নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

নিজের সম্পর্কেই জানতে চাই। সমালোচনা করি বলেই তো সমালোচিত!

ইব্‌রাহীম আই কে

লিখতে পারিনা। মাঝে মাঝে একটু চেষ্টা করি। বন্ধুবান্ধব সবার অভিযোগ আমি গল্প লিখতে পারিনা আমার লেখা গুলো প্রবন্ধ টাইপের হয় আর খুব বড় হয় তাই কারোর পড়ার ইচ্ছে হয়না।

ইব্‌রাহীম আই কে › বিস্তারিত পোস্টঃ

অণুগল্পের ভিতর বাহিরঃ কি কেন ও কিভাবে???

১৬ ই নভেম্বর, ২০১৮ রাত ৯:১৪

লেখক সমাজ হিসেবে সচরাচর লেখার সকল ধরণকে নিজেদের পদচারণায় আরো মুগ্ধ করতে চায় সবাই। কিন্তু সকল কিছু চাইলেই তো আর সহজে অর্জন করা যায়না। লেখার কিছু কিছু ধরণের আলাদা কিছু নিয়ম কানুন রয়েছে, যদি সেই সাহিত্যে আপনি সেগুলো সঠিকভাবে মেনে চলতে না পারেন তবে লেখার সেই রকমফেরটাকে যথার্থভাবে উপস্থাপন করা যায়না। এর মধ্যে সাধারণত অণুগল্প ও রম্যরচনা লিখতে কিছু নিয়ম কানুনের মধ্য দিয়ে যেতে হয়। সেগুলো যদি সঠিকভাবে মেনে না চলেন আপনার লেখাটা লেখা হিসেবেই পরে থাকবে কখনো কোন পাঠকের মনকে নাড়া দিতে পারবেনা। অণুগল্প কিভাবে লিখতে? সেগুলো নিয়েই আমার এই সংগ্রহ।

~অণুগল্প কিঃ

১. অল্প পরিসরে অল্প কথায় অনন্য উন্মোচন।
২. অণুগল্পে কোন গল্প থাকতেও পারে কিংবা নাও থাকতে পারে।
৩. অণুগল্পে চমক থাকতে হবে।
৪. অনুভূতি ও ভাব-ভাবনার চমকপ্রদ উপস্থাপনে সময় বা ঘটনার অংশবিশেষের প্রতীকি কথাচিত্র।
৫. একটা বড় গল্প-ভাবনাকে চুম্বকে পরিণত করতে হবে। খুব ছোট আয়তনে ছোট গল্পের সব মাধুর্য এতে থাকবে।
৬. শুরু ও শেষের আকস্মিকতা, বিশেষ চরিত্রের ওপর আলোকপাত করা, স্বল্প চরিত্র, ঘটনার বাহুল্য না থাকা, তত্ত্ব-উপদেশ একেবারেই নয়, কাহিনি একমুখী, অন্তরে অতৃপ্তিবোধ এবং চূড়ান্ত ব্যঞ্জনা।
৭. কাব্যময়তাও এর একটি বিশেষ লক্ষণ।
৮. মুহূর্তের একটা ঘটনাকে সাবলীল আর উজ্জ্বলভাবে উপস্থাপন।
৯. অল্প পরিসরে বিশালতাকে আবৃত করাই অণুগল্প।
১০. একশো দেড়শো শব্দের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখতে হবে।
১১. জীবনের খণ্ডছবি উঠে আসে।
১২ বর্ণনার বাহুল্য নেই।
১৩. কিছু না-বলা কথা উহ্য রেখে এক দারুণ রহস্য তৈরি করা।
১৪ পাঠ করার পর নিজের মত করে অর্থ খুঁজে নেবে পাঠক।
১৫. খুব অল্প ও প্রয়োজনীয় শব্দে এবং যথার্থ বাক্য বিন্যাসে।
লেখক দ্রুত ঢুকে যাবেন গল্পে।
১৬. অণুগল্প পাঠকের অভ্যন্তরীণ ক্রিয়াকলাপে দ্রুত প্রভাব ফেলে।
১৭. অণুগল্প সবটুকু বলে না, বেশিরভাগই থেকে যায় পাঠকদের জন্য। (পাঠক নিজে বুঝে নেওয়ার জন্য।)
১৮. কাহিনির ইঙ্গিতময়তা থাকে।
১৯. অণুগল্পের প্রচণ্ড সংযম থাকে।
২০. আকস্মিক পরিণতি থাকে।
২১ ছোটগল্পের নবজাতক শিশু।
২২. অণুগল্প ছোটগল্পের নবজাতক নয়, মা।

