নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমার নাম- রাজীব নূর খান। ভালো লাগে পড়তে- লিখতে আর বুদ্ধিমান লোকদের সাথে আড্ডা দিতে। কোনো কুসংস্কারে আমার বিশ্বাস নেই। নিজের দেশটাকে অত্যাধিক ভালোবাসি। সৎ ও পরিশ্রমী মানুষদের শ্রদ্ধা করি।

রাজীব নুর

আমি একজন ভাল মানুষ বলেই নিজেকে দাবী করি। কারো দ্বিমত থাকলে সেটা তার সমস্যা।

রাজীব নুর › বিস্তারিত পোস্টঃ

নবী রাসূলগনের অলৌকিক ঘটনাবলি

১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ৮:২৯



অলৌকিক ঘটনা সব নবী-রাসূলের জীবনেই ঘটেছে।
কারণ প্রত্যেক নবী ও রাসূলের সাথে আল্লাহর যোগাযোগ ছিল। আল্লাহর নির্দেশেই অলৌকিক ঘটতো এবং এ ধরনের ক্ষমতা আল্লাহ-প্রদত্ত ক্ষমতারই নিদর্শন। পবিত্র কোরআনে হযরত মূসা ও হযরত ঈসা আঃ এর অনেক অলৌকিক ঘটনার কথা বলা হয়েছে। হযরত আদম আ. থেকে শুরু করে হযরত মুহাম্মদ (সা.) পর্যন্ত সকলেই আল্লাহর ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে মোজেযা (অলৌকিক ক্ষমতা) পাপ্ত হয়েছেন। মানুষকে সুপথ দেখানো ও তাদের মুক্তি বা কল্যাণের ব্যবস্থা করাই ছিল নবী-রাসূলগণের মিশনের উদ্দেশ্য। যে কোনো নবীর জন্মের সময় ও তার কিছু আগে এবং পরে অলৌকিক নানান ঘটনা ঘটেছে, যাতে সাধারাণ মানুষ আল্লাহর নবীকে মেনে নেয়ার জন্য প্রস্তুত হতে পারে। এবং কোনো দ্বিধা না থাকে।

একজন নবীর গায়ে মোট ৪০ জন পুরুষের সমান শক্তি থাকে।
অনেক নবীর আশ্চর্যজনক শারিরীক শক্তির কথা কোরআন হাদীসে পাওয়া যায়। যেমন দাউদ আলাইহিস সাল্লাম উনার সময়ের কাফের বাদশাহ জালুতকে জিহাদের ময়দানে মাত্র ৩ টা পাথরের টুকরার আঘাতে হত্যা করে ফেলেছিলেন। যদিও বাদশাহ জালুতের পুরা শরীর লোহার বর্ম দ্বারা ঢাকা ছিল। হযরত আলী রাঃ স্ত্রীর উপর রাগ হলে ওযু করতেন, মাটিতে গড়াগড়ি দিয়ে নিজের ক্রোধ দমনের চেষ্টা করতেন। কিন্তু কখনও স্ত্রীর গায়ে হাত তুলতেন না। অথবা স্ত্রীর সাথে শয্যা ত্যাগ করতেন না। স্ত্রীকে বুঝাতেন। স্ত্রী না বুঝা পর্যন্ত তিনি চেষ্টা চালিয়ে যেতেন। এযুগে দেখা যায় স্বামীরা স্ত্রীর গায়ে হাত তুলে এবং নানান রকম কুৎসিত গালিগালাজ করে। স্বামী স্ত্রীর ঝগড়া দেখার জন্য চারপাশে মানুষজন জমে যায়।

হযরত মুসা আঃ বনী ইসরাইল বংশের এক ব্যক্তিকে বাঁচাতে গিয়ে ফেরাউনের গোত্রের এক ব্যক্তিকে সামান্য একটা চড় মেরেছিলেন। আর মুসা আঃ সামান্য একটি চড়ের আঘাতেই ঐ ব্যক্তিটি মারা যায়। হজরত মূসা (আ.) যখন তার লাঠিটি মাটিতে নিক্ষেপ করতেন, তখন তা প্রকাণ্ড অজগরের রূপ ধারণ করত। আবার যখন তিনি সেটি ধরতেন, তখন তা লাঠিতে রূপান্তরিত হতো। এটা দেখে সব দুষ্টলোকেরা দৌড়ে পালিয়ে যেত। হজরত ঈসা আ. আল্লাহর হুকুমে জন্মান্ধ ও কুষ্ঠরোগীকে সারিয়ে তুলতেন। এমন কি মৃত ব্যাক্তিকে জীবিত করে তুলতেন। (সুবাহানাল্লাহ)

