নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

মরুভূমির জলদস্যু

মরুভূমির জলদস্যু

মরুভূমির জলদস্যুর বাগানে নিমন্ত্রণ আপনাকে।

মরুভূমির জলদস্যু › বিস্তারিত পোস্টঃ

গঙ্গাফড়িং বা ফড়িং - ০২

৩০ শে এপ্রিল, ২০২১ বিকাল ৪:১৪

গঙ্গাফড়িং বা ফড়িং
Common Names : Dragonfly, Broad scarlet, Common scarlet-darter, Scarlet darter, Scarlet dragonfly
Binomial name : Crocothemis erythraea



গঙ্গাফড়িং বা ফড়িং একটি দিবাচর পতঙ্গ বিশেষ। ডাইনোসরের যুগ থেকে সময়ের সাথে সাথে বিবর্তণের মধ্যে দিয়ে পরেইবর্তীত হতে হতে আজ পর্যন্ত টিকে আছে এই ফড়িং। গঙ্গাফড়িং হলো পৃথিবীর সবচেয়ে নিখুঁত শিকারী! বাঘ, সিংহের চেয়েও এটি বেশি নিখুঁত শিকারি। ডাঙায় সবচেয়ে ভয়ংকর প্রাণী সিংহের শিকারকে কাবু করার ক্ষমতা ৩০%, সমুদ্রের সাদা হাঙর মাত্র ৫০% শিকারকে কাবু করতে পারে। অন্যদিকে গঙ্গাফড়িং এর শিকারকে কাবু করার ক্ষমতা ৯৭%।





এরা বেশ বড় আকারের বিভিন্ন রং এর সুন্দর পতঙ্গ। এরা লাল, হলুদ, সবুজ, নীল, কালো ইত্যাদি নানান রং এর হয়। এদের দেহ লম্বা, সরু। দেহের দুই দিকে দুইটি করে মোট চারটি বহুশিরাযুক্ত, শক্তিশালী, বড়, পাতলা ও স্বচ্ছ ডানা বা পাখা থাকে।





এদের মাথা বেশ বড় হয় এবং তা তারা ইচ্ছে মতো নানান দিকে ঘুরাতে পারে। মাথার বেশির ভাগ জায়গা জুড়ে থাকা বিশাল দুটি যৌগিক পুঞ্জাক্ষি মাধ্যমে একটি ফড়িং একই সময়ে সামনে এবং পিছনে দেখতে পারে। তারা ২ মিটার দূরের স্থির বস্তু এবং প্রায় ১০ মিটার দূরের চলমান বস্তু দেখতে পারে। একজন মানুষ সাধারণ দৃষ্টিতে ৬০ ফ্রেম প্রতি সেকেন্ড দেখতে পারে, আর একটি ফড়িং দেখতে পারে ৩০০ ফ্রেম প্রতি সেকেন্ড। এই গঙ্গাফড়িং তাদের এই বিচিত্র চোখ দিয়ে এমন এক বিচিত্র দুনিয়া দেখতে পায় যা আমরা কখনোই দেখতে পাবো না। কারণ একটি ফড়িং অতিবেগুনি রশ্মি পর্যন্ত দেখতে পারে।





গঙ্গাফড়িংদের ৬টি পা থাকলেও তারা হাঁটতে পারে না। তাদের পা গুলি কাঁটাযুক্ত, ডালপালায় বসার উপযোগী। এই কাঁটাযুক্ত পা গুলি দিয়ে শিকার ধরে রেখে অনায়াসে উড়ে যেতে পারে। গঙ্গাফড়িংদের মুখে আছে দাঁতসহ মজবুত চোয়াল। এরা মশা এবং অন্যান্য ছোট-ছোট পোকামাকড় যেমন: মাছি, মৌমাছি, পিঁপড়া, প্রজাপতি ইত্যাদি শিকার করে খায়।





এদের সাধারণত পুকুর, হ্রদ, ঝর্ণা এবং জলাভূমির আশেপাশে পাওয়া যায়, কারণ এদের লার্ভা বা নিম্ফ জলে বাস করে। গঙ্গাফড়িং এর যৌনমিলনের কয়েকটি বিচিত্র প্রক্রিয়া রয়েছে। তার মধ্যে একটি হচ্ছে স্ত্রী ও পুরুষ ফড়িং একসঙ্গে ওড়ে এবং উড়ন্ত অবস্থাতেই মিলন সম্পন্ন করে। স্ত্রী ফড়িং ডিম জলে বা জলজ আগাছার উপর লাগিয়ে দেয়। একটি স্ত্রী ফড়িং ৮০০টি পর্যন্ত ডিম পাড়ে। ৩ সপ্তাহের মধ্যে ডিম বাচ্চা বের হয়। এদের নিম্ফ বলে। এই নিম্ফ পানিতে ১-৫ বছর কাটায়। এরা জলজ ক্ষুদে প্রাণী মেফ্লাই ও মশার লার্ভা খেয়ে বড় হতে থাকে। বড় হতে হতে এরা প্রায় ১২ বার খোলস পালটায়। আর পূর্নাঙ্গ গঙ্গাফড়িং অবস্থায় তার জীবন কাল হয়ে থাকে ৬ মাসের মতো।





বাংলাদেশের Aeshnidae, Gomphidae Cordulogastridae ও Libellulidae গোত্রের প্রায় ৩০টি প্রজাতির গঙ্গাফড়িং এর দেখা মেলে।

বিভিন্ন সময় বিভিন্ন স্থানে ছবিগুলি তুলেছি আমি।
সূত্র : উইকিপিডিয়া, বাংলাপিডিয়া


=================================================================
সিরিজের পুরনো পর্বগুলি দেখতে -
গঙ্গাফড়িং বা ফড়িং - ০১

মন্তব্য ৬ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (৬) মন্তব্য লিখুন

১| ৩০ শে এপ্রিল, ২০২১ রাত ৮:৪৫

মা.হাসান বলেছেন: মুখ -চোখের ছবি গুলো খুব কাছ থেকে তুলেছেন, খুব পরিস্কার এসেছে। এত ভালো ছবি খুব একটা দেখি না। কি করে তুললেন?

৩০ শে এপ্রিল, ২০২১ রাত ১০:৩০

মরুভূমির জলদস্যু বলেছেন: Xiaomi Redmi Note 5 মোবাইলের সাথে একটা সাড়ে আটশো টাকার ম্যাক্রলেন্স লাগিয়ে ছবিগুলি তুলেছি।

২| ০১ লা মে, ২০২১ ভোর ৪:৫৮

জিকোব্লগ বলেছেন: অসাধারণ ছবি!

০১ লা মে, ২০২১ দুপুর ২:৪৪

মরুভূমির জলদস্যু বলেছেন: ধন্যবাদ আপনাকে

৩| ০৫ ই মে, ২০২১ রাত ১২:১৯

রাজীব নুর বলেছেন: প্রতিটা ছবি অস্থির।

০৫ ই মে, ২০২১ রাত ১২:৩৭

মরুভূমির জলদস্যু বলেছেন: ধন্যবাদ মতামতের জন্য।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.