নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

চলে গেলে- তবু কিছু থাকবে আমার : আমি রেখে যাবোআমার একলা ছায়া, হারানো চিবুক, চোখ, আমার নিয়তি

মনিরা সুলতানা

সামু র বয় বৃদ্ধার ব্লগ

মনিরা সুলতানা › বিস্তারিত পোস্টঃ

ভালোবাসলে ভালোবাসা\' ই ফিরে আসে ( বাদল দিনের চিঠি )

১৫ ই জুন, ২০২১ রাত ১১:৩২


ভালোবাসলে ভালোবাসাই ফিরে আসে ঠিক!

তুমিময় একটা শহর! ক্যাম্পাসের শীত গ্রীষ্ম, নিউ মার্কেটের বই স্টেশনারি, গাউছিয়া চাঁদনি চকের টিপ চুড়ি, ধানমন্ডি ছুঁয়ে সংসদের রাস্তায় তারুণ্যের উত্তালদিন। বয়সের সিড়ি চড়ে বেড়েছে শহরের গন্ডি। ব্যস্ত বিষণ্ণতার শহরে, একটা আকাশ একই চাঁদের আলো, অন্তর্জালে ভেসে উঠা স্মৃতি তবুও ছুঁয়ে দেয়ার ফুসরত থাকে না তোমাকে। ঘুলঘুলি বেয়ে নেমে আসা নরম রোদ থেকে শুরু, একফালি চাদেঁর ছায়া , অথবা নিশ্চুপ হতে চাওয়া প্রহর , আয়েশি বৈরাগ্য! সব আমিতে ই লুকিয়ে থাকে তুমিতুমি নম্রতা, তুমিতুমি নুয়ে আসা প্রেম। এটুকু তো আমাদের যুগল গান, এ গল্পেও তুমি আমি। আজ তোমায় অন্য এক ভালোবাসার গল্প শোনাই, সেই যে- যে ভালোবাসায়, ভালোবাসার সুবাসটুকু ফিরে আসে। অবশ্য ফিরে যদি ঘৃণা, অবহেলা, একাকীত্ব অথবা বিশ্বাস ঘাতকতা ও আসে কোন ক্ষতি নেই। ভালোবাসার বদলে যে এসব ফিরিয়ে দেয় তার জন্য করুণাটুকু বরাদ্দ থাকে, হয়ত সে ও ভালোবাসার প্রতিদানে এসব ই পেয়েছিলো। আমার শুধু বাসতে পারায় আনন্দ। আর প্রকৃতিকে যতটুকু ভালোবাসা যায়, প্রকৃতি তার সমস্ত বুকের নির্যাস সাজিয়ে তা ফিরিয়ে দেয়।


বেশ লম্বা একটা প্রবাস জীবন কাটিয়ে যখন দেশে থিতু হবার আয়োজন করছি, বারো মাসের হাওয়ায় নিজের পরিচিত গন্ধ সরে গেছে কোন চৈতালি হাওয়ায়। আমার বর্ষা স্নানটুকু ও জোছনায় ঠেলে দেয় অকাতরে। আমি এসেছি, আমি গো সেই আমি’ ই তবুও সারা দেয় না ইট কাঠ আর পরিচিত পিচের রাস্তা। শুরু হল ঢাকার আকাশে ঘুড়ি উড়নো, বাতাসে নিজের ঘামের অস্তিত্ব জাহির। খুঁজে খুঁজে আঙিনায় রাখছি ভালোলাগা গুলো। এ শহরে খুপরি জানালায় সবুজের চাষ করি ফেলে দেয়া প্লাস্টিকের বোতলে। বাসার আঙিনার মাটিতে শুরু থেকেই বেড়ে উঠা মাধবী লতা শুধু চোখের আয়নায় স্বপ্ন হয়ে দোলা দেয়। একদিন দুলে উঠা মালতী লতায় ভালোবাসার সুতো জড়ালাম। ঠিক একমাস পর তার উৎসুক দৃষ্টি মেলে উঁকি দিয়েছিলো তৃতীয় তলায় আমার হাতের নাগালে। সে এক আশ্চর্য আনন্দময় অনুভব জানো! এইটুকু ভালোবাসার প্রতিদানে সে যে কী তুমুল সুবাস দিলো সমস্ত বছর। বুঝলাম সন্ধ্যার সুর মাঝে রাতে দৃষ্টির আদ্রতা মেখে ফুলেফুলে ছেয়েছে। সেই আবহমান বলে আসা কথার সত্যতা ধরে রেখেছে, ভালোবাসায়, ভালোবাসা সুবাস হয়েই ফিরে এসছে।


