নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

প্রবাস থেকে লিখছি. .....

রফিকুজজামান লিটন

আমি একজন প্রকৌশলী।একটা মোবাইল কোম্পানিতে কামলা দিই ।নিজের সুখ দুঃখ শেয়ার করতে চাই সবার সাথে। স্বপ্ন দেখি একটা সুন্দর বাংলাদেশের।

রফিকুজজামান লিটন › বিস্তারিত পোস্টঃ

হুমায়ুন আজাদ একজন কপিবাজ ---ডঃ সলিমুল্লাহ

২৬ শে জুলাই, ২০২১ দুপুর ২:১৬

হুমায়ুন আজাদ সব বই কপি করে লিখেছেন, তাকে আপনারা হিরো বানিয়েছেন। --ডঃ সলিমুল্লাহ
ডঃ সলিমুল্লাহ স্যার একজন অধ্যাপক কিন্তু তার বক্তব্য শুনে মনে হয়েছে তিনি খুব ঈর্ষাকাতর অথবা নিচু মন মানসিকতার একজন মানুষ। অমর্ত্য সেন থেকে শুরু করে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম কে নিয়েও তিনি নেগেটিভলি সমালোচনা করছেন।

কিছুদিন আগে বললেন অমর্ত্য সেন নোবেল পুরস্কার পান নাই (এটা সবাই জানে ডক্টর নোবেল বেঁচে থাকতে অর্থনীতিতে নোবেল পুরস্কার ঘোষণা করে যান নাই কিন্তু পরে নোবেল একাডেমি থেকে অর্থনীতিতে নোবেল পুরস্কার দেয়া হয় যেখানে নোবেলের ছবি যুক্ত থাকে এবং বিশ্বে এটাই অর্থনীতির নোবেল পুরষ্কার হিসেবে ধরা হয়, এটা ক্লাস টেনের বাচ্চাও জানে কিন্তু তিনি এটা নিয়ে দৃষ্টিকটু ভাবে তর্ক করেছেন।

সত্যি বলতে তার হুমায়ুন আজাদ স্যারের নখের সমান যোগ্যতাও নাই। তার কাজ আহমদ ছফাকে তুলে ধরা এবং রাশিয়ার লেলিনবাদ নিয়ে একটু জ্ঞানগর্ভ আলোচনা করা। এছাড়া তার কাছ থেকে ভালো কোন কিছু আমি পাইনি। হুমায়ুন আজাদ স্যার একজন কবি, প্রাবন্ধিক, সমালোচক, রাজনৈতিক ভাষ্যকার, উপন্যাসিক,গল্পকার,ভাষাবিজ্ঞানী,বিজ্ঞানমনষ্ক সাহিত্য অধ্যাপক। হুমায়ুন আজাদ লেখা চুরি করেছেন কোনো প্রমাণ উনি দিতে পারবেন না তবে উনি প্রভাবিত ছিলেন।অনেক সাহিত্যিক রাই অন্যদের ফলো করে থাকেন।সেক্সপিয়ার হেমলেট রচনা করেছিলেন মার্লোর স্প্যানিশ ট্র‍্যাজিডির অনুকরনে। মধুসূদন মেঘনাদবদ রামায়ণের আদলেই লিখা। হুমায়ুন আজাদ স্যারের ধর্মীয় কিছু বিতর্কিত লেখা ছাড়া তার মতো শক্তিশালী লেখক বাংলাদেশে কমই আছে।

ডঃ সলিমুল্লাহ স্যার সুকৌশলে এগুলো করেন যাতে তিনি আলোচনায় থাকতে পারেন এবং ধর্মান্ধ গোষ্ঠীর একটা সাপোর্ট পেতে পারেন।

