নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমার পুরো নাম শাইয়্যান মোহাম্মদ ফাছিহ-উল ইসলাম। অন্যদের সেভাবেই দেখি, নিজেকে যেভাবে দেখতে চাই। যারা জীবনকে উপভোগ করতে চান, আমি তাঁদের একজন। সহজ-সরল চিন্তা-ভাবনা করার চেষ্টা করি। আর, খুব ভালো আইডিয়া দিতে পারি।

সত্যপথিক শাইয়্যান

আমার পোস্ট সংখ্যা এক সময়ে ৩০০টিতে গিয়ে ঠেকেছিলো। আগে অনেক বিষয় নিয়ে লিখলেও এখন আমার ভাবনার বিষয় শুধুই চীন। তবে, পোস্টগুলো বেশিরভাগই ভাবানুবাদ হবে।

সত্যপথিক শাইয়্যান › বিস্তারিত পোস্টঃ

ইতিহাস প্রমাণ করে ইসলাম প্রতিষ্ঠায় যুদ্ধের প্রয়োজন নেই, ভালোবাসাই যথেষ্ট

০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:৩৬



চীনের লিংশান পর্বতে শুয়ে আছেন ইসলামের শেষ নবী হযরত মুহাম্মদ মুস্তফা (সাঃ)-এর দুই সাহাবী Sa-Ke-Zu এবং
Wu-Ko-Shun...এই নামেই তাঁদের চিনতো স্থানীয় চীনবাসীরা...

এই সাহাবী দু'জন রাসূলুল্লাহ (সাঃ)-এর মামা সা'দ ইবনে আবি ওয়াক্কাস (রাঃ)-এর সাথে সুদূর চীনে গিয়েছিলেন....জন্মভূমির মায়ার টান উপেক্ষা করে থেকে গিয়েছিলেন সেই বিদেশ-বিভূইয়ে...ইসলাম প্রচারের গুরুভার বহনের তাগিদে।

তাঁরা জীবনে কখনো চায়নিজ ভাষায় কথা বলেননি!... বরং, তাঁরা ইসলামের দাওয়াত দিয়েছিলেন ভালোবাসা ছড়ানোর মাধ্যমে... তাঁদের দায়িত্ব জ্ঞান আর ঐন্দ্রজালিক চেহারা দেখেই চীনের মানুষ ইসলাম গ্রহণ করেছিলেন। ﷺ

মন্তব্য ৫৭ টি রেটিং +১/-০

মন্তব্য (৫৭) মন্তব্য লিখুন

১| ০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:৪৯

দ্যা বাকের ভাই বলেছেন: তাহলে আপনি কি বলতে চাচ্ছেন ইসলামীক ইতিহাসে যে এতো এতো যুদ্ধের বিবরণ দেয়া আছে সব মিথ্যা বানোয়াট?

০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:৫৬

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন: রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এবং খেলাফতে রাশেদা'র সময়ে কোন যুদ্ধ আক্রমনাত্মক ছিলো, বলুন তো একবার?

২| ০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:৫৩

ইসিয়াক বলেছেন: জানা ছিলো না ।
জানলাম।
ধন্যবাদ

০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:৫৭

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন: জানাতে পেরে আমারও ভালো লাগছে। শুভেচ্ছা।

৩| ০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:০২

দ্যা বাকের ভাই বলেছেন: আপনি কয়টা যুদ্ধ সম্পর্কে জানেন? ইসলামিক পোষ্ট দিয়েছেন উত্তর দিবেন। দয়াকরে গালাগাল না করে উত্তর দিয়ে যাবেন, আজকে দেখতে চাই ব্লগে যারা আছেন তারা নতুন করে আপনার ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করবেন নাকি হিন্দু যারা আছেন তারা ইসলামের পথে আসবেন।

০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:১৩

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন: আমি তো চীনে কিভাবে ইসলাম প্রচার হয়েছে জানালাম!!! এরপরে আর প্রমাণ করার কি আছে, বলুন তো? নাকি এ নিয়ে সন্দেহ আছে?!

