নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমি লেখক নই, মাঝে মাঝে নিজের মনের ভাবনাগুলো লিখতে ভাল লাগে। যা মনে আসে তাই লিখি,নিজের ভাললাগার জন্য লিখি। বর্তমানের এই ভাবনাগুলোর সাথে ভবিষ্যতের আমাকে মেলানোর জন্যই এই টুকটাক লেখালেখি।

তারেক_মাহমুদ

পৃথিবীর সব ভাল টিকে থাকুক শেষ দিন পর্যন্ত

তারেক_মাহমুদ › বিস্তারিত পোস্টঃ

সালিশ

০১ লা এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ১১:২০

গ্রামের নাম রাশেদনগর,নবগঙ্গা পাড়ের ছোট্ট একটি গ্রাম। যেখানে দিগন্তজোড়া ফসলের মাঠ, পথের দুলাশে তাল গাছের সারি। দেশের অন্যান্য গ্রামের মত ছিটেফোঁটা উন্নয়নের ছোয়া এখানেও লেগেছে তবে অন্যান্য এলাকার তুললায় খুবই অপ্রতুল। গ্রামের রাস্তাগুলো পাকা হওয়ায় গরুর গাড়ি, ঘোড়ার গাড়ির পরিবর্তে তা এখন ভটভটি আর ব্যাটারি চালিত ভ্যান গাড়ির দখলে। কিছু অল্প শিক্ষিত ছেলেরা ভাড়ায় মোটর সাইকেল চালিয়ে রোজগারের একটা পথ তৈরী করেছে আর বিকট হর্ণ বাজিয়ে গ্রামের শান্ত পরিবেশের নিরবতাকে নষ্ট করে চলেছে। গ্রামের উওর পাশ দিয়ে বয়ে চলেছে নবগঙ্গা নদী। একটি খেয়া নৌকা গ্রামের সাথে জেলা সদরের সেতুবন্ধন রচনা করে দিয়েছে।গ্রামের লোকেরা অবশ্য এখনো টাকা দিয়ে নৌকা পার হয় না, ফসলের মৌসুমে একবারে মাঝিকে কিছু ফসল দিয়ে তার বিনিময়ে সারাবছর নৌকা পার হয় । গ্রামের শান বাধানো বটের ছায়ায় করিম মিয়ার তেতো চা না খেলে যেন গ্রামের মানুষের তৃষ্ণা মেটে না।গ্রামের সকল শালিস বিচার সহ গ্রামের মানুষের রাজনৈতিক আলোচনার কেন্দ্রস্থল এই বটের ছায়ার করিম মিয়ার চায়ের দোকান।

রহমত মিয়া রাশেদপুর গ্রামের অবস্থা সম্পন্ন গৃহেস্ত। পড়াশোনা না জানলেও টাকাপয়সা আছে যথেষ্ট তাই রহমত মিয়াকে গ্রামের মানুষ বেশ সমিহ করেই চলে। গ্রামের বিচার শালিসসহ যেকোনো সামাজিক কর্মকান্ডে রহমত মিয়ার ডাক পড়ে।বলা যায় তিনি গ্রামের একজন প্রভাবশালী মাতুব্বর। অশিক্ষিত রহমত মিয়া বিচার সালিশের ব্যাপারে খুবই অভিজ্ঞ, যেকোনো বিচার আচারের ক্ষেত্রে বেশ ভাল সমাধান দিতে পারেন, তাই এসব কাজে গ্রামের সহজসরল মানুষের আস্থার নাম রহমত মিয়া।

রহমত মিয়ার ছেলে কনক, পড়াশোনায় বেশ ভাল তাই ছেলেকে নিয়ে খুব গর্ব তার,সবার কাছে বলে বেড়ান
-আমার ছেলে ক্লাশে ফাস্ট বয়, ও আমার বংশের মুখ উজ্জ্বল করবে।
তাই কনকের কোন আবদারই অপূর্ণ রাখেন না তিনি। এমনকি অন্যায় আবদারও পূরণ করেন। আর ছেলের বিরুদ্ধে যদি কেউ কোন অভিযোগ করেন তবে তার রেহাই নেই।

একবার রহমত মিয়ার কাছে পাড়ার উকিল মুন্সির অভিযোগ ছিল
-তোমার ছেলে আমার বাড়ি থেকে রাতের আধারে দশটা মুরগী চুরি করে বন্ধুদের নিয়ে পিকনিক করেছে।
-কি মুন্সি তোমার এত বড় সাহস আমার ছেলের নামে মিথ্যে অভিযোগ কর!! কি প্রমাণ আছে তোমার কাছে যে বলছো আমার ছেলে তোমার মুরগি চুরি করেছে?