~নানারকম উদাহরণের মাধ্যমেও অণুগল্পকে ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করা হয়েছে। যেমন—

১. আমার কাছে অণুগল্প হচ্ছে অনুভূতির পুকুরে ঢিল ছোঁড়ার মত। পুকুরে ঢিল ছোঁড়ার সাথে সাথে প্রথম যে ছোট্ট বৃত্তটি তৈরি হয় তা হলো—অণুগল্প। তারপর বৃত্তের বাইরে একের পর এক বড় বৃত্ত তৈরি হয়। যা পাঠকের মন অণুগল্পের ভেতরের গল্পগুলো নিয়ে নিজের মধ্যে ভাবনার বড় বড় বৃত্ত সৃষ্টি করে
২. অণুগল্প হতে হবে ওই Rabbit Hole-এর মত, যার ভেতর পাঠক Alice-এর মত হারিয়ে যেতে পারে চাইলে। Magnetism থাকতে হবে, গল্প না থাকলেও চলে।
৩. অণুগল্পকে অনেক সময় ক্যামেরার ফ্ল্যাস লাইটের সাথেও তুলনা করা যায় । তারপর ক্যামেরার বুকে লুকিয়ে থাকে সেই ছবি ।
৪. অণুগল্প হলো ধ্যানীর ধ্যেয় অতিবিন্দু স্বরূপ। ওই অতিবিন্দু-রূপ অণুগল্পকে ওই বিরাটাকার পূর্ণব্রহ্মরূপ দর্শন দর্শাতে পারেন আর এই পূর্ণব্রহ্মরূপ অণুগল্পই হলো একটি সার্থক না-বলা শিল্প।
৫. অণুগল্প হচ্ছে রংতুলি দিয়ে ছোট্ট ক্যানভাসে প্রাকৃতিক বা অপ্রাকৃতিক দৃশ্যকে সুষম বিন্যাসে ফুটিয়ে তোলা, যা আকর্ষক এবং ভাবগম্ভীর হবে …যার মধ্যে পূর্ণতা থাকবে, কিন্তু সেই পূর্ণতা ধোঁয়াশায় মোড়নো ।

~নোটঃ লেখার মূল অংশ সম্পূর্ণ সংগৃহীত। বিচ্ছিন্ন যায়গা থেকে সংগ্রহ করার জন্য লেখকের নাম জানা হয়নি। লেখাটি মূলত আমার নিজের জন্যই সংগ্রহ করা, সাথে সাথে চাইলাম সহ ব্লগারদের সাথেও শেয়ার করলে ভালো হয়, অনেকেই হয়ত এগুলোর ব্যপারে নাও জেনে থাকতে পারেন (শুধু তাদের জন্যই।) আপনারা যদি আরো বিস্তারিত কিছু জেনে থাকেন কিভাবে অণুগল্প লিখতে হয় বা এই লেখনীর ব্যপারে আপনাদের কাছে কোন সাজেশন থাকে তাহলে জানিয়ে ধন্য করবেন।

মন্তব্য ১৪ টি রেটিং +৪/-০

মন্তব্য (১৪) মন্তব্য লিখুন

১| ১৬ ই নভেম্বর, ২০১৮ রাত ৯:২৫

ব্লগার_প্রান্ত বলেছেন: আমি যখন লিখি, মন খুলে লিখি, আইন কানুন মানি না। পরে যা হওয়ার সেটা হয়ে যায়, B-)

১৬ ই নভেম্বর, ২০১৮ রাত ৯:৩০

ইব্‌রাহীম আই কে বলেছেন: আমার বিষয়টাও এখন এমন চলতেছে। যখন যা মনে আসে তাই লিখে ফেলি। আইন-কানুনের দিকে তাকাইলেই কলম বন্ধ হইয়া যায়, সামনে আগাতে চায়না :|