৪| ০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:১৫

চাঁদগাজী বলেছেন:


লেখক বলেছেন, " রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এবং খেলাফতে রাশেদা'র সময়ে কোন যুদ্ধ আক্রমনাত্মক ছিলো, বলুন তো একবার? "

-যেরুসালেমের বায়জান্টাইনরা ও আলেক্সান্দিয়ার বায়জান্টাইনরা কি মদীনা আক্রমণ করেছিলো, নাকি খলীফা ওমর যেরুসালেম ও আলেক্সান্দ্রিয়া আক্রমণ করে দখল করেছিলেন? আপনার অবস্হা দেখে খুবই খারাপ লাগে!

০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:৩৯

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন: বাহ! আমার জন্যে আপনার দেখি মায়াও আছে!!! থাকতে দিন না, প্লিজ!

সেই সময়ে আমি খলিফা থাকলে, আমি নিজে বায়জান্টাইনদের আক্রমন করতাম। আর, বায়জান্টাইনদের সাথে শত্রুতা খলিফা উমর (রাঃ)-এর আগ থেকে শুরু, ভ্রাতা!

ঐ খবিসগুলো'র চেলা গাসসানীরা তো রাসূলুলুল্লাহ (সাঃ)-এর পাঠানো এক সাহাবী (রাঃ)-কে অন্যায় ভাবে মেরে ফেলেছিলো। ঐ সাহাবী (রাঃ) মহানবী (সাঃ)-এর একজন দূত ছিলেন।

৫| ০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:৪১

দ্যা বাকের ভাই বলেছেন: আরবীয় দুজনের নাম কিভাবে চাইনিজ নাম হলো? তার ব্যাখ্যা দিবেন কি?

০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:৫০

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন: চীনের প্রথা অনুযায়ী।

৬| ০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:৫২

দ্যা বাকের ভাই বলেছেন: অহুদের যুদ্ধ বদরের যুদ্ধ খন্দকের যুদ্ধতে তো এতো লাশের বন্যা করে হুদাইবিয়ার সন্ধি কেনো করতে হলো?

০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:০৫

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন: আপনি প্রশ্ন করতে চাইছিলেন যুদ্ধ নিয়ে, এখন যে বিষয় নিয়ে অনেক আগেই নিস্পত্তি হয়ে গিয়েছে, সেই বিষয় এখানে তোলার কি দরকার?

আপনি তো একজন মুসলমানের নাম নিয়েছেন। আমি তো ব্লগে চিল্লা দিতে আসিনি যে আপনাকে প্রিচ করবো!

প্রসঙ্গে স্থির থাকুন।

৭| ০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:৫৭

দ্যা বাকের ভাই বলেছেন: লেখক বলেছেন: চীনের প্রথা অনুযায়ী।
তাহলে আমেরিকা গেলে মাইকেল জন নাম হতো?
আপনি কোনো হিন্দু প্রদেশে হিন্দু নামে অভিহিত হবেন তখন আপনার ধর্ম কি বলে?
এই দুজন চীনা ভিক্ষু ছিলেন কিনা তার কোনো প্রমাণ নেই, প্রমাণ নেই এরা কারা?
চীনের কোনো ধর্ম ব্যাবসা কি?

০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:০৭

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন: হ্যাঁ, প্রথা অনুযায়ী। ঠিক যেমন করে সাহাবী 'আবু হুরায়রা'-এর নাম হয়েছিলো আরব রীতি অনুসরণ করে।

৮| ০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:০১

দ্যা বাকের ভাই বলেছেন: সেই সময়ে আমি খলিফা থাকলে, আমি নিজে বায়জান্টাইনদের আক্রমন করতাম। আর, বায়জান্টাইনদের সাথে শত্রুতা খলিফা উমর (রাঃ)-এর আগ থেকে শুরু, ভ্রাতা! - মানুষ মারার ধর্মকে কেনো তাহলে শান্তির ভালোবাসার বলছেন? আপনি নিজে মানুষ মারার পক্ষে। রক্তপাত বিহীন বায়জান্টাইনদের আক্রমন সম্ভব?