উকিল মুন্সি তখন কোন প্রমাণ দেখাতে পারেন না তাই চুপসে যান, আসলে রতমত মিয়ার মুখের উপর কথা বলার সাহস তার নেই।
এমনিভাবে গাছের ডাব চুরি, আম কাঠাল চুরিসহ নানারকম সিচকে চুরির অভিযোগ আসতে থাকে রহমত মিয়ার ছেলে কনকের বিরুদ্ধে। তিনি এর কোনটাই আমলে নেন না। রহমত মিয়ার কথা হচ্ছে আমার ছেলে সোনার টুকরো ছেলে ও কোন অপরাধ করতেই পারে না।

দেখতে দেখতে কনক এসএসসি পরিক্ষা দিল এবং জিপিএ ৫ পেয়ে পাশ করলো। রহমত মিয়া মহাখুশি! রহমত মিয়া জেলা সদর থেকে ডেকোরেটর এনে দশটা বড় বড় খাশি জবাই করে গ্রামের মানুষকে বিরিয়ানি রেধে খাওয়ালেন। গ্রামের গরিব মানুষগুলো যাদের নুন আনতে পানতা ফুরায়, তারা কনকের পাস উপলক্ষ্যে বিরিয়ানি খেতে পেয়ে খুবই খুশি।
অনুষ্ঠানে রহমত মিয়া সকলের উদ্দেশ্যে বললেন

-তোমরা আল্লাহর কাছে একটু দোয়া আমার ছাওয়ালডা যেন ডাক্তার হইবার পারে। আর আমার ছাওয়াল যদি ডাক্তার হইবার পারে তবে চার গ্রামের মুসলমান হিন্দু সবাইরে গরু, খাশি জবাই করে খাওয়াবো।
তিনি কনকের রেজাল্টে খুশি হয়ে ছেলেকে নতুন মোটর সাইকেল উপহার দেন। মোটকথা ছেলে কনক রহমত মিয়ার নয়নের মনি।

এতদিন কনকের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল ছিচকে চুরির, যেগুলো ম্যানেজ করা খুব একটা কঠিন ছিল না রহমত মিয়ার। কিন্তু এবারের অভিযোগ গুরুতর। গ্রামের ফসলের মাঠের এককোনে বাস করত গরিব বিধবা মর্জিনা এবং তার মেয়ে মোমেনা। একদিন সন্ধ্যায় মর্জিনা গিয়েছিল গ্রামের চেয়ারম্যানের বাড়ি কাজ করতে, ফাকা বাড়িতে একা পেয়ে কনক এবং তার বন্ধুরা মিলে ধর্ষণ করে মোমেনাকে এবং রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে ফেলে রেখে চলে যায়। এই কাজে নেতৃত্ব দিয়েছে রহমত মিয়ার ছেলে কনক। অন্যান্য চুরির ঘটনার মত এই ঘটনাকেও প্রথমে ধমক দিয়ে উড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেন রহমত মিয়া। কিন্তু যখন বুঝতে পারে জল অনেকদূর গড়িয়েছে আর থানা পুলিশ হলে মহা বিপদে পড়ে যাবেন তিনি।গ্রামের চেয়ারম্যান সাহেবের কাছে বিচার দেন মর্জিনা, চেয়ারম্যান সাহেব গ্রামের বটতলায় শালিসের ডাক দেন। রহমত মিয়ার বদ্ধমুল ধারণা এই কাজে তার ছেলে জড়িত নয়, গ্রামের কিছু মানুষ তার ছেলেকে ষড়যন্ত্র করে ফাসানোর চেষ্টা করছে এবং তিনি যেকোনো মুল্যে নিজের ছেলেকে রক্ষা করবেন। অবশ্য এই কাজের জন্য তিনি গোপনে গ্রামের অন্যান্য মাতুব্বরদের হাতে পাচ হাজার করে টাকা দিয়েছেন আর চেয়ারম্যান সাহেবকে স্বরণ করিয়ে দিয়েছেন গত ইউপি নির্বাচনে তাকে জেতাতে নিজের অবদান কতটুকু।

