নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সাধারণ একজন মানুষ। বলার মতো বিশেষ কিছু নেই। মনের ভাবনাগুলো তুলে ধরতে চাই। ভালো লাগে কবিতা, লিখা-লিখি আর ছবি তোলা, এইতো! https://bhuiyan.us/

ইফতেখার ভূইয়া

গণতন্ত্র মুক্তি পাক, পরিবারতন্ত্র নিপাত যাক

ইফতেখার ভূইয়া › বিস্তারিত পোস্টঃ

যাপিত জীবন - ১

১০ ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ সন্ধ্যা ৭:৩১

গতকাল রাতে গোমাংশ খেয়ে একটু তাড়াতাড়িই শুয়ে পড়েছিলাম। ভোর রাতে আচমকা বুক জ্বালা-পোড়া করে উঠলো। বহুদিন পর আবার এমনটা হলো, কারণটা অবশ্য অজানা নয়। তবে প্রতিবারের মতো আবারও ভুল আমারই। অবশ্য মন্দ হয় নি, ফজরের নামাজটা পড়ে ফেলার সময় পাওয়া গেল। তারপর আবার বিছানায় গিয়ে এপাশ-ওপাশ শুরু হলো। আইপ্যাডে কিছুটা খবর পড়ার চেষ্টা করা হলো, শিরোনাম দেখে আর পড়তে ইচ্ছে হলো না।

সামুতে ঢুঁ দিতেই দেখি কিছু পরিচিত নিক, ভাবি এরা করে টা কি? দিনরাত প্রায় চব্বিশ ঘন্টাই মনে হয় সামুতে পড়ে থাকে। হয় লগ-ইন করে এরা বসে বসে অপাঠ্য-সুপাঠ্য সব লিখাই পড়ে আর নয়তো খুব সম্ভবত লগ-ইন হয়েই অন্যকাজে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। কে জানে! জেনেই বা লাভ কি, মাথায়তো জায়গা দিন দিন কমে আসছে আর আপগ্রেড করারই উপায় নেই, সুতরাং ডিলিট।

সাধারণত আমি সকালের আলো-বাতাস পাই না, আগের মতো আর অফিসে যাওয়ার ব্যস্ততাও নেই, শার্ট আয়রন করা হয় না। আমার স্যুটগুলো-ওভারকোটগুলো নিথর পড়ে আছে, টাইগুলো ঝুলে আছে বাদরের মতো। ভাবলাম কফি নিয়ে আসি, কফি খেতে খেতে একটা কিছু লিখতে বসবো।

নতুন একটা থীম বানানোর কাজে হাত দিয়েছি ওটাও একটু দেখতে হবে। ওয়ার্ডপ্রেসের প্যারেন্ট কোম্পানী অটোম্যাটিক থেকে জব অফার এসেছে ইঞ্জিনিয়ার পদের জন্য, প্রথাগত চিঠি.. প্রিয় ইফতেখার, আমরা তোমার অভিজ্ঞতা দেখে অতি মাত্রায় উৎসাহী... ব্লা ব্লা ব্লা, আমার জন্য খুশি হওয়ার মতো বিষয় কিন্তু উৎসাহ পাচ্ছি না খুব একটা। তবে আমি নিশ্চিত জব হলে আমি ওখানে ভালো করবো। ওয়ার্ডপ্রেস নিয়ে দীর্ঘদিন কাজ করছি তবে তাদের গুটেনবার্গ এডিটর আমার ভালো লাগে নি। খামোখা ব্যাপারগুলো জটিল করা হয়েছে। তবে ব্যবসায়িক আইডিয়া থেকে ব্যাপারগুলো হচ্ছে সেটাও বুঝতে পারি। তাছাড়া ম্যাট-কেও আমি ভালো চোখে দেখি তবে ওর সাথে কখনো কথা হয় নি। তবে ২০১০ এর দিকে এ্যালেক্সের সাথে কথা বলে ওকেও আমার বেশ ভালো লেগেছে। অন্তত মিলেনিয়ালদের ব্যাপারে যে অভিযোগগুলো আছে তার কিছুটা বিপরীতে ওরা কাজ করতে পেরেছে। ওদের সাধুবাদ জানাই।

কফি হাতে বাসায় ফেরার পথে একটা কালো (আফ্রিকান আমেরিকান) মেয়ে আমার আগে সাঁই সাঁই করে হেটে যাচ্ছিলো। কি দেখে যেন উল্টো দিকে ঘুরে প্রায় আমার উপর ঝাঁপিয়ে পড়লো, তাকিয়ে দেখি বিশাল বড় ইদুর একটা রেস্টুরেন্ট থেকে বের হয়ে দৌড়ে ওর দিকে আসছে। আমিও লম্ফ-ঝম্প দিয়ে প্রাণে বাঁচলাম। এত বড় ইদুর দেখে আমি অভ্যস্ত নই। বাঙালী ইদুর আকারে অনেক ছোট হয়। মেয়েটা ভীষণ ভয় পেয়েছে মনে হলো। ওর কথা শুনে ভীষণ ভালো লেগেছে, বেশ প্রাণবন্ত আর ভদ্র। ওর দিনটি শুভ হোক।

মন্তব্য ২ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (২) মন্তব্য লিখুন

১| ১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১২:৫৩

কুশন বলেছেন: সুন্দর লেখা।

১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১১:১৭

ইফতেখার ভূইয়া বলেছেন: ধন্যবাদ।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.