নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সবাই যখন নীরব, আমি একা চীৎকার করি \n--আমি অন্ধের দেশে চশমা বিক্রি করি।\n

গিয়াস উদ্দিন লিটন

এত বুড়ো কোনোকালে হব নাকো আমি হাসি-তামাশারে যবে কব ছ্যাব্‌লামি। - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

গিয়াস উদ্দিন লিটন › বিস্তারিত পোস্টঃ

প্রবাসে বাংলাদেশের রক্তের উত্তরাধিকারী গুণীগন - ৩

০১ লা জুলাই, ২০১৫ সকাল ১১:৪১

কানাডার ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটির প্রেসিডেন্ট ও ভাইস চ্যান্সেলর ড. প্রফেসর অমিত চাকমা ।



ড. প্রফেসর অমিত চাকমা কানাডায় বাংলাদেশীদের কাছে একটি অহংকারের নাম। একটি গর্বের নাম। একটি অনুকরনীয় আদর্শের নাম। তিনি কানাডার ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটি প্রেসিডেন্ট ও ভাইস চ্যান্সেলর। শুধু কানাডায় নয়, গোটা উত্তর আমেরিকার কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে তিনিই প্রথম বাংলাদেশি উপাচার্য।

অমিত চাকমা কানাডায় গিয়েছিলেন উচ্চতর ডিগ্রি নিতে। তার আগে আলজেরিয়ার বিখ্যাত আলজেরিয়ান পেট্রোলিয়াম ইনস্টিটিউট থেকে ‘রাসায়নিক প্রকৌশল’ বিষয়ে প্রথম স্থান অধিকার করে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন ১৯৮২ সালে। এরপরই কানাডায় চলে আসেন মাস্টার্স ও পিএইচডি করার জন্য । কানাডার ইউনিভার্সিটি অব ব্রিটিশ কলাম্বিয়া থেকে রাসায়নিক প্রকৌশল বিষয়ে পড়াশোনা শেষে পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন।

শৈশবে অমিত চাকমা কিন্তু লেখাপড়ার প্রতি তেমন মনোযোগী ছিলেন না। তিনি পড়তেন রাঙ্গামাটি সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ে। অভিবাবক ও স্কুলের শিক্ষকরা তাকে নিয়ে মোটামুটি হতাশই ছিলেন। তিনি মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারবেন কি না সেটাই ছিল সবার আশংকা। কিন্তু সকলের আশংকাকে উড়িয়ে দিয়ে তিনি মাধ্যমিক পরীক্ষায় প্রথম বিভাগে উর্ত্তীর্ণ হন। পরে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন ঢাকা কলেজ থেকে।

তখন জ্বালানি তেলের ওপর উচ্চশিক্ষা নিতে বৃত্তি দিচ্ছিল আলজেরিয়া সরকার। ১৯৭৭ সালে আলজেরিয়ান পেট্রোলিয়াম ইনস্টিটিউটের বৃত্তি নিয়ে সে দেশে চলে যান অমিত। আলজেরিয়ার বিখ্যাত আলজেরিয়ান পেট্রোলিয়াম ইনস্টিটিউট থেকে ‘রাসায়নিক প্রকৌশল’ বিষয়ে প্রথম স্থান অধিকার করে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন ১৯৮২ সালে। এরপরই কানাডায় চলে আসেন মাস্টার্স ও পিএইচডি করার জন্য। কানাডার অব ব্রিটিশ কলাম্বিয়া থেকে রাসায়নিক প্রকৌশল বিষয়ে পড়াশোনা শেষে পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন ।