গ্রামের সব মানুষ করিম মিয়ার চায়ের দোকানে জড় হয়েছে, করিম মিয়ার ব্যবসা আজ রমরমা। তেতো চায়ের সাথে বিস্কুট পাউরুটি কলা দেদারসে বিক্রি হচ্ছে। নির্ধারিত সময় পার হয়েছে তবু্ও চেয়ারম্যান সাহেবের দেখা নাই, তার চ্যালাদের তাগাদা দেওয়া হচ্ছে চেয়ারম্যান সাহেবকে ফোন করার। একজন জানালেন আর পাচ মিনিটের মধ্যে চেয়ারম্যান সাহেব চলে আসবেন। অতঃপর মটর সাইকেলের পিছনে বসে পনেরো মিনিট পর চেয়ারম্যান সাহেব হাজির।

বিচারের কাজ শুরু হল, প্রথমে মর্জিনা বর্ণনা করলেন তার মেয়ের উপর অমানুষিক নির্যাতনের কথা। মজলিসে তখন পিনপতন নিরাবতা। সবাই খুবই আগ্রহ নিয়ে গল্পটা শুনছে, কেউ কেউ মাঝে মাঝে 'ইসস' শব্দ করছে। গ্রামের যুবকরা এমনকি কিছু মাঝ বয়সি কিছু মানুষও গল্পটা বেশ উপভোগ করছে। মর্জিনা একে একে অভিযুক্তদের নাম বললেন,

-রতন, মোমিন, সেলিম, মিন্টু। গ্রামের মানুষ বিস্ময়ের সাথে একে অপরের মুখের দিকে তাকাতে লাগলো। আসলে তারা এতদিন জেনে এসেছে ঘটনাটা ঘটেছে কনকের নেতৃত্ব কিন্তু আজ কনকের নামই নাই।

রব মিয়া মোমেনাকে জিজ্ঞাসা করলেন
-মোমেনা তুমি ঠিক করে কও সেদিন কে কে ছিল?
মোমেনাও মায়ের সুরে সুর মেলালো।

অতঃপর চেয়ারম্যান সাহেব রায় দিলেন, অভিযুক্তদের প্রত্যেককে জরিমানা করা হল দশ হাজার টাকা ও ১০০ জুতার বাড়ি। কনককে বেকসুর খালাস প্রদান করা হল।

একেএকে অভিযুক্ত সবাইকে জুতার বাড়িটা নগদে প্রদান করা হল,এই মহান দায়িত্বটা পালন করলেন গ্রামের পালোয়ান ফিরোজ শেখ। দশ হাজার করে মোট চল্লিশ হাজার টাকা এক সপ্তাহের মধ্যে প্রদানের আদেশ দেওয়া হল।

রহমত মিয়া দাড়িয়ে পড়লেন,
-আমার একখান কথা আছে? সবাই জিজ্ঞেস করলেন
-কি কথা কইয়্যা ফেলাও মিয়া।

-মর্জিনা একজন অসহায় বিধবা, মানুষের বাড়িতে কাম করে ওর দিন চলে। তার মেয়ে মোমেনার উপর যে অমানুষিক নির্যাতন হয়েছে সেটা ভাষায় প্রকাশের মত নয়।
মহব্বত মেম্বার বলে উঠলেন
-কি কইতে চাইছো তাড়াতাড়ি কও, আমাগো ম্যালা কাম পইড়া আছে।
-একটু সবর কর মিয়া, কইতেছি তো। আবার শুরু করলেন রহমত মিয়া
-'আমি অসহায় মর্জিনা আর তার মেয়েকে বিশ হাজার টাকা আর্থিক সাহায্য করতে চাই।
উপস্থিত সকলে এক সাথে তালি দিয়ে উঠলো। গ্রামের দু একজন বলতে লাগলো
-আসলেই মনে হয় কনক কাজটা করেনি।
আবার দুএকজন বলতে লাগলো
'টাকা যার শালিসও তার।

