নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমি সেই রকম পৃথিবীর স্বপ্ন দেখি যেখানে সবাইকে সমান দৃষ্টিতে দেখা হবে। যেখানে থাকবে না কোন পাপ পঙ্কিলতা।

ইসিয়াক

সবার উপর মানুষ সত্য তাহার উপর নাই।

ইসিয়াক › বিস্তারিত পোস্টঃ

কবিতাঃ কেন?

২৬ শে মার্চ, ২০২৪ সকাল ৯:০০

এক লক্ষ ছাপ্পান্ন হাজার পাঁচশত সত্তর বর্গকিলোমিটারের একটি ভূখণ্ড।
পৃথিবীর বুকে শ্যামল সেই বদ্বীপ জুড়ে জালের মত অসংখ্য নদী।
নদীর মায়া স্পর্শ ছুঁয়ে দিগন্ত বিস্তৃত খোলা মাঠ।
মাঠের ওপারে পললভূমিতে ঘণ পল্লববেষ্টিত বনতল
ফসলের মাঠ
আহা! সবুজের আহ্বান
এখানে আকাশে ওড়ে হাজার রঙের পাখি
গাছে গাছে ফোটে রকমারী ফুল
সেই গাছের মগডালে ডানা শুকায় তৃপ্ত পানকৌড়ি
কাঠবিড়ালি ডেকে চলে একটানা নিস্তব্ধতা ভাঙতে
মন কেমনের সুরে গায় বিরহী ঘুঘু
বক ধ্যান মগ্ন তার শিকারে
মধুলোভে মাতাল ছোটে মৌমাছি
প্রজাপতি উড়ে আর খেলে ছোঁয়াছুয়ি খেলা
শিশির শুকাতেই ঘাসের ডগা ছুঁয়ে আহ্লাদ করে ঘাস ফড়িং
রোদ্রউজ্জ্বল দিনে মেঘ ভেসে চলে অচিনে
রাখাল বাজায় বাঁশি কেটে যায় বেলা।
সবই ঠিক আছে
কিন্তু ...
কিসের একটা অশনি সংকেত
কোথায় যেন অসংগতি।
সন্তপর্ণে ঘণিয়ে আসছে ঘোর
অমানিশার ঘোর।
অশুভ কালো ছায়া অক্টোপাসের মতো জড়িয়ে ধরছে ক্রমশ
আমার ভাষা সংস্কৃতি ইতিহাস ঐতিহ্য ।
শ্যামল বাংলার পতাকা আজ খামচে ধরে সেই পুরানো শকুনেরা।
ওরা দলবদ্ধ
ওরা সংগঠিত।
তিলোত্তমার সৌন্দর্য এখন ম্লান ধর্মান্ধতার করাল থাবায়।
এ তো বন্দীদশা।
দমবন্ধ প্রহর।
লেগেছে গ্রহন
ওরে বাহে,জাগো জেগে ওঠো আবার লেগেছে গ্রহন!
এ যে পাথর সময়!
চির দুঃখী মা আমার, কপালে বুঝি সুখ স্বস্তি জুটবে না তোর কোনকালেই
আর কত মূল্য দিতে হবে তবে
সেই সে কবে পলাশীর আম্রকাননে স্বাধীনতার সূর্য অস্তমিত হলো
এদেশীয় দোসর সামন্ত প্রভু আর কুচক্রী ব্রিটিশদের শাসন শোষণ অত্যাচার মাত্রা ছাড়ালো