হওয়াই মিঠাই কলরোল ছোঁয়া সে বসন্তে ফুটপাত ধরে নিজিকে চিনিয়ে দেবার সময়টুকু তে। উত্তরার রাজপথের পাশের বিশাল দেয়াল উঁচু বাড়ির রাস্তায়, ছোট্ট একটা অযত্নে বেড়ে উঠা শিউলি চারা পায়ের সাথে উঠে এলো। হয়ত বা মৌসুমে হাওয়ার উড়ালে, বীজ এসে পরেছিল এ মাটিতে সেখানেই নিজের অস্তিত্ব জানান দিয়েছে। পায়ের আদর বুকে তুলে নিলাম, আঙিনার সদরে বুনেছি। যাওয়া আসার রাস্তায় ঠিকঠাক দেখে রাখি, মাঝে মাঝে ছুঁয়ে দেই ভার অমসৃণ পাতা গুলো। ঠিক দু বছরের মাথায় এই শরতে ঋতুপ্রাপ্ত হয়েছে সে। সেই থেকে দুই নয়ত দশ যে কয়টাই হোক শিউলি ঝরাচ্ছে রোজ। রাতে ফোটা আর ভোরের স্নিগ্ধতা ছুঁয়ে ঝরতে পারে বলেই! বোঁটায় রাখা বৈরাগ্যের রঙ গেরুয়া আর শুভ্রতায় মিলেমিশে থাকে। এই দুই সময় ই অপার্থিব আলোর, নিস্তব্ধতার আর উচ্ছ্বসিত সুবাসের সময়। তাই এর অনুভব অতুলনীয়, শব্দেরা যেন বুক ভরে নেয়া, এ নিশ্বাসের উপমা সাজাতে পারে না। এ শুধু একাকী অথবা প্রিয়জনকে নিয়ে বন্ধ চোখে গায়ে মাখতে হয়। ফিরে আসা এ ভালোবাসা টুকু র জন্য অনন্তকাল বেঁচে থাকাতে ইচ্ছে করে।


এ জ্যৈষ্ঠ এখন ও আকণ্ঠ ডুবে আছে বৈশাখে! তার সমস্ত সত্তায় বৈশাখী তান্ডব, ঝড়ো হাওয়ার মাতামতি, মুহূর্তেই খরতাপ। আবার হুট করে দস্যি মেয়ের এলো চুলের নাচন, সাথে মটির গভীর থেকে উঠে আসা তাপ। এই যে বাদলের দিন চলে এলো, এসে গেলো আষাঢ় মাস ,মাঝে একটা জ্যৈষ্ঠের পূর্ণ মাসের এতগুলো দিন চলে গেলো তবুও সে নিজের কাছে ফিরতে পারলো কই। অথচ আজ দিন শুরুর উদাসী বাদল কিন্তু ঠিক ই মনে করিয়ে দিয়েছে আষাঢ়ের আগমনী গান। শুধু শুধু জ্যৈষ্ঠ মাসটাই অপচয় হয়ে গেলো। তেমনি কিছুকিছু আবেগ কেবলই অপচয় হয়। কখনো কখনো তা সিকি জীবন! জমে থাকে, চর পরে, উষ্ণতায় গলে, আবার বরফে জমে! তারপর ও অপচয়, কেবল ই অপচয় হয়ে আসে সেসব সম্পর্ক। কতদিন তোমার নামের এ বর্ষায় ভেজা হয়নি, রোদ্দুর গায়ে মাখি নি। চরিত্র হারিয়ে ফেলা শীতের উত্তাপ ও নেইনি। তবুও কি থেমে আছে বাদল দিনের গান? রোদ্দুরের কঠোরতা? এমন যে আমি ছিলাম ই না এখানে, সেই প্রাণের শহর আমার নামে একটা সকাল ও লিখে দেয়নি। হয়ত যাদুর এ শহরের প্রেমিক/ প্রেমিকার অভাব হয় না। বিষণ্ণ সে শুধু লালন করে তার কৃষ্টি।


