নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ছিলাম বইয়ের পোকা, এখন ইন্টারনেটের ।

সাদা মনের মানুষ

বিশ্ব জোড়া পাঠশালা মোর সবার আমি ছাত্র --নানা ভাবে নতুন জিনিস শিখছি দিবা রাত্র 'মুর্খরা সব শোন, মানুষ এনেছে গ্রন্থ, গ্রন্থ আনেনি মানুষ কোন'

সাদা মনের মানুষ › বিস্তারিত পোস্টঃ

ভুল পথে রেমাক্রির জলে

২২ শে জুলাই, ২০২০ সকাল ১১:১৪


নয়াচরন পাড়ায় কিছুটা বিশ্রাম করে আমরা এগিয়ে চললাম ছোট্ট গ্রাম হানজরাই পাড়ার দিকে। এতোটা চমৎকার লোকেশনে পাহাড়ি গ্রাম আমি খুবই কম দেখেছি। দুই দিকে উঁচু পাহাড় দ্বারা পরিবেষ্টিত। আর সামনে রেমাক্রি খাল, রেমাক্রি খালটাকে আমি নদী বলতেই স্বাচ্ছন্দ বোধ করি। খালের উপারে আবারো উঁচু পাহাড়। আমি সঠিক বলতে পারছি না এই গ্রামের উচ্চতা, তবে অনুমান করি ১২০০ থেকে ১৫০০ ফুট উঁচুতে এই গ্রামটি। উচ্চতা কম হলে কি হবে, এই গ্রামে পৌছতে হলে আপনাকে টপকাতে হবে অনেক উঁচু উঁচু পাহাড়, মানে অনেকগুলো উঁচু পাহাড়ের মধ্যিখানে নীচু একটা গ্রাম।

গহীন পাহাড়ি অরণ্য ঘেরা ছোট্ট গ্রামটায় মাত্র কয়েক ঘর বসতি। গ্রামটা খুব একটা গোছানো তেমন বলা যাবে না। তবে খরস্রোতা রেমাক্রি খালের পাশে এ গ্রামটিকে স্বর্গ বললে যেনো একটু কমই বলা হয়। এখানে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী ত্রিপুরাদের বসবাস। এখানে আমাদের টিমের থামার কথানা। তবে সাথে গাইড না থাকায় ওদের কাছে কিছু তথ্য নেওয়ার ব্যর্থ চেষ্টা। আমাদের গন্তব্য সাকা হাফং এর পায়ের কাছের গ্রাম নেফিউ পাড়াতে। ওখান থেকে গাইড নিয়ে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ চুড়া সাকা হাফং সামিটের পরিকল্পনা।

কিন্তু ভাগ্য আমাদের সহায় ছিল না বলে ভুল পথে পা বাড়ালাম। আমরা চলে গিয়েছিলাম রেমাক্রির অনন্য সুন্দর একটা এলাকায়। তবে ভুল সংশোধন করতে পরে আমাদের অনেক কাঠ খড় পোড়াতে হয়েছিল। যদিও ঐ ভুলের জন্য পরে আমাদের আফসোস তো ছিলোই না, মনে ছিল শুধুই প্রশান্তি। আসুন এবার আমার ক্যামেরায় দেখে আসি সেইসব।


(২) নয়াচরন পাড়া পার হয়ে ক্রমান্বয়ে আমরা নিচের দিকে নামতে থাকি, কারণ হানজরাই পাড়া এখান থেকে অনেক নিচের দিকের একটি গ্রাম।।


(৩) এক সময় আমরা নেমে আসি রেমাক্রির জলে।


(৪) খড়স্রোতা রেমাক্রির এখানে জলের উচ্চতা খুবই কম, তবে রেমাক্রি খালের ভেতরের পিচ্ছিল পাথরগুলো ছিল খুবই ভয়াবহ। ওপারে দেখা যাচ্ছে কয়েকটি ঘর নিয়ে ছোট্ট গ্রাম হানজরাই পাড়াকে।


