নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

পেশা ব্যবসা ও চাকুরি। জ্ঞানভিত্তিক জীবনদর্শনে বিশ্বাসী। নির্জনে ও নীরবে প্রকৃতির নৈসর্গিক রূপ উপভোগ করতে ভালোবাসি। বই পড়তে, ভ্রমণ করতে, একলা চলতে এবং জটিল চরিত্রের মানুষ থেকে দূরে থাকতে পছন্দ করি। –এম. জেড. ফারুক

এমজেডএফ

কথায় নয় কাজে বিশ্বাস

এমজেডএফ › বিস্তারিত পোস্টঃ

নির্মলেন্দু গুণের জনপ্রিয় কিছু কবিতার উল্লেখযোগ্য কিছু পংক্তি

২১ শে জুন, ২০১৯ ভোর ৬:০০


নির্মলেন্দু গুণ আমার প্রিয় কবিদের মধ্যে একজন। আজ ২১ জুন ২০১৯ তাঁর ৭৪তম জন্মদিন। তাই কবির জনপ্রিয় কিছু কবিতার উল্লেখযোগ্য কিছু পংক্তি সবার সাথে শেয়ার করলাম।

স্ববিরোধী
জন্মের সময় আমি খুব কেঁদেছিলাম,
এখন আমার সবকিছুতেই হাসি পায়।
আমি জন্মের প্রয়োজনে ছোট হয়েছিলাম,
এখন মৃত্যুর প্রয়োজনে বড় হচ্ছি।

যাত্রাভঙ্গ
হাত বাড়িয়ে ছুঁই না তোকে
মন বাড়িয়ে ছুঁই,
দুইকে আমি এক করি না
এক কে করি দুই।

আমেরিকা: আপডেটেড
আমেরিকা, তুমি শোনো, আমি চাই -
তুমি রবীন্দ্রনাথের কবিতা পড়ো,
আর সদাপ্রভু দয়াল যিশুর নামে
শুদ্ধচিত্তে তুমি পাঠ করো বাইবেল।

হুলিয়া
আমি বাড়ির পেছন থেকে দরোজায় টোকা দিয়ে
ডাকলুম,— “মা’৷
বহুদিন যে-দরোজা খোলেনি,
বহুদিন যে দরোজায় কোন কন্ঠস্বর ছিল না,
মরচে-পরা সেই দরোজা মুহূর্তেই ক্যাচ্ক্যাচ শব্দ করে খুলে গেল।

আমি আজ কারো রক্ত চাইতে আসিনি
সমবেত সকলের মত আমিও গোলাপ ফুল খুব ভালোবাসি,
রেসকোর্স পার হয়ে যেতে সেইসব গোলাপের একটি গোলাপ গতকাল
আমাকে বলেছে, আমি যেন কবিতায় শেখ মুজিবের কথা বলি।
আমি তাঁর কথা বলতে এসেছি।

শুধু তোমার জন্য
আমার চুল পেকেছে তোমার জন্য,
আমার গায়ে জ্বর এসেছে তোমার জন্য,
আমার ঈশ্বর জানেন- আমার মৃত্যু হবে তোমার জন্য।
তারপর অনেকদিন পর একদিন তুমিও জানবে,
আমি জন্মেছিলাম তোমার জন্য। শুধু তোমার জন্য।

মানুষ
আমি হয়তো মানুষ নই,
মানুষ হলে তোমাকে নিয়ে কবিতা লেখা
আর হতো না, তোমাকে ছাড়া সারাটা রাত
বেঁচে থাকাটা আর হতো না।

পৃথিবী
আমি খাদ্য চাই ক্ষুধার্ত ব্যাঘ্রের মতো, দ্রৌপদীর মতো
বস্ত্র চাই, চাই সর্বগ্রাসী প্রেম, চাই শূর্পণখার মতো নারী,
চাই আকন্ঠ নিমগ্ন নেশা, চাই দেশী মদ।
আমার সমস্ত ক্ষুধা তোমাকে মিটাতে হবে, হে পৃথিবী,
তুমি বলেছিলে অভাব হবে না, এ-পৃথিবী নেশা ও নারীর,
আমি চলে এসেছিলাম একা, শুধু তোমার জন্যে।

