নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমি লেখক নই, মাঝে মাঝে নিজের মনের ভাবনাগুলো লিখতে ভাল লাগে। যা মনে আসে তাই লিখি,নিজের ভাললাগার জন্য লিখি। বর্তমানের এই ভাবনাগুলোর সাথে ভবিষ্যতের আমাকে মেলানোর জন্যই এই টুকটাক লেখালেখি।

তারেক_মাহমুদ

পৃথিবীর সব ভাল টিকে থাকুক শেষ দিন পর্যন্ত

তারেক_মাহমুদ › বিস্তারিত পোস্টঃ

করোনার দিনগুলোতে মধ্যবিত্ত সমাজ ভাল নেই

০৫ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১০:৫১



ছবিঃ আজ সকাল ৭.৪৫ মিনিটে গার্মেন্টস কর্মীদের কাজে যোগদানে যাওয়ার সময় নিজ বাসার ব্যালকনি থেকে তোলা


#প্রচলিত_গল্পঃ

একদিন এক কাঠুরের জীবিকা নির্বাহের একমাত্র হাতিয়ার কুঠারটি নদীর পানিতে পড়ে গেল। কাঠুরে মনে দুঃখে নদীর পাড়ে বসে কাদতে লাগলো। হঠাৎ নদীর পানির ভিতর এক জলপরি এসে বললো
- কি হয়েছে কাদছো কেন?
কাঠুরে বললো
- আমার কুঠারটি পানিতে পড়ে গেছে তাই কাদছি।
পরি পানিতে ডুব দিলো ও একটি সোনার কুঠার নিয়ে হাজির হল এবং বললো
-এটা কি তোমার কুঠার?
-না এটা আমার নয়, কাঠুরে বললো।
তখন পরি একটি রুপার কুঠার নিয়ে হাজির হল এবং বললো
- এটা কি তোমার কুঠার?
- না, ওটা আমার নয়, আমার কুঠারটি লোহার।

পরি কাঠুরের সততায় মুগ্ধ হয়ে তাকে তার কুঠারটি সাথে সোনা, রূপা কুঠার দুটি উপাহার হিসাবে দিয়ে গেল।

গল্পের এই পর্যন্ত সবারই জানা,এরপর কি হল আমরা কি জানি?

#গল্পের_অজানা_অংশ

কাঠুরে সোনার কুঠারটি বিক্রি করে একটি পাকা বাড়ি করলো এবং একটি অনেক গভীর পুকুর কাটলো।

রূপার কুঠারটি বিক্রি করে খুব বেশি টাকা পেল না,মোটা অংকের টাকা ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে সে একটি কাপড়ের দোকান দিলো ও নিজেকে মধ্যবিত্ত শ্রেণীর অন্তর্ভুক্ত করলো।

এরই মধ্যে দেশে করোনা ভাইরাসের প্রার্দুভাব ঘটলো। কাঠুরে বাধ্য হয়ে নিজের দোকান বন্ধ করে দিলো। কাঠুরের সব আয়ের পথ বন্ধ হয়ে গেল।
একদিন পুকুরঘাটে জল আনতে গিয়ে কাঠুরের বউ পানিতে ডুবে গেলো।
কাঠুরে পুকুর পাড়ে বসে কাদতে লাগলো। এরইমধ্যে সেই জলপরি আবার জলের তলা থেকে উঠে এসে জিজ্ঞেস করলো
-আবার কি হল তোমার?

-আমার বউ পানিতে পড়ে গেছে তাই মনের দুঃখে কাদছি।

পরি জলের তলায় ডুব দিয়ে খুবই সুন্দরী, প্রচুর গয়না পরা এক নারীকে নিয়ে হাজির হল

- এটাই কি তোমার বউ?

কাঠুরে সঙ্গে সঙ্গেই বললো

- হ্যাঁ ওটাই আমার বউ।

জলপরী ভিষণ হতাশ হল,

আমি তোমাকে আগেরবার সৎ লোক ভেবেছিলাম আর সেই তুমিই সুন্দরী নারী দেখে লোভ সামলাতে পারলে না?