০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:১১

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন:

আপনি আবারো ট্র্যাক থেকে সরে যাচ্ছেন।

আমার পোস্টের শিরোনাম পড়ুন আরেকবার। সেখানে লেখা আছে- 'ইসলাম প্রতিষ্ঠা'-র জন্যে।

একজন নিরস্ত্র দূতকে আক্রমন করা খুবই গর্হিত কাজ। সাহাবীকে আক্রমন করে নিহত করা অন্যায় ছিলো। আর, যুদ্ধটি ছিলো অন্যায়কারীদের বিরুদ্ধে।

আমি বিনা অপরাধে এক গালে থাপ্পর খেয়ে বিনা বিচারে চলে আসা পছন্দ করি না।

৯| ০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:১৩

দ্যা বাকের ভাই বলেছেন: ভারতে শংকর, নারায়ন, মোদী, গান্ধী নামে কোনো সাহাবী নেই! এটি কি এই বোঝায় না সব ভ্রান্ত কুশিলব

০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:৩৩

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন: শ্রদ্ধার পাত্র কাউকে একটি 'নাম' দেওয়া হয়তো ভারতে প্রচলন নেই যেমন প্রাচীন চীন এবং আরবে ছিলো।

১০| ০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:১৫

দ্যা বাকের ভাই বলেছেন: হিন্দু বৌদ্ধ ধর্ম প্রচারে কি ইসলাম প্রচারের চেয়ে বেশী হত্যা হয়েছে?

০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:৩৭

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন: আপনি আবারো কোন উদাহরণ না দিয়ে কথা বলছেন।

ইসলাম প্রচার বা প্রতিষ্ঠায় কবে হত্যা করা হয়েছে!!!

দয়া করে উমাইয়া বা আব্বাসীদের শাসনামলের কথা উল্লেখ করবেন না। এটা নিয়ে আমি অনেক আগেই ক্লিয়ার করেছি।

উমাইয়া আর আব্বাসী শাসকরা খুব অত্যাচারী ছিলো। তারা শুধু অমুসলিমদের উপর অত্যাচার করেনি, মুসলমানদের উপরও অত্যাচার করেছে।

১১| ০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:১৯

দ্যা বাকের ভাই বলেছেন: আমি সঠিক ট্রাকে আছি। চীনে কি পরিমান মুসলিম আছে জানাবেন কি?

০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:৩৮

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন: এটা গুগল করলেই পাবেন। খুবই সোজা।

১২| ০২ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:৫৫

দ্যা বাকের ভাই বলেছেন: আপনি আমাকে দিয়ে প্রশ্ন করাতে চাচ্ছেন আমাকে দিয়েই উত্তর দেওয়াতে চাচ্ছেন, এখানে আপনি ক্লিয়ার না।

০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১২:০২

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন:


দ্যা বাকের ভাই বলেছেন: হিন্দু বৌদ্ধ ধর্ম প্রচারে কি ইসলাম প্রচারের চেয়ে বেশী হত্যা হয়েছে?


লেখক বলেছেন: আপনি আবারো কোন উদাহরণ না দিয়ে কথা বলছেন। ইসলাম প্রচার বা প্রতিষ্ঠায় কবে হত্যা করা হয়েছে!!!


উত্তর তো উপরেই আছে! আমি আপনাকে ট্র্যাকে থাকার জন্যে বলেছি মাত্র, উদাহরণ দিয়ে।

১৩| ০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১২:২১

দ্যা বাকের ভাই বলেছেন: আমার ধর্ম কুম্ভ (উদাহরণ) গ্রহণ করুন নচেত আমি আপনার জেলা, রাজ্য, প্রদেশে, দেশ আক্রমণ করবো আপনি কি করবেন?

০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১০:৫২

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন: কি যে লিখেছেন, আরেকবার পড়ুন।

১৪| ০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১২:২৪

দ্যা বাকের ভাই বলেছেন: China is home to a large population of adherents of Islam. According to the CIA World Factbook, about 1–2% of the total population in China are Muslims. The 2000 census counts imply that there may be up to 20 million Muslims in China.
Islam in China - Wikipedia
https://en.wikipedia.org/wiki/Islam_in_China

২ লক্ষ মুসলিম এইগুলি ১৪০০ বছরের মাইগ্রেশন ও সাদি মোবারকের ফলাফল। মুসলিম যুদ্ধ করলে চীন আরেকটি আরব দেশ হইতো।

০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১০:৫৪

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন:

আপনি দেখি গোনাগুনিও জানেন না!!!