মন্তব্য ২৮ টি রেটিং +১/-০

মন্তব্য (২৮) মন্তব্য লিখুন

১| ২৬ শে জুলাই, ২০২১ দুপুর ২:৩৯

সাসুম বলেছেন: সলিমুল্লাও বুদ্ধিজীবি, আরিফ আজাদ ও লেখক।

আজকাল বাংগু ল্যান্ড একজন ইস্লামিস্ট বুদ্ধিজীবি এর অভাবে ভুগছিল। পিনাকি দিয়ে কিছুটা পোষাচ্ছিল তবে আগা কাটা না হওয়াতে বেশ সমস্যায় ছিল বাংগু ল্যান্ড এর মোসলমান রা,

ছলু মুল্যা খান সে যায়গা নিয়েছে/ আগা কাটা, আম্লীগ এর বিরোধীতা করেন, জামাত শিবিরের তাবেদারী করে, মোসলমান আর মাদ্রাসা নিয়ে ভাল বক্তব্য দেয়, ইউনিভার্সিটির চেয়ে মাদ্রাসার শিক্ষক রা ভাল সহবত করেন রাতে এই মর্মে ঘোষনা দেন, এবং সর্বোপরি শেষ বয়সে এসে ধর্মের পথে ফিরে এসে জান্নাতি কথা বাত্রা বলে বেড়ান।

সো সলু মুল্যা খান ই আসল পুরুষ।

২৬ শে জুলাই, ২০২১ বিকাল ৪:৪৫

রফিকুজজামান লিটন বলেছেন: তার ইতিহাস বিষয়ক কথাবার্তা বেশ ভালো লাগতো কিন্তু ইদানিং তিনি সমালোচনায় থাকতে পছন্দ করছেন। বয়সের জন্যও এমনটি হতে পারে।

২| ২৬ শে জুলাই, ২০২১ বিকাল ৩:৫১

আনোয়ার রেজা বলেছেন: এসব বাদ দিয়ে ভালো কিছু লিখেন।

২৬ শে জুলাই, ২০২১ বিকাল ৪:৪৮

রফিকুজজামান লিটন বলেছেন: ভালোর সংজ্ঞা একেক জনের কাছে একেক রকম। তাই অন্যের কাছ থেকে নিজের ভালো লাগা লেখা আশা না করে নিজেই লিখতে শুরু করেন।

৩| ২৬ শে জুলাই, ২০২১ বিকাল ৪:৩৯

চাঁদগাজী বলেছেন:



ড: সলিমুল্লাহ কি শিক্ষকতা করে? তাকে ঝাড়ুপেটা করে ওখান থেকে দুর করার দরকার।

২৬ শে জুলাই, ২০২১ সন্ধ্যা ৭:৪১

রফিকুজজামান লিটন বলেছেন: একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করছেন।

৪| ২৬ শে জুলাই, ২০২১ রাত ১০:১৬

কামাল১৮ বলেছেন: উনি ঢাকা বিশ্ববিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদিতে চেয়েছিলেন কিন্তু কোন এক কারনে পারেন নাই।এই কারনে কিছু শিক্ষকের উপর উনার রাগ আছে।

২৭ শে জুলাই, ২০২১ রাত ১২:২৬

রফিকুজজামান লিটন বলেছেন: তিনি ঢাকা ইউনিভার্সিটির সাবেক আইবিএ শিক্ষক এটা বেচেই খাইতেছে।
ছা*রা ইদানিং তাকে লিভিং লিজেন্ড হিসেবে বলতেছে।

৫| ২৭ শে জুলাই, ২০২১ রাত ২:২৬

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: ড হুমায়ূন আজাদ স্যার প্রতিভাবান আধুনিক সাহিত্যিক । তাকে হেয় করতে যাওয়া মানে নিজেকে হেয় করা।

২৭ শে জুলাই, ২০২১ রাত ৩:০৫

রফিকুজজামান লিটন বলেছেন: একমত। কিছু মানুষ আছে উল্টা-পাল্টা কথা বলে আলোচনায় থাকতে চান ডঃ সলিমুল্লাহ এমনই একজন।