বেশ ক বছর আগে কবিতায় লিখেছিলাম “ সাইক্লোন সমুদ্রে ঢেউয়ের সাথে সখ্যতার অন্য নাম প্রেম” সত্যিই তো, কবিতা কে ভালোবেসে কি জীবন সমুদ্রের ঢেউর সাথে সখ্যতা করতে হচ্ছে না? একটা কবিতা লেখার যন্ত্রনা আজকাল গা সওয়া হয়ে গেছে। লিখে ফেললেই অযুত প্রশ্নের ইট পাটকেল! সবজান্তা হাসি আর চোখের ইশারা হুহু জানিজানি কোত্থেকে কবিতা আসে ? আচ্ছা লেখার পিছনের উনাকে কে চিনি ?
বাহ ! ভালোই জীবনে উপভোগ তাহলে কম করেন নাই ? ওরে বাবা সংসার সামলে এত রোমন্টিক ভাবনা এই বয়সেও ???
আর এসব রাঙানো চোখে মুঠোভরা ছাই হয়ে আসে , নিজেকে ভালোবাসতে পারা তৃপ্ত প্রান পাঠকের ভালোবাসা! যারা কেবলই ফুরিয়া যাওয়া আনমনা দিন থেকে দুই একটা বেলিফুল তুলে সাজাতে পারে বিবর্ণ সময় কে রঙধনুর ফুলদানীতে। আর সেই আনন্দটুকুই শেফালী বকুলের ঝরা পাতার সুখ, ঝিনুক সেঁচা মুক্তা খোঁজার মহার্ঘ ক্ষন!


এ বর্ষায় এখন ও কদম কিংবা দোলনচাঁপার দেখা পাইনি! তবুও আমার আঁজলায় পূর্নতা দিয়েছি, শিউলি সুবাস! বৃষ্টিস্নাত শুভ্র একরাশ বেলির ঝুমকা। আর আমার সেই নুয়ে আসা মালতী। আজ সমস্তটা দিন এ ক’লাইন ই ছিল মনে-

যেদিন সন্ধ্যা নামায়
মেঘলা দুপুর সুরমা নিয়ে চোখে
বলো এমন দিনে, উদাস কে না থাকে ?
এলিয়ে খোঁপা কাজল আঁকা পথে
দূর হতে কেউ ডাকছে যেনো তাকে।


ব্লগারদের আষাঢ়ের পয়লা দিনের শুভেচ্ছা!


মন্তব্য ৫০ টি রেটিং +২১/-০

মন্তব্য (৫০) মন্তব্য লিখুন

১| ১৫ ই জুন, ২০২১ রাত ১১:৪৯

জটিল ভাই বলেছেন:
আপনাকেও বৃষ্টিমাখা একলা(০১লা) আষাঢ়ের শুভেচ্ছা :)

১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ১২:২৩

মনিরা সুলতানা বলেছেন: ধন্যবাদ জটিল ভাই !!!
আশা করছি একলা আষাঢ় ভালোই কেটেছে আপনার ?

২| ১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ১২:১৪

হাবিব স্যার বলেছেন:


আষাঢ় এলো বৃষ্টি ঝুড়ি নিয়ে
সুস্বাগতম বকুল সুভাস দিয়ে।

১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ১২:২৬

মনিরা সুলতানা বলেছেন: ওরে আল্লাহ ! স্যার যে ??
আছেন কেমন? ছিলেন কেমন ?
অনেক দিন পর আপনাকে ব্লগে দেখে ভালো লাগলো! পাঠে এবং মন্তব্যে অনেক অনেক ধন্যবাদ।
আশা করছি ব্লগেই আছেন/ থাকছেন।

৩| ১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ১২:১৯

ঢুকিচেপা বলেছেন: শীত গ্রীষ্ম মাথায় নিয়ে নিউ মার্কেট ঘুরিয়ে শেষে আষাঢ় মাসের বৃষ্টির মধ্যে ছেড়ে দিলেন ?
অনেক আবেগ জড়িত লেখা চমৎকার হয়েছে।
আষাঢ়ীয়া শুভেচ্ছা রইল।

