নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আলহামদুলিল্লাহ। যা চাইনি তার চেয়ে বেশি দিয়েছেন প্রিয়তম রব। যা পাইনি তার জন্য আফসোস নেই। সিজদাবনত শুকরিয়া। প্রত্যাশার একটি ঘর এখনও ফাঁকা কি না জানা নেই, তাঁর কাছে নি:শর্ত ক্ষমা আশা করেছিলাম। তিনি দয়া করে যদি দিতেন, শুন্য সেই ঘরটিও পূর্নতা পেত!

নতুন নকিব

যবে উৎপীড়িতের ক্রন্দল-রোল আকাশে বাতাসে ধ্বনিবে না, অত্যাচারীর খড়্গ কৃপাণ ভীম রণ-ভূমে রণিবে না- বিদ্রোহী রন-ক্লান্ত। আমি সেই দিন হব শান্ত।

নতুন নকিব › বিস্তারিত পোস্টঃ

পবিত্র বাইতুল্লাহ এবং মসজিদে নববী আধুনিকিকরণের পেছনের অজানা গল্প-১

০৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ৯:৫৬

বাইতুল্লাহ শরিফ, ছবিঃ অন্তর্জাল।

বর্তমান মসজিদে নববী, ছবিঃ অন্তর্জাল।

পবিত্র বাইতুল্লাহ এবং মসজিদে নববী আধুনিকিকরণের পেছনের অজানা গল্প-১

হারামাইন শরিফাইন অর্থাৎ, মক্কাতুল মুকাররমা এবং মদীনাতুল মুনাওওয়ারায় অবস্থিত পবিত্র দুই মসজিদ বাইতুল্লাহ এবং মসজিদে নববীর আধুনিকিকরণ ও সম্প্রসারণের কাজ বিগত প্রায় সাড়ে চৌদ্দশ বছর যাবত ধারাবাহিকভাবে হয়ে আসছে। অবশ্য পবিত্র বাইতুল্লাহ বহু পুরাতন এবং পৃথিবীর প্রথম ইবাদতের ঘর হওয়ায় এর সংস্কার কাজ প্রিয় নবীজী সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর আগমনের বহু পূর্ব হতেই চলে এসেছে। বর্তমানে এই দুই মহান স্থাপনার রক্ষনাবেক্ষন, সংস্কার এবং আধুনিকিকরণে সউদী আরবের সরকারের নিয়মতান্ত্রিক রাষ্ট্রীয় কমিটি রয়েছে। মূলতঃ সউদি বাদশাহদের ইচ্ছায় মক্কাতুল মুকাররমা এবং মদীনাতুল মুনাওওয়ারায় অবস্থিত পবিত্র দুই মসজিদের প্রভূত সংস্কার কাজ করা হয়। আমরা জানি, এই দুই পবিত্র মসজিদে ব্যবহৃত পাথরের টাইলসগুলো বিশেষ তাপ শোষণ ক্ষমতাসম্পন্ন অতি দুর্লভ মার্বেল পাথর। এই বিষয়টি নিয়েই, মসজিদে নববীকে ঘিরে রয়েছে চমকপ্রদ এক অলৌকিক ঘটনা। চলুন, শুনে আসি সেই অলৌকিক ঘটনার বিবরণঃ

হারামাইন শরিফাইনের আধুনিকিকরণ ও সম্প্রসারণের সাম্প্রতিক এ কাজটি করেছেন মিসরের সৌভাগ্যবান এক শতায়ু স্থপতি। যার জন্ম ১৯০৮ ইং সালে এবং যিনি ইন্তিকাল করেন ২০০৮ ইং সালে। তার জীবন যেমন বিস্ময়কর, ঠিক তেমনি দুই মসজিদের, বিশেষ করে মদীনার মসজিদে নববীর কাজও অলৌকিকতাপূর্ণ।