৬| ২৭ শে জুলাই, ২০২১ রাত ২:৫৮

সোহানী বলেছেন: ড: সলিমুল্লাহ? ভাই কম জানি। উইকি থেইকা মাত্রই কিছু জানলাম।

কে কি বললো তাতে ড: হুমায়ূন আজাদ, অমর্ত সেন বা রবীন্দ্রনাথের কিছু যায় আসে না। বরং শিক্ষিতদের কাছে হাসির পাত্র হবে আর অশিক্ষিত/আধাশিক্ষিতদের কাছে হিরো হবে।

২৭ শে জুলাই, ২০২১ রাত ৩:০৮

রফিকুজজামান লিটন বলেছেন: ইউটিউবে দেখেন তার প্রচুর ভিডিও পাবেন। বাকপটু, গুছিয়ে খুব সুন্দর মিথ্যা বলতে পারেন।

৭| ২৭ শে জুলাই, ২০২১ ভোর ৬:৪১

সাসুম বলেছেন: ডঃ সলু খান এর একটা স্পেশাল জিনিষ হল- এন্টি আওয়ামী লীগ, এন্টি এস্টাব্লিশ্মেন্ট থিউরি আর মাস পিপল এর অন্ধ মৌলবাদ কে উস্কে দিতে পারার কারনে- উনি এখন পিনাপাকি এর পর দেশের একটা বিশাল অংশের কাছে পয়গাম্বার হয়ে বসে আছেন।

অথচ- আজ থেকে ২ বছর আগেও উনাকে কেউ চিনত না এই রামগাধা গুলো। রাজ্জাক স্যার এর ছাত্রদের মধ্যে উনি ই মনে হয় শেষ বয়সে এসে জান্নাতের পথে আসলেন। বাকি সবগুলা পিউর জাহান্নামী।

যাই হোক- মানুষ কে তার কাজ দিয়ে বিবেচনা করা উচিত।

উনি একজন বুদ্ধিজীবি। উনার বুদ্ধির নমুনা মাদ্রাসা আর ইউনিভার্সিটির তুলনা থেকে পাওয়া যায়। তবে উনি পালে কোন দিকে হাওয়া দিতে হবে সেটা বুঝেছেন শেষ বয়সে এসে। জনপ্রিয়তা ও পাওয়া যাবে আবার জান্নাত টাও কনফার্ম হবে।

উনি কিন্তু মিথ্যে বলেন খুব কম, তবে সত্যকে টুইস্ট করে খুব সুন্দর সিউডো ট্রুথ তৈরি করেন। যেমন- ইকোনমিক্সে নোবেল প্রাইজ নোবেল না, কিংবা নজরুল জাতীয় কবি না। মানে- বিতর্কিত কিন্তু এস্টাব্লিস্ট জিনিষ গুলাকে খুচিয়ে লালসালুর দল্কে উস্কে দিতে উনার জুরি নেই। কাঠাল্পাতা খোর দের কাছে এই কারনে উনার ডিমান্ড খুব হাই।

আমি মোটেও অবাক হবনা, এই লোক কয়দিন পর যদি বলে বসে ৭১ এ দেশ স্বাধীন হয়নাই, দেশ স্বাধীন হয়েছে ৭৫ এ।

এরা লালসালুর জ্ঞানী ভার্সান। এরা পিনাপাকির মজিদ ভার্সান।

২৭ শে জুলাই, ২০২১ বিকাল ৩:১৩

রফিকুজজামান লিটন বলেছেন: এরা লালসালুর জ্ঞানী ভার্সান। এরা পিনাপাকির মজিদ ভার্সান। -- ঝাজা কমেন্ট

৮| ২৭ শে জুলাই, ২০২১ সকাল ৯:৫৬

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আলোচনাগুলো জমে উঠছিল। শালীন ভাষার আলোচনা মনে স্বস্তি দেয়, কিছু শেখাও যায়।

