নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ভুয়া মফিজ

ভুয়া মফিজের সাথে ভুয়ামি না করাই ভালো...

ভুয়া মফিজ › বিস্তারিত পোস্টঃ

আমেরিকা থেকে রাশিয়া হেটে যাওয়া সম্ভব! আপনাদের কি মনে হয়!!!

৩০ শে জুন, ২০২০ দুপুর ১২:২৭



আমার এই লেখাটার পটভূমিটা বলি আগে।

যারা আমার লেখার সাথে মোটামুটি পরিচিত, তারা বলতে গেলে অনেকেই আমার দোস্ত কাম কলীগ ক্রিসকে চিনেন। আমার মতোই ওর-ও নিত্য নতুন কুইজিন কিংবা খাবার-দাবারের স্বাদ নেয়ার ব্যাপারে দূর্বলতা আছে। ওর অনেকদিনের ইচ্ছা, আমরা ইফতার কিভাবে এবং কি দিয়ে করি সেটা জানা। আসলে এই জানার ইচ্ছার পিছনে মূল উদ্দেশ্য হলো মুফতে ভুড়িভোজন। সোজাসুজি বলতে একটু লজ্জা হয়তো পায়, সেজন্যে ঘুরিয়ে-প্যাচিয়ে বলে। তবে আমি শর্ত দিয়ে রেখেছিলাম, ইফতার করতে হলে রোযা রাখতে হবে। কিন্তু যখনই শোনে পানি কিংবা সিগারেটও ছোয়া যাবে না, তখন পিছিয়ে যায়। বলতে গেলে গত রমযান থেকেই সে এই আগু-পিছুর খেলা খেলছে। বিভিন্নভাবে আমাকে বোঝানোর চেষ্টা করেছে, ওর জন্য কোন ছাড়ের ব্যবস্থা করা যায় কি না! যাই হোক, শেষ পর্যন্ত ও বুঝতে পেরেছে যে, আমার সাথে দেন-দরবার করে কোন লাভ নাই; ইফতার করতে হলে রোযা রাখতেই হবে। ''আমার মন পাথরের মতো'' ইত্যোকার বিভিন্ন আপত্তিকর ডায়লগ উপহার দিয়ে অবশেষে বিগত রমযানের অষ্টম রোযাতে সে অসাধ্য সাধন করে আমার সাথে ইফতার করেছে।

ইফতারের টেবিলেই এই কথা সেই কথাতে আন্তর্জাতিক রাজনীতি তথা আমেরিকা-রাশিয়ার প্রসঙ্গ আসলো। এরই এক পর্যায়ে সে আমাকে জানায়, ওর অনেকদিনের শখ……...হেটে আমেরিকা থেকে রাশিয়া যাবে।

আমি ওকে আরেক গ্লাস রুহ আফজা শরবত এগিয়ে দিতে দিতে বললাম, কি ছাগলের মতোন আবোল-তাবোল কথা কস তুই? একটা রোযা রাইখ্যাই দেখি তোর স্যুগার লেভেল নাইমা হাটুর নীচে গ্যাছে গা! নে, এইটা এক চুমুকে খায়া ফালা। মাথা ঠিক হইবো।

ও সিরিয়াস হয়ে বললো, আবোল-তাবোল না মফিজ। তুমি জানো না যে এই দুইটা প্রতিবেশী দেশ? দেশ দুইটার মধ্যে বিশেষ সময়ে হাটা পথ তৈরী হয়? তারপরে আমাকে ফাদে ফেলার আনন্দে বললো, নিজেরে তো তুমি সবজান্তা শমসের মনে করো, আর এইটা জানোনা যে, এই দেশ দুইটা নেক্সট ডোর নেইবার!!!

মনে মনে বললাম, হালায় গেছে…….এরে আর রোযা রাখার কথা বলা যাবে না, এমনেই আরেকদিন ইফতার খাওয়ায়ে দিবো।

যাই হোক, বিদায় নেয়ার সময়ে আবারও বললো, তুমি সত্যিই জানো না! ঠিকাছে, আমি যাওয়ার পরে নেট ঘাটাঘাটি করো। আর এইবার করোনায় ভালোমতোই জানান দিছে যে, যে কোনও সময়ে আমি ফুট্টুস হয়া যাইতে পারি। তাই ভাবতাছি ফ্লাইট চালু হইলে এই বছরেই একটা এটেম্প্ট নিমু, কোন শখ ফালায়া রাখা ঠিক না। তুমি তৈরী থাইকো কিন্তু; একলগেই যামুনে।

বিষয়টা সম্পর্কে আসলেই কোন ধারনা ছিল না আমার। মনে মনে ভাবলাম, প্রতিবেশী দেশই যদি হয়, তো এতো এতো পয়সা খরচাপাতি করে আন্তঃমহাদেশীয় ক্ষেপনাস্ত্র বানানোর দরকার কি ব্যাটাদের! বর্ডার ক্রস করে ইন্ডিয়া-চীনের মতো ঝাপায়া পড়লেই তো পারে একটা আরেকটার উপরে! পরবর্তীতে সময় কইরা খোজ…..'দ্য সার্চ' লাগাইলাম। যতটুকু ফ্যাক্ট উদ্ধার করতে পারলাম তাতে আমার মনে এই ভাবনার উদয় হইলো……. আপনেরা যারা জানেন, তারা তো জানেনই; তবে যারা আমার মতো এই বিষয়ে বকলম, তাদের জন্য একটা পোষ্ট দিয়াই ফালাই, যা থাকে কপালে!!!

----------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------

দেশটার গালভরা নাম হলো ইউনাইটেড স্টেটস অফ আমেরিকা যেটা সংক্ষেপে ইউএসএ, এটাই বাংলায় বহুল প্রচলিত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র……...সবার জন্য আমেরিকা, আবার কারো কারো কাছে আম্রিকা; ৫০টা স্টেটের সমন্বয়ে একটা দেশ। কোন রকমের বিতর্ক ছাড়াই আমেরিকা তাদের ভু-সীমানা শেয়ার করে দু'টা দেশের সাথে; একটা কানাডা, আরেকটা মেক্সিকো।

