নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

পেশা ব্যবসা ও চাকুরি। জ্ঞানভিত্তিক জীবনদর্শনে বিশ্বাসী। নির্জনে ও নীরবে প্রকৃতির নৈসর্গিক রূপ উপভোগ করতে ভালোবাসি। বই পড়তে, ভ্রমণ করতে, একলা চলতে এবং জটিল চরিত্রের মানুষ থেকে দূরে থাকতে পছন্দ করি। –এম. জেড. ফারুক

এমজেডএফ

কথায় নয় কাজে বিশ্বাস

এমজেডএফ › বিস্তারিত পোস্টঃ

তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাহিত্যকর্ম

২৪ শে জুলাই, ২০১৯ রাত ১১:৫৪


তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায় (১৮৯৮-১৯৭১) কথাসাহিত্যিক, রাজনীতিবিদ। ১৮৯৮ সালের ২৪ জুলাই পশ্চিমবঙ্গের বীরভূম জেলার লাভপুর গ্রামে এক জমিদারবংশে তাঁর জন্ম। আজ বাংলা ভাষার অন্যতম শ্রেষ্ঠ কথাসাহিত্যিক, ঔপন্যাসিক ও গল্পলেখক তারাশংকর বন্দোপাধ্যায়ের ১২১তম জন্মবার্ষিকী। প্রথম জীবনে কিছু কবিতা লিখলেও কথাসাহিত্যিক হিসেবেই তারাশঙ্করের প্রধান খ্যাতি। বীরভূম-বর্ধমান অঞ্চলের মাটি ও মানুষ, বিভিন্ন পেশাজীবী মানুষের জীবনচিত্র, স্বাধীনতা আন্দোলন, যুদ্ধ, দুর্ভিক্ষ, অর্থনৈতিক বৈষম্য, ব্যক্তির মহিমা ও বিদ্রোহ, সামন্ততন্ত্র-ধনতন্ত্রের দ্বন্দ্বে ধনতন্ত্রের বিজয় ইত্যাদি তাঁর উপন্যাসের বিষয়বস্ত্ত। তার সামগ্রিক সাহিত্যকর্মের মধ্যে রয়েছে ৬৫টি উপন্যাস, ৫৩টি গল্পগ্রন্থ, ১২টি নাটক, ৪টি প্রবন্ধের বই, ৪টি আত্মজীবনী এবং ২টি ভ্রমণ কাহিনী। মানবচরিত্রের নানা জটিলতা ও নিগূঢ় রহস্য তাঁর উপন্যাসে জীবন্তভাবে প্রকাশ পেয়েছে।
(বহিঃসংযোগ: তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়ের জীবনী)

তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়ের উল্লেখযোগ্য গ্রন্থগুলোর সংক্ষিপ্ত পরিচিতি ও অনলাইন ভার্সনের লিঙ্ক এখানে দেওয়া হলো:

১। চৈতালী ঘূর্ণি (১৯৩২)
চৈতালী ঘুরণি দারিদরযের কষাঘাতে জরজরিত মানুষদের নিয়ে লেখা উপনযাস। দেশ-ভাগের গরম হাওয়া বইতে শুরু করেছে যখন ভারতবরষের হাটে-ঘাটে-মাঠে, সে সময়কার আঁচ, মানুষের অবিরাম দুরদশা আর আসলে দেশে সবাধীনতা এলো কী এলোনা, এর সরাসরি কোন পরভাব ও গুরুতব যে দেশের অতি সাধারণ, হতদরিদর মানুষগুলোর জীবনে তেমন নেই-চৈতালী ঘূরণি হয়তো সে গলপও।
পিডিপি ভার্সন / ডাউনলোড: চৈতালী ঘূর্ণি

২। রাইকমল, ১৯৩৪
একটি প্রেমের উপন্যাস যা কমল আর রঞ্জন নামের দুজনের ভালবাসার কাহিনী নিয়ে রচিত। মেয়ে মানুষের মন বুঝার ক্ষমতা অনেক কঠিন কাজ। এমন কঠিন বিষয় নিয়ে তারাশঙ্কর রচিত রাইকমল উপন্যাসটি অসাধারণ লেগেছে।
পিডিপি ভার্সন / ডাউনলোড: রাইকমল

