নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

কলাবাগান১

বাংলাদেশ হোক রাজাকার মুক্ত

কলাবাগান১ › বিস্তারিত পোস্টঃ

গনস্বাস্হ্য এর করোনা কিট (৩)

২৮ শে এপ্রিল, ২০২০ রাত ৯:২৫

সরকার এর উচিত গনস্বাস্হ্য কে সাথে নিয়েই এই কিট কে পরীক্ষা করা....এই কিট যদি উনাদের ক্লেইম অনুসারে রক্তে ভাইরাস এর এন্টিজেন (লাইভ ভাইরাস এর ই শরীরের একটু অংশ) ৫ মিনিটে ডিটেক্ট করতে পারে তাহলে সারা বিশ্বে এই কিট নিয়ে কাড়াকাড়ি লেগে যাবে..তখন সরকার তার এই অদুরদর্শীতার জন্য নিজের আংগুল কামড়ানো ছাড়া কিছুই করার থাকবে না। যদিও এখন বিশ্বের গোল্ড স্ট্যান্ডার্ডহল আরটিপিসিআর দিয়ে নাকের ভিতর থেকে নেওয়া স্যাম্পল থেকে ভাইরাস কে সরাসরি ডিটেক্শন করা কিন্তু স্যাম্পল প্রসেসিং, ডিটেক্টশান করতে করতে ৮-১০ ঘন্টা লেগে যায় এবং ব্যয়বহুল আর তার সাথেতো স্পেসিফিক যন্ত্রপাতিই লাগে তাই সব ল্যাবেই এটা করা যায় না।

....আর গনস্বাস্হ্য এর মতে যদি সিম্পল রক্ত থেকেই এই ভাইরাস এর এন্টিজেন ডিটেক্ট করা যায় ৫ মিনিটে, তাহলে এটা তো সারা বিশ্বই ব্যবহার করবে...পিসিআর এর মত এতব্যয়বহুল পদ্ধতি বিশ্ব কেন ইউজ করবে..।

কিন্তু আমার একটু সন্দেহ আছে রক্তে ভাইরাস এর উপস্হিতি নিয়ে ....খুব কমই রোগীর ক্ষেত্রেই রক্তে লাইভ ভাইরাস পাওয়া গেছে চায়নাতে..।এই হার ছিল ১০-৩০% রোগীর মাঝে.... ভাইরাস টা শ্বাসযন্ত্রে ই এটাক করে....।

তারপর ও সরকার (অথবা ৩য় কোন পক্ষ) এর উচিত মিনিমাম ১০০-২০০ রোগীর উপর টেস্ট করে পিসিআর রেজাল্ট এর সাথে তুলনা করা...যদি ভাল রেজাল্ট দেয় তাহলে তো বাংলাদেশের ই নাম হবে....


গনস্বাস্হ্য ও তাদের ডাটাকে কোন সাইন্টেফিক জার্নালে প্রকাশ করা উচিত যাতে সারা বিশ্ব জানতে পারে....পাবলিকেশন ছাড়া মুখের কথায় কেউ বিশ্বাস করবে না

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে পস্তাতে হবে যদি এই কিট এর এন্টিজেন ডিটেকশান এবিলিটি ৫ মিনিটে হয় যেখানে ৮-১০ ঘন্টা (উইথ লটস অফ মানি) লাগে ভাইরাস ডিটেক্ট করতে বর্তমান পিসিআর পদ্ধতিতে...যদিও আমি সন্দিহান এই বিশাল ক্লেইম এ...
পুরা বিশ্ব হুমড়ি খেয়ে পড়বে যদি আসলেই নির্ভুল ভাবে ১০০% ডিটেক্ট করতে পারে ৫ মিনিটে কিন্তু বিজ্ঞান তো এই ক্লেইম কে সাপোর্ট করে না...

প্লিজ গনস্বাস্হ্য - if you are confident with your extraordinary claim, publish its invention in a world class scientific journal for the whole world to see.