এবার চলেন একটু ইতিহাস কচলা কচলি করি।

১৮৫৩ সালের অক্টোবর থেকে ফেব্রুয়ারী ১৮৫৬ পর্যন্ত একটা ‍যুদ্ধ হয়, যা ইতিহাসে ''ক্রিমিয়ার যুদ্ধ'' নামে পরিচিত। এটার একপক্ষে ছিল রাশিয়া আর অপরপক্ষে ছিল অটোম্যান সাম্রাজ্য, ফ্রান্স, বৃটেন আর সার্ডিনিয়া। যুদ্ধে রাশিয়া শোচনীয়ভাবে পরাজিত হয়। আলাস্কা সপ্তদশ শতাব্দী থেকেই ছিল রাশিয়ার ভুখন্ড। ক্রিমিয়ার যুদ্ধে হারের পরে রাশিয়ার জার 'ক্যালিফোর্নিয়া গোল্ড রাশ' এর কথা মাথায় রেখে চিন্তা করলেন যে, ভবিষ্যতে এ'ধরনের কারনে কোন যুদ্ধ যদি আবার লেগেই যায়, তাহলে বৃটিশ বা অন্যদের থেকে আলাস্কাকে রক্ষা করা অসম্ভব হয়ে দাড়াবে। ফলে সময় থাকতে থাকতেই এই ভুখন্ড বেচে দেয়া উচিত। তাছাড়া যুদ্ধে হারের পরে তার অর্থকষ্টও বেড়ে যায়। একজন সম্রাটের জন্য অর্থকষ্ট, গরীবের শ্বাসকষ্টের মতোই যন্ত্রণাকর একটা ব্যাপার! এই অবস্থায় তৎকালীন রুশ জার অর্থাৎ সম্রাট দ্বিতীয় আলেক্সান্ডার আলাস্কা বেচে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন। প্রথমে রাশিয়া বৃটেনকে এটা কেনার জন্য প্রস্তাব পাঠায়। কিন্তু বৃটিশরা ভাবলো, এটা ভবিষ্যতে গোদের উপর বিষফোড়া হয়ে দাড়াতে পারে। ফলে রাশিয়া আমেরিকাকে একই প্রস্তাব দেয়। আমেরিকানরা দোনোমোনো করতে করতেই গৃহযুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে, ফলে পুরো ব্যাপারটাই ঝুলে যায়। আমেরিকার গৃহযুদ্ধের সমাপ্তির পরে তাদের সেক্রেটারী অফ স্টেট উইলিয়াম সিউয়ার্ড এবং রুশ মন্ত্রী এডোয়ার্ড আদ্রেভিচ স্টকল একটা সমঝোতায় পৌছান। এরই ধারাবাহিকতায় ১৮৬৭ সালের ৩০শে মার্চ আলাস্কা হস্তান্তরের চুক্তি হয় ৭.২ মিলিয়ন ডলারে, ২০১৮ সালের হিসাবে যার মুল্যমান দাড়ায় আনুমানিক ১০৯ মিলিয়ন ডলার। ১৫০ বছরে এটার মুল্য বাড়ে মাত্র ১৫গুন! খুব কি ভালো ডিল বলা যাবে এটাকে? আমাদের দেশের বসুন্ধরা, ইষ্টার্ন হাউজিং বা রুপায়ন; শুধুমাত্র এরাই এ'ব্যাপারে বিশেষজ্ঞ মতামত দিতে পারবে। আমেরিকার পুণর্গঠনের সময়ে এই ক্রয় নিয়ে তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট এন্ড্রু জনসনের সাথে কংগ্রেসের তুমুল কাইজ্জা-ফ্যাসাদ হয়। পরে অবশ্য সিনেট কর্তৃক বিশাল ব্যাবধানে এই ক্রয় অনুমোদিত হয়।


চুক্তিসই অনুষ্ঠান


রুশ সম্রাট কর্তৃক আলাস্কা ক্রয়-বিক্রয় চুক্তির অনুমোদন


আমেরিকার ইস্যুকরা আলাস্কা ক্রয়ের চেক

বাংলাদেশের আয়তনের দশগুনেরও বেশী বড় ৫,৮৬,৪১২ বর্গ মাইলের এই ভু-খন্ডটুকু আমেরিকা কেন কিনলো? বেশীরভাগ আমেরিকান মনে করেছিল এটার ফলে এশিয়ার সাথে ব্যবসা-বানিজ্য করা সহজতর হয়ে উঠবে; ফলে, তখন এটাকে ইতিবাচক পদক্ষেপ হিসাবেই দেখা হয়েছিল। বিরুদ্ধ মতের লোকেরা অবশ্য উপহাস করে এই ডিলটার নামকরন করেছিল ''সিউয়ার্ড'স ফলি'' (সিউয়ার্ডের বেকুবী) অথবা ''সিউয়ার্ড'স আইসবক্স'' (সিউয়ার্ডের বরফের বাক্স)।

যাই হোক, হস্তান্তরের পরে সেটলার রুশরা মোটামুটি সবাই নিজ দেশে ফিরে যায়। এলাকাটা ১৮৯৬ সালের বিখ্যাত ক্লনডাইক গোল্ডরাশের (আলাস্কান গোল্ডরাশ নামেও পরিচিত) আগে পর্যন্ত মোটামুটি জনবিরলই ছিল। পরবর্তীতে তালিকায় আরো যুক্ত হয় নম গোল্ডরাশ (১৮৯৯-১৯০৯) আর ফেয়ারব্যাঙ্ক গোল্ডরাশ (উনিশ শতকের শুরুর দিকে)। এগুলোই এই অন্চলে প্রান-চান্চল্য নতুন করে ফিরিয়ে আনে। সেটা আকর্ষণীয় হলেও অন্য কাহানী……..আমার এই পোষ্টের সাথে মোটেই সম্পর্কিত না, তাই সেদিকে আর নাই বা গেলাম।

এভাবেই ১৮৬৭ সালে আলাস্কা হয়ে যায় ইউনাইটেড স্টেটস অফ আমেরিকা'র ৪৯তম স্টেট। তবে একটা কারনে আলাস্কা অন্যান্য স্টেট থেকে ইউনিক। মূল ভু-খন্ডের কোন আমেরিকানকে যদি ভুমি ব্যবহার করে আলাস্কা যেতে হয়, তবে তাকে যেতে হবে কানাডার উপর দিয়ে। এর মানে হলো, এই স্টেটটা আমেরিকার মূল ভু-খন্ডের সাথে সরাসরি যুক্ত না।


আলাস্কার লোকেশান ম্যাপ

এখন আসি আমেরিকা (আলাস্কা) থেকে রাশিয়া হেটে যাওয়ার বিষয়ে।

রাশিয়ার মূল ভুখন্ড আর আলাস্কা বেরিং প্রণালী দিয়ে আলাদা করা, যা কিনা উত্তর মহাসাগর (আর্কটিক ওশ্যান) আর বেরিং সাগরকে যুক্ত করেছে। এই দুই ভু-খন্ডের সবচাইতে কম দুরত্ব হলো ৫৫ মাইল। এই ৫৫ মাইল দুরত্বের মোটামুটি মাঝামাঝি স্থানে দু'টা দ্বীপ আছে। বড় ডায়ামিড (রাশিয়া), ছোট ডায়ামিড (আমেরিকা)। এই দুই দ্বীপের পারস্পরিক দুরত্ব ২.৫ মাইল। শীতকালে বেরিং প্রণালীর পানি শক্ত বরফে পরিনত হয়, ফলে এর উপর দিয়ে হেটে অনায়াসে এবং আক্ষরিক অর্থেই আপনি আমেরিকা থেকে রাশিয়া যেতে পারেন। কেউ কি গিয়েছে? উত্তর হলো, হ্যা।