তখন কাঠুরে বললো
-আগেরবার আমি গরিব ছিলাম, মানুষের কাছ থেকে খাবার চেয়ে খেতে পারতাম তাই সৎ ছিলাম কিন্তু মধ্যবিত্তদের খাতায় নাম লেখানোর পর সেটাও সম্ভব নয়।
করোনা ভাইরাসের কারণে আমার সব উপার্জন বন্ধ,
তাছাড়া এরপরে আপনি কি করতেন?
আর একজন রূপবতী নারীকে এনে হাজির করে বলতেন
' এটা কি তোমার বউ?

আমি যখন না বলতাম,তখন আপনি আমার বউকে নিয়ে আসতেন শেষে তিনজনকেই আমার কাছে রেখে যেতেন।

করোনা ভাইরাসের কারণে ব্যবসা একেবারে বন্ধ,একটা বউই আমার পক্ষে পালা সম্ভব নয় কি করে আমি তিনটা বউ পালবো?
মধ্যবিত্তরাতো আর কারো কাছে হাত পাততে পারে না, তাই প্রথমটাকে আমার বউ বলেছি।

#মোরাল_অফ_দ্যা_স্টোরিঃ

করোনা ভাইরাসের কারণে মধ্যবিত্তরা ভয়াবহ সংকটের মধ্যে আছেন, অনাহারে অর্ধাহারে দিন কাটছে তাদের।

মন্তব্য ১৯ টি রেটিং +৪/-০

মন্তব্য (১৯) মন্তব্য লিখুন

১| ০৫ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১১:১৮

শের শায়রী বলেছেন: সম্পুর্ন এক মত। এই শ্রেনী না খেয়ে থাকবে কিন্তু হতা পাততে পারবে না, এবং অনবেকেই না খেয়ে আছে। আর তিন বউ! একটা পালতেই জীবন শেষ সে করোনা ছাড়াও। যাই হোক নিম্ন বিত্ত তাদের অভাব দেখাতে পারে কিন্তু মধ্যবিত্তকে সে অভাব হজম করতে হচ্ছে।

০৫ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১১:৩১

তারেক_মাহমুদ বলেছেন: মধ্যবিত্তরা এখন কঠিন সময় পার করছেন, জানি না আমাদের সবার জন্য সামনের দিনগুলোতে কি অপেক্ষা করছে, অনেক ধন্যবাদ প্রিয় শের শায়রী ভাই।

২| ০৫ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১১:২৩

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: যথোপযুক্ত পোস্ট।
তবে তিন বউ পালা কঠিন কাজ তবে অসাধ্য নয়। B-)

০৫ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১১:৩৩

তারেক_মাহমুদ বলেছেন: তিন বউ পালা কঠিন কাজ তবে অসাধ্য নয়

আপনারতো সাহস দেখে তাজ্জব হয়ে গেলাম সেলিম ভাই,একটা ভাবীকে এই মন্তব্যটা দেখানো জরুরি

৩| ০৫ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১১:৪৭

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: অধিকাংশ সংবাদকর্মী মধ্যবিত্ত পরিবারের কিন্তু তারা শুধু দরিদ্র শ্রেণীর দান গ্রহণের আর উচ্চবিত্ত/ তারকাদের দান বিতরনের খবর ছাপাচ্ছে।

০৬ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ৮:১৩

তারেক_মাহমুদ বলেছেন: জি সামনে খুব খারাপ সময় আসছে মনে হচ্ছে।

৪| ০৫ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১২:১৫

ওমেরা বলেছেন: এখনি যদি এই অবস্থা হয় সামনে কেমন দিন আসতেছে আমি সেটা ভেবেই কষ্ট পাচ্ছি। আমাদের এখানেও খুব খারাপ অবস্থা , অনেক বাংলাদেশীদের জব চলে গিয়েছে আবার তারা সরকারের কোন সহযোগিতাও পাবে না,থাকা,খাওয়ার পয়সা আসবে কোথা থেকে।
ভালো থাকুন ।