মন্তব্য ১৭ টি রেটিং +৩/-০

মন্তব্য (১৭) মন্তব্য লিখুন

১| ২৮ শে এপ্রিল, ২০২০ রাত ৯:৫৬

কাগজের হেলমেট বলেছেন: অনলি ১৫ জন এর ডাটা দিয়ে জার্নাল হয় নারে ভাই। মাত্র ১৫ টি করোনা স্যাম্পল'এর উপর ভিত্তি করে এন্টিজেন টেস্টের ৬৮% সেন্সিটিভি এবং এন্টিবডি টেস্টের ৯৩% সেন্সিটিভিটি ও ৯৭% স্পেসিফিসিটি দাবী করাটি স্ট্যাটিস্টিকালি সিগনিফিকেন্ট কিনা!? উত্তর হচ্ছে - না।

২৯ শে এপ্রিল, ২০২০ রাত ১২:৪৩

কলাবাগান১ বলেছেন: সরকার এর উচিত অন্তত এই ডাটাগুলি কেও ভেরিফাই করা

২| ২৮ শে এপ্রিল, ২০২০ রাত ১১:০৭

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
কোভিড ১৯, এক অনু পরিমান আরএনে ভাইরাস
বেচে থাকে শুধু মানব দেহে। মানে এর আবাসস্থল ও বংশবৃদ্ধি ফুসফুস ও স্বাসতন্ত্রে।
রক্তে এই ভাইরাসটির উপস্থিতি খুব বিরল ঘটনা, ১ -১০% এর মত, তাও রোগীর অন্তিম দশাকালে, তখন টেষ্ট করলেই কি .. আর না করলেই কি।
তবে ভাল মন্দ যাই হোক আমার মতে সরকারের স্বাস্থবিভাগ গনস্বাস্হ্য কে নিয়ে এই কিট কে পরীক্ষা করা উচিত

২৯ শে এপ্রিল, ২০২০ রাত ১২:৪৫

কলাবাগান১ বলেছেন: কিন্তু উনারা তো দাবী করছেন এন্টিজেন টেস্টের ৬৮% সেন্সিটিভি.।তাহলে সরকার কেন এটা ভেরিফাই করছে না....।আমেরিকা গ্লোবাল সার্চ আরম্ভ করেছে এন্টিজেন কিটের জন্য

৩| ২৮ শে এপ্রিল, ২০২০ রাত ১১:১৯

নতুন বলেছেন: যদি কেউ সাহাজ্য করতে চায় সরকারের উচিত তাকে সাহাজ্য করা এবং প্রশ্ন করে, পরিক্ষা করে তাকে সফল হতে সাহাজ্য করা।

সরকার এবং গনস্বস্হকেন্দ্র কেউ কারুর প্রতিপক্ষ না।

২৯ শে এপ্রিল, ২০২০ রাত ১২:৪৬

কলাবাগান১ বলেছেন: কথা সেটাই "সরকার এবং গনস্বস্হকেন্দ্র কেউ কারুর প্রতিপক্ষ না।"

৪| ২৯ শে এপ্রিল, ২০২০ রাত ১:৩৯

রাজীব নুর বলেছেন: আমি কিচ্ছু বুঝি না। আমি কিচ্ছু জানি না।

২৯ শে এপ্রিল, ২০২০ রাত ৩:১২

কলাবাগান১ বলেছেন: হুম

৫| ২৯ শে এপ্রিল, ২০২০ সকাল ৯:৪৬

খাঁজা বাবা বলেছেন: প্রথম কথা, বর্তমান প্রচলিত পদ্ধতি ১০০% নির্ভুল রিপোর্ট দিতে পারে না। সাক্সেস রেট ৯০%।
আমাদের বর্তমান পরিস্থিতিতে দরকার প্রচুর টেষ্ট, কিন্তু হচ্ছে না, এন্টিজেন পদ্ধতির সাক্সেজ রেট যদি ৭০% ও হয় তবে সীমিত সময়ের জন্য নিতে অসুবিধা কোথায়? এতে অন্তত, গ্রামে গঞ্জের মানুষ প্রচুর টেষ্ট করতে পারবে। যে কেস গুলি এখন আমরা টেষ্ট করি না, সকল সিম্পটম না থাকার কারনে, সে কেসগুলিও পরীক্ষা করা যাবে।


আমাদের কর্মকর্তারা WHO এর এক্সাম্পল দেন, সারা পৃথিবীতে কি WHO সার্টিফিকেট দেয়ার আগে কিছু হয় না?

২৯ শে এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১০:০৩

কলাবাগান১ বলেছেন: মাথা মোটা আমলা রা এসব বুঝে না..।রাজনীতি বুঝে

তবে এন্টিজেন পদ্ধতির সাক্সেজ রেট যদি ৭০% হত যদি এই ভাইরাস কে সহজেই রক্তে পাওয়া যেত....২০-৩০% রোগীর রক্তে এই বহাইরাস দেখা গেছে তাও অনেক শেষ সময়ে....