বেরিং প্রণালী এবং বড়/ছোট ডায়ামিডের অবস্থান


মন্তব্য নিষ্প্রয়োজন

আলাস্কা থেকে রাশিয়ার মূল ভু-খন্ডে যাওয়া, কিংবা দুই ডায়ামিডের মধ্যে হাটাহাটি করা একটা এ্যডভেন্চার। আর যেখানে এ্যডভেন্চারের গন্ধ, সেখানেই কতিপয় মানুষ তৈরী থাকে চ্যালেন্জ নেয়ার জন্য। কয়েকটা ঘটনা বলি।

ঘটনা ১ঃ ১৯৮০ সাল থেকে অবৈধভাবে আমেরিকায় থাকা ২৭ বছরের মেক্সিকান লাজারো রুইজ ক্যাস্ট্রো ১৯৮৭ সালের ১৫ই জানুয়ারী সোভিয়েত কালচার দেখার জন্য শখ করে ছোট ডায়ামিড (আমেরিকা) থেকে হেটে বড় ডায়ামিড (রাশিয়া) যায়। তবে তার রাশান কালচার দেখার তেমন একটা সৌভাগ্য হয় নাই। সীমান্ত রক্ষীরা তাকে ১৮ দিন আটকে রেখে সোভিয়েত জেলের কালচার দেখিয়ে আমেরিকায় ফেরত পাঠায়।

ঘটনা ২ঃ ১৯৮৭ সালের ৭ই অগাষ্ট লিন কক্স নামে ৩০ বছর বয়সী এক দুঃসাহসী আমেরিকান মেয়ে প্রথমবারের মতো বরফ শীতল বেরীং প্রণালী মাত্র দুই ঘন্টায় সাতরে তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নে যায়……...এটা ভেবেই আমার শরীর জমে বরফ!!! এর আগেও মাত্র ১৫ বছর বয়সে এই মেয়ে সাতারুদের জন্য বিশ্বের অন্যতম কুখ্যাত স্থান, ইংলিশ চ্যানেল ৯ ঘন্টা ৫৭ মিনিটে পার হয়। সেটা সে'সময়ে পুরুষ-মহিলা সবার জন্যই বিশ্ব রেকর্ড ছিল।

ঘটনা ৩ঃ ২০০৬ এর মার্চ মাসে বৃটিশ সেনাবাহিনীর এক্স-প্যারাট্রুপার কার্ল বুশবি আর ফ্রেন্চ অভিযাত্রী দিমিত্রি কিফার পায়ে হেটে ১৪ দিনে হিমশীতল ১৫০ মাইল পথ (যাওয়া-আসা মিলিয়ে) অতিক্রম করে বেরিং প্রণালী পাড়ি দিয়েছিল।

তবে কথা হলো, রাশিয়া-আমেরিকা প্রতিবেশী কিনা এটা নিয়ে খোদ আমেরিকানরাই দ্বিধা-বিভক্ত। এ'ব্যাপারে বিভিন্ন মন্তব্য পড়তে পড়তে আমার মনে পড়ে গেল, বহু ব্রিটিশই মনে করে বৃটেন যেহেতু একটা দ্বীপরাষ্ট্র, এটা ইওরোপের অন্তর্ভুক্ত না। আবার ইওরোপের অনেকেও বৃটিশ দ্বীপপুন্জসহ আরো কিছু দ্বীপকে ইওরোপের অংশ বলে মনে করে না।। এটা নিয়ে বিতর্ক বিতর্কের জায়গায় থাকুক। আমার লজিক বলে, গ্রেইট ব্রিটেন যেমন ইওরোপের অংশ, তেমনি রাশিয়াও মহান আমেরিকার প্রতিবেশী দেশ। একটা সহজ বিষয়কে জটিল করার মানে কি? হুদাই ক্যাচাল। পৃথিবীতে কিছু মানুষই থাকে ক্যাচাইল্যা। এদেরকে যদি আপনি বলেন……..ভাইজান, আপনি কিন্তু মানুষ হিসাবে চমৎকার! তাহলেও এরা ক্যাচাল বাধাবে। বলবে, এই কথা বলার পিছনে নিশ্চয়ই আপনার কোন গোপন এজেন্ডা আছে। বলেন, ঠিক না বেঠিক!!!

অনেক কসরৎ করার পর এক সময়ে লেখাটা শেষ করে ক্রিসকে ফোন দিলাম। বললাম, তোর জন্য দুইটা খবর আছে। একটা ভালো, আরেকটা খারাপ। কোনটা আগে শুনবি?

ও বললো, খারাপটাই আগে কও, শুনি!

আমি বললাম, ওই হাড্ডি-কাপানো ঠান্ডার মধ্যে পাহাড়-পর্বত ডিঙ্গায়া আমি তোর লগে বরফের উপর দিয়া তিন মাইল হাইট্টা রাশিয়া যাইতে রাজি না, আমারে মাইরা ফালাইলেও না। আর ভালো খবর হইলো, লেখাটা তোর নামে উৎসর্গ করতাছি।

এটা শুনেই সে মহা উত্তেজিত! আমাকে পই পই করে বলেছে, লেখাটার একটা প্রিন্টআউট তুমি কালকে অবশ্য অবশ্যই নিয়া আসবা। পড়তে তো পারুম না, তয় বান্ধাইয়া আমার ডেস্কের সামনে রাইখ্যা দিমু। প্রমান থাকবো যে, তুমি বিষয়টা জানতা না, আমার সৌজন্যে জানছো! এইটা দেইখাও মনের শান্তি!!!


শিরোনামের ছবিটা আমেরিকার ছোট ডায়ামিড দ্বীপের, এটাসহ বাদবাকী ছবি, তথ্য সবকিছু গুগলের সৌজন্যে প্রাপ্ত।।

মন্তব্য ৫৮ টি রেটিং +২০/-০

মন্তব্য (৫৮) মন্তব্য লিখুন

১| ৩০ শে জুন, ২০২০ দুপুর ১২:৫৯

অপু তানভীর বলেছেন: আম্রিকা থেইকা রাশিয়া হাইটা যাওয়া সম্ভব কি না জানতে চাই না। আগে কন বাংলাদেশ থেইকা আম্রিকা হাইয়া যাওন যায় কি না ! আমার প্রেমিকা সেই খানে থাকে । বহুত দিন তার সহিত দেখা নাই। পকেটে টেকাটুকাও নাই । :D

৩০ শে জুন, ২০২০ দুপুর ১:৩৫

ভুয়া মফিজ বলেছেন: অবশ্যই যাওন যায়। ট্যাকা লাগবো, না লাগনের মতোই.......আপনের রুট হইলো, ইন্ডিয়া-চীন-রাশিয়া-আলাস্কা-কানাডা-আম্রিকায় আপনের প্রেমিকা!!! কাইলই হাটা শুরু করেন। অল দ্য বেস্ট হাটা!!! :P

২| ৩০ শে জুন, ২০২০ দুপুর ১:২৫

জাহিদ হাসান বলেছেন: অপু তানভীর ভাই আমি যা বলতে চাইছি তার সাথে সম্পূর্ণ মিলে গেছে। পুরোটাই। আজব ব্যাপার।

৩০ শে জুন, ২০২০ দুপুর ১:৩৬

ভুয়া মফিজ বলেছেন: উনাকে রুট বলে দিয়েছি। দুইজন একসাথেই যান। =p~

৩| ৩০ শে জুন, ২০২০ দুপুর ১:৩৩

কল্পদ্রুম বলেছেন: আচ্ছা,কানাডা কখনো আলাস্কা কিনে নিতে চায়নি?