৩। ধাত্রীদেবতা (১৯৩৯),
ধাত্রী দেবতা একটি জমিদার পরিবারের গল্প| জমিদারি প্রথার শেষ পর্যায়ে পরিবারের এক ছেলের জীবনকাল নিয়েই এই উপন্যাস|
পিডিপি ভার্সন / ডাউনলোড: ধাত্রীদেবতা

৪। কালিন্দী (১৯৪০),
এক নদীর চর জেগে ওঠাকে কেন্দ্র করে দুই জমিদার,প্রজা,সাওতাল,মহাজনের এক অনবদ্য রচনা।
পিডিপি ভার্সন / ডাউনলোড: কালিন্দী

৫। গণদেবতা (১৯৪৩),
৯৪২ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত মহাকাব্যিক পটভূমির এই উপন্যাসের বিষয়বন্তু বিভাগোত্তর ভারতবর্ষের সমাজ ব্যবস্থা এবং স্বাধীনতা আন্দোলন ও শিল্পায়নের পরিপ্রেক্ষিত গ্রামীণ সমাজের বিবর্তন। বিংশ শতাব্দীর সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ বাংলা উপন্যাসের একটি বলে বিবেচিত এই উপন্যাসটি বহুভাষায় অনূদিত হয়েছে।[২] ১৯৬৬ খ্রিস্টাব্দে এই উপন্যাসটিকে ভারতের সর্বোচ্চ সাহিত্য পুরস্কার জ্ঞানপীঠ পুরস্কারে ভূষিত করা হয়।[৩] ১৯৭৯ খ্রিস্টাব্দে তরুণ মজুমদার এই উপন্যাসের কাহিনী উপজীব্য করে একটি চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন।[৪] উল্লেখ্য যে, ১৯৪৩ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত পঞ্চগ্রাম উপন্যাসটিকে পরবর্তীকালে গণদেবতা'র অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসাবে বিবেচনা করা হয়।
পিডিপি ভার্সন / ডাউনলোড: গণদেবতা

৬। পঞ্চগ্রাম (১৯৪৪),
পঞ্চগ্রাম উপন্যাসে দ্বারক চৌধুরীর ট্রাজিক পরিণতিতে কিংবা হিরু পালের শ্রীহরি ঘোষরূপে অবিশ্বাস্য গোত্রান্তরে তারাশঙ্কর এ সত্যই প্রকাশ করেছেন। সংগৃহীত অগাধ বিত্ত এবং সে সূত্রে অর্জিত অমিত প্রতাপই বর্ণগত শ্রেণীভেদের মূলে আঘাত হানতে হিরু পালকে প্ররোচিত করেছে। তারাশঙ্কর বোঝাতে চেয়েছেন অবক্ষয়- উন্মুখ সমাজে যে নবপ্রেরণা ক্রমশঃ সঞ্চারিত হচ্ছে, তার নিয়ামক অর্থ বা বিত্ত।
পিডিপি ভার্সন / ডাউনলোড: পঞ্চগ্রাম

৭। কবি (১৯৪৪),
নিচু বংশে জন্মানো নিতাইচরণ গ্রামের সবাইকে চমকে দিয়ে কবি হয়ে ওঠে। সে কবিয়ালদের দোহার হিসেবে কাজ করছিল। কিন্তু গ্রামের পালাগানের আসরে এক প্রতিষ্ঠিত কবিয়ালের অনুপুস্থিতিতে তার সামনে সুযোগ খুলে যায় নিজের কবিয়াল পরিচয় গ্রামবাসীকে জানিয়ে দেয়ার। অভিজ্ঞ কবিয়াল মহাদেবের কাছে সেই দফায় হেরে গেলেও তার উদ্দেশ্য সফল হয়। বাবুরা রীতিমত অবাক- 'ডোমের ছেলে পোয়েট!' নিতাইচরণের পারিবারিক পেশা ছিল ডাকাতি; কিন্তু সে হল অন্যরকম। এমনকি মায়ের অনুরোধ বা মামার শাসনের পরেও সে পড়াশুনো ছেড়ে ডাকাতির দলে নাম লেখায়নি। ঘরবাড়ি ছেড়ে স্টেশনে গিয়ে থাকে। এখানেই তার সাথে বন্ধুত্ব হয় স্টেশনের মুটে রাজার সাথে। নিতাইয়ের ওপর রাজা'র ভক্তি ও বিশ্বাস ছিল অগাধ। নিতাইকে সে ডাকত 'ওস্তাদ' বলে। এদিকে রাজারই এক আত্মীয়কে ঠাকুরঝি বলে ডাকত সে। বিবাহিত ঠাকুরঝি রোজ এসে দুধ বিক্রি করে যেত। মেয়েটার গায়ের রং কাল ছিল বলে গ্রামের লোকজন তো বটেই, রাজা-ও নানা কথা শোনাত। কিন্তু এই মেয়েটার জন্যই নিতাই এর মাথায় একটা পদ তৈরি হয়- 'কাল যদি মন্দ তবে চুল পাকিলে কান্দ কেনে?' জীবনের সব জায়গায় অপমান পাওয়া ঠাকুরঝি এই পদ শুনে আন্দোলিত হয়। আর নিতাই এর মনে, অসম্ভব জেনেও, ঠাকুরঝির জন্য গভীর প্রেম জন্মায়। একপর্যায়ে বিষয়টা জানাজানি হলে নিতাই গ্রামছেড়ে চলে যায়।
পিডিপি ভার্সন / ডাউনলোড: কবি

