নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

মানুষের চেয়ে বড় কিছু নেই।

মুজিব রহমান

মুক্তচিন্তা ও বিজ্ঞানমনষ্ক মানুষ; আস্থা বিবর্তনে; এমএসসি পদার্থ বিদ্যা; ভাললাগে সাহিত্য; অপছন্দ ঘুষ-দুর্নীতি; ভালোলাগে না ধর্ম ও রাজনৈতিক আলাপন।

মুজিব রহমান › বিস্তারিত পোস্টঃ

আমাদের উদ্ভাবন দক্ষতা নেপালের চেয়েও খারাপ!

২৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:০২


আন্তর্জাতিক মেধাস্বত্ব সংস্থার ২০১৯ সালের উদ্ভাবন সূচকে দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান খুবই খারাপ এমনকি নেপালেরও নিচে। অস্বাভাবিক নয় কারণ আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে গবেষণা একেবারেই হয় না। অনেকসময় হাস্যকর ও অর্থনৈতিকভাবে গুরুত্বহীন আবিষ্কার নিয়েও আমাদের মিডিয়া হইচই করে। যেমন পাথরকুচি পাতা থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন নিয়ে অনেক হইচই হল। এতে যদি প্রতি ইউনিট বিদ্যুৎ উৎপাদন ব্যয় ৫০০০/- টাকা করে হয় তবে সে আবিষ্কার অর্থহীন। আমরা শুনেছিলাম পেট্রোল থেকে পলিথিন উৎপাদনের এক যুগান্তকারী আবিষ্কারের কথা। তাতে প্রতিকেজি পলিথিনের দাম পড়বে ১০,০০০/- টাকা। এমনসব আবিষ্কারের পেছনে পৃথিবীর কোন বিজ্ঞানীই ছুটবে না। আবার বলতে পারি এসব নিয়ে বহু আগেই বিজ্ঞানীরা ভেবে অর্থনৈতিক বিষয় বিবেচনা করে বাতিল করে দিয়েছে।

আমাদের সেরা বিজ্ঞানীরা কোয়ান্টাম তত্ত্বকে কাজে লাগাতে যায় কোয়ান্টাম মেথডে! আমাদের সেরা পদার্থবিদ বলতে চান, আংটিতেই ভাগ্য ফিরে এবং নিজের হাত অলঙ্করণ করেন পাথর বসানো আংটি দিয়ে। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যত ধর্ষণের সংবাদ আসে তত কৃতিত্বের সংবাদ আসে না। এখানে শিক্ষক ছাত্রীর শ্লীলতাহানী করছে- বিচার পাচ্ছে না শিক্ষার্থী। ছাত্র নেতারা দলবেঁধে ধর্ষণ করছে স্বামীর কাছ থেকে স্ত্রীকে ছিনিয়ে নিয়ে। বুয়েটের মতো স্থানে একজন ছাত্রকে হত্যা করতে ঝাপিয়ে পড়ে ২১জন মেধাবী(?) নেতা। কে কিভাবে দালালি করবেন, কিভাবে আখের গুছিয়ে নিবেন সে চেষ্টার কথাই দেখে/পড়ে আসছি। কিভাবে হবে। বরং আমাদের জন্য নকল করাই মঙ্গল জনক। শুধু নকল যেনো এমন না হয়-

ক্লাসের মেধাবী ছাত্র মনন লিখল ‘যুদ্ধে হারিয়া হুমায়ুন ভাঙ্গিয়া পড়িলেন না। তিনি পিতা ও গুরু বাবরের কথা স্মরণ করিলেন। বাবর কি যুদ্ধে হারিয়া কখনও ভাঙ্গিয়া পড়িয়াছেন? পড়েন নাই। বরং উল্লসিত হইয়া সহস্র সঙ্গী জোগাড় করিয়া আবার যুদ্ধ করিয়াছেন। যুদ্ধ-জয়ের জন্য ভালো সঙ্গী প্রয়োজন।’

পেছনে বসা নকলবাজ নকিব দেখে দেখে লিখল ‘যুদ্ধে হারিয়া হুমায়ুন জাঙ্গিয়া পড়িলেন না। তিনি পিতা ও গরু বাবরের কথা স্মরণ করিলেন। বাবর কি যুদ্ধে হারিয়া কখনও জাঙ্গিয়া পড়িয়াছেন? পড়েন নাই। বরং উলঙ্গ হইয়া সহস্র লুঙ্গি জোগাড় করিয়া আবার যুদ্ধ করিয়াছেন। যুদ্ধ-জয়ের জন্য ভালো লুঙ্গি প্রয়োজন।’