মন্তব্য ২২ টি রেটিং +১০/-০

মন্তব্য (২২) মন্তব্য লিখুন

১| ০১ লা এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ১২:৩৯

ভুয়া মফিজ বলেছেন: পুরো দেশের চিত্রই উঠে এসেছে এই লেখাতে।

০১ লা এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ১২:৪৫

তারেক_মাহমুদ বলেছেন: অনেক অনেক ধন্যবাদ সুপ্রিয় মফিজ ভাই।

২| ০১ লা এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ১:৩১

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: প্রিয় তারেক ভাই,

খুব ভালো লিখেছেন । সার্থক বিচার ,টাকা যার সালিশ তার । ++

শুভকামনা ও ভালোবাসা জানবেন।

০১ লা এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ২:১২

তারেক_মাহমুদ বলেছেন: অনেক অনেক ধন্যবাদ ও ভালবাসা।

৩| ০১ লা এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ১:৪০

কাওসার চৌধুরী বলেছেন:



প্রিয় তারেক ভাইয়ের সাথে বইমেলায় দেখা হয়েছিল। অনেক কথা হলো। কিন্তু ব্লগের সমস্যার জন্য দূরত্বটা বেড়ে গেছে কিছুটা! আশা করি, খুব শীঘ্রই সামু তাঁর আসল স্বকীয়তা ফিরে পাবে। ব্লগার ও পাঠকরা সহজেই প্রিয় ব্লগটিতে ঢুঁকতে পারবে।

এবার আসি "সালিশ" নিয়ে। আমাদের গ্রামীণ জীবন, সাধারণ মানুষের অসহায়ত্ব আর প্রভাবশালীদের দৌরাত্ম চমৎকারভাবে ফুটে উঠেছে এই গল্পে। রহমত মিয়ার অক্ষরজ্ঞান না থাকলেও টাকা আর পেশির জোরে তিনি গ্রামের মাতব্বর। ফলে যা হবার তাই হলো; লোকটি ভিলেজ পলিটিক্সের মধ্যমণি হলো। সবশেষে, মোমেনাকে বড় অঙ্কের আর্থিক সাহায্য করে নিজের ছেলের পাপের প্রায়শ্চিত্ত করে সমাজে ভাল মানুষ সাজলো লোকটি!!

তবে গল্পের প্রথম অংশ পড়েই আঁচ করা গিয়েছিল এর পরিণতি কি হতে পারে! এটা গল্পের প্লটকে দূর্বল করেছে খানিকটা। পাঠকরা যদি গল্পের পরিণতি আগেই ধরে ফেলেন তাহলে শেষ অবধি গল্পটি পড়ে পরিতৃপ্ত হন না। আসলে গল্পের প্লট গুলো হলো মাইন্ডগেইম। লেখকরা পাঠকদের কল্পনায় নিয়ে গিয়ে শেষ পরিণতিতে টুইস্ট করেন। এতে পাঠকরা হতবাক হন। এ বিষয়গুলো আরেকটু গুরুত্ব দিলে গল্পের গাঁথুনি আরো সমৃদ্ধ হবে নিঃসন্দেহে।

গল্পের কিছু টাইপো আছে। আরেকবার পড়লে চোখে পড়বে আশা করি। সবশেষে, একজন অতি আপনজন হিসেবে দাবী নিয়ে প্রিয় ভাইকে কথাগুলো বললাম। একজন সফল গল্পকার হয়ে উঠতে যদি আমার এই ছোট্ট ভাবনাটুকু শেয়ার করায় আপনার সামান্যতম কোন উপকার হয় তবেই আমার সন্তুষ্টি।

শুভ কামনা রইলো, তারেক ভাই।

০১ লা এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ২:১১

তারেক_মাহমুদ বলেছেন: প্রথমেই মূল্যায়নের জন্য ধন্যবাদ, আমি আসলে ওভাবে ভেবে লিখিনি, আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে যৌক্তিক পরিনতি কি হতে পারে আমি সেটাই লিখেছি। অনেক বড় লেখকের লেখা পড়েও শেষ পরিনতি কি হতে পারে সেটা প্রথমেই আচ করা যায়। আমি গল্পে একটা ম্যাসেজ দেওয়ার চেষ্টা, ছেলেমেয়েদের "ছোট ছোট অপরাধগুলো বার বার প্রশ্রয় দিলে সে একসময় বড় অপরাধী হয়ে উঠতে পারে"