অবদান ও স্বীকৃতি -

শিক্ষা খাতে ও তাঁর নিজের গবেষণা ক্ষেত্রে নানা অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি পেয়েছেন একাধিক পুরষ্কার। ৪০ বছরের কম বয়সী যাঁরা বিভিন্ন ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন তাঁদের বিশেষ পুরস্কার দেওয়া হয় কানাডায়। ১৯৯৮ সালে সেই পুরস্কারটি পেয়ে যান অমিত চাকমা। কানাডা সরকার তাঁকে ৪০-এর নিচে সেরা ৪০ বা ‘টপ ৪০ আন্ডার ৪০ অ্যাওয়ার্ডে’ ভূষিত করে। অমিত চাকমা কানাডার সর্ববৃহৎ ব্যাংক রয়েল ব্যাংক অব কানাডার ‘টপ ২৫ কানাডিয়ান ইমিগ্রেন্ট’পুরষ্কারে ভূষিত হন।

অমিত চাকমার গবেষণার মূল বিষয় প্রাকৃতিক গ্যাস প্রকৌশল এবং পেট্রোলিয়াম বর্জ্য ব্যবস্থাপনা। তিনি পেট্রোলিয়াম রিসার্চ এবং এনার্জি ম্যানেজমেন্ট বিষয়ে খ্যাতনামা একজন বিশেষজ্ঞ। দেশি-বিদেশি বিভিন্ন জার্নালে তাঁর শতাধিক প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। এ ছাড়া গ্যাস পৃৃথকীকরণ, প্রক্রিয়াজাতকরণ, জ্বালানি বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, গ্রিন হাউস গ্যাস নিয়ন্ত্রণ কৌশল, এনার্জি ও পরিবেশ সিস্টেম মডেলিং গবেষণায় অন্যতম আগ্রহের বিষয়।

১৯৮৮ থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত ইউনিভার্সিটি অব ক্যালগেরির রাসায়নিক প্রকৌশল বিভাগে অধ্যাপনা করেন। এরপর ইউনিভার্সিটি অব রিজাইনাতে রাসায়নিক প্রকৌশল বিভাগের প্রধান নিযুক্ত হন। ১৯৯৯ থেকে ২০০১ পর্যন্ত ইউনিভারসিটি অব রিজাইনার ভাইস প্রেসিডেন্ট রিসার্চ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এরপর ২০০১ সালে ইউনিভার্সিটি অব ওয়াটার লু’র একাডেমিক ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং প্রভোস্টের দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

২০০৮ সালে তিনি কানাডিয়ান একাডেমী অব ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ফেলো পদে ভূষিত হন। বর্তমানে তিনি ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি অব কানাডার সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি অন্টারিও সেন্টার অব এক্সিলেন্সের বোর্ড অব ডিরেক্টরসের একজন সদস্য । কানাডার সায়েন্স, টেকনোলজি অ্যান্ড ইনোভেশন কাউন্সিলের সদস্যও তিনি। একই সঙ্গে কানাডার ইন্টারন্যাশনাল এডুকেশন স্ট্যাটেজি-বিষয়ক উপদেষ্টা প্যানেল কমিটির সভাপতির দায়িত্বও পালন করছেন। কানাডায় উচ্চশিক্ষায় বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ২০১২ সালে পেয়েছেন কুইন্স ডায়মন্ড জুবিলি মেডেল।

নিউজিল্যান্ডের অকল্যান্ড বিশ্ববিদ্যালয় এবং চীনের হুনান, পিকিং ও হুয়াজং বিশ্ববিদ্যালয়ে অতিথি অধ্যাপক হিসেবে ডাক পড়ে তাঁর। ফিলিপাইন, থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম, জাপান, ইন্দোনেশিয়া, যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে বক্তব্য দিতে যান নিয়মিত। কাজ করছেন কানাডা, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশের প্রায় দেড় শ বিজ্ঞান এবং জ্বালানিবিষয়ক গবেষণা সংস্থা ও সংগঠনের পরিচালনা পর্ষদ ও উপদেষ্টা হিসেবে।