৬| ২৯ শে এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১০:২০

স্বামী বিশুদ্ধানন্দ বলেছেন: আমি ব্যক্তিগতভাবে লম্পট ও চরম দুর্নীতিবাজ স্বৈরাচারী এরশাদকে চরম অপছন্দ করলেও এটা স্বীকার করতে বিন্দুমাত্র দ্বিধা নেই যে বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ ছিল এরশাদ সরকারের আমলের 'জাতীয় ঔষধ নীতি" |এই নীতি প্রণয়নের স্থপতি ছিলেন ডাঃ জাফরুল্লাহ | এই দেশের জন্য তার অবদান কম নয় | এই দুর্যোগকালীন সময়ে তিনি কার বা কোন দলের লেজুড়বৃত্তি করলেন তা নিয়ে মাথা না ঘামিয়ে তার এই টেস্ট কিটটি দেশের জনগণের জন্য কতটুকু কার্যকর বা উপযোগী মাথামোটা প্রশাসন ও অদূরদর্শী রাজনৈতিক নেতৃত্বের তা নিয়ে মাথা ঘামানো উচিত

২৯ শে এপ্রিল, ২০২০ রাত ৮:৫৪

কলাবাগান১ বলেছেন: সমস্যা মিটে গেছে বলেই মনে হচ্ছে..

৭| ২৯ শে এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১২:৩২

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
আপডেট: ২৯ এপ্রিল ২০২০, ১১:৪১

করোনাভাইরাস শনাক্তকরণ কিট–সম্পর্কিত প্রয়োজনীয় তথ্য বাংলাদেশ মেডিকেল রিসার্চ সেন্টারে (বিএমআরসি) জমা দিয়েছে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র। কিটের সক্ষমতা কতটা, সে বিষয়ে পরীক্ষার জন্য বিএমআরসি ব্যবস্থা নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে বলে জানিয়েছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

অন্যদিকে, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের কিটের সক্ষমতা পরীক্ষার জন্য ৮০০ কিট চেয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণবিষয়ক সংস্থা সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি)
জাফরুল্লাহ চৌধুরী জানান, সিডিসি লিখিতভাবে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের কিটের সক্ষমতা পরীক্ষা করতে চেয়েছে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে সিডিসিকে কিট দেওয়া হবে। ভিন্ন কাজে সিডিসির একটি ইউনিট আগে থেকেই ঢাকা আইসিডিডিআরবিতে অবস্থান করত।
জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন এই কিটের সক্ষমতা আইসিডিডিআরবির মাধ্যমে মূল্যায়ন করলে আপত্তি নেই। আইসিডিডিআরবি বা অন্য কোথাও কিটের পারফরম্যান্স মূল্যায়ন করাতে যে খরচ লাগবে, তা সুচিন্তা ফাউন্ডেশন বহন করবে।
view this link

২৯ শে এপ্রিল, ২০২০ রাত ৮:৫৫

কলাবাগান১ বলেছেন: এত জল ঘোলা করার দরকার ছিল না....সিডিসি যদি আগ্রহ দেখায় সেখানে বাংলাদেশ কেন দেখাবে না????

৮| ০১ লা মে, ২০২০ সকাল ৮:৫১

কলাবাগান১ বলেছেন: অনেকেই গনস্বাস্হ্যবনাম সরকার এর দ্বন্ধ থেকে ফায়দা লোটার চেস্টা করছেন বিশেষ করে জামাতি-বিএনপি এর লোকজন...কিন্তু একটা জিনিষ উনাদের বুঝা উচিত...আবিস্কারক বিজ্ঞানী ড: বিজন শীল এবং ডা: জাফরউল্লাহ সাহেব কিন্তু শেখ হাসিনার বিরূদ্ধে কিছু বলছেন না....

৯| ১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:০৫

নুরুলইসলা০৬০৪ বলেছেন: বিজ্ঞানের সাথে রাতনীতিকে না জড়ানোই ভাল।

২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ৮:১৩

কলাবাগান১ বলেছেন: কিন্তু জড়ানোই তো হল... সরকার এর উচিত ড: বিজন শীলকে সরকার এর বিজ্ঞান মন্ত্রনালয় অথবা বায়োটেকনজি ইনস্টিটউট এর ডিরেক্টর হিসাবে নিয়োগ দেওয়া

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.