৮। হাঁসুলি বাঁকের উপকথা (১৯৪৭),
হাঁসুলী বাঁকের উপকথা হল তারাশংকর বন্দ্যোপাধ্যায় লিখিত একটি আঞ্চলিক উপন্যাস। বাঁশবাদি গ্রামে কাহার জাতির লোকেরা বাস করত। কাহারেরা দুটি পাড়ায় বিভক্ত ছিল। বেহারা পাড়া এবং আটপৌরে পাড়া। বেহারা পাড়ার লোকেরা পালকি বহন করত। আর আটপৌরেরা চাষ বাসের কাজে নিযুক্ত ছিল। বেহারা পাড়ার প্রধান ছিল বনোযারী এবং আটপৌরে পাড়ার প্রধান ছিল পরম। দুই পাড়ার মধ্যে মাঝে মাঝেই সংঘর্ষ হত। তবুও উভয়েই কিন্তু দেবতা কত্তাবাবাকে মানত। কত্তা বাবার ছিলেন হাঁসুলী বাঁকের পশ্চিম দিকের শিমুল গাছে। পরবর্তী কালে চন্দনপুরে রেলের কারখানা হবার সুবাদে গ্রামের ছেলে করালী হল প্রথম কারখানার শ্রমিক। করালী ধীরে ধীরে কাহার পড়ার পুরানো বিশ্বাসে ভাঙন আনতে থাকে, সে প্রথমে কত্তা বাবার বাহন সাপটিকে পুড়িয়ে মারে, তাঁর পর বেলতলা ও শ্যাওড়া গাছের বন পরিষ্কার করে। ধীরে ধীরে কাহার দের পুরানো বিশ্বাস ও সংস্কারের পরিবর্তন সাধিত হল।
অনলাইনে পড়ুন / ডাউনলোড: হাঁসুলি বাঁকের উপকথা

৯। আরোগ্য নিকেতন (১৯৫৩)
আরোগ্য - নিকেতন তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায় রচিত একটি বাংলা উপন্যাস। এই উপন্যাসের জন্য, তিনি ১৯৫৫ সালে রবীন্দ্র পুরস্কার ও ১৯৫৬ সালে সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কার পুরস্কারে ভূষিত হন। আরোগ্য নিকেতন অর্থাৎ চিকিৎসালয়। হাসপাতাল নয় দাতব্য চিকিৎসালয়ও নয় – দেবীপুর গ্রামের তিন পুরুষ চিকিৎসা-ব্যবসায়ী মশায়দের চিকিৎসালয়। মশায়দের বাড়ির এই কাহিনী তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায় রচিত এক অসামান্য উপন্যাস। তারাশঙ্করের আরোগ্য নিকেতন এক মহান সৃষিট । জীবন-মৃত্যুর প্রতি বিভিন্ন মানুষের বিভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি, নবীন-প্রবীণের এক অঘোষিত লড়াই-সমন্বিত উপন্যাসের ব্যাপ্তি পাঠককে এক বিষাদ-মধুর প্রশান্তির জগতে নিয়ে যায়। ভাষার সরলতা গ্রামের পরিবেশের সাথে অসাধারণ সুন্দর ভাবে মিলেমিশে যায়। বাংলা কথা -সাহিত্যে তারাশঙ্করের নাম সোনার আখরে লেখা থাকবে।
পিডিপি ভার্সন / ডাউনলোড: আরোগ্য নিকেতন