(৫) জলের নিচের পুরোটাই এমন পাথুরে, যেখানে সুর্য্য কিরণ পড়ে আলোর খেলা খেলছে।


(৬/৭) আমাদের দেখতে ত্রিপুরা শিশুরা বেড়িয়ে আসছিলো কুড়ে থেকে।



(৮/৯) অতঃপর মায়েরা।



(১০/১১) আর নিরবে আমাদের শুভ কামনা জানিয়ে ছিল বেগুনী রঙ্গা এই পাহাড়ি ফুলগুলো।



(১২) অন্য একটা কুঁড়ের সামনে আগুন জ্বালিয়ে কিছু একটা পুড়ছিলো।


(১৩) দেখে অবাক হয়েছিলাম যে আমাদের দেশে আদিম যুগর মতো এখনো এমন মানুষ যারা উর্ধাঙ্গে কোন কিছু পরিধান করে না।


(১৪) ভুল দিকে যাত্রার শেষ সময়ে পিছন ফিরে হানজরাই পাড়ার এই ছবিটা তুলে নিয়েছিলাম।


(১৫) এবার আমরা খুবই ঝুঁকিপূর্ণ পথ ধরে আমরা সামনে এগিয়ে চললাম।


(১৬) কখনো বা বিশাল বিশাল পাথরের মাধ্যিখান দিয়ে এগিয়ে চললাম, যেখানে আমরা ব্যগ নিয়ে আটকে পড়ছিলাম।


(১৭) এক সময় আমরা পথ ভুল করে হানজরাই পাড়া সংলগ্ল রেমাক্রি খালের এমন একটা পয়েন্টে এসে উপস্থিত হয়েছি যে আমরা সবাই বাকরুদ্ধ প্রায়।


(১৮/১৯) চারিদেকে সবুজ ঘাছের বেষ্টনি, মাঝখানের পুরো এলাকা জুড়ে যেন কেউ সিমেন্ট দিয়ে সিড়ি বানিয়ে দিয়েছে। আর সেই সিড়ি বেয়ে নিচের দিকে স্বগর্জনে ছুটে চলেছে রেমাক্রির জল। বর্ষায় এখানকার ছবিটা কেমন হতে পারে তা একবার কল্পনার চোখে দেখে নিয়েছিলাম।



(২০) পথ যে ভুল করেছি সেটা আমরা ভুলে গেলাম, ঝাপ দিলাম এক স্বর্গের শীতল জলে, নিমেষে আমাদের তিন দিনের পথ চলার ক্লান্তি রেমাক্রির জলের স্রোতের সাথে মিশে নিমেষেই উধাও।

ফেরার আগে পাহাড়ি সুন্দরী রেমাক্রির কানে কানে আমি শুধু একটা কথাই বলেছিলাম, আই লাভ ইউ রেমাক্রি। জবাবে সে খলবলিয়ে হেসে হেসে ছুটে চললো পাহাড়ের ঐ অজানা কোন বাঁকে।

মন্তব্য ৩৮ টি রেটিং +৬/-০

মন্তব্য (৩৮) মন্তব্য লিখুন

১| ২২ শে জুলাই, ২০২০ সকাল ১১:৫০

শেরজা তপন বলেছেন: দারুন বর্ণনা ও দুর্দান্ত ছবি পোস্ট-টাকে জীবন্ত করে ফেলেছেন। আহা কতদিন যাই না এ পথে!!!
ধন্যবাদ শেয়ার করার জন্য

২২ শে জুলাই, ২০২০ দুপুর ১২:১০

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: হুমম, আবার কবে যাবার সৌভাগ্য হবে কে জানে? অনেক দিন পর পোষ্ট দিয়েই আপনাকে পেয়ে ভালো লাগছে ভাই, কেমন আছেন আপনি?

২| ২২ শে জুলাই, ২০২০ দুপুর ১২:১৬

শেরজা তপন বলেছেন: আমি আছি ভাল মন্দের মাঝা-মাঝি! পুরনো মানুষদের দেখলে ভাল লাগে। আপনি ভাল আছেন নিশ্চয়ই? নতুন করে ফের লেখা-লেখি শুরু করেছি, ঘুরে আসবেন

২২ শে জুলাই, ২০২০ রাত ৮:০১

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: হুমম, পুরোনোদের দেখলে ভালোলাগে। আপনার পোষ্টে ঘুরে এসেছি পরে আবার আসছি।

