নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আসলে স্বার্থের পৃথিবীতে কেউ আপন নয় ।

ইসিয়াক

একজন অতি সাধারণ মানুষ ।

ইসিয়াক › বিস্তারিত পোস্টঃ

মর্গ্ থেকে বলছি

১০ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সকাল ১০:০২


ভক্ত পরিবেষ্টিত সক্রেটিসের বিষপানের দৃশ্য
প্রিয়ার তীব্র বাক্যবানে অনেক অভিমান নিয়ে আমি এক দিন হেমলক বিষ পান করলাম ।
কিঞ্চিত মাথা ঠান্ডা হতে আমি বুঝতে পারলাম বড্ড ভুল হয়ে গেছে ।
ততক্ষণে কিছু করার নেই ,আমার ভবলীলা সাঙ্গ হলো
ইশ ১০ তারিখে আমাদের বিবাহ বার্ষিকী ছিলো , কত ভুরিভোজ হতো ..........
অনুর হাতের রান্নার তুলনা হয় না..............
অনু মর্গ থেকে বলছি তোমায় খুব মিস করছি । তোমার হাতের সুস্বাদু রান্না খুব মিস করছি...................
কেউ কেউ আমাকে সত্যি সত্যি খুব মিস করছিলো । কিন্তু বাকিরা,,,,,,,,,,,,,,,,,,অয়ন শালাটা এতো মিথ্যাবাদী সে নাকি আমার কাছে টাকা পাবে...............টাকার অঙ্কটা শুনতেই আমার ভিমরি খাবার দশা হলো.....................
বেচে থাকলে নির্ঘাত আমি ওকে দু চার গা বসিয়ে দিতাম ।
আমার হাতপা বাধা কিছু করার নেই........সেই অর্থে আমার হাতে পায়ে কোন দড়ি নেই অবশ্য,দড়ি কেন কিছুই নেই। খুব অস্বস্তি হচ্ছে ........এরকম উলঙ্গ থাকার অভ্যেস আমার কোন কালে ই ছিলোনা । জমাদারনি মেয়েটি খুব বিশ্রিভাবে তাকিয়ে ছিলো .................লজ্জায় আমার বেগুনী রং ধারণ করার মতো অবস্থা হলো আরকি...........
আমার ছোট ছেলেটা আমার বিয়ের আংটি আর চেনটা চোখের নিমেষে হাপিস করে দিলো................ওযে এত বড় চোর তা কে জানতো ?খুব শান্তশিষ্ট ই তো মনে হতো.....................
বউটা কাদছে । অনু তোমাকে ততটা দুঃখী দেখাচ্ছেনা । আমার কুলখানির দিনে তোমার মুখে হালকা মেকআপ আমাকে আহত করেছে ।
বড়ছেলে আর মেয়েটা খুব কাদছে .উথাল পাতাল কান্না ,আহারে.....ফিরে আসতে ইচ্ছে করছে.................জানি সম্ভব নয় ।
নিয়তি ! নিয়তি !! নিয়তি!!
কিছুক্ষণের মধ্যে বুঝতে পারলামএবার সত্যি সত্যি আমার সময় শেষ ...............
কয়েকটা চ্যাংড়া ডাক্তার দ্রুত হাতে আমায় ব্যবচ্ছেদ করে ফেলতেই
রক্তকে তার নগ্নতা থেকে বের করে দিলো ।
আমার দেহটিকে খুলে ফেলার আগে প্রশংসিত করলো ....
মর্গে আমার দেহকে প্রস্তুত করল পাঠ্যসূচি হিসাবে .....................
আগামীদিনের সকল মানুষের মঙ্গল কামনায় ........................তারা আমায় ব্যবচ্ছেদ করতে লাগলো।

এই গাছের নির্যাস থেকে তৈরি হয় হেমলক বিষ । এর লতা পাতা ফুল বিচি সবই বিষাক্ত ।

মন্তব্য ১৬ টি রেটিং +৩/-০

মন্তব্য (১৬) মন্তব্য লিখুন

১| ১০ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সকাল ১০:৪৪

রাজীব নুর বলেছেন: হেমলক বিষ আমি খেতে চাই।

১০ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১২:২৯

ইসিয়াক বলেছেন: না না এ কাজটি ভুলেও করবেন না। আপনার এখনও অনেক কাজ বাকি । তাছাড়া পরি মামণিকে কে দেখাশোনা করবে।
এসব চিন্তা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলুন ।ধন্যবাদ

২| ১০ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সকাল ১০:৪৮

রাজীব নুর বলেছেন: ভাই, শ্রদ্ধেয় চাঁদগাজী সাহেব মন্তব্য এবং পোষ্ট করতে পারছেন না। তাকে ব্লক করে রাখা হয়েছে। এটা খুব দুঃখজনক।
আপনি চাঁদ গাজীকে মুক্ত করার জন্য একটা পোষ্ট দেন।