যে ভোর বেলায় মহানবী সা. জন্ম নেন-
সেদিন বিশ্বের সবগুলো মূর্তি আর সমস্ত গাছের পাতা মাটির দিকে নত হয়ে পড়েছিলো। বিশ্বনবীর মাতা মা আমিনা রা. বলেছেন, আল্লাহর কসম, আমার পুত্র জন্ম নিয়েই তাঁর হাত গুলোকে মাটিতে রেখে মাথা আকাশের দিকে তোলে এবং চারদিকে তাকায়। এরপর তার থেকে একটি নূর বা আলো ছড়িয়ে পড়ে ও সে আলোয় সব কিছু দৃশ্যমান হয়। হজরত আলী রা. বলেছেন, (সে রাতে) সা. এর জন্মের রাতে পুরো দুনিয়া আলোকিত হয়। প্রতিটি পাথর ও মাটির টুকরো এবং বৃক্ষ বা গাছ হেসেছে।

মক্কার রুকানা নামক একজন বড় কুস্তিগীর ছিলেন।
যাকে হযরত ওমর রাযিয়াল্লাহু আনহু থেকে শুরু করে কেউ কুস্তিতে হারাতে পারেনি। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সেই রুকানা কুস্তীগীরকে পরপর ৩ বার কুস্তিতে হারিয়েছিলেন যা দেখে মক্কার সকল কাফেররাও অবাক হয়ে গিয়েছিল। তাই নবীজী সাঃ এর শারিরীক শক্তি আমাদের থেকে অনেক অনেক বেশি ছিল এতে কোন সন্দেহ নাই। একজন পুরুষ যদি তার শারিরীক শক্তির তুলনায় একটি বিয়ে করেন তাহলে তো সেই হিসাবে নবিজীর সাঃ এর আরো অনেক গুলো বিয়ে করার কথা। খন্দকের যুদ্ধে পরিখা খননের সময় যেই পাথর সকল সাহাবীরা সম্মিলিত ভাবেও ভাঙতে পারছিলেন না, সেই পাথর ভালোবাসার নবী সাঃ মাত্র ৩ টা হাতুড়ির আঘাতে চূর্ন বিচূর্ন হয়ে যায়। সুমাহানাল্লাহ। আল্লাহ মহান।

একদা নবী করিম সা. খায়বারের কাছে ‘সাহবা’ নামক স্থানে ছিলেন।
তার মাথা মোবারক হজরত আলী রা. কোলে রেখে বিশ্রাম করছিলেন। হজরত আলী রাঃ কিন্তু আসরের নামাজ আদায় করেননি। এমতাবস্থায় ওহি নাজিল শুরু হলো। শেষ পর্যন্ত সূর্য অস্তমিত হয়ে গেল। নবীজি সা. জিজ্ঞেস করলেন, ‘তুমি কি আসরের নামাজ আদায় করেছ?’ হজরত আলী রা. বললেন, ‘না’। তখনই রসুলুল্লাহ সা. দুই হাত আকাশের দিকে তুলে দোয়া করলেন, ‘হে আল্লাহ! আলী আপনার রসুলের অনুগত, সূর্য ফিরিয়ে দিন, যাতে সে আসরের নামাজ সঠিক ওয়াক্তে আদায় করতে পারে। বদর যুদ্ধের সময় নবীজী সাঃ শত্রুদের দিকে এক মুঠো মাটি ছুড়ে দেন, ফলে তারা অন্ধ হয়ে যায়, এই অলৌকিক ঘটনা কুরআনে উল্লেখ করা হয়, সূরা আল আনফাল, আয়াত ১৭।

মহান আল্লাহ আমাদের কোরআন, হাদীস ও নবী রাসূলের দেখানো পথে চলার তৌফীক দান করুন। তবেই না আমাদের জীবন সহজ সরল সুন্দর হবে। আমিন।

মন্তব্য ৩০ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (৩০) মন্তব্য লিখুন

১| ১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ৯:১৬

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:

দুর্বল রূপকথা।

১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৩১

রাজীব নুর বলেছেন: এই পোস্ট টি আপনার জন্যই।

২| ১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ৯:১৮

চাঁদগাজী বলেছেন:



নবীদের অলৌকিক ঘটনা ধর্মে যোগ করাতে, আজকে ধর্ম বেশ সমস্যায় আছে।

১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৩৩

রাজীব নুর বলেছেন: বিজ্ঞান অলৌকিক কিছু বিশ্বাস করে না। আসল সমস্যা এই খানেই।

৩| ১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ৯:৩০

ঢাবিয়ান বলেছেন: কোথা হতে সংগ্রহ করলেন এইসব অলৌ্কিক কাহিনী?