বাস্তবিক আমাদের লুঙ্গিই প্রয়োজন। ইজ্জত ওপেন হয়ে গেছে। লজ্জা ঢাকতে লুঙ্গিই ভরসা।

বি.দ্র.: ডিমের ছবিটি দিয়েছি কারণ আমাদের গবেষকগণ বহুবার, বহুভাবে প্লাস্টিকের ডিমের তথ্য জানিয়ে বহুভাবে সতর্ক করার পরে তা নিয়ে পত্রিকা/মিডিয়ায় ব্যাপক লেখালেখির পরে জানা গেল- প্লাস্টিকের ডিম বলে কিছু নেই।

পুনশ্চ-১: বিশ্বের ১২৯ দেশের উদ্ভাবনী সক্ষমতা নিয়ে পরিচালিত ২০১৯ সালের গ্লোবাল ইনোভেশন ইনডেক্স-এ বাংলাদেশের অবস্থান ১১৬তম। ২০১৯ সালের তালিকায় ভারতের অবস্থান হয়েছে ৫২তম। জ্ঞান ও প্রযুক্তি দক্ষতায় ভারতের পয়েন্ট যেখানে ৩৩.৫, সেখানে বাংলাদেশের পয়েন্ট ১৬.১।

পুনশ্চ-২: আমাদের চেয়েও খারাপ দেশ আছে। বাংলাদেশের পরে থাকা দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে বুরকিনা ফাসো, মালাউয়ি, মোজাম্বিক, নিকারাগুয়া, জিম্বাবুয়ে, বেনিন, জাম্বিয়া, নাইজার, ইয়েমেন ইত্যাদি দেশ।

মন্তব্য ৩১ টি রেটিং +৪/-০

মন্তব্য (৩১) মন্তব্য লিখুন

১| ২৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৪২

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:

সুন্দর পোস্ট।
এই দেশে বিজ্ঞান চর্চা হয় না।
ওয়াজ চর্চা হয়।
সামনে আরো খারাপ লিস্ট পাবেন। পরের দেশগুলো বাংলাদেশকে আরো পেছনে ফেলে দিবে।

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৩৫

মুজিব রহমান বলেছেন: আমরা কথা বললে অবশ্যই সমাজ বদলাবে। সামনে অবশ্যই ভাল কিছু অপেক্ষা করছে।

২| ২৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৫৮

নূর আলম হিরণ বলেছেন: বুয়েটের শিক্ষক তাবিজ ব্যবহার করে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মদিনা সনদ চায়! কিভাবে এই দেশ এসব ইনডেক্সে উন্নতি করবে?

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৩৮

মুজিব রহমান বলেছেন: দলীয় নিয়োগ বলেই এটা সম্ভব হয়েছে। যোগ্যতা দেখে নিয়োগ দিতে পারলে এমনটা হতো না। এজন্যই কিছু মানুষ দালালী করে সুবিধা নেয়।

৩| ২৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:১৫

আমি সাজিদ বলেছেন: কয়েকদিন আগে ম্যাথ অলিম্পিয়াডে কতোগুলো পদক পেল দেখেছেন? আধুনিক পৃথিবীর সাথে তাল মিলিয়ে কর্মক্ষেত্র সৃষ্টি ও গবেষণা দক্ষতা বাড়ানোর সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনার অভাব আছে আমাদের। আর দলাদলি, এটাই এই অবস্থার মূল কারণ মনে হচ্ছে।

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৪১

মুজিব রহমান বলেছেন: ধন্যবাদ। গণিত অলিম্পিয়াডে অংশগ্রহণ অবশ্যই ইতিবাচক। সেখানে আস্তে আস্তে ভাল করছে। আশা করছি আরো ভাল করবে।

৪| ২৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:২০

আমি সাজিদ বলেছেন: শিক্ষকরা পড়ান না, ক্লাসে বলেন পড়ে আসলে না কেন? কি মেডিকেল কি ইঞ্জিনিয়ারিং ইউনিভার্সিটি কি পাবলিক ইউনিভার্সিটি, সব জায়গায় এমন। ছাত্রের মনের মধ্যে ঢুকতে পারেন এমন শিক্ষক খুব কম আছে এখন।

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৪৬

মুজিব রহমান বলেছেন: ধন্যবাদ। এমন মানহীন শিক্ষাব্যবস্থা একদিনে গড়ে উঠেনি। এ অচলায়তন ভাঙ্গতে হবে। সবকিছু নিয়েই কথা বলতে হবে।

৫| ২৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:২১

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আমাদের দেশে মেধার অভাব নাই। পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে বেশিরভাগ বিদেশে চলে যায়। বাকীটা দেশে মেধাহীনদের সাথে প্রতিযোগিতা করে হারিয়ে যায়।

সিস্টেম বদলানো হলো জরুরী। সেটা যতোদিন না করা হবে, এসব বলে কোন লাভ নাই। ফুটবলের মতো ক্রমাবনতিই হলো পরিণতি।

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৪৭

মুজিব রহমান বলেছেন: মেধার বিকাশ না ঘটলে তা থাকলেই কি আর না থাকলেই কি?