১০ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১২:৩৯

ইসিয়াক বলেছেন: রাজীব ভাই ,এ ব্যাপারে যেটুকু বলা যায় ততটুকু বলেছি।খামাখা বেশি বলতে গেলে জেনারেল হবার ভয় আছে আর এটা ওনার জন্য ক্ষতির ও কারণ হয়ে দাঁড়াবে।আমাদের ধৈর্য ধরতে হবে।। আশা করি শ্রদ্ধেয় চাঁদগাজী স্যার তাড়াতাড়ি মুক্ত হবেন । আবার আমাদের ভুলগুলো ধরিয়ে দেবেন ।পরামর্শ দেবেন এবং বকুনিও দেবেন।
ধন্যবাদ । ভালো থাকবেন।

৩| ১০ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১২:২০

মানতাশা বলেছেন: **********************************************************************************************************
গাছের নাম কি ?
রাজীব নুর বলেছেন: ভাই, শ্রদ্ধেয় চাঁদগাজী সাহেব মন্তব্য এবং পোষ্ট করতে পারছেন না। তাকে ব্লক করে রাখা হয়েছে। এটা খুব দুঃখজনক।
আপনি চাঁদ গাজীকে মুক্ত করার জন্য একটা পোষ্ট দেন।

চাঁদগাজী কে নিয়া পোস্ট দিয়ে নীতিমালা ভঙ্গ করিলাম । জেনারেল ব্লগারে পরিণত হইলাম।
*************************************************************************************************************

১০ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১২:৪৮

ইসিয়াক বলেছেন: মানতাশা আপনি জানতে চেয়েছেন
গাছের নাম কি ?

সক্রেটিসের হেমলক বিষের গল্প
হেমলক বিষে আক্রান্ত হয়ে পৃথিবীর
সবচেয়ে আলোচিত মৃত্যুর
ঘটনাটি ঘটে খ্রিস্টপূর্ব ৩৯৯। মহান
শিক্ষক ও গ্রিক দার্শনিক
সক্রেটিসকে প্রহসনের বিচারে দেয়া হয়
মৃত্যুদণ্ড! রায়ে বলা হয়, মৃত্যুদণ্ড
কার্যকর করা হবে হেমলক বিষপান
করিয়ে। প্রাচীন বিষ হেমলকের গল্প
লিখেছেন সুরাইয়া নাজনীন
মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার দিন,
সক্রেটিসের হাতে তুলে দেয়া হয় এক
পেয়ালা হেমলক বিষ।
সক্রেটিসকে বলা হয়, পেয়ালার বিষ
পুরোটুকু পান করতে হবে। এক
ফোঁটা বিষও যাতে পেয়ালার
বাইরে না পড়ে। সক্রেটিস
ধীরস্থিরভাবে এক চুমুকে সবটুকু
বিষপান করেন। এবার
সক্রেটিসকে নির্দেশ দেয়া হলো, রুমের
ভেতরে হাঁটাহাঁটি করার জন্য,
যাতে করে বিষ
গোটা শরীরে ভালোভাবে ছড়িয়ে পড়তে পারে।
সক্রেটিস কিছুক্ষণ পায়চারী করলেন।
তার পা দুটি অবশ হয়ে আসতে লাগল।
হƒদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ
হয়ে আসতে লাগল। সারাদেহ অবশ
হয়ে কিছু সময়ের মাঝেই তিনি মৃত্যুর
কোলে ঢলে পড়লেন। মানুষের
মাঝে থেকে পতন হলো এক উজ্জ্বল
নক্ষত্রের!
মহান সক্রেটিসকে যে হেমলক বিষপান
করানো হয়েছিল সেটি ছিল হেমলক
গাছের রস। গাছটির বৈজ্ঞানিক নাম
Conium maculatum. আইরিশরা এই
গাছকে ডাকে Devil’s bread নামে,
মানে ‘শয়তানের পাউরুটি’! হেমলক
দ্বিবর্ষজীবী গুল্ম জাতীয় উদ্ভিদ।
ঝোপ জাতীয় উদ্ভিদ। পাঁচ থেকে আট
ফুট লম্বা হয়। ছোট ছোট সাদা রঙের
ফুল হয়। ভেজা, স্যাঁতসেঁতে জায়গায়
জšে§। নালার কাছে, নদীর ধারে এদের
বেশি দেখা যায়। ইউরোপ, পশ্চিম
এশিয়া, উত্তর আমেরিকা, উত্তর
আফ্রিকা, অস্ট্রেলিয়া,
নিউজিল্যান্ডে হেমলক বেশি জšে§।
হেমলক গাছ পুরোটাই বিষাক্ত। পাতা,
ফুল, ফল, কাণ্ড, শিকড় সবটা জুড়েই
কোনিইন (Coniine) নামক বিষাক্ত
রাসায়নিক উপাদান ছড়িয়ে আছে।
কোনিইন হচ্ছে বিষাক্ত
অ্যালকালয়েড। এর রাসায়নিক সংকেত
ঈ৮ঐ১৭ঘ. কোনিইন নিউরোটক্সিন
জাতীয় বিষ। এটি আক্রান্ত প্রাণীর
দেহের øায়ুতন্ত্রকে আক্রমণ করে।
কোনিইন মূলত প্রাণীদেহের ‘নিউরো-
মাসকুলার জাংশন’-কে ব্লক করে দেয়।
যে সব তন্তু øায়ুর সঙ্গে পেশির
সংযোগ স্থাপন
করে সেগুলোকে নিউরো-মাসকুলার
জাংশন বলে। নিউরো-মাসকুলার
জাংশন ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় øায়ুর
সঙ্গে পেশির সংযোগ বিচ্ছিন্ন
হয়ে যায়। ফলে, পেশিকোষ
প্যারালাইসিসে আক্রান্ত হয়। শ্বাস-
প্রশ্বাসের সঙ্গে যেসব পেশি যুক্ত
সেগুলোও প্যারালাইসিসে আক্রান্ত
হওয়ায় আক্রান্ত প্রাণীর শ্বাস-
প্রশ্বাস বন্ধ হয়ে আসে। হƒৎপিণ্ড ও
মস্তিষ্কে প্রয়োজনীয় পরিমাণ
অক্সিজেন সরবরাহ না হওয়ায়
আক্রান্ত প্রাণী দ্রুত মৃত্যুর
কোলে ঢলে পড়ে। হেমলক উদ্ভিদ
মানুষসহ অন্য যে কোনো প্রাণীর
জীবনের জন্য হুমকি। বিশেষ
করে তৃণভোজী প্রাণী ও বীজ
ভক্ষণকারী পাখিরা হেমলকের
বিষে আক্রান্ত হয়ে অনেক সময়ই
মারা যায়। হেমলকের ছয়
থেকে আটটি পাতায় যে পরিমাণ বিষ
আছে তা কোনো মানুষের দেহে প্রবেশ
করানো হলে মৃত্যু অনিবার্য!
হেমলকের রস পান করে মহান দার্শনিক
সক্রেটিসের মৃত্যু পৃথিবীব্যাপী হেমলক
বিষকে পরিচিত করে তুলেছে।
শেক্সপিয়ার তার কিং লেয়ার, হ্যামলেট
ও ম্যাকবেথ নাটকে হেমলক বিষের
কথা উল্লেখ করেছেন।
সারা পৃথিবীজুড়ে অনেক টিভি সিরিয়াল
ও সিনেমার কাহিনীতে হেমলক বিষ
ব্যবহার করা হয়েছে। কলকাতার
পরিচালক শ্রীজিৎ ব্যানার্জি ২০১২
সালে ‘হেমলক সোসাইটি’
নামে একটি সিনেমা নির্মাণ করেন।
ইংরেজ কবি জন কিটস তার ‘de to a
Nightingale’ কবিতায় হেমলকের
কথা উল্লেখ করেছেন।
ধন্যবাদ