এত সব প্রতিষ্ঠান বাদে শুধু ওয়েস্টার্ন ইউনিভারসিটি থেকেই তিনি সন্মানি পান অর্ধ মিলিয়ন ডলার ।
এত সাফল্যের পরও অমিত চাকমা কিন্তু দেশকে ভুলে যাননি। ফেলে আসা দেশ, আত্মীয়-স্বজন বন্ধু-বান্ধব এদের জন্য এখনো তার মন কাঁদে। এখনো দেশের কথা মনে করে কখনো কখনো ইমোশনাল হয়ে যান , তখন দেশের গান শুনে সান্ত্বনা পান ।

দেশকে তিনি যে ভুলে যাননি তার আরেকটি প্রমাণ- চট্টগ্রামের এশিয়ান ইউনিভার্সিটি অব উইমেন প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে তাঁর সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়া । সময় সুযোগ পেলেই তিনি ছুটে আসেন জন্মভূমি বাংলা দেশে।

অমিত চাকমার বাবা প্রভাত কুমার চাকমা ছিলেন সার্কেল অফিসার। তিনি মৃত্যুবরণ করেন ১৯৮৭ সালে। অমিত চাকমারা তিন ভাই ও এক বোন। সবার বড় অমিত চাকমা। ছোট দুই ভাইয়ের একজন অরুনাভ চাকমা। থাকেন আমেরিকায়। একটি ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানীর উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা। আরেক ভাই স্মরণাভ চাকমা থাকেন টরন্টোতে। স্থানীয় একটি ফর্মাসিউসিটিক্যাল কোম্পানীর কর্মকর্তা । একমাত্র বোন হ্যাপি চাকমা ১৯৮৮ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময়ে ক্যান্সারে মারা যান।



অমিত চাকমা বিয়ে করেন ১৯৮৭ সালে। স্ত্রী মীনা চাকমা। অমিত ও মীনা দম্পত্তির বড় ছেলে ক্যালিফোর্নিয়ায় চাকরী করেন। ছোটটি এখনো ছাত্র।


প্রবাসে বাংলাদেশের মুখ উজ্জ্বল করা এই গুণী মানুষটির জন্য শুভ কামনা ।

মন্তব্য ৪০ টি রেটিং +৯/-০

মন্তব্য (৪০) মন্তব্য লিখুন

১| ০১ লা জুলাই, ২০১৫ দুপুর ১২:২৪

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: লিটন ভাই এই গুনী সব বাংলাদেশীদের তথ্যগুলো কই থেকে সংগ্রহ করেন??

০১ লা জুলাই, ২০১৫ দুপুর ২:২৯

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: রাশিয়ার জিমন্যাস্টিক মারগারিতা মামুন সম্পর্কে পড়তে গিয়ে আমার মধ্যে এই আগ্রহ টা জন্মে । বিশেষ করে যখন জানলাম জিমন্যাস্টিকের ওয়ার্ল্ড র‌্যাঙ্কিংয়ে দ্বিতীয় স্থানে অবস্থান কারী এই মেয়েটি বাংলাদেশী ।

এরকম কত গুণী বাংলাদেশী আমাদের অগোচরে পৃথিবীর সভ্যতাকে এগিয়ে নেয়ার কাজ করে যাচ্ছেন ।
ভাবলাম এঁদের সম্পর্কে খোঁজ খবর করে একটা সিরিয়াল লিখি । দেশের মানুষ জানুক তার কৃতি সন্তানদের পরিচয় ।
সেই উৎস থেকেই এই পোস্টের অবতারণা ।
মন্তব্যের জন্য পুরনো সুহৃদ কাল্পনিক_ভালোবাসাকে ধন্যবাদ ।

২| ০১ লা জুলাই, ২০১৫ দুপুর ১:১৬

অ রণ্য বলেছেন: দারুণ পোস্ট_________অসংখ্য ধন্যবাদ আপনাকে

০১ লা জুলাই, ২০১৫ বিকাল ৩:০৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: চমৎকার লিখক অ রণ্য কেও ধন্যবাদ ।

