নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

তোমাদের এ শহর ছেড়ে চলে যাচ্ছি। দূরে! বহু দূরে! ঈগল চোখের আড়াল খুঁজে নিচ্ছি- যেখানে সমস্ত পাপী স্বীকারোক্তি দেয় তাদের আকন্ঠ পাপের। অন্তত তারা সত্যের আড়ালে পাপ করে না; পাপ নিয়ে করে না কোন মিথ্যাচার!

নয়ন বিন বাহার

আমাদের একেক জনের জীবনের এক একটা নির্দিষ্ট বিন্দুতে এসে আমাদের আশপাশে যা হচ্ছে তার উপর নিয়ন্ত্রন হারিয়ে ফেলি। তখন জীবনের নিয়ন্ত্রন নেয় ভাগ্য। এটাই দুনিয়ার সবচেয়ে বড় মিথ্যা।

নয়ন বিন বাহার › বিস্তারিত পোস্টঃ

কষ্টরা বড্ড অভিমান ভাঁজে

১১ ই জুন, ২০২৪ সকাল ১১:১৮

তুমি আর আমি এক চিরায়ত অভ্যাসের বহিঃপ্রকাশ।

অভ্যাসে দুঃখ লাগভ হলেও,
কস্টরা দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে প্রস্তুতি নেয় পরবর্তী নতুন খতিয়ানের।

নগরে সাধু প্রবেশে বাঁধা নেই, তবে,
বাটে পড়ে নিজেকে পাগল সাজাতে কয়জনে পারে!

যে নদী শুকিয়ে আসে, সে কি জানে জলের গন্তব্য?

মহাজনের কাছে বাধা পড়ে যে মাঝি হাল ছেড়ে বেহাল হয়েছে,
তার কাছে শুকতারার গল্প কেমন লাগে?

দীর্ঘ ক্লান্তিকর গল্প শোনার পরে ভিখারী বুঝতে পারে,
একটা পুঁইয়ের লতা দুর্দিনের ভরসা হতে পারে, পারে কি?

এসব আলাপ আমাদের মাঝে আর হয় না।

আমরা যৌথ ব্যাবসার আইন মেনে আমাদের রোজকার সম্পর্কটাকে
দারুন সরলীকরণ করতে পেরেছি।

রোজ, খাড়া বড়ি থোড়; থোড় বড়ি খাড়া!

জলের সমুদ্রে ঢেউ খেললেও বাতাসের সমুদ্রে কী হয় তার আলোচনা
মুলতবী রেখে আমরা পারষ্পরিক চুক্তি নামা নিয়ে মনোযোগী হই।

চুক্তিপত্রের এক্সপায়ারী ডেইট খুঁজে না পাওয়ার ব্যার্থতা মেনে নিয়ে
অপেক্ষায় থাকি এক নতুন সকালের।

সবদিন সকাল আসে না, কখনো কখনো সকাল এত দেরী করে,
দুপুর গড়িয়ে ফের রাত নামে,
তবুও আমরা চুক্তিপত্র হাতে নিয়ে সকালের অপেক্ষায় থাকি।

সকাল না হওয়াটাকে যখন অভ্যাসে নিয়েছি,
তখন বুঝতে পারি, কষ্টরা বড্ড অভিমান ভাঁজে, তারা বড্ড সজীব!

মন্তব্য ৩ টি রেটিং +১/-০

মন্তব্য (৩) মন্তব্য লিখুন

১| ১১ ই জুন, ২০২৪ সকাল ১১:৪৮

আলমগীর সরকার লিটন বলেছেন: চমৎকার কবি দা

১১ ই জুন, ২০২৪ সকাল ১১:৪৯

নয়ন বিন বাহার বলেছেন: লিটন ভাই, ভালো থাকবেন।

২| ১১ ই জুন, ২০২৪ বিকাল ৩:৩১

শোভন শামস বলেছেন: সুন্দর, লিখে যান

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.