৩০ শে জুন, ২০২০ দুপুর ১:৪০

ভুয়া মফিজ বলেছেন: না.....সে সময়ে কানাডা বৃটিশ কলোনী ছিল। বৃটিশরা কিনতে চায় নাই.....ওইটাই আসল কথা তখন। :)

৪| ৩০ শে জুন, ২০২০ দুপুর ১:৩৫

জুন বলেছেন: ছি ছি ছি ভুয়া! আমি তো আপনেরে বিশাল গিয়ানী ভাবছিলাম :-* আমেরিকার সাথে সেইই উত্তর মেরুর কাছাকাছি দিয়ে মানে বেরিং প্রনালী দিয়ে এককালের সোভিয়েত ইউনিয়ন তথা রাশিয়ার ভুখন্ড যাওয়া যায়। আপনি যখন ঐ লোকরে আরেক গ্লাস রুহ আফজা দিলেন তখন টুক কইরা আমারে একটু নক করতেন। তাইলে তো আর এত্ত কষ্ট ( গুগুল ঘাটা, পোস্ট লেখা) করা লাগতোনা। আমি তো আপ্নেরে পন্ডিত ভাইবাই কইতাম পড়াশোনা কইরা আইসা মন্তব্য কর্তাছি ;)

আর যে মহিলা লাল জামা পইড়া রাশিয়া দেক্তেছে সেতো আলাস্কার গভর্নর, প্রেসিডেন্ট ইলেকশনে দাড়িয়েছিল। নামটা মনে আস্তেছে না।
যাই হোক তাও প্লাস দিলাম।
+

৩০ শে জুন, ২০২০ দুপুর ১:৪৪

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আপনে ক্যান, ক্রিসও আমারে বিশাল গেয়ানী ভাবে। এহন তো আসল ব্যাপারটা বুজতে পারছেন। আর আপনের উপ্রে ভরসা করন যায় না। আমি তো আপ্নেরে পন্ডিত ভাইবাই কইতাম পড়াশোনা কইরা আইসা মন্তব্য কর্তাছি ;) এই কথা কয়াই আপনে হাওয়া হয়া যান গিয়া। আমার অতীত অভিজ্ঞতা তাই কয়। আপনেরে জিগায়া বিপদে পড়মু নি!!! =p~

মহিলার নামটা মনে কইরা জানায়েন। :)

৫| ৩০ শে জুন, ২০২০ দুপুর ১:৩৬

জুন বলেছেন: ওই পথেই রেড ইন্ডিয়ানরা এশিয়া থেকে আম্রিকা গিয়েছিল জাইনা রাখেন /:)

৩০ শে জুন, ২০২০ দুপুর ১:৪৯

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আপনের কথা ঠিক, কিন্তুক সে অনেক অনেক আগের কথা। আপনে বেরিন্জিয়া'র নাম হুনছেন?

৬| ৩০ শে জুন, ২০২০ দুপুর ১:৩৬

নেওয়াজ আলি বলেছেন: বাড়ির কাছে সাজেক ভ্যালী রেখে আপনি পুরা দুনিয়া ঘুরালেন। তাহা ছাড়া যারা পাহাড় পর্বত বন জঙ্গল সাগর মহাসাগর পার হয়ে ইউরোপ যায় আমরা বলি হেটে হেটে ইটালী গিয়েছে।

৩০ শে জুন, ২০২০ দুপুর ১:৫২

ভুয়া মফিজ বলেছেন: সাজেক ভ্যালী তো অবশ্যই ঘুরবেন......সেই সাথে দুনিয়াও ঘুরেন, অসুবিধা কি? ইটালী তো হেটে হেটে যায় না, নৌকায় যায়! :-B

৭| ৩০ শে জুন, ২০২০ দুপুর ১:৫৬

জুন বলেছেন: অই মহিলার নাম সারাহ পলিন। ২০০৮ এর আমেরিকার ইলেকশনে রিপাবলিকান প্রার্থী জন ম্যাককেইনের ডেপুটি হিসেবে দাড়িয়েছিল আর হেরেছিল ডেমোক্রেট প্রার্থী বারাক ওবামার ডেপুটি জো বাইডেনের কাছে।

৩০ শে জুন, ২০২০ দুপুর ১:৫৯

ভুয়া মফিজ বলেছেন: অই মহিলার নাম সারাহ পলিন আপ্নে হাস কইচ্চেন!! আপনের গেয়ান দেইখা আমি কিন্তু মুগ্ধ হইছি আফা! B-)

৮| ৩০ শে জুন, ২০২০ দুপুর ২:২৭

পদ্ম পুকুর বলেছেন: প্রথম কথা হলো ভুগোলের কথা মনে হলেই মনে পড়ে বেলা ২-৩টা, দিনের শেষ দিকের ক্লাস। বাইরের ভোঁ ভোঁ রোদ, পেটে চোঁচোঁ খিদে, আর কবীর স্যার ভুগোল পড়াচ্ছেন.... পড়া শুনবো কি, মেজাজ খিচড়ে আছে....। এই চরিত্রের কারণেই ভুগোল সারাজীবন খটোমটো সাবজেক্ট হয়ে থাকলো।
সেই খটোমটো ভুগোল এ রকম রসিয়ে লেখা ভুয়া লোকদের পক্ষেই সম্ভব!!!! :-P

দ্বিতীয়ত: প্রতিযোগিতামুলক পরীক্ষার সময় ইতিহাস ভুগোল অংক সব পড়তে গিয়ে আলাস্কার বিষয়টা জানতাম, কিন্তু এটা যে রাশিয়ার পক্ষ থেকেই প্রপোজ করা হয়েছিলো, কোনো গাইডেই সেটা লেখা ছিলো না, বরং আমার যদ্দুর মনে পড়ছে, এক যায়গায় পড়েছিলাম যে এই এলাকায় বিপুল পরিমাণ খনিজের উপস্থিতির বিষয়টা জানতে পেরে যুক্তরাষ্ট্রই প্রস্তাব দিয়েছিলো....
প্রশ্নপত্র ফাঁস জেনারেশনের এই এক সমস্যা.... =p~ গাইড ছাড়া কিছু জানেনা।

তৃতীয়ত: আম্রিকা আরও কয়েকটা যায়গা যেমন লুইজিয়ানা, ফ্লোরিডা, এইগুলানও কিনছে ফ্রান্স স্পেনের কাছ থিক্যা। আম্রার কপাল খ্রাপ, নইলে আম্রিকার ধারে কাছে হয়্যা আম্রা আইজকা আম্রিকান হইতে পার্তাম... :(