১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৩৪

রাজীব নুর বলেছেন: আজ সারাদিন নেটে অলৌকিক ঘটনা নিয়ে পড়াশোনা করেছি। সেখান থেকে সামান্য কিছু আপনাদের সাথে শেয়ার করেছি।

৪| ১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ৯:৩২

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: আলী ( রাঃ) কে নিয়ে শেষের প্যারার কাহিনীটা একটা জাল হাদিস থেকে এসেছে।

১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৩৪

রাজীব নুর বলেছেন: আমারও এরকম ধারনা।

৫| ১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ৯:৫২

কলাবাগান১ বলেছেন: রাজীব নুর গভীর জলের মাছ...রিভার্স

১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৩৫

রাজীব নুর বলেছেন: এই তো হতে চেয়েছিলাম।

৬| ১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ৯:৫৩

নুরুলইসলা০৬০৪ বলেছেন: আপনার জীবনেও অলৌকিক কিছু ঘটতে পারে।প্রথমে আপনাকে একজন ধনী নারীকে বিবাহ করতে হবে।যাতে খাওয়া পরার চিন্তা করতে না হয়।তার পর মরুভূমির কোন দেশে যেতে হবে যেখানে পাহাড় আছে।কায়দা মতো একটা গুহা খুঁজে দশ বছর নিয়মিত বসতে হবে পাগল না হওয়া পর্যন্ত ।তখন অনেক অলৌকিক জিনিস দেখতে থাকবেন।

১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৩৬

রাজীব নুর বলেছেন: সুন্দর পরামর্শের জন্য ধন্যবাদ।

৭| ১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৫৮

পগলা জগাই বলেছেন: কোরআনে মোট ২০ জন (সম্ভবতো) নবীর রাসুলের নাম আছে। ২০ জন সম্পর্কে খুব বেশি তথ্য কোরআনে নেই। হাদিসে কিছু কিছু আছে। আর বাকি গুলি সব ওয়াজওয়ালাদের কারখানায় তৈরি কাহিনী।

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১২:০২

রাজীব নুর বলেছেন: সত্য মিথ্যা মিলিয়েই দুনিয়া।

৮| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১:০৮

সাহাদাত উদরাজী বলেছেন: আমিন!

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১:১৬

রাজীব নুর বলেছেন: আমিন।

৯| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১০:০৮

কামরুননাহার কলি বলেছেন: আপনে পারেনও বটে ভাই।

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৫:০৭

রাজীব নুর বলেছেন: সব আল্লাহর ইচ্ছা।

১০| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১২:১২

কিশোর মাইনু বলেছেন: চিন্তা করছি, কি বলা যায়। কমেন্ট পড়ে আরো সন্দিহান।

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৫:০৮

রাজীব নুর বলেছেন: কিছু না বলাত ভালো।

১১| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:৫০

সাগর শরীফ বলেছেন: রেফারেন্স ছাড়া এসব কেউ বিশ্বাস করবে না। হাদিসগুলো জাল হয় যদিও, মূলবাচ্য তো সত্য কথা। আমি মেনে নিয়েছি বলে কতিপয় লোক আমাকে ধর্মান্ধ বলবে। তাদের কাছে আমার প্রশ্ন, তাহলে বলুন আমার ধর্ম কিভাবে পালন করা উচিত?

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৫:০৯

রাজীব নুর বলেছেন: বিশ্বাস যার যার নিজের কাছে।

১২| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৪:৫২

নীল আকাশ বলেছেন: এইসব কাহিনীর সূত্র উল্লেখ করুন। ধর্মীয় এইসব লেখায় সূত্র না থাকলে মানুষ উলটা পালটা বুঝবে । আপনার লেখায় ও অনেক উলটা পালটা লাইন আছে। আপনাকে নি আমি খুব কনফিউজড থাকি। যা নিজে বিশ্বাস করেন না সেটা লিখতে যান কেন?

১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৫:১১

রাজীব নুর বলেছেন: যাহা লিখিয়াছি সত্যই লিখিয়াছি।

১৩| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৪৬

অপু তানভীর বলেছেন: =p~ =p~

১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১২:৪২

রাজীব নুর বলেছেন: !

১৪| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ৮:৫২

তারেক ফাহিম বলেছেন: রেফারেন্স ছাড়া ধর্ম নিয়ে পোস্ট দিলে বিতর্কে পড়তে হয়।

১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১২:৪৩

রাজীব নুর বলেছেন: আরে ভাই এগুলো তো বানিয়ে লেখার জিনিস না।
ধর্মীয় বই থেকে নেওয়া।

১৫| ১৪ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:৩২

নূর আলম হিরণ বলেছেন: হজরত আলী তো নবী নন। তবে উনার অনেক শক্তি ছিলেন। উনি নাকি পুরো পৃথিবী উনার হাতে নিতে পারতেন। ছোট বেলায় এমন কাহিনী হুজুরের মুখে অনেকবার শুনেছি।

১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১২:৪৪

রাজীব নুর বলেছেন: আলী রাঃ নবী না হলেও তার অলৌকিক ক্ষমতা ছিলো।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.