১০। চাঁপাডাঙার বৌ (১৯৫৪)
পিডিপি ভার্সন / ডাউনলোড: চাঁপাডাঙার বৌ

১১। বিচারক (১৯৫৭)
পিডিপি ভার্সন / ডাউনলোড: বিচারক

১২। মহাশ্বেতা, ১৯৬০
পিডিপি ভার্সন / ডাউনলোড: মহাশ্বেতা

১৩। গুরুদক্ষিণা (১৯৬৬)
পিডিপি ভার্সন / ডাউনলোড: গুরুদক্ষিণা



তারাশঙ্করের উপন্যাস, গল্প ও নাটক নিয়ে চল্লিশটিরও বেশি চলচ্চিত্র নির্মিত হয়েছে। সত্যজিৎ রায়ও তারাশঙ্করের জলসাঘর এবং অভিযান উপন্যাসের সফল চিত্ররূপ দিয়েছেন। লেখকের যেসব উপন্যাস/গল্প চলচ্চিত্রে রূপায়িত করা হয়েছে সেগুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য কিছুর ভিডিও লিঙ্ক এখানে দেওয়া হলো:

জলসাঘর (১৯৫৮) [সত্যজিৎ রায়]
মুভি: জলসাঘর

অভিযান (১৯৬২) [সত্যজিৎ রায়]
মুভি: অভিযান

অগ্রদানী (১৯৮৩) [পলাশ বন্দ্যোপাধ্যায়]
মুভি: অগ্রদানী

আগুন (১৯৬২) [অসিত সেন]
মুভি: আগুন

আরোগ্য নিকেতন [বিজয় বসু], জাতীয় পুরষ্কারপ্রাপ্ত
মুভি: আরোগ্য নিকেতন

উত্তরায়ণ ( ১৯৬৩) [অগ্রদূত]
মুভি: উত্তরায়ণ

কবি (১৯৪৯) [দেবকী বসু]
মুভি: কবি

গণদেবতা (১৯৭৯) [তরুণ মজুমদার]
মুভি: গণদেবতা

চাঁপাডাঙার বউ (১৯৫৪) [নির্মল দে]
মুভি: চাঁপাডাঙার বউ

দুই পুরুষ (১৯৪৫) [সুবোধ মিত্র] এবং দুই পুরুষ (১৯৭২) সুশীল মুখোপাধ্যায়]
মুভি: দুই পুরুষ

না (১৯৫৪) [শ্রীতারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায]
মুভি: না

ফরিয়াদ [বিজয় বসু, ১৯৭১]
মুভি: ফরিয়াদ

বিচারক (১৯৫৯) [প্রভাত মুখোপাধ্যায়]
মুভি: বিচারক

বিপাশা (১৯৬২) [অগ্রদূত]
মুভি: বিপাশা

মঞ্জরী অপেরা (১৯৭০) [অগ্রদূত]
মুভি: মঞ্জরী অপেরা

রাইকমল (১৯৫৫) [সুবোধ মিত্র]
মুভি: রাইকমল

শুকসারী (১৯৬৯) [হারানো সুর গল্প অবলম্বনে সুশীল মজুমদার পরিচালিত]
মুভি: শুকসারী

সপ্তপদী (১৯৬১) [অজয় কর]
মুভি: সপ্তপদী

হার মানা হার (১৯৭২) [মহাশ্বেতা উপন্যাস অবলম্বনে, সলিল সেন পরিচালিত]
মুভি: হার মানা হার

হাঁসুলীবাঁকের উপকথা (১৯৬২) [তপন সিংহ]
মুভি: হাঁসুলীবাঁকের উপকথা

------------------------------------------
সূত্র: বাংলাপিডিয়া, উইকিপিডিয়া, সাহিত্য পত্রিকা,
ডাউনলোড সূত্র: https://bn.bdebooks.com/
ভিডিও সূত্র: https://www.youtube.com/