০৬ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ৮:১৭

তারেক_মাহমুদ বলেছেন: উপরওয়ালাই জানেনা সামনে কি হবে, এমন অবস্থা দীর্ঘদিন চলতে থাকলে অনেকেই জবলেস হয়ে পড়বে, সামনে আমাদের জন্য অনেক বড় চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করছে

৫| ০৫ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১২:৩৫

কাছের-মানুষ বলেছেন: মধ্যবিত্ত খুবই খারাপ আছে এই সময়ে। পৃথিবীতে এরকম একটা বিপর্যয় হবে কেউ সেভাবে উপলব্দি করেনি আগে।

অফটপিক- বউ যদি বেকার না হয় তাহলে চার পাচ বউ কোন ব্যাপারনা! তবে একটি বেকার বউ লালন পালন করা আর হাতি পালন করা একই কথা এই যুগে!!

০৬ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ৮:২০

তারেক_মাহমুদ বলেছেন: এমন বিপর্যয় এই পৃথিবী শেষ কবে দেখেছে তা কারোই জানা নেই, সৃষ্টিকর্তা পৃথিবীর মানুষকে মুক্তি দিন

৬| ০৫ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১:৩১

রাজীব নুর বলেছেন: সরকারের পক্ষ থেকে ৭২ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা হলো। বিএনপি ৮৭ হাজারের প্রস্তাব করেছিলো। খুব বেশি পার্থক্য তো না। তারা হয়তো আরো বেশি খাতের প্রস্তাব দিয়েছিলো। তারপরও খুশি দুই পক্ষই মানুষ নিয়ে ভাবছে দেখে।

০৬ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ৮:২১

তারেক_মাহমুদ বলেছেন: এই ইস্যুতে সত্যি দেশ ঐক্যবদ্ধ, ইনশাআল্লাহ আমরা এই অবস্থা থেকে মুক্তি পাবো।

৭| ০৫ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১:৫২

নেওয়াজ আলি বলেছেন: জনগণ এমনি মরবে । লাভ দলীয় লোকের

০৬ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ৮:২৩

তারেক_মাহমুদ বলেছেন: কি হবে আমরা কেউ-ই জানি না, আল্লাহ সবাইকে ভাল রাখুন।

৮| ০৫ ই এপ্রিল, ২০২০ বিকাল ৪:১৩

মা.হাসান বলেছেন: এই অবস্থা দীর্ঘদিন স্থায়ী হতে পারে। আমার অফিস আমাকে হয়তো তিন মাস বসিয়ে রেখে বেতন দেবে। এর পর কোথা থেকে দেবে? সরকারের স্বলপ মেয়াদি পরিকল্পনা বাদ দিয়ে দীর্ঘ মেয়াদি পরিকল্পনা নেয়া উচিৎ।

০৬ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ৮:২৬

তারেক_মাহমুদ বলেছেন: আমিও সেটাই ভাবছি সর্বোচ্চ তিন মাস না হয় আমাদের অফিস বসিয়ে খাওয়াবে কিন্তু তারপর কি হবে সেটা সৃষ্টিকর্তাই জানেন।

৯| ০৬ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ৮:৫৮

মুক্তা নীল বলেছেন:
তারেক ভাই ,
এখন যে পরিস্থিতি মুখোমুখি হয়েছে আমরা ,
আরো আগে থেকে সচেতন হওয়া উচিত ছিল। অনেক
মানুষ ভয়াবহ কষ্ট করছে ।
আপনারা সকলে ভালো ও নিরাপদে থাকুন ।

০৬ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১০:৪২

তারেক_মাহমুদ বলেছেন: সবাই নিরাপদে থাকুন, আল্লাহ সকলের সহায় হোন।

১০| ১২ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১:৩৬

সাহাদাত উদরাজী বলেছেন: মধ্যবিত্ত! এটা কোন শ্রেনীর মধ্যে পড়ে না! না উপর না নীচে!

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.