নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

কেমন জানি খুব বেশি আত্মবিশ্বাসী,ভালবাসি বই পড়তে,তার চেয়েও বেশি ভাল লাগে ঘুরে বেড়াতে,আর কবিতা সে তো টানে আমায় অদৃশ্য সূতোয়।ঘুরেছি পৃথিবীর বহু দেশ, তবুও মন ভরেনি, আবার ও বের হব কোন একদিন পৃথিবীর পথে প্রান্তরে, আর হব আমার লেখা লেখির ফেরিওয়ালা।

মাহবুবুল আজাদ

আমি একদিন অনেক বড় হব আমার সীমানা ছাড়িয়ে azadenet@gmail.com

মাহবুবুল আজাদ › বিস্তারিত পোস্টঃ

প্রতিদিনকার ঘরে ফেরার গল্প

১৬ ই অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ১:২৩


একঃ
শ্যামলী নেমে লেগুনা তে উঠেছি আদাবর পার হতেই যাত্রী শেষ ভেতরে মাত্র চারজন এরপর একটু একটু করে তিনজন উঠল, কেউই ভেতরে বসে না, সবাই পেছনের এক জায়গায় আসন্ন সংকট চিন্তা করে আমি বললাম ভাই এভাবে দাঁড়িয়ে থাকলে একটু পর টেকঅফ করার মত অবস্থা হবে,
কেন কেন?
বললাম লেগুনার ইতিহাস তাই বলে, দেখা যাবে মোহাম্মদপুরের বদলে অন্য কোথাও চলে গেছি। তাহারা কথা মানিয়া ভেতরে তাহাদের পশ্চাৎদেশ আসনের সাথে স্থাপন করিল। আপাতত টেকঅফ করার কোন অপশন নেই। যাক নিশ্চিন্ত হওয়া গেল।

দুইঃ
একটু পরে দেখলাম আশে পাশের যাত্রী আর বাইরের ও কিছু মানুষের দৃষ্টি একযোগে ঘুরে গেল, ঘটনা কি?
আমিও তাদের দৃষ্টি অনুসরণ করে তাকালাম যা ভেবেছি তাই এক মহারুপসী খোলা চুলে রিক্সায় যাচ্ছে। এবার তার দিকে না তাকিয়ে যাত্রীদের দেখা শুরু করলাম, মনে হচ্ছে ঘাড় লক হয়ে গেছে সবার। রাস্তায় এই সৌন্দর্য না দেখে আশেপাশের মানুষের চোখ মুখ দেখলে ব্যাপক বিনোদন পাওয়া যায়। দু চার জনের দৃষ্টি তো তিনশ ষাট ডিগ্রী ঘুরে গিয়েছে।
এবার আবার একটু চিন্তায় পড়লাম, ভাবছি ড্রাইভারের কি অবস্থা সে ও যদি তিনশ ষাট ডিগ্রী ঘুরে যায় তাহলে শেষ, একটু কষ্ট করে দেখলাম তার অবস্থা, মাশাহআল্লাহ বেচারার অবস্থা ভালই আছে সৌন্দর্যকর্ষ টানে কোন প্রতিক্রিয়া নেই তার। যাক আবারো নিশ্চিন্ত হওয়া গেল।

তিনঃ
একটু পরে উঠলেন এক খালা, আমার পাশে বসলেন, এবার শুরু হল আরেক সমস্যা, উনি মোটামুটি দুজনের জায়গা নিয়ে নিলেন, কিছু করার নেই উনার খাবারের রুচি মনে হয় অতি মাত্রায় ভাল। ড্রাইভার ব্রেক করলেই উনি যে ঠেলা দিলেন আমি সহ বাকি চারজনের আসন পরিবর্তন হয়ে গেল একযোগে।
খালা বললেন বাবা ব্যাথা পাইছ?
আমি বললাম নাহ কি যে বলেন খালাম্মা।
আরে খালাম্মা বলতেছ, আজকাল তো কেউ বলেনা, অনেকদিন পরে শুনলাম তোমার মুখে, আজকাল তো বাসার কামের মাইয়াডা ও আন্টি কইয়া ডাকে। যাত্রা পথে আমার কখনই মানুষের আলগা কথা শুনতে ভাল লাগেনা। আপাতত কিছু করার নেই,
আমার খালাম্মা ডাকে উনি যারপরনাই আপ্লুত,
অনেক স্মৃতি মনে পড়ে যাচ্ছে উনার সে কাহিনী শুরু করলেন, তাতে নে গেলাম।