২০ মিলিয়ন = ২ লক্ষ??? নাকি, ২ কোটি?

যুদ্ধের প্রয়োজন নেই।

১৫| ০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১২:৩৩

দ্যা বাকের ভাই বলেছেন: তাঁরা জীবনে কখনো চায়নিজ ভাষায় কথা বলেননি!... বরং, তাঁরা ইসলামের দাওয়াত দিয়েছিলেন ভালোবাসা ছড়ানোর মাধ্যমে... তাঁদের দায়িত্ব জ্ঞান আর ঐন্দ্রজালিক চেহারা দেখেই চীনের মানুষ ইসলাম গ্রহণ করেছিলেন। - নুরের চেহাড়া দেখে বাংরাদেশে মানুষ পীরভক্ত হচ্ছে।

০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১০:৫৪

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন: হলে দোষ কোথায়?

১৬| ০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১২:৩৫

দ্যা বাকের ভাই বলেছেন: চীনের লিংশান পর্বতে শুয়ে আছেন ইসলামের শেষ নবী হযরত মুহাম্মদ মুস্তফা (সাঃ)-এর দুই সাহাবী Sa-Ke-Zu এবং Wu-Ko-Shun - চাইনিজ রা মজা করতে পছন্দ করে এগুলো হচ্ছে মজা বাবার নাম আর মজা বাবার মাজার।

২ লক্ষ মুসলিম এইগুলি ১৪০০ বছরের মাইগ্রেশন ও সাদি মোবারকের ফলাফল। মুসলিম যুদ্ধ করলে চীন আরেকটি আরব দেশ হইতো।

০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১০:৫৭

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন: এগুলো মজা করে দিয়েছে, এটা আবার কোথায় পেলেন!

পরের লাইনের তথ্যও তো ভুল। মাইগ্রেশন করে ২ কোটি মুসলিম সেইখানে!

তবে, বিয়ের কথা অস্বীকার করা যায় না। বিশেষ করে কনফুসিয়াসের একজন বংশধরকে একজন মুসলিম নারী বিয়ে করেছিলেন।

১৭| ০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ২:১৯

দ্যা বাকের ভাই বলেছেন:

ইতিহাস প্রমাণ করে ইসলাম প্রতিষ্ঠায় যুদ্ধের প্রয়োজন নেই, ভালোবাসাই যথেষ্ট - হেড লাইন ভুল।

মুহাম্মাদ এর নেতৃত্বে যুদ্ধ তালিকা

০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১০:৫৮

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন: আপনার দেওয়া লিংকে কিছু পেলাম না তো!

১৮| ০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ২:২৪

দ্যা বাকের ভাই বলেছেন: ইতিহাস প্রমাণ করে ইসলাম প্রতিষ্ঠায় যুদ্ধের প্রয়োজন নেই, ভালোবাসাই যথেষ্ট - হেড লাইন ভুল। যেই ধর্ম প্রতিষ্ঠা হয়েছে মানুষের রক্তের উপর সেই ধর্ম কিভাবে শান্তির ধর্ম হয়, কিভাবে ভালোবাসার ধর্ম হয়।


০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১১:০০

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন: তখনকার মুসলিমদের উপর আগে আক্রমন হয়েছে বা আক্রমন করার চক্রান্ত হয়েছে। তারপর, মুসলিমরা যুদ্ধ করতে বাধ্য হয়েছে।

১৯| ০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ২:২৭

দ্যা বাকের ভাই বলেছেন: ইতিহাস প্রমাণ করে ইসলাম প্রতিষ্ঠায় যুদ্ধের প্রয়োজন নেই, ভালোবাসাই যথেষ্ট - হেড লাইন ভুল। যেই ধর্ম প্রতিষ্ঠা হয়েছে মানুষের রক্তের উপর সেই ধর্ম কিভাবে শান্তির ধর্ম হয়, কিভাবে ভালোবাসার ধর্ম হয়।