ইসলামের পবিত্রতম স্থান সউদি আরবের মক্কা শহরে অবস্থিত মসজিদুল হারাম। ইবরাহিম আলাইহিস সালাম এবং ইসমাইল আলাইহিস সালাম কর্তৃক নির্মিত বাইতুল্লাহ অভিমুখে মুসলিমরা ছুটে যান হজ্জ ও উমরার জন্য। আল্লাহ তাআ'লার নৈকট্যলাভের আশায়। হজ্জের সময় এখানে উপস্থিত হওয়া মানুষের জমায়েত পৃথিবীর সর্ববৃহৎ মানব সমাবেশের অন্যতম। অপরদিকে মসজিদে নববী হজরত মুহাম্মদ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত মসজিদ যা বর্তমান সউদি আরবের মদিনায় অবস্থিত। গুরুত্বের দিক থেকে মসজিদুল হারামের পর মসজিদে নববীর স্থান। হজরত মুহাম্মদ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হিজরত করে মদিনায় আসার পর এই মসজিদ নির্মিত হয়। নির্মাণের পর অনেকবার পুন-নির্মাণ কিংবা সংস্কার করা হয়েছে মুসলমানদের এই পবিত্র দু'টি মসজিদ। আর মক্কার মসজিদুল হারাম কিংবা মদিনার মসজিদে নববীর সংস্কারে একজন মিশরীয় প্রকৌশলী এবং স্থপতি অনেক ভূমিকা রেখেছেন যিনি নিজের প্রচার, প্রসার ও খ্যাতি থেকে দূরে থাকতে পছন্দ করতেন। এ কারণেই হয়তো অদ্যাবদি তিনি রয়েও গেছেন অনেকটা লোকচক্ষুর আড়ালেই।

সেই মহান ব্যক্তির নাম ড. মুহাম্মদ কামাল ইসমাঈল। তিনি মিশরের ইতিহাসে সর্বকনিষ্ঠ হিসাবে উচ্চ বিদ্যালয়ের সার্টিফিকেটপ্রাপ্ত ব্যক্তি। এবং রয়েল স্কুল অফ ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ভর্তি হওয়া এবং স্নাতক অর্জন করা সবচেয়ে কম বয়সী ব্যক্তিও ছিলেন তিনি। সবচেয়ে কম বয়সে ইসলামী আর্কিটেকচারে তিনটি ডক্টরেট ডিগ্রিপ্রাপ্তির জন্য ইউরোপে গিয়েছিলেন। এছাড়াও তিনি রাজার কাছ থেকে নীলে স্কার্ফ এবং আয়রন র‌্যাঙ্কপ্রাপ্ত সর্বকনিষ্ঠ ব্যক্তি ছিলেন। এছাড়াও তার সবচেয়ে বড় পরিচয় তিনিই প্রথম প্রকৌশলী যিনি মক্কা ও মদীনা মসজিদ সম্প্রসারণ প্রকল্পের পরিকল্পনা ও বাস্তবায়ন করেছিলেন।

বাদশাহ ফাহাদ এবং বিন লাদেন কোম্পানির প্রচেষ্টা সত্ত্বেও তিনি তার ইঞ্জিনিয়ারিং ডিজাইন এবং স্থাপত্যকর্ম তদারকির জন্য কোনো প্রকার অর্থ গ্রহণ করতে রাজি হননি। তাদের লাখ লাখ টাকার চেক ফিরিয়ে দিয়ে বাকের বিন লাদেনকে তিনি বলেন, আমি কেন পবিত্র দুটি মসজিদে আমার কাজের জন্য অর্থ গ্রহণ করব? তাহলে আমি কীভাবে বিচার দিবসে আল্লাহকে মুখ দেখাব? তিনি ৪৪ বছর বয়সে বিয়ে করেছিলেন। তার স্ত্রী একটি পুত্রের জন্ম দিয়ে মারা যান। এরপর তিনি আর বিয়ে করেননি এবং তার মৃৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি আল্লাহর ইবাদতে পূর্ণ সময় নিবেদিত করেছিলেন। তিনি গণমাধ্যমের যশ, খ্যাতি এবং অর্থের মোহ থেকে দূরে থেকে তিনি তার সময়কে দুই পবিত্র মসজিদের সেবায় ব্যয় করেছিলেন।