৩| ০১ লা জুলাই, ২০১৫ দুপুর ১:১৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: রাশিয়ার জিমন্যাস্টিক মারগারিতা মামুন সম্পর্কে পড়তে গিয়ে আমার মধ্যে এই আগ্রহ টা জন্মে । বিশেষ করে যখন জানলাম জিমন্যাস্টিকের ওয়ার্ল্ড র‌্যাঙ্কিংয়ে দ্বিতীয় স্থানে অবস্থান কারী এই মেয়েটি বাংলাদেশী ।

এরকম কত গুণী বাংলাদেশী আমাদের অগোচরে পৃথিবীর সভ্যতাকে এগিয়ে নেয়ার কাজ করে যাচ্ছেন ।
ভাবলাম এঁদের সম্পর্কে খোঁজ খবর করে একটা সিরিয়াল লিখি । দেশের মানুষ জানুক তার কৃতি সন্তানদের পরিচয় ।
সেই উৎস থেকেই এই পোস্টের অবতারণা ।
মন্তব্যের জন্য পুরনো সুহৃদ কাল্পনিক_ভালোবাসাকে ধন্যবাদ ।

০১ লা জুলাই, ২০১৫ বিকাল ৩:৩১

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: ্‌

৪| ০১ লা জুলাই, ২০১৫ দুপুর ২:০৯

সুমন কর বলেছেন: চমৎকার শেয়ার।

০১ লা জুলাই, ২০১৫ বিকাল ৩:৫৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনার জন্য শুভ কামনা ।

৫| ০১ লা জুলাই, ২০১৫ দুপুর ২:৩৫

যোগী বলেছেন: এই প্রফেসরের ব্যাপারে আগেই জেনেছিলাম।

০১ লা জুলাই, ২০১৫ বিকাল ৪:২২

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনাকে ধন্যবাদ যোগী ।

৬| ০১ লা জুলাই, ২০১৫ বিকাল ৪:১৪

নিশাত সুলতানা বলেছেন: আপনার লিখা গলি পড়ে গর্ব অনুভব করছি ।

০১ লা জুলাই, ২০১৫ বিকাল ৪:৫২

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনাকে ধন্যবাদ ।

৭| ০১ লা জুলাই, ২০১৫ বিকাল ৪:১৫

নিশাত সুলতানা বলেছেন: আপনার লিখা গলি পড়ে গর্ব অনুভব করছি ।

০১ লা জুলাই, ২০১৫ সন্ধ্যা ৭:৪৩

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: =p~ =p~

৮| ০১ লা জুলাই, ২০১৫ বিকাল ৫:২০

রূপা কর বলেছেন: চমকার শেয়ার ।

০১ লা জুলাই, ২০১৫ রাত ১০:২৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ সিস ।

৯| ০১ লা জুলাই, ২০১৫ সন্ধ্যা ৭:১৮

শতদ্রু একটি নদী... বলেছেন: ভালো সিরিজ। জানছি। চলুক।

০২ রা জুলাই, ২০১৫ সকাল ১০:৩২

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনার মন্তব্যে উৎসাহিত হলাম , ধন্যবাদ শতদ্রু----

১০| ০১ লা জুলাই, ২০১৫ রাত ১০:২৭

ডি মুন বলেছেন: খুব সুন্দর পোস্ট।
একজন গুণী মানুষ সম্পর্কে জানতে পারলাম।

আপনাকে ধন্যবাদ।
+++

ভালো থাকুন সবসময়।

০২ রা জুলাই, ২০১৫ সকাল ১০:৪৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনার মন্তব্যে অনুপ্রাণিত হলাম ডি মুন ।

১১| ০১ লা জুলাই, ২০১৫ রাত ১০:৪২

মনিরা সুলতানা বলেছেন: প্রিয় প্রিয় প্রিয় .।.।
পোস্ট প্রিয়তে

০২ রা জুলাই, ২০১৫ সকাল ১০:৪৯

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: বিরাট শরমিন্দা !