৩| ২২ শে জুলাই, ২০২০ দুপুর ১২:১৬

ফেনা বলেছেন: এত সুন্দর প্রকৃতির ছবি, দারুণ। চোখ জোড়া মুগ্ধতায় ভরে গেল।
পোষ্টে ভাল লাগা রইল।

২২ শে জুলাই, ২০২০ রাত ৮:১৮

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: ধন্যবাদ ভাইজান শুভ কামনা জানবেন।

৪| ২২ শে জুলাই, ২০২০ দুপুর ১২:১৭

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: আহা
যেমন দারুন ছবি, তেমনি সাবলীল বর্ণনা
ভুল করে যদি ভাল কিছু হয়, ভুলই সই ;)
আপনাদের ভুলে আমরাও দেখতে পেলাম অজানা কিছু মানুষ, প্রকৃতি আর সুন্দরী রেমাক্রি!

আপনি যেহেতু সুন্দরীর কানে কানে বলে ফেলেছন আমি আর না বলে সহমত পোষন হরলাম :)

+++

২২ শে জুলাই, ২০২০ রাত ৮:৩০

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: ধন্যবাদ ভাইজান, এমন ভুলগুলো বেশী বেশী হোক সেই কামনা করছি.......শুভ কামনা জানবেন।

৫| ২২ শে জুলাই, ২০২০ দুপুর ১২:১৯

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: অসাধারণ পোস্ট

২৩ শে জুলাই, ২০২০ সকাল ৮:১৮

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: ধন্যবাদ আপু, শুভ সকাল

৬| ২২ শে জুলাই, ২০২০ দুপুর ১২:২৯

পগলা জগাই বলেছেন: থানচি থেকে নৌকায় রেমাক্রি গিয়ে পায়ে হেঁটে নাফা খুম পৌছে গোসল করে আবার হেঁটে নাফ হয়ে নৌকায় থানচি। এই ছিলো আমার দৌড়।

২৩ শে জুলাই, ২০২০ সকাল ৯:১০

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: থানচি থেকে রেমাক্রি যাওয়ার পথটাকে আমি বলি স্বর্গ, তারমানে আপনি স্বর্গ দেখে এসেছেন ভাই।

৭| ২২ শে জুলাই, ২০২০ দুপুর ১:৫৯

রাজীব নুর বলেছেন: আপনি জীবনের আসল আনন্দ গুলো উপভোগ করে নিচ্ছেন।
আপনার মতো আনন্দ উপভোগ করতে চেয়েছিলাম কিন্তু পারলাম না।

২৩ শে জুলাই, ২০২০ সকাল ৯:১১

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: জানিনা কতোটা পারি, তবে চেষ্টা চলে অবিরত। করোনা অবশ্য আমাকে বেশ বিপাকে ফেলে দিয়াছে রাজীব ভাই।

৮| ২২ শে জুলাই, ২০২০ দুপুর ২:১৫

মাহমুদুর রহমান সুজন বলেছেন: ওয়াও কতো সুন্দর প্রকৃতির ছবি! দারুণ আপনার ছবি তোলার হাত। বর্ণনাও অসাধারণ। ভালো থাকবেন কামাল ভাই।

২৩ শে জুলাই, ২০২০ সকাল ৯:১৩

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: ধন্যবাদ সুজন ভাই, আপনিও ভালো থাকুন সব সময়।

৯| ২২ শে জুলাই, ২০২০ দুপুর ২:২৫

নেওয়াজ আলি বলেছেন: অনন্য, অনুপম

২৩ শে জুলাই, ২০২০ সকাল ৯:১৩

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: হুমম, ধন্যবাদ।

১০| ২২ শে জুলাই, ২০২০ বিকাল ৩:৪৬

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
কামাল ভাই কেমন আছেন?
এখনো কি ঘোরাঘুরি চলে?

২৩ শে জুলাই, ২০২০ সকাল ৯:১৪

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: কম বেশী ভালোই আছি বলতে হবে নূরু ভাই, এখন ছুটছি পেটের ধান্ধায়

১১| ২২ শে জুলাই, ২০২০ বিকাল ৩:৫৫

মা.হাসান বলেছেন: ১৫ নম্বর ছবিতে যে পথ এটা তো গিরগিটি চলার মতো, আপনারা এখান দিয়ে হাটছেন, দেখে একটু ভয় ভয়ই লাগছে। ১৬ নম্বর ছবির পথটাও সহজ না।

এটা বর্ষার সময়ের ছবি না, তবে কোন সময়ে গিয়েছিলেন?

