নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

মরুভূমির জলদস্যু

পগলা জগাই

মরুভূমির জলদস্যুর বাগানে নিমন্ত্রণ আপনাকে।

পগলা জগাই › বিস্তারিত পোস্টঃ

নদী ও নৌকা - ০৫

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৩১

সুতিয়া নদীতে জলবাস

ছবি তোলার স্থান : কাওরাইদ, শ্রীপুর, গাজীপুর, বাংলাদেশ।
ছবি তোলার তারিখ : ২৫/১২/২০১৬ ইং


নদী, নদ, নদনদী, তটিনী, তরঙ্গিনী, প্রবাহিনী, শৈবালিনী, স্রোতস্বতী, স্রোতস্বিনী, গাঙ, স্বরিৎ, নির্ঝরিনী, কল্লোলিনী, গিরি নিঃস্রাব, মন্দাকিনী, কূলবতী, স্রোতোবহা, সমুদ্রবল্লতা, সমুদ্রকান্তা, সমুদ্রদয়িতা যে নামেই ঢাকা হোক, সেই আদিকাল থেকে তার বুকে ভেসে চলেছে নৌকা, ওসা, কোশাকুশি, কোষা, কন্ঠাল, খিলিয়া, খেয়া, ডিঙ্গা, ডিঙ্গি, ডিঙি, ডোঙ্গা, ডোঙা, তারণ, তরালু, তরি, তরণি, তরন্ত, তরন্তী, তরন্তপাদী, তরমাণ, তল্লী, নাও, পাদালিন্দ, পোত, প্লাবমান, বাবুট, বার্কট, বারিরথ, বোট, বজরা, বহিত্র, বন্ডাল, বহন, ভাসন্ত, ভেলক, ভেলা, মঙ্গিনী, মান্দাস, রোক, লা, লাউক, লাও। এদেরই কিছু ছবি থাকবে এখানে।

একলা একা

ছবি তোলার স্থান : নাফ নদী ও বঙ্গোপসাগর, টেকনাফ, বাংলাদেশ।
ছবি তোলার তারিখ : ২৬/০১/২০১২ ইং




কেন মরে গেল নদী।
আমি বাঁধ বাঁধি তারে চাহি ধরিবারে
পাইবারে নিরবধি,
তাই মরে গেল নদী।

----- রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ----

সুতিয়া নদী
ছবি তোলার স্থান : কাওরাইদ, শ্রীপুর, গাজীপুর, বাংলাদেশ।
ছবি তোলার তারিখ : ২৫/১২/২০১৬ ইং




ফেরি পারাপার

ছবি তোলার স্থান : পদ্মা নদী, বাংলাদেশ।
ছবি তোলার তারিখ : ০৯/১১/২০১৮ ইং




নদী খনন ও নদী ভরাট প্রকল্প যা বছরের পর বছর ধরে অবিরাম চলমান!

ছবি তোলার স্থান : পদ্মা নদী, বাংলাদেশ।
ছবি তোলার তারিখ : ০৯/১১/২০১৮ ইং


=================================================================
সিরিজের পুরনো পর্বগুলি দেখতে -
নদী ও নৌকা - ০১
নদী ও নৌকা - ০২
নদী ও নৌকা - ০৩
নদী ও নৌকা - ০৪

মন্তব্য ৩৬ টি রেটিং +৪/-০

মন্তব্য (৩৬) মন্তব্য লিখুন

১| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৩৮

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: ভালো লাগলো

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৪৪

পগলা জগাই বলেছেন: ধন্যবাদ মন্তব্যের জন্য।

২| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৪১

মোঃমোস্তাফিজুর রহমান তমাল বলেছেন: প্রত্যেকটি ছবিই চমৎকার।

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৪৪

পগলা জগাই বলেছেন: ধন্যবাদ মন্তব্যের জন্য।

৩| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৪২

হাসান জাকির ৭১৭১ বলেছেন: ছবিগুলো চমৎকার!

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৪৪

পগলা জগাই বলেছেন: ধন্যবাদ মন্তব্যের জন্য।

৪| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:১৬

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: সুন্দর ছবি। ড্রেজিং দুর্নীতির একটা উৎকৃষ্ট জায়গা।

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:২৬

পগলা জগাই বলেছেন: ধন্যবাদ
সবাই দেখে বুঝে কিন্তু চুপ থাকে। মাঝে মাঝে শুধু ড্রাইভারের হাস্ব সামনে আসলে চোখ ছানাভরা হয়।

৫| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:৩৬

আমি সাজিদ বলেছেন: বেশ

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:১৩

পগলা জগাই বলেছেন: হুম

৬| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৪:২৩

নেওয়াজ আলি বলেছেন: নদী ও নারীর কথা কয়।

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:১৩

পগলা জগাই বলেছেন: তাই নাকি? কি করে?