কত শত আন্দোলন দানা বেঁধে সফলতা আসে না আর
অধরা থেকে যায় স্বাধীনতা
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের জটিল আবর্তে আর দেশপ্রেমিক স্বদেশী আন্দোলনের প্রেক্ষাপটে ব্রিটিশ রাজ ছিবড়ে চুষে অবশেষে ছেড়ে যায় এদেশ
ততদিনে শুধু কাঠামোটুকু অবশিষ্ট
তারপরও কিন্তু
এ যে শুধু হাত বদল কোথায় নিজেস্বতা!
কোথায় স্বাধীনতা!
ব্রিটিশ পদলেহী৷ লোভী রাজনৈতিক নেতবৃন্দের হাতে দেশমাতৃকা আবার হয় শৃঙ্খলাবদ্ধ।
চোরে চোরে মাসতুতো ভাইদের লোভের তাড়নায় খন্ডিত হয় দেশ।
কারও কিছু যায় আসে না
যায় আসে সরলমতী আমজনতার
তথাকথিত ভালো মন্দের নিয়ন্তা যখন ধর্ম তখন সুখ স্বস্তি পরাভূত হবে এতে আর আশ্চর্য কি!
ধর্মের আফিমের চেয়ে বড় মাদক আর কি হতে পারে!
তবু মেয়ে রণে চলল
নিভন্ত চুল্লিতে আবার আগুন জ্বলল
বায়ান্ন
ছেষট্টি
উনসত্তর
সত্তর পেরিয়ে
দ্রোহের যজ্ঞে ত্রিশ লক্ষ প্রাণের আহুতির বিনিময়ে
মা বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে এলো কাঙ্ক্ষিত স্বাধীনতা।
এলো ষোলই ডিসেম্বর ১৯৭১
দীর্ঘ নয় মাসের ধ্বংসযজ্ঞে পর এলো স্বাধীনতা
লেখা হলো নতুন ইতিহাস
কিন্তু
অচিরেই জাতির পতাকা খামচে ধরলো সেই পুরানো শকুন
নিয়াজীর অনুসারীরা আবার এককাট্টা
ধর্মের আফিমে বুদ জনগোষ্ঠীর মাথা খেতে সময় লাগে কি কখনও?
একটু৷ একটু করে বিষাক্ত বিষ বাস্প ছড়িয়ে পড়তে পড়তে
আজ আবার বাংলার আকাশে মেঘের ঘণঘটা
সামরিকশাসন
তথাকথিত গণতন্ত্রের সুযোগ কাজে লাগিয়ে
ধর্মীয় আফিমের নেশায় বুদ হলো বাঙালী।
হায়রে সরলমতী
গণতান্ত্রিক ঢালের আড়ালে চলে তালিম
খুব সন্তপর্ণে
নারীকুলকে কালো মোড়কে করা হচ্ছে বস্তাবন্দী
দূরাচারী দূরাত্না পুরুষের দূর্বলতার সুযোগে সহজ শিকার পরিণত হয় বড় অংশের জনগোষ্ঠী
ভয় আতঙ্কে লোভ সব একাকার এখন
খুঁজে ফেরে পাপমুক্তির পথ
চায় পৃথিবীর জীবনে ভোগ বিলাস শেষে অনন্ত স্বর্গ প্রাপ্তি।
এমন সুবর্ণা সুযোগ হাতছাড়া করতে কে আর চায়!
ধর্মগুরুদের বিধান যে বড্ড হৃদয়গ্রাহী
জাতি হিসাবে আমরা কি তবে নির্লজ্জ লোভী?
আফসোস।
সত্যি বলতে কি
সুযোগের অভাবে আমরা সৎ।
সমস্ত অর্জন আজ ব্যর্থতায় পর্যবসিত
দেশমাতৃকা আজ বস্তাবন্দি
তীব্র তাপদাহেও হাত ও পায়ের বন্ধনী খুলবার অনুমতি নেই তার।
হায়!
ধর্মান্ধতার করাল গ্রাসে অন্ধকার নেমে আসছে অন্ধকার
আফিমের নেশায় মত্ত দূর্নীতিগ্রস্ত মানুষ তার
সব পাপ ধুয়ে ফেলতে উদগ্রীব
তাই দানবাক্সে মেলে লক্ষ কোটি টাকা সোনার অলংকার
এ সবই মৃত্যু পরবর্তী জীবনে সেই স্বর্গ লাভের লোভনীয় আকর্ষণ।
হায় সেলুকাস কি বিচিত্র এ দেশ!
এখন সেভাবে স্বাধীনতা উদযাপনে মানা
অধিকাংশ এখন আপোষে বিশ্বাসী।
আপোষ!
আপোষ!!
আপোষ!!!
আপোষ করে আর যাই হোক স্বাধীনতা ধরে রাখা যায় না হে বাঙালী ।
অসাম্প্রদায়িক বাংলা আর গড়া হলো না তোর
কি হবে এত এত উন্নয়ণ?