পথ ভুল করে আসলেই লাভ করেছেন। অসম্ভব সুন্দর জায়গা।
ঐ দিকে কি সরকারি ভাবে নিষিদ্ধ কোনো এলাকা আছে যেখানে পথ ভুলে গেলে বিপদ হতে পারে?

২০ নম্বর ছবির সর্ব ডানে (পেজের সর্ব বামে ) লুঙ্গি পরা মানুষটি কি হেনা ভাই? ওনাকে দুই ভাবির মাঝখানে দিলে বেশি ভালো লাগতো B-))

২৩ শে জুলাই, ২০২০ সকাল ৯:১৫

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: বর্ষার সময়ে গেলে এই গিরগিটি পথা হাটা অসম্ভব হতো হাসান ভাই। হেনে ভাইকে সবাই সব জায়গায় চিনে ফেলে কিভাবে আমি জানিনা.......ভালো থাকবেন হাসান ভাই।

১২| ২২ শে জুলাই, ২০২০ বিকাল ৫:০৯

ইসিয়াক বলেছেন: সুন্দর

২৩ শে জুলাই, ২০২০ সকাল ৯:১৬

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: শুভেচ্ছা

১৩| ২২ শে জুলাই, ২০২০ রাত ১০:২৯

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: ছবিগুলো দেখে যতটা ভালো লাগলো ঠিক ততটাই​ বিষন্ন হলাম স্থানীয় মানুষজনের ছবিও তাদের সম্পর্কে সামান্য পরিচয় পেয়ে। প্রকৃতি কত নিষ্ঠুর।আপনারা যে স্থানটি দর্শন করে অপার সৌন্দর্য খুঁজে পাচ্ছেন সেই স্থানের​ মানুষজনের জীবন কতই না দুর্ভাগ্যের...

২৩ শে জুলাই, ২০২০ সকাল ৯:১৭

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: পাহাড়ের গহীনে আদিবাসীদের জীবন যাত্রা দএখলে সত্যিই কষ্ট হয়, ওরা এখনো আমাদের সভ্যতা থেকে অনেক দূরের যাত্রী.....ভালো থাকবেন পদাতিক ভাই।

১৪| ২৩ শে জুলাই, ২০২০ সকাল ৮:০৯

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: আহা! এত সুন্দর জায়গায় বেড়িয়ে এলেন। অথচ আমাকে একবার দাওয়াত দিলেন না! আমি খুবই মর্মাহত হইছি।

২৩ শে জুলাই, ২০২০ সকাল ৯:০৯

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: বুড়া মানুষ সব সময় পেটে সমস্যা থাকে দাওয়াত দিলেও খেতে পারেন্না, তাই আর :D

১৫| ২৩ শে জুলাই, ২০২০ সকাল ৮:১৬

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: ৬/৭ এবং ৮/৯ এই ছবিগুলা সাজাইতে মিসটেক কইরা ফালাইছেন। আগে ৮/৯ ছবিগুলা দিয়া পরে ৬/৭ ছবিগুলা দিতে হইত। মুরগি সব সময় আগে থাকে, আণ্ডা বাচ্চা পরে।

২৩ শে জুলাই, ২০২০ সকাল ৮:২০

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: আপনি যে আন্ডা বিশেষজ্ঞ তা আমার মনেই ছিল না =p~

১৬| ২৩ শে জুলাই, ২০২০ সকাল ৮:২৬

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: লিখেছেন, পথ ভুল করে স্বর্গের মতো জায়গায় চলে গিয়েছিলেন। কিন্তু যেখানে যেতে চেয়েছিলেন, সেখানকার ছবি আর লেখা কই? ভুল কইরা সুন্দরী শালীরে বিয়া কইরা এখন আর বউয়ের কথা মনে নাই?

২৩ শে জুলাই, ২০২০ সকাল ৯:০৮

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: বিয়া করার পর কি আর শালী থাকে? সে তো তখন বৌ। আপনার শরীর মন ভালো?