৪| ১০ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১২:২০

রাকিব আর পি এম সি বলেছেন: এই গাছটি আজকেই প্রথম দেখলাম। পোস্টটির জন্য ধন্যবাদ।

১০ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১২:৪০

ইসিয়াক বলেছেন: রাকিব ভাই আপনাকেও অনেক ধন্যবাদ ।
শুভকামনা রইলো

৫| ১০ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১:৩৮

মুক্তা নীল বলেছেন:
অজানা একটি গাছ সম্পর্কে অনেক কিছু জানা হলো।
এমন বিস্তারিত তথ্য দেওয়ার জন্য আপনাকে অনেক
ধন্যবাদ জানাচ্ছি। ভালো থাকুন।

১০ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১:৪৫

ইসিয়াক বলেছেন: মুক্তা নীল আপু
এই নিন সাতকরার তৈরী আচার । যত খুশী খেয়ে নিন

সাথে কিছু তাজা সাতকরা পাঠালাম







৬| ১০ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১:৫৭

শায়মা বলেছেন: তাকে দেখে নহে তবে অন্য এক কারনে রবিঠাকুর লিখেছিলেন

আমি জেনে শুনে বিষ করেছি পান .....

১০ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:৫৯

ইসিয়াক বলেছেন: সুন্দর মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ

৭| ১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ৩:৪৫

জুনায়েদ বি রাহমান বলেছেন: হেমলম বিষ সম্পর্কে অনেককিছুই জানালাম।

ধন্যবাদ।

১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ভোর ৫:১০

ইসিয়াক বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ জুনায়েদ ভাই
শুভসকাল

৮| ১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ভোর ৪:৫৯

হাফিজ বিন শামসী বলেছেন: স্ত্রী, সন্তান, সাথী, সঙ্গী সবাইকে ছেড়ে চলে যেতে হবে। চলে যেতে হয়। চলে গেছে। চলে যায়। আজ যারা শুভাকাঙ্ক্ষী তারা তাদের বেঁচে থাকার প্রয়োজনে হাতের আংটি থেকে শুরু করে শুরু করে সব কিছুই ভাগাভাগি করে নেয়। কিছুই সঙ্গী হয় না। শুধু সাথে যায় কর্মফল।

হেমলক সম্পর্কে জানতে পেরে ভাললাগা রইলো।

১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ভোর ৫:১২

ইসিয়াক বলেছেন: অনেক অনেক মূল্যবান মন্তব্য ।
ভালো থাকুন । সুস্থ থাকুন ।
এই কামনা করি ।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.