চারঃ
লেগুনার হেল্পার বয়স কত হবে সাত আটের বেশিনা, জিজ্ঞেস করলাম এভাবে যে ঝুলে ঝুলে আসো ভয় লাগেনা,
নাহ পরথম পরথম লাগত, এহন লাগেনা।
পড়ালেখা করনা কেন?
বাপে কইছে লাগব না, রোজ রোজ টাহা নিয়ে দেয়া লাগে, নইলে মারে।
আচ্ছা, তোমার কি পড়তে ইচ্ছা করে,
জানিনা , তয় মনে হয় ভালই অইত পড়তে পারলে।
পাশ দিয়ে যাওয়া একটা প্রাইভেট কারের দিকে এক করুণ চোখে তাকায়। এ চোখে হয়ত কিছু স্বপ্ন আছে, যার কোন রাস্তা সে জানেনা, বোঝেনা জীবনের কি মানে। শুধু জানে দিন শেষে কয়টা টাকা ঘরে নিয়ে ফিরতে হবে। আমরা কোন দিক দিয়ে প্রকৃত উন্নত হয়ে গেছি জানি না।
আজকে যদি এইসব যানবাহনের ছোট ছোট শিশুরা আপনাকে প্রশ্ন করে স্বপ্ন কাকে বলে? আমাকে একটা স্বপ্ন দেখাবেন? কি করবেন?
পারবেন কি?
প্রতিদিন আক্ষেপের ঝুলিতে অনেক আক্ষেপ জমা হয়। অনেক কিছু না পারার দলে লোকের সংখ্যা বেড়েই যাচ্ছে, পরিবর্তনের স্লোগানে আকাশ বাতাস প্রকম্পিত, কিন্তু দিন শেষে আমরা ঘরের ফেরার পথে ঠিকই ঝাঁকি খেতে খেতে আসি খানা খন্দে ভরা রাস্তার অসুখে।


মন্তব্য ৬ টি রেটিং +১/-০

মন্তব্য (৬) মন্তব্য লিখুন

১| ১৬ ই অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ১:৪৮

স্বপ্নের শঙ্খচিল বলেছেন: জীবনের গল্প এভাবেই চলতে থাকুক

১৬ ই অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ২:০২

মাহবুবুল আজাদ বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ। চলতে থাকুক এসব গল্প জীবনের পরতে পরতে। সাথে থাকুন সবসময়।

আন্তরিক শুভ কামনা।

২| ১৬ ই অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ২:০৪

রেইড ইন স্কাই বলেছেন: জীবনের খাতা অনেক সুন্দর, লিখতে থাকুন।

১৬ ই অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ২:০৭

মাহবুবুল আজাদ বলেছেন: সেভাবেই চলছি ।

ভাল থাকা হোক নিরন্তর।

৩| ১৬ ই অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৫:০০

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: ভাল লিখেছেন।
সরকার তো শিশু শ্রমিকদের নিয়ে কাজ করে।কাজটা ঠিকঠাক ভাবে হলে হয়তো দেশে কোন শিশু শ্রমিক থাকতো না।

১৬ ই অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৩৪

মাহবুবুল আজাদ বলেছেন: কথাটা ঠিকই বলেছেন , কিন্তু সমস্যা হচ্ছে উদ্যোগ নেয়া হয় কিন্তু বাস্তবায়ন হচ্ছে না ঠিকমত।

এক শ্রেণীর সুবিধাভোগী মানুষের জন্যই এমন অবস্থা।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.