১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ১২:৩৪

মনিরা সুলতানা বলেছেন: হাহাহাহা ভালো বলেছেন, বৃষ্টি বাদলার দিন আবেগের ঢল নামে কিনা ;)
ধন্যবাদ ঢুকিচেপা পাঠে এবং চমৎকার মন্তব্যে।

৪| ১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ১২:৩৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: মনিরা সুলতানা,





এই বিষন্ন শহরে আষাঢ়কে আর কেউ বরণ করে নেয়না। কাদা মাখা আষাঢ়ের শহরের চেহারা দেখলেই বিষিয়ে ওঠে মন।

তবুও এর মাঝে কেউ কেউ বৃষ্টিভেজা কদমফুল খোঁজেন। রিমঝিম বৃষ্টির তালে তালে হৃদয় নামের দোলনাতে দোলা দিয়ে যান। মাধবীলতার শিক্ত শরীরে শিহরিত হন। প্রকৃতির মাঝে খোঁজেন ভালোবাসার ঘ্রান ।

লেখাটি তেমন একজনের হাতে বকুল গন্ধে লেখা।

১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ১২:৫৩

মনিরা সুলতানা বলেছেন: হ্যাঁ এটুকু সত্যি যে কাদা মাখা আষাঢ়ের চেহারা আবর্জনার শহর, বসবাসের অযোগ্য শহরের তালিকায় প্রথম দিকে উঠে আসা এ শহরের চেহারা আমাদের মন বিষায়। কিন্তু দিনশেষে যাদুর এ শহরের বৃষ্টিস্নাত উদাসী রূপ আমাদের মন ভেজায়। আর এ জন্যেই তবুও এর মাঝে কেউ কেউ বৃষ্টিভেজা কদমফুল খোঁজেন। রিমঝিম বৃষ্টির তালে তালে হৃদয় নামের দোলনাতে দোলা দিয়ে যান। মাধবীলতার শিক্ত শরীরে শিহরিত হন। প্রকৃতির মাঝে খোঁজেন ভালোবাসার ঘ্রান ।


ধন্যবাদ ভাইয়া চমৎকার মন্তব্যে লেখায় উৎসাহ দেবার জন্য।

৫| ১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ১২:৩৫

সন্ধ্যা প্রদীপ বলেছেন: মায়াভরা লেখা--দারুন লাগলো

১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ১২:৫৫

মনিরা সুলতানা বলেছেন: অনেকদিন পর আপনাকে পেলাম লেখায় সান্ধ্য প্রদীপ ! আসা করছি ভালো ছিলেন?
লেখার মায়া আপনাকে ছুঁয়েছে, সেটুকুই লেখার আনন্দ।

শুভ কামনা।

৬| ১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ১২:৪৭

কামাল১৮ বলেছেন: লেখা ভালো লেগেছে।কোন মাস কখন আসে কখন যায় বুঝতেই পারি না।

১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ১:০২

মনিরা সুলতানা বলেছেন: লেখায় স্বাগত কামাল ১৮ !
নতুন পাঠক পাওয়া সব সময় আনন্দের; ভালোলাগার প্রকাশ আনন্দের মাত্রা অনন্যতায় নিয়ে যায়।
হ্যাঁ আজকাল পত্রিকা পঞ্জিকার শুকনো পাতায় ই থেকে যায়, আলোময় ইন্টারনেটের ভুবনে। শহুরে ব্যস্ত জীবনে দিন তারিখ নাম সই করার সময় কাজে লাগে।

শুভ কামনা আপনার জন্য।

৭| ১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ১:০০

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: আপনাকেও আষাঢ়ের শুভেচ্ছা।

১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ১:০৩

মনিরা সুলতানা বলেছেন: ধন্যবাদ সেলিম আনোয়ার !
সব সময় ভালো থাকার শুভ কামনা আপনার জন্য।

৮| ১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ১:০৬

ডঃ এম এ আলী বলেছেন:

এক নজর দেখে গেলাম । আসব ফিরে অচিরেই ।

১৬ ই জুন, ২০২১ সন্ধ্যা ৭:২৫

মনিরা সুলতানা বলেছেন: অপেক্ষায় রইলাম আপনার প্রাসঙ্গিক সুদীর্ঘ জ্ঞানগর্ভ মন্তব্যের। যেখানে সবাই কিছু না কিছু শিখবে।

৯| ১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ১:৫৫

কঙ্কাবতী রাজকন্যা বলেছেন: বরষার শুভেচ্ছা.....