গুড হিউমার পোস্ট। প্লাস

৩০ শে জুন, ২০২০ বিকাল ৩:০২

ভুয়া মফিজ বলেছেন: দেশের তথাকথিত গাইড পইড়া পরীক্ষায় পাশ করা যায়। কারন, খাতা যারা দেখে, তাদের জ্ঞানের দৌড়ও ওই গাইড লেখকদের মতোই। কিন্তু এন্ড প্রোডাক্ট হইলো.....প্রশ্ন ফাস জেনারেশনের সদস্য।

আর কপাল আসলে আমাগো না, আম্রিকানগো খারাপ। দেশ যেইভাবে আগায়া যাইতাছে তাতে আর কিছুদিন পরে ওরা কইবো, বাংলাদেশের ধারে কাছে হয়া আমরা আইজকা বাংলাদেশী হইতে পারতাম!!! =p~

আসলে পড়ালেখায় রসকষ না থাকলে যে কোনও বিষয়ই খটোমটো। এইটা আমি ঠিকমতো বুজছি এই দ্যাশে আয়া। এরা বাচ্চাগো যেইভাবে পড়ায়.....জাস্ট অসাম!!!

৯| ৩০ শে জুন, ২০২০ দুপুর ২:৩১

রাজীব নুর বলেছেন: হেঁটে যাওয়া সম্ভব হলে এতদিনে আমি আম্রিকাতে থাকতাম।

৩০ শে জুন, ২০২০ বিকাল ৩:০৩

ভুয়া মফিজ বলেছেন: এখন তো জানলেন.....চিড়া-মুড়ি নিয়া রওয়ানা দেন। ;)

১০| ৩০ শে জুন, ২০২০ বিকাল ৩:১৬

সমূদ্র সফেন বলেছেন: রাশিয়া থেকে শ্রীমঙ্গলের চা বাগান পর্যন্ত হেঁটে আসতে চাইলে দেখে ফেলুন The Way Back“সিনেমা।
ভালো লাগবে ।

৩০ শে জুন, ২০২০ বিকাল ৫:১৩

ভুয়া মফিজ বলেছেন: সাজেষ্ট করার জন্য ধন্যবাদ। পারলে লিঙ্কটা দিয়েন, দেখার ইচ্ছা পোষণ করছি। :)

১১| ৩০ শে জুন, ২০২০ বিকাল ৪:৩৮

শায়মা বলেছেন: হা হা এত হাঁটাহাঁটির শখ ভাইয়া!!!

হাঁটাটাঁটির জায়গা পেলে না।শেষে বরফের উপর দিয়ে হাঁটতে চাইলে ।

অবশ্য স্কি করে চলে যেতে পারো তার বদলে। দড়াম করে পড়ে হাড্ডি গুড্ডি ভাঙ্গলে কিন্তু আমার দোষ নাই।:)

৩০ শে জুন, ২০২০ বিকাল ৫:১৫

ভুয়া মফিজ বলেছেন: হাটাহাটির শখ কোথায় দেখলে....না-ই তো করে দিলাম। বরফের উপর দিয়ে ওই ঠান্ডার মধ্যে হাটার কোন শখ নাই আমার। :((

১২| ৩০ শে জুন, ২০২০ বিকাল ৪:৫৬

করুণাধারা বলেছেন: কই আমেরিকা আর কই রাশিয়া!! হেঁটে যাওয়া অসম্ভব মনে হচ্ছিল, কিন্তু আপনার সৌজন্যে জানা গেল সেটা সম্ভব। জানানোর জন্য শুকরিয়া, নতুন একটা জিনিস জানতে পেরে আনন্দিত হলাম।

লিন কক্সের কথায় লিখলেন বেরিঙ প্রণালীর পানি ঠান্ডা, এর তাপমাত্রা জানানো উচিত ছিল আপনার!! টাইটানিক ডোবার সময় অ্যাটলান্টিকের যে পানিতে পড়ে সবাইকে জমে যেতে হচ্ছিল তার চেয়ে কম না বেশি? এই তথ্য পাওয়া গেলে বুঝতাম ব্লগাররা নিরাপদে বাংলাদেশ থেকে আমেরিকা পৌঁছাতে পারবেন কিনা।

৩০ শে জুন, ২০২০ বিকাল ৫:২১

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আসলে পৃথিবীতে জানার কোন শেষ নাই। আমিও তো প্রথমে ভেবেছিলাম, এটা অসম্ভব একটা কাজ.....পরে না দেখলাম, খুবই সম্ভব!! পানির তাপমাত্রা জেনে কি লাভ? আপনারও কি সাতার কেটে রাশিয়া যাওয়ার ইচ্ছা হচ্ছে নাকি? :P

টাইটানিক অতীতের ঘটনা। এখন এই দুর্ঘটনা ঘটলে পরিস্থিতি অমনটা হতো না নিশ্চয়ই! আর আমাদের ব্লগারগন অতি স্মার্ট। তাছাড়া, তারা তো সাতার কাটবে না। হাটা তাদের জন্য কোন ব্যাপারই না। ভরসা রাখেন। =p~

১৩| ৩০ শে জুন, ২০২০ বিকাল ৫:০২

ইসিয়াক বলেছেন:



ভাবছি কি মন্তব্য করবো :( ?

৩০ শে জুন, ২০২০ বিকাল ৫:২৩

ভুয়া মফিজ বলেছেন: ফাকিবাজী করেন ক্যান......ভাবছি.......ভাবাভাবির কিছু নাই। হাইট্টা যাইতে চাইলে রওয়ানা দ্যান!! :-B

১৪| ৩০ শে জুন, ২০২০ বিকাল ৫:২৮

জেন রসি বলেছেন: আলাস্কা বিক্রি করে মনে হয় লং টার্মে রাশিয়ার লসই হয়েছে।

৩০ শে জুন, ২০২০ বিকাল ৫:৩৮

ভুয়া মফিজ বলেছেন: সেই সময়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এটা ঠিকই ছিল, কারন তখন রাশিয়া এটাকে আসলেই ধরে রাখতে পারতো না। তবে, এখনকার পরিস্থিতি ভিন্ন। এখন কোন দেশই এক ইন্চি জমিও ছাড়তে চায় না। তাছাড়া, এখন আগের মতো যে কোনও ইস্যুতে যুদ্ধ করাও অনেক কঠিন।

আমেরিকা যেজন্যে এটা কিনেছিল, হাওয়াই পাওয়ার পর সেটাও আর ভ্যালিড ছিল না। সব মিলিয়ে আসলে এখনও বলা কঠিন, কোনটা ঠিক....কারন দু'দিকেরই অনেক হিসাব-নিকাশ আছে। তবে এটা নিশ্চিত যে, এখন হলে রাশিয়া এই ডিলটা করতো না।

মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ। :)

১৫| ৩০ শে জুন, ২০২০ বিকাল ৫:৪০

বিজন রয় বলেছেন: আমেরিকা আর রাশিয়া কি কোনদিন এক সাথে মিশে কোন কাজ করতে পারবে?