ক্ষমতার স্বাদ সে বড় মিষ্টি!
কিন্তু এর ফল?

এখন গ্রহনের কাল
এখন দহনের কাল।
জাগো বাহে জাগো।
এত কিছুর পরেও আবার এসেছে পঞ্চাশ উর্ধ্ব ২৬শে মার্চ
বয়সের ভারে নূজ্য কি সে?
বীর বাঙালী কি ভুলতে বসেছে অতীত গৌরব গাঁথা?
দাম দিয়ে কেনা স্বাধীনতা রক্ষার দৃপ্ত শপথের কথা কি ভুলে গেছো বাঙালি?
আজ কেন আমার রক্তে কেনা স্বাধীনতা ধর্মান্ধ জনগোষ্ঠীর সামনে নতজানু ?
কেন????
© রফিকুল ইসলাম ইসিয়াক

মন্তব্য ১৬ টি রেটিং +৪/-০

মন্তব্য (১৬) মন্তব্য লিখুন

১| ২৬ শে মার্চ, ২০২৪ সকাল ১০:০৭

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:





বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।

২৯ শে মার্চ, ২০২৪ সকাল ৮:১১

ইসিয়াক বলেছেন: বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।

২| ২৬ শে মার্চ, ২০২৪ সকাল ১০:৪১

রানার ব্লগ বলেছেন: ইনশাল্লাহ !!

২৯ শে মার্চ, ২০২৪ সকাল ৮:১২

ইসিয়াক বলেছেন: ইনশাল্লাহ !!

৩| ২৬ শে মার্চ, ২০২৪ সকাল ১১:৪৫

মায়াস্পর্শ বলেছেন: অসাধারণ কবি। B-)

২৯ শে মার্চ, ২০২৪ সকাল ৮:১৩

ইসিয়াক বলেছেন: সকালের শুভেচ্ছা রইলো।৷
জীবন হোক কবিতাময়। ভালো থাকুন সবসময়।

৪| ২৬ শে মার্চ, ২০২৪ বিকাল ৫:১৩

শায়মা বলেছেন: স্বাধীনতা দিবসে খুবই সুন্দর কবিতা ভাইয়া। :)

২৯ শে মার্চ, ২০২৪ সকাল ৮:১৪

ইসিয়াক বলেছেন: অনেক অনেক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা রইলো প্রিয় ব্লগার।
ভালো থাকুন সবসময়।