১৬ ই জুন, ২০২১ সন্ধ্যা ৭:৩০

মনিরা সুলতানা বলেছেন: রাজকন্যর জন্য ও শুভেচ্ছা।

১০| ১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ২:৫৯

অপু তানভীর বলেছেন: ভালোবাসলে সত্যিই কি ভালোবাসা ফিরে আসে ঠিক?

সবার জীবনে আসলে আসে না । ভালোবাসলেও ভালোবাসা আর ফিরে আসে না তাদের জীবনে !

বর্ষার আগমনের শুভেচ্ছা আপনাকেও ।

১৬ ই জুন, ২০২১ সন্ধ্যা ৭:৪৯

মনিরা সুলতানা বলেছেন: প্রকৃতিকে কে ভালোবাসলে সে কখনো ফেরায় না। হ্যাঁ এটুকু ও ও সত্যি সবার জীবনে ভালোবাসায়, ভালোবাসা ফিরে না। হয়ত তার জন্য অন্য কেউটার ভালোবাসা।
অনেক ধন্যবাদ অপু তানভীর!

১১| ১৬ ই জুন, ২০২১ সকাল ৯:৩৭

শেরজা তপন বলেছেন: পড়েছি- আমি আছি জানান দিয়ে গেলাম :)

১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ৮:০০

মনিরা সুলতানা বলেছেন: সেটুকু নিশ্চয়ই আমার জন্য আনন্দের !!

১২| ১৬ ই জুন, ২০২১ সকাল ১০:১৯

দেশ প্রেমিক বাঙালী বলেছেন: এখন আষাঢ়ে আগের মতো ঝুম বৃষ্টি যা একটানা কয়েকদিন হতো তেমনটা নেই সেই টিনের চালের রিমঝিম শব্দও নেই।

১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ৮:০৩

মনিরা সুলতানা বলেছেন: আহা সে বড্ড সুখের অনুভব বাঙালী ভাই, সব সময়ে তা পাওয়া যায় না। তবে মাত্রই ই শুরু হল বর্ষা দেখা যাক আমাদের কে কতটা ভেজায়।

ভালো থাকুন সব সময়।

১৩| ১৬ ই জুন, ২০২১ সকাল ১১:৪৬

ইসিয়াক বলেছেন: আপনার জন্যও শুভেচ্ছা রইলো।

১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ৮:০৫

মনিরা সুলতানা বলেছেন: ধন্যবাদ কবি ইসিয়াক।

১৪| ১৬ ই জুন, ২০২১ দুপুর ১২:৫৩

ভুয়া মফিজ বলেছেন: পোষ্ট পড়ে মন্তব্যের ভাষা হারিয়ে ফেলেছি......আপাততঃ বাকরুদ্ধ অবস্থায় আছি!!! :(

১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ৯:৫৬

মনিরা সুলতানা বলেছেন: ফাঁকিবাজি আর কত ?? B-)) =p~

১৫| ১৬ ই জুন, ২০২১ বিকাল ৩:১৭

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন:
বর্ষা এলো কদম, কেয়ার শুভ্র সৌন্দর্য নিয়ে।

++++++

১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ১০:০৬

মনিরা সুলতানা বলেছেন: হ্যাঁ বর্ষার সৌন্দর্য সব সময় ই আলাদা !
অনেক ধন্যবাদ সরকার ভাই, পাঠে এবং মন্তব্যের জন্য।