১২| ০২ রা জুলাই, ২০১৫ রাত ১২:২৪

বোকা মানুষ বলতে চায় বলেছেন: চমৎকার সিরিজের চমৎকার পোস্ট....। +++

অনেক ভালো লাগলো এই কৃতী বাংলাদশীর জীবন কাহিনী শুনে।

চলতে থাকুক এই সুন্দর সিরিজটি। ভালো থাকুন সবসময়, শুভকামনা রইল।

০২ রা জুলাই, ২০১৫ দুপুর ২:৪৮

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আমাদের দেশে মেধাবীর অভাব নাই । অভাব পরিবেশ, পর্যাপ্ত সুযোগ সুবিধার ।যথাযথ সুযোগ পেলে যে আমরাও পিছিয়ে থাকার পাত্র নই , যার প্রমান এই সব কীর্তি মানদের জীবন কাহিনী ।
আপনাদের ভাল লাগলে সিরিজটি চালিয়ে যাওয়ার ইচ্ছা আছে । সুন্দর মন্তব্যের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ বোকা মানুষ বলতে চায়

১৩| ০২ রা জুলাই, ২০১৫ রাত ৩:৪৭

সচেতনহ্যাপী বলেছেন: আমাদের দেশে এসব গুনীজনের সন্মান নেই।। অর্থও একটা বড় ব্যাপার!!

০২ রা জুলাই, ২০১৫ বিকাল ৩:২২

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনার সাথে একমত সচেতনহ্যাপী ।

১৪| ০২ রা জুলাই, ২০১৫ সকাল ১০:০৭

হায়দার সুমন বলেছেন: প্রবাসে বাংলাদেশের মুখ উজ্জ্বল
করা এই গুণী মানুষটির জন্য শুভ কামনা ।

০২ রা জুলাই, ২০১৫ বিকাল ৩:৩৬

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: হায়দার সুমন ভাই , আজ দুবছরের মত সামুতে আপনার কোন পোস্ট নাই , বিষয় কি ? আপনার জন্য শুভ কামনা রইলো ।

১৫| ০২ রা জুলাই, ২০১৫ দুপুর ১২:১৪

প্রামানিক বলেছেন: বাংলাদেশের মুখ উজ্জ্বল করা এই মানুষটির জন্য শুভ কামনা ।

০৩ রা জুলাই, ২০১৫ রাত ৯:০৮

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: মি প্রামািনক আপনার জন্যও শুভ কামনা রইলো ।

১৬| ০২ রা জুলাই, ২০১৫ রাত ৮:২৭

হাসান মাহবুব বলেছেন: চমৎকার পোস্ট। শুভকামনা অমিত চাকমার জন্যে।

০৩ রা জুলাই, ২০১৫ রাত ৯:০৯

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ হাসান মাহবুব ভাই ।

১৭| ০৩ রা জুলাই, ২০১৫ বিকাল ৪:৪১

নিশাত সুলতানা বলেছেন: শুভ জন্মদিন ।
শুভ জন্মদিন ।

০৩ রা জুলাই, ২০১৫ রাত ৯:১১

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনাকে ধন্যবাদ সিস নিশাত সুলতানা ।

১৮| ০৫ ই জুলাই, ২০১৫ দুপুর ২:৪০

কান্ডারি অথর্ব বলেছেন:


চমৎকার পোস্ট লিটন ভাই। +++

০৮ ই জুলাই, ২০১৫ বিকাল ৩:০২

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ ।

১৯| ১৪ ই ডিসেম্বর, ২০১৫ সন্ধ্যা ৭:৩৯

গেম চেঞ্জার বলেছেন: কিপ ইট আপ!!

১৭ ই ডিসেম্বর, ২০১৫ দুপুর ১২:৩৪

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ গেম ভাই ।

২০| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৭ সকাল ১০:৩২

মোজাহিদুর রহমান ব বলেছেন: অসাধারন ভাই,চমৎকার পোস্ট ।পড়লে বুকটা বড় হয়ে যায়

০৫ ই আগস্ট, ২০১৭ দুপুর ১২:৪৮

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আপনাকে ধন্যবাদ মোজাহিদুর রহমান ।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.