৫| ২৬ শে মার্চ, ২০২৪ বিকাল ৫:২৩

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: সুন্দর।

২৯ শে মার্চ, ২০২৪ সকাল ৮:১৪

ইসিয়াক বলেছেন: ধন্যবাদ প্রিয় কবি।

৬| ২৬ শে মার্চ, ২০২৪ বিকাল ৫:৩৭

রাজীব নুর বলেছেন: পড়লাম।

২৯ শে মার্চ, ২০২৪ সকাল ৮:১৫

ইসিয়াক বলেছেন: ওকে রাজীব নুর।
ভালো থাকুন।

৭| ২৬ শে মার্চ, ২০২৪ রাত ১০:১৯

আবু উবাইদাহ আল হিন্দী বলেছেন: জানুয়ারি ২০২৪, বাংলাদেশ। এই স্থান-কালের প্রেক্ষাপট এখানকার শিক্ষিত সচেতন মুসলিমদের কাছে একেবারেই স্পষ্ট। কিন্তু মূল আলাপে যাবার আগে দীর্ঘকালীন ফায়েদার বিবেচনায় (খুবই সংক্ষেপে) প্রেক্ষাপটের প্রাসঙ্গিক বিষয়গুলো একবার উল্লেখ করে দেওয়াই সমীচীন মনে করছি ইন শা আল্লাহ।
.
২০২৪ সালের জানুয়ারিতে বাংলাদেশের দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বেশ কিছু মাস আগে থেকেই ক্ষয়িষ্ণু সাম্রাজ্য আমেরিকা বেশ সক্রিয় হয়ে ওঠে। প্রচলিত গণতান্ত্রিক সিস্টেমকে হ্যাক করে পর পর তিনবার শাসনক্ষমতায় থাকার পর চতুর্থবার শাসনক্ষমতায় যাওয়ার প্রস্তুতি নেওয়া আওয়ামী লীগ সরকারকে সাধারণ নির্বাচনের অনেক আগে থেকেই আমেরিকা ভিসা নিষেধাজ্ঞা, বাণিজ্য অবরোধ সহ নানামুখী চাপ প্রয়োগ করতে থাকে।
.
বলাই বাহুল্য, বাংলাদেশের তৎকালীন প্রধান বিরোধী দল বিএনপি - যারা কিনা আরেক সেক্যুলার জাতীয়তাবাদী দল - তাদের সাথেও আমেরিকার যোগসূত্রের বিভিন্ন গুঞ্জন ওঠে। বিএনপি-পন্থী অনেক অ্যাক্টিভিস্টরা স্পষ্টভাবেই আমেরিকার সাহায্যের ব্যাপারে খোলাখোলি কথা বলে যায়। এভাবে চলতে চলতে এটা অন্তত দিবালোকের মতো স্পষ্ট হয়ে যায় যে, তারা আমেরিকার প্রত্যক্ষ হস্তক্ষেপে হলেও আওয়ামী লীগ সরকারের পতন করে শাসনক্ষমতায় যেতে চায়। আরও স্পষ্ট হয়ে যায় যে, সুকৌশলী আমেরিকাও নিজের বিভিন্ন স্বার্থে সেবার বিএনপিকে শাসনক্ষমতায় দেখতে চায়। বিভিন্ন ঘটনা আর রটনার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো, আওয়ামী লীগ সরকারের পদত্যাগ এবং নির্বাচনকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের জন্য বিএনপি এবং সমমনা দলগুলো বিভিন্ন কর্মসূচী এবং আন্দোলন করতে থাকে।
.
একইসাথে গণতন্ত্রের মাধ্যমে ইসলামি শরিয়াহ বাস্তবায়নের জন্য কাজ করে যাওয়া বিভিন্ন ইসলামি দলও বিএনপির আন্দোলনের সাথে অনেকটাই একাত্নতা ঘোষণা করে। অবস্থা এমন হয় যে, গণতান্ত্রিক পন্থায় ইসলামি শরীয়াহ কায়েমের জন্য কাজ করে যাওয়া রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরাও আমেরিকার প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ সহযোগিতাকে পুঁজি করে বিএনপি ও সমমনা দলগুলোর সাথে কোনোরকমে জোটবদ্ধ হয়ে হলেও শাসনক্ষমতায় যাওয়ার স্বপ্ন বুনতে থাকে। এমতাবস্থায়, ইসলামি শাসন কায়েমের জন্য কাফিরদের নির্ধারণ করে দেওয়া সিস্টেমের ভেতর থেকে তাদের হস্তক্ষেপমূলক পৃষ্ঠপোষকতা ও সহযোগিতা গ্রহণ করা বৈধ কি না সে বিষয়ক শরয়ী আলাপে যদি নাও যাই, তবুও বাস্তবতার আলোকে এটা কতটুকু কার্যকর ও ফলপ্রসূ সে বিষয়ে আমাদের সরল মনের আন্তরিক কিছু আলাপ আমরা গণতান্ত্রিক ইসলামি দলগুলোর ‘আন্তরিক’ ভাইদের উদ্দেশ্যে রাখতে চাই।