১৬| ১৬ ই জুন, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৩৩

পুলক ঢালী বলেছেন: বহুদিন পর ব্লগে ঢুকিলাম, আপনার লেখা দেখিয়া লগইন করিতে বাধ্য হইইলাম :D
আষাঢ়স্য প্রথম দিবসের প্রথম কদম ফুলের শুুভেচ্ছা রইলো (আজ ২রা আষাঢ়, গতকাল বৃষ্টির ফোটায় কিছুক্ষণ সিক্ত হলেও পরে যখন বাতাসের ভেলায় চেপে ঝমঝমিয়ে বৃষ্টি নেমে এলো তখন দৌড়ে গিয়ে আশ্রয় নিলাম এক কদম তলায়। উঁকিঝুঁকি দিলাম কদম ফুলের আশায়, দুটো ফুটে গিয়ে বাসী হওয়া ফুল আর অসংখ্য কুড়ি চোখে পড়লো। মনে হলো ঝতুর সাথে প্রকৃতির ভারসাম্যের তাল যেন কেঁটে গেছে :( )।
বাংলা ভাষার শব্দ ভান্ডারের উপর আপনার অসম্ভব দখল থাকার কারনে, আপনার হেলফেলায় রচিত যে কোন লেখাই আমার মাথার উপর দিয়ে চলে যায়, ভোতা এন্টেনা ক্যাচ করতে পারেনা, তবে আপনার এই কবিতাটা মনে হয় অল্প অল্প ক্যাচ করতে পেরেছি :D তা না হলে আমিও কেন দেখি দিনে দিনে ইট কাঠ লোহা আর সিমেন্টের কৃত্রিম বাগানের প্রসার বিপরীতে প্রকৃতির বিনাশ ?

প্রকৃতিকে ভালবাসলে প্রকৃতি তা বহুগুনে ফিরিয়ে দেয়, হোক না তা ছোট্ট একটা টবের একটা নাইন'ও ক্লক !
মানুষের বয়স বাড়লেও মনটা কখনই বুড়ো হয়না, ঝেড়ে ফেলে দিন বা ভুলে যান মানুষের বক্রোক্তি আর তীর্যক চাহনির কথা।
আপন মনের মহিমায়,ভাবনায় মনের মাধুরী মিশিয়ে বুঁদ হয়ে থাকুন অবসর মুহূর্তে এই কামনা রইলো।
ভাল থাকুন। :)

১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ১০:৩৩

মনিরা সুলতানা বলেছেন: এত আমার পরম সৌভাগ্য !! জনাব মন ভালো করে দিলেন।

মনে হলো ঋতুর সাথে প্রকৃতির ভারসাম্যের তাল যেন কেঁটে গেছে :( ) আপনার এ কথার সাথে আমি সম্পূর্ণ একমত। আমার শিউলি গাছে দেখেন এই আষাঢ়ে ও ফুল দিচ্ছে। হতে পারে এটা বারোমাসি শিউলি।
আপনার এই আমার লেখা বোঝাপড়া দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হোক। হ্যাঁ প্রকৃতির বিনাশ ই বটে।

ঐ যে লিখেছি, আপনাদের মত দরদী পাঠকের আন্তরিক মন্তব্য সব সময় ই লেখার আনন্দ হয়ে থাকে, বাকি সব কে জানে আর কেই বা মনে রাখে।

অনেক অনেক ধন্যবাদ জনাব ! মাঝে মাঝে দেখা যাবেন আমাদের।

১৭| ১৯ শে জুন, ২০২১ সকাল ১০:০৯

সোহানী বলেছেন: অদ্ভুত কবি। আহ্ কতদিন ঝুম বৃষ্টিতে ভিজি না, টিনের চালে রিমঝিম শব্দ শুনি না, বৃষ্টি মাথায় নিয়ে শিউলি ফুল কুড়াই না.......। ফেলে আসা সে জীবনটার মাদকতা ভোলা যায় না।

১৯ শে জুন, ২০২১ দুপুর ১২:০২

মনিরা সুলতানা বলেছেন: ধন্যবাদ আপু ঘোরলাগা মন্তব্যে !!
আসলে আমরা ফেলে আসা দিন ভুলতে ও চাই না। এই স্মৃতিকাতরতায় অন্য রকম আনন্দ।

১৮| ২১ শে জুন, ২০২১ রাত ১:১০

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




আপনার কাছে খুব সম্ভব ফুলের ছবি আছে বেশ কিছু। সম্ভব হলে ছবি ব্লগ পোস্ট দিতে পারেন। আষাঢ মাসের ঝমঝমে বৃষ্টির জন্য আপনাকেও শুভেচ্ছা।