৬| ২৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:৪২

স্থিতধী বলেছেন: আমি সাজিদ বলেছেন: ছাত্রের মনের মধ্যে ঢুকতে পারেন এমন শিক্ষক খুব কম আছে এখন।

খাটি সত্য একটা কথা। এ দেশের শিক্ষকদের এখন শিক্ষকতা করা ছাড়া বাকি সব কিছুতেই আগ্রহ আছে। দেশের ভরাডুবিতে এটার অবদানও কম না।

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৪৯

মুজিব রহমান বলেছেন: আমাদের মেধাবীরা এমনিতেই অবিকশিত। তারমধ্যে সাধারণত অবিকশিত মেধাবীরাও স্কুল কলেজে শিক্ষকতা করতে চান না।

৭| ২৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:৫৩

নেওয়াজ আলি বলেছেন: ছাত্র শিক্ষক সবাই রাজনীতি নিয়ে ব্যস্ত । একে অন্যকে ল্যাং মারা নিয়ে ব্যস্ত । অচিরে নেপালীরা বিদেশে শ্রমিকের বাজার দখল করে বাংলাদেশকে পিছনে ফেলবে

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৫১

মুজিব রহমান বলেছেন: যারা রাজনীতি করছে তারাই মওকা পেয়ে যাচ্ছে। ফলে মেধাবী যাও আছে তারা ফাকে থেকে যাচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ হচ্ছে দলীয় ভিত্তিতে, মেধার ভিত্তিতে নয়। তারা গবেষণা করে দলবাজি করতে।

৮| ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১:০৪

কল্পদ্রুম বলেছেন: লুঙ্গির জোকটা যদিও পুরাতন। তবুও পড়ে হাসি পেল।

গ্রামের মানুষের উদ্ভাবনী শক্তি ভালো। তারা আধুনিক অনেক কিছুর বিকল্প তৈরি করে নেয়। আমাদের নকল ইলেক্ট্রিক যন্ত্রপাতির কারিগররা রিভার্স ইঞ্জিনিয়ারিং এ এক্সপার্ট। এদের কাজগুলোকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়া গেলে দেশের অনেক উপকার হতো।

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৫৬

মুজিব রহমান বলেছেন: নাউরুর নামটি একদা শুনতাম বিশ্বের সেরা একটি ধনী দেশ হিসেবে। ফসফেট বেচে তারা ধনী হয়েছিল। শিক্ষায় বিনিয়োগ করেনি। এখন ফসফেট শেষ হয়ে যাওয়ার পর তারা বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে যে সম্পদ গড়েছিলেন তাও হাতছাড়া হয়ে যায়। এখন আবারো দরিদ্র রাষ্ট্র। মানে হল- নিজেদের মানসম্মত শিক্ষার্জন করে আগে নিজেদেরই উদ্ভাবন করতে হবে।

৯| ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ২:৪৯

কালো যাদুকর বলেছেন: আমার মনে হয় শুধু বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষনা না, গোটা শিক্ষা ব্যবস্থাতে সমস্যা আছে। আমাদের ছোট ছোট শিক্ষার্থীদে বেশী নাম্বার পাওয়ার জন্য পড়ানো হয়। জানার জন্য না। তাহলে ইনটেলিজেন্সী কিভাবে বাড়বে। আমি দেখেছি, উচ্চ মাধ্যমিকে পদার্থ তে, সবাই নির্দিস্ট চ্যাপটার পরতো। তাহলে শিক্ষা কিভাবে সম্পর্ন হবে ? হবে না।

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৫৭

মুজিব রহমান বলেছেন: প্রাইমারিতেই বাচ্চাদের নকল শেখানোর মাধ্যমেই পাশ করানো হয় শতভাগ। তারা বুঝে যায় লুঙ্গির প্রয়োজন আছে।

১০| ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ২:৫৮

রাজীব নুর বলেছেন: আমাদের দেশে সব কিছুতেই বাজে অবস্থা। উনত চিকিৎসার জন্যও বিদেশ যেতে হয়। উন্নত লেখা পড়ার জন্য বিদেশ যেতে হয়।

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:০০

মুজিব রহমান বলেছেন: মেডিক্যালের মানওতো ভাল নয়। যা শুনি তাতে কষ্টই পেতে হয়। টাকার জোরে ৪০ পেয়ে ভর্তি হয়ে যায় অথচ ৭০ পেয়েও ভর্তি হতে পারে না। আজব অবস্থা। ৪০ পাওয়ারা কি ডাক্তারি করবেন?