০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১১:০৩

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন:

আগেই বলেছি, এগুলো ইসলাম প্রতিষ্ঠায় বা প্রচারের জন্যে নয়।

এগুলো হয়েছে, নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার জন্যে। নাহলে, যেভাবে চারদিক থেকে একের পর এক আক্রমন হচ্ছিলো আর চক্রান্ত করা হচ্ছিলো, যুদ্ধ না করে তো উপায় ছিলো না।

২০| ০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ২:২৮

দ্যা বাকের ভাই বলেছেন: ইতিহাস প্রমাণ করে ইসলাম প্রতিষ্ঠায় যুদ্ধের প্রয়োজন নেই, ভালোবাসাই যথেষ্ট - হেড লাইন ভুল। যেই ধর্ম প্রতিষ্ঠা হয়েছে মানুষের রক্তের উপর সেই ধর্ম কিভাবে শান্তির ধর্ম হয়, কিভাবে ভালোবাসার ধর্ম হয়।

০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১১:০৬

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন: যুদ্ধের বিবরণগুলো পড়ুন ভালো করে। তারপর, আপনি নিজেই বলবেন, মুসলিমদের বাধ্য করা হয়েছিলো যুদ্ধে যেতে।

এগুলো হয়েছে, নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার জন্যে। নাহলে, যেভাবে চারদিক থেকে একের পর এক আক্রমন হচ্ছিলো আর চক্রান্ত করা হচ্ছিলো, যুদ্ধ না করে তো উপায় ছিলো না।

২১| ০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ২:৩২

দ্যা বাকের ভাই বলেছেন: এই হচ্ছে যুদ্ধের বিবরণ, তারপর বলেন কোথায় শান্তি? অংক কষেন ধারণা করেন কি পরিমান মানুষ হত্যা হয়েছে তার আন্তর্জাতিক বিচারে বিচার হলে কি বিচার হতে পারে? ধর্ষণ হত্যা লুটপাট বাদ দিলাম।

ট্রাকে থাইকেন, শান্তি দেখাবেন কোথায় ইসলাম ধর্মের শান্তি?

০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১১:০৮

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন: অন্য পাঠকদের জন্যে যুদ্ধের বিবরণ কোথায় দিলেন! এগুলো তো শুধু নাম!

আপনি নিজে একবার পড়ে এসে আমাকে বলুন কোন যুদ্ধ আপনার কাছে আক্রমনাত্মক মনে হয়েছে।

আমি আপনার ভুল ভেঙ্গে দিবো।

২২| ০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১:১৮

অন্তরা রহমান বলেছেন: আরো বিস্তারিত লিখতে পারতেন। সম্পূর্ণ ইতিহাস, যাত্রার বিবরন, পরিষ্কার রেফারেন্স, তাদের চীনে থাকাকালীন বর্ণনা। এত অল্প লেখায় কি ব্লগ হয়?

০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১:২৭

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন: আমার দায়িত্ব আগ্রহ জন্মানোর জন্যে যতটুকু প্রয়োজন ততটুকু লেখা।

বাকি তথ্য আগ্রহীরা এমনিতেই বের করে নেয়। এখনকার দুনিয়া্র জ্ঞানীদের কেউই গুগল করা ছাড়া কোন তথ্য আমলে নেন না। :)

ধন্যবাদ।

২৩| ০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১:২১

সুপারডুপার বলেছেন: ইসলামের রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠার শুরুতেই তো বদর যুদ্ধ। মিশনারি ধর্মগুলো প্রতিষ্ঠার জন্য যুদ্ধ করবে এটাই স্বাভাবিক।
ওহাবি জামাত শিবিরদের প্রতি সুস্থ মানুষের ভালোবাসা জন্মায় না।

ইসলামের ভালোবাসা চোখে পরে , সত্যিকারের আধ্যাত্বিক লোকদের ভিতর । কিন্তু তাদের দরজা আস্তিক-নাস্তিক সকল ধর্মের জন্য সব সময় খোলা।