১৭| ২৩ শে জুলাই, ২০২০ সকাল ১০:৩৬

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: আমার নাতনি নয়নতারার দুটো ছবি দিলাম। আশা করি, আমার দেখাদেখি আপনার নাতি/নাতনিরও দুই একটা ছবি দিবেন।

২৬ শে আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৩৫

সাদা মনের মানুষ বলেছেন:

১৮| ২৩ শে জুলাই, ২০২০ সকাল ১১:৫৬

এস এম ইসমাঈল বলেছেন: দারুণ। ছবি সহ বিবরণ

২৬ শে আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৩৬

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: ধন্যবাদ ইসমাঈল ভাই

১৯| ২৬ শে জুলাই, ২০২০ রাত ৯:১৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: বরাবরের মত নয়ন জুড়ানো সব ছবির সমাহার! + +

এসব অঞ্চলে ঘুরার জন্য আপনি সাধারণতঃ প্ল্যান করেন কিভাবে একটু বলবেন কি? কোন ট্যুর এজেন্সী'র সাথে যোগাযোগ করেন? একটি দলে সাধারণতঃ কত জন লোক থাকে? কতদিন আগে থেকে প্ল্যান করতে হয়?

ক্যাপশন ছবিটা কি নয়াচরণ গ্রামের, নাকি হানজরাই গ্রামের?
৪ নং ছবিতে রোমাক্রি'র জলের ওপাড়ে যে কুঁড়েঘরগুলো দেখা যাচ্ছে, সেগুলো দেখে খুব ভাল লাগলো। পাহাড়িদের মনে অনেক দুঃখকষ্ট থাকলেও, প্রকৃতি ওদেরকে যে অনাবিল শান্তি আর মায়ায় ঘিরে রাখে, সেটার তুলনা আর কোথাও নেই, অন্ততঃ এ দেশে।
৫ নং ছবির স্বচ্ছ জলের শীতলতা কল্পনা করে সেখানে এখনই গা ভেজাতে ইচ্ছে করছে।
৭ নং ছবিটির মেয়েটির এবং ১৩ নং ছবির একেবারে সামনে দাঁড়ানো ছেলেটির পেটে কৃমি রয়েছে। ঔষধ না খেলে কৃমি এদেরকে রক্তশূন্য করে দিবে। কিশোরী মাতাদের ছবিগুলো দেখেও মনে হলো, ওরা রক্তশূন্যতায় ভুগছে।
১২ নং ছবির জানালায় দেখা কৌতুহলি মুখটা ছবিটাকে একটা অনন্য মাত্রা দিয়েছে বলে আমার কাছে মনে হলো।
১৪ নং ছবিটা অত্যন্ত সুন্দর এবং প্রশান্তিদায়ক।
১৫ ও ১৬ নং ছবির পথদুটো সত্যিই খুব ঝুঁকিপূর্ণ এবং বিপজ্জনক।
১৭, ১৮ ও ১৯ নং ছবিগুলো শুধু নয়নই জুড়িয়ে দেয় না, ওগুলো দেখে শরীরটাও যেন একটা প্রশান্তিদায়ক শীতলতা অনুভব করে।

আপনার এ ধরণের ছবি ব্লগ/ভ্রমণ ব্লগ গুলো আমি খুবই উপভোগ করি এবং লক্ষ্য করে থাকবেন হয়তো, আমি সেগুলো খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখে থাকি। মন্তব্য থেকেও হয়তো সেটা বোঝা যাবে।

পোস্টে ষষ্ঠ ভাল লাগা রেখে গেলাম। + +

২৬ শে আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৫৪

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: ট্যুর প্ল্যান করার জন্য আমাদের একটা ভ্রমণ সংগঠন আছে যার নাম "ভ্রমণ বাংলাদেশ" এটা একটা অলাভ জনক সংগঠন। ক্যাপশন ছবিটার স্থানের নামটা আমার জানা নাই ভাইজান। আপনি যতোটা খুটিয়ে খুটিয়ে আমার পোষ্টখানা দেখেছেন আমি নিজেও অতোটা দেখিনি। শ্রদ্ধা জানবেন বড় ভাই। অনেক দেরী করে উত্তর দেওয়ার জন্য ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি বড় ভাই।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.