১১| ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ৩:৪৭

অনল চৌধুরী বলেছেন: চুরি দুর্নীতি লুটপাট টাকা পাচার ধর্ষণ মাদক জুয়ার ব্যাবসা পরশ্রীকাতরতা পরনিন্দা পরচর্চা এসবে বাংলাদেশের লোকদের উদ্ভাবনী ক্ষমতা ১ নম্বরে।

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:০০

মুজিব রহমান বলেছেন: নিজ দেশেই। এরাই সিংগাপুরে গেলেও চুপসে যায় আইনের শাসনে।

১২| ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ভোর ৬:০০

স্বামী বিশুদ্ধানন্দ বলেছেন: আমার প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা থেকে ব্যক্তিগতভাবে আমার কাছে নেপালিদের অনেক বেশি পরিশ্রমী, নিষ্ঠাবান, অনুগত ও সৎ বলে মনে হয়েছে। সেই হিসাবে শিক্ষা ও অন্যান্য ক্ষেত্রে তারা যে এগিয়ে থাকবে সেটাই স্বাভাবিক।

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:০২

মুজিব রহমান বলেছেন: পাকিস্তানও যে এগিয়ে!

১৩| ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১০:৫৩

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: ভুয়া মফিজ আর কল্পদ্রুমের মন্তব্যের সাথে একমত।

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:০৪

মুজিব রহমান বলেছেন: ধন্যবাদ।

১৪| ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৩৩

খাঁজা বাবা বলেছেন: সবাই তেল নিয়ে ব্যস্ত

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:০৫

মুজিব রহমান বলেছেন: তেলবাজি আর দলবাজিদেই সুবিধা যে!

১৫| ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:৪০

জাহিদ হাসান বলেছেন: কিশোর বয়সে আমি এমন এক অস্ত্র উদ্ভাবন করতে গিয়েছিলাম যা পরমানু অস্ত্রের মত শক্তিশালী হয়।

আমি চুম্বকের বিপরীত ধর্মী ক্ষমতা অর্থাৎ বিকর্ষন ক্ষমতাকে কাজে লাগিয়ে এমন একটা সাংঘাতিক পাওয়ারফুল অস্ত্র বানানোর পরিকল্পনা করছিলাম। পরে ভাবলাম এই পৃথিবীতে শান্তির প্রয়োজন। আমার মেধাকে শান্তির বিরুদ্ধে কাজে লাগানোর কোন মানেই হয় না।

এখন আমি শুধু পড়ি ও লিখি, ভ্রমণ করি । ইউটিউবের জন্য ভিডিও বানানোর কাজে হাত দিয়েছি। অর্থাৎ সৃষ্টিশীল কিন্তু শান্তিবাদী কাজে নিজেকে নিয়োজিত রেখেছি।

ভবিষ্যতে আমার হাতে প্রচুর টাকা এলে কিশোর বয়সের ভুত আরেকবার চাপবে কোন সন্দেহ নেই। তখন হয়তো অস্ত্র-শস্ত্র নয় বরং কিভাবে উন্নত মানবজীবন পাওয়া যায় সেজন্য কাজ করবো। বিজ্ঞানাগার ও ফ্যাক্টরি স্থাপন করে।

উন্নত দেশে উড়ুক্কু গাড়ি আমাকে খুব আকর্ষন করেছে। এমন ফ্লাইং মেশিন আমাদেরও আবিষ্কার করা দরকার। যা ওইসব উড়ুক্কু গাড়ির চাইতে ভালো হবে। চুম্বকের বিকর্ষন ক্ষমতাকেই কাজে লাগানো যায় কিনা সেটা দেখতে হবে। মনে হয় এই ক্ষমতা কোন বস্তুকে ফ্লোটিং করার কাজেও ব্যবহার করা যাবে।

১৬| ৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৫৯

অনল চৌধুরী বলেছেন: জাহিদ হাসান ,আপনি এই ছবিটা দেখেন, উড়ুক্কু গাড়ি বানাতে কাজে লাগবে।Back to the Future

১৭| ০১ লা অক্টোবর, ২০২০ রাত ১২:৩০

তানভীরএফওয়ান বলেছেন: উড়ুক্কু গাড়ি মিসাইল সাবমেরিন পরে,গার্মেন্টসের সেলাই মেশিন মেড ইন চায়না কাগজের স্টাপলার মেড ইন ইন্ডিয়া

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.