০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১:৩৩

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন:

ভুল বলছেন। ওটা ছিলো নিজের সম্পদ বাঁচানোর জন্যে একটি চেষ্টা পরে যা অস্তিত্বের লড়াইয়ে পরিণত হয়।

আবু সুফিয়ান মদীনাতে প্রবাসী সাহাবীদের মক্কায় যে ধন-সম্পদ ছিলো, সেগুলো অন্য জায়গায় বিক্রি করতে নিয়ে যাচ্ছিলেন। এই ডাকাতি ঠেকাতেই প্রথমে মুসলমানরা এগিয়ে গিয়েছিলেন। পরে, আবু সুফিয়ানকে রক্ষায় আবু জেহেল বিরাট এক বাহিনী পাঠিয়ে বসে।

মুসলমানরা তখন যুদ্ধ করতে বাধ্য হয়।

দয়া করে অপপ্রচারে কান দেবেন না।

২৪| ০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১:৪৮

জাহিদ হাসান বলেছেন: আজো ইসলাম পৃথিবী জুড়ে প্রচার হচ্ছে ভালোবাসা ও যুক্তি দিয়ে। যুদ্ধ দিয়ে নয়।

যুদ্ধ করে ইসলাম প্রচার করা সম্ভব নয়। যারা মনে করে যুদ্ধ করে ইসলাম প্রচার করতে হবে এরা আসলে কোন মুসলিমই নয়। এরা হচ্ছে সাধু্বেশে নব্যডাকাত।

জাহিদ হাসান শিশির

২৫| ০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ২:০০

সুপারডুপার বলেছেন: লেখক বলেছেন: ভুল বলছেন।
_________________________-
ভুল কি বললাম !? আজব তো !
বদর যুদ্ধ কি ইসলামের শুরুতে না ?
বদর যুদ্ধেই ইসলামের সূর্য ডুবতো , যদি জিততে না পারতো।
অস্তিত্বের লড়াইয়ের কথা বলে সব মিশনারি ধর্মগুলো যুদ্ধ করে যাচ্ছে।

ইতিহাস লেখে জেতা পার্টি। আগে ইসলাম লিখে গেছে। এখন ইহুদি - খ্রিস্টানরা লিখে যাচ্ছে।

০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ২:১২

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন:

সুপারডুপার বলেছেন: ইসলামের রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠার শুরুতেই তো বদর যুদ্ধ।


আমি এই জন্যেই 'ভুল' বলেছি। বদর যুদ্ধ অস্তিত্বের লড়াই ছিলো। বাধ্য হয়ে লড়াই ছিলো। ডাকাতদের বিরুদ্ধে সামনে এগিয়ে মুসলমানরা দেখতে পায় বিরাট এক সেনাবাহিনী অপেক্ষা করছে তাঁদের জন্যে।

তখন আর ফেরার উপায় ছিলো না। মুসলমানদের পিছু পিছু শত্রুবাহিনী মদীনাতে ঢুকে পড়ে ধ্বংস করে দিতো সব কিছু।

তাই, দূর্বল হয়েও রুখে দাড়িয়েছিলেন আধা-পেট খাওয়া মুসলমানেরা।

২৬| ০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ২:৪৫

সুপারডুপার বলেছেন: হমম , বদর যুদ্ধই তো ইসলামের রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠার আনঅফিসিয়াল শুরু / বীজ । কিন্তু সরাসরি রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠার শুরু না। এই যুক্তিতে আপনি ঠিক আছেন। যেমন : ভাষা আন্দোলন ছিল বাংলাদেশের রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠার আনঅফিসিয়াল শুরু /বীজ।

বেশির ভাগ মানুষ বাপের ধর্ম মেনে চলে যাচ্ছে।

অস্তিত্বের লড়াইয়ের কথা চিন্তা করলে , ইহুহীদিরা ইসরায়েলে যা করে যাচ্ছে , তা ওদের কাছে ঠিক ই মনে হচ্ছে। হিন্দুরা ভারতে - বাংলাদেশে যা করে যাচ্ছে , তা ওদের কাছে ঠিক ই মনে হচ্ছে। বুদ্ধরা বার্মাতে যা করে যাচ্ছে, তা ওদের কাছে ঠিক ই মনে হচ্ছে। একই ভাবে মিশনারি ধর্ম মুসলিম - খ্রিস্টানরা যা করে যাচ্ছে , তাও ওদের কাছে ঠিক মনে হচ্ছে।