নাস্তিক
শুধুই ছলনা, বিশ্বাস করি না ভাগ্যে, দেবতার বরে৷
আমার জগৎ মুগ্ধ বাস্তবের বস্তুপুঞ্জে ঠাসা,
তাই সে ইন্দ্রিয়গ্রাহ্য, অতীন্দ্রিয় নয়৷
অন্ধতার বধ্যভূমি আমার হদৃয়৷
সেই শ্রেষ্ঠ মানব-সন্তান, যার মন মুক্ত ভগবান।
আমার মস্তক নিত্য নত সেই নাস্তিকের তরে।

তোমার চোখ এতো লাল কেন?
আমি বলছি না ভলোবাসতেই হবে, আমি চাই
কেউ একজন ভিতর থেকে আমার ঘরের দরোজা
খুলে দিক । কেউ আমাকে কিছু খেতে বলুক ।
কাম-বাসনার সঙ্গী না হোক, কেউ অন্তত আমাকে
জিজ্ঞেস করুক : 'তোমার চোখ এতো লাল কেন?'

আবার যখনই দেখা হবে
আবার যখনই দেখা হবে, আমি প্রথম সুযোগেই
বলে দেব স্ট্রেটকাটঃ 'ভালোবাসি'।

আমার কিছু স্বপ্ন ছিল
আমার কিছু স্বপ্ন ছিল, আমার কিছু প্রাপ্য ছিল,
একখানা ঘর সবার মতো আপন করে পাবার,
একখানা ঘর বিবাহিত, স্বপ্ন ছিল রোজ সকালে
একমুঠো ভাত লঙ্কা মেখে খাবার।

আমি চলে যাচ্ছি
যদি কোনোদিন এই রাত্রি ভোর হয়, আবার কখনো যদি
সূর্য ওঠে নিষ্ঠুর বাংলায়, আবার কখনও যদি ফিরে পাই
আমার যৌবন, যদি পাই আমার স্বপ্নের সেই নারী, কবি
না হয়ে, অন্য যা-কিছু হয়ে আমি ফিরে আসতেও পারি।

একটি খোলা কবিতা
আসুন আমরা আগুন সম্পর্কে বৃথা বাক্য
ব্যয় না করে একটি দিয়াশলাইয়ের কাঠি
জ্বালিয়ে দিয়ে বলিঃ 'এই হচ্ছে প্রকৃত আগুন।
মীটসেফ খোলা রেখে, বিড়ালকে উপদেশ দিয়ে
অযথা সময় নষ্ট ক'রে লাভ নেই, আসুন
আমরা মীটসেফের দরোজাটা বন্ধ করে দেই।'

ওটা কিছু নয়
সুখের সামান্য নিচে কেটে ফেলা যন্ত্রণার কবন্ধ–প্রেমিক,
ওখানে কী খোঁজ তুমি ? ওটা কিছু নয়, ওটা দুঃখ ;
রমণীর ভালোবাসা না-পাওয়ার চিহ্ন বুকে নিয়ে ওটা নদী,
নীল হয়ে জমে আছে ঘাসে,–এর ঠিক ডানপাশে , অইখানে
হাত দাও, হ্যাঁ, ওটা বুক, অইখানে হাত রাখো, ওটাই হৃদয় ।
অইখানে থাকে প্রেম, থাকে স্মৃতি, থাকে সুখ, প্রেমের সিম্পনি ;
অই বুকে প্রেম ছিল, স্মৃতি ছিল, সব ছিল তুমিই থাকো নি।

দুঃখ করো না, বাঁচো
অনুশোচনা হচ্ছে পাপ, দুঃখের এক নিপুণ ছদ্মবেশ ।
তোমাকে বাঁচাতে পারে আনন্দ । তুমি তার হাত ধরো,
তার হাত ধরে নাচো, গাও, বাঁচো, ফুর্তি করো ।
দুঃখকে স্বীকার করো না, মরে যাবে, ঠিক মরে যাবে।
যদি মরতেই হয় আনন্দের হাত ধ'রে মরো।