মার্বেল পাথরের সেই গল্পে ফিরে যাই চলুন। এই প্রতিভাবান ব্যক্তির ঐকান্তিক ইচ্ছে ছিল- তিনি তাওয়াফকারিদের জন্য মসজিদুল হারাম অর্থাৎ, কাবা শরিফের মেঝেটি এমন একটি মূল্যবান পাথর দিয়ে ঢাকবেন যেটি সহজে গরম হবে না। যার কারণে তাওয়াফকারী এবং ইবাদতে রত ব্যক্তিবর্গের সুবিধা হয়। এ ব্যাপারে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে খোঁজ খবর নিয়ে অবশেষে তিনি জানতে পারলেন যে, এই বিশেষ তাপ শোষণক্ষমতাসম্পন্ন মার্বেল কেবল গ্রীসের একটি ছোট পর্বতেই পাওয়া যেত। এ খবর জানার পরে তিনি গ্রীস ভ্রমণ করেন এবং মসজিদুল হারামের জন্য প্রায় উক্ত পাহাড়ের অর্ধেকাংশ পরিমাণে মার্বেল কেনার চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। আশ্চর্য্য বিষয় হচ্ছে, তিনি উক্ত চুক্তিতে স্বাক্ষর করার পরে মক্কার দিকে ফিরে আসতেই সাদা মার্বেল চলে এসেছিল এবং অতি অল্প সময়ে মক্কার পবিত্র মসজিদের মেঝেতে সফলতার সাথে উক্ত মার্বেল স্থাপন সমাপ্ত হয়েছিল।

পবিত্র কাবা শরিফে বিশেষ তাপ শোষণক্ষমতাসম্পন্ন মার্বেল স্থাপনের সুদীর্ঘ ১৫ বছর পরের ঘটনা। সউদি সরকারের পক্ষ থেকে তাকে মদীনার পবিত্র মসজিদে নববীতেও অনুরূপ মার্বেল স্থাপন করতে বলা হয়। এ ব্যাপারে ইঞ্জিনিয়ার মুহাম্মদ কামাল বলেন, যখন বাদশাহ তাকে নবীজির মসজিদটিকেও একই মার্বেল দিয়ে ঢাকতে বললেন, তখন আমি খুব দুশ্চিন্তায় পড়ে গিয়েছিলাম। কারণ, এই ধরণের মার্বেল পাওয়ার জন্য পৃথিবীতে কেবলমাত্র একটিই জায়গা ছিল। এটি ছিল গ্রীস এবং আমি জানি, এরই মধ্যে তার অর্ধেকটা আমিই কিনে নিয়েছি। এবং তা-ও বিগত প্রায় ১৫ বছর পূর্বে। সুতরাং, দীর্ঘ এই ১৫ বছর পরে সেখানে গিয়ে বাকি সেই মার্বেল পাওয়া যাবে- এমনটা কিভাবে আশা করতে পারি! যদি উক্ত মার্বেল না পাওয়া যায়, প্রিয় নবীজীর স্মৃতি বিজড়িত মসজিদে নববীর কাজটি কিভাবে সম্পন্ন করবো ভেবে আমি অস্থিরতায় ডুবে গেলাম। কেবলই আল্লাহ তাআ'লার উপর ভরসা করে তাঁর সাহায্য প্রার্থনা করে অনিশ্চিত গন্তব্যের দিকে এগুতে থাকলাম.....

চলমান।

১৮৫০ খ্রিষ্টাব্দের দিকে সবুজ গম্বুজ, ছবিঃ উইকিপিডিয়া

উসমানীয় যুগে মসজিদে নববী, ১৯ শতক, ছবিঃ উইকিপিডিয়া

মন্তব্য ১৫ টি রেটিং +৪/-০

মন্তব্য (১৫) মন্তব্য লিখুন

১| ০৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১০:৪৬

মোঃ ইকবাল ২৭ বলেছেন: জানার বিষয়, জানলাম,পরে আরো ভালো ভাবে পড়ে নিবো। ভাল পোস্ট।

০৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১১:০৫

নতুন নকিব বলেছেন:



পোস্ট পাঠের জন্য শুকরিয়া। ভালো থাকার প্রার্থনা।

২| ০৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১১:২০

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন:
সুন্দর বিষয়। আল্লাহ ওনাকে জান্নাতে উচ্চ মোকামে রাখুন।++++

০৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৩৩

নতুন নকিব বলেছেন:



আমিন। জাজাকুমুল্লাহ।

৩| ০৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১১:৫৯

জাহিদ হাসান বলেছেন: টাকা ঢাললে আধুনিকায়নের ব্যাপার না। তবে কথা হচ্ছে-

আগেকার দিনে মানুষের মসজিদ ছিলো কাঁচা, কিন্তু ঈমান ছিল পাঁকা। আর এখন উল্টোটা হইছে

০৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ২:৩৪

নতুন নকিব বলেছেন:



আগেকার দিনে মানুষের মসজিদ ছিলো কাঁচা, কিন্তু ঈমান ছিল পাঁকা। আর এখন উল্টোটা হইছে

-সহমত। শুকরিয়া মন্তব্যে আসায়।

৪| ০৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:১৫

সাজিদ উল হক আবির বলেছেন: ক্বাবা - মদিনা শরীফের শা'নের উপযুক্ত আবেদের সংখ্যা বৃদ্ধি পাক এই প্রার্থনা করি।

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ৮:৩৩

নতুন নকিব বলেছেন:



আমিন। জাজাকুমুল্লাহ।

৫| ০৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ৯:২৯

মা.হাসান বলেছেন: কাবা ঘর প্রাঙ্গনে বিশেষ পাথর ব্যবহার করা হয়েছে শুনেছি, দেখেছি, এই পাথর রোদে গরম হয়না জেনেছি, ভিতরের কাহিনী জানা ছিলো না। আল্লাহ সকলকে উত্তম বদলা দিন।

এই প্রসঙ্গে একটি ঘটনা, অনেক আগের। কাবা প্রাঙ্গনে ঢোকার সময়ে তওয়াফকারি/হাজিরা স্যান্ডেল -জুতা বাইরে রেখে ভিতরে প্রবেশ করেন। বিশেষ বিশেষ মৌসুমে এত জুতা জমে যে ঝাড়ুদারেরা ঝাড়ু দিয়ে সব ফেলে দেয়। একজন তওয়াফকারি (বা হাজি, মনে নেই) দরজার কাছে এসে দেখলেন জুতা নেই। সামান্য কয়েক গজ দুরেই বাজার। ওখান থেকে কেনা যাবে। উনি হাঁটা শুরু করতেই ওনার পায়ের নিচের গরম পাথরের তাপে মনে হলো ওনার পা পুড়ে যাচ্ছে। উনি তাড়া তাড়ি উর্ধাঙ্গের কাপড় পায়ে পেচিয়ে বাকি পথ পার হন।

এরকম উত্তপ্ত পাথর-বালুতে হযরত বেলালের মতো সাহাবিকে শুইয়ে অত্যাচার করা হয়েছে। দ্বিন পালন করা এখন আমাদের জন্য অনেক সহজ হয়ে গিয়েছে।
আল্লাহ আমাদের নেক কাজের আকাঙ্খ বৃদ্ধি করুন। সকলের নেক আমল কবুল করুন । আমিন।

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ৮:৫৫

নতুন নকিব বলেছেন:



কাবা ঘর প্রাঙ্গনে বিশেষ পাথর ব্যবহার করা হয়েছে শুনেছি, দেখেছি, এই পাথর রোদে গরম হয়না জেনেছি, ভিতরের কাহিনী জানা ছিলো না। আল্লাহ সকলকে উত্তম বদলা দিন।

-জ্বি, এই পাথরগুলো সত্যিই অনন্য। তাওয়াফকারী এবং হাজী সাহেবানদের সুবিধা বিবেচনায় যারা এমন মূল্যবান পাথর নির্বাচন করেছেন আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআ'লা তাদের দুনিয়া এবং আখিরাতে সম্মানিত করুন।

এই প্রসঙ্গে একটি ঘটনা, অনেক আগের। কাবা প্রাঙ্গনে ঢোকার সময়ে তওয়াফকারি/হাজিরা স্যান্ডেল -জুতা বাইরে রেখে ভিতরে প্রবেশ করেন। বিশেষ বিশেষ মৌসুমে এত জুতা জমে যে ঝাড়ুদারেরা ঝাড়ু দিয়ে সব ফেলে দেয়। একজন তওয়াফকারি (বা হাজি, মনে নেই) দরজার কাছে এসে দেখলেন জুতা নেই। সামান্য কয়েক গজ দুরেই বাজার। ওখান থেকে কেনা যাবে। উনি হাঁটা শুরু করতেই ওনার পায়ের নিচের গরম পাথরের তাপে মনে হলো ওনার পা পুড়ে যাচ্ছে। উনি তাড়া তাড়ি উর্ধাঙ্গের কাপড় পায়ে পেচিয়ে বাকি পথ পার হন।

