ভাইয়া।

৫| ২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ রাত ১২:০১

পাঠকের প্রতিক্রিয়া ! বলেছেন: খাতা কলমে হিসেব করা সহজ। বাস্তবতা ভিন্ন। কোন কিছু না কিনলেও আরো খরচ বাড়বে। আমি বলবো টাকা-পয়সা কম থাকলে ৫-১০হাজার দেশে ঘোরাই ভালো।

২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ রাত ১২:১১

বোকা মানুষ বলতে চায় বলেছেন: ঠিকই বলেছেন: খাতা কলমে হিসেব করা সহজ। বাস্তবতা ভিন্ন। কিন্তু সমস্যা হল গত দুইদিন আগে বাসায় ফিরলাম মেঘালয় থেকে। এই টাকাতে আপনি ঘুরে আসতে পারবেব ইচ্ছে করলে। কম খরচে ভারত ভ্রমণ এর মূল লক্ষ্য সবচেয়ে কম কত খরচে বাস্তব সম্মতভাবে ভ্রমণ করা যায়। কোন পয়েন্ট এ আপনার দ্বিমত তা জানালে ব্যাখ্যা দিতে পারতাম। আর হ্যাঁ, কম বা বেশী যে খরচেই ভ্রমণ হোক না কেন, তাতে শপিং এর খরচ নিশ্চয়ই ভ্রমণ খরচে অন্তর্ভুক্ত হবে না।

পাঠ এবং মন্তব্যে কৃতজ্ঞতা জানবেন। ভাল থাকুন সবসময়।

৬| ২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ রাত ১২:২৭

কাওসার চৌধুরী বলেছেন:



চমৎকার ভ্রমণ পোস্ট। আমার বাড়ির পাশেই এই স্থান। বন্ধুদের অনেকেই গেছে। যে একবার গেছে, সে আবারো যায়। মুগ্ধ করার মত সৌন্দর্য্য। আমার যাওয়ার ইচ্ছে আছে।

২৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:৪৪

বোকা মানুষ বলতে চায় বলেছেন: একবার ঘুরে আসুন। হাজার আটেক বাজেট করলে ক্রাংসুরি ফলস, সোনাংপেডেং সহ শিলং, চেরাপুঞ্জি সব ঘুরে আসতে পারবেন।

৭| ২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ দুপুর ২:৪৭

রাজীব নুর বলেছেন: বিশ্বাস করুন আমার এখনই চলে যেতে ইচ্ছা করছে।

২৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১২:৪০

বোকা মানুষ বলতে চায় বলেছেন: ঔষধ একটাই, "দে দৌড়..." :)

৮| ২৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সকাল ১০:২৫

সজল_ বলেছেন: Thanks for sharing :)

২৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ রাত ৯:৩০

বোকা মানুষ বলতে চায় বলেছেন: আপনাকেও ধন্যবাদ সজল_ পাঠ এবং মন্তব্যের জন্য। :)

৯| ২৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৩৪

তারেক ফাহিম বলেছেন: চমৎকার ভ্রমন পোষ্ট।

১৬ ই নভেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:২২

বোকা মানুষ বলতে চায় বলেছেন: ধন্যবাদ তারেক ফাহিম। ভাল থাকুন সবসময়।

১০| ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সকাল ৯:৫৭

ডন ৩৮৬ বলেছেন: আর আপনার সকল টুর এর বর্ননা গুলো খুব সুন্দর. আপনার সকল ভ্রমনের কোন লিংক আছে?
ডারজিলিং এ ৫-৬ দিন টুর Plan with cost দিলে খুসি হব, এই বছর ডিসেম্বর- জানুয়ারির দিক। (Husband + Wife)

১৬ ই নভেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:৪৬

বোকা মানুষ বলতে চায় বলেছেন: ধন্যবাদ ডন। অনেক দেরীতে প্রতিত্তরের জন্য দুঃখিত। আপনার অন্য একটি কমেন্টে প্ল্যান দিয়েছি। আরও কোন তথ্য সহযোগীতা লাগলে জানাবেন।

ভাল থাকুন সবসময়, আসন্ন ভ্রমণ শুভ হোক।

১১| ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:০১

আরজু পনি বলেছেন: দারুণ!
শপিং বাদ দিয়েই ভ্রমনের আসল মজা পাওয়া যায়। যদিও ভিনদেশে ভিন্ন কিছু চোখে পড়লে কিনতে ইচ্ছে করে।

১৭ ই নভেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:১৭

বোকা মানুষ বলতে চায় বলেছেন: ঠিক বলেছেন, শপিং এর চিন্তায় আমি অনেককে ট্যুর নষ্ট করতে দেখেছি।

দেরীতে প্রতিত্তরের জন্য আন্তরিকভাবে দুঃখিত।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.