৩০ শে জুন, ২০২০ বিকাল ৫:৪৫

ভুয়া মফিজ বলেছেন: বর্তমান পরিস্থিতিতে একেবারেই সম্ভব না বিজন দা, কারন এরা একে অপরকে বিশ্বাসই করে না। তবে, গ্লোবাল পলিটিক্সে শেষ কথা বলে কিছু নাই। আজ যেটা অসম্ভব, কাল সেটাই বাস্তব! কোন ইস্যুতে দু'পক্ষেরই যদি লাভের সম্ভাবনা থাকে, তাহলেই এরা মিলেমিশে কাজ করবে। আর কাজ শেষ হলে আবার যেই লাউ, সেই কদু!!! B-)

১৬| ৩০ শে জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:১৮

আহমেদ জী এস বলেছেন: ভুয়া মফিজ,




আন্নেও কি করোনার ভয়ে নফল রোজা রাকছেন ? হেয়া না অইলে ব্লাট চুগার হাডুর নীচ ছাড়াইয়া গোড়ালীতে নামার কতা না। :D
হের লইগ্যাই এ্যাত্তো খাডাখাডনি কর্তে হৈল। ব্লাট চুগার তো আরো নীচে নামাইয়া হালাইলেন। যে কারনে বেরিংয়ের ঠান্ডার কতা হুইন্নাই বোরিং হৈয়া বর্ফে জইম্মা গ্যাছেন। :|

পোস্টটা দুই দিন পরে দিতেন! আগে জুন এর ৫ নম্বর মন্তব্যডা পৈর্ড়া লৈতেন হের পরে পোস্ট দিতেন তয় এতো খাডাখাডনি লাগতোনা। :P B:-) ক্রিশ চান্দুরে কৈতেন - ব্যাডা তুই আম্রিকা থাইক্ক্যা জানোছ আর মোগো ব্লগার জুন
হেডা বাংলাদ্যাশে থাইক্ক্যাও জানে .................. B:-/ :-*

সুন্দর পোস্ট। আগে এমন ভাবনা মাথায় না থাকলেও এখন ভাবনা হচ্ছে।

০১ লা জুলাই, ২০২০ দুপুর ১:২৬

ভুয়া মফিজ বলেছেন: ব্লাট চুগার হাডুর নীচ ছাড়াইয়া গোড়ালীতে আমার না, ক্রিসের নামছে মনে করছিলাম। আমি তো বিষয়ডা জানতামই না জী এস ভাই। আমি আরামপ্রিয় মানুষ, বেশী ঠান্ডা, বেশী গরম দুইডারেই ভুই পাই!! ;)

পোস্টটা দুই দিন পরে দিতেন! আগে জুন এর ৫ নম্বর মন্তব্যডা পৈর্ড়া লৈতেন হের পরে পোস্ট দিতেন তয় এতো খাডাখাডনি লাগতোনা। আপনের এই মন্তব্য পইড়া ক্যান জানি জন্মের আগেই কারো বিয়া কইরা ফালানোর কতা মনে আইলো....হে হে হে!

ক্রিশ চান্দুরে কৈতেন - ব্যাডা তুই আম্রিকা থাইক্ক্যা জানোছ আর মোগো ব্লগার জুন হেডা বাংলাদ্যাশে থাইক্ক্যাও জানে এহন তো আমার আপনের ব্লাট চুগার লেবেল নিয়াই সন্দেহ হইতাছে। আপনে তো জানেনই আমি আম্রিকায় থাহি না, ক্রিস থাকবো কইত্তে? আর আমাগো জুন আফার গেয়ান নিয়া কুনো সন্দেহই নাই। উনি যেইহানেই থাকুক, উনার গেয়ান কন্সট্যান্ট! =p~

মজার মন্তব্য করনের লাইগা বিস্তর শুবেচ্ছা ভাইজান! :)

১৭| ৩০ শে জুন, ২০২০ রাত ৮:১৫

জাহিদ হাসান বলেছেন: আচ্ছা ভাই আমি আলাস্কা গিয়ে কি করবো? আমি তো টেক্সাসে যাইতে চাই।

০১ লা জুলাই, ২০২০ দুপুর ১:২৯

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আপনার সমস্যা বুঝতে পারছি। তবে, আলাস্কা না গিয়া টেক্সাস যাবেন কিভাবে? ডাইরেক্ট যাইতে চাইলে উড়াল দেন! :)

১৮| ৩০ শে জুন, ২০২০ রাত ৮:৩৭

শের শায়রী বলেছেন: পলিনরে ভালা পাই। আর বরফের উপ্রে দিয়া রাশিয়া না আলাস্কা পর্যন্ত গেলেই খুশী পলিনরে এক নজর দেইখা আবার ঢাকার দিকে হাডা ধরুম। আর ক্রিস কি অর কথা রাখছে? মানে আপনেরে বেইজ্জতি করার জন্য লেখাটা কি বান্ধাইছে =p~

০১ লা জুলাই, ২০২০ দুপুর ১:৪৭

ভুয়া মফিজ বলেছেন: পলিনরে আমিও ভালা পাই। আলাস্কা কি একলা যাইবেন, নাহি টিমের লগে যাইবেন?
লেহাডার প্রিন্টআউট দিছি একখান। এহনও ওইডা লয়া কিছু করে নাইক্কা। করলেই আপনেরে জানামু! এই ব্যাপারে আপনের আগ্রহ দেইখ্যা আমার পেডের মইদ্দে কেমুন জানি একডা খুশি খুশি ভাব পাক দিতাছে!! :-B

১৯| ৩০ শে জুন, ২০২০ রাত ৮:৩৭

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ভুইয়া মফিজ ভাইজান, আপনি কিন্তু মানুষ হিসাবে চমৎকার

অবাক হলাম, আলাস্কা স্টেটের দাম মাত্র ৭.২ মিলিয়ন ডলার? ট্রিলিয়ন হইলে তো একটা কথা ছিল! আচ্ছা, এখন যদি ডোনাল্ড ট্রাম্প এটা বেঁচতে চায়, কত দাম হতে পারে? বাংলাদেশের সম্ভাব্য বিডার কে হতে পারেন? ভেবে দেখার অনুরোধ রাখিলাম :)


লেখাটা খুব এনজয় করলাম। আলাস্কার ইতিহাস খুব প্রাঞ্জল ভাষায় লিখেছেন এবং আপনার রম্যরস সেই লেভেলের

০১ লা জুলাই, ২০২০ দুপুর ২:০১

ভুয়া মফিজ বলেছেন: ভুইয়া মফিজ ভাইজান, আপনি কিন্তু মানুষ হিসাবে চমৎকার জানলাম। তবে আমি যেহেতু ক্যাচাইল্যা মানুষ না, তাই প্রশংসা মনে করেই মাথা পেতে নিলাম। তবে, ভুইয়া মফিজ না, হবে ভুয়া মফিজ!!:)