.
বাংলাদেশে প্রায় ১৫ বছর শাসনক্ষমতায় থেকে রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে আওয়ামী লীগ তো অন্তত আভ্যন্তরীণভাবে চরম শক্তিশালী হয়ে উঠেছিল। কিন্তু তা সত্ত্বেও আমেরিকার মতো পরাশক্তি যখন চায় না, তখন আওয়ামী লীগেরও ক্ষমতা থেকে উৎখাত হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়ে যায়। আবার দেশটির প্রধান বিরোধী দল বিএনপিও এত শক্তি নিয়ে আন্দোলন করলেও ঘুরেফিরে আমেরিকার হস্তক্ষেপের আশাতেই বুক বাঁধে। এখানে শাসনক্ষমতায় আসা কিংবা টিকে থাকার জন্য গণতান্ত্রিক সিস্টেমটা যে আদৌ মুখ্য নয়, তা আরেকবার দিবালোকের মতো স্পষ্ট হয়ে যায়। আওয়ামী লীগ সরকার তো ঠিকই এই সিস্টেমকে হ্যাক করে দুইবার (২০১৪ ও ২০১৮ সালের নির্বাচনে) জোর করে শাসনক্ষমতায় থাকতে পেরেছিল। কেন পেরেছিল? কারণ গণতন্ত্রের দেবী আমেরিকা সেই দুইবার বাদ সাধেনি, কারণ সেসময় গেরুয়া সন্ত্রাসী ভারত নিজের স্বার্থে বাংলাদেশে আওয়ামী লীগ সরকারকেই সমর্থন দিয়েছিল।
.
সহজভাষায় বললে, বাংলাদেশের মতো তৃতীয় বিশ্বের একটি রাষ্ট্রে বিদ্যমান কাঠামোর অধীনে থেকে শাসনক্ষমতায় যাওয়াটা যে আন্তর্জাতিক পরাশক্তি (যেমন: আমেরিকা) কিংবা আঞ্চলিক আধিপত্যবাদী শক্তির (যেমন: ভারত) সমর্থনের ওপর নির্ভরশীল, সেটা বাংলাদেশের ২০২৪ সালের নির্বাচনে যতটা স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে, তা যেন এখানকার ইতিহাসে আর কোনো সময়েই অতটা হয়নি।
.
গণতন্ত্রের মানহাজ অবলম্বন করা বিভিন্ন ইসলামি দলের চিন্তাশীল আন্তরিক ভাইয়েরা খুব ভালোভাবেই এই ব্যাপারগুলো উপলব্ধি করেন। তাহলে প্রশ্ন হলো, এভাবে শাসনক্ষমতায় গিয়ে প্রকৃত ফায়দা কোথায় যখন আমাদের কাছে স্পষ্ট যে আন্তর্জাতিক কিংবা আঞ্চলিক কোনো কুফরি শক্তির অনুমোদনেই সেই শাসনক্ষমতা টিকিয়ে রাখতে হয়? এভাবে শাসনক্ষমতায় গিয়েও ‘সত্যিকার ও পূর্ণাঙ্গ ইসলামি শরীয়াহ’ কীভাবে ফিরিয়ে আনা যাবে যখন এই ব্যাপারে আমাদের সামনে মিশর, আলজেরিয়া, এমনকি তুরস্কের মতো ব্যর্থতার উদাহরণ রয়েছে? সত্য হলো – একালের ফিরাউন পশ্চিমা সভ্যতার বিরুদ্ধে জি@হা@দকে এড়িয়ে যাওয়ার, নববী মানহাজকে পরিত্যাগ করে ওদেরই প্রচলন করা তন্ত্রমন্ত্রকে মেনে নেওয়ার অনিবার্য ফল হলো এটা। কুফরি শক্তিগুলোর বিরুদ্ধে নববী সংঘাতকে এড়িয়ে যেতে যেতে একসময় ওদেরই অনুমোদন আর সাহায্যের দিকে তাকিয়ে থাকার পরিণতি বরণ করে নিতে হয়। আর কখনও কোনো কালে শাসনক্ষমতায় গিয়ে পৌঁছলেও ইসলামি শরীয়াহ আর কায়েম না করে পশ্চিমা শয়তানদেরকে খুশি রেখেই টিকে থাকতে হয়। নইলে যে এত বছরের রাজনীতি মুখ থুবড়ে পড়ে!
.