হুমায়ুন আজাদ একবার ইউরোপ ঘুরে এসে বললেন, রবীন্রনাথ মৌলিক লেখক ছিলেন না। হুমায়ুন আজাদের মধ্যেও ছিল অন্য লেখকদের হেয় করার ঘৃণ্য প্রবণতা, এবং জানা মতে, হুমায়ূন আহমেদের উপর তার ঈর্ষা ছিল চরমে। হুমায়ুন আজাদ তার প্রবচনগুচ্ছে বাঙালি জাতিকে খুব নীচুভাবে উপস্থাপন করেছেন, অথচ তিনি নিজেই একজন বাঙালি। হুমায়ুন আজাদের বাঙলা ভাষা সম্পর্কিত একটা বিখ্যাত বই পশ্চিম বঙ্গের এক লেখকের হুবহু নকল বলে একবার অভিযোগ উঠেছিল। ওটার ব্যাপারে পরে কোনো সুরাহা হয়েছিল কিনা, বা তার সত্যতা কতখানি তা জানি না।

দোষগুণ নিয়েই মানুষ, এবং মানুষেরাই সাহিত্য রচনা করেন। হুমায়ন আজাদ যেমন মেধাবী ছিলেন, তেমনি ছিলেন খুব অহঙ্কারী, উদ্ধত, কাউকে গোনায় না ধরার মানসিকতাসম্পন্ন। বইমেলায় একই স্টলে দেখেছি, একদিকে দাঁড়িয়ে হুমায়ুন আজাদ হাই তুলছেন, অন্যদিকে হুমায়ূন আহমেদ অটোগ্রাফ দিতে দিতে টায়ার্ড। একজন ঈর্ষাকাতর লেখক কখনো এগুলো সহ্য করতে পারেন না।

বাংলা ভাষায় হুমায়ুন আজাদের অবদান অনস্বীকার্য। তিনি নকল করে কিছু আমদানি করে থাকলে ইতিহাসে সেগুলো তার নামে কলঙ্ক লেপন করবে।

ড: সলিমুল্লাহর কোনো লেখালেখি আজও পড়ার সৌভাগ্য হয় নাই। তবে, ফেইসবুকে তাকে নিয়ে অনেক সমালোচনা হতে দেখি। যারা সমালোচনায় থাকেন, তাদের আর কিছু না থাক, সমালোচিত হবার মতো গুণ তাদের আছে।

২৭ শে জুলাই, ২০২১ বিকাল ৩:১৫

রফিকুজজামান লিটন বলেছেন: অজ্ঞ বালক বলেছেন: আমারে স্যার ডাকবার যুক্তিগুলা টু দ্য পয়েন্ট। সোনাবীজের কথার উত্তরে বলা যায় এই ব্যাটা একটু বেশিই জিনিয়াস ছিলো, আর জিনিয়াসগোর অন্যদের গোণার টাইম থাকে না। সেই সাথে এইটাও বইলা যাই, আমি বাংলাদেশী, তাই বইলা বাংলাদেশীদের দোষ আঙ্গুল দিয়া দেখান যাইবো না এমন কোনো কথা নাই। প্রবচনগুচ্ছ তার লেখা সেরা কাজের একটা। আর সে মোটেও কপিবাজ না, তার কয়েকটা বই প্রভাবযুক্ত। এইটাই বলা যাইতে পারে। বাংলা সাহিত্য আর ভাষা নিয়া কাজ করা লোকদের মধ্যে সে সেরা তিনে থাকবে। সেই সাথে একজন প্রাবন্ধিক, বুদ্ধিজীবি ও সাহিত্য সমালোচক হিসেবেও সে অগ্রগণ্য।

৯| ২৭ শে জুলাই, ২০২১ সকাল ১১:২৬

অজ্ঞ বালক বলেছেন: আমারে স্যার ডাকবার যুক্তিগুলা টু দ্য পয়েন্ট। সোনাবীজের কথার উত্তরে বলা যায় এই ব্যাটা একটু বেশিই জিনিয়াস ছিলো, আর জিনিয়াসগোর অন্যদের গোণার টাইম থাকে না। সেই সাথে এইটাও বইলা যাই, আমি বাংলাদেশী, তাই বইলা বাংলাদেশীদের দোষ আঙ্গুল দিয়া দেখান যাইবো না এমন কোনো কথা নাই। প্রবচনগুচ্ছ তার লেখা সেরা কাজের একটা। আর সে মোটেও কপিবাজ না, তার কয়েকটা বই প্রভাবযুক্ত। এইটাই বলা যাইতে পারে। বাংলা সাহিত্য আর ভাষা নিয়া কাজ করা লোকদের মধ্যে সে সেরা তিনে থাকবে। সেই সাথে একজন প্রাবন্ধিক, বুদ্ধিজীবি ও সাহিত্য সমালোচক হিসেবেও সে অগ্রগণ্য। আর সলিমুল্লাহ জানি কেডা? টাইম নাই!