২০১৮ সালের হিসাবে একটা দাম পোষ্টে দিয়েছি.....১০৯ মিলিয়ন ডলার। তবে, টেরাম্প তো ব্যবসায়ী মানুষ, তার উপরে রিয়েল এস্টেটের ব্যবসা। সে কতোটা দাম নির্ধারন করবে বলা মুশকিল।

গোপনে বাংলাদেশের অনেক ইডিয়টই বিড করার ক্ষমতা রাখে, তবে প্রকাশ্যে বিড করার মতো একটা ইডিয়টই দেখি। আমাদের সর্বজন শ্রদ্ধেয়, রাজার ঘরে জন্ম না নেয়া একমাত্র প্রিন্স; প্রিন্স মুসা বিন শমসের। :P

২০| ৩০ শে জুন, ২০২০ রাত ১০:০৯

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:
আলাস্কা এক সময় তো রাশিয়ারই ছিল। বোকারা ৬০ লাখ ডলারে বিক্রি করে দিয়েছে।

হা, হেটে যাওয়া সম্ভব।

০১ লা জুলাই, ২০২০ দুপুর ২:০৫

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আলাস্কা এক সময় তো রাশিয়ারই ছিল। আচ্ছা! জানতাম না তো!! আর ৭.২ মিলিয়নে ৬০ লাখ হয় জানলে কিন্তু মুরুব্বী চেইতা যাবে সাজ্জাদ ভাই! বি কেয়ারফুল!!! =p~

২১| ৩০ শে জুন, ২০২০ রাত ১১:০৮

সোহানী বলেছেন: বিশ্বাস করেন গত উইকেই ছেলে মেয়ে সহ আলাস্কা কেনা বেচার একটা চমৎকার ভিডিও দেখছিলাম। ছেলের সাথে ঠিক একই বিষয় নিয়ে আলোচনা করছিলাম। হিসেব নিকেশ করছিলাম কি রকম বোকা বা চালাকের কাজ করেছিল তারা সে সময়। রাশিয়ার সাথে দূরত্ব বা ডিল।
Alaska deal

০১ লা জুলাই, ২০২০ দুপুর ২:১১

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আপনের কথা বিশ্বাস করবো না কেন? অবশ্যই বিশ্বাস করছি। আপনে যে সদা সত্যি কথা বলেন, সেইটা কি আর আমি জানি না! :-B

আসলে এখনকার পরিস্থিতিতে অনেকের কাছেই মনে হইতে পারে যে, জার বোকামী করছিল। তবে, তখনকার পরিস্থিতির বিবেচনায় এইটা একটা সঠিক পদক্ষেপই ছিল। ভিডিওটা দেখলাম। ভালো। তবে, যে বর্ণনা করছে, সে এভাবেই যদি চালায়া যায়, তাইলে অচিরেই তার শ্বাসকষ্ট হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা আছে। :)

২২| ৩০ শে জুন, ২০২০ রাত ১১:৩৬

সোহানী বলেছেন: ওহ্, জুনাপু মনে করে দিলো। তাই সারাহ পলিনের একটা ছবি দিলাম যা হিলারীকে অপমানের চেস্টায় ......


০১ লা জুলাই, ২০২০ দুপুর ২:১৩

ভুয়া মফিজ বলেছেন: হিলারীকে অপমানের চেস্টায় ...... কেমনে কিরাম অপমান? বিষয়ডা বুজি নাইক্কা! :(

২৩| ৩০ শে জুন, ২০২০ রাত ১১:৩৭

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন: এখন তো জানলেন.....চিড়া-মুড়ি নিয়া রওয়ানা দেন।

এত লম্বা পথ একা যাবো কি করে? তাছাড়া আমি পথ ভুল করি খুব বেশি।

০১ লা জুলাই, ২০২০ দুপুর ২:১৪

ভুয়া মফিজ বলেছেন: এত লম্বা পথ একা যাবো কি করে? আপনি নাকি সব মন্তব্য মনোযোগ দিয়ে পড়েন? একা যাবেন কেন, টিমের সাথে যাবেন। :)

২৪| ০১ লা জুলাই, ২০২০ রাত ১২:৪৩

চাঙ্কু বলেছেন: আলাস্কাতে নাকি এখনও গোল্ড পাওয়া যায়!! হাঁটা শুরু করুম কিনা চিন্তা করতেছি!!

০১ লা জুলাই, ২০২০ দুপুর ২:২১

ভুয়া মফিজ বলেছেন: কথা সইত্য। হাটা শুরু করেন। যাওনের আগে এই ভিডিওটা দেইখ্যা যায়েন। শুভ গোল্ড হান্টিং!!! :P

২৫| ০১ লা জুলাই, ২০২০ রাত ১:৫৬

রাকু হাসান বলেছেন:


কোথায় যেন পড়েছিলাম....ইউএসএ -রাশিয়ান বর্ডার খুব বেশি দূরে নয়। ও মনে পড়ছে ..কোন এক ভিডিও হবে । ..তবে সেখানে কম তথ্য জেনেছিলাম। আগ্রহ নিয়ে খোঁজ করেও দেখিনি। এই পোস্টটি জানালো অনেক তথ্য। ধন্যবাদ । ভূয়া নামটি দেখলেই হাসি পাই আমার ..... B-)) =p~

০১ লা জুলাই, ২০২০ দুপুর ২:২৬

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আপনাকে কিছু তথ্য জানিয়ে আগ্রহ সৃষ্টি করতে পারলাম, এটা চিন্তা করে ভালো লাগছে। আগ্রহ নিয়ে পোষ্টটা পড়ার জন্য ধন্যবাদ। :)

ভূয়া নামটি দেখলেই হাসি পাই আমার ..... গরীবদের নাম দেখলে বড়লোকদের হাসি পায়; এটা একটা চিরন্তন সত্য!! :((

২৬| ০১ লা জুলাই, ২০২০ সকাল ৯:০১

জুন বলেছেন: আলাস্কার ভৌগোলিক অবস্থানটি আমার কাছেও বেখাপ্পা লাগতো ভুয়া, কারন এক শক্তিধর শত্রু দেশের গা ঘেষা রাজ্য আলাস্কা কিনা মুল দেশটি থেকে আবার আরেক বিশাল উন্নত দেশ কানাডা দিয়ে বিচ্ছিন্ন। এটা নিয়ে আমার কৌতূহল ছিল। আপনার বিস্তারিত লেখা থেকে সব কিছু জানা হলো। আর এই সুত্র ধরেই আম্রিকার বর্তমান প্রেসিডেন্ট ট্রাম মনে হয় ডেনমার্কের আওতাধীন গ্রীনল্যান্ডকে কেনার প্রস্তাব দিয়েছিল। লোকটা বুঝে নাই সেই যুগ আর এই যুগ এক না। ডেনমার্কের রানীও সপাটে ব্যাট চালিয়ে এই প্রস্তাবকে সীমানা পার করে দিয়েছে। এইটা নিয়াও একটু লেখেন, আমি মহা গিয়ানী হইলেও বা কি, লেখালেখিতে তেমুন পন্ডিত না ওই ক্রিসের মতন আরকি।