প্রিয় ভাইয়েরা, আল্লাহর ইবাদাত একমাত্র তাঁরই নির্দেশিত পন্থায়, তাঁর রাসূল ﷺ-এর দেখানো উপায়ে করলেই কবুল হবে। তাহলে আল্লাহর জমিনে আল্লাহর দ্বীন কায়েমের ইবাদাত কেন আমরা নুসুসের সুস্পষ্ট পন্থা জি@হা@দ ফি সাবিলিল্লাহকে বাদ দিয়ে ইজতিহাদ করে মানবসৃষ্ট তন্ত্রমন্ত্রকে বেছে নিব? আফসোস গণতন্ত্রকে মানহাজ বানানো বিভিন্ন ইসলামি দলের ভাইদের জন্য। কুফরি শক্তিগুলোর বিরুদ্ধে যে ধরনের সংঘাতকে তারা শুরুতেই আপাত অসম্ভব বলে ইজতিহাদ করে গণতন্ত্রের মানহাজ বেছে নেন, গণতান্ত্রিক প্রতিপক্ষগুলোর বিরুদ্ধে একসময় তারা সেই ধরনের সংঘাতেই গিয়ে লিপ্ত হন। [১] যে আত্নত্যাগ তারা দ্বীন কায়েমের নববী মানহাজ জি@হা@দ@কে বেছে নিয়ে সরাসরি আল্লাহর রাহে করতে পারতেন, সেই ধরনের আত্নত্যাগই তারা কিনা কখনও পশ্চিমা তন্ত্রমন্ত্র ফিরিয়ে আনা তো আবার কখনও সুষ্ঠু গণতান্ত্রিক নির্বাচনের রাহে করেন। আর প্রায় শত বছর ধরে সেই একই চক্রে ঘুরপাক খাওয়া এখনও চলছে তো চলছেই।
.
শুধু বাংলাদেশের হিসেব করলেও, ১৯৭১ সালে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে আত্নপ্রকাশের পর ১৯৭৯ সালের মে মাসে ইকামতে দ্বীন বা আল্লাহর দ্বীন কায়েমের লক্ষ্যে নতুন উদ্যমে বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক ইসলামি দলগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বড়টি – জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশ-এর রাজনীতি শুরু হয়। পরবর্তীতে বাংলাদেশের রাজনীতিতে অনেক চড়াই উতরাই দেখা গিয়েছে। এমনকি সেক্যুলার জাতীয়তাবাদী বিএনপির নেতৃত্বে ঐক্যজোট করে জামায়াতে ইসলামী দলটি বাংলাদেশের শাসনক্ষমতায় কিছুটা অংশও নিয়েছে। কিন্তু ১৯৭৯ থেকে ২০২৪ পর্যন্ত প্রায় ৪৫ বছরের গণতান্ত্রিক মানহাজে সেই যে ইকামতে দ্বীন বা দ্বীন কায়েমের মূল লক্ষ্য – তা আজোবধি এই জমিনের কোথাও এক মুহুর্তের জন্যও অর্জিত হয়নি।
.
অপরদিকে আমাদের সামনে রয়েছে আল্লাহর রাস্তা জি@হা@দ@কে সত্যিকারভাবে আঁকড়ে ধরা আ-ফ-গা-ন মুসলিমদের উদাহরণ। সেই একই বছর অর্থাৎ ১৯৭৯ সালের ডিসেম্বরে আ-ফ-গা-নি-স্তা-নে সোভিয়েত আগ্রাসন থেকে শুরু। সেই থেকে ২০২৪ সাল পর্যন্ত তা*লে*বা*ন এবং বৈশ্বিকভাবে জি@হা@দি মানহাজকে জীবন্ত করার লক্ষ্যে কাজ করা মু*জা-হি/দ'রা পরপর দুইটা পরাশক্তিকে হারিয়ে দিয়ে গোটা আ-ফ-গা-নি-স্তা-নের জমিনে আল্লাহর দ্বীন কায়েম করেছেন। একবার ১৯৯৫ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত, আর পরে ২০২১ এর আগস্ট থেকে শুরু হয়ে আল্লাহর ইচ্ছায় এখনও চলছে। আর এই হলো আজকের দুনিয়ায় তন্ত্রমন্ত্রের বিপরীতে আল্লাহর রাস্তার নববী মানহাজকে আঁকড়ে ধরার ফলাফল।
.
আ-ফ-গা-নি-স্তা-নে আল্লাহর পক্ষ থেকে বাহ্যিক এই বিজয় যখন অর্জিত হয়নি কিংবা আজোবধি যদি তার দেখা না মিলতো, তখনও আমরা আল্লাহর দ্বীন কায়েমের ক্ষেত্রে কুরআন-সুন্নাহর সুস্পষ্ট নুসুসের বিপরীতে গিয়ে পশ্চিমা তন্ত্রমন্ত্রকে কবুল করে নেওয়ার ইজতিহাদকে বৈধ বলিনি আলহামদুলিল্লাহ, এবং তা কস্মিনকালেও বলবো না ইন-শা-আল্লাহ। কিন্তু আল্লাহর ইচ্ছায় ২০২১ সালে বাহ্যিক বিজয়ের পর বিস্তীর্ণ জমিনে আল্লাহর দ্বীন প্রতিষ্ঠা হওয়া আ-ফ-গা-নি-স্তা-ন, আর এখন অর্থনৈতিকভাবেও ঘুরে দাঁড়ানোর ফিকিরে থাকা আ-ফ-গা-নি-স্তা-ন কি এখনও তন্ত্রমন্ত্রের পিছনে ছুটে চলা মুসলিম নেতাকর্মীকে কোনো কিছু উপলব্ধি করায় না?
.
আবু উবাইদাহ আল-হিন্দি
২৩ জুমাদা আল-আখিরাহ, ১৪৪৫ হিজরি