২১ শে জুন, ২০২১ বিকাল ৩:৪০

মনিরা সুলতানা বলেছেন: জি আমি ফুলের ছবি উঠাতে পছন্দ করি , তবে তেমন নিয়ম নীতি মেনে কিছু ই নয়। সেজন্য সাহস করি নাই দেবার। ঠিকঠাক সেট ও করি না, সব ছবি ই এডিট ছাড়া, দেখা যাক কি করি। জুনাপু ও চাইছেন ছবি ব্লগ দেই, আবার আপনি ও।

ধন্যবাদ পোষ্ট এপথে এবং চমৎকার মন্তব্যে।

১৯| ২২ শে জুন, ২০২১ রাত ১২:২১

ওমেরা বলেছেন: আপুনি একটা ছবি ব্লগ পোষ্ট করেন ।

ভালোবাসার বিনিময়ে ভালোবাসাই পাওয়া যাবে ।

২২ শে জুন, ২০২১ দুপুর ২:৫৫

মনিরা সুলতানা বলেছেন: হাহাহাহা দেয়ার মত সুন্দর ছবি নাই যে :(
তবুও দেখি ভালোবাসলে ভালোবাসা ফিরে আসে কিনা।

২০| ২২ শে জুন, ২০২১ বিকাল ৩:০৫

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: আপনার লেখা আমার খুব প্রিয়
শুভ কামনা ভালোবাসা রইলো আপু

২২ শে জুন, ২০২১ বিকাল ৩:০৬

মনিরা সুলতানা বলেছেন: ধন্যবাদ ছবি আপু !
আপনার জন্য ও ভালোবাসা :)

২১| ২২ শে জুন, ২০২১ বিকাল ৩:১৪

জুন বলেছেন: নীল নবঘনে আষাঢ় গগনে তিল ঠাঁই আর নাহি রে । ওগো, আজ তোরা যাস নে ঘরের বাহিরে ॥ আষাঢ় মাস আমার খুব প্রিয় ঋতু মনিরা। যদিও কবি বাইরে যেতে না করেছেন তারপর ও কিশোরী কালে আষাঢ় মাসের ঢল বৃষ্টিতে বাসার সবুজ ঘাস বেছানো উঠোনে ভিজতে কি যে ভালো লাগতো, ঠিক সেই ভালো লাগাটাই রয়েছে আপনার লেখার লাইনে লাইনে।
অনেক অনেক ভালো লাগা রইলো।
+

২৪ শে জুন, ২০২১ রাত ৮:০৬

মনিরা সুলতানা বলেছেন: ঝুম বৃষ্টিতে ঘরে থাকা যে পানিশমেন্ট সেইটা কবি যে বুঝল না, এইটাই আফসোস আপু। কিশোরী কালে মাথায় চিন্তা কম ছিল সেসব দিন ই ভালো ছিল আপু, এখন তো ভেজার আগে দশবার চিন্তা করতে হয়।
অনেক অনেক ধন্যবাদ আপু একদম ঘোরলাগা সময়ের সাথে লেখার ভালোলাগা খুঁজে পাওয়াতে। সবসময় এভাবে লেখায় উৎসাহ দেন বলেই দু এক লাইন লিখি।

ভালোবাসা আপু।

২২| ২২ শে জুন, ২০২১ বিকাল ৩:২৯

আখেনাটেন বলেছেন: শিউলী গাঁথা............কঠিন ভাবের প্রকাশ..........তালগোল পাকিয়ে গেলো মস্তিষ্কে......। :-B

এবার শিউলি, চামেলি, বকুল নিয়ে ছবিব্লগ দিয়ে ফেলুন মনিরাপা......... :D

২৪ শে জুন, ২০২১ রাত ৮:০৯

মনিরা সুলতানা বলেছেন: ও আল্লা !! নেফারতিতি ম্যাম আমাকে না বকলেই হয়, আপনার তালগোল মস্তিকের জন্য।
হুম হুম সবফুল ই খুঁজছি, খুঁজে পেলে দিয়ে ফেলতে ও পারি।