২| ১৬ ই নভেম্বর, ২০১৮ রাত ৯:৪৭

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: অণুগল্প এর ধারণা পেলাম।

পোস্ট এর জন্য ধন্যবাদ :)

১৬ ই নভেম্বর, ২০১৮ রাত ৯:৫০

ইব্‌রাহীম আই কে বলেছেন: পাঠ ও মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ।

৩| ১৭ ই নভেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১:০৫

রাজীব নুর বলেছেন: সামুতে ইদানিং অনুগল্প লেখার হিড়িক পড়েছে।

১৭ ই নভেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১:৩৫

ইব্‌রাহীম আই কে বলেছেন: কিন্তু যথার্থ অণুগল্প লিখতে না পারার কারণে অণুগল্প এর রেশটা কেমন যেন মিলিয়ে যাচ্ছে। যে যেভাবে পারে একটা গল্প দাঁড় করিয়ে দিয়েই হ্যাশট্যাগ দিয়ে দেয় "অণুগল্প" লিখেছে।

তাই ক্ষুদ্র এই প্রয়াস।

ধন্যবাদ আপনাকে।

৪| ১৮ ই নভেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১২:০৮

আহমেদ জী এস বলেছেন: ইব্‌রাহীম আই কে ,




সংগ্রহগুলো শেয়ার করার এই প্রয়াসটিকে ধন্যবাদ জানাতেই হয় ।

আসলে অনুগল্প হলো, অনুভূতি ও ভাব-ভাবনার চমকপ্রদ উপস্থাপনে সময় বা ঘটনার অংশবিশেষের প্রতীকি কথাচিত্র।
যেখানে কাব্যময়তার সাথে অল্প পরিসরে বিশালতাকে আবৃত করে রাখতে হয় ।

২৩ শে নভেম্বর, ২০১৮ সকাল ১০:৪৬

ইব্‌রাহীম আই কে বলেছেন: আসলে অনুগল্প হলো, অনুভূতি ও ভাব-ভাবনার চমকপ্রদ উপস্থাপনে সময় বা ঘটনার অংশবিশেষের প্রতীকি কথাচিত্র।
যেখানে কাব্যময়তার সাথে অল্প পরিসরে বিশালতাকে আবৃত করে রাখতে হয় ।


এতো অল্প কোথায় এতো অন্তর্নিহিত অর্থ আছে যে, এইটা ভালোভাবে বুঝতে পারলে অণুগল্পের সব কিছুই জানা হয়ে যাবে।

অসংখ্য ধন্যবাদ, এমন চমকপ্রদ মন্তব্যের জন্য।

৫| ১৮ ই নভেম্বর, ২০১৮ রাত ৮:০৬

মাহমুদুর রহমান সুজন বলেছেন: আপনার মনের উদারতার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। নিজের জন্য সংগ্রহ করে নিজের করে রেখে দেননি। সবার তরে এই চিন্তাই একজন ভাল মানুষের চিন্তা। ভাল থাকুন নিরন্তন।

২৩ শে নভেম্বর, ২০১৮ সকাল ১০:৪৮

ইব্‌রাহীম আই কে বলেছেন: মন্তব্যে অনুপ্রাণিত হলাম।

আল্লাহ আমাদের সবাইকেই ভালো রাখুক।

ধন্যবাদ, মাহমুদুর রহমান সুজন।

৬| ১৮ ই নভেম্বর, ২০১৮ রাত ১১:১১

আখেনাটেন বলেছেন: চমৎকার। অনুগল্প নিয়ে অনেক কিছু জানা গেল।

২৩ শে নভেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:০১

ইব্‌রাহীম আই কে বলেছেন: ধন্যবাদ, আখেনাটেন।

৭| ২১ শে নভেম্বর, ২০১৮ সকাল ৮:৩৮

তারেক সিফাত বলেছেন: ভালো লেগেছে লিখাটা।

অণুগল্প নিয়ে জানা হল বেশ। পোস্টে + এবং প্রিয়তে ।

২৩ শে নভেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:০৫

ইব্‌রাহীম আই কে বলেছেন: আমার কোন লেখা এই প্রথম কারোর প্রিয়তে।

অসংখ্য ধন্যবাদ, তারেক সিফাত।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.