-জ্বি, এরকম অনেক ঘটনাই জানা যায়। এখন অবশ্য বাইতুল্লাহর মাতাফ এবং কাবার শরীফের চার পাশের বর্ধিত অংশে পোস্টে আলোচিত বিশেষ পাথর ব্যবহার করার ফলে খালি পায়ে হাটায় কোনো সমস্যা হয় না। এসব স্থানে জুতা পায়ে হাটার সুযোগও নেই। কারণ, এ জায়গাগুলোতে স্বাভাবিক অবস্থায় (করোনাকালীন সময় ব্যতিরেকে) মুসল্লিগণ নিয়মিত নামাজ আদায় করেন। এছাড়া কাবা প্রাঙ্গনের সীমানার বাইরের পথঘাটসহ অন্যান্য স্থানের অবস্থা আপনি যেমনটা বলেছেন তেমনই। পায়ে ফোস্কা পড়ার মত উত্তপ্ত। খালি পায়ে হাটা কোনোক্রমেই সম্ভব নয়। রাস্তার উপরে মোটা জায়নামাজ বিছিয়ে নামাজ পড়তে গিয়েও দেখেছি, পা পর্যন্ত গরম হয়ে ওঠে।

এরকম উত্তপ্ত পাথর-বালুতে হযরত বেলালের মতো সাহাবিকে শুইয়ে অত্যাচার করা হয়েছে। দ্বিন পালন করা এখন আমাদের জন্য অনেক সহজ হয়ে গিয়েছে।

-এই সহজ হওয়ার কারণেই আজ আর দ্বীনের জন্য আমাদের দরদ নেই, দায়বদ্ধতা নেই। আজ লক্ষ্য করে দেখুন, ঈমান আমাদের কতটুকু পরিমান দুর্বল হয়েছে, আমাদের সামনে কুরআন অবমাননার ঘটনা ঘটলে আমরা গা-ছাড়া ভাব দেখাই। কিছু কুরআন প্রেমিক যখন এর বিচারের দাবিতে রাস্তায় নেমে আসেন তখন তাদেরকে বলি উগ্রপন্থি। তাদের প্রতি বিভিন্ন অযৌক্তিক কথাবার্তা ছুড়ে দিই আর বেহায়ার মত বলে বেড়াই, কুরআন আল্লাহর বাণী, এর হেফাজত তিনিই করবেন।

চিন্তা করুন, আমার চোখের সামনে কুরআনের প্রতি ধৃষ্টতা দেখানো হচ্ছে, কুরআনকে অপমান অপদস্ত করার চেষ্টা হচ্ছে, কুরআন অবমাননার মত নিকৃষ্ট একটি জঘন্য অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে আর আমি কি না পাথরের মত জমে বসে আছি আর এই অন্যায়ের প্রতিবাদে সোচ্চার হয়ে যারা পথে নেমেছেন তাদের প্রতি উষ্মা প্রকাশ করছি। আমার ঈমান কোথায়? আসলে আমার কি আদৌ ঈমান আছে?

আল্লাহ আমাদের নেক কাজের আকাঙ্খ বৃদ্ধি করুন। সকলের নেক আমল কবুল করুন । আমিন।

-আমিন।

কল্যান কামনা সবসময়।

৬| ০৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ৯:৩৪

নেওয়াজ আলি বলেছেন: আল্লাহ ঘরের একদুরে নামাজ পড়ার তৌফিক আল্লাহ দিয়েছে আমাকে

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ৮:৫৯

নতুন নকিব বলেছেন:



শুকরিয়া। আপনি ভাগ্যবান।

৭| ০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১২:৩৪

রাজীব নুর বলেছেন: আমি স্যরি পোষ্ট টা দুইবার পড়লাম। কিন্তু বিস্ময়কর লাগলো না।

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ৮:৫৯

নতুন নকিব বলেছেন:



পরের পর্ব পড়ুন। আশা করি ভালো লাগবে।

৮| ০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ৯:১১

ডঃ এম এ আলী বলেছেন:


বেশ তথ্য বহুল লেখা
পোষ্টটি প্রিয়তে তুলে রাখলাম ।

শুভেচ্ছা রইল

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.