ভালো থাকুন।

২৩| ২৭ শে জুন, ২০২১ সকাল ১০:৪৯

মলাসইলমুইনা বলেছেন: আপনার এই ফুলঝাঁপির ফটোগুলো একের পর এক সাজিয়ে দিলেইতো সুরভিত একটা ফটো ব্লগ হয় । সেটা করুন তাড়াতাড়ি । জাদিদ সাহেবের কাছে সময় বৃদ্ধির দাবিও জানাতে পারি সেজন্য যদি বলেন । এই লেখাটার।কমেন্ট বকেয়া রাখতে হচ্ছে । ঘ্রানং অর্ধনং ভোজনং আর তেমন আগে আরাম করে পড়ি, রস আস্বাদন করি তারপরে এই মহাকাব্যে মন্তব্যের পালা আসবে ।

২৭ শে জুন, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:০৬

মনিরা সুলতানা বলেছেন: হাহাহাহা আপনারা আমার লেখা ছবি সব কিছু এত দরদ দিয়ে দেখেন যে নিজেকে সব সময় ভাগ্যবান মনে হয়। অনেক অনেক ধন্যবাদ ভাইয়া সব সময় সাথে থাকার জন্য। বকেয়া মন্তব্যের অপেক্ষায় রইলাম।

২৪| ১৯ শে জুলাই, ২০২১ রাত ৮:৫৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: আষাঢ়স্য প্রথম দিনে অনুক্ত প্রাপকের উদ্দেশ্যে লেখা বাদল দিনের চিঠিটা খুবই আবেদনময় হয়েছে। পড়া শুরু করলে অবশ্য বোঝা যায়, চিঠিটি কার উদ্দেশ্যে লেখা হয়েছে। চিঠিটা এত সুন্দর এবং এত কাব্যিক ভাষায় লেখা হয়েছে যে প্রকৃতি মায়ের প্রতি নিবেদিত এ রচনাটাকে এক যথার্থ নৈবেদ্য হিসেবে গ্রহণ করা যায়। প্রতিটি অনুচ্ছেদের প্রতিটি লাইনের পরতে পরতে অসংখ্য উদ্ধৃতিযোগ্য বাক্যাংশ রয়েছে, লেখাটা পড়ার সময়েই যা একাধিকবার পড়তে ইচ্ছে হয়।

চমৎকার এ নৈবেদ্যটিতে একুশতম ভাললাগা রেখে গেলাম। + +

২০ শে জুলাই, ২০২১ সকাল ১১:৪৪

মনিরা সুলতানা বলেছেন: বর্ষা আমাকে আনমনা করে, উদাসী আর স্মৃতি কাতর। তবুও বর্ষা প্রিয় থেকে প্রিয় তোর হয়ে উঠে, আমার লেখায় আধিপত্য বিস্তার করে। লেখার মনযোগী পাঠ এবং তারচাইতেও সুন্দর আন্তরিক মন্তব্যের জন্য কৃতজ্ঞতা আহসান ভাই।
ভালোলাগার প্রকাশ এবং প্লাস এর জন্য ধন্যবাদ।

২৫| ১৯ শে জুলাই, ২০২১ রাত ৯:১৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: সন্ধ্যা প্রদীপ বলেছেন: মায়াভরা লেখা--দারুন লাগলো। তার এ মন্তব্যটাও আমার কাছে দারুণ লাগলো। এ ছাড়াও ১৬ ও ১৯ নং মন্তব্যদুটি এবং আপনার ১৪ নং প্রতিমন্তব্যটি ভাল লেগেছে।

আষাঢ়- শ্রাবন দুটোই বরষার মাস। উপভোগ করুন, জলে ফলে আর ফুলে।

২০ শে জুলাই, ২০২১ সকাল ১১:৪৭

মনিরা সুলতানা বলেছেন: চমৎকার বলেছেন তো !! জলে ফলে আর ফুলে !!!
হ্যাঁ বর্ষা কাল ভরপুর সময় প্রায় সব কিছু র ই। মন্তব্যে উদ্ধৃতি এবং ভালোলাগা জানানোর জন্য ধন্যবাদ।
শুভ কামনা।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.