৭| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৪:৫৭

চাঁদগাজী বলেছেন:


১ নং:

যারা সুতিয়া নদীতে বাস করে, তাদের পায়খানা কোথায়, নদীর তীরে, নাকি নদীতে?

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:১৬

পগলা জগাই বলেছেন: এদের সব কিছুই জলে। তবে কথা হচ্ছে তাদের মলমূত্রের চেয়েও হাজারগুণ দূর্ষিত বর্জ পরে সুতিয়ার জল নষ্ট হয়ে গেছে।

৮| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ৯:৩৪

মা.হাসান বলেছেন: নদী ভরাট হইয়া যাউক , অসুবিধা নাই। নৌকা চীরজীবি হউক।
সুন্দর ছবি। দেখলে ভালো লাগে।

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:১৭

পগলা জগাই বলেছেন: নৌকায় চাক্কা লাগায়া চালামু ভরাট নদীর বুকে!!

৯| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৪৬

জাহিদ হাসান বলেছেন: এই এলাকায় মনে হল জীবনে ১৫-২০ বার গেছি। আমার মামা বাড়ি এই এলাকায়।

কাওরাইদ, গয়েশপুর এসব এলাকায় আমার বাল্যকালীন অনেক স্মৃতি আছে। প্রতি বছরই কাপাসিয়া থেকে সিএনজি নিয়ে চলে যেতাম কাওরাইদ।

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:২৫

পগলা জগাই বলেছেন: বাহ বেশ। অনেকবার যখন গেছেন এবং ব্রাহ্ম মন্দির দেখেছেন তাহলে আপনি কি এর আশপাশে জমিদারদের কোনো স্থাপনা দেখেছেন?

১০| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৪৮

জাহিদ হাসান বলেছেন:

আজ থেকে ২-৩ বছর আগে আমার মোবাইলে তোলা কাওরাইদ ব্রাক্ষ্ম মন্দির

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:২৬

পগলা জগাই বলেছেন: ব্রাহ্ম মন্দির এর পাশেই আছে ১৭টি স্মৃতি ফলক, ব্রাহ্ম সমাজের বিখ্যাত সব ব্যক্তিদের।

১১| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:৪৮

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: সবগুলো ছবিই সুন্দর। বেদেবহরের ছবিটা বেশি ভালো লেগেছে।

আপনাকে নীচের ভিডিওটা আগেও একবার দিয়েছিলাম। দেখেন নি বোধ হয়। সময় পেলে আবার দেখবেন।

২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১২:৫৯

পগলা জগাই বলেছেন: ধন্যবাদ আপনাকে গানটির জন্য। দেখেছিলাম, দেখলাম।

১২| ২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১২:১৫

রাজীব নুর বলেছেন: সুন্দর একটি পোস্ট উপভোগ করলাম।

২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১:০০

পগলা জগাই বলেছেন: ধন্যবাদ আপনাকে মন্তব্যের জন্য।
ভালো লেগেছে জেনে তৃপ্ত হলাম।

১৩| ২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ৯:১৮

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আমি ইন্টারনেটে ছবি খুঁজতে খুঁজতে কিছু সুন্দর ও মনমতো ছবি পেয়ে যাই 'প্রজন্ম ফোরামে'। ছবিগুলো ছিল 'মরুভূমির জলদস্যু'র। নারায়নগঞ্জ খেয়াঘাটের ছবি। সেই ছবিগুলো ঐ ভিডিওতে আছে। ফটো ক্রেডিটে আপনার নাম উল্লেখ আছে :)

০৩ রা অক্টোবর, ২০২০ সকাল ৮:৩৮

পগলা জগাই বলেছেন: আগে দেখেছি, অথচো লখ্য করি নাই। আসলে শেষ পর্যন্ত দেখি নাই। বরং বলা ভালো গানশুনেছি শুধু।
অশেষ ধন্যবাদ আপনাকে স্যার।