২৯ শে মার্চ, ২০২৪ সকাল ৮:১৬

ইসিয়াক বলেছেন: ???

৮| ০৭ ই এপ্রিল, ২০২৪ সকাল ১০:৫৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: স্বাধীনতা দিবসের কবিতার প্রথম লাইনটাই ভুল। বাংলাদেশ ভূখণ্ডের যে আয়তন আপনি উল্লেখ করেছেন, সেটা বর্গমাইলে নয়, সম্ভবতঃ বর্গকিলোমিটারে হবে, তবে তাতেও উইকিপিডিয়া কিংবা বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্যের সাথে কিছুটা গড়মিল রয়েছে।
কবিতার প্রথমাংশে বাঙলা মায়ের প্রাকৃ্তিক দৃশ্যের বর্ণনাটা চমৎকার হয়েছে। + +

০৭ ই এপ্রিল, ২০২৪ দুপুর ১২:৩২

ইসিয়াক বলেছেন:
বাংলাদেশের আয়তন প্রতিনিয়ত আরো বাড়ছে। ছিটমহল সহ ১,৪৭,৬১০ এর সাথে ১৬০০ যুক্ত করলে বর্তমানে দেশের আয়তন ১,৪৯,২১০ বর্গকিলোমিটার (প্রায়)। ... পুরাণ হিসাব অনুযায়ী 56000 বর্গমাইল/1,47,570 বর্গকিলোমিটার।

পুরাণ হিসাবটাই রাখলাম প্রিয় ব্লগার। আমার আরও সতর্ক হওয়া উচিত ছিল।
অনেক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা রইলো।
ভালো থাকুন সবসময়।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.