২৭ শে জুলাই, ২০২১ বিকাল ৩:১৪

রফিকুজজামান লিটন বলেছেন: ধন্যবাদ সুন্দর কমেন্টের জন্য!

১০| ২৭ শে জুলাই, ২০২১ সকাল ১১:৩৫

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
ড হুমায়ূন আজাদ এককজন প্রতিভাবান আধুনিক লেখক সাহিত্যিক ।
বাংলা ভাষায় হুমায়ুন আজাদের সমপর্যায়ের শক্তিমান লেখক এই জাতী আর চোখে দেখবে কি না সন্দেহ।
হুমায়ুন আজাদকে হেয় করতে চায় একটি শ্রেণি যারা তাকে কুপিয়েছিল বা কোপানো খুনি দলকে দলকে সমর্থন করে উল্লাস করে।
এরা মুহম্মদ জাফর ইকবাল, শামসুর রহমানকেও কুপিয়ে উল্লাস করেছিল।

ড. সলিমুল্লাহ খান সাধারন মানের এককজন জ্ঞ্যানী কিন্তু সুবক্তা, টকশোতে ভাল বক্তব্য দেন। কিন্তু গত দু তিন বছ র জাবৎ এই কোপানো খুনি দলের সস্তা সমর্থন পেতে কথার চিপাদিয়ে রবীন্দ্রবিরোধী পিন মারেন, অমর্ত সেনকে, হুমায়ুন আজাদকে হেও করে আজে বাজে বক্তব্য জুড়ে দেন, বার বার উর্দুর সাফাই তো আছেই ..মাদ্রাসার শিক্ষক রা বেশী মেধাবী ইত্যাদি কথাবার্তা
যে কারনে এই কোপানো খুনিদল সমর্থক আলবদর ছানাগুলো সলিমুল্লাহ খানকে নবীর পর্যায়ে নিয়ে গেছে।

অর্থনীতিতে নোবেল চালু হয়েছে ১৯৬৯ এ। সেটার স্পনসার কে বা অফিসিয়াল নাম যাই হোক সেটা নোবেল প্রাইজ। একই হল রুমে একই সম্মান একই সম্মানী।
কেউ যদি বলে পৃথিবীকে বদলে দেয়া যুগান্তকারি অর্থনীতিবিদ মিল্টন ফ্রিডম্যান, অমর্ত সেন, গ্যারি বেকার, অভিজিত ব্যানার্জি এরা অর্থনীতিতে নোবেল পান নাই, ইহা নোবেল না, অন্য সস্তা কিছু পেয়েছেন! এইসব জ্ঞ্যানপাপিদের ডাইরেক্ট থাবরানো উচিত।

২৭ শে জুলাই, ২০২১ বিকাল ৩:১৬

রফিকুজজামান লিটন বলেছেন: আপনার এই সুন্দর মন্তব্যের পর আর কিছু বলার নাই। ধন্যবাদ ।

১১| ২৭ শে জুলাই, ২০২১ দুপুর ১২:৫৪

রাজীব নুর বলেছেন: ড. সলিমুল্লাহ খান শেষ বয়সে এসে জাস্ট ফাজলামো শুরু করেছেন। এবং একদল ফাজিল তার সাথে নাচছে।

২৭ শে জুলাই, ২০২১ বিকাল ৩:১৮

রফিকুজজামান লিটন বলেছেন: কিছু বলার নাই। ধন্যবাদ ।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.