১৪| ২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১০:৫১

খায়রুল আহসান বলেছেন: মধ্য ষাট থেকে মধ্য সত্তরের দশকে ঢাকা থেকে রাতের ৭ আপ নর্থ বেঙ্গল মেল ট্রেন ধরে বছরে কয়েকবার বাড়ী যাওয়া আসা করতাম। সে ট্রেনটি কাওরাইদ ক্রস করতো মধ্যরাতে, বারটা একটার দিকে। কাওরাইদ পার না হওয়া পর্যন্ত ঘুমাতাম না, এর একটা কারণ ছিল। একবার কাওরাইদ ব্রীজ পার হবার সময় ট্রেনটা সেতুর উপর কিছুক্ষণ থেমে থেকে খুবই ধীর গতিতে চলা শুরু করেছিল। আমি জানালা খুলে ট্রেন থেকে দেখছিলাম কৃষ্ণপক্ষের নিশুতি রাতের নদীর আবছা ছবি। নদীর পাড়ে বাঁধা ছিল কিছু নৌকো, ঘন অন্ধকারে কেউ একজন একটা কুপি জ্বালিয়ে কী যেন খুঁজছিল। সেখান থেকে মানুষের কন্ঠস্বর শোনা যাচ্ছিল, আরো শোনা যাচ্ছিল খুক খুক কাশির শব্দ। সম্ভবতঃ সেগুলো ছিল বেদে-বেদেনীর নৌকো, যা তখন সচরাচর দেখা যেত। সে ছবিটা মনে গেঁথে আছে। বেদে বেদেনীর যাপিত জীবন নিয়ে নানা রকমের কল্পনা মাথায় চেপেছিল। যদি ওদের সাপগুলো কখনো কামড়ে দেয়? এই সাপের বাক্স নিয়ে ওরা কেমন করে সাড়াটা জীবন নৌকোয় কাটিয়ে দেয়? নৌকোয় জন্ম হওয়া, নৌকোয় বড় হওয়া, নৌকোয় করে সারাটা জীবন নদীর বুকে বুকে ভেসে বেড়িয়ে ঘর-সংসার করা, ইত্যাদি ভাবনা আমাকে বেশ রোমাঞ্চিত করতো। এর পরে যখনই রাতের ট্রেন কাওরাইদ সেতু অতিক্রম করতো, আমি সেই বেদের নৌকো, জেলের নৌকো খুঁজতাম। আপনার একটা ছবিতে 'কাওরাইদ' নামটা দেখে সে স্মৃতির কথা মনে পড়ে গেল, যদিও আপনার ছবিটা একটি সড়ক সেতুর, আমার স্মৃতিরটা রেলসেতুর।
"একলা একা" ছবিটা ভাল লেগেছে। সুন্দর পোস্টে ভাল লাগা + +।

০৩ রা অক্টোবর, ২০২০ সকাল ৮:৪৬

পগলা জগাই বলেছেন: স্মৃতিময় চমৎকার মন্তব্যের জন্য অশেষ ধন্যবাদ আপনাকে স্যার।
বেদেদের জীবন চিত্র এখন অনেকটাই পালটে গেছে মনে হয়।
আমার প্রথম ছবিতে বেদেদের ৩টি নৌকা দেখা যাচ্ছে। আর এই ছবিটা আপনার কাওরাইদের সেই রেল সেতু থেকে তোলা।
কাওরাইদের সেই রেল সেতুর ছবিও তুলেছি। আগামীতে দিবো।
ভালো থাকবেন সব সময়।

১৫| ২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১২:৪১

তারেক ফাহিম বলেছেন: চমৎকার ছবি ব্লগ।

০৩ রা অক্টোবর, ২০২০ সকাল ৮:৪৬

পগলা জগাই বলেছেন: ধন্যবাদ

১৬| ২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:২৩

রাজীব নুর বলেছেন: পোষ্টে সবার মন্তব্য গুলো ভালো লেগেছে।

০৩ রা অক্টোবর, ২০২০ সকাল ৮:৪৬

পগলা জগাই বলেছেন: ধন্যবাদ আপনাকে মন্দব্যের জন্য।

১৭| ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ভোর ৬:৩১

আনমোনা বলেছেন: খুব সুন্দর ছবি

০৩ রা অক্টোবর, ২০২০ সকাল ৮:৪৬

পগলা জগাই বলেছেন: ধন্যবাদ

১৮| ০১ লা অক্টোবর, ২০২০ সকাল ৯:২৩

খায়রুল আহসান বলেছেন: ১ নং ছবি এবং ৯,১০ নং মন্তব্য/প্রতিমন্তব্য প্রসঙ্গেঃ
সুতিয়া নদী, ব্রাহ্ম মন্দির এবং সে মন্দিরে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের উপস্থিতি সম্পর্কে ড.এম এ আলী এর এই পোস্টে আরো কিছু তথ্য পাওয়া যাবে- পরশ পাথর প্রাপ্তি: পর্ব-২ মুক্তিযুদ্ধের প্রাসঙ্গিক কিছু স্মৃতিচারণসহ বিলুপ্তপ্রায় দেশী প্রজাতির ধান, মরনের পথে নদ নদী, আর বিপন্ন শুশুক তথা গাঙ্গেয় ডলফিনের কান্না প্রসঙ্গ

০৩ রা অক্টোবর, ২০২০ সকাল ৮:৫৪

পগলা জগাই বলেছেন: অশেষ ধন্যবাদ আপনাকে

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.