তাই ভালোবাসা না , অস্তিত্বের লড়াইয়ে যে জিতবে সেই প্রতিষ্ঠা পেয়ে গেছে , পাচ্ছে ও পাবে।

০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৫:৩২

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন: আপনি কি বলতে চাচ্ছেন- বদর যুদ্ধ হয়েছিলো রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠার জন্যে? এই যুদ্ধে রাজনীতি তো ছিলোই না। মুসলমানরা চিন্তাই করেনি এরকম কোন যুদ্ধ করতে হবে। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) তো নিজে থেকে ঐ যুদ্ধ শুরু করেননি ইসলামের শত্রুদের বিরুদ্ধে। বরং, শত্রুরাই তা চাপিয়ে দিয়েছিলো।

তাহলে, রাজনীতি প্রতিষ্ঠা হলো কি করে?!!!

২৭| ০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:১৩

আমি নই বলেছেন: @সুপারডুপার "মিশনারি ধর্ম" কাকে বলে? জীবনে আগে কখনও শুনি নাই। কোন কোন ধর্ম মিশনারি আর কোন কোন ধর্ম মিশনারি নয়?

২৮| ০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:৩০

নূর আলম হিরণ বলেছেন: ইসলামের প্রথম দিকের যুদ্ধ গুলি অস্তিত্বের লড়াই এর জন্য হলেও শেষের দিকের যুদ্ধগুলো সেরকম ছিলনা। শেষের যুদ্ধ গুলো করেছিল আধিপত্য বিস্তার ও ইসলামের প্রতি আনুগত্য না আনার কারনে।

২৯| ০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:০৭

ইসমাঈল আযহার বলেছেন: আপনাকে কে বলল, মুহাম্মাদ সা মাজার চীনে। তাহলে মদিনাতে সবুজ কম্বুজের নিচে কে আছেন। আন্দাজে ভুল তথ্য দিয়ে বিভ্রান্ত করছেন মানুষকে।

৩০| ০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:১৩

সুপারডুপার বলেছেন: @আমি নই ,

মিশনারি ধর্ম বলতে আমি বুঝেয়েছি : যে ধর্মে , ধর্ম প্রচারের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন জায়গায় মিশনারি বা ধর্মীয় গোষ্ঠীর সদস্য পাঠানোর প্রচলন আছে।

৩১| ০৩ রা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:৫৯

আমি নই বলেছেন: সুপারডুপার বলেছেন: @আমি নই ,

মিশনারি ধর্ম বলতে আমি বুঝেয়েছি : যে ধর্মে , ধর্ম প্রচারের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন জায়গায় মিশনারি বা ধর্মীয় গোষ্ঠীর সদস্য পাঠানোর প্রচলন আছে। [/sb

ওকে, তাহলে এমন কোনো বড় ধর্ম আছে কি, যারা ধর্ম প্রচারের জন্য ধর্ম প্রচারক পাঠায় না? বা ধর্ম প্রচার করেনা?

৩২| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০১৯ রাত ১২:১৭

সুপারডুপার বলেছেন: @আমি নই -<
----------------
পৃথিবীতে মোটামুটি ৩১% খ্রিস্টান, ২৩% মুসলিম, ১৬% সেক্যুলার / অধার্মিক, ১৫% হিন্দু , ৭% বৌদ্ধ, ৫.৫% চীনা সনাতন ধর্ম ও বাকি অন্য অন্য ধর্মের অনুসারী।

খ্রিস্টান ও ইসলাম ধর্মে মিশনারির ও কনভার্সন প্রথা প্রচলন সর্বাধিক। সেক্যুলার / অধার্মিক, হিন্দু , চীনা সনাতন ধর্ম ও ইহুহীদি ধর্মে মিশনারির প্রচলন নাই বললেই চলে।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.