মন্তব্য ১১ টি রেটিং +৩/-০

মন্তব্য (১১) মন্তব্য লিখুন

১| ২৫ শে জুলাই, ২০১৯ রাত ১২:২৭

বলেছেন: চমৎকার,,,,,,,,,,,চমৎকার,,,,,,,,,চমৎকার,,
তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়ের লেখায় বিশেষ ভাবে পাওয়া যায় সাঁওতাল, বাগদি, বোষ্টম, বাউরি, ডোম, গ্রাম্য কবিয়াল সম্প্রদায়ের কথা।
তারাশঙ্কর তাঁর সব লেখায় মানুষের মহত্ত্ব ফুটিয়ে তুলেছেন, যা তাঁর লেখার সবচেয়ে বড় গুন।
সামাজিক পরিবর্তনের বিভিন্ন চিত্র তাঁর অনেক গল্প ও উপন্যাসের বিষয়। সেখানে আরও আছে গ্রাম জীবনের ভাঙনের কথা, নগর জীবনের বিকাশের কথা।



অনেক অনেক শুভেচ্ছা।

২৫ শে জুলাই, ২০১৯ রাত ৩:০৯

এমজেডএফ বলেছেন: পোস্টের প্রথম মন্তব্যে আপনাকে পেয়ে আনন্দিত হয়েছি।
আজ দিনের শেষভাগে হঠাৎ জানতে পারলাম তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্মবার্ষিকী! এ লেখকের কয়েকটি বই পড়েছিলাম অনেক আগে। উনার সাহিত্যকর্মের ওপর একটা পোস্ট দেবো কিনা দ্বিধা-দ্বন্ধে ছিলাম, কারণ তখন আজকের দিন প্রায় শেষ! নেটে সার্চ দিয়ে দেখলাম, ওরে বাবারে এই লেখকের ৪০টারও বেশি উপন্যাস বাংলায় চলচ্চিত্রায়ন করা হয়েছে। এত বড় একজন লেখকের জন্মদিনে তাঁর সাহিত্যকর্ম নিয়ে না লিখলে অবিচার হবে। তাড়াহুরো করে দিন শেষ হওয়ার আগে অর্থাৎ রাত ১১:৫৪ মিনিটে লেখাটি পোস্ট করেছি।

বিশেষ করে আজকের তরুণ প্রজন্মকে বাংলা সাহিত্যের অন্যতম কথাসাহিত্যিক তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাহিত্যকর্মের সাথে পরিচিত করার দায়িত্ব আমাদের। আমরা শুধু তরুণ প্রজন্মের 'অজ্ঞানতা' নিয়ে বিভিন্নভাবে পরিহাস করি, কিন্তু ওদের জ্ঞান অর্জনের সুবিধার্থে আমরা বড়রা কতটুকু দায়িত্ব পালন করছি তা ভেবে দেখি না।

আপনার প্রতিও শুভেচ্ছা রইলো। আপনার "দ্যা হিপোক্রেসি - নরকের কীটের সাথে সহবাস" ভুলি নাই :), পরের পর্বের অপেক্ষায় রইলাম।

২| ২৫ শে জুলাই, ২০১৯ রাত ১২:৩৯

আনমোনা বলেছেন: খুব ভালো লাগলো। কিছু ছবি দেখেছিলাম দুরদর্শনে, তখন জানতামনা তারাশংকর বন্দ্যোপাধ্যায়ের লেখা। অনেক পরে ইন্টারনেট থেকে পড়েছি। শেয়ার করার জন্য(এবং বই পরিচয় করিয়ে দেওয়ার জন্য) ধন্যবাদ।

২৫ শে জুলাই, ২০১৯ রাত ৩:১৮

এমজেডএফ বলেছেন: তারাশংকর বন্দ্যোপাধ্যায় তথা বাংলা সাহিত্যে আপনার উৎসাহ দেখে মুগ্ধ হয়েছি। মন্তব্যের জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ।
এই লেখকের কিছু উপন্যাস অনেক আগে পড়েছিলাম, এখন খুব ভালো করে মনেও নেই। তবে উনার এতগুলো উপন্যাস নিয়ে যে ভারতীয় বাংলা ছবি নির্মিত হয়েছে তা আজকে নেটে ঘাটাঘাটি করে জানতে পারলাম। অনেকগুলো ছবির ভিডিও লিঙ্ক আমি লেখায় যোগ করে দিয়েছি, সময় হলে দেখে মন্তব্য করবেন। ভালো থাকুন, শুভ রাত্রি।

৩| ২৫ শে জুলাই, ২০১৯ রাত ২:১২

কাওসার চৌধুরী বলেছেন:



তারাশঙ্কর আমার অন্যতম প্রিয় কথা সাহিত্যিক। কয়েকটি উপন্যাস, কিছু গল্প পড়া হয়েছে। এখনো তাঁকে পুরো আবিষ্কার করতে পারিনি। তবে বাকি জীবনে তারাশঙ্করের লেখাগুলো চেষ্টা করবো পড়ে শেষ করতে।

তাঁর লেখায় বিশেষ ভাবে পাওয়া যায় বীরভূম-বর্ধমান অঞ্চলের সাঁওতাল, বাগদি, বোষ্টম, বাউরি, ডোম, গ্রাম্য কবিয়াল সম্প্রদায়ের কথা। ছোট বা বড় যে ধরনের মানুষই হোক না কেন, তারাশঙ্কর তাঁর সব লেখায় মানুষের মহত্ত্ব ফুটিয়ে তুলেছেন, যা তাঁর লেখার সবচেয়ে বড় গুণ। সামাজিক পরিবর্তনের বিভিন্ন চিত্র তাঁর অনেক গল্প ও উপন্যাসের বিষয়। সেখানে আরও আছে গ্রাম জীবনের ভাঙনের কথা, নগর জীবনের বিকাশের কথা।

১৯৬২ খ্রিস্টাব্দে তারাশঙ্কর ভারত সরকারের পদ্মশ্রী ও ১৯৬৮ খ্রিস্টাব্দে পদ্মভূষণ উপাধিতে ভূষিত হন। এটি একজন বাঙালি কথাসাহিত্যিক হিসাবে তাঁকে সারা ভারতবর্ষে সম্মানিত ও পরিচিত করে তুলেছে।

২৫ শে জুলাই, ২০১৯ ভোর ৬:০৯

এমজেডএফ বলেছেন:


কাওসার ভাই, অনেকদিন পর! আশা করি ভালো আছেন।
আপনার লেখা এখন অনেক দিন পরপর আসে। আমিও ব্লগে নিয়মিত আসি না। আপনার লেখা পাঠ করি তবে অনেক দেরিতে। তাই আর মন্তব্য করা হয় না। সরকার এবং দুর্নীতিবাজ প্রশাসনের বিরুদ্ধে ফরিয়াদ করে লেখেন, অথচ কোনো প্রতিকার নেই। এসব পড়ে দুঃখ হয়, মন্তব্য করার ভাষা থাকে না। তবে আপনার "আজ ১৯শে মে আসামের বরাক উপত্যকায় মাতৃভাষা দিবস" লেখাটি খুবই সময়োপযোগী ছিল। এ দেশের অনেক শিক্ষিত মানুষও এ ঘটনাটি জানে না।

তারাশঙ্করের উল্লেখযোগ্য উপন্যাস এবং উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত চলচ্চিত্রগুলোকে এক জায়গায় সংগ্রহ করে দিলাম। যাতে আমরা যেগুলো মিস করেছি সেগুলো পড়তে পারে। তাছাড়া তরুণ প্রজন্মের কেউ যদি তারাশঙ্করের সাহিত্যকর্মকে জানতে চাই তাদের জন্যও সহজ হবে।
ভালো থাকুন, শুভরাত্রি।

৪| ২৫ শে জুলাই, ২০১৯ সকাল ৭:২৬

বলেছেন: আপনার এমন মনমানসিকতার জন্য টুপিখোলা অভিবাদন হে গুণী।।।

এভাবেই আমাদের ক্ষণজন্মা সাহিত্যিকদেরকে তুলে ধরে দায় মেটাত থাকুন।।।


(হিপোক্রেসির পর্ব সম্পাদনা চলছে.......আপনি সাথে আছেন ব'লেই ভরসা পাই)

২৫ শে জুলাই, ২০১৯ সকাল ১০:৪৮

এমজেডএফ বলেছেন: শুভ সকাল, অভিবাদনের জন্য ধন্যবাদ। 'গুণী' হতে পারি নাই! তবে যাতে মন্দ না হই সেজন্য চেষ্টা করি।

৫| ২৫ শে জুলাই, ২০১৯ সকাল ৯:১৫

রাজীব নুর বলেছেন: একজন গ্রেট সাহিত্যিক।

২৫ শে জুলাই, ২০১৯ সকাল ১০:৪৮

এমজেডএফ বলেছেন: ঠিক বলেছেন, ধন্যবাদ।

৬| ০২ রা আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১২:০১

ইসিয়াক বলেছেন: ধন্যবাদ

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.