পরিশেষে সুন্দর মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা ও ভালবাসা।

৪| ০১ লা এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ২:১৮

রাজীব নুর বলেছেন: তারেক ভাই সুন্দর লেখা। সত্য লেখা। বাস্তব লেখা।

ইমদাদুল হক মিলনের নূরজাহান বইটা পড়ছি।
গ্রামের সাধারন মানূষের দুঃখ কষ্টের কাহিনী।

০১ লা এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৫:২৪

তারেক_মাহমুদ বলেছেন: অনেক অনেক ধন্যবাদ রাজীব ভাই।

৫| ০১ লা এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ২:৫৩

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন:
গ্রামে এমন হর হামেশা ঘটে।

মাঝি নৌকা দিয়ে পার করে দেয় হবে।
রব মিয়া মোমেনাকে জিজ্ঞাসা করলেন হবে।
++++++

০২ রা এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ৮:০৯

তারেক_মাহমুদ বলেছেন: অনেক অনেক ধন্যবাদ সুপ্রিয় মাইদুল ভাল। ভুল ধরিয়ে দেওয়ার জন্য পুনরায় ধন্যবাদ।

৬| ০১ লা এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ২:৫৯

ওমেরা বলেছেন: টাকার কাছে মানুষ অসহায় । গল্পে বাংলাদেশের সামাজিক অবস্থা তুলে ধরেছেন । ভাল হয়েছে গল্প ।

০২ রা এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ৮:০৯

তারেক_মাহমুদ বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ ওমেরা আপু।

৭| ০১ লা এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৩:৪৩

ওসেল মাহমুদ বলেছেন: লেখা ভালো হয়েছে ! উদ্দেশ্য ও ঠিক আছে কিন্তু এমন ছেলেকে ডাক্তার বানাতে চাইলেন কেন ? আমি মনে করি একজন ভালো মনের মানুষই কেবল একজন ভালো ডাক্তার হতে পারেন !

০২ রা এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ৮:১৩

তারেক_মাহমুদ বলেছেন: আসলে সব বাবা মায়েরই স্বপ্ন থাকে ছেলে ডাক্তার ইঞ্জিনিয়ার হবে কিন্তু অতিরিক্ত আদর দিয়ে তারা যে নিজেরাই নিজেদের ছেলে মেয়েদের নস্ট করে ফেলে এটা তারা বুঝতে পারে না। পাঠ ও মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ।

৮| ০১ লা এপ্রিল, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৩৫

হাবিব স্যার বলেছেন: গ্রামের মাতাব্বার টাইপের নেতাদের কাছে অনেকেই অসহায়।

০২ রা এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ৮:১৫

তারেক_মাহমুদ বলেছেন: হুম এমনই ঘটে থাকে গ্রামগুলোতে।

৯| ০২ রা এপ্রিল, ২০১৯ রাত ১২:২৫

বলেছেন: দারুন

০২ রা এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ৮:১৫

তারেক_মাহমুদ বলেছেন: ধন্যবাদ লতিফ ভাই।

১০| ০২ রা এপ্রিল, ২০১৯ রাত ১২:৩১

সুমন কর বলেছেন: বাস্তবতার গল্প। ভালো লাগল। +।

০২ রা এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ৮:১৫

তারেক_মাহমুদ বলেছেন: অনেক অনেক ধন্যবাদ সুমন ভাই।

১১| ০২ রা এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৫:২০

ব্লগার_প্রান্ত বলেছেন: তাহলে বুঝেন দেশের এ প্লাসের মান কোথায় গেছে!!
ভালো লিখেছেন তারেক ভাই
শিক্ষনীয় গল্প

০৩ রা এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ৮:৩৩

তারেক_মাহমুদ বলেছেন: অনেক অনেক ধন্যবাদ প্রান্ত।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.