তবে ওই বেরিঞ্জেন ডা কি ভুয়া :-*

০১ লা জুলাই, ২০২০ দুপুর ২:৩৬

ভুয়া মফিজ বলেছেন: ওই সময়ে আম্রিকা রাশিয়ার মিত্রদেশ আছিল। শত্রু তো হইলো রাশিয়ায় সমাজতন্ত্র কায়েমের পরে। যাক, আপনের কৌতুহল মিটাইতে পারলাম......আমার সৌভাগ্য। আর এই সুত্র ধরেই আম্রিকার বর্তমান প্রেসিডেন্ট ট্রাম মনে হয় ডেনমার্কের আওতাধীন গ্রীনল্যান্ডকে কেনার প্রস্তাব দিয়েছিল। লোকটা বুঝে নাই সেই যুগ আর এই যুগ এক না। টেরাম্প একটা ছাগল। আম্রিকার ভোটাররা, যারা এই ছাগলডারে ভোট দিছে, হ্যারাও ছাগল। ছাগলে কি আর যুগের পার্থক্য বুজে, এগুলি বুজে খালি কাডালপাতা!! =p~

আমি মহা গিয়ানী হইলেও বা কি, লেখালেখিতে তেমুন পন্ডিত না আমিও লেহালেহিতে পন্ডিত না। আবজাব কিছু একটা লেইখা ফালাই আর কি! দেহেন না, কা_ভা ভাইজানের এইডা পছন্দ হয় নাই!!! :P

তবে ওই বেরিঞ্জেন ডা কি ভুয়া এইডা লয়া একডা পুষ্টানের পিলান আছে। :)

২৭| ০১ লা জুলাই, ২০২০ সকাল ৯:১৩

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: আর কপাল আসলে আমাগো না, আম্রিকানগো খারাপ। দেশ যেইভাবে আগায়া যাইতাছে তাতে আর কিছুদিন পরে ওরা কইবো, বাংলাদেশের ধারে কাছে হয়া আমরা আইজকা বাংলাদেশী হইতে পারতাম!!! =p~
আপনার কমেন্ট পইড়া হা হা প গে
=p~ =p~ =p~

আপ্নেরে উগান্ডা সরকারের উপদেষ্টা না বানানোর তেব্র পরতিবাদ করছি :P

বরাবরের মতোই দারুন ভিন্নধর্মী বিষয়ে চমৎকার পোষ্টে ধন্যবাদ।
++++

০১ লা জুলাই, ২০২০ দুপুর ২:৪২

ভুয়া মফিজ বলেছেন: খাস দিলে দোয়া রাইখেন.......আপনের পরতিবাদে যেন কাম হয়! একবার উপদেষ্টা হইতে পারলে পয়লা টারগেট, আলাস্কায় একটা বড় পাহাড় কিনমু, তারপরে সোনা খুজুম, রিটায়ার করনের পরে। আপনের দোয়াতে কাম হইলে, আপনের লাইগাও একটা পাহাড় বরাদ্দ থাকবো। B-)

২৮| ০১ লা জুলাই, ২০২০ রাত ১১:৪৮

রাকু হাসান বলেছেন:


ভূয়া নামটি দেখলেই হাসি পাই আমার ..... গরীবদের নাম দেখলে বড়লোকদের হাসি পায়; এটা একটা চিরন্তন সত্য!! :((
-- হাহাহাহহা এটা কি কইলেন ভাইয়া... X(
আমরা সবাই রাজা ,আমাদের এই হাসিনার রাজত্বে । B-))

০২ রা জুলাই, ২০২০ বিকাল ৫:০৮

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আমরা সবাই রাজা ,আমাদের এই হাসিনার রাজত্বে। কথা আংশিক সত্য। শুধু রাজা এর জায়গায় প্রজা হবে। B-)

২৯| ০২ রা জুলাই, ২০২০ রাত ১১:৫০

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: পরেরবার আমরা এই পোস্টের​ সংযোজিত রূপ দেখতে চাই।বড় ছোট ডায়ামিডের মধ্যে আপনি হাত উঁচু করে সাফল্যের​ হাসি হাসছেন সেটাই হবে আমাদের পরম কাঙ্ক্ষিত।সঙ্গে বাহারি ফটো দেবেন।

আমেরিকা- রাশিয়ার​ আলাক্সা ডিল পড়তে ভালই লাগছিল।দুম করে আপনি পোস্ট বহির্ভূত বলে লেখাটা ঘুরিয়ে দিলেন।কানাডাকে সামনে রেখে ওদের এখনকার প্রশাসন কিভাবে চলে?
পরিশেষে আবারও বলি শুধুমাত্র তিনটি ঘটনা নয়।পরেরবার আমরা ঘটনা 4কেও দেখতে চাই।এক ব্লগার, বঙ্গসন্তানের ভ্রমণপিপাসু মনের প্রতিচ্ছবিতে রইল অগ্রীম শুভেচ্ছা।
আর বাংলাদেশ থেকে ভারত হয়ে আফ্রিকা যাওয়ার প্রোগ্রাম আপাতত সে গুড়ে বালি।মোদির দেশে ওরা ধর্ম দেখে এন্ট্রি করবে।কাজেই সবাই স্বাগত নয়।

৩০| ০৩ রা জুলাই, ২০২০ রাত ২:৫৮

মুক্তা নীল বলেছেন:
ভাই ,
আমার জন্য একদমই নতুন এবং অজানা বিষয়কে
তুলে ধরার জন্য ধন্যবাদ আপনাকে । এটা কিভাবে
সম্ভব হলো এতো কষ্ট করে ওই রাষ্ট্র প্রবেশ করা,
ভীষণ চিন্তাভাবনার বিষয় ।
আমেরিকায় থাকা ২৭ বছরের মেক্সিকান লাজারো রুইজ
ক্যাস্ট্রো ১৯৮৭ সালে,১৯৮৭ সালের ৭ই অগাষ্ট লিন কক্স
নামে ৩০ বছর,কার্ল বুশবি আর ফ্রেন্চ অভিযাত্রী দিমিত্রি
কিফার পায়ে হেটে ১৪ দিনে হিমশীতল ১৫০ মাইল----
অতিক্রম করে বেরিং প্রণালী পাড়ি দিয়েছিল। অবিশ্বাস্য
লাগছে এটা কিভাবে সম্ভব ???
আপনার কলিগ ক্রিসকেও ধন্যবাদ ।
ব্লগে আসার সার্থকতা হয়তো এটাই অনেক কিছুই নতুন
করে জানা যায় এবং জানতে পারলাম।
একদিকে ভয়ঙ্কর গা শিউরে ওঠা অন্যদিকে রম্যাত্মক ।
ভালো থাকুন সবসময়।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.