স্বাধীনতা- এই শব্দটি কীভাবে আমাদের হলো
শত বছরের শত সংগ্রাম শেষে ,
রবীন্দ্রনাথের মতো দৃপ্ত পায়ে হেঁটে
অত:পর কবি এসে জনতার মঞ্চে দাঁড়ালেন ৷
তখন পলকে দারুণ ঝলকে তরীতে উঠিল জল ,
হৃদয়ে লাগিল দোলা , জনসমুদ্রে জাগিল জোয়ার
সকল দুয়ার খোলা ৷ কে রোধে তাঁহার বজ্রকণ্ঠ বাণী ?
গণসূর্যের মঞ্চ কাঁপিয়ে কবি শোনালেন তাঁর অমর - কবিতা খানি :
" এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম ,
এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম "৷
সেই থেকে স্বাধীনতা শব্দটি আমাদের।

মন্তব্য ১৬ টি রেটিং +৩/-০

মন্তব্য (১৬) মন্তব্য লিখুন

১| ২১ শে জুন, ২০১৯ সকাল ৭:৪৯

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: অনেকগুলো নতুন কবিতার কিছুটা পড়লাম আজ......শুভ সকাল।

২১ শে জুন, ২০১৯ দুপুর ২:০৭

এমজেডএফ বলেছেন: ধন্যবাদ ভাই, ভালো থাকুন।

২| ২১ শে জুন, ২০১৯ সকাল ৯:৫৭

কালো যাদুকর বলেছেন: সেই এক সময় ছিল, সেই এক কবি আমাদের শ্রদ্ধেয় নির্মলেন্দু গুণ। অনেকদিন পরে পড়ার সুযোগ করে দেয়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ।

২১ শে জুন, ২০১৯ দুপুর ২:১১

এমজেডএফ বলেছেন: ধন্যবাদ আপনাকেও।
আমরা এখন সবাই ব্যস্ত! লম্বা কবিতা পড়ার মতো আগের সেই সময় এখন আর নেই :) , তাই শুধু বিভিন্ন কবিতার চুম্বক অংশটুকু দিলাম।

৩| ২১ শে জুন, ২০১৯ সকাল ১০:৩৩

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: ভালো লাগলো।

২১ শে জুন, ২০১৯ দুপুর ২:১২

এমজেডএফ বলেছেন: ধন্যবাদ।

৪| ২১ শে জুন, ২০১৯ সকাল ১০:৩৭

নীল আকাশ বলেছেন: সহজ সরল ভাষায় উনার প্রকাশ ভঙ্গি খুবই মারাত্মক। উনার কিছু লেখার আমার খুবই পছন্দের।

২১ শে জুন, ২০১৯ দুপুর ২:১৩

এমজেডএফ বলেছেন: আপনার সাথে সহমত। উনার কিছু কিছু কবিতা সম্পূর্ণ আলাদা বৈশিষ্ট্যের। মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ।

৫| ২১ শে জুন, ২০১৯ সকাল ১১:২৭

রাজীব নুর বলেছেন: পোষ্ট টি ভালো লাগলো।

২১ শে জুন, ২০১৯ দুপুর ২:১৫

এমজেডএফ বলেছেন: আপনার ভালো লাগবে সেটা আগেই জানতাম :) । তারপরেও মন্তব্য করে নিশ্চিত করার জন্য ধন্যবাদ।

৬| ২১ শে জুন, ২০১৯ দুপুর ১২:৫০

নূর আলম হিরণ বলেছেন: শব্দগুচ্ছ খুব করে সাজাতে পারেন এই কবি। ভালো লাগলো।

২১ শে জুন, ২০১৯ দুপুর ২:১৬

এমজেডএফ বলেছেন: ধন্যবাদ হিরণ সাহেব, শুভেচ্ছা রইলো।

৭| ২১ শে জুন, ২০১৯ দুপুর ১:৫৬

বলেছেন: কবির জন্মদিনে বিনম্র শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা।।

পোস্টে লাইক।।।

২১ শে জুন, ২০১৯ দুপুর ২:১৮

এমজেডএফ বলেছেন: মন্তব্য ও লাইকের জন্য আপনাকে ডাবল ধন্যবাদ। সেইসাথে আপনার প্রতিও রইলো বিনম্র শ্রদ্ধা।

৮| ২১ শে জুন, ২০১৯ বিকাল ৫:৪৭

হাবিব স্যার বলেছেন: খুবই ভালো লাগলো।

২১ শে জুন, ২০১৯ রাত ১১:২১

এমজেডএফ বলেছেন: ধন্যবাদ স্যার।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.